শরিফুল ইসলাম মারুফ

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটের নয়াপাড়া গ্রামের শরিফুল ইসলাম মারুফ

প্রতিবন্ধী কার্ড না পাওয়ায় ভিক্ষা করেন মারুফ

মেয়র আব্দুস সাত্তার মিলন বলেন, ‘আমি একাধিকবার তাকে জন্মনিবন্ধনের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে আসতে বলেছিলাম। সে কোনো কাগজপত্র জমা দিতে পারেনি। এই প্রক্রিয়ায় আমাদের হাত নেই। জন্মনিবন্ধন বা এনআইডি কার্ড না থাকায় প্রতিবন্ধী হওয়ার পরেও আমরা তাকে কোনো সরকারি সহায়তা দিতে পারিনি।’

দেড় বছর বয়সে ধান ভানার চুলার আগুনে দুই হাত ও মুখের কিছু অংশ পুড়ে যায় দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটের নয়াপাড়া গ্রামের বাসিন্দা শরিফুল ইসলাম মারুফের। এরপর থেকে দুই হাত অকেজো হয়ে পড়ে তার।

মারুফের বয়স এখন ৩০ বছর। হাতের আঙুলের ছাপ ও আইরিস স্ক্যান জটিলতায় জন্মনিবন্ধন ও জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) পাচ্ছেন না তিনি। সরকারি ভাতা না পাওয়ায় বাধ্য হয়ে নেমেছেন ভিক্ষায়।

মারুফ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আজও আমি বাংলাদেশের নাগরিক হতে পারিনি। কোনো সরকারি ভাতাও পাই না। এনআইডি এবং জন্মনিবন্ধন সনদও মেলেনি।’

তিনি জানান, পুড়ে যাওয়া দুই হাতের ফিঙ্গার প্রিন্ট এবং মুখের অনেকাংশ পুড়ে যাওয়ায় চোখের আইরিস স্ক্যান জটিলতায় ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হতে পারেননি। এসব কারণে কাগজে-কলমে আজও মেলেনি তার নাগরিকত্ব।

ষষ্ঠ শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন মারুফ। নিম্নমধ্যবিত্ত পরিবারের তিন ভাই ও তিন বোনের মধ্যে মারুফ সবার ছোট। বাবা আসাদ আলী মারা গেছেন কয়েক বছর আগে। বৃদ্ধা মা সুফিয়া বেগমও ব্রেন স্ট্রোকে দীর্ঘদিন ধরে শয্যাশায়ী।

ছোটবেলা থেকে মারুফের ইচ্ছা ছিল বড় হয়ে খেলোয়াড় হবেন। পঙ্গুত্ব নিয়েই ক্রীড়াচর্চায় তার আগ্রহ ছিল। ২০০৫ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত তিনি আঞ্চলিক বিভিন্ন টুর্নামেন্টে ফুটবল খেলতেন। এলাকায় ফুটবলে সুনামও কুড়িয়েছিলেন মারুফ। তবে শারীরিক সীমাবদ্ধতায় বেশি দূর এগোতে পারেননি।

পরে দীর্ঘদিন নাইট গার্ডের কাজ করেছেন হাটবাজারে। বর্তমানে এলাকায় ভিক্ষা করছেন।
মারুফ বলেন, ‘জন্মনিবন্ধনের জন্য পৌরসভায় গেলে টিকার কার্ড এবং বাড়ির ট্যাক্সের কাগজ নিয়ে আসতে বলে। টিকার কার্ড নাই। বাবা-মা আমাকে টিকা দিয়েছে কিনা তাও জানি না। আর ট্যাক্সের কাগজ? মাথা গোঁজার ঠাঁই নেই।

‘ভাঙা কুঠরি ঘরে থাকি। খেয়ে না খেয়ে দিন চলে। ট্যাক্স দিব কোথায় থেকে আর ট্যাক্সের কাগজ পাব কোথায়? ভোটার আইডি কার্ড করতে গিয়েও একই সমস্যা।’

