× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

সারা দেশ
তুলশীগঙ্গার পাড় কেটে পুকুর ভরাট বর্ষায় ক্ষতির শঙ্কা
hear-news
player
google_news print-icon

তুলশীগঙ্গার পাড় কেটে পুকুর ভরাট; বর্ষায় ক্ষতির শঙ্কা

তুলশীগঙ্গার-পাড়-কেটে-পুকুর-ভরাট-বর্ষায়-ক্ষতির-শঙ্কা
অভিযুক্ত ব্যক্তির দাবি, পানি উন্নয়ন বোর্ডের কথা মতো তিনি মাটি নিয়েছেন। তবে পানি উন্নয়ন বোর্ড বলছে, ব্যক্তির নিজের প্রয়োজনে এভাবে মাটি নেয়ার কোনো সুযোগ নেই।

নওগাঁ সদর উপজেলার তুলশীগঙ্গা নদীর পাড় থেকে মাটি কেটে ব্যক্তিগত পুকুর ভরাটের অভিযোগ উঠেছে। এতে বর্ষা মৌসুমে বড় ধরনের ক্ষতির আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা। তারা বলছেন, নদীতে পানি বাড়লে প্লাবিত হবে বিস্তীর্ণ এলাকা।

অভিযুক্ত ব্যক্তির দাবি, পানি উন্নয়ন বোর্ডের কথা মতো তিনি মাটি নিয়েছেন। তবে পানি উন্নয়ন বোর্ড বলছে, ব্যক্তির নিজের প্রয়োজনে এভাবে মাটি নেয়ার কোনো সুযোগ নেই।

নওগাঁ সদর উপজেলার খিদিরপুর, পিরোজপুর ও সুলতানপুর গ্রামের মাঝ দিয়ে তুলশীগঙ্গা নদী বয়ে গেছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড থেকে গত ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে নদীর ত্রিমোহনীহাট রেগুলেটর থেকে তুলশীগঙ্গা ব্রিজ পর্যন্ত প্রায় ১০ কিলোমিটার অংশে চলতি বছরের জানুয়ারি মাসের দিকে খনন করা হয়।

খননের সময় মাটি নদীর পাড়ে রাখা হয়েছিল। যাতে বন্যার পানি রাস্তা ও এলকায় ঢুকতে না পারে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের নজরদারির অভাবে বেশ কয়েকদিন থেকে যে যার মতো করে মাটিগুলো কেটে নিচ্ছে।

অভিযোগ উঠেছে অনেক মাটি ব্যবসায়ী রাতের আধারে মাটি ইটভাটায় দিচ্ছেন। এ নিয়ে চলতি বছরের ১৩ ফেব্রুয়ারি খিদিরপুর মুন্সিপাড়া গ্রামবাসীর সঙ্গে মাটি ব্যবসায়ীদের সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটেছে।

৫/৬দিন থেকে দুটি ভেকু মেশিন ও ১০-১২টি ট্রাক্টর দিয়ে চন্ডিপুর বোর্ড ব্রিজের পাশ থেকে নদীর পাড়ের মাটি কেটে পুকুর ভরাট করছেন স্থানীয় প্রভাবশালী আব্দুল মতিন। এ নিয়ে স্থানীয়রা প্রতিবাদ জানালেও কোনো সুরাহা হয়নি।

পিরোজপুর স্থানীয় বাসিন্দা সাজ্জাদ হোসেন বলেন, ‘নদীর পাড়ের মাটি কেটে নিয়ে এসে পুকুর ভরাট করা হচ্ছে। যাদের কাজ তারা যদি না দেখে আমরা কি করব। এটা মহা অন্যায়। কৃর্তপক্ষের গুরুত্ব দিয়ে দেখা উচিত। যাদের বিষয়গুলো দেখভালের কথা তারা মনে হয় কিছুই জানে না। বা জেনেও চুপ আছে।‘

আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‘আগামীতে আমাদের জন্য অসুবিধার সম্মুখীন হতে পারে এভাবে মাটি কাটার কারণে। রাস্তার তুলনায় বাঁধ নিচু হয়ে গেছে। নদীতে পানি আসলে বাঁধ উপচে এলাকা প্লাবিত হতে পারে। আমরা স্থানীয় কয়েকজন বার বার প্রতিবাদ করলেও তারা গুরুত্ব দেয়নি। প্রভাবশালী হওয়ায় হয়তো ম্যানেজ করেই এমন অন্যায় কাজ করে যাচ্ছে। যেন দেখার কেউ নাই।’

খিদিরপুর গ্রামের বাসিন্দা সাজেদুর রহমান বলেন, ‘আমরা স্থানীয়ভাবে পানি উন্নয়ন বোর্ডকে জানিয়েছি। কিন্তু এখন পর্যন্ত তেমন কোন অগ্রগতি দেখছি না। নদীর পাড়ের মাটি এভাবে কেটে নিয়ে গেলে বন্যায় আমাদের বাড়ি ঘরে পানি উঠবে। এতে করে আমাদের বড় সমস্যায় পড়তে হবে। তা ছাড়া নদীর পাড় দিয়ে যাতায়াতও করতে হয়। কেনো যে কৃর্তপক্ষ নীরব।’

অভিযুক্ত পুকুর মালিক আব্দুল মতিন রানীনগর উপজেলায় প্রশাসনিক কর্মকর্তা। তিনি বলেন, ‘নদী খননের সময় আমাদের জায়গার ওপর নদীর মাটি রাখা হয়েছিল। এতে করে আমাদের সম্পত্তি নষ্ট করেছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। আমরা আবাদ করতে পারছি না।

তুলশীগঙ্গার পাড় কেটে পুকুর ভরাট; বর্ষায় ক্ষতির শঙ্কা

‘গত ৫-৬ দিন থেকে নদীর পাড়ের মাটি সরানোর কাজ করছি। পানি উন্নয়ন বোর্ড বলেছে, যে যার মতো মাটি সরিয়ে নিতে। নদীর পাড়ের মাটিগুলো দিয়ে পাশেই নিজেদের পুকুর ভরাটের কাজ করছি।‘

এ মাটিগুলো নদীর বাঁধ রক্ষার জন্য এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘মাটি ফেলার কারণে আমার কিছু জমি নষ্ট হয়েছিল। বিস্তারিত কথা পারলে আপনারা পানি উন্নয়ন বোর্ডকে বলেন।‘

এর পর ফোন কেটে দেন তিনি।

মাটি ব্যবসায়ী লিটন হোসেনের সঙ্গে ফোনে কথা হলে তিনি বলেন, ‘যারা পুকুর ভরাট করছেন তারা আমার বন্ধু হয়। মাটি কাটা ও পরিবহনের জন্য গাড়িগুলো ঠিক করে দিয়েছি। এতে আমার কোনো ধরনের লাভ নাই বলে ফোন কেটে দেন।‘

নওগাঁ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ সহকারী প্রকৌশলী মাছুদ রানা বলেন, ‘কর্তৃপক্ষের লিখিত অনুমতি সাপেক্ষে নিচু জায়গা, মসজিদ, মন্দির ও সেবামূলক কাজে ভরাট করা যাবে। তবে ব্যক্তিগত কোনো জায়গায় এভাবে কেউ ভরাট করতে পারবেন না। সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে অফিসের লোক পাঠিয়েছিলাম। সেখানে কাউকে পাওয়া যায়নি। বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখব।‘

নওগাঁ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মির্জা ইমাম উদ্দিন বলেন, জনকল্যাণমূলক এবং ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক হলে মাটি সরিয়ে নিতে পারবেন। তবে ব্যক্তিগত কাজে নদীর পাড়ের মাটি কেটে ব্যবহার করা যাবে না। বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখব।’

আরও পড়ুন:
কমছে পানি, দিচ্ছে ত্রাণ
পদ্মায় বাড়ছে পানি: তলিয়ে যাচ্ছে শিবচরের নিম্নাঞ্চল

