রাজশাহীর ৪৯০ নমুনায় ১৯৯ শনাক্ত

রাজশাহী মেডিক্যালে নমুনা পরীক্ষায় শনাক্তের হার বেড়েছে। ফাইল ছবি

রাজশাহীর ৪৯০ নমুনায় ১৯৯ শনাক্ত

গত ২৪ ঘণ্টায় রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের দুই ল্যাবে মোট ৫৬৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২২১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে রাজশাহী জেলার ৪৯০ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১৯৯ জনের পজিটিভ এসেছে।

রাজশাহীতে ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৪৯০ জনের। সেই নমুনায় জেলার ১৯৯ জনেরই করোনা শনাক্ত হয়েছে।

জেলাটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার দাঁড়িয়েছে ৪০ দশমিক ৬১ শতাংশ।

মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে বুধবার সকাল ৮টার মধ্যে তাদের নমুনাগুলো পরীক্ষা করা হয়।

রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের উপপরিচালক সাইফুল ফেরদৌস এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের দুই ল্যাবে মোট ৫৬৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২২১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

এর মধ্যে রাজশাহী জেলার ৪৯০ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১৯৯ জনের পজিটিভ এসেছে।

পশের জেলা নওগাঁর ৭১ নমুনা পরীক্ষা করে ২১ জনের শরীরে করোনাভাইরাস পাওয়া গেছে। আর চাঁপাইনবাবগঞ্জের দুটি নমুনা পরীক্ষা করে একজনের করোনা পজেটিভ এসেছে।

রাজশাহীর দুই ল্যাবে সোমবার ৫৬০ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২৮০ জনের করোনা শনাক্ত হয়। এর মধ্যে রাজশাহীর ৩৮৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১৭৪ জনের পজিটিভ আসে। শতাংশের হিসাবে এ হার নমুনার ৪৫ শতাংশ।

রাজশাহীতে রোগী শনাক্তের সংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়ার সংখ্যাও বেড়েছে। এখন পর্যন্ত রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে গত সপ্তাহে এক দিনে সর্বোচ্চ ১৬ জন মারা গেছে করোনা ইউনিটে।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ অবশ্য বলছে, ওই ১৬ জনের মধ্যে ১০ জন করোনা আক্রান্ত ছিলেন। বাকি ৬ জন উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন।

এ ছাড়াও গত দুই দিনে টানা হাসপাতালটিতে ৮ জন করে মারা গেছে শুধু করোনা ইউনিটে। মঙ্গলবার ২৪ ঘণ্টার হিসাবে করোনায় ৩ জন ও উপসর্গ নিয়ে ৫ জন মারা গেছেন।

আর গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালটিতে মারা গেছে আরও ৮ জন। এর মধ্যে ৪ জন করোনা আক্রান্ত, আর ৪ জন উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন।

গত ২৪ মে থেকে ৯ জুন পর্যন্ত ১৭ দিনে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিট ও আইসিউতে মারা গেছেন ১৩০ জন।

সীমান্তবর্তী জেলা রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নওগাঁয় বাড়ছে করোনা সংক্রমণের হার। এসব জেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে চাঁপাইনবাবগঞ্জে।

জেলাটিতে সংক্রমণ ঠেকাতে দুই সপ্তাহের লকডাউন দেয়া হয়েছিল। রাজশাহীতেও সংক্রমণ ঠেকাতে সিটি করপোরশেন বেশ কিছু কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করেছে।

আর রাজশাহীর পাশের জেলা নাটোরের সদর ও সিংড়া পৌরসভায় বুধবার থেকে এক সপ্তাহের লকডাউন দিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন।

আরও পড়ুন:
রামেকের করোনা ইউনিটে দ্বিতীয় দিনের মতো ৮ মৃত্যু
যশোরে আক্রান্ত আরও ১২৫, কঠোর বিধিনিষেধ ২ পৌরসভায়
ডাক্তার সেজে করোনার জাল সনদ বিক্রি, ৪ জন রিমান্ডে
করোনায় দুই ভাইয়ের মৃত্যু
করোনা: ৩৯ দিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত

