লক্ষ্মীপুরে কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ

লক্ষ্মীপুরে কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ

মামলার এজাহার ও ভুক্তভোগীর পরিবারসূত্রে জানা যায়, বুধবার রাত ৩টার দিকে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ওই কিশোরী ঘর থেকে বের হয়। ওই সময় ওত পেতে থাকা ওই তিনজন মুখ চেপে কিশোরীকে বাড়ির পেছনে পুকুর পাড়ে নিয়ে যায়। একপর্যায়ে তারা কিশোরীকে মুখ বেঁধে পালাক্রমে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়।

লক্ষ্মীপুরের কমলনগর উপজেলায় আপন খালু, চাচাতো ভাইসহ তিনজন মিলে এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত ব্যক্তিরা পলাতক। ধর্ষণে অসুস্থ হয়ে পড়া ওই কিশোরী লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

বুধবার গভীর রাতে সংঘবদ্ধ এই ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় কিশোরীর মা বৃহস্পতিবার রাতে থানায় মামলা করেছেন।

মামলার এজাহার ও ভুক্তভোগীর পরিবারসূত্রে জানা যায়, বুধবার রাত ৩টার দিকে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ওই কিশোরী ঘর থেকে বের হয়। ওই সময় ওত পেতে থাকা ওই তিনজন মুখ চেপে কিশোরীকে বাড়ির পেছনে পুকুর পাড়ে নিয়ে যায়। একপর্যায়ে তারা কিশোরীকে মুখ বেঁধে পালাক্রমে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়। পরে স্বজনরা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখান থেকে তাকে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

কিশোরীর মা জানান, বসতবাড়ির জমি নিয়ে একই বাড়ির এক পরিবারের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে তাদের বিরোধ চলে আসছে। এ নিয়ে সম্প্রতি সালিশি বৈঠক হয়। এ বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের লোকজন স্বামী-সন্তানসহ তাকে বিভিন্ন ধরনের হুমকি-ধমকি দিয়ে আসছিল। এরই ধারাবাহিকতায় তার মেয়ের সর্বনাশ করা হয়েছে। ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের গ্রেপ্তারসহ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন তিনি।

কমলনগর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মাখন লাল রায় জানান, শুক্রবার নির্যাতনের শিকার কিশোরীর ডাক্তারি পরীক্ষা হয়েছে। আসামিদের ধরতে পুলিশ তৎপর রয়েছে।

আরও পড়ুন:
পোশাককর্মীকে দলবদ্ধ ধর্ষণ: গ্রেপ্তার ৩
ধর্ষণচেষ্টা: সৎ বাবা গ্রেপ্তার
কিশোরের বিরুদ্ধে শিশু ধর্ষণের অভিযোগ
ধর্ষণ চেষ্টায় যুবকের বিরুদ্ধে মামলা
সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ, স্বামীসহ গ্রেপ্তার ২

শেয়ার করুন

মন্তব্য