ঘর ভেঙে ভাইরাল হওয়া সেই কিশোরীর পাল্টা অভিযোগ

ঘর ভেঙে ভাইরাল হওয়া সেই কিশোরীর পাল্টা অভিযোগ

‘তারা দীর্ঘ দিন ধরে আমাদের নির্যাতন করছে। কিন্তু আমরা কোনো বিচার পাই না। আমি পাশের বিদ্যানিকেতন স্কুলে পড়তাম। কিন্তু তারা আমাকে স্কুলে যাওয়া আসা করতেও বাধা দিত। এ কারণে ২০১৮ সালে স্কুল ছেড়ে দেই। তখন আমি ৮ম শ্রেণিতে পড়তাম।’

‘আমাদের জায়গায় ঘর বানাইছে। আমাদের ঘর থেকে বের হওয়ার রাস্তা নেই। আমরা ঘর থেকে বের হলেই গালাগালি করে। ভিডিও করে নেটে ছেড়ে দেয়। আমাদের ভবিষ্যত রয়েছে, আমাদের বিয়েশাদি এখনও হয় নাই। তারা ভিডিও কেন করবে?’

এস আর মিডিয়া নামের একটি ফেসবুক পেজ থেকে সোমবার লাইভে এসে এক নাগাড়ে কথাগুলো বলে এক কিশোরী।

ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া আরেক ভিডিওর কল্যাণেই দিন কয়েক আগে পরিচিতি পায় সিলেটের কানাইঘাটের ওই কিশোরী। ব্যাপক সমালোচনার মুখেও পড়ে।

ওই ভিডিওতে দেখা যায়, চারজন মিলে দা, লাঠিসোটা নিয়ে ভাঙচুর করছেন একটি ঘর। এক নারীর নেতৃত্বে তছনছ করে ফেলা হচ্ছে টিনের ঘর। ভেঙে ফেলা হচ্ছে আসবাবপত্র। কেটে ফেলা হচ্ছে ঘরের পাশের গাছপালা।

ভিডিওতে দা হাতে ভাঙচুর চালাতে দেখা গিয়েছিল যে কিশোরীকে, সোমবার ফেসবুক ভিডিওতে সে নিজেই অভিযোগ নিয়ে আসে। এর আগে অবশ্য ভাঙচুরের ঘটনায় এক দিনের জন্য হাজতে থেকে আসতে হয়েছে তাকেসহ পরিবারের ছয় সদস্যকে।

মূল ঘটনা ৯ জুলাইয়ের। কানাইঘাট উপজেলার লক্ষিপাশা পূর্ব ইউনিয়নের কাড়াবাল্লা গ্রামের মইনুদ্দিন লুকু ও সালেহা বেগমের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল। লুকু সম্পর্কে সালেহা বেগমের ভাসুরের ছেলে। সম্প্রতি বিরোধপূর্ণ জায়গায় একটি টিনের ঘর নির্মাণ করেন মইনুদ্দিন লুকু।

নিজের দুই কিশোরী মেয়ে ও ছেলেকে নিয়ে গত শুক্রবার এই ঘরটি ভেঙে দেন সালেহা বেগম। সেই ভাঙচুরের ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে ফেসবুকে। ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়। বিশেষ করে ওই কিশোরীর দা হাতে তেড়ে যাওয়ার দৃশ্য ভাইরাল হয় মুহূর্তেই।

শনিবার সালেহা বেগমসহ ছয়জনকে আসামি করে কানাইঘাট থানায় মামলা করেন মইনুদ্দিন লুকু। ওইদিনই তাদের গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

তবে সালেহা বেগমের দুগ্ধপোষ্য শিশু থাকায় ও অন্য আসামিরা অপ্রাপ্তবয়স্ক হওয়ায় পরদিন ১১ জুলাই তাদের জামিন দেন কানাইঘাট আমলি আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট আলমগীর হোসেন।

