লকডাউনে পশুর খামারিদের মাথায় হাত

খামারিদের লোকসান

‘গরুর দাম শুইনি মাথা খারাপ হয়ি যাইছে। আমার ৯০ হাজার টেকার গরুর দাম বুলছে ৭২ হাজার টেকা।… আজ দুই হাট হলো জেলার বাইরের কোনো ব্যাপারী আসেনি। তাই ছাগল বেচতে পারছিনি। খুব বিপদে আছি ভাই। আল্লায় জানে করোনা কবে সারবে।’

মেহেরপুরে গরু-ছাগলের হাটে হঠাৎ দরপতনে দুশ্চিন্তায় গরু-ছাগল পালনকারী ও খামারিরা।

গরুভেদে দাম কমেছে ২০ থেকে ৩৫ হাজার টাকা পর্যন্ত। ছাগলের ক্ষেত্রে কমেছে দুই থেকে তিন হাজার টাকা।

ব্যবসায়ী ও হাট ইজারাদাররা বলছেন, জেলার বাইরের ব্যাপারীরা আসতে না পারার কারণে এমনটি ঘটছে।

জেলায় গরু-ছাগল মোটাতাজা করে বিক্রি করার প্রবণতা গত কয়েক বছরে বেড়েছে। এই কাজে যারা আয় করেন, তাদের সংখ্যাটি নেহাত কম নয়। তাদের মধ্যে যারা এখন পশু বিক্রি করতে যাচ্ছেন, লোকসান হচ্ছে তাদের সবার।

অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড কমে যাওয়ায় আয় কমে গেছে বহুজনের। যারা আয় করে পশুর জন্য খাবার নিতেন, তারা এখন সেটি পারছেন না। এ কারণে গরু বিক্রি করতে হাটে নিয়ে হতবাক হয়ে যাচ্ছেন। গরুর দাম শুনে হতাশ হতে হচ্ছে তাদের।

যে গরুর দাম সপ্তাহ দুয়েক আগেও ব্যাপারীরা দিতে চেয়েছিলেন এক লাখ টাকা, সেটির দাম এখন তারা বলছেন ৮০ হাজার টাকা।

এক গরু মালিক বললেন, কয়েক দিন আগেও তার পশুর দাম বলা হয়েছিল ১ লাখ ৭০ হাজার টাকা। এখন দাম বলছে ১ লাখ ৩৫ হাজার টাকা।

লকডাউনে পশুর খামারিদের মাথায় হাত

ইজারাদারও যে ভালো আছেন, তা নয়। মেহেরপুরের সবচেয়ে বড় বামন্দী পশুহাট ইজারাদার নাসির উদ্দীন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা হাটটি বছরে ৩ কোটি ৪২ লাখ টাকায় ইজারা নিয়ে থাকি। সপ্তাহে সোমবার ও শুক্রবার হাট বসিয়ে থাকি। যেখানে প্রতি হাটেই কমপক্ষে দুই হাজার গরু ও আড়াই হাজার ছাগল ওঠে, সেখানে এখন গরু উঠছে সাত শর মতো। ছাগল দেড় হাজারও উঠছে না।

‘দাম কমে গেছে, ক্রেতা নেই। হতাশ হয়ে ফিরে যেতে হচ্ছে খামারি ও পশু পালনকারীদের। আমরা চিন্তায় আছি হাট ইজারার টাকা ওঠা নিয়ে।’

খামারি আবদুল জাব্বার নিউজবাংলাকে জানান, ‘আমার খামারে ১২ থেকে শুরু ১৭ মণ ওজনের গরু আছে ২০টি। এক একটি গরু ১৮ কেজি করে খাবার খায়। হঠাৎ আমার টাকার দরকার হয়ে পড়ায় আমি একটি গরু বিক্রির জন্য নিয়ে এসেছি। তবে দাম শুনে আমি হতভম্ভ হয়ে গেছি।

‘যে গরুটি কিছুদিন আগেই দাম বলেছিল ২ লাখ ৭০ হাজার টাকা আর আজ দাম বলছে ২ লাখ ৩০ হাজার টাকা। তা-ও ক্রেতা কম। দুইজনে শুধু এই দাম দিতে চেয়েছে।’

