‘পার্কের মতো মসজিদ বানাইছে সরকার’

‘পার্কের মতো মসজিদ বানাইছে সরকার’

‘সব জায়গাতেই মসজিদ আছে। তবে এমন সুন্দর মসজিদ সরকারিভাবে কখনও নির্মাণ করা হয়নি। এতে করে ইসলামিক চর্চা করতেও অনেকে মসজিদমুখী হবে।’

মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রথম পর্যায়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে ৫০টি মডেল মসজিদ ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর পরপরই বেশ কিছু স্থানে নামাজ আদায় করে সন্তুষ্টির কথা জানিয়েছেন মুসল্লিরা। তবে ইমাম নিয়োগ না হওয়া, অসম্পূর্ণ নির্মাণকাজসহ নানা কারণে বৃহস্পতিবার বেশ কিছু স্থানে মুসল্লিরা নামাজ আদায় করতে পারেননি।

দৃষ্টিনন্দন অনেক মসজিদ সাধারণ মানুষের মধ্যে দর্শনীয় স্থান হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে।

এ ধরনের উদ্যোগের জন্য নিউজবাংলার মাধ্যমে সরকারপ্রধানকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন অনেক মুসল্লি। তারা বলছেন, এসব মসজিদের মাধ্যমে সঠিকভাবে ইসলাম শিক্ষা যেমন পাবে, তেমনি ইসলাম প্রসার লাভ করবে।

আনন্দিত মুসল্লিরা

ময়মনসিংহের তারাকান্দা ও গফরগাঁওয়ে দুটি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এতে করে সবচেয়ে খুশি হয়েছেন সাধারণ মুসল্লিরা। সরকারপ্রধানকে কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ।

বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় তারাকান্দায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মডেল মসজিদ চত্বরে উপস্থিত ছিলেন বিভাগীয় কমিশনার শফিকুর রেজা বিশ্বাস, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ এনামুল হকসহ জেলা-উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তা, আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতারা।

তারাকান্দা উপজেলার ৩ নম্বর কাকনী ইউনিয়নে নির্মিত মডেল মসজিদটিতে শুক্রবার জুমা থেকে নামাজ পড়ার জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হবে। তবে গফরগাঁওয়ে বৃহস্পতিবার জোহর থেকেই নামাজ পড়া শুরু করেছেন মুসল্লিরা।

গফরগাঁও উপজেলার ৪ নম্বর সালটিয়া ইউনিয়নের ভাগুয়া মৌজায় নির্মাণ করা মডেল মসজিদটিতে উদ্বোধনের সময় স্থানীয় সাংসদ ফাহমী গোলন্দাজ বাবেলসহ উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তা, আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

সরকারপ্রধান উদ্বোধনের পর খুশি আর আনন্দ নিয়ে মসজিদে গিয়ে জোহরের নামাজ আদায় করেন মুসল্লিরা।

‘পার্কের মতো মসজিদ বানাইছে সরকার’

রেজাউল করিম নামে এক যুবক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘গফরগাঁওয়ের সালটিয়া ইউনিয়নে এমন সুন্দর মসজিদ হবে, সেটা কল্পনাও করিনি। আমি গাজীপুরে একটি বেসরকারি কোম্পানিতে চাকরি করায় বছরে চার থেকে পাঁচবার ছুটিতে বাড়িতে আসি।

‘তবে কয়েক দিন আগে জানতে পেরেছি দেশের বিভিন্ন জেলা-উপজেলায় ৫০টি নির্মাণ হওয়া মডেল মসজিদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করবেন। তাই প্রথম দিনে মসজিদে নামাজ পড়তে রাতেই বাসায় এসেছি।’

একই ইউনিয়নের ষাটোধ্র্ব আব্দুল মাজেদ ভাঙা ভাঙা কণ্ঠে বলেন, ‘যত কষ্টই হোক, পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়বার চেষ্টা করি। অনেক দিন ধইরাই ভাবতাছি কহন এই মসজিদ উদ্বোধন অইবো? দুরাফিত থাইক্যা মসজিদটা দেখলে অনেক ভালা লাগে। এহন থাইক্যা আরামে নামাজ পড়বার আর ইমামের কাছ থাইক্যা ইসলামি শিক্ষা গ্রহণ করবাম।’

শফিকুল ইসলাম নামে একজন বলেন, ‘আমি তারাকান্দা উপজেলার রামপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা। আওয়ামী লীগ কিংবা বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত না। শুধু এই মডেল মসজিদটি দেখতে অন্য ইউনিয়ন থেকে এখানে এসেছি। সত্যিকার অর্থেই এই কৃতিত্বের অবদান বর্তমান সরকারের।’

৩ নম্বর কাকনী ইউনিয়নের বাসিন্দা হজরত আলী বলেন, ‘সব জায়গাতেই মসজিদ আছে। তবে এমন সুন্দর মসজিদ সরকারিভাবে কখনও নির্মাণ করা হয়নি। এতে করে ইসলামিক চর্চা করতেও অনেকে মসজিদমুখী হবে।’