ঘোড়াঘাট পৌরসভার মেয়র আব্দুস সাত্তার মিলন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি একাধিকবার তাকে জন্মনিবন্ধন করার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে আসতে বলেছিলাম। জন্মনিবন্ধন করতে বেশ কয়েকটি ডকুমেন্ট জমা দিতে হয়। কিন্তু সে কোনো কাগজপত্র জমা দিতে পারেনি। জন্মনিবন্ধন কার্যক্রম এখন সরাসরি অনলাইন প্রক্রিয়াতে চলে গিয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘অনলাইনে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সাবমিট করতে না পারলে জন্মনিবন্ধন করা সম্ভব নয়। এই প্রক্রিয়াতে আমাদের কোনো হাত নেই। আবার জন্মনিবন্ধন বা এনআইডি কার্ড না থাকায় প্রতিবন্ধী হওয়ার পরেও আমরা তাকে কোনো সরকারি সহায়তা দিতে পারিনি।’

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শাহজাহান মানিক বলেন, ‘মারুফসহ আরও দুই প্রতিবন্ধীকে ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করতে আমরা ২৪ মে দ্বিতীয় দফায় কমিশনে চিঠি পাঠিয়েছি। এর আগে তারা কেন ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হতে পারেনি, তা আমার জানা নেই।

‘গত মার্চে পৌরসভা কর্তৃপক্ষ আমাকে জানায়, মারুফ নামে এক প্রতিবন্ধী ভোটার তালিকায় যুক্ত হতে পারেনি। ফলে সে সরকারি বিভিন্ন সহযোগিতা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। পরে মারুফকে অফিসে ডেকে নিয়ে তার ছবি নিয়েছি।’

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শাহজাহান বলেন, ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনারের অনুমোদন পেলেই আমরা তাদেরকে ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করতে পারব। ভোটার আইডি কার্ড তাদের হাতে তুলে দেয়া হবে। আশা করছি আগামী এক মাসের মধ্যেই তারা ভোটার তালিকায় যুক্ত হতে পারবে।’

আরও পড়ুন:
‘তাজা মানুষ আমি, মৃত ঘোষণা করে দিল’

শেয়ার করুন

মন্তব্য

সাতক্ষীরায় এক দিনে মৃত্যু ৮, শনাক্ত ৪৮

সাতক্ষীরায় এক দিনে মৃত্যু ৮, শনাক্ত ৪৮

জেলায় গত ২৪ ঘণ্টায় ১৫৮ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৪৮ জনের দেহে করোনার অস্তিত্ব পাওয়া গেছে। শনাক্তের হার ৩০ দশমিক ১০ শতাংশ। এর আগের ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ছিল ৪৩ শতাংশ।

সাতক্ষীরায় ২১ দিন লকডাউনেও মেলেনি সুফল। গত ২৪ ঘণ্টায় সাতক্ষীরা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে এক জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ও সাত জন উপসর্গ নিয়ে মারা গেছে।

সিভিল সার্জনের কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, করোনায় গত ২৪ ঘণ্টায় মৃতদের মধ্যে ৭ জন সাতক্ষীরা মেডিক্যালে ও ১ জন বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

এ নিয়ে উপসর্গ নিয়ে মারা গেলেন ৩০৪ জন। আর করোনা পজিটিভ হয়ে মারা গেছেন ৬৩ জন।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৫৮ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৪৮ জনের দেহে করোনার অস্তিত্ব পাওয়া গেছে। শনাক্তের হার ৩০ দশমিক ১০ শতাংশ। এর আগের ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ছিল ৪৩ শতাংশ।

শুক্রবার সকাল পর্যন্ত সাতক্ষীরা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ২৬ জন ও বেসরকারি হাসপাতালে ১৪ জন করোনা সংক্রমিত রোগী ভর্তি ছিলেন। উপসর্গ নিয়ে ভর্তি ছিলেন ৩৬৭ জন।

এ নিয়ে জেলায় করোনা শনাক্ত হয়েছে ৩ হাজার ১৬৫ জনের দেহে। সুস্থ হয়েছে ২ হাজার ২২৯ জন।

বিস্তারিত আসছে...