লকডাউনে পশুর খামারিদের মাথায় হাত

কালু মিয়া ইটভাটায় শ্রমিকের কাজ করেন বর্গা নিয়ে চাষাবাদের পাশাপাশি দুটি গরু বড় করছেন।

জমি বর্গা নিতে টাকা দরকার। তাই গরু নিয়ে আসেন হাটে। বলেন, ‘গরুর দাম শুইনি মাথা খারাপ হয়ি যাইছে। আমার ৯০ হাজার টেকার গরুর দাম বুলছে ৭২ হাজার টেকা। তাই এ বছর ধারদেনা কইরি অথবা বাকি জমি বর্গা নিতে হবে। তা ছাড়া উপায় দেখছিনি।’

ছাগল বিক্রেতা মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা দুইজন শেয়ারে ব্যবসা করি। গ্রামের হাট থাইকি ২০ থেকে ২৫টি ছাগল কিনি। তারপর ঢাকা কিংবা চট্টগ্রামের ছাগলের ব্যাপারী দেখে লাভে বিক্রি করি। আজ দুই হাট হলো জেলার বাইরের কোনো ব্যাপারী আসেনি। তাই ছাগল বেচতে পারছিনি। খুব বিপদে আছি ভাই। আল্লায় জানে করোনা কবে সারবে।’

আরও পড়ুন:
দুধ নিয়ে বিপাকে খামারিরা

শেয়ার করুন

মন্তব্য

দাখিল পরীক্ষা শুরু ১৪ নভেম্বর

দাখিল পরীক্ষা শুরু ১৪ নভেম্বর

মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক কায়সার আহমেদ বলেন, ‘১৪ নভেম্বর থেকে দাখিল পরীক্ষা শুরু হবে, চলবে ২১ নভেম্বর পর্যন্ত। করোনার এ সময়ে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষা নেয়া হবে।’

মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের আওতায় চলতি বছরের দাখিল পরীক্ষা শুরু হবে ১৪ নভেম্বর। চলবে ২১ নভেম্বর পর্যন্ত। এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে শুধুমাত্র নৈর্বাচনিক বিষয়ে। নির্ধারিত দিনে সকাল ১০টা থেকে ১১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

বৃহস্পতিবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক কায়সার আহমেদ।

তিনি বলেন, ‘১৪ নভেম্বর থেকে দাখিল পরীক্ষা শুরু হবে, চলবে ২১ নভেম্বর পর্যন্ত। করোনার এ সময়ে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষা নেয়া হবে।’

কবে কোন পরীক্ষা

১৪ নভেম্বর কুরআন মাজিদ ও তাজভিদ ও পদার্থবিজ্ঞান (তত্ত্বীয়), ১৮ নভেম্বর হাদিস শরিফ এবং ২১ নভেম্বর ইসলামের ইতিহাস, রসায়ন, তাজভিদ নসর ও নজম (মুজাব্বিদ গ্রুপ) এবং তাজভিদের (হিফজুল গ্রুপ) পরীক্ষা হবে।

পরীক্ষার্থীদের জন্য নির্দেশনা

১. করোনা মহামারির কারণে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

২. পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে অবশ্যই পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা কক্ষে আসন গ্রহণ করতে হবে।

৩. পরীক্ষার সময় হবে ১ ঘণ্টা ৩০ মিনিট। এমসিকিউ ও লিখিত পরীক্ষার মধ্যে কোনো বিরতি থাকবে না। পরীক্ষার দিন সকাল ৯টা ৩০ মিনিটে শিক্ষার্থীদের উত্তরপত্র এবং ওএমআর শিট বিতরণ করা হবে।

৪. পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা শুরুর তিন দিন আগে প্রতিষ্ঠান প্রধানদের কাছ থেকে প্রবেশপত্র সংগ্রহ করতে হবে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হলে ২০২০ সালের ১৭ মার্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়। দেড় বছর পর ১২ সেপ্টেম্বর খুলে দেয়া হয়েছে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো।

আরও পড়ুন:
দুধ নিয়ে বিপাকে খামারিরা

শেয়ার করুন

ভারতে আরও ইলিশ রপ্তানির অনুমতি

ভারতে আরও ইলিশ রপ্তানির অনুমতি

দুই দফায় মোট ৪ হাজার ৬০০ টন ইলিশ রপ্তানির অনুমতি দিল বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এর আগে গত সোমবার ২ হাজার ৮০ টন ইলিশ রপ্তানির অনুমতি দেয়া হয়।