জামিন পাওয়ার পর সোমবার ফেসবুকে এসে জমি নিয়ে বিরোধ থাকা চাচার পরিবারের বিরুদ্ধে পাল্টা অভিযোগ করেন ভাঙচুরে অংশ নেয়া সালেহা বেগমের কিশোরী মেয়ে।

সে বলে, ‘এই জায়গা নিয়ে আমাদের বিরোধ চলছে। আদালত থেকে নিষেধ করা হয়েছে এখানে ঘর বানাতে। তবু তারা ঘর বানাইছে। তাই আমরা ঘর ভেঙে দিছি।

‘তারা দীর্ঘ দিন ধরে আমাদের নির্যাতন করছে। কিন্তু আমরা কোনো বিচার পাই না। আমি পাশের বিদ্যানিকেতন স্কুলে পড়তাম। কিন্তু তারা আমাকে স্কুলে যাওয়া আসা করতেও বাধা দিত। এ কারণে ২০১৮ সালে স্কুল ছেড়ে দেই। তখন আমি ৮ম শ্রেণিতে পড়তাম।’

ওই কিশোরী বলে, ‘আমাদের ঘর থেকে বের হওয়ার রাস্তা নেই। ঘর থেকে বের হলেই তারা নানা কথা বলে। গালাগালি করে। আমি এর বিচার চাই। বারবার বলেছি। সুষ্ঠু বিচার চাই।

‘আমার বাবা নাই। টাকা-পয়সাও নেই। তাদের সব আছে। তাই বিচার পাই না। আমরা বাধ্য হয়ে ঘর ভেঙেছি। ৫ বছর ধরে আমরা নির্যাতন সহ্য করেছি।’

এসব অভিযোগ প্রসঙ্গে মইনুদ্দিন লুকুর বক্তব্য জানা যায়নি। তবে মামলার এজাহারে তিনি লিখেছেন, জমি নিয়ে বিরোধ ও পূর্ব শত্রুতার জেরে সালেহা বেগম ও তার সন্তানরা সংঘবদ্ধভাবে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে তার বসতঘরে হামলা ও ভাঙচুর চালান। ঘরের মূল্যবান জিনিসপত্র লুটপাট করেন।

এ বিষয়ে কানাইঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তাজুল ইসলাম বলেন, ‘এসব অভিযোগ বিষয়ে তারা (সালেহার পরিবার) কখনোই পুলিশকে জানায়নি। তাদের কোনো অভিযোগ থাকলে, কারো দ্বারা নির্যাতিত হলে থানায় অভিযোগ করতে পারে। আমরা অবশ্যই আইনানুগ ব্যবস্থা নেব। তবে কোনোভাবেই আইন হাতে তুলে নেয়া সমর্থনযোগ্য নয়।’

আরও পড়ুন:
তাপবিদ্যুৎকেন্দ্রে শ্রমিক-নিরাপত্তাকর্মী সংঘর্ষে আহত ৩
উপহারের নির্মাণাধীন ঘর ভাঙচুরের অভিযোগ 
ধসে পড়ছে দেখেও প্রতিনিধি দলের মূল্যায়ন, ‘অনিয়ম হয়নি’
পরিদর্শনে ঘরে অনিয়মের চিত্র উঠে আসছে কি?
ভেঙে পড়েছে বরিশালের আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর

শেয়ার করুন

মন্তব্য

রাঙ্গামাটিতে ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থীকে গুলি করে হত্যা

রাঙ্গামাটিতে ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থীকে গুলি করে হত্যা

গুলিতে নিহত চিৎমরম ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী নেথোয়াই মারমা। ছবি: নিউজবাংলা

কাপ্তাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অংসুচাইন চৌধুরী বলেন, ‘শনিবার নেথোয়াই মারমা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। সে কারণে রাতে তার বাড়িতে ঢুকে সন্তু লারমার জেএসএসের সন্ত্রাসীরা তাকে হত্যা করেছে।’

রাঙ্গামাটির কাপ্তাইয়ে বাড়িতে ঢুকে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীকে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