মন্তব্য

আরও পড়ুন

সারা দেশ
Trawler sank in the sea the bodies of two more Rohingya women were found

সাগরে ট্রলারডুবি: ভেসে এলো আরও দুই রোহিঙ্গা নারীর মরদেহ

সাগরে ট্রলারডুবি: ভেসে এলো আরও দুই রোহিঙ্গা নারীর মরদেহ
ট্রলারডুবির ঘটনায় এখন পর্যন্ত এক শিশু ও পাঁচ নারীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশের করা মামলায় রোহিঙ্গাসহ ৬ দালালকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

কক্সবাজারের টেকনাফে রোহিঙ্গাবাহী মালয়েশিয়াগামী ট্রলারডুবির পরদিন সাগরে ভেসে উঠেছে আরও দুই রোহিঙ্গা নারীর মরদেহ। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত এক শিশু ও পাঁচ নারীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

টেকনাফের বাহারছড়া ইউনিয়নের উত্তর শীলখালী সাগর পয়েন্ট থেকে বুধবার রাত পৌনে ১১ টার দিকে মরদেহগুলো উদ্ধার করা হয়।

বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাফিজুর রহমান।

তিনি জানান, রাতে শীলখালী সাগর উপকুলে দুই নারীর মরদেহ ভেসে আসে। খবর পেয়ে পুলিশ মরদেহদুটি উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠায়।

অবৈধভাবে মালয়েশিয়া যাওয়ার পথে টেকনাফে বঙ্গোপসাগর উপকূলে মঙ্গলবার ভোরে রোহিঙ্গাবাহী একটি ট্রলার ডুবে যায়। এরপর জীবিত উদ্ধার হয় ৪৮ জন।

উদ্ধার হওয়া যাত্রীদের বরাতে পুলিশ জানিয়েছে, ওই ট্রলারে ৭০ জনের মতো রোহিঙ্গা ছিল। সে হিসেবে এখনও অনেকে নিখোঁজ আছেন।

এ ঘটনায় পুলিশের করা মামলায় রোহিঙ্গাসহ ৬ দালালকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার রাতে ২৪ জনকে এজাহারভুক্তসহ ১০-১৫ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে টেকনাফ থানায় মামলাটি করেন বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক (এসআই) হুসনে মুবারক।

আরও পড়ুন:
সাগরে রোহিঙ্গাবোঝাই ট্রলারডুবির মামলায় গ্রেপ্তার ৬
সাগরে ট্রলারডুবিতে ৩ রোহিঙ্গার মরদেহ উদ্ধার, নিখোঁজ ২৯
রূপসায় ট্রলারডুবি: নিখোঁজ শ্রমিকের মরদেহ উদ্ধার
বঙ্গোপসাগরে ট্রলারডুবি: ৩ মরদেহসহ উদ্ধার ৪৫ রোহিঙ্গা
রূপসায় বাল্কহেডের ধাক্কায় ট্রলারডুবি, শ্রমিক নিখোঁজ

মন্তব্য

সারা দেশ
Goodbye Goddess

দেবী বিদায়ের মুহূর্ত

দেবী বিদায়ের মুহূর্ত
মর্ত্য ছেড়ে বুধবার কৈলাসে ফিরতে যাত্রা করেছেন দেবী দুর্গা। পুরাণ অনুযায়ী, এবার দেবী মর্ত্যে এসেছেন গজে চেপে। এর অর্থ হলো সুখ ও সমৃদ্ধি বয়ে আনা। দেবী মর্ত্য ছেড়েছেন নৌকায় চড়ে। এর ফলে ধরণি হবে শস্যপূর্ণ, তবে থাকবে অতিবৃষ্টি বা বন্যা। বিভিন্ন জেলা থেকে নিউজবাংলার প্রতিবেদকদের পাঠানো দুর্গাবিদায়ের ছবি নিয়ে এই ফটোস্টোরি।
দেবী বিদায়ের মুহূর্ত
দেবী মাকে বিদায় জানাতে উৎসবে মেতে ওঠেন ভক্তরা। বিসর্জনের আগ পর্যন্ত তারা একে-অন্যকে সিঁদুরে রাঙান, ঢাক-ঢোলের তালে নাচ-গান করেন। ছবিটি ব‌রিশাল মহানগ‌রের রাধা গো‌বিন্দ নিবা‌সের। ছবি: নিউজবাংলা

