ভুট্টাক্ষেত থেকে বৃদ্ধের মরদেহ উদ্ধার

নাটোর সদরের আগদিঘা কাঁটাখালি গ্রামে মৃত ওহাব আলীর স্বজনদের আহাজারি। ছবি: নিউজবাংলা

ভুট্টাক্ষেত থেকে বৃদ্ধের মরদেহ উদ্ধার

নাটোর সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক আব্দুল মতিন জানান, ‘প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, জমি থেকে বাড়ি ফেরার পথে অসুস্থতাজনিত কারণে তার মৃত্যু হয়েছে। তার শরীরে আঘাতের কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি।’

নাটোরে ওহাব আলী মিয়াজী নামে এক কৃষকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

সদর উপজেলার আগদিঘা কাঁটাখালি গ্রামের একটি ভুট্টাক্ষেত থেকে শুক্রবার দুপুরে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

নিহত ওহাব আলী মিয়াজীর বাড়ি একই এলাকায়। তার বয়স ৭০ বছর।

সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আব্দুল মতিন নিউজবাংলাকে জানান, বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে ওহাব আলী মিয়াজী তার জমির ফসল দেখতে বাড়ি থেকে বের হন। পরে আর বাড়ি ফিরে যাননি তিনি।

রাতে পরিবারের লোকজন তাকে খোঁজাখুঁজি করেও কোনো সন্ধান পাননি। শুক্রবার সকালে স্থানীয়রা ভুট্টাক্ষেতে ওহাব আলীর মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেন।

আব্দুল মতিন জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, জমি থেকে বাড়ি ফেরার পথে অসুস্থতাজনিত কারণে তার মৃত্যু হতে পারে। তার শরীরে আঘাতের কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি। তারপরও মৃত্যুর কারণ বের করতে মরদেহের ময়নাতদন্ত করতে সদর হাসপাতারে মর্গে পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:
মাটি খুঁড়তে গিয়ে মিলল নিখোঁজ যুবকের মরদেহ
হাসপাতালে রোগীর ঝুলন্ত মরদেহ
 শিশুর গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার
বিয়ের দুই সপ্তাহ পরে গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ
কুড়িল ফ্লাইওভারের সেই মরদেহ দুবাই প্রবাসীর

শেয়ার করুন

মন্তব্য

ইউটিউব দেখে ফয়েজের ড্রাগন ফল চাষ

ইউটিউব দেখে ফয়েজের ড্রাগন ফল চাষ

‘দুই বিঘা জমিতে দুই হাজার গাছ লাগিয়েছেন। খরচ হয়েছে সাড়ে ছয় লাখ। এই গাছগুলো ৩০ বছর পর্যন্ত ফল দেবে। সব কিছু ঠিক থাকলে দুই বছরের মধ্যে উঠে আসবে পুঁজি।’

চাকরি ভালো লাগে না। চেয়েছেন উদ্যোক্তা হতে। ইউটিউব দেখে শুরু করেন চাষাবাদ। নিজের জমিতে ড্রাগন ফলের গাছ লাগান। বছর ঘুরতেই ফল এসেছে বাগানে। সপ্তাহ খানেক পরে পরিপক্ক ফল যাবে বাজারে।

এই গল্প কুমিল্লা দেবিদ্বার উপজেলার ছেপাড়া গ্রামর তরুণ আবুল ফয়েজ মুন্সীর।

২০১৬ সালে ব্যবস্থাপনা বিভাগ থেকে স্নাতক পাস করেন। চাকরি না করে মনোযোগী হন কৃষিকাজে।

ফয়েজ মুন্সি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘স্নাতক শেষে নিজে কিছু করার চেষ্টা করেছি। চাকরি ভালো লাগে না। তাই বাবার জমিতে শুরু করি ফল চাষ। আমার বাগানে ড্রাগন, কলা, কুল ও ত্বিন ফল গাছ রয়েছে।’

তিনি জানান, ইউটিউব দেখে তিনি ড্রাগন চাষে উদ্বুদ্ধ হন। দুই বিঘা জমিতে দুই হাজার গাছ লাগিয়েছেন। খরচ হয়েছে সাড়ে ছয় লাখ। এই গাছগুলো ৩০ বছর পর্যন্ত ফল দেবে। সব কিছু ঠিক থাকলে দুই বছরের মধ্যে উঠে আসবে পুঁজি ।

