20201002104319.jpg
20201003015625.jpg
বাংলাদেশ: উদীয়মান অর্থনৈতিক শক্তি

বাংলাদেশের অর্থনীতির এই চিত্তাকর্ষক সাফল্য ভারত ও এর বাইরের সংবাদ মাধ্যমে আলোচনার বিষয়ে পরিণত হয়েছে। বিশ্বব্যাপী কোভিড-১৯ মহামারী শিল্পোন্নতসহ অনেক দেশের অর্থনীতিতে যেখানে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে, সেখানে অর্থনৈতিক উন্নয়নের ঘটনা বাংলাদেশের জন্য সত্যি একটি উদ্‌যাপনের ব্যাপার।

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) অক্টোবরের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মাথাপিছু জিডিপির দিক থেকে ভারতকে টপকে যাচ্ছে বাংলাদেশ। ‘ওয়ার্ল্ড ইকোনোমিক আউটুলক: আ লং অ্যান্ড ডিফিকাল্ট অ্যাসেন্ট’ শিরোনামের এই প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাংলাদেশের মাথাপিছু জিডিপি এক হাজার ৮৮৮ ডলার। অথচ মাত্র পাঁচ বছর আগেও ভারতের মাথাপিছু জিডিপি ছিল বাংলাদেশের চেয়ে ৪০ শতাংশ বেশি। বিশ্ব ব্যাংকের সাবেক মুখ্য অর্থনীতিবিদ কৌশিক বসু বলেছেন, যে কোনো উদীয়মান অর্থনীতি ভালো করছে, এমন সংবাদ সুখকর।

শেখ হাসিনা সরকার ও দেশের জনগণের দূরদর্শী পরিকল্পনা, তা বাস্তয়নে পদক্ষেপ ও কঠোর পরিশ্রম বাংলাদেশের জন্য এ ধরনের সাফল্য এনে দিয়েছে, অসম্ভবকে করেছে সম্ভব।

যদিও এ লেখার শুরু হয়েছে ভারত-বাংলাদেশের তুলনা দিয়ে, তবে বাংলাদেশ ভারতকে প্রতিদ্বন্দ্বী নয় বরং বন্ধুপ্রতিম দেশ বলেই গণ্য করে। প্রতিবেশী এই দেশসহ অন্যান্য ক্ষমতাধর দেশগুলোর সঙ্গে গঠনমূলক সুসম্পর্ক বজায় রাখার ব্যাপারে বাংলাদেশ আস্থাশীল। দেশের সামগ্রিক আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে এই দেশগুলোকে অংশীদার হিসেবে মনে করে।

বাংলাদেশের অর্থনীতির এই চিত্তাকর্ষক সাফল্য ভারত ও এর বাইরের সংবাদ মাধ্যমে আলোচনার বিষয়ে পরিণত হয়েছে। বিশ্বব্যাপী কোভিড-১৯ মহামারী শিল্পোন্নতসহ অনেক দেশের অর্থনীতিতে যেখানে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে, সেখানে অর্থনৈতিক উন্নয়নের ঘটনা বাংলাদেশের জন্য সত্যি একটি উদ্‌যাপনের ব্যাপার। এমন প্রেক্ষাপটে অর্থনৈতিক শক্তি হিসেবে বাংলাদেশের এই উত্থানের কারণ বিশ্লেষণ করে দেখা জরুরি হয়ে পড়েছে। সাধারণত, বাংলাদেশের ইতিবাচক উন্নয়নের অনেক খবর উপেক্ষা করে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম কেবল নেতিবাচক সংবাদেই জোর দিয়ে থাকে।

