অনির্দিষ্টকালের লকডাউনে মাগুরা

অনির্দিষ্টকালের লকডাউনে মাগুরা

মাগুরা সিভিল সার্জন শহীদুল্লাহ দেওয়ান জানান, সর্বশেষ রোববার ৫৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২১ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। একই সাথে মহম্মদপুর উপজেলা সদরে তিনদিনে ২৯ নমুনায় ১৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। সব মিলিয়ে জেলায় করোনা আক্রান্তের হার শতকরা ৪২ ভাগ।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় সোমবার সকাল থেকে মাগুরা শহরকে অনির্দিষ্টকালের জন্য লকডাউনের আওতায় আনা হয়েছে। সেই সঙ্গে জেলার মহম্মদপুর উপজেলা সদরেও লকডাউন ঘোষণা করেছে উপজেলা প্রশাসন। এ ছাড়া মাগুরার একমাত্র পৌরসভার ২, ৭ ও ৮ নং ওয়ার্ডে রেড অ্যালার্ট ঘোষণা করা হয়েছে। মহম্মদপুর উপজেলা সদর ইউনিয়নকে রেড অ্যালার্টের আওতায় আনা হয়েছে।

সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত জেলা শহরের প্রবেশপথে বাঁশের প্রতিবন্ধকতা তৈরি করতে দেখা যায়। সেখfনে পুলিশের পাশাপাশি আনসার ও স্কাউট সদস্যদের তদারকি করতে দেখা যায়। বিশেষ করে ভায়না মোড় থেকে ঢাকা রোড ও নতুন বাজার এলাকায় রিকশা, অটোরিকশা, মোটর সাইকেল প্রবেশে বাধা দেয়া হয়। তবে জরুরি পরিষেবাগুলোর যান প্রবেশে বাধা ছিল না।

মাগুরা সিভিল সার্জন শহীদুল্লাহ দেওয়ান জানান, সর্বশেষ রোববার ৫৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২১ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। একই সাথে মহম্মদপুর উপজেলা সদরে তিনদিনে ২৯ নমুনায় ১৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। সব মিলিয়ে জেলায় করোনা আক্রান্তের হার শতকরা ৪২ ভাগ।

তিনি বলেন, কঠোর লকডাউন দেয়া না হলে সংক্রমণ জেলার সবখানে ছড়িয়ে যাবে। জেলার এমন পরিস্থিতিতে জেলা স্বাস্থ্যবিভাগের পক্ষ থেকে প্রশাসনকে লকডাউনের সুপারিশ করা হয়েছিল। সেই সিদ্ধান্ত মোতাবেক সোমবার থেকে মাগুরা শহর ও মহম্মদপুর উপজেলা সদরে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে।

জেলা প্রশাসক ড. আশরাফুল আলম জানান, লকডাউন কঠোরভাবে পালনে শহরের প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরের বেশ কয়েকটি ভ্রাম্যমাণ আদালত কাজ করছে। লকডাউন কার্যকর, রেডজোনে জনসাধারনের যাতাযাত সীমিতকরণ ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা হচ্ছে কি না তা নজরদারি করা হচ্ছে। বিশেষ করে শতভাগ মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে প্রশাসন মাঠে কাজ করছে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য