ফয়েজ মুন্সী এখন বাগান পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। তার বাগান দেখতে প্রতিদিনই ভিড় করছে মানুষ। তিনি প্রাথমিকভাবে কিছু ফল বিক্রিও করেছেন।

ইউটিউব দেখে ফয়েজের ড্রাগন ফল চাষ


কৃষি অফিসসূত্রে জানা যায়, জেলায় ড্রাগন চাষে অনেকেই উদ্বুদ্ধ হচ্ছেন। অনেকটা ক্যাকটাসের মতো এই গাছ। চাষিরা সিমেন্টের পিলার ও রড-টায়ার দিয়ে মাঁচা করেন। কারণ একবার গাছ বড় হলে টানা ৩০ বছর ফল দেয়। ড্রাগন গাছটিকে সোজা রাখতেই এত শক্ত করে মাঁচা করতে হয়।

দেবিদ্বার উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা সাইদুজ্জামান বলেন, ‘ওয়াহেদপুর, মোহাম্মদপুর, ইউসুফপুর মধ্যপাড়া, সাইতলা, ছেপাড়াসহ বিভিন্ন গ্রামে ড্রাগনের চাষ হচ্ছে। আমরা চাষিদের পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি।’

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মিজানুর রহমান বলেন, ‘ড্রাগন অনেক পুষ্টিকর ফল। কুমিল্লার মাটি এই ফল চাষের উপযোগী। বিশেষ করে যেখানে পানি জমে না সেখানে ড্রাগন চাষ করা যায়। দেবিদ্বার ছাড়া বড় পরিসরে চান্দিনা, বরুড়া, লালমাই ও সদর দক্ষিণে ড্রাগন চাষ হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
মাটি খুঁড়তে গিয়ে মিলল নিখোঁজ যুবকের মরদেহ
হাসপাতালে রোগীর ঝুলন্ত মরদেহ
 শিশুর গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার
বিয়ের দুই সপ্তাহ পরে গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ
কুড়িল ফ্লাইওভারের সেই মরদেহ দুবাই প্রবাসীর

শেয়ার করুন

দর্শনা চেকপোস্ট দিয়ে দেশে ফিরলেন আরও ১৩ জন

দর্শনা চেকপোস্ট দিয়ে দেশে ফিরলেন আরও ১৩ জন

এসআই আব্দুল আলিম জানান, ভারতের কলকাতায় বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে এনওসি নিয়ে ১৩জন দর্শনা চেকপোস্টে প্রবেশ করেন। সেখানে তাদের অ্যান্টিজেন পরীক্ষা করার পর ১২জনকে কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে ও একজনকে ঝিনাইদহে কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়।

চুয়াডাঙ্গার দর্শনা চেকপোস্ট দিয়ে দেশে ফিরেছেন ভারতে আটকে পড়া আরও ১৩ জন বাংলাদেশি নারী-পুরুষ। সেখানে তাদের র‍্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট করে স্বাস্থ্য বিভাগ। তবে তাদের মধ্যে কেউ করোনা শনাক্ত হননি।

এ নিয়ে মঙ্গলবার সন্ধ্যা পর্যন্ত গত ২৯ দিনে ওই চেকপোস্ট দিয়ে মোট ৮৫১ জন দেশে ফিরলেন।

দর্শনা জয়নগর চেকপোস্টের ইমিগ্রেশন ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) আব্দুল আলিম জানান, ভারতের কলকাতায় বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে এনওসি নিয়ে ১৩জন দর্শনা চেকপোস্টে প্রবেশ করেন।

সেখানে তাদের অ্যান্টিজেন পরীক্ষা করার পর ১২জনকে কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে ও একজনকে ঝিনাইদহে কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়।

করোনা নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ সংক্রান্ত উপকমিটির আহ্বায়ক ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মনিরা পারভীন জানান, ভারতফেরত ব্যক্তিদের জেলা প্রশাসনের নির্ধারিত কোয়ারেন্টিন সেন্টারে পাঠানো হয়েছে।

