ঋণ শোধে কিডনি বিক্রি করতে চান চিত্রশিল্পী

ঋণ শোধে কিডনি বিক্রি করতে চান চিত্রশিল্পী

প্ল্যাকার্ডে ‘করোনা ২ বছরের কাছাকাছি, অসহায় মানুষ, অসহায় আমি, কাজ নেই কর্ম নেই, ৩ লাখ টাকা ঋণ, ঋণ পরিশোধ করতে কিডনি বিক্রি করতে চাই, রক্তের গ্রুপ বি পজিটিভ’ লেখা রয়েছে।

করোনায় কাজ হারিয়ে বিপাকে পড়েছেন মুক্তিযুদ্ধের গল্প লেখক, শিশু সাহিত্যিক এবং চিত্রশিল্পী সাইফুল্লাহ নবীন। তাই ঋণ শোধ করতে কিডনি বিক্রি করতে চান এখন।

সাদা কাগজে লাল রংয়ে লেখা একটি প্ল্যাকার্ড হাতে রোববার দুপুরে বরিশালের অশ্বিনী কুমার হলের সামনে দাঁড়িয়ে কিডনি বিক্রির ইচ্ছার কথা প্রকাশ করতে দেখা গেছে তাকে।

প্ল্যাকার্ডে ‘করোনা ২ বছরের কাছাকাছি, অসহায় মানুষ, অসহায় আমি, কাজ নেই কর্ম নেই, ৩ লাখ টাকা ঋণ, ঋণ পরিশোধ করতে কিডনি বিক্রি করতে চাই, রক্তের গ্রুপ বি পজিটিভ’ লেখা রয়েছে।

এ সময় কৌতূহলি পথচারীরা দাঁড়িয়ে তার প্রদর্শিত প্ল্যাকার্ড পড়েন।

নবী‌নের বাড়ি বরিশাল জেলার মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার চরহোগলা গ্রামে।

এসময় সেখানে উপস্থিত সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে সাইফুল্লাহ নবীন বলেন, তার পরিবারে ৫ সদস্য। তার প্রকাশিত ৪৯টি বই বাজারে রয়েছে। এর মধ্যে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক ১০টি, শিশুতোষ গল্পের বই ২১টি, উপন্যাস ১৪টি এবং শিশুদের ছবি আঁকার বই রয়েছে ৪টি। করোনাকালে বই বিক্রি শূন্যের কোটায় নেমেছে। সাইনবোর্ড শিল্প তথা ছবি আকার কাজও নেই বললে চলে।

এই অবস্থায় জমিবন্ধক রেখে এবং আত্মীয়-স্বজনদের কাছ থেকে ৩ লাখ টাকা ধার দেনা করে সংসারের ব্যয় মিটিয়েছেন। এখন আর কেউ টাকা ধার দিতে চায় না। বই লেখার সম্মানির টাকাও দিচ্ছেন না প্রকাশকরা। এ কারণে পরিবার পরিজন নিয়ে চরম বিপাকে আছেন তিনি।

ছেলে-মেয়েদের লেখাপড়া এবং সংসারের ব্যয় মেটানোসহ ঋণের টাকা পরিশোধ করতে কিডনি বিক্রি করতে চান তিনি। এছাড়া আর কোনো বিকল্প নেই বলে জানান লেখক ও চিত্রশিল্পী সাইফুল্লাহ নবীন।

আরও পড়ুন:
বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা দিচ্ছে আবুল খায়ের গ্রুপ
বাগেরহাটে এক দিনে করোনায় রেকর্ড শনাক্ত ১৭৭
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ১১৯ মৃত্যু
বরগুনায় ঠেকানো যাচ্ছে না করোনা সংক্রমণ
খুলনা বিভাগে করোনায় এক দিনে ২৮ মৃত্যু

শেয়ার করুন

মন্তব্য

দূষিত পানি: হাইকোর্টে পরিকল্পনা জানাবে ওয়াসা

দূষিত পানি: হাইকোর্টে পরিকল্পনা জানাবে ওয়াসা

ওয়াসার দূষিত পানি দিয়ে বানানো শরবত সংস্থাটির এমডিকে পান করাতে চেয়েছিলেন মিজানুর রহমান (ডানে) নামের এক অধিকারকর্মী। ছবি: সংগৃহীত

