গ্রামে সমাজসেবক, শহরে ডাকাত! 

গ্রামে সমাজসেবক, শহরে ডাকাত! 

ওসি মোহাম্মদ মহসীন বলেন, ‘নুর নবী ডাকাতির সময় গাড়ি নিয়ে বের হয়। গাড়িতে রশি থাকে সবসময়। ডাকাতির ঘটনা কেউ দেখে ফেললে তাকে রশি দিয়ে বেঁধে রাখা হয়। ক্ষেত্রবিশেষে হত্যাও করে।

নোয়াখালীর হাতিয়ার বুডিরচর ইউনিয়নের নুর নবী, গ্রামে তিনি পরিচিত সমাজসেবক হিসেবে। তবে আসল পেশা ডাকাতি। বিভিন্ন জেলা শহরে ঘুরে ঘুরে ডাকাতি করেন তিনি।

তবে অন্য কিছু নয়, ডাকাতির সুবিধার জন্য বেছে নিয়েছেন সিগারেটকে। কারণ সিগারেট এক জায়গায় গোছানো থাকে, আবার সহজে বিক্রিও করা যায়। তবে ২০ লাখ টাকার নিচে কোনো ডাকাতির কাজ করেন না নুর নবী।

সীতাকুন্ডের বাড়বকুন্ড এলাকা থেকে রোববার রাতে তাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

নগরীর ডবলমুরিং থানায় সোমবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান উপপুলিশ কমিশনার (পশ্চিম জোন) আব্দুল ওয়ারিশ।

তিনি জানান, গত সাত বছরে ১০ জেলায় ৩০টি ডাকাতি করেছেন নুর নবী। লুট করেছেন ১০ কোটি টাকার সিগারেট। সর্বশেষ ২৭ মে ১১ জন সঙ্গী নিয়ে নগরীর পোস্তারপাড় এলাকায় আবুল খায়ের গ্রুপের ডিলার খাজা ট্রেডার্সের গোডাউনে ডাকাতি করে ৪০ লাখ টাকা মূল্যের ১০১ কার্টন সিগারেট লুট করেন তিনি। আর এতেই আটকে গেছেন পুলিশের জালে।

কমিশনার বলেন, ‘২৭ মে আবুল খায়ের গ্রুপের ডিলারের গোডাউনে ডাকাতির ঘটনায় অভিযান চালিয়ে তিন জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। শুরুতে ডাকাত দলের মূল হোতা নুর নবীকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তার দেয়া তথ্যে ডাকাতির মালামাল নেয়া কুমিল্লার বাছিগাঁও এলাকার মো. শাহজান এবং তার ছেলে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিএসসির শিক্ষার্থী এনায়েত উল্লাহ শান্তকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় তাদের কাছে জব্দ করা হয় ৯২ কার্টন সিগারেট এবং ৬৮ হাজার টাকা।’

তিনি বলেন, ‘ডাকাতির মালামাল নিয়মিত তুলনামূলক কম দামে সংগ্রহ করতেন বলে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছেন বাবা-ছেলে।’

কমিশনার আব্দুল ওয়ারিশ জানান, ‘পতেঙ্গার আকিজ বিড়ি গোডাউন, লক্ষ্মীপুর, কুমিল্লা, সিলেট, সাভার, কুড়িগ্রাম, ঢাকা, রাউজান, মুন্সিগঞ্জসহ বিভিন্ন এলকায় গত ৭ বছরে ৩০টি ডাকাতির ঘটনায় অন্তত ১০ কোটি টাকার সিগারেট লুট করেছে বলে স্বীকার করেছে নুর নবী। এর মধ্যে চলতি বছরে ইতোমধ্যে ডাকাতি করেছে প্রায় এক কোটি টাকার সিগারেট।’

ডবলমুরিং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন বলেন, ‘নুর নবীর এই ডাকাত চক্র খুবই ভয়ঙ্কর। ডাকাতির সময় গাড়ি নিয়ে বের হয়। গাড়িতে রশি থাকে সবসময়। ডাকাতির ঘটনা কেউ দেখে ফেললে তাকে রশি দিয়ে বেঁধে রাখা হয়। ক্ষেত্রবিশেষে হত্যাও করে।