সেখানে তারা ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকবেন।

আরও পড়ুন:
মাটি খুঁড়তে গিয়ে মিলল নিখোঁজ যুবকের মরদেহ
হাসপাতালে রোগীর ঝুলন্ত মরদেহ
 শিশুর গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার
বিয়ের দুই সপ্তাহ পরে গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ
কুড়িল ফ্লাইওভারের সেই মরদেহ দুবাই প্রবাসীর

শেয়ার করুন

ভাজা ডিম খাওয়া নিয়ে দ্বন্দ্বে আত্মহত্যা

ভাজা ডিম খাওয়া নিয়ে দ্বন্দ্বে আত্মহত্যা

স্বজনরা জানান, সোমবার দুপুরে ভাত খাওয়ার জন্য দুটি ডিম ভাজেন রেখা বেগম। কিন্তু তার বড় মেয়ে আফরিন জাহান দুটি ডিমই খেয়ে ফেলে। এ নিয়ে মায়ের সঙ্গে তার সামান্য রাগারাগি হয়। বাবা আল মাহমুদ রাঢ়ী বাড়ি এসে বিষয়টি জানতে পারেন। তারপর মেয়ে ডিম খেয়েছে, তাতে কী হয়েছে বলে স্ত্রীর কাছে জানতে চান।

বরিশালের উজিরপুরে ভাজা ডিম খাওয়া নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে বিষপানে এক গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ময়নাতদন্ত শেষে তার মরদেহ স্বজনদের কাছে বুঝিয়ে দিয়েছে থানার পুলিশ।

মৃত রেখা বেগম উজিরপুর উপজেলার বড়াকোঠা ইউনিয়নের অটোভ্যানচালক আল মাহমুদ রাঢ়ীর স্ত্রী ও দুই সন্তানের জননী।

স্বজনরা জানান, সোমবার দুপুরে ভাত খাওয়ার জন্য দুটি ডিম ভাজেন রেখা বেগম। কিন্তু তার বড় মেয়ে আফরিন জাহান দুটি ডিমই খেয়ে ফেলে। এ নিয়ে মায়ের সঙ্গে তার সামান্য রাগারাগি হয়। বাবা আল মাহমুদ রাঢ়ী বাড়ি এসে বিষয়টি জানতে পারেন। তারপর মেয়ে ডিম খেয়েছে, তাতে কী হয়েছে বলে স্ত্রীর কাছে জানতে চান।

এতে স্ত্রী রেখা বেগম মনঃক্ষুণ্ন হয়ে অভিমান করে বিষ পান করেন। পরিবারের লোকজন বিষয়টি দেখতে পেয়ে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেন। পরে তাকে নেয়া হয় বরিশালের শেরে-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

উজিরপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জিয়াউল আহসান জানান, ১০ বছরের মেয়ে আফরিন জাহান দুটি ডিম ভাজা খেয়ে ফেলে। এ নিয়ে স্বামীর সঙ্গে কথা-কাটাকাটির পর অভিমান করে গৃহবধূ রেখা বেগম বিষপানে আত্মহত্যা করেন। পরিবারের কারো কোনো অভিযোগ নেই। ময়নাতদন্ত শেষে তার মরদেহ বাবার বাড়ি নিয়ে গেছেন স্বজনরা।

আরও পড়ুন:
মাটি খুঁড়তে গিয়ে মিলল নিখোঁজ যুবকের মরদেহ
হাসপাতালে রোগীর ঝুলন্ত মরদেহ
 শিশুর গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার
বিয়ের দুই সপ্তাহ পরে গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ
কুড়িল ফ্লাইওভারের সেই মরদেহ দুবাই প্রবাসীর

শেয়ার করুন

ভোটার তালিকায় রোহিঙ্গা ‘ডাকাত’, দুদকের জালে ইসি কর্মকর্তা

ভোটার তালিকায় রোহিঙ্গা ‘ডাকাত’, দুদকের জালে ইসি কর্মকর্তা

পাঁচলাইশ থানা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে ভোটার তালিকায় নিবন্ধন করে রোহিঙ্গা নুর আলমকে স্মার্ট কার্ড দেয়া হয়। ছবি: সংগৃহীত