ওয়াসার পানিতে দুর্গন্ধ কিংবা পানি পানের উপযোগী না থাকার অভিযোগ দীর্ঘদিনের। সংস্থাটির পানি দিয়ে এমডিকে শরবত পান করাতে গিয়ে সংবাদের শিরোনাম হয়েছিলেন মিজানুর রহমান নামের এক অধিকারকর্মী।

দূষিত পানি রোধে কী ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বা ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কী, তা হাইকোর্টকে জানাবে ওয়াসা।

আগামী ২ নভেম্বর বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের হাইকোর্ট বেঞ্চে ওয়াসা তাদের পরিকল্পনা জানাবে।

ওয়াসার পানিতে দুর্গন্ধ কিংবা পানি পানের উপযোগী না থাকার অভিযোগ দীর্ঘদিনের। সংস্থাটির পানি দিয়ে এমডি তাকসিম এ খানকে শরবত পান করাতে গিয়ে সংবাদের শিরোনাম হয়েছিলেন মিজানুর রহমান নামের এক অধিকারকর্মী।

দূষিত পানি নিয়ে করা রিটের আইনজীবী তানভীর আহমেদ বলেন, ‘দীর্ঘদিন পরে আজ শুনানির জন্য মামলাটি তালিকায় আসে। এরপর আদালতে বলেছি, ২ বছর ধরে তারা কী করেছে, দূষিত পানি রোধে ওয়াসা কী ধরনের ব্যবস্থা নিয়েছে, নিচ্ছে এবং ভবিষ্যৎ কর্মপরিকল্পনা কী, এসব বিষয় উপস্থাপনের পর ওয়াসা জানিয়েছে, তারা আগামী ২ নভেম্বরের মধ্যে বিষয়গুলো আদালতকে জানাবে।’

এক রিট আবেদনের শুনানি নিয়ে ২০১৮ সালের ৬ নভেম্বর ঢাকা ওয়াসার পানি পরীক্ষার জন্য প্রতিষ্ঠানের নাম উল্লেখ করে চার সদস্যের কমিটি গঠনের আদেশ দেয় হাইকোর্ট।

২০১৯ সালের ১৮ এপ্রিল স্থানীয় সরকার বিভাগের অতিরিক্ত সচিবকে আহ্বায়ক করে চার সদস্যের কমিটি গঠন করে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়।

কমিটির সদস্যরা হলেন আইসিডিডিআরবির জ্যেষ্ঠ বিজ্ঞানী মনিরুল আলম, বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক এ বি এম বদরুজ্জামান ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অণুজীব বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান সাবিতা রিজওয়ানা রহমান।

পানি পরীক্ষায় গঠিত কমিটির প্রতিবেদন ২০১৯ সালের ৭ জুলাই আদালতে উপস্থাপন করা হয়। সেই প্রতিবেদনে ঢাকা ওয়াসার ১০টি বিতরণ জোনের ৩৪টি নমুনার মধ্যে আটটিতে ব্যাকটেরিয়াজনিত দূষণ রয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়।

ওই সময় ওয়াসার আইনজীবী ব্যারিস্টার এএম মাসুম বলেছিলেন, সমন্বিত প্রতিবেদন আসার পর জোন-১ ও জোন-৪-এর একটি এবং পাতলা খান লেনে পাওয়া একটি নমুনায় যে ব্যাকটেরিয়া পাওয়া যায়, তা মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর। সেই ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া হলো ফেকেল ও ই-কোলাই।

প্রতিবেদনের সুপারিশ অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলেও জানিয়েছিলেন ব্যারিস্টার মাসুম।

আরও পড়ুন:
বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা দিচ্ছে আবুল খায়ের গ্রুপ
বাগেরহাটে এক দিনে করোনায় রেকর্ড শনাক্ত ১৭৭
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ১১৯ মৃত্যু
বরগুনায় ঠেকানো যাচ্ছে না করোনা সংক্রমণ
খুলনা বিভাগে করোনায় এক দিনে ২৮ মৃত্যু

শেয়ার করুন

বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন নিয়ে বিএনপির মত চান কাদের

বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন নিয়ে বিএনপির মত চান কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ছবি: নিউজবাংলা

নির্বাচন ও নির্বাচনি পরিবেশ বিনষ্টে বিএনপি এখনই প্রস্তুতি শুরু করেছে মন্তব্য করেছেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘তাদের এসব অসাংবিধানিক প্রয়াস অতীতের মত কোনো সুফল বয়ে আনবে না। বরং বিদ্যমান কাঠামোর আওতায় একটা ক্রেডিবল ইলেকশন আয়োজনে কী করা যায়, তা নিয়ে আপনারা মতামত দিন।’