দেবী বিদায়ের মুহূর্ত
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মণ্ডপে দেখা গেছে দুর্গাবিদায়ের আগ মুহূর্তের এই সিঁদুর খেলার দৃশ্য। ভক্তরা জানান, সিঁদুরের লাল রঙ শক্তি ও ভালোবাসার প্রতীক। ছবিটি দক্ষিণ কালিবাড়ি পূজামণ্ডপ থেকে তোলা। ছবি: নিউজবাংলা

দেবী বিদায়ের মুহূর্ত
চট্টগ্রামের পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতে বিসর্জনের জন্য আনা হয়েছে দেবী দুর্গার এই প্রতিমা। পতেঙ্গার পাশাপাশি নেভাল-২, অভয়মিত্র ঘাট এবং কর্ণফুলী নদীর কালুরঘাট সেতু এলাকাতেও হয়েছে বিসর্জন। ছবি: নিউজবাংলা

দেবী বিদায়ের মুহূর্ত
দেবীর বিসর্জন হিন্দুদের ধর্মীয় উৎসব হলেও এই দৃশ্য দেখতে দর্শনার্থীরাও জড়ো হন। এই ছবি কক্সবাজারের লাবনী পয়েন্ট থেকে তোলা। বুধবার বিকেলে সেখানে বিসর্জন করতে ও দেখতে ভিড় জমায় লাখো লোক। ছবি: নিউজবাংলা

দেবী বিদায়ের মুহূর্ত
রাজশাহীতে পদ্মা নদীর চারটি ঘাটে হয়েছে প্রতিমা বিসর্জন। সবচেয়ে বেশি বিসর্জন করা হয় মুন্নুজান ঘাটে। এ বছর জেলায় সাড়ে ৪০০ মণ্ডপে দুর্গাপূজা হয়েছে। ছবি: নিউজবাংলা

দেবী বিদায়ের মুহূর্ত
দেবীর আরাধনা, সিঁদুর খেলা ও নাচ-গানের পর লালমনিরহাটে বিকেল ৪টায় শুরু হয় বিসর্জন। ছবি: নিউজবাংলা

দেবী বিদায়ের মুহূর্ত
মৌলভীবাজার জেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সিদ্ধান্তে বিকেলে মনুনদের দক্ষিণ প্রান্তে পৌরশহরের পূজা মণ্ডপগুলোর প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে দেবীকে বিদায় জানানো হয়। ছবি: নিউজবাংলা

দেবী বিদায়ের মুহূর্ত
দেবীর বিসর্জনের এই দৃশ্য সুনামগঞ্জের সুরমা নদীর রিভার ভিউ এলাকার। বিকেল থেকে সেখানে শুরু হয় দুর্গোৎসবের সবশেষ কার্যক্রম। ছবি: নিউজবাংলা
আরও পড়ুন:
দুর্গার প্রতিমা গড়ে আলোচনায় ১৩ বছরের কিশোর
দুর্গাপূজার শুভেচ্ছা জানালেন লিটন-সৌম্য
মোমের আলোয় অপার্থিব পূজা মণ্ডপ
‘নিষিদ্ধ’ নারীদের দেয়া মাটিও মিশে আছে দুর্গা প্রতিমায়
বিদায়ের ক্ষণে দেবী দুর্গা, আজ চামুণ্ডার পূজা