অর্থনৈতিক শক্তি হিসেবে বাংলাদেশের এই উত্থানকে বুঝতে হলে পেছন ফিরে তাকাতে হবে। দশকের পর দশক পশ্চিম পাকিস্তানের নিপীড়ন, নির্যাতন, বৈষম্যমূলক আচরণ ও অন্যায় অবিচারের শিকার হয়েছিল পূর্ব পাকিস্তান, যার ফল ছিল পূর্ব পাকিস্তানে তীব্র দারিদ্র্য ও নিরক্ষরতা । ১৯৬০ থেকে ১৯৭০ সাল পর্যন্ত পূর্ব পাকিস্তানে মাথাপিছু বার্ষিক গড় আয় ছিল মাত্র ৪৫০ টাকা (বর্তমানের হিসাবে ৫.৩০ ডলার)। জনগোষ্ঠী একটা বিশাল অংশ অপুষ্টিতে ভুগছিল। শিক্ষিতের হার ছিল মাত্র ১৭। ১৯৪৯-৫০ এবং ১৯৬৯-৭০ অর্থবছর পর্যন্ত মাথাপিছু গড় আয় ০.৭ শতাংশ বৃদ্ধি পেতে পারত। কিন্তু, পঞ্চাশের দশকে বাংলাদেশের মাথাপিছু বার্ষিক গড় আয় কমে ০.৩ শতাংশ নেমে যায়।

বাংলাদেশে মাথাপিছু দুধ, স্নেহ, তেল, মাছ ও অন্যান্য প্রোটিন গ্রহণের হার ছিল অনেক কম। ১৯৭২ সালের মার্চে, পিসি ভেরমা ইকোনমিক অ্যান্ড পলিটিকাল উইকলি জার্নালে লিখেছিলেন, ‘গত ২৪ বছরে, বাংলাদেশ যখন পাকিস্তানের অংশ ছিল, তখন এর অর্থনীতি স্থবির হয়ে পড়েছিল। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সররকারের নীতির কারণে বাংলাদেশের অর্থনীতি ছিল পশ্চাদমুখী (পৃষ্ঠা ৫৮০)।’ তখন বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সূচক ছিল ভয়ানক কম। তা ছাড়া পাকিস্তানের কেন্দ্রীর সরকারের বৈশ্বিক বাণিজ্য, সহায়তা এবং আঞ্চলিক বাণিজ্যনীতির নেতিবাচক প্রভাব পড়েছিল বাংলাদেশের অর্থনীতির ওপর।

পশ্চিম পাকিস্তানিদের এই নিপীড়ন, নির্যাতন, অর্থনৈতিক শোষণ ও বৈষম্যের শিকার পূর্ব পাকিস্তানিদের স্বাধীনতা যুদ্ধের মুখে ঠেলে দেয়, যার নেতৃত্বে ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। নয় মাস মুক্তিযুদ্ধের পর ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ স্বাধীন হয়। একাত্তরের যুদ্ধ সংকটকে আরো ঘণীভূত করে। জাতিসংঘের হিসাবে, ক্ষতিগ্রস্ত অবকাঠামো সংস্কারে দরকার ছিল অন্তত ৯৩ কোটি ৮০ লাখ ডলার।

এই পরিস্থিতিতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশ পুনর্গঠনে হাত দেন। যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশটিকে সোনার বাংলায় পরিণত করার কাজ শুরু করেন।

বাস্তবে কাজটি ছিল সত্যিই দুঃসাধ্য। এমনকি তখন অনেকেই বাংলাদেশকে স্থিতিশীল দেশ হিসেবে গড়ে তোলার সম্ভাব্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন। যুক্তরাষ্ট্রের তখনকার পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেনরি কিসিঞ্জার ১৯৭৪ সালে ঢাকা সফরে আসেন। তখন তিনি বাংলাদেশকে ‘তলাবিহীন ঝুড়ি’ বলে মন্তব্য করেছিলেন। আর রাষ্ট্রদূত ইউ অ্যালিক্স জনসন সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশকে বলেছিলন ‘আন্তর্জাতিক ঝুলি’। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর দূরদৃষ্টি ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বের মাধ্যমে এ ধরনের পূর্বাভাসকে ছাপিয়ে যেতে সক্ষম হন।

বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৯ সালের ৪ অক্টোবর দ্য প্রিন্ট-এ এক নিবন্ধে বলেছিলেন, ‘স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়া ছাড়াও, সারা বিশ্বে সবচেয়ে বেশি ধান উৎপাদনে আমরা এখন চতুর্থ স্থানে, পাট উৎপাদনে দ্বিতীয়, আমে চতুর্থ, শাকসবজি উৎপাদনে পঞ্চম ও অভ্যন্তরীণ জলাশয়ে মৎস্য উৎপাদনে চতুর্থ স্থানে রয়েছি।’