সংবিধান মেনে বিদ্যমান আইনি কাঠামোতে কীভাবে একটি সুষ্ঠু নির্বাচন করা যায় তা নিয়ে মতামত নির্বাচন কমিশনের কাছে জমা দিতে বিএনপিকে আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। এ বিষয়ে আওয়ামী লীগও মতামত কমিশনে দেবে বলে জানান তিনি।

রাজধানীর সরকারি বাসভবন থেকে নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এ কথা বলেন আওয়ামী লীগের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ এই নেতা।

তিনি বলেন, ‘বিএনপি যেমন গায়ের জোরে আইন লঙ্ঘন করতে চায়, তেমনি সংবিধানও জানতে চায় না। জাতীয় নির্বাচন কীভাবে, কার অধীনে হবে এটা মীমাংসিত বিষয়। সংবিধান সম্মতভাবে পরবর্তী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে, নিরপেক্ষ, শান্তিপূর্ণ পরিবেশে।’

নির্বাচন ও নির্বাচনি পরিবেশ বিনষ্টে বিএনপি এখনই প্রস্তুতি শুরু করেছে মন্তব্য কাদেরের। তিনি বলেন, ‘তাদের এসব অসাংবিধানিক প্রয়াস অতীতের মত কোনো সুফল বয়ে আনবে না। বরং বিদ্যমান কাঠামোর আওতায় একটা ক্রেডিবল ইলেকশন আয়োজনে কী করা যায়, তা নিয়ে আপনারা মতামত দিন। সময় হলে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগও নির্বাচন কমিশনে মতামত দেবে।’

‘গত ১৩ বছর ধরে বিএনপি আন্দোলনের নিষ্ফল আহ্বান যেমনি ব্যর্থ হয়েছে, বর্তমান প্রয়াসও নিষ্ফল হবে’, যোগ করেন কাদের।

শেখ হাসিনার উদারতা দুর্বলতা নয়

দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিতের মেয়াদ বাড়ানো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘উদারতা’, এটাকে ‘দুর্বলতা’ ভাবলে বিএনপি ভুল করবে বলেও সতর্ক করে দিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘দেশের আইন আদালতের তোয়াক্কা না করে মনগড়া কথা বলাই বিএনপির স্বভাব। তারা অভিযোগ করেছে, সরকার নাকি বেগম জিয়াকে ভয়ে বিদেশ যেতে দিচ্ছে না। প্রকৃতপক্ষে বিএনপিই বেগম জিয়ার চিকিৎসা চায় কিনা তা নিয়ে জনমনে সন্দেহ আছে।’

বিএনপি নেতারা বেগম জিয়ার মুক্তির ইস্যুতে রাজনীতি করছেন জানিয়ে কাদের বলেন, ‘চিকিৎসার ব্যাপারে যতটা নজর দিচ্ছেন, তার চেয়ে তাদের চিন্তা বেগম জিয়াকে ইস্যু করে রাজনীতি করা।’

বেগম জিয়া কিংবা ক্ষয়িষ্ণু বিএনপিকে শেখ হাসিনা নেতৃত্বাধীন সরকার ভয় পায় না জানিয়ে কাদের বলেন, ‘তার (খালেদা জিয়ার) বয়স এবং স্বাস্থ্যের ওপর নজর দিয়ে সাজা স্থগিত করেছে চতুর্থবারের মতো। এ উদারতা একমাত্র বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাই দেখিয়েছেন। বিএনপি শেখ হাসিনার উদারতকে দুর্বলতা ভাবলে ভুল করবে।’

ভাবনায় এবং চর্চায় বিএনপির একমুখী দর্শন তাদের রাজনৈতিক অস্তিত্বের শেকড়কে দিনদিন দুর্বল করছে বলেও মন্তব্য করেন কাদের।

তিনি বলেন, ‘বেগম জিয়ার চিকিৎসা গ্রহণের বিষয়টি ইতোমধ্যেই মীমাংসিত। বিএনপি সবসময় মীমাংসিত ইস্যু নিয়ে রাজনীতি করার অপপ্রয়াস চালায়। একজন সাজাপ্রাপ্ত আসামির বিদেশ গমণ বিদ্যমান আইনে সুযোগ আছে কি-না, এটা বিএনপিও ভাল করে জানে।’

