‘প্রেমিকের প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে স্বামীকে হত্যা’

‘প্রেমিকের প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে স্বামীকে হত্যা’

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার কথা বৃহস্পতিবার স্বীকার করেছেন বলে জানায় পুলিশ। এদিন দুপুরে তাদের ফরিদপুরের জ্যেষ্ঠ হাকিমের ৩ নম্বর আমলি আদালতে তোলা হলে বিচারক আসিফ আকরামের সামনে সেকেন্দার আলীকে হত্যার সঙ্গে সরাসরি জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেন বলে তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই আবুল কালাম আজাদ জানান।

ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার চরকান্দা গ্রামে এক ব্যক্তিকে হত্যার অভিযোগে তার স্ত্রী ও ছেলেসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

পরকীয়ার জেরে ওই গৃহকর্তার স্ত্রীকে ফুসলিয়ে এ হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয় বলে পুলিশ জানিয়েছে।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার কথা বৃহস্পতিবার স্বীকার করেছেন বলে জানায় পুলিশ। এদিন দুপুরে তাদের ফরিদপুরের জ্যেষ্ঠ হাকিমের ৩ নম্বর আমলি আদালতে তোলা হলে বিচারক আসিফ আকরামের সামনে সেকেন্দার আলীকে হত্যার সঙ্গে সরাসরি জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেন বলে তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই আবুল কালাম আজাদ জানান।

গত বছরের ২৬ অক্টোবর ভাঙ্গার চরকান্দা গ্রামের একটি বিল থেকে সেকেন্দার আলী মোল্ল্যা নামে এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার হয়। এই ঘটনায় নিহতের স্ত্রী হাফিজা বেগম বাদি হয়ে নিহতের বড় ভাই খোকন মোল্যা, কবিরউদ্দিন ও খলিল মোল্যাসহ অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের আসামি করে থানায় হত্যা মামলা করেন।

দীর্ঘদিন জমি ও রেললাইনের অধিগ্রহণকৃত এজমালি সম্পত্তির টাকা নিয়ে বিরোধের জেরে তার স্বামীকে হত্যা করা হয়েছে বলে হাফেজা বেগম এজাহারে উল্লেখ করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আবুল কালাম আজাদ জানান, মামলা রুজুর পর থেকেই ওই গ্রামের আতিয়ার রহমান ভুলু মোল্যা নামে এক ব্যক্তি তাকে প্রভাবিত করার চেষ্টা করেন। তিনি ভুলু মোল্ল্যার আচরণকে মামলার মূল সূত্র ধরে তদন্ত শুরু করলে রহস্য উদঘাটন হয়।

তদন্তকারী কর্মকর্তা জানান, নিহত সেকেন্দারের সঙ্গে ভুলু মোল্যার ভাল সম্পর্ক ছিল। এই সুবাদে তার বাড়িতে যাতায়াত ছিল ভুলুর। এক পর্যায়ে ভুলুর সঙ্গে সেকেন্দারের স্ত্রী হাফেজার পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

অন্যদিকে, বড় ভাই খোকন মোল্লা ও চাচাতো ভাই জমির মোল্লার সঙ্গে রেলওয়ের অধিগ্রহণের আওতায় পড়া ২৭ শতাংশ জমির প্রাপ্ত টাকা বন্টন নিয়ে বিরোধ ছিল সেকেন্দারের। আর গ্রাম্য দলাদলি ও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে ভুলুর সঙ্গে খোকন মোল্ল্যার বিরোধ ছিল। এই সুযোগকেই কাজে লাগান ভুলু। তখন তিনি সংসারের ঝামেলা ও টাকা পয়সার অভাবের কথা বলে সেকেন্দারকে হত্যায় স্ত্রী হাফেজাকে প্ররোচিত করেন ভুলু।

এসআই আবুল কালাম আজাদ আরও জানান, ঘটনার আগের সন্ধ্যায় পরিকল্পনা অনুযায়ী ভুলু হাফেজার হাতে চারটি ঘুমের ওষুধ দিয়ে সেগুলো সেকেন্দারকে খাওয়াতে বলে। পরদিন সন্ধ্যায় হাফেজা তার স্বামীকে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে পুকুরপাড়ে নিয়ে যায়। সেখানে ভুলু ও তার ছেলে সম্রাট মিলে সেকেন্দার আলীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে।