শেয়ার করুন

মন্তব্য

মন্ত্রীপুত্রের বাড়ি থেকে বিচ্ছিন্ন গ্যাসের অবৈধ ২২ সংযোগ

মন্ত্রীপুত্রের বাড়ি থেকে বিচ্ছিন্ন গ্যাসের অবৈধ ২২ সংযোগ

শুক্রবার বিকেলে ও শনিবার সকালে দুই দফায় এসব সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয় বলে জানিয়েছেন কেজিডিসিএলের মহাব্যবস্থাপক মোহাম্মদ নূরুল আবসার সিকদার।

সাবেক প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী নুরুল ইসলামের ছেলে মুজিবুর রহমানের বাড়িতে থাকা গ্যাসের অবৈধ ২২টি সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে।

চান্দগাঁও সানোয়ারা আবাসিক এলাকা থেকে এসব সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড (কেজিডিসিএল)।

শুক্রবার বিকেলে ও শনিবার সকালে দুই দফায় এসব সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয় বলে জানিয়েছেন কেজিডিসিএলের মহাব্যবস্থাপক (কোম্পানি সচিব) মোহাম্মদ নূরুল আবসার সিকদার।

জালিয়াতি করে মুজিবুর রহমানকে অবৈধ গ্যাস সংযোগ দেয়া এবং স্থানান্তরের অভিযোগে বৃহস্পতিবার কেজিডিসিএল বর্তমান ও সাবেক দুই শীর্ষ কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তার করে দুদক।

তারা হলেন মহাব্যবস্থাপক (ইঞ্জিনিয়ারিং ও সার্ভিসেস) সরোয়ার হোসেন ও সাবেক ব্যবস্থাপক মুজিবুর রহমান।

শুক্রবার তাদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এই মামলায় অন্য তিন আসামি হলেন কেজিডিসিএলের সাবেক মহাব্যবস্থাপক (বিপণন) মোহাম্মদ আলী চৌধুরী, টেকনিশিয়ান দিদারুল আলম এবং অবৈধ গ্যাস সংযোগ নেয়া মুজিবুর রহমান।

দুদকের এজাহারে বলা হয়, হালিশহরে এমএ সালাম নামে একজনের নামে বরাদ্দ করা ১৮টি দ্বৈত চুলার সংযোগ থেকে ১২টি সংযোগ চান্দগাঁও সানোয়ারা আবাসিক এলাকায় স্থানান্তর করা হয়। মুজিবুর রহমানের সঙ্গে ‘ভুয়া চুক্তিনামা’ দেখিয়ে এটি করা হয়। অথচ এক গ্রাহকের নামে বরাদ্দ সংযোগ অন্য গ্রাহককে দেয়ার বিধান নেই।

২০১৬ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি থেকে গ্যাস সংযোগ দেয়া বন্ধ থাকলেও সানোয়ারা আবাসিক এলাকায় মুজিবুর রহমানের নামে আরও ১০টি সংযোগ দেয়া হয়।

২০১৬ সালের ২ মার্চ থেকে পরের বছরের ২ আগস্ট পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে এসব সংযোগ দেয়া হয়েছে বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়।

এ ঘটনায় গত ৯ জুন দুদক চট্টগ্রাম কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক শরীফ উদ্দিন পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

আরও পড়ুন:
রামেকের করোনা ইউনিটে দ্বিতীয় দিনের মতো ৮ মৃত্যু
যশোরে আক্রান্ত আরও ১২৫, কঠোর বিধিনিষেধ ২ পৌরসভায়
ডাক্তার সেজে করোনার জাল সনদ বিক্রি, ৪ জন রিমান্ডে
করোনায় দুই ভাইয়ের মৃত্যু
করোনা: ৩৯ দিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত

শেয়ার করুন

এবারও হচ্ছে না শাহজালাল মাজারের ওরস

এবারও হচ্ছে না শাহজালাল মাজারের ওরস

হযরত শাহজালাল (র.) মাজার প্রাঙ্গণ। ফাইল ছবি।

সংবাদ সম্মেলনে ফতেহ উল্লাহ বলেন, আগামী ১ ও ২ জুলাই শাহজালাল (র.) এর ৭০২ তম ওরস মোবারক যথাযথ আনুষ্ঠানিকতায় পালিত হওয়ার কথা। তবে করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় অন্যান্য বছরের মতো আনুষ্ঠানিকতা পালন করা হবে না। ভক্ত ও আশেকানদের স্ব স্ব স্থানে থেকে ইবাদত বন্দেগি করার অনুরোধ জানান তিনি।