আইন মন্ত্রণালয় বিষয়টি পরিষ্কার করে জানিয়ে দিলেও বিএনপি জেনে শুনে না জানার ভান করে জনগণকে বিভ্রান্ত করার কৌশল নিয়েছে বলেও অভিযোগ কাদেরের।

তিনি বলেন, ‘যে নেত্রীর জন্য তারা এত মায়া কান্না কাঁদছেন, সেই নেত্রীর মুক্তির জন্য একটা কার্যকর বিক্ষোভ মিছিলও তারা বাংলাদেশের কোথাও এ যাবৎ করতে পারেনি।’

আরও পড়ুন:
বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা দিচ্ছে আবুল খায়ের গ্রুপ
বাগেরহাটে এক দিনে করোনায় রেকর্ড শনাক্ত ১৭৭
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ১১৯ মৃত্যু
বরগুনায় ঠেকানো যাচ্ছে না করোনা সংক্রমণ
খুলনা বিভাগে করোনায় এক দিনে ২৮ মৃত্যু

শেয়ার করুন

ব্যক্তিস্বাধীনতায় বিশ্বাসী, তবে পরীমনি ‘উচ্ছৃঙ্খল’: সোহেল তাজ

ব্যক্তিস্বাধীনতায় বিশ্বাসী, তবে পরীমনি ‘উচ্ছৃঙ্খল’: সোহেল তাজ

সোহেল তাজের সোমবারের ফেসবুক পোস্ট (বাঁয়ে) এবং এর আগে পরীমনিকে নিয়ে দেয়া স্ট্যাটাস।

উচ্ছৃঙ্খল আচরণকে নারী বা ব্যক্তিস্বাধীনতার সঙ্গে মিলিয়ে ফেললে ‘সমস্যা’ তৈরি হয় বলে মনে করছেন রাজনীতিতে দীর্ঘদিন ধরে নিশ্চুপ সোহেল তাজ। পরীমনির নাম উল্লেখ না করে ‘কিছু সেলিব্রেটির উচ্ছৃঙ্খল আচরণ’ নিয়ে ফের প্রশ্ন তুলেছেন তিনি।

সিগারেট হাতে পরীমনির ছবিতে আপত্তি জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যাপক আলোচিত-সমালোচিত সোহেল তাজ এবার নিজের অবস্থান ব্যাখ্যা করেছেন। নিজেকে ‘ব্যক্তিস্বাধীনতায় বিশ্বাসী’ দাবি করে তিনি বলেছেন, একজন মানুষের অধিকার আছে নিজের ইচ্ছা অনুযায়ী ব্যক্তিগত জীবনযাপনের।

তবে পরীমনির নাম উল্লেখ না করে ‘কিছু সেলিব্রেটির উচ্ছৃঙ্খল আচরণ’ নিয়ে ফের প্রশ্ন তুলেছেন তিনি।

নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে সোমবার দুপুরে দেয়া এক স্ট্যাটাসে সোহেল তাজ লেখেন, ‘আমি বেক্তি (ব্যক্তি) স্বাধীনতায় বিশ্বাসী I (।) কে কি (কী) পোশাক পড়লো (পরল) বা ধূমপান করলো (করল) কি না (কিনা,) করলে এগুলো শুধু নারী স্বাধীনতাই না (,) বরং ব্যক্তিস্বাধীনতার কাতারে পরে (পড়ে,) আর তাই আমি মনে করি যে একজন মানুষের (নারী বা পুরুষ) অধিকার আছে তার নিজের পছন্দ মত (মতো) তার ব্যক্তিগত জীবন পরিচালনা করার I (।)’

তবে উচ্ছৃঙ্খল আচরণকে নারী বা ব্যক্তিস্বাধীনতার সঙ্গে মিলিয়ে ফেললে ‘সমস্যা’ তৈরি হয় বলে মনে করছেন রাজনীতিতে দীর্ঘদিন ধরে নিশ্চুপ সোহেল তাজ।