এস আই আবুল কালাম আজাদ বলেন, সেকেন্দারকে হত্যার পর তার মরদেহ নৌকায় তোলার সময় সেকেন্দারের ছেলে হোসাইন তাদের দেখে ফেলে। এ সময় হোসাইনকে ভয়ভীতি দেখিয়ে তাকে সঙ্গে নিয়ে নৌকায় সেকেন্দারের মরদেহ বিলের মাঝে ফেলে রেখে আসে।

মামলাটি তদন্তের একপর্যায়ে গত মঙ্গলবার ভুলু মোল্যা ও তার ছেলে সম্রাটকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাদের জিজ্ঞাসাবাদে বেরিয়ে উদঘাটন হয় রহস্যের।

পরদিন বুধবার সেকেন্দার মোল্যার স্ত্রী হাফেজা বেগম ও ছেলে হোসাইনকে শাহ মুল্লুকদি গ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

আরও পড়ুন:
গুলশানে ঘরের ভেতর নৃশংস খুন
বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, স্বীকারোক্তি
সাংবাদিক ফাগুন হত্যা রহস্য উন্মোচনের দাবি পিবিআইয়ের
নোয়াখালীতে ইউপি সদস্য ও প্রবাসীকে কুপিয়ে হত্যা
হাসান ‘হত্যার’ বিচারের দাবিতে গাইবান্ধায় হরতাল

শেয়ার করুন

মন্তব্য

স্কুলমাঠে যুবকের রক্তাক্ত মরদেহ

স্কুলমাঠে যুবকের রক্তাক্ত মরদেহ

ফতুল্লা মডেল থানার ওসি বলেন, ‘ধারণা করা হচ্ছে, বন্ধুদের সাথে দ্বন্দ্বের জেরে তাকে হত্যা করা হয়েছে। পুলিশ ঘটনার তদন্ত করছে। নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে মামলার প্রস্তুতি চলছে।’

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় একটি বিদ্যালয়ের মাঠ থেকে যুবকের রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

রোববার বিকেলে হাজীগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠ থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

নিহত যুবকের নাম হৃদয় হোসেন। ২৫ হাজীগঞ্জ উচাবাড়ি এলাকার বাসিন্দা হৃদয় পেশায় বিদ্যুৎমিস্ত্রি ছিলেন।

ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রকিবুজ্জামান নিউজবাংলাকে জানান, মরদেহের মাথায় ও পিঠে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। উদ্ধারের পর মরদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ওসি বলেন, ‘ধারণা করা হচ্ছে, বন্ধুদের সাথে দ্বন্দ্বের জেরে তাকে হত্যা করা হয়েছে। পুলিশ ঘটনার তদন্ত করছে। নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে মামলার প্রস্তুতি চলছে।’

হৃদয়ের বড় ভাই মো. রনি জানান, শনিবার রাত ১২টার দিকে বাসা থেকে বের হন হৃদয়। রাতে আর বাসায় ফেরেননি তিনি। স্থানীয় লোকজনের মাধ্যমে পরে জানতে পারেন তার ভাইয়ের মরদেহ স্কুল মাঠে পাওয়া গেছে।

তিনি আরও জানান, তার ভাইয়ের কারও সঙ্গে কোনো বিরোধ ছিল না। তবে কয়েকজন মাদকাসক্তের সঙ্গে তার বন্ধুত্ব ছিল।

আরও পড়ুন:
গুলশানে ঘরের ভেতর নৃশংস খুন
বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, স্বীকারোক্তি
সাংবাদিক ফাগুন হত্যা রহস্য উন্মোচনের দাবি পিবিআইয়ের
নোয়াখালীতে ইউপি সদস্য ও প্রবাসীকে কুপিয়ে হত্যা
হাসান ‘হত্যার’ বিচারের দাবিতে গাইবান্ধায় হরতাল

শেয়ার করুন

ভিজিডির ৬১ বস্তা চাল জব্দ

ভিজিডির ৬১ বস্তা চাল জব্দ

ওসি জানান, আব্দুল কাদের নিজ বাড়িতে সরকারি চাল অবৈধভাবে মজুত ও বিক্রি করেছিলেন, এমন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালানো হয়। জব্দ করা হয় এক হাজার ৮৩০ কেজি চাল। এ সময় পালিয়ে যান অভিযুক্ত আব্দুল কাদের। জব্দ চাল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার জিম্মায় রাখা হয়েছে।

জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল উপজেলার হিন্দা কসবা গ্রামের এক বাড়ি থেকে ভিজিডির ৬১ বস্তা চাল জব্দ করেছে পুলিশ।

রোববার বিকেলে ওই গ্রামের আব্দুল কাদেরের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে সরকারি চালের এসব বস্তা জব্দ করা হয়।

৫০ বছরের আব্দুল কাদের গ্রামের সোনা মিয়ার ছেলে।

ক্ষেতলাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিরেন্দ্রনাথ মন্ডল জানান, আব্দুল কাদের নিজ বাড়িতে সরকারি চাল অবৈধভাবে মজুত ও বিক্রি করেছিলেন, এমন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালানো হয়। জব্দ করা হয় এক হাজার ৮৩০ কেজি চাল। এ সময় পালিয়ে যান অভিযুক্ত আব্দুল কাদের। জব্দ চাল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার জিম্মায় রাখা হয়েছে।

‘কাদেরের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে। পুলিশ অভিযুক্তকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।’ বলেন ওসি।

আরও পড়ুন:
গুলশানে ঘরের ভেতর নৃশংস খুন
বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, স্বীকারোক্তি
সাংবাদিক ফাগুন হত্যা রহস্য উন্মোচনের দাবি পিবিআইয়ের
নোয়াখালীতে ইউপি সদস্য ও প্রবাসীকে কুপিয়ে হত্যা
হাসান ‘হত্যার’ বিচারের দাবিতে গাইবান্ধায় হরতাল

শেয়ার করুন

‘আচমকা সব শেষ হয়ে গেল’

‘আচমকা সব শেষ হয়ে গেল’

নরসিংদীতে সড়ক দুর্ঘটনায় পরিবারের পাঁচজনকে হারিয়ে একই ঘটনায় আহতরাও ভেঙে পড়েন কান্নায়। ছবি: নিউজবাংলা

‘গাড়িতে আমার স্ত্রী রুবি ও মেয়ে ইসরাত পেছনে ছিল। সাথে আরেক ভাইয়ের বউ-বাচ্চাও ছিল। হঠাৎ করেই কী হলো বুঝতে পারলাম না। আচমকা সব শেষ হয়ে গেল।’

নরসিংদীতে ট্রাক-মাইক্রোবাস সংঘর্ষে একই পরিবারের শিশুসহ পাঁচজন নিহতের ঘটনায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে সাভারে তাদের গ্রামের বাড়িতে।

পাঁচদোনা-ঘোড়াশাল-টঙ্গী আঞ্চলিক মহাসড়কে শনিবার রাতের দুর্ঘটনায় নিহতদের দেহ রোববার আশুলিয়ার জিরাবো এলাকার বাড়িতে পৌঁছায়।

এরপর স্বজনদের কান্নায় ভারী হয়ে ওঠে চারপাশ। তাদের বিলাপে চোখ ভিজে ওঠে এলাকাবাসীরও। পরে সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে জানাজা শেষে মরদেহগুলো দাফন করা হয়।

নিহত পাঁচজন হলো একই পরিবারের তিন ভাই সাইফুল ইসলামের স্ত্রী মুক্তি আক্তার ও আট বছরের ছেলে মো. সাদেকুল, আব্দুর রশিদের স্ত্রী রুবি আক্তার ও পাঁচ বছরের মেয়ে মোছা. রহিমা এবং আরেক ভাই হারুন মিয়ার শাশুড়ি রোকেয়া বেগম।

আহতরা হলেন আব্দুর রশিদ, সাইফুলের ১২ বছরের মেয়ে সাইফা, হারুনের স্ত্রী শারমিন বেগম ও আট বছরের মেয়ে ইসরাত জাহান। এ ছাড়া ওই পরিবারের রাজিয়া বেগম, কাজিম উদ্দিন ও মোছা. সামসুন্নাহার নামে তিন স্বজনও আহত হয়েছেন।

‘আচমকা সব শেষ হয়ে গেল’
সাভারের বাড়িতে মরদেহ পৌঁছানোর পর স্বজন ও এলাকাবাসীর ভিড়

রশিদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘গাড়িতে আমার স্ত্রী রুবি ও মেয়ে ইসরাত পেছনে ছিল। সাথে আরেক ভাইয়ের বউ-বাচ্চাও ছিল। হঠাৎ করেই কী হলো বুঝতে পারলাম না। আচমকা সব শেষ হয়ে গেল।

‘আমি দেখি গাড়িতেই বসে আছি। আর মানুষ খালি আমাদের সামনে এসে হাউকাউ করতেছে। আর আমাদের গাড়ির ভেতর থেকে বের করার চেষ্টা করছে।’

স্ত্রী ও ছেলে হারানো সাইফুল বিলাপ করছিলেন, ‘আমি কোনোদিনই ভাবতে পারিনি আমার স্ত্রী ও ছেলে সাদেকুল এভাবে মারা যাবে। মেয়ে সাইফা অল্পের জন্য বেঁচে গেছে। আমার সন্তান ও স্ত্রীকে আমি এখন কোথায় পাব?’