সিলেটের সাতশ' বছরের ঐতিহ্য হযরত শাহজালাল (র.) মাজারের ওরস এবারও হচ্ছে না। করোনা সংক্রমণ উর্ধমুখী থাকায় গত বছরের মতো এবারও উরস আয়োজন না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মাজার কমিটি।

সংবাদ সম্মেলনে শনিবার দুপুরে এ তথ্য জানান শাহজালাল (র.) মাজারের মতোয়াল্লি ফতেহ উল্লাহ আল আমান।

সাতশ' বছরের ধারাবাহিকতায় ছেদ ঘটিয়ে গত বছরই প্রথমবারের মতো ওরসের আয়োজন করা হয়নি। এবারও ওরস মোবারকের কোনো আনুষ্ঠানিকতা থাকছে না।

সংবাদ সম্মেলনে ফতেহ উল্লাহ বলেন, আগামী ১ ও ২ জুলাই শাহজালাল (র.) এর ৭০২ তম ওরস মোবারক যথাযথ আনুষ্ঠানিকতায় পালিত হওয়ার কথা। তবে করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় অন্যান্য বছরের মতো আনুষ্ঠানিকতা পালন করা হবে না। ভক্ত ও আশেকানদের স্ব স্ব স্থানে থেকে ইবাদত বন্দেগি করার অনুরোধ জানান তিনি।

এর আগে, করোনা পরিস্থিতিতে গত বছরও ৭০১ তম ওসর মোবারক আনুষ্ঠানিকতা পালন করা হয়নি।

দরগাহ কর্তৃপক্ষ জানায়, করোনার কারণে কর্তৃপক্ষ কয়েকজন সংশ্লিষ্ট ব্যাক্তিদের নিয়ে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে সংক্ষিপ্ত আনুষ্ঠানিকতা পালিত হবে। এ সময় মাজারের মূল ফটক বন্ধ থাকবে। ফলে সাধারণ মানুষজন প্রবেশ করতে পারবেন না।

প্রতিবছর ওরসের সপ্তাহখানেক আগে 'লাকড়ি ভাঙা' নামে এক ধরণের অনুষ্ঠান করা হয়। এবার লাকড়ি ভাঙা অনুষ্ঠানও হয়েছে সীমিত পরিসরে।

ইয়েমেন থাকা আসা পীর হযরত শাহজালাল (র.)-এর মৃত্যুবার্ষিকীতে প্রতিব্ছর এই ওরসের আয়োজন করা হয়। দেশ-বিদেশ থেকে শাহজালালের লক্ষাধিক ভক্ত ওরস চালাকালে মাজার প্রাঙ্গণে সমেবত হন। দুইদিনব্যাপী ওরসে জিকির আসকার ও ধর্মীয় নানা আনুষ্ঠানিকতায় অংশ নেন তারা।

আরও পড়ুন:
রামেকের করোনা ইউনিটে দ্বিতীয় দিনের মতো ৮ মৃত্যু
যশোরে আক্রান্ত আরও ১২৫, কঠোর বিধিনিষেধ ২ পৌরসভায়
ডাক্তার সেজে করোনার জাল সনদ বিক্রি, ৪ জন রিমান্ডে
করোনায় দুই ভাইয়ের মৃত্যু
করোনা: ৩৯ দিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত

শেয়ার করুন

আ.লীগের দুই পক্ষের হাতাহাতি, পুলিশের লাঠিচার্জ

আ.লীগের দুই পক্ষের হাতাহাতি, পুলিশের লাঠিচার্জ

মাদারীপুরে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের হাতাহাতির ঘটনায় পুলিশ লাঠিচার্জ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ছবি: নিউজবাংলা

মাদারীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) এহসানুল রহমান ভূঁইয়া বলেন, প্রতিবাদ থেকে একটা সময় উত্তেজিত নেতা-কর্মীরা পাশের বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক ও ইসলামী ব্যাংকের ঘটকচর শাখা এবং বেশ কয়েকটি দোকান-ঘরবাড়ি ভাঙচুর করেন।