আরও পড়ুন:
‘তাজা মানুষ আমি, মৃত ঘোষণা করে দিল’

শেয়ার করুন

কবরস্থান নিয়ে গোলাগুলি: গ্রেপ্তার ৩

কবরস্থান নিয়ে গোলাগুলি: গ্রেপ্তার ৩

চট্টগ্রামের বাকলিয়ায় কবরস্থানে সাইনবোর্ড দেয়া নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে চারজন গুলিবিদ্ধ হন। ছবি: নিউজবাংলা

পূর্ব বাকলিয়ায় আবদুল লতিফ হাটখোলা এলাকায় বড় মৌলভী বাড়িসংলগ্ন একটি কবরস্থান রয়েছে। গত ১১ জুন সকালে ওই বাড়ির লোকজন সেখানে সাইনবোর্ড লাগাতে গেলে পাশের ইয়াকুব আলী বাড়ির লোকজন গিয়ে বাধা দেন। এ নিয়ে সংঘর্ষ হয়।

চট্টগ্রামে কবরস্থান নিয়ে গোলাগুলির ঘটনার মূল আসামি ইয়াকুবসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

আসামিদের গ্রেপ্তারের বিষয়টি শুক্রবার সকাল ১১টার দিকে নিশ্চিত করেছেন চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (মিডিয়া) শাহ মোহাম্মদ আবদুর রউফ।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন মো. ইয়াকুব, ওসমান গনি ও মো. মাসুদ।

আবদুর রউফ বলেন, ‘ঘটনার মূল অভিযুক্ত ইয়াকুবসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের কাছ ঘটনার সময় ব্যবহৃত বিদেশি পিস্তল ও দেশিয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। এ বিষয়ে উপপুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) শুক্রবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত বলবেন।’

গত ১৬ জুন জাহিদুর আলম নামে আরেক আসামিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তার কাছ থেকে একটি বিদেশি পিস্তল ও দুইটি গুলি উদ্ধার করা হয়।

পূর্ব বাকলিয়ায় আবদুল লতিফ হাটখোলা এলাকায় বড় মৌলভী বাড়িসংলগ্ন একটি কবরস্থান রয়েছে। এটি লোকজনের কাছে বড় মৌলভী কবরস্থান নামে পরিচিত। বড় মৌলভী বাড়ির লোকজনের দাবি, এটা তাদের পূর্বপুরুষের দেয়া নিজস্ব কবরস্থান।

গত ১১ জুন সকালে ওই বাড়ির লোকজন ও প্রতিবেশীরা মিলে সেখানে সাইনবোর্ড লাগাতে যান। তখন পাশের ইয়াকুব আলীর বাড়ি ও তাদের লোকজন গিয়ে বাধা দেন।

সে পক্ষের দাবি, এটা ১০০ বছর ধরে স্থানীয়দের সম্মিলিত সামাজিক সংগঠনের মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে, কারও পৈতৃক সম্পত্তি নয়।

বিষয়টি নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এ সময় দুই পক্ষের তিন থেকে চারজনের হাতে পিস্তল দেখা গেছে। গোলাগুলির ঘটনায় ১৩ জন আহত হয়।

সংঘর্ষের পর মৌলভী বাড়ির লোকজনের পক্ষে সাইফুল্লাহ মাহমুদ নামে একজন মামলা করেন।

আরও পড়ুন:
‘তাজা মানুষ আমি, মৃত ঘোষণা করে দিল’

