কবরস্থানে গোলাগুলি: বিচারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

কবরস্থানে গোলাগুলি: বিচারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

চট্টগ্রামে কবরস্থানে গোলাগুলির ঘটনার বিচার চেয়ে সংবাদ সম্মেলন। ছবি: নিউজবাংলা

আহমেদ ইলিয়াছ বলেন, ‘এখন পর্যন্ত পুলিশ পাঁচ আসামিকে গ্রেপ্তার করলেও আসল অভিযুক্তরা এখনও ধরাছোঁয়ার বাইরে আছেন। অবিলম্বে অবৈধ অস্ত্রগুলো জব্দ করে সন্ত্রাসী ইয়াকুবসহ জড়িতদের আইনের আওতায় আনতে প্রশাসনের প্রতি জোর দাবি জানাই।’

চট্টগ্রামের বাকলিয়ায় কবরস্থানে সাইনবোর্ড টাঙানো নিয়ে গোলাগুলির ঘটনায় বিচারের দাবি জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছে একটি পক্ষ।

চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সোমবার দুপুর ১২টার দিকে এই দাবি জানান তারা।

‘বাকলিয়ার জনসাধারণের’ ব্যানারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে আহমেদ ইলিয়াছ বলেন, ‘৭০ বছরের ঐতিহ্য বড় মৌলভী কবরস্থান ক্রয়সূত্রে আমাদের পারিবারিক কবরস্থান, যা এলাকার জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত। তবে এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী ইয়াকুব আলী কবরস্থান নিয়ে চাঁদাবাজি শুরু করেন। কবরস্থানে মরদেহ দাফন করতে হলে তাকে চাঁদা দিতে হচ্ছে। শুধু তাই নয় ইয়াকুব দীর্ঘদিনের পরিচিত মৌলভী করবস্থানটির নাম পরিবর্তনের চেষ্টাও চালাচ্ছে।’

আহমেদ ইলিয়াছ অভিযোগ করেন, শুক্রবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে ইয়াকুব আলীর লোকজন হামলার একপর্যায়ে গুলি চালায়। গুলিবিদ্ধ চারজনসহ আহত নয় জন চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, ‘এ ঘটনায় শনিবার সকাল ১১টার দিকে বাকলিয়া থানায় ২১ জনের নাম উল্লেখ করে এবং আরও ৫০-৬০ জন অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। এখন পর্যন্ত পুলিশ পাঁচ আসামিকে গ্রেপ্তার করলেও আসল অভিযুক্তরা এখনও ধরাছোঁয়ার বাইরে আছেন। অবিলম্বে অবৈধ অস্ত্রগুলো জব্দ করে সন্ত্রাসী ইয়াকুবসহ জড়িতদের আইনের আওতায় আনতে প্রশাসনের প্রতি জোর দাবি জানাই।’

অভিযোগের বিষয়ে জানার জন্য ইয়াকুব আলীর বাড়িতেও গিয়ে তাকে পাওয়া যায়নি। তার স্ত্রী ইয়াসমিন আক্তারও প্রতিবেদকের সঙ্গে কথা বলতে রাজি হননি।

এর আগে রোববার সংঘর্ষের মামলায় পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করার কথা জানিয়েছে পুলিশ।

বাকলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ রুহুল আমিন বলেন, ‘শনিবার সকালে মামলার পর অভিযান চালিয়ে ওই পাঁচ আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তারা ইয়াকুব আলীর লোকজন। তাদের আদালতে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে।’

মামলার বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।

আরও পড়ুন:
কবরস্থানে সাইনবোর্ড টাঙানো নিয়ে সংঘর্ষ: গ্রেপ্তার ৫
কবরস্থানে গোলাগুলি, ২৪ ঘণ্টা পরও গ্রেপ্তার নেই কেউ
কবরস্থানে সাইনবোর্ড দেয়া নিয়ে সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধ ৪

শেয়ার করুন

মন্তব্য