প্রথম দফা অনুমোদনের মাত্র চার দিনের মাথায় আরও ৬৩ প্রতিষ্ঠানকে ইলিশ রপ্তানির অনুমতি দিল বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। দ্বিতীয় দফায় অনুমতি মিলেছে ২ হাজার ৫২০ টন ইলিশ রপ্তানির। অনুমোদিত রপ্তানিকারকদের প্রত্যেকে ৪০ টন করে ইলিশ রপ্তানি করতে পারবে।

বৃহস্পতিবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে দ্বিতীয় দফায় ইলিশ রপ্তানির অনুমোদন জারি করা হয়। এতে বলা হয়, অনুমতির মেয়াদ কার্যকর থাকবে আগামী ৩ অক্টোবর পর্যন্ত। এর ফলে দুই দফায় মোট ৪ হাজার ৬০০ টন ইলিশ রপ্তানির অনুমতি দিল বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এর আগে গত সোমবার ২ হাজার ৮০ টন ইলিশ রপ্তানির অনুমতি দেয়া হয়।

তবে ইলিশ রপ্তানির ক্ষেত্রে আগের মতোই ছয়টি শর্ত রপ্তানিকারকদের মেনে চলতে হবে। শর্তগুলো হচ্ছে, বিদ্যমান রপ্তানি নীতি ২০১৮-২১ এর বিধিবিধান মানতে হবে; শুল্ক কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে রপ্তানি করা ইলিশের কায়িক পরীক্ষা করাতে হবে; প্রতিটি চালান (কনসাইনমেন্ট) শেষে রপ্তানিসংক্রান্ত কাগজপত্র দাখিল করতে হবে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে; অনুমোদিত পরিমাণের চেয়ে বেশি ইলিশ রপ্তানি করা যাবে না, অনুমতির মেয়াদ কার্যকর থাকবে ৩ অক্টোবর পর্যন্ত; অনুমতি কোনোভাবে হস্তান্তরযোগ্য নয় এবং অনুমোদিত রপ্তানিকারক ছাড়া ঠিকায় (সাব-কন্ট্রাক্ট) রপ্তানি করা যাবে না।

দেশের বাজারে ইলিশের জোগান কম থাকার কারণে ২০১২ সাল থেকে বাংলাদেশ ইলিশ রপ্তানি পুরোপুরি বন্ধ করে দেয়। এরপর গত ৯ বছরে এই নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হয়নি।

বিশ্বের মোট উৎপাদিত ইলিশের ৮৬ শতাংশই বাংলাদেশে উৎপাদিত হয়। বিশেষ করে মেঘনা ও পদ্মায় বর্ষাশেষে ধরা পড়া ইলিশ খুবই সুস্বাদু বলে মনে করা হয়। ভারতের পশ্চিমবঙ্গে বাংলাদেশের ইলিশের কদর বেশি।

বাংলাদেশে পোনা ইলিশ বা জাটকা ধরার ওপর বিধিনিষেধ আরোপসহ নানান উদ্যোগের কারণে গত দেড় দশকে ইলিশের উৎপাদন অনেক বেড়েছে।

আরও পড়ুন:
দুধ নিয়ে বিপাকে খামারিরা

শেয়ার করুন

শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে ৩ যুবক আটক

শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে ৩ যুবক আটক

আড়াইহাজার থানার পুলিশ পরিদর্শক জোবায়ের হোসেন জানান, সকাল ১০টা থেকে শিশুটিকে পাওয়া যাচ্ছিল না। পরিবারের লোকজন তাকে অনেক খোঁজাখুঁজি করে। একপর্যায়ে শিশুটির বাবা পুরিন্দা এলাকার নান্নু মিয়ার তালাবদ্ধ ঘরের জানালা দিয়ে তার বিবস্ত্র দেহ পড়ে থাকতে দেখেন।

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে তিন যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

আড়াইহাজার উপজেলার সাতগ্রাম ইউনিয়নের পুরিন্দা বড় বাড়ি এলাকা থেকে বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এরপরই তাদের সন্দেহভাজন হিসেবে আটক করে থানায় নেয় পুলিশ।

