ব্যবসায়ী নাছের হত্যা: যুবলীগ নেতা কারাগারে

ব্যবসায়ী নাছের হত্যা: যুবলীগ নেতা কারাগারে

যুবলীগ নেতা আবু কাউছার।

বাদীপক্ষের আইনজীবী নাজমুল হোসেন বলেন, ‘মাদকবিরোধী সভা করায় আবু নাছেরকে আসামিরা পিটিয়ে হত্যা করেছিল। আদালত তাদের জামিন আবেদন গ্রহণ করেনি।’

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরে ব্যবসায়ী আবু নাছের হত্যা মামলায় উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবু কাউছার ভূঁইয়াসহ সাতজনকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।

মুখ্য বিচারিক হাকিম মাসুদ পারভেজ তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এর আগে একই আদালতে তারা আত্মসমর্পণ করে জামিন চান।

নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন আদালতের পরিদর্শক দিদারুল আলম।

আবু কাউছার ছাড়াও কারাগারে গেছেন আসাদ ভূঁইয়া, জয় ভূঁইয়া, পিয়াস ভূঁইয়া, নাইম ভূঁইয়া, শরীফ ভূঁইয়া ও পিন্টু মিয়া। এর আগে আসামিরা উচ্চ আদালত থেকে ৪০ দিনের জামিনে ছিলেন।

এজাহার সূত্রে জানা যায়, গত বছরের ২৩ মে সেজামুড়া গ্রামের হুমায়ূন কবির প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে মাদকবিরোধী সমাবেশ হয়। ওই সভা আহ্বান করেছিলেন গ্রামের আবু শামার ছেলে ব্যবসায়ী আবু নাছের।

অভিযোগ রয়েছে, মাদকবিরোধী সভা আহ্বায়ন করায় পরদিন সকালে নাছেরের ওপর হামলা করেন কাউছার ও তার সহযোগীরা। রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২৯ মে রাতে তিনি মারা যান।

এ ঘটনায় কাউছারসহ ১৭ জনকে আসামি করে মামলা হয়। ২ মার্চ পুলিশ কাউছার, আসাদ, পিয়াস, শরীফ নাইম, জয়, স্থানীয় পিন্টুসহ ১১ জনকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ।

আসামিরা আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করলে বিচারক তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

বাদীপক্ষের আইনজীবী নাজমুল হোসেন বলেন, ‘মাদকবিরোধী সভা করায় আবু নাছেরকে আসামিরা পিটিয়ে হত্যা করেছিল। আদালত তাদের জামিন আবেদন গ্রহণ করেনি।’

আদালতের পরিদর্শক দিদারুল আলম বলেন, ব্যবসায়ী হত্যা মামলার সাত আসামি রোববার আদালতে আত্মসমর্পণ করে আইনজীবীর মাধ্যমে জামিন আবেদন করেন। এই আবেদন নাকচ করেন বিচারক।

আরও পড়ুন:
বন্ধু হত্যা মামলায় ৪ কিশোর কারাগারে
খালাসের রায়ের আড়াই বছর পর মুক্ত
গাজীপুরে যুবলীগ নেতা হত্যায় ৫ আসামির ফাঁসি বহাল
ইটনায় জেলেকে পিটিয়ে হত্যায় মামলা
গলা কেটে হত্যা: তিনজনের যাবজ্জীবন

শেয়ার করুন

মন্তব্য