‘মহাসড়কে মহাসাগর’

‘মহাসড়কে মহাসাগর’

চট্টগ্রামে ভারী বর্ষণে কোথাও হাঁটু, কোথাও কোমর পর্যন্ত পানি উঠেছে। ছবি: নিউজবাংলা

বৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে নগরের জিইসি, দুই নম্বর গেট, প্রবর্তক মোড়, চকবাজার, বাকলিয়া, হালিশহর, আগ্রাবাদ সিডিএসহ বিভিন্ন এলাকা। এসব এলাকার সড়কে কোথাও হাঁটু, কোথাও কোমর পর্যন্ত পানি উঠেছে। এতে দুর্ভোগে পড়েছে পথচারী ও অফিসগামীরা।

এক দিনের বৃষ্টিতে ফের জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে চট্টগ্রামের নিচু এলাকাগুলোতে।

শনিবার সকাল ৯টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিসে ১২১.২ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়।

বৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে নগরীর জিইসি, দুই নম্বর গেট, প্রবর্তক মোড়, চকবাজার, বাকলিয়া, হালিশহর, আগ্রাবাদ সিডিএসহ বিভিন্ন এলাকা। এসব এলাকার সড়কে কোথাও হাঁটু, কোথাও কোমর পর্যন্ত পানি উঠেছে। এতে দুর্ভোগে পড়েছে পথচারী ও অফিসগামীরা।

নগরের দুই নম্বর গেট এলাকার বাসিন্দা সাব্বির হোসেন কাজ করেন দেওয়ানহাট এলাকার একটি পোশাক কারখানায়।

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘গতকাল রাত থেকে বৃষ্টি হচ্ছে। আর বৃষ্টি হওয়ার আগেই ডুবে যায় চট্টগ্রাম শহর। সকাল থেকে বাস কমে গেছে, রাস্তায়ও পানি।

‘কিন্তু অফিস তো এটা বুঝবে না। রাস্তায় পানি থাকায় হেঁটেও যেতে পারছি না। তাই এখানে দাঁড়িয়ে মহাসড়কে মহাসাগর দেখি।’

পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিসের সহকারী আবহাওয়াবিদ হারুনুর রশীদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘শনিবার সকাল ৯টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় ১২১.২ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। সাধারণত বৃষ্টিপাত ৮০ বা তার কাছাকাছি হলে আমরা ভারী বর্ষণ বলে থাকি। কিন্তু যেহেতু এটা ৮০ পেরিয়ে গেছে, তাই এটাকে অতি ভারী বর্ষণ বলছি আমরা।’

তিনি জানান, আগামী ২৪ ঘণ্টাও চলবে এই ভারী বর্ষণ। তবে রোববার বিকেল থেকে কমতে পারে বৃষ্টিপাত। মূলত দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু দেশের ওপর অবস্থান করায় এই বৃষ্টি হচ্ছে।

‘মহাসড়কে মহাসাগর’

চট্টগ্রাম মহানগরের দীর্ঘদিনের সমস্যা জলাবদ্ধতা। এরই মধ্যে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ), চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন ও পানি উন্নয়ন বোর্ড জলাবদ্ধতা নিরসনে চারটি প্রকল্প নিয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বড় প্রকল্পটি সিডিএর।

জলাবদ্ধতা নিরসনে খাল পুনঃখনন, সম্প্রসারণ, সংস্কার ও উন্নয়নে পাঁচ হাজার ৬১৬ কোটি ৪৯ লাখ ৯০ হাজার টাকার প্রকল্প নেয়া হয়েছে। এখনও এর কাজ শেষ হয়নি।

প্রকল্প পরিচালক ও সিডিএর নির্বাহী প্রকৌশলী আহমদ মাঈনুদ্দিন বলেন, প্রকল্পের কাজ ৫৫ শতাংশ শেষ হয়েছে। এই বছর সুফল না মিললে ২০২২ সালে সুফল মিলবে। কাজের জন্য খালে বাঁধ দেয়াতে নগরের কিছু কিছু জায়গায় জলাবদ্ধতা হচ্ছে।

এদিকে কর্ণফুলী নদীর তীর কালুরঘাট সেতু থেকে চাক্তাই খাল পর্যন্ত সাড়ে আট কিলোমিটার সড়ক ও স্লুইস গেট নির্মাণের আরেকটি প্রকল্পও বাস্তবায়ন করছে সিডিএ। ২ হাজার ৩১০ কোটি টাকা ব্যয়ে বাস্তবায়িত প্রকল্পের অগ্রগতি ৪৮ শতাংশ।

প্রকল্প পরিচালক ও সিডিএর নির্বাহী প্রকৌশলী রাজীব দাশ বলেন, ‘আমার প্রকল্পের আওতায় ৮টি স্লুইস গেট নির্মাণ করা হবে। সব গেটের কাজ শুরু হয়েছে।

‘তিনটি গেট নির্মাণকাজ শেষ। চাক্তাই খালের মুখের গেটের কাজ শেষ হওয়াতে এবার খাতুনগঞ্জে জলাবদ্ধতা হচ্ছে না। বাকিগুলোর কাজ শেষ হলে সুফল মিলবে।’

‘মহাসড়কে মহাসাগর’

চট্টগ্রাম মহানগরে নতুন করে একটি খাল খননের প্রকল্প নিয়েছে সিটি করপোরেশন। বারইপাড়া থেকে কর্ণফুলী নদী পর্যন্ত ২ দশমিক ৯ কিলোমিটার লম্বা ও ৬৫ ফুট চওড়া হবে এই খাল। এ প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ১ হাজার ২৫৬ কোটি টাকা। তবে এর কাজ এখনও শুরু হয়নি।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ জসীম উদ্দিন বলেন, ‘টাকার অভাবে আমরা ভূমি অধিগ্রহণ করতে পারছি না। সরকার টাকা বরাদ্দ দিচ্ছে না।’

বন্দরনগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে আরেকটি প্রকল্প নিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)। ১ হাজার ৬২০ কোটি ৭৩ লাখ টাকা ব্যয়ে এ প্রকল্পটিরও কাজ শুরু হয়নি।

পাউবো চট্টগ্রামের নির্বাহী প্রকৌশলী ত্রয়ন ত্রিপুরা বলেন, প্রকল্পের অবকাঠামো কাজে সহযোগিতা করবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। বর্ষার পর এর কাজ শুরু হবে।

আরও পড়ুন:
জলাবদ্ধতা নিরসনে ‘ম্যাজিক’ দেখিয়েছেন মেয়ররা: মন্ত্রী
জলাবদ্ধতা: ফতুল্লায় পানিবন্দি হাজারো মানুষ
চট্টগ্রামে হাসপাতালে হাঁটুপানি
রেকর্ড বৃষ্টিতে আবার ডুবল ঢাকা
জলাবদ্ধতা, মশার সমস্যা জানান ‘সবার ঢাকা’য়

শেয়ার করুন

মন্তব্য