তারাকান্দা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মিজাবে রহমত বলেন, শুক্রবার জুমার নামাজ শুরু হবে এই মডেল মসজিদে। স্থানীয় মসজিদের ইমাম নামাজ পড়াবেন। পরবর্তী সময়ে ইমাম নিয়োগ করা হবে।

তিনি বলেন, ‘এই মসজিদ পেয়ে মুসল্লিদের যে আনন্দ তা সামনাসামনি না দেখলে কেউ বুঝতেই পারবে না। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দূরদূরান্ত থেকে মসজিদ দেখতে লোকজন এসেছেb। করোনার সময়ের জন্য সবার স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করেছি।’

গফরগাঁও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাজুল ইসলাম বলেন, মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র স্থাপন প্রকল্পের আওতায় ১২ কোটি ৫৫ লাখ টাকা ব্যয়ে মডেল মসজিদটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়েছিল। তবে সব আনুষঙ্গিক খরচ মিলিয়ে ব্যয় হয়েছে প্রায় ১৫ কোটি টাকা।

তিনি বলেন, ‘আজকের দিনটি স্মরণীয় হয়ে থাকবে। মডেল মসজিদ নির্মাণ হওয়ায় সবার চোখেমুখে আনন্দের ছাপ। আমরা মুসলমানরা এমন মসজিদ পেয়ে সৌভাগ্যবান।’

মনে হয় বিদেশি মসজিদ

বরিশাল বিভাগের ঝালকাঠিতে এবং ভোলায় দুটি মডেল মসজিদ উদ্বোধনের পর বিভিন্ন স্থান থেকে মানুষ আসছেন নতুন এই মসজিদ দেখতে। অসাধারণ কারুকাজ আর ডিজাইনে তৈরি মসজিদ দেখতে দুপুরের পর থেকেই ভিড় জমে।

বৃহস্পতিবার সকালে ঝালকাঠির রাজাপুর ও ভোলা সদর উপজেলায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মডেল মসজিদ ও ইসলামি সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রাজাপুর উপজেলা খাদ্যগুদাম এলাকায় মসজিদের হলরুমে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ছিলেন জেলা প্রশাসক মো. জোহর আলী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোক্তার হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খান সাইফুল্লাহ পনির, উপজেলা চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান মনির, ভাইস চেয়ারম্যান আফরোজা আক্তার লাইজু, রাজাপুর সদর ইউপির চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মজিবর মৃধাসহ সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা ও সরকারদলীয় নেতা-কর্মী এবং সাধারণ মুসল্লিরা।

‘পার্কের মতো মসজিদ বানাইছে সরকার’


মসজিদ দেখতে এসে বাগড়ি বাজারের মুদি ব্যবসায়ী কাঞ্চন সিকদার বলেন, ‘পার্কের মতো মসজিদ বানাইছে সরকার। অনেক সুন্দর পরিবেশ।’

মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান মোল্লা বলেন, ‘লাইটিং, সাউন্ড সিস্টেম, সিসিটিভি ক্যামেরা, দেয়ালে নকশা- সব মিলিয়ে অসাধারণ। মসজিদের ভেতরে ঢুকলে মনে হয় বিদেশের কোনো মসজিদে আছি।’

কারি মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেন বলেন, ‘মুসল্লিরা যেখানে প্রতি ওয়াক্তে নামাজের জন্য মসজিদে আসেন, ঠিক সেভাবে কিশোর-যুবকরা মসজিদ কম্পাউন্ডে আসবে। মসজিদের সৌন্দর্য দেখতে এসেও নামাজি হবে অনেকে। শেখ হাসিনা সরকারকে মন থেকে দোয়া দিলাম এমন একটা মসজিদ বানানোর জন্য।’

ঝালকাঠি কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের পেশ ইমাম মাওলানা মোক্তার হোসেন বলেন, সরকার সারা দেশে মডেল মসজিদ নির্মাণ করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

ভোলার ব্যাংকের হাট মডেল মসজিদ উদ্বোধনের পর এলাকার মানুষ মাঝে ব্যাপক সাড়া পড়েছে। এরই মধ্যে দূরদূরান্ত থেকে মুসল্লিরা নামাজ পড়তে ও দেখার জন্য মসজিদে ছুটে আসছেন। সাধারণ মানুষের মাঝে দর্শনীয় স্থান হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে।