‘এখন পর্যন্ত তাদের হাতে খুন হয়েছেন দুইজন। কিছুদিন আগে পতেঙ্গা এলাকায় আকিজ বিড়ির গোডাউন ডাকাতির সময় দেখে ফেলায় নিরপত্তারক্ষীকে এবং অন্যজনকেও কুড়িগ্রামে একটি ডাকাতির সময় দেখে ফেলায় খুন করা হয়।’

ওসি মহসিন আরও বলেন, ‘নুর নবী এলাকায় সমাজসেবক হিসেবে সুপরিচিত। তার চুরি-ডাকাতির শুরুটা হয়েছে গরু চুরির মাধ্যমে। ধীরে ধীরে বিলাসবহুল ডাকাতে পরিণত হন তিনি। বিশ লাখ টাকার নিচে ডাকাতি করলে এখন নাকি তার পোষায় না।’

গ্রেপ্তারদের সোমবার বিকেলে আদালতে তোলা হবে বলেও জানান ওসি মহসীন।

আরও পড়ুন:
অস্ত্রসহ ৬ ডাকাত গ্রেপ্তার
টঙ্গীতে ছয় দোকানে দুর্ধর্ষ ডাকাতি, দুইজন আহত 
অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার পাঁচ ডাকাত কারাগারে
ডাকাতির প্রস্তুতির সময় অস্ত্রসহ আটক ১
গলায় অস্ত্র ঠেকিয়ে স্বর্ণালংকার ও টাকা লুট

শেয়ার করুন

মন্তব্য

ভেবেছিলেন নিজের স্ত্রী, মার দিয়ে দেখলেন অন্যের

ভেবেছিলেন নিজের স্ত্রী, মার দিয়ে দেখলেন অন্যের

মারধরের শিকার গৃহবধূ ও তার স্বামী।

মারধরের শিকার তাসলিমা বলেন, ‘আমি স্বামীর বাড়ি যাচ্ছিলাম। শাহীনের মারধরে আমি অসুস্থ। বাড়িতে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছি। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত শাহীনের বাড়িতে গেলে তাকে পাওয়া যায়নি। ঘটনার পর শাহীনের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী ফারজানা বাবার বাড়িতে চলে যায়।’

নীলফামারীর সৈয়দপুরে দিনে-দুপুরে নিজের স্ত্রী ভেবে অন্যের স্ত্রীকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে।

খাতামধুপুর ইউনিয়নের হামুরহাট এলাকার এই ঘটনায় মঙ্গলবার শালিস বসার কথা রয়েছে।

খাতামধুপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জুয়েল চৌধুরী জানান, পানিশাল এলাকার গৃহবধূ ফারজানার সঙ্গে শনিবার দুপুরে তার স্বামীর ঝগড়া হয়। রাগ করে তিনি ডাঙ্গি এলাকার বাবার বাড়ির দিকে রওনা দেন।

অন্যযাত্রীদের সঙ্গে যাওয়ার সময় হামুরহাট এলাকায় তার ভ্যানের গতিরোধ করে শাহিন ও তার চাচাত ভাই মেরাজুল।

বাইক থেকে নেমেই ভ্যানের সামনে বসা এক নারীকে নিজের স্ত্রী ভেবে এলোপাতাড়ি চড়-থাপ্পর ও ঘুষি মারতে থাকেন শাহিন। এক পর্যায় তার ভুল ভাঙে। বুঝতে পারেন যাকে মারধর করেছেন তিনি পাইকারপাড়ার দুই সন্তানের জননী তাসলিমা বেগম।

পরে মারধরের জন্য ক্ষমা চান শাহীন ও বাবু। কিন্তু নাকের ফুল ও ছয় হাজার টাকা হারিয়ে যাওয়ায় ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম আদালতে অভিযোগ করেন তাসলিমা ও তার স্বামী মোহাম্মদ আলী।

তাসলিমা বলেন, ‘আমি স্বামীর বাড়ি যাচ্ছিলাম। শাহীনের মারধরে আমি অসুস্থ। বাড়িতে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছি।’