শেয়ার করুন

অজ্ঞাত গাড়ির ধাক্কায় তরুণ নিহত

অজ্ঞাত গাড়ির ধাক্কায় তরুণ নিহত

এএসআই শীলব্রত বড়ুয়া বলেন, ‘শুক্রবার সকালে মিরসরাইয়ে অজ্ঞাত গাড়ির ধাক্কায় গুরুতর আহত হন দিশান। রাস্তায় পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে চমেক হাসপাতালে নিয়ে যান। পরে চিকিৎসক দিশানকে মৃত ঘোষণা করেন।’

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে অজ্ঞাত গাড়ির ধাক্কায় দিশান উদ্দিন নামের এক তরুণের মৃত্যু হয়েছে।

ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কের মিরসরাই সদরে শুক্রবার পৌনে সাতটার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত ১৯ বছর বয়সী দিশান উদ্দিন গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার সোনাকোড় এলাকার বাসিন্দা। দিশান ওই এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতেন।

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) শীলব্রত বড়ুয়া নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘শুক্রবার সকালে মিরসরাইয়ে অজ্ঞাত গাড়ির ধাক্কায় গুরুতর আহত হন দিশান। রাস্তায় পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে চমেক হাসপাতালে নিয়ে যান। পরে চিকিৎসক দিশানকে মৃত ঘোষণা করেন।’

নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য চমেক হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
‘তাজা মানুষ আমি, মৃত ঘোষণা করে দিল’

শেয়ার করুন

চেয়ারে বসা নিয়ে দ্বন্দ্বে ছুরিকাঘাতে কলেজছাত্র খুন

চেয়ারে বসা নিয়ে দ্বন্দ্বে ছুরিকাঘাতে কলেজছাত্র খুন

নেত্রকোণার দুর্গাপুরে প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে আনোয়ার নিহত হয়েছেন। ছবি: নিউজবাংলা

ওসি শাহনুর এ আলম জানান, বড়ইউন্দ বাজারে এক ওষুধের দোকানে চেয়ারে বসা নিয়ে আনোয়ারের সঙ্গে একই গ্রামের সোহেল মিয়ার কথা-কাটাকাটি হয়। এরই জেরে সোহেল তার বাবা মরম আলীসহ কয়েকজন সহযোগী নিয়ে আনোয়ারের ওপর দেশীয় অস্ত্র দিয়ে হামলা চালায়।

নেত্রকোণার দুর্গাপুরে ওষুধের দোকানের এক চেয়ারে বসা নিয়ে প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে কলেজছাত্র খুন হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন আরও দুইজন।

উপজেলার চণ্ডীগড় ইউনিয়নের বড়ইউন্দ বাজারে বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ২৫ বছর বয়সী আনোয়ার হোসেনের বাড়ি উপজেলার রনাজিরপুর ইউনিয়নের আনন্দপুর গ্রামে। তিনি ময়মনসিংহের আনন্দমোহন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে স্নাতকোত্তর শিক্ষার্থী ছিলেন।

আহত দুইজন হলেন নিহত ব্যক্তির বাবা মকবুল হোসেন ও চাচাতো ভাই মনির হোসেন।

দুর্গাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহনুর এ আলম জানান, সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বড়ইউন্দ বাজারে এক ওষুধের দোকানে চেয়ারে বসা নিয়ে আনোয়ারের সঙ্গে একই গ্রামের সোহেল মিয়ার কথা-কাটাকাটি হয়।

এরই জেরে সোহেল, তার বাবা মরম আলীসহ কয়েকজন সহযোগী নিয়ে আনোয়ারের ওপর দেশীয় অস্ত্র দিয়ে হামলা চালায়। খবর পেয়ে আনোয়ারের বাবা মকবুল ও চাচাতো ভাই মনির ঘটনাস্থলে গেলে তাদেরও মারধর করা হয়।

এ সময় ছুরিকাঘাতে তিনজনই গুরুতর আহত হন। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে দুর্গাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক আনোয়ারকে মৃত ঘোষণা করেন। বাকি দুইজনের শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