কাপ্তাই উপজেলার চিৎমরম ইউনিয়নে শনিবার রাত ১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে বলে নিশ্চিত করেছেন চন্দ্রঘোনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল বাহার চৌধুরী।

৫৬ বছর বয়সী নিহত নেথোয়াই মারমা ১১ নভেম্বর চিৎমরম ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ছিলেন।

পুলিশ জানায়, শনিবার রাত ১টার দিকে একদল অস্ত্রধারী লোক নেথোয়াইয়ের বাড়িতে ঢুকে তাকে গুলি করে হত্যা করে।

এই হত্যায় সন্তু লারমার নেতৃত্বাধীন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতিকে (জেএসএস) দায়ী করেছেন কাপ্তাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অংসুচাইন চৌধুরী।

তিনি বলেন, ‘শনিবার নেথোয়াই মারমা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। সে কারণে রাতে তার বাড়িতে ঢুকে জেএসএসের সন্ত্রাসীরা তাকে হত্যা করেছে।’

এ বিষয়ে জেএসএসের কারো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুসা মাতবর নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীকে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। আমি জেলার আওয়ামী লীগের সব পদপ্রার্থীকে সজাগ থাকার আহ্বান জানাই।’

ওসি ইকবাল বাহার চৌধুরী জানান, মরদেহ আনতে পুলিশের টিম রওনা দিয়েছে।

আরও পড়ুন:
তাপবিদ্যুৎকেন্দ্রে শ্রমিক-নিরাপত্তাকর্মী সংঘর্ষে আহত ৩
উপহারের নির্মাণাধীন ঘর ভাঙচুরের অভিযোগ 
ধসে পড়ছে দেখেও প্রতিনিধি দলের মূল্যায়ন, ‘অনিয়ম হয়নি’
পরিদর্শনে ঘরে অনিয়মের চিত্র উঠে আসছে কি?
ভেঙে পড়েছে বরিশালের আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর

শেয়ার করুন

দাঁড়ানো ট্রাকে বাইকের ধাক্কা, নিহত দুই

দাঁড়ানো ট্রাকে বাইকের ধাক্কা, নিহত দুই

প্রতীকী ছবি।

শ্রীপুর থানার উপপরিদর্শক আবদুর রাজ্জাক জানান, রাত ৮টার দিকে মোটরসাইকেলে করে রাজাবাড়ীর দিকে যাচ্ছিলেন কাজল ও কালাম। ইকো কয়েল কারখানার সামনে সড়কের ওপর একটি ট্রাক দাঁড়ানো ছিল। মোটরসাইকেলটি সেই ট্রাকের পেছনে সজোরে ধাক্কা দেয়।

গাজীপুরের শ্রীপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুজন নিহত হয়েছেন।

শ্রীপুর-রাজবাড়ী আঞ্চলিক মহাসড়কের জয়নারায়ণপুর এলাকায় শনিবার রাত ৮টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন শ্রীপুরের মালিপাড়া গ্রামের ৩০ বছরের কাজল সরদার ও ভিটিপাড়া গ্রামের ৪০ বছরের আবুল কালাম।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শ্রীপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আবদুর রাজ্জাক।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাতে তিনি জানান, রাত ৮টার দিকে মোটরসাইকেলে করে রাজবাড়ীর দিকে যাচ্ছিলেন কাজল ও কালাম। ইকো কয়েল কারখানার সামনে সড়কের ওপর একটি ট্রাক দাঁড়ানো ছিল। মোটরসাইকেলটি সেই ট্রাকের পেছনে সজোরে ধাক্কা দেয়।

এতে সড়কে ছিটকে পড়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান মোটরসাইকেলচালক কাজল। হাসপাতালে নেয়ার পথে মৃত্যু হয় আরোহী কালামের।