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত শাহীনের বাড়িতে গেলে তাকে পাওয়া যায়নি। ঘটনার পর শাহীনের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী ফারজানা বাবার বাড়িতে চলে যায়।

এলাকাবাসী জানায়, শাহীনের সঙ্গে ফারজানার বিয়ে হয় ১০ মাস আগে। এরই মধ্যে কয়েকবার দাম্পত্য কলহের জেরে মারধর ও স্বামীর বাড়ি ছেড়ে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

আরও পড়ুন:
অস্ত্রসহ ৬ ডাকাত গ্রেপ্তার
টঙ্গীতে ছয় দোকানে দুর্ধর্ষ ডাকাতি, দুইজন আহত 
অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার পাঁচ ডাকাত কারাগারে
ডাকাতির প্রস্তুতির সময় অস্ত্রসহ আটক ১
গলায় অস্ত্র ঠেকিয়ে স্বর্ণালংকার ও টাকা লুট

শেয়ার করুন

২৪ ঘণ্টায় রংপুর বিভাগে ৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৬৮

২৪ ঘণ্টায় রংপুর বিভাগে ৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৬৮

রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল

২৪ ঘণ্টায় করোনায় দিনাজপুরে চার ও ঠাকুরগাঁওয়ে একজনের মৃত্যু হয়েছে। দিনাজপুুরে ৭০, ঠাকুরগাঁওয়ে ৪২, রংপুরে ১৬, লালমনিরহাটে ১৬, কুড়িগ্রামে ১৪, গাইবান্ধায় পাঁচ, পঞ্চগড়ে তিন এবং নীলফামারী জেলায় দুইজন শনাক্ত হয়েছেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় রংপুর বিভাগে করোনায় পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে দিনাজপুরে চার এবং ঠাকুরগাঁওয়ে একজনের মৃত্যু হয়। এ নিয়ে বিভাগে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৪৩৮ জনে। নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ১৬৮ জন।

রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয় সোমবার বিকেলে নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছে।

স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, রোববার রংপুর বিভাগের আট জেলার ৫৭৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে ১৬৮ জনকে করোনা পজিটিভ পাওয়া গেছে।

২৪ ঘণ্টায় দিনাজপুুরে ৭০, ঠাকুরগাঁওয়ে ৪২, রংপুরে ১৬, লালমনিরহাটে ১৬, কুড়িগ্রামে ১৪, গাইবান্ধায় পাঁচ, পঞ্চগড়ে তিন এবং নীলফামারী জেলায় দুইজন করোনা শনাক্ত হয়েছেন।

রোববার পর্যন্ত রংপুর জেলায় ৫ হাজার ২৪৩ জন শনাক্ত এবং ১০৩ জনের মৃত্যু হয়েছে, দিনাজপুুরে ৬ হাজার ৩৪১ জন আক্রান্ত ও ১৫৮ জনের মৃত্যু, ঠাকুরগাঁওয়ে ২ হাজার ৬ জন শনাক্ত ও ৫৪ জনের মৃত্যু, গাইবান্ধায় এক হাজার ৮১৬ জন শনাক্ত ও ২৩ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এ ছাড়াও নীলফামারীতে ১ হাজার ৬১৭ জন আক্রান্ত ও ৩৮ জনের মৃত্যু, কুড়িগ্রামে ১ হাজার ৩৩১ জন আক্রান্ত ও ২৪ জনের মৃত্যু, লালমনিরহাটে ১ হাজার ১৯৫ জন আক্রান্ত ও ১৮ জনের মৃত্যু এবং পঞ্চগড় জেলায় ৮৫৯ জন আক্রান্ত ও ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে।

রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. আহাদ আলী নিউজবাংলাকে বলেন, বিভাগে বর্তমানে ২০ হাজার ৪০৮ জন করোনা শনাক্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ১৮ হাজার ৪১৫ জন। বিভাগের প্রতিটি জেলায় শনাক্ত ও মৃত্যুর হার বেড়েছে।

