অদ্ভুত মুখের শিশুর জন্ম

অদ্ভুত মুখের শিশুর জন্ম

হাসপাতালের অবেদনবিদ ডা. সজল পান্ডে জানান, বিকৃত মুখের শিশুটি যখন জন্ম নেয়, তখন তারাও আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। নিজেদের সামলে অস্ত্রোপচার সম্পন্ন করেন। শিশুটিকে তার অভিভাবকের কাছে দেয়া হলে তারা তাৎক্ষণিকভাবে তাকে গ্রহণে অস্বীকৃতি জানান। পরে বুঝিয়ে শিশুটিকে অভিভাবকদের কাছে দেয়া হয়।

বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে অদ্ভুত মুখের এক শিশুর জন্ম হয়েছে। শিশুটির নাক ও চোখ নেই। মুখের আকারও বিকৃত। মাথার ওপর বড় আকারের একটি টিউমারের মতো রয়েছে।

অস্বাভাবিক সন্তান হওয়ায় প্রথমে তাকে নিতে অপারগতা প্রকাশ করেন তার অভিভাবকরা। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ পরে বুঝিয়ে নবজাতককে নিতে রাজি করিয়েছে অভিভাবকদের। তবে আপাতত তাকে নবজাতক ওয়ার্ডে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন দায়িত্বরত চিকিৎসকরা। শিশুটির মা হাসপাতালের লেবার ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন।

বৃহস্পতিবার ভোররাতে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে শিশুটির জন্ম হয়।

শিশুটি ভোলা জেলার কলাকোপা গ্রামের রিকশাচালক মো. জাফর এবং তার স্ত্রী মুন্নী বেগমের সন্তান। তাদের সংসারে ছয় বছর বয়সের আরও একটি ছেলে রয়েছে।

হাসপাতালের অবেদনবিদ ডা. সজল পান্ডে জানান, বিকৃত মুখের শিশুটি যখন জন্ম নেয়, তখন তারাও আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। নিজেদের সামলে অস্ত্রোপচার সম্পন্ন করেন। শিশুটিকে তার অভিভাবকের কাছে দেয়া হলে তারা তাৎক্ষণিকভাবে তাকে গ্রহণে অস্বীকৃতি জানান। পরে বুঝিয়ে শিশুটিকে অভিভাবকদের কাছে দেয়া হয়। বর্তমানে শিশুটিকে হাসপাতালের নবজাতক ওয়ার্ডে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

আরও পড়ুন:
আশ্রয়কে‌ন্দ্রে শিশুর জন্ম
খুলি ও মগজবিহীন শিশুর জন্ম

শেয়ার করুন

মন্তব্য