দুদকের মামলার এজাহারে বলা হয়, রোহিঙ্গা নুর আলমকে চট্টগ্রাম নগরীর ৩৯ নম্বর ওয়ার্ড থেকে জন্মসনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়া হয়। তৎকালীন কাউন্সিলর সরফরাজ কাদের চৌধুরীর প্রত্যয়নের ভিত্তিতে তাকে পাঁচলাইশ থানা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে ভোটার তালিকায় নিবন্ধন করে স্মার্টকার্ড দেয়া হয়। তখন পাঁচলাইশ থানা নির্বাচন কর্মকর্তা ছিলেন আব্দুল লতিফ শেখ।

কক্সবাজারে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত রোহিঙ্গা ‘ডাকাত’ নুর আলমকে ভোটার করার অভিযোগে নির্বাচন কমিশন (ইসি) কর্মকর্তাসহ ছয়জনকে আসামি করে মামলা করেছে দুদক।

মঙ্গলবার দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয় চট্টগ্রাম-২-এর উপসহকারী পরিচালক শরীফ উদ্দিন মামলাটি করেন।

রোহিঙ্গা নুর আলমকে এনআইডি, জন্মসনদ ও জাতীয়তা সনদ দেয়ার অভিযোগে মামলায় ছয়জনকে আসামি করা হয়েছে।

তারা হলেন চট্টগ্রাম নগরীর সাবেক পাঁচলাইশ থানা নির্বাচন কর্মকর্তা ও বর্তমানে পাবনা জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আব্দুল লতিফ শেখ, চট্টগ্রামের ডবলমুরিং থানা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ের সাবেক ডাটা এন্ট্রি অপারেটর মোহাম্মদ শাহ জামাল, পাঁচলাইশ নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ের প্রুফ রিডার উৎপল বড়ুয়া ও রন্তু বড়ুয়া, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের ৩৯ নম্বর ওয়ার্ডের (দক্ষিণ হালিশহর) তৎকালীন কাউন্সিলর সরফরাজ কাদের চৌধুরী রাসেল, একই ওয়ার্ডের জন্মনিবন্ধন সহকারী ফরহাদ হোসাইন।

মামলার এজাহারে বলা হয়, এনআইডি পেতে নুর আলম তার ঠিকানা চট্টগ্রাম নগরীর পশ্চিম ষোলশহর ওয়ার্ডের আমিন জুট মিল কলোনি উল্লেখ করে পাঁচলাইশ থানা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ে আবেদন করেছিলেন। কিন্তু পশ্চিম ষোলশহর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোবারক আলী ওই ঠিকানায় নুর আলমের অবস্থানের সত্যতা পাওয়া যায়নি বলে প্রত্যয়ন করেন।

পরে নুর আলম নিজেকে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলার রাজানগর ইউনিয়নের ঠান্ডাছড়ি গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা উল্লেখ করে আবেদন করেন। রাজানগর ইউনিয়নের তৎকালীন চেয়ারম্যান সামশুল আলমও ওই ঠিকানায় নুর আলম কখনও অবস্থান করেননি বলে প্রত্যয়ন করেন।

এজাহারে আরও বলা হয়, একপর্যায়ে নুর আলমকে চট্টগ্রাম নগরীর ৩৯ নম্বর ওয়ার্ড (দক্ষিণ হলিশহর) থেকে জন্মসনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়া হয়। তৎকালীন কাউন্সিলর সরফরাজ কাদের চৌধুরী রাসেলের প্রত্যয়নের ভিত্তিতে নুর আলমকে পাঁচলাইশ থানা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে ভোটার তালিকায় নিবন্ধন করে স্মার্টকার্ড দেয়া হয়। তখন পাঁচলাইশ থানা নির্বাচন কর্মকর্তা ছিলেন আব্দুল লতিফ শেখ।

নুর আলমকে ভোটার তালিকায় নিবন্ধন ও স্মার্টকার্ডের জন্য তথ্য সার্ভারে আপলোড এবং পরে স্মার্টকার্ড দেয়ার ক্ষেত্রে তিনি পশ্চিম ষোলশহর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোবারক আলী ও রাজানগর ইউনিয়নের তৎকালীন চেয়ারম্যান সামশুল আলমের প্রত্যয়ন আমলে নেননি। এমনকি তাদের দেয়া তথ্য সংরক্ষণও করেননি।