তিনি লিখেছেন, ‘সমস্যা হচ্ছে যখন আমরা উসৃঙ্খল (উচ্ছৃঙ্খল) আচরনকে (আচরণকে) নারী/ব্যক্তি স্বাধীনতার সাথে (সঙ্গে) মিলিয়ে ফেলি I (।) বাংলাদেশে যখন মাদক একটি বিরাট সমস্যা (,) যখন সোশ্যাল মিডিয়ার এডিকশন এর কারণে ছেলে মেয়েরা (ছেলে-মেয়েরা) মানুসিক ভাবে (মানসিকভাবে) আক্রান্ত হচ্ছে (ডিপ্রেশন) (,) তখন নতুন প্রজন্মের জন্য প্রয়োজন ইতিবাচক অনুপ্রেরণা (,) যা আমরা পাই অনুকরণীয় ব্যক্তিত্বদের জীবন থেকে- আর সেটা কখনোই সম্ভব হবে না যদি কিছু উসৃঙ্খল (উচ্ছৃঙ্খল) সেলিব্রিটিরা (সেলিব্রিটি) তাদের বেপরোয়া ব্যক্তি জীবনধারা তাদের সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে আমাদের নতুন প্রজন্মের উপর চাপিয়ে দেয় I (।)’

সোহেল তাজ মনে করেন, অনুপ্রেরণা আসে অনুকরণীয়দের কাছ থেকে। আর এ জন্যই পরীমনির ছবিটি নিয়ে তার আক্ষেপ।

আলোচিত অভিনেত্রীর নাম উল্লেখ না করে তিনি লিখেছেন, ‘আমাদের নতুন প্রজন্মের সামনে তুলে ধরতে হবে এমন ব্যক্তিত্বদের (,) যারা তাদের দৃঢ়ঢ়তা (দৃঢ়) মনোবল এবং আত্মবিশ্বাস কে (আত্মবিশ্বাসকে) কাজে লাগিয়ে সকল (সব) প্রতিকূলতা পার করে শুধু নারী অধিকারের লড়াই করেন নাই (করেননি,) বরং সকল (সব) মানুষের কল্যানে (কল্যাণে) কাজ করে গেছেন- (।) এনাদের (ওনাদের) ইতিবাচক কর্মের (কাজের) মধ্যে রেখে গেছেন নতুন প্রজন্মের জন্য অনুপ্রেরণা।’

(এখানে সোহেল তাজের ফেসবুক পোস্টের বানান হুবহু রেখে ও বাংলা একাডেমির বানান ব্র্যাকেটের ভেতর রাখা হয়েছে। এতে দেখা যায়, সোহেল তাজের পোস্টে বানান ও যতিচিহ্ন মিলিয়ে অন্তত ৩৬টি ভুল রয়েছে।)

ব্যক্তিস্বাধীনতায় বিশ্বাসী, তবে পরীমনি ‘উচ্ছৃঙ্খল’: সোহেল তাজ
সোহেল তাজের পোস্টে অসংখ্য ভুল বানান নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে

এই পোস্ট দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে ফের সমালোচনার মুখে পড়েছেন সোহেল তাজ। তার স্ট্যাটাসের মূল বক্তব্য ছাপিয়ে, বানান ভুলের বিষয়টি নজরে এনেছেন নেটিজেনরা।

প্রীতিলতা গুপ্ত নামের একজন কমেন্ট করেছেন, ‘আপনিও নতুন প্রজন্মের অনুসরণীয়। বানানগুলো শুদ্ধ লিখলে শ্রদ্ধার জায়গাটুকু অটুট থাকে। বাংলা তো আমাদেরই।’

উত্তরে সোহেল তাজ লিখেছেন, ‘তাড়াহুড়া করে লেখা হয়েছে- ঠিক মতো চেক করা হয় নাই I (।) কোন বানানে ভুল আছে ইকটু (একটু) বলে দিলে ভাল (ভালো) হয়।’

সোহেল তাজের উত্তরেও দেখা যায় ভুল বানান রয়েছে।

ঢাকাই চলচ্চিত্রের আলোচিত চিত্রনায়িকা পরীমনি বৃহস্পতিবার ফেসবুকে ধূমপানের ভঙ্গিমায় একটি ছবি পোস্ট করে লেখেন, সিগারেট স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।

এর পরই বিষয়টির নিন্দা জানিয়ে একটি স্ট্যাটাস দেন সোহেল তাজ।

তিনি লেখেন, ‘একজন সেলেব্রিটির কাছ থেকে এ রকম অশোভন আচরণ কাম্য নয়- আমাদের ছেলে মেয়েদের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে......’