সুরাইয়া বেগম জানান, তার তিন চাচাতো ভাই সাইফুল, হারুন ও রশিদ সিলেটে শাহজালাল (রহ.)-এর মাজারে যাওয়ার পরিকল্পনা করেন। শুক্রবার রাত ৩টার দিকে বাচ্চাসহ ১৫ জন একটি গাড়িতে রওনা দেয়। তবে গাড়িতে ছিল শুধু রশিদ। সাইফুল ও হারুন বাড়িতেই ছিলেন।

সিলেটের বিভিন্ন মাজার ঘুরে সন্ধ্যায় আশুলিয়ায় বাড়ির উদ্দেশে রওনা হয় তারা। পরে নরসিংদীতে সড়ক দুর্ঘটনায় তাদের মধ্যে পাঁচজন নিহত হয়।

প্রতিবেশী জসিম উদ্দিন বলেন, ‘আমাদের এলাকায় এমন হৃদয়বিদারক ঘটনা আগে ঘটেনি। এলাকার সবাই আমরা মর্মাহত।’

নরসিংদীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) এনামুল হক সাগর বলেন, দুর্ঘটনাকবলিত ট্রাক ও মাইক্রোবাসটি জব্দ করা হয়েছে। তবে দুই যানের চালকই পলাতক। তাদের আটকের চেষ্টা চলছে।

আরও পড়ুন:
গুলশানে ঘরের ভেতর নৃশংস খুন
বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, স্বীকারোক্তি
সাংবাদিক ফাগুন হত্যা রহস্য উন্মোচনের দাবি পিবিআইয়ের
নোয়াখালীতে ইউপি সদস্য ও প্রবাসীকে কুপিয়ে হত্যা
হাসান ‘হত্যার’ বিচারের দাবিতে গাইবান্ধায় হরতাল

শেয়ার করুন

চার বন্ধু মিলে ব্যবসায়ীকে শ্বাসরোধে হত্যা

চার বন্ধু মিলে ব্যবসায়ীকে শ্বাসরোধে হত্যা

‘রোববার দুপুরে চার আসামিকে জেলার মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালতে তোলা হয়। তখন তারা জবানবন্দি দেন। পরে আসামিদের কারাগারে পাঠানো হয়।’

ময়মনসিংহের নান্দাইলে হাত-পা বাঁধা ও মুখে বালিশচাপা অবস্থায় এক ব্যবসায়ীর মরদেহ উদ্ধারের পর চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ।

মৃত জাহিদ তালুকদার হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার গানপুর গ্রামের মাহতাব উদ্দিনের ছেলে। তিনি উপজেলার গাংগাইল ইউনিয়নের অরণ্যপাশা গ্রামের হাবিবুর রহমানের বাড়ি ভাড়া নিয়ে ব্যবসা করতেন।

যাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে তারা হলেন হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার মুরাদপুর গ্রামের নাঈম ইসলাম, রাজধানীর কোটবাড়ী এলাকার হোসেন আলী, ময়মনসিংহের নারায়ণপুর গ্রামের রাসেল মিয়া ও একই এলাকার সুমন মিয়া।

নিউজবাংলাকে রোববার সন্ধ্যায় বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি শাহ কামাল আকন্দ।

তিনি বলেন, শুক্রবার বিকেলে উপজেলার গাংগাইল ইউনিয়নের অরণ্যপাশা গ্রামের ভাড়া বাসা থেকে জাহিদের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় রাতে মৃতের বড় ভাই আসাদ মিয়া তালুকদার বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের আসামি করে মামলা করেন। মামলার পরদিন (শনিবার) ডিবি পুলিশ অভিযান চালিয়ে ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করে।

