বিয়ের জন্য চাপ দেয়ায় কিশোরীকে হত্যার অভিযোগ

কুষ্টিয়া

কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার খাইরুল ইসলাম বৃহস্পতিবার দুপুরে কিশোরী হত্যার ঘটনা ব্রিফ করেন। ছবি: নিউজবাংলা

কুষ্টিয়ার এসপি বলেন, ছেলেটি কলেজে পড়েন। মেয়েটি স্কুলে পড়তো। তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। মেয়েটি বিয়ে করার জন্য চাপ দিলে ছেলের বাড়ির লোকজন রাজি হয়নি। এই চাপেই কিশোরীকে ডেকে হত্যা করে ছেলেটি। তিনি চাকু দিয়ে মেয়েটির গলা কেটে ফেলেন, এরপর রশিতে ফাঁস দিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করেন।

কুষ্টিয়ার মিরপুরে বিয়ের জন্য চাপ দেয়ায় কিশোরী প্রেমিকাকে ভূট্টা ক্ষেতে ডেকে ছুরিকাঘাতে হত্যার অভিযোগ উঠেছে এক কিশোরের বিরুদ্ধে।

বৃহস্পতিবার দুপুর ২টার দিকে এ তথ্য জানিয়েছেন কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার (এসপি) খাইরুল ইসলাম।

বুধবার বিকাল ৪টার দিকে কুষ্টিয়া-মেহেরপুর সড়কে ভাঙ্গা বটতলার কাছে ভুট্টা ক্ষেত থেকে কিশোরীর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

থানায় মামলা করার চার ঘণ্টার মাথায় রাতেই অভিযুক্ত কিশোরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

প্রেস ব্রিফিংয়ে পুলিশ সুপার বলেন, প্রযুক্তি ব্যবহার করে মূল আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়। যে চাকু দিয়ে হত্যা করা হয়েছে. সেটি জব্দ করা হয়েছে।

এসপি বলেন, ছেলেটি কলেজে পড়েন। মেয়েটি স্কুলে পড়তো। তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। মেয়েটি বিয়ে করার জন্য চাপ দিলে ছেলের বাড়ির লোকজন রাজি হয়নি। এই চাপেই কিশোরীকে ডেকে হত্যা করে ছেলেটি। তিনি চাকু দিয়ে মেয়েটির গলা কেটে ফেলেন, এরপর রশিতে ফাঁস দিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করেন।

বুধবার বিকালে সড়কের পাশে ভুট্টা ক্ষেত থেকে মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

কিশোরীর পারিবারের বরাত দিয়ে এসপি জানান, মঙ্গলবার রাত ১টার পর থেকে তাকে পাওয়া যাচ্ছিল না।

তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত ধর্ষণের আলামত পাওয়া যায়নি, তবে আরও তদন্ত চলছে।

আরও পড়ুন:
শ্বশুরবাড়িতে কিশোরী গৃহবধূর ঝুলন্ত দেহ

শেয়ার করুন

মন্তব্য