মন্তব্য

সারা দেশ
Muslim youth drowned with idol

প্রতিমার সঙ্গে ডুবে মুসলিম যুবকের মৃত্যু

প্রতিমার সঙ্গে ডুবে মুসলিম যুবকের মৃত্যু আকাশের স্বজনদের আহাজারি। ছবি: নিউজবাংলা
প্রাণ হারানো আকাশের বাবা সোজাউর রহমান রানা জানান, আকাশ প্রতি বছরই বন্ধুবান্ধব নিয়ে প্রতিমা বিসর্জন অনুষ্ঠানে যোগ দিতেন। এবারও গিয়েছিলেন ব্রহ্মপুত্র তীরে।

জামালপুরে প্রতিমা বিসর্জন অনুষ্ঠানে গিয়ে ব্রহ্মপুত্র নদে ডুবে এক মুসলিম যুবকের মৃত্যু হয়েছে।

২২ বছরের আকাশ জামালপুর সদর উপজেলার নান্দিনা এলাকার সোজাউর রহমান রানার ছেলে।

জামালপুর ফায়ার সার্ভিস বুধবার রাত ৮টার দিকে আকাশকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

জামালপুর ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের কর্মকর্তা রবিউল ইসলাম আকন্দ জানান, বুধবার সন্ধ্যায় জামালপুর শহরের পুরাতন ফেরিঘাট এলাকায় ব্রহ্মপুত্র নদে প্রতিমা বিসর্জন হয়। ওই অনুষ্ঠানে যোগ দেন আকাশ ও তার বন্ধুরাও।

বিসর্জনের সময় অন্য সবার সঙ্গে উল্লাস করছিলেন আকাশ। এ সময় প্রতিমার নিচে চাপা পড়ে পানিতে ডুবে যান তিনি।

প্রাণ হারানো আকাশের বাবা সোজাউর রহমান রানা জানান, আকাশ প্রতি বছরই বন্ধু বান্ধব নিয়ে প্রতিমা বিসর্জন অনুষ্ঠানে যোগ দিতেন। এবারও অনুষ্ঠানে যোগ দিতে বিকালে বাড়ি থেকে বের হন তিনি।

রাত সাড়ে ৮টার দিকে পরিবারের সদস্যরা খবর পান আকাশ প্রতিমার নিচে চাপা পড়ে পানিতে ডুবে মারা গেছে।

প্রতিমার সঙ্গে ডুবে মুসলিম যুবকের মৃত্যু
আকাশের স্বজনের আহাজারি

জামালপুর থানার ওসি জানিয়েছেন, লাশ উদ্ধার করে জামালপুর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
উমার বিদায়বেলা
দুর্গা আসেননি মণ্ডপে, ঝুলছে কালো পতাকা
ঢাক বাজিয়ে মণ্ডপ মাতালেন খাদ্যমন্ত্রী
বরাবরই ব্যতিক্রম টাইগার সংঘের পূজা
দুর্গার প্রতিমা গড়ে আলোচনায় ১৩ বছরের কিশোর

মন্তব্য

সারা দেশ
Big market of Khulna without fire safety

অগ্নিনিরাপত্তাহীন খুলনার বড় বাজার

অগ্নিনিরাপত্তাহীন খুলনার বড় বাজার
খুলনা ফায়ার সার্ভিসের উপ-পরিচালক সালেহ উদ্দিন বলেন, ‘এখানে গলিগুলো এত সরু যে আমাদের ছোট গাড়িটিও আগুনের কাছাকাছি নেয়া যায়নি। এখানে ফায়ার সেফটির ন্যূনতম ব্যবস্থা নেই। দোকানগুলোতে নিরাপত্তা বলতে কিছু নেই। বিদ্যুতের লাইনেও ঝামেলা আছে।’

বড় বাজার হিসেবে পরিচিত খুলনা বিভাগের বৃহত্তম পাইকারি বাজারে আগুনে পুড়ে গেছে ৭ টি দোকান ও গোডাউনের মালামাল। ফায়ার সার্ভিস বলছে, অগ্নি নিরাপত্তার জন্য ন্যূনতম ব্যবস্থা নেই বাজারটিতে।