ওসি আরও জানান, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্যে নেত্রকোণা আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এলাকায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। হত্যায় জড়িত ব্যক্তিদের ধরতে অভিযান চলছে।

একটি মামলাও হয়েছে বলে জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
‘তাজা মানুষ আমি, মৃত ঘোষণা করে দিল’

শেয়ার করুন

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা আ. লীগের সভাপতি মঈনুদ্দীনের মৃত্যু

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা আ. লীগের সভাপতি মঈনুদ্দীনের মৃত্যু

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মঈনুদ্দীন মন্ডল। ছবি: নিউজবাংলা

মঈনুদ্দীন মন্ডল চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। এর আগে তিনি চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের প্রবীণ রাজনীতিবিদ, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মঈনুদ্দীন মন্ডল মারা গেছেন।

রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার সকাল ৭টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আরিফুর রেজা ইমন।

মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর। দীর্ঘদিন থেকে তিনি বাধক্যজনিত নানা সমস্যায় ভুগছিলেন। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে সপ্তাহখানেক আগে ঢাকায় নেয়া হয়।

তিনি স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

মঈনুদ্দীন মন্ডল চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। এর আগে তিনি চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলেন।

তিনি নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের ছাত্রসংসদের ভিপি ও জিএস হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। ছাত্রলীগের রাজনীতিতে যুক্ত থেকে তৎকালীন চাঁপাইনবাবগঞ্জ মহকুমা ছাত্রলীগের সভাপতি, বৃহত্তর রাজশাহী ছাত্রলীগের সিনিয়র সহসভাপতি ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের অন্যতম সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন।

এ ছাড়া মঈনুদ্দীন চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, পরে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মৃত্যুর আগ পর্যন্ত জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন।

আরও পড়ুন:
‘তাজা মানুষ আমি, মৃত ঘোষণা করে দিল’

শেয়ার করুন

খুলনার ৩ হাসপাতালে এক দিনে ৯ মৃত্যু

খুলনার ৩ হাসপাতালে এক দিনে ৯ মৃত্যু

খুলনার তিনটি হাসপাতালে করোনায় ২৪ ঘণ্টায় আরও ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। ছবি: নিউজবাংলা

খুলনা করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে ৬, গাজী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ২ ও জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

খুলনার তিনটি হাসপাতালে করোনাভাইরাস ও উপসর্গ নিয়ে এক দিনে আরও ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে শুক্রবার সকাল ৮টা পর্যন্ত হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়।

খুলনা করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে ৬, গাজী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ২ ও জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

খুলনা করোনা হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. সুহাস রঞ্জন হালদার জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ৫ জনের করোনায় ও ১ জনের মৃত্যু হয় উপসর্গ নিয়ে।

১৩০ শয্যার এ হাসপাতালে সকাল ৮টা পর্যন্ত ১৫৪ জন রোগী ভর্তি ছিল। এর মধ্যে রেড জোনে ৯৬, ইয়েলো জোনে ২৩, এইচডিইউতে ২০ ও আইসিইউতে ১৬ জন চিকিৎসাধীন।

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন রোগী ভর্তি হয়েছেন ৩৯ জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২২ জন।

খুলনা ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটের মুখপাত্র কাজী আবু রাশেদ জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ইউনিটে খুলনার রূপসা উপজেলার সরদার মনিরুল নামের একজনের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ৬৯ জন। এর মধ্যে ৩০ পুরুষ ও ৩৯ জন নারী।

গাজী মেডিক্যালের স্বত্বাধিকারী গাজী মিজানুর রহমান জানান, এ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

তারা হলেন নগরীর সোনাডাঙ্গা এলাকার শাহানা জামান ও পিরোজপুর সদরের রহিমা।

তিনি আরও জানান, হাসপাতালে ৯৪ জন রোগী ভর্তি রয়েছেন। এর মধ্যে আইসিইউতে ৯ ও এইচডিইউতে ৭ জন চিকিৎসাধীন।