নিহতদের পরিবারের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ময়নাতদন্ত ছাড়ায় মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
তাপবিদ্যুৎকেন্দ্রে শ্রমিক-নিরাপত্তাকর্মী সংঘর্ষে আহত ৩
উপহারের নির্মাণাধীন ঘর ভাঙচুরের অভিযোগ 
ধসে পড়ছে দেখেও প্রতিনিধি দলের মূল্যায়ন, ‘অনিয়ম হয়নি’
পরিদর্শনে ঘরে অনিয়মের চিত্র উঠে আসছে কি?
ভেঙে পড়েছে বরিশালের আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর

শেয়ার করুন

সংঘবদ্ধ ধর্ষণ মামলায় প্রেমিকসহ গ্রেপ্তার দুই

সংঘবদ্ধ ধর্ষণ মামলায় প্রেমিকসহ গ্রেপ্তার দুই

ওসি কাওসার আলী জানান, শুক্রবার ওই তরুণীর সঙ্গে সদরে দেখা করতে আসেন তার প্রেমিক মাহবুব। সঙ্গে ছিলেন তার বন্ধু পলাশ। একপর্যায়ে কাশবনে ছবি তোলার কথা বলে ওই তরুণীকে ফুলছড়ি উপজেলার গজারিয়া চরে নিয়ে আসেন মাহবুব ও তার বন্ধু।

গাইবান্ধায় সংঘবদ্ধ ধর্ষণ মামলায় দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

সাঘাটা উপজেলার ভাঙামোড় এলাকা থেকে শনিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

যারা গ্রেপ্তার হয়েছেন তারা হলেন সাঘাটা উপজেলার ২১ বছরের মাহবুব ও ২০ বছরের পলাশ।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ফুলছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাওসার আলী।

মামলার এজাহারের বরাতে তিনি জানান, সদরের এক তরুণীর সঙ্গে সাঘাটা উপজেলার মাহবুব নামের এক যুবকের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। শুক্রবার ওই তরুণীর সঙ্গে সদরে দেখা করতে আসেন মাহবুব। সঙ্গে ছিল তার বন্ধু পলাশ।

একপর্যায়ে কাশবনে ছবি তোলার কথা বলে ওই তরুণীকে ফুলছড়ি উপজেলার গজারিয়া চরে নিয়ে যান মাহবুব ও তার বন্ধু।

সেখানে প্রেমিক মাহবুব তাকে ধর্ষণ করেন। পরে এতে যুক্ত হন পলাশও। ধর্ষণ শেষে তরুণীকে ফেলে পালিয়ে যান দুজন। পরে স্থানীয়রা তরুণীকে উদ্ধার করে বাড়ি পৌঁছে দেয়।

শুরুতে বিষয়টি গোপন রাখলেও শনিবার সন্ধ্যায় তরুণীর পরিবার সব জানতে পারে। তরুণীর মা রাতেই ফুলছড়ি থানায় লিখিত অভিযোগ করেন। এর কিছু সময় পর গ্রেপ্তার করা হয় দুই অভিযুক্তকে।

ওসি কাওসার আলী আরও জানান, শনিবার রাত ১২টার দিকে অভিযোগটি মামলা হিসেবে রেকর্ড করা হয়। ওই মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে রোববার দুজনকে আদালতে তোলা হবে।

আরও পড়ুন:
তাপবিদ্যুৎকেন্দ্রে শ্রমিক-নিরাপত্তাকর্মী সংঘর্ষে আহত ৩
উপহারের নির্মাণাধীন ঘর ভাঙচুরের অভিযোগ 
ধসে পড়ছে দেখেও প্রতিনিধি দলের মূল্যায়ন, ‘অনিয়ম হয়নি’
পরিদর্শনে ঘরে অনিয়মের চিত্র উঠে আসছে কি?
ভেঙে পড়েছে বরিশালের আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর

শেয়ার করুন

বুড়িগঙ্গায় নিখোঁজ মাদ্রাসাছাত্রের মরদেহ উদ্ধার

বুড়িগঙ্গায় নিখোঁজ মাদ্রাসাছাত্রের মরদেহ উদ্ধার

ফায়ার সার্ভিসের উপসহকারী পরিচালক আবদুল্লাহ আল আরেফিন নিউজবাংলাকে জানান, সকালে শিশুটির নিখোঁজের খবর পেয়ে ডুবুরিদল বুড়িগঙ্গা নদীতে উদ্ধার অভিযান শুরু করে। বিকেল ৫টার দিকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় বুড়িগঙ্গা নদীতে নিখোঁজের ৮ ঘণ্টা পর আতিফ আফনান নামের পঞ্চম শ্রেণির এক মাদ্রাসাছাত্রের মরদেহ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিস।

সদর উপজেলার ফতুল্লার ধর্মগঞ্জের শাহিন কোলস্টোর ঘাট এলাকা থেকে শনিবার বিকেল ৫টায় মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। সকাল ৯টার দিকে নদীর তীরে থাকা একটি বাল্কহেড থেকে অন্যটিতে লাফ দিয়ে যাওয়ার সময় নদীতে পড়ে নিখোঁজ হয় শিশুটি।

লক্ষ্মীপুর জেলার দোলাকান্দী মাওলানা বাড়ির শাহাদাত হোসেনের ছেলে আতিফ আফনানের বয়স ১২ বছর। সে বাবা-মায়ের সঙ্গে ফতুল্লার হরিহরপাড়া আমতলা এলাকায় বসবাস করেন এবং ধর্মগঞ্জ ইসলামিয়া আরাবিয়া দাখিল মাদ্রাসার পঞ্চম শ্রেণিতে পড়াশোনা করত।

ফায়ার সার্ভিসের উপসহকারী পরিচালক আবদুল্লাহ আল আরেফিন নিউজবাংলাকে জানান, সকালে শিশুটি নিখোঁজের খবর পেয়ে ডুবুরিদল বুড়িগঙ্গা নদীতে উদ্ধার অভিযান শুরু করে। বিকেল ৫টার দিকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রকিবুজ্জামান জানান, সন্ধ্যার দিকে শিশুটির মরদেহ তার পরিবারের কাছে বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় কোনো মামলা হয়নি।

আফনানের বাবা শাহাদাত হোসেন বলেন, ‘সকালে জানতে পারি আফনান নদীতে পড়ে গেছে। আমরা নদীর তীরে গিয়ে তাকে অনেক খোঁজাখুঁজি করছি, কিন্তু পাইনি। আফনান সাঁতার জানে না। পরে জানতে পারি আফনান সকাল ৯টার দিকে তার মাদ্রাসার সহপাঠীদের সঙ্গে নদীর তীরে ঘুরতে গেছে।’

আরও পড়ুন:
তাপবিদ্যুৎকেন্দ্রে শ্রমিক-নিরাপত্তাকর্মী সংঘর্ষে আহত ৩
উপহারের নির্মাণাধীন ঘর ভাঙচুরের অভিযোগ 
ধসে পড়ছে দেখেও প্রতিনিধি দলের মূল্যায়ন, ‘অনিয়ম হয়নি’
পরিদর্শনে ঘরে অনিয়মের চিত্র উঠে আসছে কি?
ভেঙে পড়েছে বরিশালের আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর

শেয়ার করুন

মন্দির ও বাড়িতে হামলায় ৮৪ আসামি

মন্দির ও বাড়িতে হামলায় ৮৪ আসামি

বরিশালের গৌরনদীতে ফেসবুকে কমেন্ট করার জেরে হিন্দুদের মন্দির ও বসতঘর ভাঙচুর করা হয়েছে। ছবি: নিউজবাংলা

গৌরনদীর ধুরিয়াইল কাজিরপাড় সার্বজনীন দুর্গা মন্দির কমিটির সাধারণ সম্পাদক সুভাষ বৈদ্য জানান, কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই শুক্রবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে একদল উত্তেজিত জনতা লাঠি নিয়ে হামলা চালিয়ে মন্দিরের প্রতিমা ও আসবাবপত্র ভাঙচুর করেন।