সাবেক নৌপরিবহনমন্ত্রী ও মাদারীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য শাজাহান খানের বাবা মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক মৌলভি আছমত আলী খানকে নিয়ে কটূক্তির প্রতিবাদে মানববন্ধনে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এতে আহত হয়েছেন তিন পুলিশসহ অন্তত ১৫ জন।

ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের সদর উপজেলার কলাবাড়ি এলাকায় শনিবার সকাল ১০টায় এ ঘটনা ঘটে। এ সময় মহাসড়কে ঘণ্টাখানেক যান চলাচল বন্ধ ছিল।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সম্প্রতি রাজৈরে এক অনুষ্ঠানে আছমত আলী খানকে নিয়ে কটূক্তি করে বক্তব্য দেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহাবুদ্দিন আহম্মেদ মোল্লা। এ জন্য তার পদত্যাগের দাবিতে সকালে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের কলাবাড়ি এলাকায় মানববন্ধন ও বিক্ষোভের ডাক দেন শাজাহান খান সমর্থিত কর্মীরা।

একই সময় একই স্থানে সাহাবুদ্দিন আহম্মেদ মোল্লার সমর্থকরা প্রতিবাদ সভার আয়োজন করলে দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়।

পুলিশ জানায়, উত্তেজনার একপর্যায়ে দুই পক্ষের লোকেরা হাতাহাতি শুরু করেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে গেলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে উভয় পক্ষকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

মাদারীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) এহসানুল রহমান ভূঁইয়া বলেন, প্রতিবাদ থেকে একটা সময় উত্তেজিত নেতা-কর্মীরা পাশের বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক ও ইসলামী ব্যাংকের ঘটকচর শাখা এবং বেশ কয়েকটি দোকান-ঘরবাড়ি ভাঙচুর করেন।

তিনি আরও জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে গেলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে। এ সময় নেতা-কর্মীদের হামলায় তিন পুলিশও আহত হয়।

এখন ওই এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
রামেকের করোনা ইউনিটে দ্বিতীয় দিনের মতো ৮ মৃত্যু
যশোরে আক্রান্ত আরও ১২৫, কঠোর বিধিনিষেধ ২ পৌরসভায়
ডাক্তার সেজে করোনার জাল সনদ বিক্রি, ৪ জন রিমান্ডে
করোনায় দুই ভাইয়ের মৃত্যু
করোনা: ৩৯ দিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত

শেয়ার করুন

নৌকার প্রার্থীর প্রচারে হামলা

নৌকার প্রার্থীর প্রচারে হামলা

বরগুনার আয়লা-পাতাকাটা ইউনিয়নে ইউপি নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীর প্রচারে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর হয় মোটরসাইকেল। ছবি: নিউজবাংলা

আওয়ামী লীগ মনোনীত ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী মজিবুল হক কিসলু বলেন, ‘কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে শান্তিপূর্ণ প্রচারে নেমেছিলাম। পথে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোশাররফ হোসেনের সন্ত্রাসী বাহিনী আমার সমর্থকদের ওপর হামলা চালায়। তাদের হামলায় অন্তত ১০ সমর্থক আহত হয়েছে। পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে মোটরসাইকেল।'

বরগুনার আয়লা-পাতাকাটা ইউনিয়নে ইউপি নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীর প্রচারে হামলার ঘটনা ঘটেছে।

ইউনিয়নের নয়বাজার এলাকায় শনিবার দুপুর দুইটার দিকে এই হামলা হয়।

নৌকার প্রার্থীর অভিযোগ, স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকরা হামলা চালিয়ে ১০ জনকে আহত করে। এ সময় অন্তত ১২টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করা হয়।

আয়লা-পাতাকাটা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান খন্দকার আশশাকুর ফিরোজ জানান, নৌকার প্রার্থী মজিবুল হক কিসলু দুপুর দুইটার পর মোটরসাইকেলে কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে প্রচারে বের হন। নয়াবাজার এলাকায় পৌঁছালে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোশাররফ হোসেনের নেতৃত্বে তার সমর্থকরা তাদের ওপর হামলা চালিয়ে দুটি মোটরসাইকেলে আগুন দেয়, ভাঙচুর করে ১২টি মোটরসাইকেল।

স্থানীয় বাসিন্দা জুলহাস মিয়া জানান, স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে বেশ কিছু মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে চলে যায়।