আরও পড়ুন:
অস্ত্রসহ ৬ ডাকাত গ্রেপ্তার
টঙ্গীতে ছয় দোকানে দুর্ধর্ষ ডাকাতি, দুইজন আহত 
অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার পাঁচ ডাকাত কারাগারে
ডাকাতির প্রস্তুতির সময় অস্ত্রসহ আটক ১
গলায় অস্ত্র ঠেকিয়ে স্বর্ণালংকার ও টাকা লুট

শেয়ার করুন

‘ধর্ষণ’ করতে এসে গৃহবধূর হাত ভাঙল যুবক

‘ধর্ষণ’ করতে এসে গৃহবধূর হাত ভাঙল যুবক

বগুড়ার শাজাহানপুরে গৃহবধূকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ছবি: নিউজবাংলা

পুলিশ জানায়, গৃহবধূর স্বামী দিনমজুরের কাজ করেন। তিন-চারদিন ধরে পাশের নন্দীগ্রাম উপজেলায় ছিলেন তিনি। স্বামীর অনুপস্থিতিতে রোববার গভীর রাতে ঘরে ঢুকে ওই গৃবধূকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন স্থানীয় যুবক। এ সময় ভেঙে ফেলা হয় তার বাম হাতের হাড়।

বগুড়ার শাজাহানপুরে এক গৃহবধূকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ধর্ষণ চেষ্টার একপর্যায়ে তার বাম হাত ভেঙে গেছে বলে অভিযোগ করেন ওই নারী।

শাজাহানপুর থানায় সোমবার সকালে ধর্ষণ চেষ্টার মামলা করেন ওই গৃহবধূর স্বামী।

পরে সোমবার দুপুরে ওই যুবককে নিজ বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

শাজাহানপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আব্দুর রাজ্জাক জানান, ওই গৃহবধূর স্বামী দিনমজুরের কাজ করেন। তিন-চারদিন ধরে পাশের নন্দীগ্রাম উপজেলায় ছিলেন তিনি। স্বামীর অনুপস্থিতিতে রোববার গভীর রাতে ঘরে ঢুকে ওই গৃবধূকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন স্থানীয় যুবক। এ সময় ভেঙে ফেলা হয় তার বাম হাতের হাড়।

তিনি আরও বলেন, মামলার পর ওই যুবককে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। আহত ওই নারী বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

আরও পড়ুন:
অস্ত্রসহ ৬ ডাকাত গ্রেপ্তার
টঙ্গীতে ছয় দোকানে দুর্ধর্ষ ডাকাতি, দুইজন আহত 
অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার পাঁচ ডাকাত কারাগারে
ডাকাতির প্রস্তুতির সময় অস্ত্রসহ আটক ১
গলায় অস্ত্র ঠেকিয়ে স্বর্ণালংকার ও টাকা লুট

শেয়ার করুন

নাফ নদী থেকে ২ নারীর মরদেহ উদ্ধার

নাফ নদী থেকে ২ নারীর মরদেহ উদ্ধার

টেকনাফে নাফ নদীর তীর থেকে তিন দিনে ৬ জনের মরদেহ উদ্ধার হয়েছে। ছবি: নিউজবাংলা

টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.হাফিজুর রহমান জানান, মরদেহ দুটি উদ্ধারের পর ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। তাদের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি। মরদেহ দুটি রোহিঙ্গা নারীর কি না তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

কক্সবাজারের টেকনাফে নাফ নদীর তীর থেকে দুই নারীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের আলী খালী এলাকা সংলগ্ন নাফ নদী থেকে সোমরার বিকেলে মরদেহ দুটি উদ্ধার করা হয়।

এ নিয়ে গত ৩ দিনে তিন শিশুসহ ৬ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হলো।

টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.হাফিজুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, মরদেহ দুটি উদ্ধারের পর ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। তাদের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি। মরদেহ দুটি রোহিঙ্গা নারীর কি না তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

এর আগে শনিবার এক নারী ও দুই শিশুর মরদেহ উদ্ধার করা হয় নাফ নদীর তীর থেকে। পরদিন রোববার হ্নীলা ইউনিয়নের নাফ নদীসংলগ্ন ফুলের ডেইল চর থেকে উদ্ধার হয় আরও এক শিশুর মরদেহ।