ওসি বলেন, গ্রেপ্তারের পর নাঈম ইসলাম জানান, প্রায় ছয় মাস ধরে তারা আটজন হকার ও মহাজন জাহিদ মিলে নান্দাইলের ওই গ্রামের চৌরাস্তা এলাকার ভাড়া বাসায় থেকে কাঠের তৈরি বিভিন্ন তৈজসপত্রের ব্যবসা করছিলেন। মহাজনকে প্রতিদিন তিন থেকে চার হাজার টাকা জমা দিতে হতো। এর মধ্যে এক দিনের প্রায় তিন হাজার টাকা তিনি মহাজনকে দেননি।

এ নিয়ে প্রতিদিন তাগাদা দিতেন জাহিদ। একপর্যায়ে নাঈম ঢাকায় চলে আসেন। ঘটনাটি বন্ধুদের জানান তিনি। বন্ধুরা সিদ্ধান্ত দেন, নান্দাইলে গিয়ে জাহিদকে হত্যা করবেন।

এ কথায় রাজি হয়ে নাঈম ও তার তিন বন্ধু বৃহস্পতিবার রাতে নান্দাইলে এসে জাহিদের বাসায় ওঠেন। পরে রাতে খেয়ে জাহিদ ঘুমিয়ে পড়েন। তখন চারজনে মিলে তাকে হাত-পা বেঁধে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা করেন।

পরদিন শুক্রবার খুব ভোরে তারা ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেন। সঙ্গে নিয়ে যান জাহিদের দুটি মোবাইল ফোন ও নগদ এক হাজার টাকা।

শাহ কামাল আকন্দ আরও বলেন, রোববার দুপুরে তাদের মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালতে তোলা হলে জবানবন্দি দিয়েছেন সবাই। পরে তাদের কারাগারে পাঠানো হয়।

আরও পড়ুন:
গুলশানে ঘরের ভেতর নৃশংস খুন
বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, স্বীকারোক্তি
সাংবাদিক ফাগুন হত্যা রহস্য উন্মোচনের দাবি পিবিআইয়ের
নোয়াখালীতে ইউপি সদস্য ও প্রবাসীকে কুপিয়ে হত্যা
হাসান ‘হত্যার’ বিচারের দাবিতে গাইবান্ধায় হরতাল

শেয়ার করুন

করোনা: যশোরে ২৪ ঘণ্টায় ৬ মৃত্যু, শনাক্ত ৭৩

করোনা: যশোরে ২৪ ঘণ্টায় ৬ মৃত্যু, শনাক্ত ৭৩

স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্যমতে, জুনের শুরু থেকেই যশোরে সংক্রমণের হার ঊর্ধ্বমুখী। গত ২৪ ঘণ্টায় ১৯৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৭৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ৩৮ শতাংশ। এ সময়ে মারা গেছেন ছয়জন।

যশোরে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। ৭৩ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে।

স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, যশোর জেনারেল হাসপাতালের করোনা ডেডিকেটেড ইউনিট রোগীতে ভর্তি হয়ে গেছে। সেখানে ৮৭ জন ভর্তি আছেন। আইসোলেশন ওয়ার্ডের চিত্রও একই। হাসপাতালের ৪৫ শয্যার আরেকটি ওয়ার্ড করোনা রোগীর জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে।

বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা সাজেদা ফাউন্ডেশনের অর্থায়ন ও অবকাঠামোসুবিধা নিয়ে জেলায় চিকিৎসা কার্যক্রমের পরিধি বাড়ানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন সিভিল সার্জন শেখ আবু শাহীন।

তিনি জানান, রোগীর চাপ সামলাতে নতুন ওয়ার্ড খোলার পাশাপাশি বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় চিকিৎসা কার্যক্রম বাড়ানো হয়েছে।

স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্যমতে, জুনের শুরু থেকেই যশোরে সংক্রমণের হার ঊর্ধ্বমুখী। গত ২৪ ঘণ্টায় ১৯৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৭৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ৩৮ শতাংশ। এ সময়ে মারা গেছেন ছয়জন।

এর মধ্যে যশোর জেনারেল হাসপাতালের করোনা ডেডিকেটেড ইউনিটে একজন, আইসোলেশন ওয়ার্ডে দুইজন, শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের করোনা ডেডিকেটেড ইউনিটে একজন এবং ঝিকরগাছায় দুইজন মারা গেছেন।

যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ১২২ জন। এর মধ্যে করোনা ডেডিকেটেড ইউনিটে ৮৭ জন ও আইসোলেশন ওয়ার্ডে ৩৫ জন।