আটক তিনজন হলেন মো. সামাদ, মো. সোহেল ও মো. শিমুল।

আড়াইহাজার থানার পুলিশ পরিদর্শক জোবায়ের হোসেন নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, সকাল ১০টা থেকে শিশুটিকে পাওয়া যাচ্ছিল না। পরিবারের লোকজন তাকে অনেক খোঁজাখুঁজি করে। একপর্যায়ে শিশুটির বাবা পুরিন্দা এলাকার নান্নু মিয়ার তালাবদ্ধ ঘরের জানালা দিয়ে তার বিবস্ত্র দেহ পড়ে থাকতে দেখেন।

পুলিশ গিয়ে শিশুটির গলায় গামছা বাঁধা ও বেল্ট দিয়ে দুই পা বাঁধা রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার করে।

পুলিশ পরিদর্শক জানান, ধারণা করা হচ্ছে, শিশুটিকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ সদর জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। সন্দেহভাজন হিসেবে তিনজনকে আটক করে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন:
দুধ নিয়ে বিপাকে খামারিরা

শেয়ার করুন

শেখ হাসিনার জন্মদিনে যুবলীগের বৃক্ষরোপণ

শেখ হাসিনার জন্মদিনে যুবলীগের বৃক্ষরোপণ

বৃহস্পতিবার রাজধানীর ভাটারায় বৃক্ষরোপণ কর্মসূচিতে যুবলীগের নেতাকর্মীরা। ছবি: ফেসবুক

যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস্ পরশ বলেন, ‘বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির মাধ্যমে জলবায়ু পরিবর্তনের যে হুমকি সারা বিশ্বে, সে বিষয়ে সজাগ থেকে সেটা প্রতিরোধ করার জন্য আমরা এই ভূমিকা রাখতে চাই, যাতে নতুন প্রজন্ম একটা সুষ্ঠু পরিবেশে বেড়ে উঠতে পারে।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিন উপলক্ষে সপ্তাহব্যাপী বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন করেছে আওয়ামী লীগের অঙ্গ সংগঠন যুবলীগ।

বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগের উদ্যোগে ভাটারায় এই কর্মসূচি পালন করা হয়।

অনুষ্ঠানে নেতাকর্মীদের উদ্দেশে এক বিবৃতিতে যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস্ পরশ বলেন, ‘বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির মাধ্যমে জলবায়ু পরিবর্তনের যে হুমকি সারা বিশ্বে, সে বিষয়ে সজাগ থেকে সেটা প্রতিরোধ করার জন্য আমরা এই ভূমিকা রাখতে চাই, যাতে নতুন প্রজন্ম একটা সুষ্ঠু পরিবেশে বেড়ে উঠতে পারে।’

যুব সমাজকে গাছের সঠিক পরিচর্যা করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের যুবসমাজ এই কর্মসূচির দ্বারা অনুপ্রাণিত হবে। শুধু গাছ লাগালেই চলবে না, গাছের সঠিক পরিচর্যা করতে হবে।’

প্রধান অতিথির বক্তব্যে যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল বলেন, ‘বিএনপি-জামাত চক্র ক্ষমতায় আসার জন্য দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে। সততাই শক্তি, মানবতায় মুক্তি- রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার এই মন্ত্রকে ধারণ করে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের নেতারা বিএনপি-জামাতের সব ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করবে।’

অনুষ্ঠানে ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জনাব জাকির হোসেন বাবুল সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের প্রেসিডিয়ামের অন্যতম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মৃণাল কান্তি জোদ্দার, প্রচার সম্পাদক জয়দেব নন্দী, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক শামসুল আলম অনিক, উপ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক এন আই আহমেদ সৈকতসহ অনেকে।

আরও পড়ুন:
দুধ নিয়ে বিপাকে খামারিরা

শেয়ার করুন

জটিল হচ্ছে গাজীপুর পরিস্থিতি, অবরোধে এবার রেলে বিচ্ছিন্ন ঢাকা

জটিল হচ্ছে গাজীপুর পরিস্থিতি, অবরোধে এবার রেলে বিচ্ছিন্ন ঢাকা

মেয়র জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবিতে গাজীপুরের টঙ্গীতে সড়ক অবরোধের পর এবার রেল লাইনে আগুন ধরিয়ে দেয় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা। ছবি: নিউজবাংলা