এই স্ট্যাটাস নিয়ে ফেসবুকে সরব হয়ে ওঠেন নেটিজেনরা।

আরও পড়ুন:
বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা দিচ্ছে আবুল খায়ের গ্রুপ
বাগেরহাটে এক দিনে করোনায় রেকর্ড শনাক্ত ১৭৭
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ১১৯ মৃত্যু
বরগুনায় ঠেকানো যাচ্ছে না করোনা সংক্রমণ
খুলনা বিভাগে করোনায় এক দিনে ২৮ মৃত্যু

শেয়ার করুন

নারীকে ছুরিকাঘাত, সাবেক স্বামী আটক

নারীকে ছুরিকাঘাত, সাবেক স্বামী আটক

হাসপাতালে আহত ফাহমিদাকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। ছবি: নিউজবাংলা

সদর হাসপাতালের চিকিৎসক সাজিদ হাসান জানান, ফাহমিদার দুই হাতসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গায় পূর্ব বিরোধের জেরে এক নারীকে ছুরিকাঘাতের অভিযোগে সাবেক স্বামীকে আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ বলছে, পৌর এলাকার শেখপাড়ায় সোমবার দুপুর ১২টার দিকে ওই হামলার ঘটনা ঘটে। এলাকাবাসী তাকে আটক করে পুলিশে দেয়।

আহত ফাহমিদা ফাইম শেখপাড়ার আবু কাউসার মধুর মেয়ে। আটক জসিম উদ্দিনের বাড়ি সদর উপজেলার আলুকদিয়া গ্রামে।

ফাহমিদার বাবা আবু কাউসার মধু জানান, বেশ কয়েক বছর আগে জসিমের সঙ্গে তার মেয়ের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই তাদের মধ্যে কলহ বাড়তে থাকে।

সম্পর্কের অবনতি হওয়ায় ১ বছর আগে তাদের বিচ্ছেদ হয়। কিন্তু এর পরও জসিম তার মেয়েকে নানাভাবে উত্যক্ত করত।

তিনি বলেন, ‘আজ হঠাৎ জসিম আমার বাড়িতে আসে। হঠাৎ মেয়ের ঘরে ঢুকে তাকে চাকু দিয়ে আঘাত করে। তার চিৎকারে ছুটে আসেন প্রতিবেশীরা। জসিমকে আটক করেন তারা। মেয়েকে ভর্তি করা হয় চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে।’

সদর হাসপাতালের চিকিৎসক সাজিদ হাসান জানান, ফাহমিদার দুই হাতসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা সদর থানার পরিদর্শক (অপারেশন) মাসুদুর রহমান জানান, অভিযুক্ত জসিমকে আটক করা হয়েছে। তবে এখনও থানায় কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন:
বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা দিচ্ছে আবুল খায়ের গ্রুপ
বাগেরহাটে এক দিনে করোনায় রেকর্ড শনাক্ত ১৭৭
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ১১৯ মৃত্যু
বরগুনায় ঠেকানো যাচ্ছে না করোনা সংক্রমণ
খুলনা বিভাগে করোনায় এক দিনে ২৮ মৃত্যু

শেয়ার করুন

নির্বাচনে জাতিসংঘের সহযোগিতা লাগবে না: তথ্যমন্ত্রী

নির্বাচনে জাতিসংঘের সহযোগিতা লাগবে না: তথ্যমন্ত্রী

ফাইল ছবি

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ সোমালিয়া বা ইথিওপিয়ার নয় যে, এখানে নির্বাচন অনুষ্ঠানে জাতিসংঘের সহায়তা লাগবে। আমি মনে করি নির্বাচনের এখনও অনেক বাকি। নির্বাচন কমিশন অনেক শক্তিশালী। এখানে কারও সহযোগিতা প্রয়োজন আছে বলে আমি মনে করি না।’

আগামী জাতীয় নির্বাচন সম্পন্নের বিষয়ে জাতিসংঘের সহায়তা প্রয়োজন নেই বলে জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

সোমবার নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ সোমালিয়া বা ইথিওপিয়ার নয় যে, এখানে নির্বাচন অনুষ্ঠানে জাতিসংঘের সহায়তা লাগবে।

‘আমি মনে করি নির্বাচনের এখনও অনেক বাকি। নির্বাচন কমিশন অনেক শক্তিশালী। এখানে কারও সহযোগিতা প্রয়োজন আছে বলে আমি মনে করি না।’

বাংলাদেশ চাইলে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতিসংঘ সব ধরনের সহযোগিতা দিতে প্রস্তুত বলে রোববার এক অনুষ্ঠানে জানান ঢাকাস্থ জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়ক মিয়া সেপ্পো।