বুধবার দুপুর ১টার দিকে খুলনা মহানগরীর বড় বাজারে ভৈরব স্ট্যান্ড রোডের একটি দোকান থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সদস্যরা ২ ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন।

বড় বাজার ব্যবসায়ী সমন্বয় সমিতির সাধারণ সম্পাদক শেখ আনিচুর রহমান মিঠু বলেন, ‘পূজা উপলক্ষে বড় বাজারের সব দোকানপাট বন্ধ ছিল। দুপুরে কংস বণিক ভাণ্ডার নামে একটি অ্যালুমিনিয়ামের দোকানে আগুন লাগে। সেখান থেকে অন্যান্য দোকানে আগুন ছড়িয়ে পড়ে।

‘একে একে কংস বনিক ভান্ডার, সুরুচি বস্ত্রালয়, নাহিদ আমব্রেলা ও হোসেন হার্ডওয়ার নামক চারটি দোকান পুড়ে যায়। এই দোকানের উপরে থাকা আরও তিনটি গোডাউনেও আগুন ছড়িয়ে পড়ে। আগুনে প্রায় আড়াই কোটি টাকার মালামাল পুড়ে গেছে।’

অগ্নিনিরাপত্তাহীন খুলনার বড় বাজার

ফায়ার সার্ভিসের কন্ট্রোল রুম সূত্র জানায়, দুপুর ১টা ৭ মিনিটের দিকে মোবাইল ফোনে আগুনের খবর জানানো হয়। পরে খুলনার বিভিন্ন স্টেশন থেকে ৮টি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

ইউনিটগুলোর নেতৃত্বে ছিলেন খুলনা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপ-পরিচালক সালেহ উদ্দিন। তিনি বলেন, ‘দোকানগুলোতে প্লাস্টিক জাতীয় পদার্থ থাকায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে একটু বিলম্ব হয়েছে। ধারণা করছি শর্ট সার্কিট থেকে আগুন লেগেছে। ক্ষতির পরিমাণ ও আগুন লাগার কারণ তদন্তে বেরিয়ে আসবে।’

সুরুচি বস্ত্রালয়ের স্বত্বাধিকারী সমর কুমার ব্যানার্জি বলেন, ‘আমার কিছু থাকল না। আগুনে নগদ ১০ লাখ টাকা পুড়ে গেছে। মালামাল পুড়ে এক কোটি টাকার। টাকাটা আজ ব্যাংকে জমা দেয়ার কথা ছিল। আগুন লাগার পর ক্যাশের টাকা চুরিও গেছে।’

বড় বাজারের ব্যবসায়ী শেখ কামরুজ্জামান বলেন, ‘আমরা ফায়ার সার্ভিসকে তাৎক্ষণিক খবর দিলেও তারা অনেক পরে এসেছে। তারপর আগুন নেভানোর জন্য পানি দিতেও দেরি করেছে। এতে আমরা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি।’

অগ্নিনিরাপত্তাহীন খুলনার বড় বাজার

এ ব্যাপারে উপ-পরিচালক সালেহ উদ্দিন বলেন, ‘আগুন নেভাতে দেরি হওয়ায় আমাদের দোষ ঠিক নয়। আমরা খবর পাওয়ামাত্রই চলে এসেছি। তবে এখানের গলিগুলো এতটাই সরু যে আমাদের ছোট গাড়িটিও আগুনের কাছাকাছি নেয়া যায়নি। ফায়ার সেফটির ন্যূনতম ব্যবস্থা নেই। এ জন্য আগুন নেভাতে বেশ কষ্ট হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘অনেক আগে এই বাজার গড়ে উঠেছে। প্রতিটি দোকানে লাখ লাখ টাকার মালামাল রয়েছে। দোকানগুলোতে নিরাপত্তা বলতে কিছু নেই। ভূমিকম্প হলেও এখানে অনেক ক্ষতি হবে। বিদ্যুতের লাইনেও এখানে ঝামেলা আছে। অধিকাংশ দোকানে নিরাপদভাবে বিদ্যুৎ ব্যবহার করা হয় না।’