বরিশালের গৌরনদীতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের একটি পোস্টে ‘আপত্তিকর’ কমেন্ট করার জেরে হিন্দুদের তিনটি মন্দির ও কিছু বসতঘর ভাঙচুরের ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শনিবার বিকালে মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন গৌরনদী থানার ওসি আফজাল হোসেন।

তিনি জানান, শুক্রবার দিবাগত রাতের ঘটনায় যে বাড়িতে হামলা হয়েছে সেই বাড়ির বাসিন্দা সুভাষ বৈদ্য বাদী হয়ে ২৪ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ৬০ জনের নামে মামলা করেছেন। এই মামলায় এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করা না গেলেও অভিযান অব্যহত রয়েছে।

ওসি বলেন, ‘শুক্রবার দিবাগত রাতের ঘটনাকে কেন্দ্র করে আরও একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে ধর্মীয় অবমাননার অভিযোগ এনে। সেই মামলায় মহানন্দ বৈদ্যকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

অভিযোগ আছে, পবিত্র কোরআন নিয়ে ফেসবুকের একটি পোস্টে ‘আপত্তিকর’ কমেন্ট করেন মহানন্দ। শুক্রবার সন্ধ্যার পর বিষয়টি স্থানীয় কিছু মুসলিমের নজরে এলে মুহূর্তের মধ্যেই তা ভাইরাল হয়ে যায়। পরে স্থানীয় মুসলিমরা মহানন্দকে আটক করে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেন।

কিন্তু ওই রাতেই স্থানীয় কয়েকজন মিলে ধুরিয়াইল কাজিরপাড় সার্বজনীন দুর্গা মন্দির, হরি মন্দির এবং জগদীশ বৈদ্যর বাড়ির হরি মন্দিরে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় ওই এলাকার হিন্দুদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

ধুরিয়াইল কাজিরপাড় সার্বজনীন দুর্গা মন্দির কমিটির সাধারণ সম্পাদক সুভাষ বৈদ্য জানান, কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই শুক্রবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে একদল উত্তেজিত জনতা লাঠি নিয়ে হামলা চালিয়ে মন্দিরের প্রতিমা ও আসবাবপত্র ভাঙচুর করেন।

আরও পড়ুন:
তাপবিদ্যুৎকেন্দ্রে শ্রমিক-নিরাপত্তাকর্মী সংঘর্ষে আহত ৩
উপহারের নির্মাণাধীন ঘর ভাঙচুরের অভিযোগ 
ধসে পড়ছে দেখেও প্রতিনিধি দলের মূল্যায়ন, ‘অনিয়ম হয়নি’
পরিদর্শনে ঘরে অনিয়মের চিত্র উঠে আসছে কি?
ভেঙে পড়েছে বরিশালের আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর

শেয়ার করুন

বাসের ধাক্কায় স্বামী-স্ত্রী নিহত

বাসের ধাক্কায় স্বামী-স্ত্রী নিহত

দুর্ঘটনায় দুমড়েমুচড়ে যাওয়া অটোরিকশা। ছবি: নিউজবাংলা

বুড়িচংয়ের দেবপুর পুলিশ ফাঁড়ির সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) জহিরুল ইসলাম জানান, সিলেটগামী তিশা গোল্ডেন পরিবহনের একটি বাস অটোরিকশাকে চাপা দেয়ার পর গাছের সঙ্গে ধাক্কা লাগে। এতে ঘটনাস্থলে রুমির মৃত্যু হয়। আহত অবস্থায় সাইদকে ময়নামতী জেনারেল হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

কুমিল্লায় বাসের চাপায় সিএনজিচালিত অটোরিকশার দুই যাত্রী নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অন্তত ১০ জন।

বুড়িচং উপজেলার ময়নামতী এলাকায় কুমিল্লা-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়কে শনিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন আদর্শ সদর উপজেলার রত্নবতী গ্রামের আবু সাইদ ও রুমি আক্তার। তারা স্বামী-স্ত্রী।

