দুঃসহ জীবন অবসান হচ্ছে নীলফামারীর ১২৫০ পরিবারের

দুঃসহ জীবন অবসান হচ্ছে নীলফামারীর ১২৫০ পরিবারের

সংবাদ সম্মেলনে জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী। ছবি: নিউজবাংলা

নীলফামারী সদরে ২২০টি, সৈয়দপুরে ৬০টি, কিশোরগঞ্জে ১৭০টি, জলঢাকা ও ডোমারে ৩০০ করে এবং ডিমলায় ২০০টি পরিবারকে দেয়া হবে বিনা মূল্যের ঘর।

মুজিববর্ষ উপলক্ষে দ্বিতীয় দফায় নীলফামারী জেলায় এক হাজার ২৫০টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার জমি ও ঘর পাচ্ছে।

এক ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে রোববার সকাল সাড়ে ১০টায় সুবিধাভোগীদের হাতে ঘরের চাবি ও দলিল তুলে দেবেন প্রধানমন্ত্রী।

শুক্রবার সংবাদ সম্মেলন করে বিষয়টি জানান জেলা প্রশাসক (ডিসি) হাফিজুর রহমান চৌধুরী।

তিনি জানান, নীলফামারী সদরে ২২০টি, সৈয়দপুরে ৬০টি, কিশোরগঞ্জে ১৭০টি, জলঢাকা ও ডোমারে ৩০০ করে এবং ডিমলায় ২০০টি পরিবারকে দেয়া হবে এই ঘর।

৩৯৪ বর্গফুটের একেকটি ঘর নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ১ লাখ ৯০ হাজার টাকা। আর পরিবারগুলোকে বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে ২১.৭০ শতাংশ জমি।

ডিসি জানান, ঘরগুলোতে বিদ্যুৎ সংযোগ ও টিউবওয়েল স্থাপন করা হয়েছে। দুই কক্ষের ঘরগুলোতে একটি করে টয়লেট, রান্নাঘর ও ইউটিলিটি স্পেস রয়েছে।

১১ হাজার ২৮৫টি তালিকাভুক্ত পরিবারের মধ্যে প্রথম পর্যায়ে ৬৩৭টি পরিবারকে ঘর ও জমি হস্তান্তর করা হয়।

প্রথম পর্যায়ে নির্মিত ঘরের ব্যয় হয়েছিল ১ লাখ ৭০ হাজার টাকা।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক আব্দুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আজহারুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) খন্দকার নাহিদ হাসান, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মির্জা মুরাদ হাসান, নীলফামারী সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এলিনা আকতার, রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর (আরডিসি) বেলায়েত হোসেন, নেজারত ডেপুটি কালেক্টর (এনডিসি) জাহাঙ্গীর হোসাইন, ম্যাজিস্ট্রেট জায়িদ ইমরুল মুজাক্কিন, মাসুদুর রহমান।

আরও পড়ুন:
ঘর পেয়েছেন সচ্ছল ও অবিবাহিতরাও
ভারতকে করোনা চিকিৎসাসামগ্রী পাঠাল বাংলাদেশ
নামাজ পড়ে শিশুরা পেল সাইকেল উপহার
তিন শতাধিক অসহায়ের মুখে ঈদের হাসি
হেফাজতের তাণ্ডবে আহতের বাড়িতে উপহার নিয়ে এসপি

শেয়ার করুন

মন্তব্য