ইয়াসে উত্তাল সমুদ্র, প্লাবিত উপকূল

ইয়াসে উত্তাল সমুদ্র, প্লাবিত উপকূল

বাগেরহাট ও ভোলায় জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়েছে নিম্নাঞ্চল। কক্সবাজারের সৈকতে সতর্কতার জন্য ওড়ানো হয়েছে লাল পতাকা।

প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হওয়া ইয়াসের প্রভাবে উত্তাল রয়েছে বঙ্গোপসাগর। জোয়ারের পানি স্বাভাবিকের চেয়ে কয়েক ফুট বেশি উচ্চতায় উপকূলে আছড়ে পড়ছে।

কক্সবাজার আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, মঙ্গলবার দিনভর গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি ও দমকা বাতাস বয়ে যেতে পারে। তবে সকাল থেকে জেলার আকাশ পরিষ্কার দেখা গেছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, জেলায় ২ নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত নৌযানগুলোকে সাবধানে চলাচল করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

বৈরী পরিবেশে সৈকত এখন ফাঁকা। সেখানে ওড়ানো হচ্ছে লাল পতাকা।

জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, উপকূলের ১০ লাখ মানুষকে আশ্রয়কেন্দ্রে নেয়ার প্রস্তুতি চলছে। ৫৭৬টি ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্রসহ অন্তত এক হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ বহুতল ভবনের জন্য তৈরি।

বাগেরহাটে ইয়াসের প্রভাবে মঙ্গলবার সকাল থেকে আকাশ মেঘাচ্ছন্ন। জেলার সুন্দরবনসংলগ্ন এলাকা মোরেলগঞ্জ ও শরণখোলায় থেমে থেমে বৃষ্টি হচ্ছে।

সকাল থেকেই শরণখোলার বলেশ্বর, মোরেলগঞ্জের পানগুছি, মোংলার পশুর, বাগেরহাটের ভৈরব, দড়াটানাসহ সব নদীর পানি স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে এক থেকে দেড় ফুট বেড়েছে। এরই মধ্যে জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়েছে মোরেলগঞ্জ উপজেলার পৌর এলাকাসহ সদর ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রাম।


ইয়াসে উত্তাল সমুদ্র, প্লাবিত উপকূল

এ উপজেলার পানগুছি নদীর তীরে থাকা শানকিভাঙ্গা ও বদনী ভাঙ্গা গ্রামে বেড়িবাঁধ না থাকায় আতঙ্কিত বাসিন্দারা। ঝড়ের প্রভাব শুরুর আগেই তারা আশ্রয়কেন্দ্রে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

মোরেলগঞ্জ সদরের গাবতলা গ্রামের সালেহা বেগম বলেন, ‘সহাল থাইক্কা গাঙ্গের পানি বাড়তেছে। সহাল ১০টার দিকে পানিতে মোগো বাড়িঘর তলাই গেছে।’

একই গ্রামের জামাল ফজলু হাওলাদার বলেন, ‘জোয়ারে গাঙ্গের পানি যেভাবে বাড়তিছে তাকে দুপুরে আসতে আসতে মোগা ভাইসা যামু।’

বাগেরহাট পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী বিশ্বজিৎ বৌদ্ধ বলেন, ‘পূর্ণিমার ও ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের কারণে উপকূলীয় এলাকায় নদী-খালের পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। দুপুর নাগাদ এ পানি আরও বৃদ্ধি পেতে পারে। তবে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। ভাটিতে এ পানি আবার নেমে যাবে।’

সাগর উত্তাল হয়ে ওঠা এবং ঝোড়ো বাতাস বয়ে যাওয়ায় সুন্দরবনের বিভিন্ন সাইক্লোন শেল্টারসহ কোস্টগার্ডের ক্যাম্পগুলোতে আশ্রয় নিয়েছে বন বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

নতুন করে সিগন্যাল না বাড়া এবং আবহওয়া এখনও বেশি খারাপ না হওয়ায় মোংলা বন্দরে অবস্থানরত ১১টি বিদেশি জাহাজের পণ্য ওঠানামা ও পরিবহনের কাজ স্বাভাবিক রয়েছে।

বন্দরের হারবার মাস্টার কমান্ডার শেখ ফখরউদ্দীন বলেন, সিগন্যাল ৪ নম্বর না হওয়া পর্যন্ত বন্দরের কার্যক্রম স্বাভাবিক থাকবে।

ঝালকাঠিতে মঙ্গলবার সকাল থেকে বৈরী আবহাওয়া রয়েছে। সকাল থেকে সব উপজেলায় গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি। সঙ্গে আছে দমকা হাওয়াও।

তবে পরিস্থিতি এখনও নিয়ন্ত্রণে বলে লোকজনকে আশ্রয়কেন্দ্রে নেয়া হচ্ছে না বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসন।

জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি জেলা প্রশাসক জোহর আলী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সবেমাত্র ২ নম্বর সিগন্যাল চলে। এখনই নদীর তীরবর্তী নিম্নাঞ্চলের লোকজনকে সরিয়ে আনার সিদ্ধান্ত আমরা নিইনি।

‘আবহাওয়া অফিস থেকে ঘূর্ণিঝড়ের সতর্কীকরণ সংকেত বাড়ানো হলে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকার মানুষদের দ্রুত সরিয়ে আশ্রয়কেন্দ্রে আনা হবে।’

এই জেলায় স্থায়ী ৫৯টি সাইক্লোন শেল্টারসহ ৪৯১ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে আশ্রয়কেন্দ্র হিসেবে প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

ইয়াসে উত্তাল সমুদ্র, প্লাবিত উপকূল

ভোলায় বৃষ্টি শুরু হয়েছে বেলা সাড়ে ১১টা থেকে। চরফ্যাশন উপজেলার সাগর মোহনার ঢালচর ইউনিয়ন জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়েছে। সেখানে এখন পানিবন্দি ৮০০ মানুষ। উপজেলা প্রশাসন সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

পটুয়াখালীতে পায়রা নদীর পানি বিপৎসীমার ২৩ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে বলে নিশ্চিত করেছেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী হালিম সাহেলী। তিনি বলেন, পরবর্তী জোয়ারে পানি আরও বাড়তে পারে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, জোয়ারের পানিতে রাঙ্গাবালী ও কলাপাড়া উপজেলার অন্তত ১৫টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এসব গ্রামে ভাঙ্গা বেড়িবাঁধ দিয়ে পানি ঢুকেছে। এর মধ্যে রাঙ্গাবালী উপজেলার চর আন্ডা, নয়াচর, চরবেণ্টিন প্লাবিত বেশি হয়েছে।

অপরদিকে কলাপাড়ার লালুয়া গ্রাম সম্পূর্ণ প্লাবিত হয়েছে।

তবে প্রতিবছরই অমাবস্যা-পূর্ণিমার প্রভাবে পটুয়াখালীর এসব এলাকায় স্বাভাবিক জোয়ারের তুলনায় দুই থেকে তিন ফুট পানি বেশি হয়। যে কারণে আজকের প্লাবিত হওয়ার জন্য ইয়াসের প্রভাব দায়ী কি না, তা নিশ্চিত করেনি পানি উন্নয়ন বোর্ড।

পটুয়াখালীর আকাশ সকালে কিছুটা মেঘাচ্ছন্ন থাকলেও বেলা বাড়তে থাকায় তা আবার স্বাভাবিক হয়। তবে উপকূলীয় এলাকায় হালকা থেকে মাঝারি বাতাস বইছে।

ইয়াসে উত্তাল সমুদ্র, প্লাবিত উপকূল

আবহাওয়া অধিদপ্তরের বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’ উত্তর, উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর ও আরও ঘনীভূত হয়ে প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়টি বর্তমানে একই এলাকায় (১৭ দশমিক ৯ ডিগ্রি উত্তর অক্ষাংশ এবং ৮৮ দশমিক ৯ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমাংশ) অবস্থান করছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সকাল ৬টায় ঘূর্ণিঝড়টির কেন্দ্রের ৬৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ৮৯ কিলোমিটার। এটি দমকা অথবা ঝোড়ো হাওয়ার আকারে ১১৭ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, ‘ইয়াস’ ঘূর্ণিঝড়টি মঙ্গলবার সকাল ৬টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৫৭৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৫২০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৪৮০ কিলোমিটার দক্ষিণে ও পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৬০৫ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছিল। এটি আরও ঘনীভূত হয়ে উত্তর-উত্তরপশ্চিম দিকে এগোতে পারে।’

অনুকূল আবহাওয়া পরিস্থিতির কারণে প্রবল ঘূর্ণিঝড়টি আরও ঘনীভূত হয়ে উত্তর-উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে বুধবার ভোর নাগাদ উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর এলাকায় পৌঁছাতে পারে বলেও জানায় অধিদপ্তর।

চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরগুলোকে ২ নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারিসংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিল ‘ইয়াস’
ঘূর্ণিঝড় ইয়াস: ঝুঁকি নেবেন না মমতা
‘ইয়াস’: ভঙ্গুর বেড়িবাঁধে আতঙ্কে উপকূলবাসী
ঘূর্ণিঝড় ইয়াস: কৃষি বাঁচাতে পরামর্শ
ঘূর্ণিঝড় ইয়াস: সুন্দরবনে বন্ধ ৮ টহলফাঁড়ি

শেয়ার করুন

মন্তব্য