কবিরাজি: মনের বাসনা পূরণ না হওয়ায় চিকিৎসককে কুপিয়ে হত্যা

কবিরাজি: মনের বাসনা পূরণ না হওয়ায় চিকিৎসককে কুপিয়ে হত্যা

বাঁশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শফিউল কবির। তিনি বলেন, এহসান নামের ওই যুবক প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন, কবিরাজি চিকিৎসায় কাজ না হওয়ায় তিনি ফাতেমাকে হত্যা করেছেন।

এলাকার এক মেয়েকে পছন্দ করতেন বাঁশখালীর শীলকূপ ইউনিয়নের ২২ বছর বয়সী তরুণ মো. এহছান। অনেক চেষ্টা করেও ওই মেয়ের মন গলাতে না পারায় দ্বারস্থ হন স্থানীয় নারী কবিরাজ ফাতেমা বেগমের। কবিরাজ তাকে ডাবপড়া ও একটি তাবিজ দেন। কিন্তু এতেও ধরা দেননি তার পছন্দের সেই মেয়ে।

সোমবার সকালে আবারও একটা ডাব নিয়ে ফাতেমা বেগমের বাসায় যান এহছান। এহছানের কথামত ডাবটি পড়ে দেন ফাতেমা। ততক্ষণ সবকিছু স্বাভাবিক ছিল, কোনো কথা কাটাকাটিও হয়নি দুজনের মাঝে। এহছান হঠাৎ পাশে থাকা একটি দা নিয়ে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকেন ফাতেমাকে। তাকে বাচাতে এগিয়ে আসেন তার দুই মেয়ে জান্নাতুল ফেরদৌস পাখি ও বৃষ্টি। আসেন আত্মীয় রাবেয়া বেগমও। তাদেরকে এলোপাতাড়ি কোপান এহছান।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে এসব কথা বলেন স্থানীয় ইউপি সদস্য আহমদ ছফা।

একই কথা বললেন ফাতেমার প্রতিবেশী ও গণমাধ্যম কর্মী শিব্বির আহমেদ রানা। তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘পাশের গ্রামের এহছান একটা মেয়েকে পছন্দ করত, তাকে বশে আনতে ফাতেমার কাছ থেকে তাবিজ ও ডাবপড়া নিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু তাতে কাজ না হওয়ায় সোমবার ফের একটি ডাব নিয়ে এসে তা পড়িয়ে দিতে বলেন ফাতেমাকে। এক পর্যায়ে কোনো কথা না বলেই এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকেন ফাতেমাকে। এ সময় তার দুই মেয়ে ও এক আত্মীয় তাকে উদ্ধার করতে আসলে তাদেও কুপিয়ে আহত করেন এহছান।’

শীলকুপ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মহসীন বলেন, ‘তাবিজ সংক্রান্ত ঝামেলা নিয়ে ওই নারীকে খুন করা হয়েছে বলে জানতে পেরেছি। আমি শহরে থাকি, তাই বিষয়টি বিস্তারিত জানি না।’

কবিরাজি: মনের বাসনা পূরণ না হওয়ায় চিকিৎসককে কুপিয়ে হত্যা


বাঁশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শফিউল কবির বলেন, ‘ঘটনাস্থল থেকে স্থানীয়রা ওই তরুণকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে জানায়, ডাবপড়া ও তাবিজ কাজ না করায় তিনি ফাতেমাকে কুপিয়ে হত্যা করেন। বিষয়টি সম্পূর্ণ নিশ্চিত হতে অধিকতর তদন্তের প্রয়োজন।’

সোমবার বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত এই ঘটনায় কোনো মামলা হয়নি বলে জানান ওসি।

নিহত ৪২ বছর বয়সী ফাতেমা ওই এলাকার মোস্তাক আহমেদের স্ত্রী।

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির সহকারী উপপরিদর্শক এএসআই শীলব্রত বড়ুয়া নিউজবাংলাকে বলেন, ‘গুরুতর অবস্থায় ফাতেমাকে হাসপাতালে আনার পর চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। তার দুই মেয়ে ও এক আত্মীয়কে হাসপাতালে ভর্তি রাখা হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
ছাত্রলীগ নেতা ছুরিকাঘাতে খুন
যুবকের মৃত্যু, ভাই-ভাবি পুলিশ হেফাজতে
বাড়িতে ঢুকে যুবককে কুপিয়ে হত্যা, আটক ২
গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ, পলাতক স্বামী

শেয়ার করুন

মন্তব্য