ভোলা গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী কাজী শরীফ উদ্দিন আহমেদ বলেন, শুধু নামাজ আদায় নয়, আধুনিক সব সুযোগ-সুবিধা রয়েছে এই মডেল মসজিদে। এই মডেল মসজিদে নারী ও পুরুষের আলাদা অজু ও নামাজ আদায়ের সুবিধা, প্রতিবন্ধী মুসল্লিদের টয়লেটসহ নামাজের আলাদা ব্যবস্থা, ইসলামিক বই বিক্রয়কেন্দ্র, ইসলামিক লাইব্রেরি, অটিজম কর্নার, ইমাম ট্রেনিং সেন্টার, ইসলামিক গবেষণা, পবিত্র কোরআন হেফজখানা, শিশু ও গণশিক্ষার ব্যবস্থা, দেশি-বিদেশি পর্যটকদের আবাসন ও অতিথিশালা, মরদেহ গোসল ও কফিন বহনের ব্যবস্থা, হজযাত্রীদের নিবন্ধনসহ প্রশিক্ষণ, ইমামের প্রশিক্ষণসহ ১৩ ধরনের বিশেষ সুযোগ-সুবিধা রয়েছে।

‘পার্কের মতো মসজিদ বানাইছে সরকার’

ভোলা জেলা ইমাম সমিতির সভাপতি মাওলানা বেলায়েত হোসেন বলেন, ভোলায় মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সেন্টার হওয়ায় এই অঞ্চলের মানুষের অনেক উপকার হবে। এখান থেকে সঠিকভাবে ইসলাম শিক্ষা যেমন পাবে, তেমনি ইসলাম প্রসার লাভ করবে। ধর্মীয় মূল্যবোধ বাড়বে। এমনিতেই মসজিদগুলো অবহেলিত। যখন সরকার এই সেন্টার থেকে সবকিছু পরিচালনা করবে, তখন সবাই একটি সঠিক বার্তার ওপরে থাকবে।

মসজিদ দেখতে আসা মসলেউদ্দিন ও কামাল জানান, মক্কা-মদিনায় অনেকেই অর্থের অভাবে যেতে পারেন না। তারা এই মসজিদে এসে অনেক আনন্দিত। কারণ এখানকার সৌন্দর্য দেখে স্থানীয়রা খুশি। এখন সবাই এসে দল বেঁধে নামাজ আদায় করেন। এখানে মুসিল্লারা এসে আরও বেশি ইসলামিক জ্ঞান অর্জন করতে পারবেন। এখানে বড় বড় আলেম এলে তাদের থেকেও এই অঞ্চলের মানুষ অনেক জ্ঞান অর্জন করে ইসলামকে আরও বেশি করে ছড়িয়ে দেবে।

উদ্বোধন হলেও শেষ হয়নি কাজ

সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স লাগোয়া ৪০ শতক জায়গার ওপর তিনতলাবিশিষ্ট মসজিদের আয়তন ১ হাজার ৬৮০ দশমিক ১৪ বর্গমিটার।

বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টায় গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি মসজিদের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।

তবে উদ্বোধন হলেও এখন পর্যন্ত মসজিদের নির্মাণকাজ শেষ হয়নি। পুরো কাজ শেষ করতে আরও সপ্তাহ তিনেক লাগবে বলে জানিয়েছে গণপূর্ত বিভাগ।

আর উপজেলা প্রশাসন বলছে, গণপূর্ত থেকে এখনও মসজিদটি হস্তান্তর না করায় ইমাম নিয়োগসহ মসজিদের আনুষঙ্গিক কার্যক্রম শুরু হয়নি।

‘পার্কের মতো মসজিদ বানাইছে সরকার’


জেলা গণপূর্ত অফিসের সহকারী প্রকৌশলী মো. ইকবাল শিকদার বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন করবেন বলে তাড়াহুড়ো করে কিছু কাজ করা হয়েছে। এসব কাজে কোনো ত্রুটি-বিচ্যুতি আছে কি না, তা এখন পরীক্ষা করা হবে।

‘ত্রুটি থাকলে সারিয়ে নেয়া হবে। এসব কাজে আরও সপ্তাহ তিনেক লাগতে পারে। মাসখানেকের মধ্যে আমরা মসজিদটি উপজেলা প্রশাসনের কাছে হস্তান্তর করতে পারব বলে আশা রাখি।’

তিনি বলেন, এই মসজিদ নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ১০ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। তবে পুরো কাজ শেষে কত টাকা ব্যয় হয়েছে তা বোঝা যাবে।

দক্ষিণ সুরমা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আব্দুল হক বলেন, ‘আজকে প্রধানমন্ত্রী মসজিদটি উদ্বোধন করলেও গণপূর্ত থেকে এটি এখনও আমাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়নি। ফলে এখনও ইমাম-মুয়াজ্জিন নিয়োগসহ আনুষঙ্গিক কার্যক্রম শুরু হয়নি। তবে আজকে বিকেল থেকেই আমরা এখানে নামাজ পড়ব। উপস্থিত মুসল্লিদের মধ্যেই একজন ইমামতি করবেন।’