আরও পড়ুন:
দুর্বৃত্তের আগুনে গুরুতর দগ্ধ দম্পতি
ডেসটিনির গুদামের আগুন নিয়ন্ত্রণে
সিলিন্ডারের আগুনে পুড়ে ছাই বসতঘর
চীনে নিভেছে জ্বলতে থাকা সেই ভবনের আগুন
ফোম তৈরির গুদামঘর পুড়ল আগুনে

মন্তব্য

সারা দেশ
Hanifs broken bus overturned 4 cars

৪ গাড়ি দুমড়ে-মুচড়ে দিল হানিফের ব্রেকফেল করা বাস

৪ গাড়ি দুমড়ে-মুচড়ে দিল হানিফের ব্রেকফেল করা বাস হানিফ বাসের ধাক্কায় দুমড়ে-মুচড়ে যাওয়া মিনিবাস ও সিএনজি অটোরিকশা।
এ ঘটনায় আহতদের উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক একজনকে মৃত ঘোষণা করেন।

চট্টগ্রামে হানিফ পরিবহনের একটি বাস ব্রেকফেল করে অন্য একটি মিনিবাস, দুটি সিএনজি অটোরিকশা ও একটি মোটরসাইকেলে ধাক্কা দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় একজন নিহত ও পাঁচজন আহত হয়েছেন।

বুধবার বেলা সাড়ে ৪টার দিকে বাকলিয়া থানার শাহ আমানত সেতু এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

তাৎক্ষণিকভাবে হতাহতের নাম জানা যায়নি।

বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন বাকলিয়া থানার ওসি আব্দুর রহিম।

ওসি জানান, চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে শাহ আমানত সেতুর শহর প্রান্তে চট্টগ্রামমুখী হানিফ পরিবহনের বাসটি ব্রেকফেল করে। পরে এটি নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে দুটি সিএনজি অটোরিকশা, একটি মিনিবাস ও একটি মোটরসাইকেলে ধাক্কা দেয়। এতে ৬ জন মারাত্মক আঘাত পান।

আহতদের উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক একজনকে মৃত ঘোষণা করেন। বাকিদের বিভিন্ন ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়।

নিহতের মরদেহ চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে বলেও জানান ওসি।

আরও পড়ুন:
২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে গুলিস্তানে বাসচাপায় আরেক নারী নিহত
মালিক-শ্রমিক দ্বন্দ্বে বাস বন্ধ মেহেরপুর-কুষ্টিয়ায়
বাসে ভাড়া কমানো ই-টিকিটিং টিকবে তো?
বাসের চাকায় প্রাণ গেল যুবলীগ নেতার

মন্তব্য

সারা দেশ
The death of a young man caught in the wires of the lighting of the puja

পূজার আলোকসজ্জার তারে জড়িয়ে যুবকের মৃত্যু

পূজার আলোকসজ্জার তারে জড়িয়ে যুবকের মৃত্যু প্রতীকী ছবি
শেরপুর থানার ওসি আতাউর রহমান খোন্দকার বলেন, ‘রুপমের মরদেহটি পুলিশ হেফাজতে আছে। সুরতহাল শেষে অপমৃত্যু মামলা হবে।’

বিসর্জনের জন্য মণ্ডপ থেকে প্রতিমা নামানোর সময় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে বগুড়ার শেরপুরে রুপম কর্মকার জগো নামে এক যুবক মারা গেছেন।

বুধবার বিকেল ৫টার দিকে উপজেলার পৌর শহরের পূবালী সংঘ পূজামণ্ডপে এ ঘটনা ঘটে।

৩২ বছর বয়সী রুপম উপজেলার উত্তর সাহাপাড়া এলাকার মৃত রঘুনাথ কর্মকারের ছেলে।

শেরপুর থানার ওসি আতাউর রহমান খোন্দকার নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ওসি জানান, পূবালী সংঘ পূজামণ্ডপে বিকেলে বিসর্জনের জন্য প্রতিমা নামানোর প্রস্তুতি চলছিল। ধারণা করা হচ্ছে, ওই মণ্ডপে আলোকসজ্জার জন্য টানানো বৈদ্যুতিক তারে কোথাও ছিদ্র ছিল। সেই ছিদ্রের সংস্পর্শে গিয়েই রুপম কর্মকার বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন।

