বিশ্বমানের ১৭টি টাগ বোট নির্মাণ চুক্তি

বিশ্বমানের ১৭টি টাগ বোট নির্মাণ চুক্তি

নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী বলেন,‘সম্প্রতি নৌ-পথে দুর্ঘটনার জন্য অনুমোদনহীন জলযান সমালোচিত হওয়ায় দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রনে মানসম্পন্ন জলযান তৈরি জরুরি হয়ে পড়েছে। যে কারণে নারায়ণগঞ্জের ডর্কইয়ার্ডে সাশ্রয়ী মূল্যে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন বিশ্বমানের এই ১৭টি টাগ বোট নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।’

দেশের নদীগুলোর নাব্যতা ফিরিয়ে আনার কাজে ব্যবহৃত ৩৫টি ড্রেজারকে পরিচালনার জন্য কানাডার বরার্ট এলাইনের নকশা অনুযায়ী আর্ন্তজাতিক মানসম্পন্ন ১৭টি টাগ বোর্ড নির্মাণ করা হবে। ১৬৬ কোটি টাকা ব্যয়ে এই টাগ বোটগুলো নির্মাণ কাজের চুক্তি সম্প্ন্ন হয়েছে। ১৭টি টাগ বোটের মধ্যে প্রথম ধাপে ১০টি এবং দ্বিতীয় ধাপে ৭টি নির্মাণ করা হবে। আগামী দুই বছরের মধ্যে এগুলো নির্মাণ শেষ করে বিআইডব্লিউটিএ’র কাছে হস্তান্তর করা হবে।

নারায়ণগঞ্জের বন্দরে নৌ-বাহিনীর ডকইয়ার্ডে কিল লেয়িং অনুষ্ঠানে শনিবার দুপুরে এসব তথ্য জানান নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন,‘বর্তমান সরকার নারায়ণগঞ্জ,চট্টগ্রাম ও খুলনাসহ দেশের অকার্যকর ডকইয়ার্ডগুলো পরিচালনার দায়িত্ব নৌ-পরিবাহিনীকে দেয়ার পর থেকে এই জাহাজ নির্মাণ প্রতিষ্ঠানগুলো প্রাণ ফিরে পেয়েছে। আর্ন্তজাতিক মানসম্পন্ন জাহাজ নির্মাণ ও মেরামতের ক্ষেত্রে দক্ষতা অর্জন করেছে।

তিনি আরও বলেন,‘সম্প্রতি নৌ-পথে দুর্ঘটনার জন্য অনুমোদনহীন জলযান সমালোচিত হওয়ায় দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রনে মানসম্পন্ন জলযান তৈরি জরুরি হয়ে পড়েছে। যে কারণে নারায়ণগঞ্জের ডর্কইয়ার্ডে সাশ্রয়ী মূল্যে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন বিশ্বমানের এই ১৭টি টাগ বোট নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।’

নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী জানান,ঢাকা,নারায়ণগঞ্জসহ রাজধানীর আশপাশের নদীগুলো অবৈধ দখল ও দুষণ রোধসহ সীমানা পিলার স্থাপনের কাজ দ্রুততার সঙ্গে চলছে। এই নদীগুলোকে পূর্বের অবস্থানে ফিরিয়ে আনতে নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়,বিআইডব্লিউটিএ একযোগে কাজ করে যাচ্ছে।

টাগ বোট কিল লেয়িং অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরী,নৌ-বাহিনীর সহকারি প্রধান রিয়ার এডমিরাল এম শফিউল আজম,বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমোডর গোলাম সাদেক।

শেয়ার করুন

মন্তব্য