এর মধ্য দিয়ে ইসলামি শিক্ষা, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য প্রচারের পাশাপাশি সন্ত্রাস, নারীর প্রতি সহিংসতা রোধ এবং সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রম সম্পর্কে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে সরকার সারা দেশে ৫৬০টি মডেল মসজিদ নির্মাণের উদ্যোগ নেয়। প্রাথমিক অবস্থায় সৌদি সরকার এতে সহায়তার প্রতিশ্রুতি দিলেও পরে তারা সরে যায়।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন সূত্রে জানা যায়, আরব বিশ্বের মসজিদ কাম ইসলামিক কালচারাল সেন্টারের আদলে এসব মসজিদ নির্মাণ করা হচ্ছে। আধুনিক সব সুযোগ-সুবিধাসংবলিত সুবিশাল এসব মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক ভবনে নারী ও পুরুষের আলাদা অজু ও নামাজ আদায়ের সুবিধা থাকবে। থাকবে লাইব্রেরি, গবেষণা কেন্দ্র, ইসলামিক বই বিক্রয়কেন্দ্র, কোরআন হিফজ বিভাগ, শিশু শিক্ষা, অতিথিশালা, বিদেশি পর্যটকদের আবাসন।

সিলেট বিভাগে মোট ৪৩টি মসজিদ নির্মাণ করা হবে বলে জানা গেছে।

প্রতিবেদন তৈরিতে সহায়তা করেছেন ভোলা প্রতিনিধি আদিল তপু, ঝালকাঠি প্রতিনিধি হাসনাইন তালুকদার দিবস

আরও পড়ুন:
৫০ মডেল মসজিদ উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর
প্রধানমন্ত্রীর অপেক্ষায় ৫০ মডেল মসজিদ
মার্চেই উদ্বোধন হচ্ছে ৫০ মডেল মসজিদ

শেয়ার করুন

মন্তব্য

থানার গ্যারাজে ফেনসিডিলের খালি বোতল

থানার গ্যারাজে ফেনসিডিলের খালি বোতল

সোমবার সকালে থানার গ্যারাজে স্ট্যান্ড করে রাখা মোটরসাইকেলে ফাঁকে ফাঁকে ভারতীয় নিষিদ্ধ ফেনসিডিলের বহু খোলা বোতল ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে থাকতে দেখা যায়। ছবি: নিউজবাংলা।  

কে বা কারা থানা চত্বরের ভিতরে এই ফেনসিডিল খেয়ে এগুলো স্তূপ করে রেখেছে তা স্পষ্ট নয়। সিসিটিভি ক্যামেরা নিয়ন্ত্রিত থানার ভিতরে কীভাবে এই ফেনসিডিলের বোতলগুলো জমে আছে তা নিয়ে থানায় সেবা নিতে আসা সচেতন মহলে প্রশ্ন উঠেছে। তবে গ্যারাজে কোনো সিসি ক্যামেরা নেই।

নওগাঁর মান্দা থানার গ্যারাজে ফেনসিডিলের বহু খালি বোতল পাওয়া গেছে।

সোমবার সকালে থানার গ্যারাজে গিয়ে দেখা যায়, স্ট্যান্ড করে রাখা মোটরসাইকেলে ফাঁকে ফাঁকে ভারতীয় নিষিদ্ধ ফেনসিডিলের বহু খোলা বোতল ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে আছে।

কে বা কারা থানা চত্বরের ভিতরে এই ফেনসিডিল খেয়ে এগুলো স্তূপ করে রেখেছে তা স্পষ্ট নয়। সিসিটিভি ক্যামেরা নিয়ন্ত্রিত থানার ভিতরে কীভাবে এই ফেনসিডিলের বোতলগুলো জমে আছে তা নিয়ে থানায় সেবা নিতে আসা সচেতন মহলে প্রশ্ন উঠেছে। তবে গ্যারাজে কোনো সিসি ক্যামেরা নেই।

পুলিশ মাদকসেবীদের ধরে জেলহাজতে পাঠায়। অথচ সেই থানা চত্বরে অসংখ্য পরিত্যক্ত ফেনসিডিলের বোতল জমা হয়ে আছে।

নওগাঁ মাদক নির্মূল কমিটির সভাপতি হাফিজার রহমান বলেন, ‘থানার মতো একটি সুরক্ষিত স্থানে কীভাবে ফেনসিডিলের বোতল পড়ে থাকে? এটা থানার কর্মকর্তাদের দায়িত্বে অবহেলার সামিল। পুলিশের ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করা এবং আরও দায়িত্বশীল হওয়া প্রয়োজন।’

এ ব্যাপারে মান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহিনুর রহমান জানান, ‘বিষয়টি আমার জানা নেই, যদি ছবি থাকে তবে পাঠান।’

থানার গ্যারাজে ফেনসিডিলের খালি বোতল
সোমবার সকালে থানার গ্যারাজে স্ট্যান্ড করে রাখা মোটরসাইকেলে ফাঁকে ফাঁকে ফেনসিডিলের বহু খোলা বোতল ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে থাকতে দেখা যায়। ছবি: নিউজবাংলা