দুদক কর্মকর্তা শরীফ উদ্দিন নিউজবাংলাকে বলেন, রোহিঙ্গা নুর আলমকে ভোটার তালিকাভুক্ত করে জাতীয় পরিচয়পত্র (স্মার্টকার্ড) সরবরাহের জন্য ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় আসামিরা অপরাধ করেছেন।

২০১৯ সালের ১ সেপ্টেম্বর রাতে কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার জাদিমুরা ২৭ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের পাশে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন রোহিঙ্গা ‘ডাকাত’ নুর আলম। ওই দিন বিকেলে তাকে টেকনাফের রঙ্গিখালী উলুচামারী পাহাড়ি এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করেছিল টেকনাফ থানার পুলিশ। স্থানীয় যুবলীগ নেতা ফারুক হত্যা মামলার প্রধান আসামি ছিলেন নুর আলম।

আরও পড়ুন:
মাটি খুঁড়তে গিয়ে মিলল নিখোঁজ যুবকের মরদেহ
হাসপাতালে রোগীর ঝুলন্ত মরদেহ
 শিশুর গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার
বিয়ের দুই সপ্তাহ পরে গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ
কুড়িল ফ্লাইওভারের সেই মরদেহ দুবাই প্রবাসীর

শেয়ার করুন

অস্ত্রসহ রোহিঙ্গা যুবক আটক

অস্ত্রসহ রোহিঙ্গা যুবক আটক

কক্সবাজারের টেকনাফ থেকে অস্ত্রসহ রোহিঙ্গা যুবককে আটক করেছে র‌্যাব। ছবি: নিউজবাংলা

সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ মোহাম্মদ শেখ সাদী জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বুধবার সকালে র‌্যাবের একটি বিশেষ দল নুরালীপাড়া বাজারে অভিযান চালায়। র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে ওই যুবক পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে তাকে আটক করা হয়।

কক্সবাজারের টেকনাফে অভিযান চালিয়ে অস্ত্রসহ এক রোহিঙ্গা যুবককে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

হ্নীলা ইউনিয়নের নুরালীপাড়া বাজার থেকে বুধবার সকাল পৌনে ৯টার দিকে একটি ওয়ান শুটারগান ও এক রাউন্ড তাজা কার্তুজসহ ওই যুবককে আটক করা হয়।

আটক যুবকের নাম নুর হাসান। তিনি টেকনাফ ২৬ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের আই ব্লকের বাসি‌ন্দা।

র‌্যাব বলছে, আটক রোহিঙ্গা যুবক অস্ত্র ব্যবসায়ী।

র‌্যাব-১৫-এর সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ মোহাম্মদ শেখ সাদী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বুধবার সকালে র‌্যাবের একটি বিশেষ দল নুরালীপাড়া বাজারে অভিযান চালায়।

র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে নুর হাসান পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে তাকে আটক করা হয়। এ সময় তার শরীর তল্লাশি করে একটি দেশীয় ওয়ান শুটারগান ও এক রাউন্ড তাজা কার্তুজ উদ্ধার করা হয়।

তিনি আরও জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে, তিনি টেকনাফের সীমান্তবর্তী এলাকা থেকে অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র সংগ্রহ করে কক্সবাজারের বিভিন্ন জায়গায় বিক্রি করেন।

পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে তাকে টেকনাফ থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
মাটি খুঁড়তে গিয়ে মিলল নিখোঁজ যুবকের মরদেহ
হাসপাতালে রোগীর ঝুলন্ত মরদেহ
 শিশুর গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার
বিয়ের দুই সপ্তাহ পরে গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ
কুড়িল ফ্লাইওভারের সেই মরদেহ দুবাই প্রবাসীর

