সীমান্তের ওপারে মিলল বাংলাদেশির মরদেহ

সীমান্তের ওপারে মিলল বাংলাদেশির মরদেহ

ভোরে আদিতমারীর লোহাকুচি সীমান্তে বিজিবির সদস্যরা টহল দিচ্ছিলেন। ওই সময় সীমান্তের ৯২০ ও ৯২১ নম্বর মেইন পিলারের মাঝামঝি সাব পিলার ৮-এর কাছে ভারতের অভ্যন্তরে কুচবিহার জেলার গোপালপুর থানার ওই অংশে এক ব্যক্তির মরদেহ দেখতে পান তারা।

লালমনিরহাটের আদিতমারীতে সীমান্তের ওপারে ভারতীয় ভূখণ্ডে এক বাংলাদেশি নাগরিকের মরদেহ পাওয়া গেছে।

লালমনিরহাট-১৫ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফট্যানেন্ট কর্ণেল তৌহিদুল আলম বুধবার দুপুরে নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছন।

তিনি জানান, ভোরে আদিতমারীর লোহাকুচি সীমান্তে বিজিবির সদস্যরা টহল দিচ্ছিলেন। ওই সময় সীমান্তের ৯২০ ও ৯২১ নম্বর মেইন পিলারের মাঝামঝি সাব পিলার ৮-এর কাছে ভারতের অভ্যন্তরে কুচবিহার জেলার গোপালপুর থানার ওই অংশে এক ব্যক্তির মরদেহ দেখতে পান তারা।

স্থানীয়রা জানান, মরদেহটি আদিতমারীর মহিষতুলি এলাকার সুবল চন্দ্রের। সীমান্ত এলাকার ব্যবসায়ী আইয়ুব আলী গরু চোরাচালানে জড়িত। তার হয়ে ভারত থেকে অবৈধ পথে গরু আনতেন সুবল। প্রায় প্রতিদিনই সুবল সীমান্ত দিয়ে গরু নিয়ে আসতেন।

লেফট্যানেন্ট কর্ণেল তৌহিদুল আলম বলেন, ‘মরদেহ বর্তমানে ভারতের ভূখণ্ডে আছে। এখনও ভারতীয় বিএসএফের তরফ হতে আমাদেরকে কিছু বলা হয়নি।’

এর আগে, গত ২৯ জুন ভোরে লালমনিরহাটের পাটগ্রাম সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে রিফাত হোসেন নামের এক বাংলাদেশি যুবক নিহত হন। উপজেলার জগতবেড় সীমান্তের কোচবিহার বিএসএফ ব্যাটালিয়নের চুয়াঙ্গারখাতা ক্যাম্পের টহল দলের সদস্যদের গুলিতে নিহত হন তিনি।

সকাল ১০টার দিকে জগতবেড় ইউনিয়নের শমসেরনগর কানিরবাড়ী সীমান্তের সংলী নদীর ব্রিজের কাছ থেকে রিফাতের মরদেহ নিয়ে যায় বিএসএফ ও মাথাভাঙা থানা পুলিশ। ঘটনার ১৬ দিন পার হলেও মরদেহ ফেরত দেয়নি ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনী বিএসএফ।

আরও পড়ুন:
বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত
বিজিবি-বিএসএফ সীমান্ত সম্মেলন
লালমনিরহাট সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে আহত ১
বিএসএফের হারিয়ে যাওয়া মহিষ কই
কুড়িগ্রাম সীমান্তে বিএসএফের হাতে বাংলাদেশি আটক

শেয়ার করুন

মন্তব্য