এর পর মেসেঞ্জারে ছবি পাঠিয়ে তাকে একাধিকবার কল দিলেও পরে আর তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (মান্দা সার্কেল) মতিয়ার রহমান জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই। আপনার কাছে থেকে প্রথম জানলাম।

থানা একটি সুরক্ষিত স্থান হওয়ার পরও এর গ্যারাজে ফেনসিডিলের খালি বোতল কী করে পড়ে থাকে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আসলে সেটাতো আলমত সংরক্ষণের স্থান। তবুও আমি বিষয়টি খতিয়ে দেখব।’

আরও পড়ুন:
৫০ মডেল মসজিদ উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর
প্রধানমন্ত্রীর অপেক্ষায় ৫০ মডেল মসজিদ
মার্চেই উদ্বোধন হচ্ছে ৫০ মডেল মসজিদ

শেয়ার করুন

অনির্দিষ্টকালের লকডাউনে মাগুরা

অনির্দিষ্টকালের লকডাউনে মাগুরা

মাগুরা সিভিল সার্জন শহীদুল্লাহ দেওয়ান জানান, সর্বশেষ রোববার ৫৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২১ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। একই সাথে মহম্মদপুর উপজেলা সদরে তিনদিনে ২৯ নমুনায় ১৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। সব মিলিয়ে জেলায় করোনা আক্রান্তের হার শতকরা ৪২ ভাগ।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় সোমবার সকাল থেকে মাগুরা শহরকে অনির্দিষ্টকালের জন্য লকডাউনের আওতায় আনা হয়েছে। সেই সঙ্গে জেলার মহম্মদপুর উপজেলা সদরেও লকডাউন ঘোষণা করেছে উপজেলা প্রশাসন। এ ছাড়া মাগুরার একমাত্র পৌরসভার ২, ৭ ও ৮ নং ওয়ার্ডে রেড অ্যালার্ট ঘোষণা করা হয়েছে। মহম্মদপুর উপজেলা সদর ইউনিয়নকে রেড অ্যালার্টের আওতায় আনা হয়েছে।

সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত জেলা শহরের প্রবেশপথে বাঁশের প্রতিবন্ধকতা তৈরি করতে দেখা যায়। সেখfনে পুলিশের পাশাপাশি আনসার ও স্কাউট সদস্যদের তদারকি করতে দেখা যায়। বিশেষ করে ভায়না মোড় থেকে ঢাকা রোড ও নতুন বাজার এলাকায় রিকশা, অটোরিকশা, মোটর সাইকেল প্রবেশে বাধা দেয়া হয়। তবে জরুরি পরিষেবাগুলোর যান প্রবেশে বাধা ছিল না।

মাগুরা সিভিল সার্জন শহীদুল্লাহ দেওয়ান জানান, সর্বশেষ রোববার ৫৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২১ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। একই সাথে মহম্মদপুর উপজেলা সদরে তিনদিনে ২৯ নমুনায় ১৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। সব মিলিয়ে জেলায় করোনা আক্রান্তের হার শতকরা ৪২ ভাগ।

তিনি বলেন, কঠোর লকডাউন দেয়া না হলে সংক্রমণ জেলার সবখানে ছড়িয়ে যাবে। জেলার এমন পরিস্থিতিতে জেলা স্বাস্থ্যবিভাগের পক্ষ থেকে প্রশাসনকে লকডাউনের সুপারিশ করা হয়েছিল। সেই সিদ্ধান্ত মোতাবেক সোমবার থেকে মাগুরা শহর ও মহম্মদপুর উপজেলা সদরে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে।

জেলা প্রশাসক ড. আশরাফুল আলম জানান, লকডাউন কঠোরভাবে পালনে শহরের প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরের বেশ কয়েকটি ভ্রাম্যমাণ আদালত কাজ করছে। লকডাউন কার্যকর, রেডজোনে জনসাধারনের যাতাযাত সীমিতকরণ ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা হচ্ছে কি না তা নজরদারি করা হচ্ছে। বিশেষ করে শতভাগ মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে প্রশাসন মাঠে কাজ করছে।

আরও পড়ুন:
৫০ মডেল মসজিদ উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর
প্রধানমন্ত্রীর অপেক্ষায় ৫০ মডেল মসজিদ
মার্চেই উদ্বোধন হচ্ছে ৫০ মডেল মসজিদ

শেয়ার করুন

উদ্বোধনের আগেই সংযোগ সড়কে ধস

উদ্বোধনের আগেই সংযোগ সড়কে ধস

২ কোটি ৭৩ লাখ টাকায় নির্মিত সংযোগ সড়কটি উদ্বোধনের আগেই ধসে পড়েছে। ছবি: নিউজবাংলা