পরে মণ্ডপে উপস্থিত স্থানীয়রা রুপমকে শেরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ওসি বলেন, ‘রুপমের মরদেহটি পুলিশ হেফাজতে আছে। সুরতহাল শেষে অপমৃত্যু মামলা হবে। পরে তাকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।’

আরও পড়ুন:
দুর্গা আসেননি মণ্ডপে, ঝুলছে কালো পতাকা
ঢাক বাজিয়ে মণ্ডপ মাতালেন খাদ্যমন্ত্রী
বরাবরই ব্যতিক্রম টাইগার সংঘের পূজা
দুর্গার প্রতিমা গড়ে আলোচনায় ১৩ বছরের কিশোর
দুর্গাপূজার শুভেচ্ছা জানালেন লিটন-সৌম্য

মন্তব্য

সারা দেশ
Svechasevak League leader jailed for 6 months for drunkenness in the pavilion

মণ্ডপে মাতলামি করায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার ৬ মাস জেল

মণ্ডপে মাতলামি করায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার ৬ মাস জেল ৬ মাসের জেল ছাড়াও স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে ২০০ টাকা অর্থদণ্ডও দেয়া হয়। ছবি: নিউজবাংলা
লোহাগাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শরীফ উল্যাহ বলেন, ‘লোহাগড়া থানার ওসিসহ আমরা রাউন্ডে ছিলাম। খবর পেয়ে ওই মণ্ডপে গিয়ে ঘটনার সত্যতা পাই।’

চট্টগ্রামের লোহাগড়ার বড়হাতিয়ায় মদ্যপ অবস্থায় পূজামণ্ডপে ঢুকে মাতলামি করায় স্বেচ্ছাসেবক লীগের এক নেতাকে ৬ মাসের কারাদণ্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

বুধবার রাতে নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন লোহাগাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শরীফ উল্যাহ।

দণ্ড পাওয়া স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার নাম জুয়েল হিরু। তিনি বড়হাতিয়া ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের গ্রন্থ ও প্রকাশনা সম্পাদক।

ইউএনও শরীফ উল্যাহ জানান, মঙ্গলবার রাতে মদ্যপ অবস্থায় বড়হাতিয়া ইউনিয়নের উত্তর বড়হাতিয়া সেনেরহাট এলাকার একটি পূজামণ্ডপে ঢুকে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করেন জুয়েল। গালিগালাজ ছাড়াও দর্শনার্থীদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহারও করছিলেন তিনি।

এ সময় মণ্ডপে দায়িত্ব পালন করা আনসার সদস্যরা তাকে নিবৃত্তের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন।

ইউএনও বলেন, ‘লোহাগড়া থানার ওসিসহ আমরা রাউন্ডে ছিলাম। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে সত্যতা পাই। পরে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে পরীক্ষার মাধ্যমে মদ্যপ থাকার বিষয়টি স্পষ্ট হয়।’

এ অবস্থায় তাৎক্ষণিকভাবে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে মদ্যপ অবস্থায় পূজামণ্ডপে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অভিযোগে জুয়েলকে ৬ মাসের কারাদণ্ড ও ২০০ টাকা অর্থদণ্ড করা হয় বলেও জানান ওসি।

আরও পড়ুন:
প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার রগ কাটার অভিযোগ
চলে গেলেন স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি নির্মল গুহ
স্বেচ্ছাসেবক লীগের ঢাকা মহানগরের সব থানা ও ওয়ার্ড কমিটি বিলুপ্ত
‘ভোটের দ্বন্দ্বে’ স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে ছুরিকাঘাতে হত্যা
লাইফ সাপোর্টে স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি

মন্তব্য

p
উপরে