নির্মাণ শেষের আগেই মুজিব কিল্লায় ফাটল

মুজিব কিল্লা

বাঁশখালীতে নির্মাণাধীন মুজিব কিল্লা নামের ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্রের কাজ শেষ হওয়ার আগেই ফাটল দেখা দিয়েছে। ছবি: নিউজবাংলা

‘মুজিব কিল্লা নির্মাণের শুরুতে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগে স্থানীয় লোকজন কাজ বন্ধ করে দেন। সঠিকভাবে কাজ করার শর্তে পুনরায় নির্মাণ শুরু করে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। এবার কাজ শেষ হওয়ার আগেই ফাটল দেখা দিয়েছে। কিল্লার পেছনের অংশে সঠিকভাবে পাইলিং না করায় দেয়াল দেবে ফেটে গেছে।’

চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে নির্মাণাধীন মুজিব কিল্লা নামের ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্রের কাজ শেষ হওয়ার আগেই ফাটল দেখা দিয়েছে।

উপজেলার ছনুয়া ইউনিয়নের বালুখালীতে প্রকল্প এলাকার লোকজনের অভিযোগ, নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী ব্যবহারের কারণে মুজিব কিল্লায় ফাটল দেখা দিয়েছে।

এলাকার মোহাম্মদ বেলাল উদ্দিন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘প্রকল্পে মাটির কাজ, স্লোপ প্রোটেকশন, ক্যাটল শেডসহ বিভিন্ন কাজ হয়েছে অত্যন্ত নিম্নমানের। ফলে স্লোপ প্রোটেকশন ও ক্যাটল শেডে ফাটল দেখা দিয়েছে।’

আরেক বাসিন্দা জমির বিন হাসান বলেন, ‘মুজিব কিল্লা নির্মাণের শুরুতে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগে স্থানীয় লোকজন কাজ বন্ধ করে দেন। সঠিকভাবে কাজ করার শর্তে পুনরায় নির্মাণ শুরু করে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। এবার কাজ শেষ হওয়ার আগেই ফাটল দেখা দিয়েছে। কিল্লার পেছনের অংশে সঠিকভাবে পাইলিং না করায় দেয়াল দেবে ফেটে গেছে।’

ছনুয়া ইউপি চেয়ারম্যান হারুনুর রশীদ জানান, অবকাঠামোতে ফাটল দেখা দেয়ায় এরই মধ্যে ইউনিয়নের পরিষদের পক্ষ থেকে প্রকল্প কর্মকর্তাদের প্রতিবাদ জানানো হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারের কারণে মুজিব কিল্লায় ফাটল দেখা দিয়েছে। এ নিয়ে স্থানীয়দের মাঝে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। সপ্তাহখানেক আগে আমরা বিষয়টি ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের লোকজনকে জানিয়েছি। আমরা উপজেলা প্রশাসনকেও জানিয়েছি। তারা বিষয়টি দেখবে বলে আশ্বাস দিয়েছে।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মুজিব কিল্লার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী জয়নাল আবেদীন কাজল বলেন, 'আমি কেন মুজিব কিল্লার কাজের দায়িত্ব পাব? আমি কি কোনো সরকারি কর্মকর্তা?’ বলে ফোনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন।

বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাঈদুজ্জামান চৌধুরী বলেন, ‘কাজটি ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের। উনাদের ঠিকাদার, ইঞ্জিনিয়ার সবকিছু দেখভাল করছেন। আমাদের তদারকির সুযোগ নেই।’

এ বিষয়ে জানার জন্য উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিও) আবুল কালাম মিয়াজীকে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের অধীনে ২০২০ সালের ১৯ আগস্ট ছনুয়া টেক আপৎকালীন ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র মুজিব কিল্লার নির্মাণকাজ শুরু হয়। নির্মাণ ব্যয় ধরা হয় ২ কোটি ৭ লাখ ২৫ হাজার টাকা। কাজের দায়িত্ব পায় কাজল অ্যান্ড ব্রাদার্স নামে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান।

মুজিববর্ষের উপহারস্বরূপ সারা দেশের মতো বাঁশখালীতেও এই মুজিব কিল্লা নির্মিত হচ্ছে। ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে নির্মাণকাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল। তা এখনও শেষ হয়নি।

শেয়ার করুন

মন্তব্য