নৌকার প্রার্থীর প্রচারে হামলা

আওয়ামী লীগ মনোনীত ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী মজিবুল হক কিসলু বলেন, ‘কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে শান্তিপূর্ণ প্রচারে নেমেছিলাম। পথে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোশাররফ হোসেনের সন্ত্রাসী বাহিনী আমার সমর্থকদের উপর হামলা চালায়। তাদের হামলায় অন্তত ১০ সমর্থক আহত হয়েছে। মোটরসাইকেল পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে, ভাঙচুর করা হয়েছে ১২ টি মোটরসাইকেল।’

তিনি বলেন, ‘মোশাররফ হোসেন পরাজয় নিশ্চিত জেনে শুরু থেকেই সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছেন। আজকের হামলাও তারই ধারাবাহিকতা।’

নৌকার প্রার্থীর প্রচারে হামলা

এ বিষয়ে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে মোশাররফ হোসেনের মোবাইল নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়।

বরগুনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কে এম তারিকুল ইসলাম জানান, ঘটনাস্থলে পৌঁছে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

নৌকার প্রার্থীর প্রচারে হামলা

মোটরসাইকেল ভাঙচুর ও পুড়িয়ে দেয়ার বিষয়টি স্বীকার করে ওসি তারিক বলেন, ‘আলামত হিসেবে মোটরসাইকেলগুলো থানায় নিয়ে আসব। এ ঘটনায় কেউ অভিযোগ করলে পুলিশ আইনগত ব্যবস্থা নেবে।’

আরও পড়ুন:
রামেকের করোনা ইউনিটে দ্বিতীয় দিনের মতো ৮ মৃত্যু
যশোরে আক্রান্ত আরও ১২৫, কঠোর বিধিনিষেধ ২ পৌরসভায়
ডাক্তার সেজে করোনার জাল সনদ বিক্রি, ৪ জন রিমান্ডে
করোনায় দুই ভাইয়ের মৃত্যু
করোনা: ৩৯ দিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত

শেয়ার করুন

সাত দিনের লকডাউনে নড়াইল

সাত দিনের লকডাউনে নড়াইল

শনিবার থেকে প্রতিদিন সন্ধ্যা ৬টা থেকে সকাল ৮টা পর্যন্তু আগামী সাতদিন নড়াইল পৌরসভা,লোহাগড়া পৌরসভা ও কালিয়া পৌরসভাসহ সদর উপজেলার কলোড়া,সিংগাশোলপুর,বিছালি ইউনিয়ন এবং লোহাগড়া উপজেলার শাল নগর ইউনিয়ন এলাকায় লকডাউন চলবে।

নড়াইলে করোনা সংক্রমণ বাড়তে থাকায় শনিবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে সাত দিনের লকডাউনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে জেলা প্রশাসন।

জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে করোনা প্রতিরোধ কমিটির এক জরুরি সভায় শুক্রবার রাত ৮টার দিকে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

সভায় জানানো হয়, শনিবার থেকে প্রতিদিন সন্ধ্যা ৬টা থেকে সকাল ৮টা পর্যন্তু আগামী সাতদিন নড়াইল পৌরসভা, লোহাগড়া পৌরসভা ও কালিয়া পৌরসভাসহ সদর উপজেলার কলোড়া, সিংগাশোলপুর,বিছালি ইউনিয়ন এবং লোহাগড়া উপজেলার শালনগর ইউনিয়ন এলাকায় লকফডাউন চলবে।

লোহাগড়া উপজেলা প্রশাসন ও কালিয়া উপজেলা প্রশাসন করোনা পরিস্থিতি বিবেচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। এছাড়া করোনা ঠেকাতে মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করবে জেলা প্রশাসন।

করোনায় নড়াইলে ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত হয়েচেন ৫১ জন। এদের মধ্যে সদর উপজেলায় ৩৬, লোহাগড়া উপজেলায় ১২ ও কালিয়া উপজেলায় ৩ জন।

আরও পড়ুন:
রামেকের করোনা ইউনিটে দ্বিতীয় দিনের মতো ৮ মৃত্যু
যশোরে আক্রান্ত আরও ১২৫, কঠোর বিধিনিষেধ ২ পৌরসভায়
ডাক্তার সেজে করোনার জাল সনদ বিক্রি, ৪ জন রিমান্ডে
করোনায় দুই ভাইয়ের মৃত্যু
করোনা: ৩৯ দিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত

শেয়ার করুন

বেতন দাবিতে সড়কে চাকরিচ্যুত শ্রমিকরা, পুলিশের লাঠিপেটা

বেতন দাবিতে সড়কে চাকরিচ্যুত শ্রমিকরা, পুলিশের লাঠিপেটা

নারায়ণগঞ্জে বকেয়া পাওনার দাবিতে সড়ক অবরোধ করে টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করেছে পোশাককারখানার শ্রমিকরা। ছবি: নিউজবাংলা

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মেহেদী ইমরান সিদ্দিকী নিউজবাংলাকে জানান, মালিকপক্ষের সঙ্গে কথা বলে সমস্যা সমাধানের জন্য আন্দোলনরত শ্রমিকদের আশ্বাস দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করা হয়। কিন্তু শ্রমিকরা এ আশ্বাস না মেনে আরও ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন।

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে আদমজী ইপিজেড এলাকায় বকেয়া বেতনের দাবিতে শনিবার সকাল আটটা থেকে প্রায় তিন ঘণ্টা সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে একটি পোশাক কারখানার চাকরিচ্যুত শ্রমিকরা।

স্থানীয় লোকজন জানিয়েছেন, আদমজী ইপিজেডের সামনে কুনতুং এ্যাপারেলস লি. (ফ্যাশন সিটি) নামের পোশাক কারখানার চাকরিচ্যুত দুই শতাধিক শ্রমিক শনিবার সকাল আটটার দিকে নারায়ণগঞ্জ-আদমজী সড়কে এ বিক্ষোভ শুরু করেন। তারা টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে বেতনের দাবিতে স্লোগান দিতে থাকেন। এতে দুই পাশে দীর্ঘ যানজট লেগে যায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ বেলা ১১টার দিকে লাঠিপেটা ও টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে আন্দোলনরত শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এ সময় অন্তত ৫ শ্রমিক আহত হন। দুপুর ২টার দিকে সড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়।

গত মাসের বেতন চেয়ে কারখানা মালিকদের পক্ষ থেকে কোনো সমাধান পাওয়া যায়নি বলে অভিযোগ করেছেন আন্দোলনরত এক শ্রমিক।

তিনি বলেন, ‘হঠাৎ করেই আমাদের দুই শতাধিক শ্রমিককে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। কিন্তু গত মাসের বেতন পরিশোধ করা হয়নি আজও। এ জন্য চাকরিচ্যুত শ্রমিকরা বকেয়া বেতনের দাবিতে সকালে নারায়ণগঞ্জ-আদমজী সড়কে অবস্থান নেন। এ সময় পুলিশ আমাদের লাঠিপেটা করে ও টিয়ার শেল মারে। এতে আমাদের অন্তত পাঁচ শ্রমিক আহত হয়েছেন।’

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মেহেদী ইমরান সিদ্দিকী নিউজবাংলাকে জানান, মালিকপক্ষের সঙ্গে কথা বলে সমস্যা সমাধানের জন্য আন্দোলনরত শ্রমিকদের আশ্বাস দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করা হয়। কিন্তু শ্রমিকরা এ আশ্বাস না মেনে আরও ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। তারা সড়ক অবরোধ করে ইট-পাটকেল ছুড়তে থাকেন। পরে পুলিশ তাদের ধাওয়া, লাঠিপেটা ও টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

আরও পড়ুন:
রামেকের করোনা ইউনিটে দ্বিতীয় দিনের মতো ৮ মৃত্যু
যশোরে আক্রান্ত আরও ১২৫, কঠোর বিধিনিষেধ ২ পৌরসভায়
ডাক্তার সেজে করোনার জাল সনদ বিক্রি, ৪ জন রিমান্ডে
করোনায় দুই ভাইয়ের মৃত্যু
করোনা: ৩৯ দিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত

শেয়ার করুন

কোম্পানীগঞ্জে হরতালে পুলিশের গুলি

কোম্পানীগঞ্জে হরতালে পুলিশের গুলি

নোয়াখালীর পুলিশ সুপার (এসপি) আলমগীর হোসেন জানান, তারা রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়েছিল। পুলিশ সরাতে গেলে তারা পুলিশের গাড়ির দিকে ইটপাটকেল ছোড়ে। এতে পুলিশের চার সদস্য আহত হন। এরপর পুলিশ ২০-২২টি গুলি ছোড়ে।