শেয়ার করুন

তিন সন্তানের জননীকে দলবদ্ধ ধর্ষণ, গ্রেপ্তার যুবক রিমান্ডে

তিন সন্তানের জননীকে দলবদ্ধ ধর্ষণ, গ্রেপ্তার যুবক রিমান্ডে

বোরহানউদ্দিন থানার ওসি মাজহারুল আমিন জানান, ওই নারী রোববার এনজিও থেকে টাকা তুলে বাড়ি ফেরার পথে দলবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হন- এ অভিযোগ এনে সোমবার রাতে তিনজনকে আসামি করে মামলা হয়। একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অপর দুই আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায় তিন সন্তানের জননীকে দলবদ্ধ ধর্ষণ মামলার আসামি সাহেদকে গ্রেপ্তারের পর আদালতের মাধ্যমে রিমান্ডে নেয়ার অনুমতি পেয়েছে পুলিশ।

পুলিশ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, বোরহানউদ্দিন থানার একটি দল সোমবার রাতে পৌর এলাকার নিজ বাসা থেকে ২৫ বছর বয়সী সাহেদকে গ্রেপ্তার করে। মঙ্গলবার দুপুরে তাকে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আলী হায়দার কামালের আদালতে হাজির করে ছয় দিন হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের আবেদন জানানো হয়। শুনানি শেষে আদালত তিন দিনের অনুমতি দেয়।

বোরহানউদ্দিন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল আমিন জানান, ওই নারী রোববার এনজিও থেকে টাকা তুলে বাড়ি ফেরার পথে দলবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হন- এ অভিযোগ এনে সোমবার রাতে তিনজনকে আসামি করে মামলা হয়। একজন গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

মামলার অপর দুই আসামি সুমন ও ইউসুফকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
মাটি খুঁড়তে গিয়ে মিলল নিখোঁজ যুবকের মরদেহ
হাসপাতালে রোগীর ঝুলন্ত মরদেহ
 শিশুর গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার
বিয়ের দুই সপ্তাহ পরে গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ
কুড়িল ফ্লাইওভারের সেই মরদেহ দুবাই প্রবাসীর

শেয়ার করুন

সম্মিলিত প্রচেষ্টায় বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়া সম্ভব: অর্থমন্ত্রী

সম্মিলিত প্রচেষ্টায় বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়া সম্ভব: অর্থমন্ত্রী

কুমিল্লার লালমাইতে আঞ্চলিক স্কাউটস প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের উন্নয়ন কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। ছবি: নিউজবাংলা

‘৭১ এর শহিদদের রক্তের ঋণ শোধ করতে হলে দেশের সকল জনগোষ্ঠীকে সঙ্গে নিয়ে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে উন্নয়নের লক্ষ্যে চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে। তাহলেই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব হবে।’

করোনা মহামারিতে অনেক দেশের অর্থনীতি ঝিমিয়ে গেলেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকার অর্থনীতিতে ভালো অবস্থানে আছে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

কুমিল্লার লালমাইতে মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে আঞ্চলিক স্কাউটস প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের উন্নয়ন কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে বিরামহীন কাজ করে যাচ্ছে সরকার। করোনা মহামারিতে অনেক দেশের অর্থনীতি ঝিমিয়ে গেলেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকার অর্থনীতিতে ভালো অবস্থানে আছে।

‘৭১ এর শহিদদের রক্তের ঋণ শোধ করতে হলে দেশের সকল জনগোষ্ঠীকে সঙ্গে নিয়ে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে উন্নয়নের লক্ষ্যে চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে। তাহলেই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব হবে।’

অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, ‘স্কাউটস লালমাই আঞ্চলিক কেন্দ্রটির মাধ্যমে এলাকার মানুষ আলোকিত হবে। স্কাউটসের মাধ্যমে মানুষকে ভালোবাসতে হবে। ভালোবাসা শেখাতে হবে। দেশের সকল মানুষকে সঙ্গে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে কাজ করতে হবে।’

আরও পড়ুন:
মাটি খুঁড়তে গিয়ে মিলল নিখোঁজ যুবকের মরদেহ
হাসপাতালে রোগীর ঝুলন্ত মরদেহ
 শিশুর গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার
বিয়ের দুই সপ্তাহ পরে গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ
কুড়িল ফ্লাইওভারের সেই মরদেহ দুবাই প্রবাসীর

শেয়ার করুন