আরও পড়ুন:
গুলশানে ঘরের ভেতর নৃশংস খুন
বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, স্বীকারোক্তি
সাংবাদিক ফাগুন হত্যা রহস্য উন্মোচনের দাবি পিবিআইয়ের
নোয়াখালীতে ইউপি সদস্য ও প্রবাসীকে কুপিয়ে হত্যা
হাসান ‘হত্যার’ বিচারের দাবিতে গাইবান্ধায় হরতাল

শেয়ার করুন

বিনা ভোটে কুমিল্লার এমপি হচ্ছেন নৌকার হাশেম

বিনা ভোটে কুমিল্লার এমপি হচ্ছেন নৌকার হাশেম

রোববার সন্ধ্যায় নিউজবাংলাকে এ তথ্য জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক শওকত উসমান। তিনি বলেন, তার একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী জাতীয় পার্টির জসিম উদ্দিন মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন। এ বিষয়ে আগামী ২৪ জুন আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হবে বলে জানান তিনি।

কুমিল্লা-৫ আসনের উপনির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হাশেম খান।

রোববার সন্ধ্যায় নিউজবাংলাকে এ তথ্য জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক শওকত উসমান। তিনি বলেন, তার একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী জাতীয় পার্টির জসিম উদ্দিন মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন।

এ বিষয়ে আগামী ২৪ জুন আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হবে বলে জানান তিনি।

মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের কারণ জানতে জাতীয় পার্টির প্রার্থীর মোবাইলে বেশ কয়েকবার ফোন দেয়া হলেও তিনি সাড়া দেননি। এসএমএস পাঠিয়েও তার সাড়া পাওয়া যায়নি।

রোববার সন্ধ্যায় জাতীয় পার্টির প্রার্থীর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের খবর ছড়িয়ে পড়লে আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা দলীয় প্রার্থীকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে শুভেচ্ছা জানাতে শুরু করেন। কেউ কেউ ফুল নিয়েও প্রার্থীর সঙ্গে দেখা করেন।

গত ১৪ জুন পর্যন্ত এ আসনে মোট আটজন প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করলেও ১৫ জুন মনোনয়নপত্র জমার শেষ দিন মাত্র দুইজন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেন।

কুমিল্লা-৫ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট আব্দুল মতিন খসরু ১৪ এপ্রিল মারা যান। ২১ এপ্রিল আসনটি শূন্য ঘোষণা করা হয়। তিনি এ আসন থেকে মোট পাঁচবার (১৯৯১, ১৯৯৬, ২০০৯, ২০১৪ ও ২০১৮) সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন।

আরও পড়ুন:
গুলশানে ঘরের ভেতর নৃশংস খুন
বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, স্বীকারোক্তি
সাংবাদিক ফাগুন হত্যা রহস্য উন্মোচনের দাবি পিবিআইয়ের
নোয়াখালীতে ইউপি সদস্য ও প্রবাসীকে কুপিয়ে হত্যা
হাসান ‘হত্যার’ বিচারের দাবিতে গাইবান্ধায় হরতাল

শেয়ার করুন

নওগাঁয় এক দিনে ২৩০ জনের করোনা শনাক্ত

নওগাঁয় এক দিনে ২৩০ জনের করোনা শনাক্ত

নওগাঁ সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, শনিবার বিকেল ৪টা থেকে রোববার বিকেল ৪টা পর্যন্ত রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ ও বগুড়ার টিএমএসএস হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাবে ৫২১ জনের নমুনা পরীক্ষায় ১৭৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ ছাড়া নওগাঁ সদর হাসপাতালসহ জেলার ১০টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন পরীক্ষায় ২০৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৫৩ জনের শরীরে করোনার সংক্রমণ ধরা পড়েছে।

নওগাঁয় গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের নতুন রেকর্ড হয়েছে। এই সময় ২৩০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর আগে ১৬ জুন এক দিনে সর্বোচ্চ ১২৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল। এ নিয়ে জেলায় মোট করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৫৬২ জন।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। তার বাড়ি মহাদেবপুর উপজেলা সদরে। শনিবার বিকেলে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। এ নিয়ে জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মোট ৬১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