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় আওয়ামী লীগের (একাংশ) ডাকা হরতালে বাধা দেয়ায় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে আটজন আহত হয়েছেন।

তাদের মধ্যে গুলিবিদ্ধ চারজন উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান বাদলের অনুসারী ও বাকি চারজন পুলিশ সদস্য।

উপজেলার চর কাঁকড়া ইউনিয়নের টেকের বাজারে শনিবার দুপুর ১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

চর কাঁকড়া ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা জামাল উদ্দিন জানান, পুলিশের গুলিতে আহত চারজন হলেন ৪ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা ফখরুল ইসলাম সবুজ, তার ছেলে চয়ন ও সবুজের ভাগনে মো. আরিয়ান এবং ওই ইউনিয়নের রূপনগর গ্রামের মো. হৃদয়।

স্থানীয় লোকজন জানান, হরতালের শুরুতে বাদলের অনুসারীরা বসুরহাট-পেশকারহাট প্রধান সড়ক অবরোধ করেন। এ সময় পুলিশ তাদের বাধা দেয়। একপর্যায়ে পুলিশ লাঠিচার্জ করে তাদের সরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করলে তারা পাল্টা ইট-পাটকেল ছোড়া শুরু করেন। এতে পুলিশের কয়েকজন আহত হন।

পরে পুলিশ গুলি ছুড়লে বাদলের চার অনুসারী আহত হন।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইফুদ্দিন আনোয়ার জানান, রাস্তায় পুলিশের ওপর আক্রমণ করলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ফাঁকা গুলি ছোড়া হয়। তবে এ ঘটনায় কতজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন, তা এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

নোয়াখালীর পুলিশ সুপার (এসপি) আলমগীর হোসেন জানান, তারা রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়েছিল। পুলিশ সরাতে গেলে তারা পুলিশের গাড়ির দিকে ইটপাটকেল ছোড়ে। এতে পুলিশের চার সদস্য আহত হন। এরপর পুলিশ ২০-২২টি গুলি ছোড়ে।

এর আগে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান বাদলের ওপর হামলার প্রতিবাদে ৪৮ ঘণ্টার হরতাল ডেকেছে উপজেলা আওয়ামী লীগের একাংশ।

তাদের অভিযোগ, এই হামলার ঘটনা বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জার নেতৃত্বে হয়েছে।

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের (একাংশ) মুখপাত্র মাহবুবুর রশীদ মঞ্জু শনিবার দুপুরে নিজের ফেসবুক আইডি থেকে লাইভে এসে হরতালের ডাক দেন।

শনিবার দুপুর ১টা থেকে শুরু হয়ে আগামী ৪৮ ঘণ্টা চলবে এই হরতাল।

লাইভে মঞ্জু বলেন, ‘সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ডুয়েল রোল প্লে করছেন। এই ডুয়েল রোল প্লে করে আপনি কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের মানসম্মান নষ্ট করে দিয়েছেন।

‘আমরা প্রতিবাদ করেছি। আপনি আমাদের মাঠে নামিয়েছেন। এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে আমরাও মুখ খুলব।’

কোম্পানীগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সামনে বসুরহাট-দাগনভূঞা সড়কে শনিবার সকাল পৌনে ১০টার দিকে মিজানুর রহমান বাদলের ওপর হামলা হয়। এ সময় বাদলের সঙ্গে থাকা উপজেলা আওয়ামী লীগের মুখপাত্র হাসিবুল হোসেন আলালকেও জখম করা হয়।

আরও পড়ুন:
রামেকের করোনা ইউনিটে দ্বিতীয় দিনের মতো ৮ মৃত্যু
যশোরে আক্রান্ত আরও ১২৫, কঠোর বিধিনিষেধ ২ পৌরসভায়
ডাক্তার সেজে করোনার জাল সনদ বিক্রি, ৪ জন রিমান্ডে
করোনায় দুই ভাইয়ের মৃত্যু
করোনা: ৩৯ দিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত

শেয়ার করুন