সোমবার সকাল ৯টার দিকে সেতুর দক্ষিণ পাশের সংযোগ সড়কটি ধসে পড়ে। একটি ট্রাক সড়কটি পার হওয়ার সময় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

উদ্বোধনের আগেই ধসে পড়েছে পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার বনগ্রামে আত্রাই নদীর ওপর নির্মিত সেতুর সংযোগ সড়ক। এই প্রকল্পে খরচ হয়েছে ২ কোটি ৭৩ লাখ টাকা।

বানগ্রামের হাটকে যানজট মুক্ত রাখতে হাটের পূর্ব পাশে মহাসড়কের উত্তরে আত্রাই নদীর ওপর চলতি অর্থ বছরে সড়কটি নির্মাণ করে এলজিইডি।

সোমবার সকাল ৯টার দিকে সেতুর দক্ষিণ পাশের সংযোগ সড়কটি ধসে পড়ে। একটি ট্রাক সড়কটি পার হওয়ার সময় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানায়, পণ্যবাহী ট্রাকটি উল্টে দুটি বসত বাড়িতে আঘাত হানে। এতে আহত হন তিনজন। ক্ষতিগ্রস্ত হয় বাড়ি দুটি।

এ ঘটনায় ঠিকাদার ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের অনিয়মের অভিযোগ জোরালো হয়। স্থানীয়দের দাবি, কাজের শুরু থেকেই সংযোগ সড়ক নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ করে আসছিলেন তারা।

বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে প্রকল্পের ঠিকাদারের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও, তাকে পাওয়া যায়নি।

আরও পড়ুন:
৫০ মডেল মসজিদ উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর
প্রধানমন্ত্রীর অপেক্ষায় ৫০ মডেল মসজিদ
মার্চেই উদ্বোধন হচ্ছে ৫০ মডেল মসজিদ

শেয়ার করুন

ধর্ষণের তিন মামলায় গ্রেপ্তার ২

ধর্ষণের তিন মামলায় গ্রেপ্তার ২

প্রতীকী ছবি।

পুলিশ বলছে, বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। দ্বিতীয় মামলাটি হয় গোপনে গোসলের ভিডিও ধারণ করে তা ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে আরেক গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগের। এ ছাড়া জাম খাওয়ানোর কথা বলে ৫ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে মামলা হয়েছে।

রংপুর মেট্রোপলিটনের হারাগাছ থানায় রোববার পৃথক তিনটি ধর্ষণের অভিযোগে তিনটি মামলা হয়েছে।

ওই দিনই ২ আসামীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

পুলিশ বলছে, বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। দ্বিতীয় মামলাটি হয় গোপনে গোসলের ভিডিও ধারণ করে তা ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে আরেক গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগের।

এ ছাড়া জাম খাওয়ানোর কথা বলে ৫ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে মামলা হয়েছে।

হারাগাছ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) একেএম জাহিদ হোসেন জানান, রোববার সকালে জাম খাওয়ানোর কথা বলে এক শিশুকে ধানক্ষেতে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে সাহেবগঞ্জের আমিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে।

পরে শিশুটি বাড়িতে গিয়ে তার মাকে পুরো ঘটনা জানিয়ে দেয়।

এ ঘটনায় শিশুটির বাবা আমিরুলের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন।

এর আগে শনিবার দুপুরে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে গাইবান্ধা সুন্দরগঞ্জের এসএসসি পরীক্ষার্থী সুমন বারি দাসের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় ১৭ বছর বয়সী মেয়েটির মা রোববার রাতে হারাগাছ থানায় নারী শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আশিকা সুলতানা জানান, মোবাইল ফোনে ছেলে ও মেয়ের পরিচয় হয়। তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

‘৬ জুন কুড়িগ্রামের উলিপুরে একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে মেয়েটির সঙ্গে দেখা হয় সুমন বারি দাসের। এরপর ১২ জুন সুমন মেয়েটির বাড়িতে যায়। এ সময় মেয়েটিকে একা পেয়ে ধর্ষণ করে সুমন। পরিবারের সদস্যরা বিষয়টি জানতে পেরে তাকে আটক করে পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে সুমন বারি দাসকে আটকসহ ভিকটিমকে উদ্ধার করে।’

এছাড়াও নগরীর সিগারেট কোম্পানি এলাকায় এক গৃহবধূ ধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে মামলা হয়েছে।

রোববার রাতে ওই গৃহবধূ অভিযুক্ত আরিফুল ইসলাম ও তার বাবা আব্দুর রাজ্জাকসহ দুই চাচাকে আসামি করে হারাগাছ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন।