মুক্তিযুদ্ধে শহিদের সংখ্যা ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে কটূক্তির অভিযোগে গাজীপুরের মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবিতে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা এবার রেলপথ অবরোধ করায় ঢাকার সঙ্গে সারা দেশের ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।

বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের কয়েকটি স্থানে অবস্থান নিয়ে নেতা-কর্মীরা যান চলাচল বন্ধ করে দেয়ায় বৃহত্তর ময়মনসিংহের সঙ্গে ঢাকার সড়ক যোগাযোগও বন্ধ আছে। উত্তরের পথের যে যাত্রীরা এই পথ ধরে চলেন, তারাও যাওয়া আসা করতে পারছেন না। এতে সড়কে দুই ধারে তীব্র যানজট তৈরি হয়েছে।

বিকেল তিনটার দিকে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা টঙ্গীর হোসেন মার্কেট, চেরাগ আলী, স্টেশন রোড, বোর্ড বাজারে অবরোধ করেন। তারা সড়কে শত শত টায়ার জ্বালিয়ে অবস্থান নিয়ে মেয়রের বিরুদ্ধে স্লোগান দেন।

সন্ধ্যার পর টঙ্গীতে আহসান উল্লাহ মাস্টার ফ্লাইওভারের নিচে রেলপথ অবরোধ করে নেতাকর্মীরা। এতে ঢাকার সঙ্গে রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়।

আরও আসছে...

আরও পড়ুন:
দুধ নিয়ে বিপাকে খামারিরা

শেয়ার করুন

প্রযুক্তিনির্ভর শিক্ষাব্যবস্থা নিশ্চিতের আহ্বান ইউজিসির

প্রযুক্তিনির্ভর শিক্ষাব্যবস্থা নিশ্চিতের আহ্বান ইউজিসির

বৃহস্পতিবার অনলাইন ও ব্লেন্ডেড লার্নিং বিষয়ে বাংলাদেশের উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সক্ষমতা বৃদ্ধি শীর্ষক ভার্চুয়াল কর্মশালায় বক্তারা।

ইউজিসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী শহীদুল্লাহ বলেন, ‘উন্নত দেশের মতো দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে প্রযুক্তিনির্ভর শিক্ষাব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।’ ইউজিসি সদস্য অধ্যাপক ড. মো. সাজ্জাদ হোসেন বলেন, প্রযুক্তি ব্যবহার করে দক্ষ মানবসম্পদ তৈরি করতে না পারলে বৈশ্বিক শ্রমবাজারে প্রতিযোগিতায় আমাদের গ্রাজুয়েটরা টিকে থাকতে পারবে না।

উন্নত দেশেগুলোর মতো দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে প্রযুক্তিনির্ভর শিক্ষাব্যবস্থা নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী শহীদুল্লাহ।

বৃহস্পতিবার অনলাইন ও ব্লেন্ডেড লার্নিং বিষয়ে বাংলাদেশের উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সক্ষমতা বৃদ্ধি শীর্ষক এক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ আহ্বান জানান।

ইউজিসি চেয়ারম্যান বলেন, বিশ্বের উন্নত দেশেগুলোর মতো দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে প্রযুক্তিনির্ভর শিক্ষাব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে। বৈশ্বিক এ বাস্তবতা অনুধাবন করতে না পারলে উচ্চশিক্ষার প্রতিষ্ঠানগুলো পিছিয়ে পড়বে।

তিনি আরও বলেন, করোনা পরবর্তী সময়েও অনলাইন শিক্ষা ও ব্লেন্ডেড লার্নিং কার্যক্রম চালিয়ে যেতে হবে। এ ব্যবস্থাকে টেকসই করতে ইউজিসি ব্লেন্ডেড লার্নিং পলিসির খসড়া চূড়ান্ত করেছে যা প্রশাসনিক অনুমোদনের প্রক্রিয়ায় রয়েছে।

ইউজিসি সদস্য অধ্যাপক ড. মো. সাজ্জাদ হোসেন বলেন, প্রযুক্তি ব্যবহার করে দক্ষ মানবসম্পদ তৈরি করতে না পারলে বৈশ্বিক শ্রমবাজারে প্রতিযোগিতায় আমাদের গ্রাজুয়েটরা টিকে থাকতে পারবে না।