নওগাঁ সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, শনিবার বিকেল ৪টা থেকে রোববার বিকেল ৪টা পর্যন্ত রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ ও বগুড়ার টিএমএসএস হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাবে ৫২১ জনের নমুনা পরীক্ষায় ১৭৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ ছাড়া নওগাঁ সদর হাসপাতালসহ জেলার ১০টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন পরীক্ষায় ২০৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৫৩ জনের শরীরে করোনার সংক্রমণ ধরা পড়েছে। জেলায় শনাক্তের হার ৩১ দশমিক ৫৫ শতাংশ।

নতুন করে শনাক্তদের মধ্যে নওগাঁ সদর উপজেলার ৭৯ জন, রানীনগর উপজেলার ১০ জন, আত্রাইয়ের ৭ জন, মহাদেবপুরের ২১ জন, মান্দার ২২ জন, বদলগাছির ১৯ জন, পত্নীতলার ১৭ জন, ধামইরহাটের ১০ জন, নিয়ামতপুরের ২০ জন, সাপাহারে ১৫ জন ও পোরশা উপজেলার ১০ জন ।

এর আগে সর্বোচ্চ শনাক্ত হয়েছিল গত বুধবার। সেদিন আক্রান্তের হার ছিল ২১ দশমিক ৮২ শতাংশ। পরদিন শনাক্তের হার কিছুটা কমে ১৯ শতাংশ হয়। শুক্রবার আবার তা বেড়ে ৩৫ শতাংশ ছাড়িয়ে যায়। চলমান বিধিনিষেধের মধ্যেও জেলায় চলতি মাসে রেকর্ডসংখ্যক রোগী শনাক্ত হয়েছে।

করোনার সংক্রমণ রোধে চলতি মাসের ৩ জুন থেকে ৯ জুন পর্যন্ত নওগাঁ পৌরসভা ও নিয়ামতপুর উপজেলায় সপ্তাহব্যাপী লকডাউন ঘোষণা করা হয়। এই লকডাউন শেষে পরে পুরো জেলায় বিশেষ বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়। করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে নওগাঁয় ওই বিশেষ বিধিনিষেধ আগামী ২৩ জুন পর্যন্ত থাকবে।

নওগাঁর সিভিল সার্জন ডা. এ বি এম আবু হানিফ বলেন, ‘নওগাঁ জেলায় যে হারে মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে তাতে আমাদের স্বাস্থ্য বিভাগ চিন্তিত হয়ে পড়েছে। লকডাউন শেষে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। কিন্তু এর মধ্যেও জেলায় করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়া খুবই উদ্বেগের বিষয়। আসলে মানুষের অসচেতনতার কারণেই সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হয়ে যাচ্ছে।’

তিনি আরও বলেন, সবাই যথাযথভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে করোনার সংক্রমণ অনেকটাই নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হতো।

সবাইকে যার যার অবস্থান থেকে সময় থাকতে সচেতন হতে হবে। নইলে সামনে করোনা সংক্রমণ আরও বেড়ে যেতে পারে।

নওগাঁ সিভিল সার্জন অফিসের মেডিক্যাল অফিসার আশীষ কুমার সরকার ( কন্ট্রোল ডিজিজ ) জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে সুস্থ্ হয়েছেন ২৪ জন এবং এ পর্যন্ত মোট সুস্থ্ হয়েছেন ২ হাজার ৩২৭ জন। সুস্থ্ হওয়ার পর বর্তমানে ১ হাজার ২৩৫ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী রয়েছেন। এদের মধ্যে নওগাঁ জেলা সদরের হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ৪৬ জন। অন্যরা ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী নিজ নিজ বাড়িতে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

এ সময় জেলায় মোট কোয়ারেন্টিনে নেয়া হয়েছে ২৫৩ ব্যক্তিকে। কোয়ারেন্টিন থেকে ছাড়পত্র পেয়েছেন ৫৪ জন। বর্তমানে জেলায় প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন ৬৮ জন এবং হোম কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন মোট ২ হাজার ৮৪২ জন।

আরও পড়ুন:
গুলশানে ঘরের ভেতর নৃশংস খুন
বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, স্বীকারোক্তি
সাংবাদিক ফাগুন হত্যা রহস্য উন্মোচনের দাবি পিবিআইয়ের
নোয়াখালীতে ইউপি সদস্য ও প্রবাসীকে কুপিয়ে হত্যা
হাসান ‘হত্যার’ বিচারের দাবিতে গাইবান্ধায় হরতাল

শেয়ার করুন