সুবর্ণচরে আবার স্বামীকে গাছে বেঁধে নারীকে ‘ধর্ষণ’

সুবর্ণচরে আবার স্বামীকে গাছে বেঁধে নারীকে ‘ধর্ষণ’

পুলিশ জানায়, সোমবার রাত ১২টার দিকে ডাকাতির জন্য বাড়ির দরজা ভেঙে ভেতরে ঢোকে মামলার ছয় আসামি। এরপর তারা অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে ওই নারীর স্বামী ও সন্তানদের ঘর থেকে বের করে স্বামীকে গাছের সঙ্গে বেঁধে ফেলে। এরপর গ্রেপ্তার যুবক ওই নারীকে ধর্ষণ করে ও বাকিরা আলমারি ভেঙে টাকা ও স্বর্ণালংকার লুট করে।

নোয়াখালীর সুবর্ণচরে স্বামীকে গাছে বেঁধে স্ত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে এক যুবককে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ।

উপজেলার চরজুবিলী ইউনিয়ন থেকে মঙ্গলবার ভোরে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর বিকেলে তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

এর আগে মঙ্গলবার ভোররাতে ছয়জনের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা করেন ওই নারী।

পুলিশ জানায়, সোমবার রাত ১২টার দিকে ডাকাতির জন্য বাড়ির দরজা ভেঙে ভেতরে ঢোকে মামলার ছয় আসামি। এরপর তারা অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে ওই নারীর স্বামী ও সন্তানদের ঘর থেকে বের করে স্বামীকে গাছের সঙ্গে বেঁধে ফেলে।

পরে গ্রেপ্তার যুবক ওই নারীকে ধর্ষণ করে ও বাকিরা আলমারি ভেঙে টাকা ও স্বর্ণালংকার লুট করে।

পরে স্থানীয়দের সহায়তায় পুলিশকে খবর দিলে তারা ওই স্বামীকে সুবর্ণচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে ও তার স্ত্রীকে থানায় নেয়।

চরজব্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জিয়াউল হক নিউজবাংলাকে জানান, থানায় নেয়ার পর ওই নারী ছয়জনের নামে মামলা করেন। তারপরই প্রধান আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়। বাকিদেরও ধরতে পুলিশ চেষ্টা চালাচ্ছে।

এর আগে ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর জাতীয় সংসদ নির্বাচনের রাতে নোয়াখালীর সুবর্ণচরে স্বামী, সন্তানকে গাছে বেঁধে এক নারীকে ধর্ষণের অভিযোগে আলোচনায় আসে সুবর্ণচর।

৩১ ডিসেম্বর নয়জনের নামে চরজব্বার থানায় মামলা করেন ওই নারীর স্বামী।

আরও পড়ুন:
অপহরণ করে ধর্ষণের অভিযোগে ২ যুবক কারাগারে
ধর্ষণ মামলায় কারাগারে যুবক
স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা, যুবক আটক
‘গৃহবধূকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ’, এক আসামি কারাগারে
বিয়ে দিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ ধামাচাপার চেষ্টা

শেয়ার করুন

মন্তব্য