কর্মশালায় অধ্যাপক ড. মো. আবু তাহের বলেন, অনলাইন শিক্ষা ও ব্লেন্ডেড লার্নিং কার্যক্রম কার্যকরভাবে পরিচালনার জন্য দ্রুত এ সংক্রান্ত একটি পলিসি প্রণয়ন করা প্রয়োজন।

ইউজিসি সচিব (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ড. ফেরদৌস জামান বলেন, শিক্ষার মান উন্নয়ন করা না গেলে দক্ষ মানবসম্পদ গড়ে উঠবে না। তাই, শিক্ষার মান উন্নয়নের জন্য ডিজিটাল প্লাটফর্মের কার্যকর ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।

২০ দিনের এই কর্মশালায় দেশের ২০টি পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের এক হাজার শিক্ষক অংশ নিচ্ছেন।

কর্মশালায় অনলাইন শিক্ষা, ব্লেন্ডেড লার্নিং এবং লার্নিং ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের বিভিন্ন দিক নিয়ে সেশন পরিচালনা করেছেন বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাউবি) ট্রেজারার ও স্কুল অব বিজনেসের ডীন অধ্যাপক ড. মোস্তফা কামাল আজাদ, সেমকা’র লার্নিং প্রোগ্রাম ফেসিলিটেটর পুরানদার সেনগুপ্ত এবং ন্যাশনাল ট্রেইনার ড. শৌনাক রায়।

আরও পড়ুন:
দুধ নিয়ে বিপাকে খামারিরা

শেয়ার করুন

রাজারবাগ পিরের সম্পদ তদন্তের আদেশ স্থগিত করেনি চেম্বার

রাজারবাগ পিরের সম্পদ তদন্তের আদেশ স্থগিত করেনি চেম্বার

পিরের মুরিদদের কোনো জঙ্গি সম্পৃক্ততা আছে কি না, সেটি তদন্ত করতে বলা হয়েছে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিটকে। পাশাপাশি রিটকারীদের বিরুদ্ধে মামলাগুলো হয়রানিমূলক কি না, সেটিও তদন্ত করতে সিআইডিকে নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

রাজারবাগ দরবার শরিফের সম্পদের বিষয়ে তদন্ত করতে দুর্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক) দেয়া হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত করেনি আপিল বিভাগের চেম্বার আদালত।

বৃহস্পতিবার আপিল বিভাগের বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের চেম্বার আদালত এ বিষয়ে নো অর্ডার দেয়। ফলে এ-সংক্রান্ত হাইকোর্টের আদেশ বহাল থাকল বলে জানিয়েছেন আইনজীবী।

রোববার রাজারবাগ দরবারের পিরের সম্পদের বিষয়ে তদন্ত করতে দুদককে নির্দেশ দেয় বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ।

একই সঙ্গে পিরের মুরিদদের কোনো জঙ্গি সম্পৃক্ততা আছে কি না, সেটি তদন্ত করতে বলা হয়েছে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিটকে। পাশাপাশি রিটকারীদের বিরুদ্ধে মামলাগুলো হয়রানিমূলক কি না, সেটিও তদন্ত করতে সিআইডিকে নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

আগামী ৬০ দিনের মধ্যে এসব তদন্তের প্রতিবেদন দিতে বলেছে আদালত। এ আদেশের বিরুদ্ধে আপিলে আবেদন করেন পির।

আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী এম কে রহমান। অপর দিকে ছিলেন আইনজীবী শিশির মনির।

গায়েবি মামলা দিয়ে অযথা মানুষকে হয়রানির অভিযোগে রাজারবাগ দরবার শরিফের পির দিল্লুর রহমান ও তার মুরিদদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশনা চেয়ে ১৬ সেপ্টেম্বর হাইকোর্টে রিট করেন আট ভুক্তভোগী।

এর আগে অন্যের জায়গা-জমি দখলের জন্য রাজারবাগ দরবার শরিফের পিরের কাণ্ড নিয়ে বিস্ময় জানিয়েছিল হাইকোর্ট।

মুরিদদের দিয়ে নিরীহ এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে ৪৯টি মামলা দেয়ার ঘটনায় সিআইডির তদন্ত রিপোর্ট দেখে আদালত এ বিস্ময় জানায়।

আরও পড়ুন:
দুধ নিয়ে বিপাকে খামারিরা

শেয়ার করুন