হারাগাছ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আনোয়ার হোসেন বলেন, সম্প্রতি ওই গৃহবধূর গোসলের দৃশ্য গোপনে ভিডিওতে ধারণ করেন একই এলাকার আরিফুল ইসলাম। সেই ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে আরিফুল বিভিন্ন সময় তাকে ধর্ষণ করেন এবং ভিডিও মুছে ফেলার কথা বলে গৃহবধূর কাছ থেকে মোটা অংকের টাকাও আদায় করেন। পরে ওই গৃহবধূ ঘটনাটি পরিবারের লোকজনকে জানালে তারা আরিফুলের পরিবারকে জানায়। স্থানীয়ভাবে মিমাংসা করার কথা ছিল কিন্তু হয়নি।

পরে ওই গৃহবধূ রোববার রাতে আরিফুলসহ চারজনের বিরুদ্ধে নারী শিশু নির্যাতন দমন এবং পর্নগ্রাফী আইনে মামলা করেছেন।

তিনি বলেন, মামলা পর আব্দুর রাজ্জাককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

রংপুর মেট্টোপলিটন পুলিশের হারাগাছ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল

করিম জানান, ধর্ষণ ও ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে রোববার রাতে হারাগাছ থানায়

পৃথক তিনিট মামলা হয়েছে। দু’জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের সোমবার আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

অপর আসামিদের গ্রেপ্তারে পুলিশি অভিযান চলছে।

রংপুর মেট্রপলিটন আমলী আদালতে (হারাগাছ) সাধারণ নিবন্ধক মুনির হোসেন জানান, এ ঘটনায় দুই আসামীকে আদালতে নেয়া হলে হাকিম শুনানী শেষে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

আরও পড়ুন:
৫০ মডেল মসজিদ উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর
প্রধানমন্ত্রীর অপেক্ষায় ৫০ মডেল মসজিদ
মার্চেই উদ্বোধন হচ্ছে ৫০ মডেল মসজিদ

শেয়ার করুন

চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণার অভিযোগ

চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণার অভিযোগ

সংবাদ সম্মেলনে দুই শিক্ষক নেতার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনেন তিন নারী। ছবি: নিউজবাংলা

‘২০১৭ সালে শিশু কল্যাণ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে ফাররোখ ও আমানউল্লাহ তাদের প্রত্যেকের কাছ থেকে ৬ লাখ টাকা দাবি করেন। অগ্রীম হিসেবে শারমিন তাদের দেড় লাখ, নুরুননাহার আড়াই লাখ ও আলেয়া দেড় লাখ টাকা দেন।’

জয়পুরহাটে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দুই শিক্ষক নেতার বিরুদ্ধে চাকরির প্রলোভন দিয়ে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে।

ওই দুই শিক্ষক নেতা হলেন ক্ষেতলাল উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও জিয়াপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাবেক সহকারী শিক্ষক ওয়াদুদ ফাররোখ এবং পাঁচবিবি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও পাঁচবিবি ঢাকারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মো. আমানউল্লাহ।

জেলা প্রেসক্লাবে সোমবার বেলা ১২টার দিকে সংবাদ সম্মেলন করে এই অভিযোগ করেন তিন নারী।

অভিযোগকারী তিন নারী হলেন আক্কেলপুর উপজেলার কাশিড়া লক্ষ্মীভাটা গ্রামের আলেয়া বেগম, শারমিন আক্তার ও জয়পুরহাট সদরের জয়পার্বতীপুর দক্ষিণ কান্দি গ্রামের নুরুননাহার।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত অভিযোগ পাঠ করেন শারমিন আক্তার।

তিনি বলেন, ‘২০১৭ সালে শিশু কল্যাণ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে ফাররোখ ও আমানউল্লাহ তাদের প্রত্যেকের কাছ থেকে ৬ লাখ টাকা দাবি করেন। অগ্রীম হিসেবে শারমিন তাদের দেড় লাখ, নুরুননাহার আড়াই লাখ ও আলেয়া দেড় লাখ টাকা দেন।’

এরপর আক্কেলপুর মুজিবুর রহমান কলেজের পেছনে একটি শিশু কল্যাণ স্কুলও চালু করেন তারা। দেড় বছর সেই স্কুলের মাসিক ৬ হাজার টাকা ভাড়া শোধ করেন এই তিন নারী। কিন্তু তারা চাকরি দিব-দিচ্ছি বলে টালবাহানা করতে থাকেন ও একপর্যায়ে নান রকম হুমকি দেয়া শুরু করেন।

এ বছরের ৩১ মে ওই তিন নারী এই ঘটনার প্রতিকার চেয়ে জয়পুরহাট জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। কিন্তু কোনো প্রতিকার না পেয়ে সংবাদ সম্মেলনের সিদ্ধান্ত নেন।

এ বিষয়ে ফাররোখ ও আমানউল্লাহর সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তারা জানান, এত কথা মোবাইলে বলা সম্ভব না। সামনাসামনি জানাবেন।

কিন্তু পরে আবার ফোন করলে তারা জানান, কিছু টাকা তারা ফেরত দিয়েছেন। বাকিটাও দিয়ে দেবেন।