এক দিনে হাসপাতালে ২৯ জন ভর্তি হয়েছেন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৯ জন।

এ ছাড়া হাসপাতালের আরটি পিসিআর মেশিনে ৩৫ জনের নমুনা পরীক্ষায় ২২ জনের করোনা পজেটিভ এসেছে।

খুলনা মেডিক্যাল কলেজের উপাধ্যক্ষ মেহেদী নেওয়াজ জানান, খুলনা মেডিক্যালের পিসিআর ল্যাবে বৃহস্পতিবার রাতে ৩৮৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে ১৯৯ জনের করোনা রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে।

খুলনার ৩২১ জনের নমুনা পরীক্ষায় নতুন করে ১৭৬ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়।

এ ছাড়া বাগেরহাটের ১৪, যশোরের ৬, সাতক্ষীরার ২ ও গোপালগঞ্জের ১ জন রয়েছেন।

উপাধ্যক্ষ আরও জানান, মোট নমুনা পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ৫১ দশমিক ৫৫ শতাংশ।

আরও পড়ুন:
‘তাজা মানুষ আমি, মৃত ঘোষণা করে দিল’

শেয়ার করুন

ধর্ষণ মামলার আসামি গ্রেপ্তার

ধর্ষণ মামলার আসামি গ্রেপ্তার

সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ মোহাম্মদ শেখ সাদী জানান, প্রতিবেশী এক নারী বিয়ের অনুষ্ঠানে যাওয়ার কথা বলে ১২ বছরের মেয়েশিশুটিকে তার বাড়িতে নিয়ে যান। পরে শিশুটিকে পানিতে নেশাজাতীয় দ্রব্য মিশিয়ে পান করান। এতে শিশুটি অচেতন হয়ে পড়লে একই এলাকার অভিযুক্ত যুবক শিশুটিকে ধর্ষণ করে। 

কক্সবাজারের চকরিয়ায় শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

চট্টগ্রামের লোহাগাড়া থেকে বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ৮টার দিকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন র‌্যাব-১৫-এর সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ মোহাম্মদ শেখ সাদী।

তিনি জানান, ২ জুন বুধবার বিকেলে চকরিয়া খুটাখালীর ৪ নম্বর ওয়ার্ডের গর্জনতলী এলাকায় প্রতিবেশী এক নারী বিয়ের অনুষ্ঠানে যাওয়ার কথা বলে ১২ বছরের মেয়েশিশুটিকে তার বাড়িতে নিয়ে আসেন। পরে তিনি শিশুটিকে খাবার খাওয়ানোর পর পানিতে নেশাজাতীয় দ্রব্য মিশিয়ে পান করান। এতে শিশুটি অচেতন হয়ে পড়লে একই এলাকার অভিযুক্ত যুবক ওই নারীর সহায়তায় শিশুটিকে ধর্ষণ করে।

একপর্যায়ে শিশুটি আবার অজ্ঞান হয়ে গেলে তারা শিশুটিকে তার নিজের বাড়িতে দিয়ে আসে।

শিশুর পরিবার অজ্ঞান হওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তারা সঠিক কিছু জানাতে পারেনি।

পরিবারের সদস্যরা দ্রুত তাকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক জানান শিশুটি ধর্ষণের শিকার হয়েছে। পরে তাকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়।

তিনি আরও জানান, এ ঘটনায় ৭ জুন শিশুটির মা চকরিয়া থানায় দুইজনকে আসামি করে ধর্ষণ মামলা করেন। প্রথমে অভিযান‌ চালিয়ে ১৩ জুন চকরিয়ার খুটাখালী থেকে সহযোগী ওই নারীকে গ্রেপ্তার করা হয়। বর্তমানে তিনি কারাগারে।

তার ২২ দিন পর ওই যুবককে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ওই যুবককে চকরিয়া থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
‘তাজা মানুষ আমি, মৃত ঘোষণা করে দিল’

শেয়ার করুন