মরদেহের সঙ্গে থাকা পরিচয়পত্র দেখে তাদের পরিচয় নিশ্চিত করে পুলিশ। তারা হলেন কক্সবাজারের উখিয়ার বালুখালী ১১ নম্বর শরণার্থী ক্যাম্পের বাসিন্দা জানে আলমের স্ত্রী সমসেদা ও তাদের তিন সন্তান।

পুলিশের ধারণা, স্বামী-স্ত্রী ও তিন সন্তানসহ একটি পরিবার ক্যাম্প থেকে গোপনে নৌকায় করে মিয়ানমারে যাওয়ার চেষ্টা করে। কিন্তু পথের মাঝে নৌকাটি ডুবে যায়। হয়তো নিখোঁজ রয়েছে পরিবারের পুরুষটি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক রোহিঙ্গা জানান, শুক্রবার রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে তিনটি নৌকা নাফ নদী দিয়ে মিয়ানমারের উদ্দেশে রওনা দেয়। একটি নৌকা পার হতে পারলেও অন্য দুটি নৌকা ডুবে যায়।

আরও পড়ুন:
অস্ত্রসহ ৬ ডাকাত গ্রেপ্তার
টঙ্গীতে ছয় দোকানে দুর্ধর্ষ ডাকাতি, দুইজন আহত 
অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার পাঁচ ডাকাত কারাগারে
ডাকাতির প্রস্তুতির সময় অস্ত্রসহ আটক ১
গলায় অস্ত্র ঠেকিয়ে স্বর্ণালংকার ও টাকা লুট

শেয়ার করুন

‘সড়কের কাজে এদিক-ওদিক হয়’

‘সড়কের কাজে এদিক-ওদিক হয়’

পাবনার ঈশ্বরদীতে সড়কের কাজে নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ করেছেন স্থানীয় লোকজন। ছবি: নিউজবাংলা

অনিয়মের অভিযোগের বিষয়ে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী তরিকুল বলেন, ‘সড়কের কাজে এদিক-ওদিক হয়। কিছু ইটে সমস্যা ছিল, তা সরিয়ে ফেলা হয়েছে। আমি নিজে সংস্কারকাজ তদারক করছি। এখন নিম্নমানের কাজ হচ্ছে না।’

পাবনার ঈশ্বরদীতে সড়কের কাজে নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ করেছেন স্থানীয় লোকজন।

ঈশ্বরদী পৌর এলাকার পোস্ট অফিস মোড় থেকে বাঘইল রেলওয়ে সাঁকো পর্যন্ত দেড় কিলোমিটার সড়ক নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ ওঠে। তাদের অভিযোগ, নিম্নমানের বালু, ইট ও সুরকি ব্যবহার করছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান।

স্থানীয় সরকার ও প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) জানায়, গ্রামীণ সড়ক মেরামত ও সংস্কার প্রকল্পের আওতায় এক কোটি ৩৩ লাখ টাকা ব্যয়ে সড়কটির নির্মাণকাজ করছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সততা ট্রেডার্স। এর স্বত্বাধিকারী তরিকুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তি।

সোমবার স্থানীয় লোকজন জানান, বাঘইল রেলওয়ে সাঁকো এলাকায় সড়ক সংস্কারের জন্য নিম্নমানের ইট এনে খোয়া বানানো হচ্ছে। নিম্নমানের উপকরণ দিয়ে তড়িঘড়ি করে সংস্কারকাজ চলছে। সড়কের কাজের জন্য উপজেলা সদরের আবুল মনসুর খান স্টেডিয়ামের সামনে মজুত করা হয়েছে নিম্নমানের বালু ও সুরকি।

পাকশী রূপপুর বাজারের ব্যবসায়ী মোহাম্মদ হোছাইন বলেন, ‘চরম অনিয়ম ও দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে যেনতেনভাবে সড়কটির সংস্কারকাজ শেষ করার চেষ্টা চলছে।’

অনিয়মের অভিযোগের বিষয়ে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী তরিকুল বলেন, ‘সড়কের কাজে এদিক-ওদিক হয়। কিছু ইটে সমস্যা ছিল, তা সরিয়ে ফেলা হয়েছে। আমি নিজে সংস্কারকাজ তদারক করছি। এখন নিম্নমানের কাজ হচ্ছে না।’