বুড়িচংয়ের দেবপুর পুলিশ ফাঁড়ির সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) জহিরুল ইসলাম নিউজবাংলাকে জানান, সিলেটগামী তিশা গোল্ডেন পরিবহনের একটি বাস অটোরিকশাকে চাপা দেয়ার পর গাছের সঙ্গে ধাক্কা লাগে।

এতে ঘটনাস্থলে রুমির মৃত্যু হয়। আহত অবস্থায় সাইদকে ময়নামতী জেনারেল হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় বাস ও অটোরিকশার অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।

ময়নামতি হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনিসুর রহমান বলেন, ‘বাসচালক পালিয়ে যাওয়ায় তাকে আটক করা যায়নি। মরদেহগুলো ময়নাতদন্তের জন্য ময়নামতী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
তাপবিদ্যুৎকেন্দ্রে শ্রমিক-নিরাপত্তাকর্মী সংঘর্ষে আহত ৩
উপহারের নির্মাণাধীন ঘর ভাঙচুরের অভিযোগ 
ধসে পড়ছে দেখেও প্রতিনিধি দলের মূল্যায়ন, ‘অনিয়ম হয়নি’
পরিদর্শনে ঘরে অনিয়মের চিত্র উঠে আসছে কি?
ভেঙে পড়েছে বরিশালের আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর

শেয়ার করুন

কালকিনিতে পুলিশের ওপর হামলা মামলায় গ্রেপ্তার ৪    

কালকিনিতে পুলিশের ওপর হামলা মামলায় গ্রেপ্তার ৪    

কালকিনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইসতিয়াক আসফাত রাসেল বলেন, ‘পুলিশের কাজে বাধা ও সংঘর্ষের ঘটনায় ৫০ জনকে আসামি করে মামলা করা হয়। এ মামলায় ৪ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের রোববার আদালতে তোলা হবে। বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।’

মাদারীপুরে কালকিনিতে পুলিশের ওপর হামলা মামলায় ৪ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় শনিবার দুপুরে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

যাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে তারা হলেন, সাদ্দাম, রশিদ, মোস্তফা ও রবিউল। তারা সবাই কালকিনি উপজেলার বাসিন্দা।

মামলার বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, কুমিল্লায় কোরআন অবমাননার প্রতিবাদে কালকিনি পৌর এলাকার ভুরঘাটা বাসস্ট্যান্ডে শুক্রবার আসর নামাজ শেষে তৌহিদী জনতার ব্যানারে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। সাম্প্রদায়িক উষ্কানিমূলক শ্লোগান দেয়া ওই মিছিল বন্ধের নির্দেশ দিয়েছিল পুলিশ।

মিছিল বন্ধ না করায় একপর্যায়ে পুলিশ ফাঁকা গুলি ছোড়ে। এসময় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ায় মিছিলকারীরা। এতে কালকিনি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) নাসিরউদ্দিনসহ আহত হন দুই পুলিশ সদস্য। এ ঘটনায় অজ্ঞাতপরিচয় ৫০ জনকে আসামি করে মামলা করে পুলিশ।

এ বিষয়ে কালকিনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইসতিয়াক আসফাত রাসেল বলেন, ‘পুলিশের কাজে বাধা ও সংঘর্ষের ঘটনায় ৫০ জনকে আসামি করে মামলা করা হয়। এ মামলায় চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের রোববার আদালতে তোলা হবে। বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।’

আরও পড়ুন:
তাপবিদ্যুৎকেন্দ্রে শ্রমিক-নিরাপত্তাকর্মী সংঘর্ষে আহত ৩
উপহারের নির্মাণাধীন ঘর ভাঙচুরের অভিযোগ 
ধসে পড়ছে দেখেও প্রতিনিধি দলের মূল্যায়ন, ‘অনিয়ম হয়নি’
পরিদর্শনে ঘরে অনিয়মের চিত্র উঠে আসছে কি?
ভেঙে পড়েছে বরিশালের আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর

শেয়ার করুন