তিনি বলেন, ‘জাতিসংঘ কোনো দেশের নির্বাচনি প্রক্রিয়ায় হস্তক্ষেপ করে না। তবে কোনো দেশের সরকার নির্বাচন-প্রক্রিয়ায় সহায়তা চাইলে জাতিসংঘ তা দিয়ে থাকে। আগামী জাতীয় নির্বাচনে বাংলাদেশ সরকার জাতিসংঘের কোনো সহযোগিতা চাইলে আমরা সেই সহযোগিতা দেবো।’

সরকার ও বিরোধী পক্ষের মধ্যে সমঝোতার চেষ্টায় জাতিসংঘ মধ্যস্থতার কোনো উদ্যোগ নেবে কি না, সে বিষয়টি পরিষ্কার করেননি মিয়া সেপ্পো।

তিনি বলেন, ‘নির্বাচন অনুষ্ঠান একান্তই হোস্ট কান্ট্রির স্টেকহোল্ডারদের বিষয়। তারা চাইলে জাতিসংঘ যেকোনো ধরনের সহায়তা করে। কোনো দেশ চাইলেই তাদের নির্বাচনে সহযোগিতা দেয় জাতিসংঘ। সেটা বাংলাদেশেও ঘটতে পারে।’

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির বহুল আলোচিত নির্বাচনের আগে জাতিসংঘের বিশেষ দূত হিসেবে রাজনীতি বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি অস্কার ফার্নান্দেজ তারানকো সরকার ও বিরোধী দলের মধ্যে বিরোধ নিষ্পত্তিতে মধ্যস্থতায় দুই দফা ঢাকা এসেছিলেন। কিন্তু সেই সিরিজ সংলাপ সফল হয়নি।

আরও পড়ুন:
বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা দিচ্ছে আবুল খায়ের গ্রুপ
বাগেরহাটে এক দিনে করোনায় রেকর্ড শনাক্ত ১৭৭
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ১১৯ মৃত্যু
বরগুনায় ঠেকানো যাচ্ছে না করোনা সংক্রমণ
খুলনা বিভাগে করোনায় এক দিনে ২৮ মৃত্যু

শেয়ার করুন

পরিমাণে কম, লাখ টাকা জরিমানা

পরিমাণে কম, লাখ টাকা জরিমানা

মানিকগঞ্জে ধলেশ্বরী ফিলিং স্টেশনে অভিযান। ছবি: নিউজবাংলা

ভোক্তা সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক আসাদুজ্জামান রুমেল বলেন, অভিযানের সময় তেল কম দেয়ার প্রমাণ মেলে। তখন স্টেশনের মালিককে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয় এবং পরিমাপ যন্ত্রটি ঠিক করে তেল বিক্রির নির্দেশনা দেয়া হয়।

লিটারপ্রতি তেল কম দেয়ায় মানিকগঞ্জে এক ফিলিং স্টেশন মালিককে জরিমানা করা হয়েছে।

জাতীয় ভোক্তা সংরক্ষণ অধিদপ্তর সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সদরের নারাঙ্গাই এলাকায় ধলেশ্বরী ফিলিং স্টেশনে অভিযান চালায়। এ সময় প্রতিষ্ঠানটির মালিক রাজা মিয়াকে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। বন্ধ করে দেয়া হয় তেল বিক্রিও।

অধিদপ্তরের মানিকগঞ্জের সহকারী পরিচালক আসাদুজ্জামান রুমেল জানান, দীর্ঘদিন ধরে ধলেশ্বরী ফিলিং স্টেশনে ক্রেতাদের লিটারপ্রতি তেল কম দেয়া হচ্ছে এমন অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করা হয়।

অভিযানের সময় তেল কম দেয়ার প্রমাণ মেলে। তখন স্টেশনের মালিককে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয় এবং পরিমাপ যন্ত্রটি ঠিক করে তেল বিক্রির নির্দেশনা দেয়া হয়।

যদি তারা এই নির্দেশনা অমান্য করে তাহলে ওই স্টেশনের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা দিচ্ছে আবুল খায়ের গ্রুপ
বাগেরহাটে এক দিনে করোনায় রেকর্ড শনাক্ত ১৭৭
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ১১৯ মৃত্যু
বরগুনায় ঠেকানো যাচ্ছে না করোনা সংক্রমণ
খুলনা বিভাগে করোনায় এক দিনে ২৮ মৃত্যু

শেয়ার করুন

সিনহা হত্যা: তৃতীয় দফায় সাক্ষ্য গ্রহণ চলছে

সিনহা হত্যা: তৃতীয় দফায় সাক্ষ্য গ্রহণ চলছে

সিনহা হত্যা মামলায় তৃতীয় দফায় সাক্ষ্য গ্রহণের সময় আসামিদের আদালতে আনা হয়েছে। ছবি: নিউজবাংলা

কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পিপি ফরিদুল আলম জানান, তৃতীয় ধাপে চার সাক্ষী আদালতে হাজিরা দিয়েছেন। তাদের সাক্ষ্য গ্রহণ চলছে। এ সময় আসামিরা এজলাসে উপস্থিত ছিলেন।

কক্সবাজারের টেকনাফে আলোচিত (অব.) মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলার তৃতীয় দফায় সাক্ষ্য গ্রহণ চলছে। এ দফায় ২০ থেকে ২২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে সাক্ষ্য গ্রহণ।

কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতে সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় নির্ধারিত সাক্ষীরা হাজির হন।

কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ফরিদুল আলম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, তৃতীয় ধাপে চার সাক্ষী আদালতে হাজিরা দিয়েছেন। তারা হলেন, মো. আবদুল হামিদ, ফিরোজ মাহমুদ, শওকত আলী ও সার্জেন্ট মো. আয়ুব আলী। তাদের সাক্ষ্য গ্রহণ চলছে। এ সময় আসামিরা এজলাসে উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে নির্ধারিত প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপে সাত দিনে ছয় সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ ও জেরা সম্পন্ন হয়।

পরে কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাঈল হোসেন পরবর্তী সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য ২০ থেকে ২২ সেপ্টেম্বর তারিখ ঘোষণা করেন বলে জানান মামলার রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি ফরিদুল আলম।

এর আগে দুই ধাপে ধার্য তারিখে সাক্ষ্য দেয়া ছয়জন হলেন, সিনহা হত্যা মামলার বাদী ও সিনহার বড় বোন শারমিন শাহরিয়ার ফেরদৌস ও প্রত্যক্ষদর্শী সাইদুল ইসলাম সিফাত, টেকনাফের মিনা বাজার এলাকার মোহাম্মদ আলী, সিএনজি চালক কামল হোসেন, মেরিন ড্রাইভ সড়কের পাশের মসজিদের হাফেজ মুহাম্মদ আমিন ও শামলাপুর চেকপোস্টসংলগ্ন বায়তুল নূর জামে মসজিদের ইমাম শহিদুল ইসলাম।

সাক্ষ্য গ্রহণের পরপরই ওসি প্রদীপ কুমার দাশের আইনজীবী রানা দাশ গুপ্তসহ ১৫ আসামির পক্ষে ১২ জন আইনজীবী তাদের জেরা সম্পন্ন করেন।

২০২০ সালের ৩১ জুলাই টেকনাফের শামলাপুর চেকপোস্টে মেজর সিনহা পুলিশের গুলিতে নিহত হন। এ ঘটনায় টেকনাফ থানার তৎকালীন ওসি প্রদীপ, বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ লিয়াকতসহ ৯ জনকে আসামি করে মামলা করেন সিনহার বড় বোন শারমিন শাহরিয়ার ফেরদৌসী।

২৭ জুন মামলার ১৫ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে আদালত। আলোচিত এই মামলার ১৫ আসামি কারাগারে রয়েছেন। এর মধ্যে ১২ আসামি ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সিনিয়র বেঞ্চ সহকারী (পেশকার) সন্তোষ বড়ুয়া জানান, চলতি বছরের ২৭ জুন জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাঈল মামলাটির অভিযোগ গঠন করে সাক্ষ্য গ্রহণের তারিখ নির্ধারণ করেন।

এরপর করোনায় আদালতের কার্যক্রম বন্ধ থাকায় পিছিয়ে যায় সাক্ষ্য গ্রহণের তারিখ। পরে ২৩ আগস্ট থেকে শুরু হয় সাক্ষ্য গ্রহণ। সমন জারি করা ১৫ জনের মধ্যে সব সাক্ষীই আদালতে হাজিরা দিয়েছেন। এ মামলায় ৮৩ জন চার্জশিটভুক্ত সাক্ষী রয়েছেন।

আরও পড়ুন:
বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা দিচ্ছে আবুল খায়ের গ্রুপ
বাগেরহাটে এক দিনে করোনায় রেকর্ড শনাক্ত ১৭৭
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ১১৯ মৃত্যু
বরগুনায় ঠেকানো যাচ্ছে না করোনা সংক্রমণ
খুলনা বিভাগে করোনায় এক দিনে ২৮ মৃত্যু

শেয়ার করুন