এলজিইডির ঈশ্বরদী উপজেলা প্রকৌশলী এনামুল কবির বলেন, ‘আমি পরিদর্শনে গিয়ে সংস্কারকাজে নিম্নমানের ইটের খোয়া ব্যবহারের সত্যতা পেয়েছি। এ ব্যাপারে ঠিকাদারকে সতর্ক করা হয়েছে। সংস্কারকাজে আমাদের নিয়মিত নজরদারি রয়েছে। এরপরও কোনো অনিয়ম করা হলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আরও পড়ুন:
অস্ত্রসহ ৬ ডাকাত গ্রেপ্তার
টঙ্গীতে ছয় দোকানে দুর্ধর্ষ ডাকাতি, দুইজন আহত 
অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার পাঁচ ডাকাত কারাগারে
ডাকাতির প্রস্তুতির সময় অস্ত্রসহ আটক ১
গলায় অস্ত্র ঠেকিয়ে স্বর্ণালংকার ও টাকা লুট

শেয়ার করুন

পেকুয়া থেকে কিশোরীকে অপহরণ, বরিশালে উদ্ধার

পেকুয়া থেকে কিশোরীকে অপহরণ, বরিশালে উদ্ধার

মো. রিমন

অভিযোগ পাওয়ার পর পেকুয়া থানা পুলিশ উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে অভিযুক্ত ও ভিকটিমের অবস্থান বরিশালে বলে  শনাক্ত করে এবং বরিশাল বন্দর থানা পুলিশকে বিষয়টি অবহিত করে।

কক্সবাজারের পেকুয়া থেকে এক কিশোরীকে অপহরণের আটদিন পর বরিশাল থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।

একইসঙ্গে এ ঘটনায় অভিযুক্ত মো. রিমন নামে এক যুবককে আটক করা হয়েছে।

অপহৃত কিশোরীর বাড়ি পেকুয়া উপজেলায়।

ভিকটিমের পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ৬ জুন সকালে বিদ্যালয়ে যাওয়ার পথে কিশোরীকে জালিয়াখালী এলাকার নাজিম উদ্দিনের ছেলে মো. রিমনসহ আরো কয়েকজন অপহরণ করেন। এ ব্যাপারে পেকুয়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করে পরিবার।

অভিযোগ পাওয়ার পর পেকুয়া থানা পুলিশ উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে অভিযুক্ত ও ভিকটিমের অবস্থান বরিশালে বলে শনাক্ত করে এবং বরিশাল বন্দর থানা পুলিশকে বিষয়টি অবহিত করে।

পরে বরিশাল থেকে সোমবার ভিকটিমকে উদ্ধার ও অভিযুক্ত রিমনকে আটকের বিষয়টি পেকুয়া থানাকে অবহিত করেন বরিশাল বন্দর থানার এসআই নজরুল ইসলাম।

তিনি জানান, অভিযোগের প্রেক্ষিতে ভিকটিমকে উদ্ধারের পাশাপাশি রিমন নামে এক যুবককে আটক করা হয়।

তিনি আরও জানান, পেকুয়া থানা‌র মাধ্যমে সংবাদ পান যে বরিশালের লাকুটিয়া ওছাপুল এলাকায় পুলিশ অপহরণকারীদের অবস্থান শনাক্ত করেছে। পরে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে সোমবার তারা ওই এলাকায় অভিযান চালান। পেকুয়া থানা পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। সেখান থেকে পুলিশ আসলে তাদের জিম্মায় দেয়া হবে।

পেকুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইফুর রহমান মজুমদার নিউজবাংলা এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, পেকুয়া থানা পুলিশের টিম বরিশাল উদ্দেশ্য রওনা দিয়েছে। তাদের এখানে নিয়ে আসার পর বিস্তারিত জানতে পারব। এই ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
অস্ত্রসহ ৬ ডাকাত গ্রেপ্তার
টঙ্গীতে ছয় দোকানে দুর্ধর্ষ ডাকাতি, দুইজন আহত 
অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার পাঁচ ডাকাত কারাগারে
ডাকাতির প্রস্তুতির সময় অস্ত্রসহ আটক ১
গলায় অস্ত্র ঠেকিয়ে স্বর্ণালংকার ও টাকা লুট

