প্রকৌশলী মার খেলেন উত্ত্যক্তকারী সন্দেহে

প্রকৌশলী মার খেলেন উত্ত্যক্তকারী সন্দেহে

চঞ্চল আহমেদ বলেন, ‘আমার ১১ বছরের ভাগ্নিকে উত্যক্ত করছিল এক যুবক। সে পালিয়ে যায়। ওই প্রকৌশলীকে ভুলক্রমে মারধর করা হয়েছে।’

ময়মনসিংহের ভালুকায় স্কুল ছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করার অভিযোগে এক প্রকৌশলীকে পিটিয়ে আহত করেছে ওই ছাত্রীর স্বজনেরা।

উপজেলার ভরাডোবা নতুন বাসস্ট্যান্ড এলাকায় শনিবার সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে।

আহত প্রকৌশলীর নাম দুলাল মিয়া। চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার গোমস্তাপুর উপজেলার বালিয়া গ্রামের দুলাল, স্থানীয় একটি প্রতিষ্ঠানের মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, উপজেলার ভরাডোবা নতুন বাসস্ট্যান্ড এলাকায় একটি ফার্নিচারের দোকানে টেবিল কিনতে গিয়েছিলেন প্রকৌশলী দুলাল।

এ সময় স্থানীয় ঐশী বিউটি পার্লারের মালিক চুমকী, তার স্বামী মনির, মা সাহিদা ও ভাই চঞ্চলসহ কয়েকজন যুবক তাকে মারধর করে মাটিতে ফেলে দেন। পরে আশপাশের লোকজন দুলালকে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, পরে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করান।

স্থানীয় ব্যবসায়ী নাছির উদ্দিন জানান, প্রথমে চুমকী ও তার ভাই চঞ্চলসহ কয়েকজন যুবক স্থানীয় মুলতাজিম মিলের এক শ্রমিককে ধরে মারধরের চেষ্টা করেছিলেন। ওই যুবক কাপড় ফেলে দৌড়ে পালিয়ে যায়। একইরকম জামা গায়ে থাকায় দুলালকে তারা পেটায়।

চুমকীর ভাই চঞ্চল আহমেদ বলেন, 'আমার ১১ বছরের ভাগ্নিকে উত্ত্যক্ত করেছে এক যুবক। সে পালিয়ে যায়। তখন ওই প্রকৌশলীকে ভুলক্রমে মারধর করা হয়েছে।'

ঘটনার শিকার প্রকৌশলী দুলাল মিয়া বলেন, 'কাঠের টেবিল কিনতে দোকানে গিয়ে হামলার শিকার হয়েছি। এ বিষয়ে আইনি ব্যবস্থা নেব।'

ভালুকা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদুল ইসলাম বলেন, ঘটনার ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ আসেনি। তবে লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানতে পেরেছি ঘটনাটি বোঝাবুঝিতে হয়েছে। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য