আরও পড়ুন:
৫০ মডেল মসজিদ উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর
প্রধানমন্ত্রীর অপেক্ষায় ৫০ মডেল মসজিদ
মার্চেই উদ্বোধন হচ্ছে ৫০ মডেল মসজিদ

শেয়ার করুন

শ্বশুরবাড়িতে ‘চারমাস বন্দি’ নারী দুই সন্তানসহ উদ্ধার

শ্বশুরবাড়িতে ‘চারমাস বন্দি’ নারী দুই সন্তানসহ উদ্ধার

এই বাড়িতে ‘চারমাস বন্দি’ থাকার পর ওই নারীকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। ছবি: নিউজবাংলা

বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলায় এক গৃহবধূকে দুই সন্তানসহ চার মাস গৃহবন্দি রাখার অভিযোগ উঠেছে তার স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকের বিরুদ্ধে। পুলিশ ওই নারীকে উদ্ধার করেছে।

উপজেলার নয়মাইল এলাকা থেকে সোমবার দুপুরে শ্বশুরবাড়ির তৃতীয় তলা থেকে ওই নারীকে উদ্ধার করা হয়।

শাজাহানপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আব্দুর রহমান নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশ জানিয়েছে, ১১ বছর আগে শাহাজানপুরের আড়িয়া ইউনিয়নের নয়মাইল মন্ডলপাড়া গ্রামের রফিকুল ইসলামের সঙ্গে ওই নারীর বিয়ে হয়। তাদের দুটি কন্যা শিশু আছে।

ওই নারীর অভিযোগ, বিয়ের পর থেকেই তার স্বামী ও শ্বশুর-শাশুড়ি শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতেন। এরপর গত চার মাস ওই নারীকে তার বাবার বাড়ির কারো সঙ্গে যোগাযোগ করতে দেয়া হয়নি।

স্বামী রফিকুল ইসলাম তাকে ওই বাড়ির ৩য় তলায় সন্তানসহ বন্দি করে রাখেন। তাদের ঠিকমতো খাবার দেয়া হতো না। কৌশলে তিনি বাবা-মাকে বিষয়টি জানালে তারা মেয়েকে নিতে এলে দেখা করতে দেয় না শ্বশুরবাড়ির লোকজন।

এরপর তার বাবা শাজাহানপুর থানায় অভিযোগ করলে পুলিশ গিয়ে তাকে সন্তানসহ উদ্ধার করে বাবা-মায়ের জিম্মায় দেয়।

এসআই আব্দুর রহমান জানান, তাদের উপস্থিতি টের পেয়ে ওই নারীর স্বামীসহ শশুর বাড়ির লোকজন পালিয়ে যায়। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে।

ওই নারীর স্বামীর সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

আরও পড়ুন:
৫০ মডেল মসজিদ উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর
প্রধানমন্ত্রীর অপেক্ষায় ৫০ মডেল মসজিদ
মার্চেই উদ্বোধন হচ্ছে ৫০ মডেল মসজিদ

শেয়ার করুন

ট্রাকের ধাক্কায় প্রাণ গেল পথচারীর

ট্রাকের ধাক্কায় প্রাণ গেল পথচারীর

পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ একেএম বানিউল আনাম জানান, রোববার সকালে মহাসড়ক পার হচ্ছিলেন ফণীন্দ্র নাথ। ওই সময় ঢাকাগামী দ্রুতগতির একটি মালবাহী ট্রাক তাকে ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যায়।

বগুড়ার শেরপুরে ট্রাকের ধাক্কায় গুরুতর আহত হয়ে চিকিৎসাধীন ফণীন্দ্র নাথ নামে এক পথচারী মারা গেছেন।

বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ (শজিমেক) হাসাপাতলে সোমবার বিকেলে অবস্থায় মারা যান তিনি।

এর আগে উপজেলার শেরুয়া বটতলা বাজার এলাকায় ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কে রোববার সকালে এক দুর্ঘটনায় তিনি আহত হন।

নিহত ফণীন্দ্র নাথ ধুনট উপজেলার বিলকাজলী গ্রামের বাসিন্দা।

শেরপুর হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ একেএম বানিউল আনাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, রোববার সকালে মহাসড়ক পার হচ্ছিলেন ফণীন্দ্র নাথ। ওই সময় ঢাকাগামী দ্রুতগতির একটি মালবাহী ট্রাক তাকে ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যায়। এতে গুরুতর আহত হন তিনি।

পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার বিকেলে মারা যান তিনি।

মরদেহ হাসপাতালের মর্গে রয়েছে বলে জানান এই কর্মকর্তা।

আরও পড়ুন:
৫০ মডেল মসজিদ উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর
প্রধানমন্ত্রীর অপেক্ষায় ৫০ মডেল মসজিদ
মার্চেই উদ্বোধন হচ্ছে ৫০ মডেল মসজিদ

শেয়ার করুন