শেয়ার করুন

এবার মিলল লাশের পা, গ্রেপ্তার ১

এবার মিলল লাশের পা, গ্রেপ্তার ১

র‍্যাব-৬-এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট রওশুনুল ফিরোজ জানান, আজিজুর তার তিনটি মেডিক্যাল প্রোডাক্ট বিক্রি করে দিলে ২১ হাজার টাকা পাবে বলে জানায় আশরাফ। আজিজুর কিছু প্রোডাক্ট বিক্রির পর ৩ হাজার টাকা চাইতে গেলে হোমিওপ্যাথিক চেম্বারেই তাকে ছুরিকাঘাত করেন আশরাফ।

মাগুরা মহম্মদপুরের বিনোদপুর এলাকায় পুকুর থেকে উদ্ধার খণ্ডিত মরদেহের একটি পা উদ্ধার করেছে র‍্যাব-৬। তবে এখনও নিখোঁজ মরদেহের মাথা।

মাগুরার জগদল ইউনিয়নের বিএনপির মোড় এলাকার পাটক্ষেত থেকে সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে পা উদ্ধার করা হয়।

এই পা আজিজুর রহমানের বলে নিশ্চিত করেছেন যশোর র‍্যাব-৬-এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট রওশুনুল ফিরোজ।

এ ঘটনায় যশোরের শার্সা থেকে আশরাফ আলী নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

আশরাফ আলীর বাড়ি মাগুরা সদরের মালিকগ্রামে। হিজমা থেরাপি নামে মাগুরায় তার একটি হোমিওপ্যাথিক চেম্বার আছে।

র‍্যাব-৬-এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট রওশুনুল ফিরোজ জানান, টাকাপয়সা লেনদেন নিয়ে আজিজুর রহমানকে হত্যা করা হয়েছে। আজিজুর ঢাকার একটি ওষুধ কোম্পানিতে চাকরি করতেন। তিনি তিনটি মেডিক্যাল প্রোডাক্ট বিক্রি করে দিলে ২১ হাজার টাকা পাবে বলে জানায় আশরাফ।

আশরাফের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী, আজিজুর কিছু প্রোডাক্ট বিক্রির পর ৫ জুন দুপুরে ৩ হাজার টাকা চাইতে গেলে হোমিওপ্যাথিক চেম্বারেই তাকে ছুরিকাঘাত করেন আশরাফ। হত্যার পর তিনি মরদেহ ছয় টুকরা করেন।

মহম্মদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তারক বিশ্বাস নিউজবাংলাকে জানান, ৬ জুন সকালে এক নারী মহম্মদপুর উপজেলার বিনোদপুরের কালুকান্দি গ্রামের এক পুকুরপাড় ঝাড়ু দিতে গিয়ে রক্তমাখা বস্তা দেখে আশপাশের লোকজনকে খবর দেন। পরে পুলিশ গিয়ে বস্তার ভেতরে পলিথিনে মোড়ানো দুই হাত, দেহ ও একটি পা বের করে। মাথা ও আরেকটি পা সেখানে ছিল না।

মরদেহের গায়ের পোশাক দেখে তা নিজের ভাইয়ের বলে শনাক্ত করেন হাবিবুর রহমান নামের এক ব্যক্তি।

ওই দিনই তিনি হত্যা ও মরদেহ গুমের অভিযোগ এনে অজ্ঞাতপরিচয়দের আসামি করে মামলা করেন।

আরও পড়ুন:
অস্ত্রসহ ৬ ডাকাত গ্রেপ্তার
টঙ্গীতে ছয় দোকানে দুর্ধর্ষ ডাকাতি, দুইজন আহত 
অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার পাঁচ ডাকাত কারাগারে
ডাকাতির প্রস্তুতির সময় অস্ত্রসহ আটক ১
গলায় অস্ত্র ঠেকিয়ে স্বর্ণালংকার ও টাকা লুট

শেয়ার করুন