কৃষি কর্মকর্তার মরদেহ উদ্ধার, স্বামী আটক

কৃষি কর্মকর্তার মরদেহ উদ্ধার, স্বামী আটক

রাজশাহীর পুঠিয়ার উপজেলা উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা খাদিজা আক্তার (ডানে)

খাদিজার স্বামী আবদুল ওহাব রাজশাহী নগরীর একটি স্কুলে শিক্ষকতা করেন। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি দাম্পত্য কলহের কথা স্বীকার করেছেন। বিয়েবহির্ভূত সম্পর্ক নিয়ে খাদিজা তাকে সন্দেহ করতেন। এ নিয়ে তাদের মধ্যে প্রায়ই কথা-কাটাকাটি হতো।

রাজশাহীর পুঠিয়ায় স্বামীর বাড়ি থেকে উদ্ধার হয়েছে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা খাদিজা আক্তারের মরদেহ। তিনি হত্যার শিকার নাকি আত্মহত্যা করেছেন, তা জানতে পারেনি পুলিশ। ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে স্বামী আবদুল ওয়াহাবকে।

উপজেলার জিউপাড়া ইউনিয়নের ডাঙ্গাপাড়া গ্রামে ওয়াহাবের বাড়ি থেকে বুধবার সকালে স্ত্রী খাদিজার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন পুঠিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আনোয়ার হোসেন।

তিনি জানান, ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহটি রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

এলাকাবাসীর বরাত দিয়ে পুলিশের এই কর্মকর্তা জানান, খাদিজা ও ওয়াহাবের মধ্যে প্রায়ই পারিবারিক কলহ হতো। বুধবার ভোরে ওয়াহাবের বড় ভাইয়ের মাধ্যমে খাদিজার মৃত্যুর সংবাদ পান স্থানীয়রা। তবে কীভাবে তার মৃত্যু হয়েছে, সে বিষয়টি নিয়ে রয়েছে ধোঁয়াশা।

পুলিশ জানায়, খাদিজার স্বামী আবদুল ওহাব রাজশাহী নগরীর একটি স্কুলে শিক্ষকতা করেন। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি দাম্পত্য কলহের কথা স্বীকার করেছেন। বিয়েবহির্ভূত সম্পর্ক নিয়ে খাদিজা তাকে সন্দেহ করতেন। এ নিয়ে তাদের মধ্যে প্রায়ই কথা-কাটাকাটি হতো। খাদিজার মৃত্যুর পর ওয়াহাবের বড় ভাই পুলিশকে খবর দেন। তখন খাদিজার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

খাদিজার আকস্মিক মৃত্যু নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। এটি আত্মহত্যা না হত্যা, সেটি ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পেলে ধারণা মিলবে বলে জানান পুলিশ পরিদর্শক আনোয়ার হোসেন। প্রাথমিক সন্দেহের কারণে আবদুল ওয়াহাবকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন:
গাড়ির ধাক্কায় স্কুলছাত্রের মৃত্যু
বৈদ্যুতিক তারে জড়িয়ে কর্মচারীর মৃত্যু
সুবর্ণচরে পানিতে ডুবে ৩ শিশুর মৃত্যু
নদীতে নিখোঁজ স্কুলছাত্রের মরদেহ উদ্ধার
নিখোঁজ দুই শিশুর মরদেহ মিলল বিলে

শেয়ার করুন

মন্তব্য