বাংলাদেশ ২০০৯ সাল থেকে ৬ শতাংশের বেশি প্রবৃদ্ধি অর্জন অব্যাহত আছে। বাংলাদেশ ২০১৫ সালে নিম্ন-মধ্য আয়ের দেশের স্বীকৃতি পায়। এছাড়া ২০২৪ সালের মধ্যে উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি পেতে জাতিসংঘের বেঁধে দেয়া শর্ত ২০১৮ সালে পূরণ করেছে দেশটি। বাংলাদেশ তৈরি পোশাক রফতানিতে শীর্ষ দেশগুলোর একটি।

এগুলো সত্যিকার অর্থেই বাংলাদেশের বিস্ময়কর অর্জন। এই অগ্রগতির পেছনে চালিকাশক্তি হিসেবে কাজ করেছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদৃষ্টি পরিকল্পনা ও বলিষ্ঠ নেতৃত্ব। একইসঙ্গে লাখো কৃষক, কারখানা শ্রমিক, পোশাক শ্রমিক ও দেশের নানা শ্রেণিপেশার মানুষ কঠোর পরিশ্রম করে দেশের অর্থনীতির চাকাকে সচল রেখেছে।

দারিদ্র্য দূর করায় তাৎপর্যপূর্ণ অগ্রগতির স্বীকৃতি হিসেবে বাংলাদেশ ২০১৩ সালে ‘সাউথ-সাউথ অ্যাওয়ার্’ পেয়েছে। যুক্তরাজ্যভিত্তিক প্রতিষ্ঠান পিডব্লিউসির পূর্বাভাস অনুযায়ী, বাংলাদেশ ২০৫০ সালের মধ্যে বিশ্বের ২৩তম বৃহৎ অর্থনৈতিক শক্তিতে পরিণত হবে। এছাড়া, দ্য গোল্ডম্যান স্যাচ পূর্বাভাস দিয়েছে, ব্রিকসের পর যে ১১টি দেশ (এন ১১) আগামীর পৃথিবীর অর্থনীতি নিয়ন্ত্রণ করবে বাংলাদেশ তার একটি।

দক্ষিণ এশিয়ায় অর্থনৈতিক হাব হয়ে ওঠার সম্ভাবনা বাংলাদেশের রয়েছে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বড় বিনিয়োগকারীদের জন্য ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রস্তুত করা হচ্ছে। এর ফলে লাখো মানুষের কর্মসংস্থানের পাশাপাশি অর্থনীতির উন্নতি হবে। এতে বদলে যাবে দেশের সামগ্রিক আর্থ-সামাজিক অবস্থা। বিদেশি বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করতে ২০১৮ সালে ওয়ান-স্টপ সার্ভিস আইন প্রণীত হয়েছে, যার ফলে বিনিয়োগকারীরা একই পয়েন্ট থেকে সব ধরনের সেবা পাবে।

তা ছাড়া বিনিয়োগের জন্য দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি উদার ও অনুকূল পরিবেশ বিরাজ করছে। বাংলাদেশের জিডিপি ২০০৯ সালে ছিল ১০২ বিলিয়ন ডলার। তা ২০১৯ সালে বেড়ে দাঁড়ায় ৩০২ বিলিয়ন ডলার। সরাসরি বিদেশি নিয়োগও বেড়েছে। ২০০৯ সালে তা ছিল ৭০০ মিলিয়ন ডলার; ২০১৮ সালে বেড়ে দাঁড়ায় ৩৬১৩ মিলিয়ন ডলার।

শেখ হাসিনার সরকার ২০০৯ সালে ক্ষমতায় আসার পর দেশের উন্নয়নের জন্য নানান লক্ষ্য ঠিক করেছে। এর মধ্যে আছে ২০২১ সালে মধ্য-আয়ের দেশের স্বীকৃতি লাভ, ২০৪১ সালে উন্নত দেশে পরিণত হওয়া, ২০৭১ সালের মধ্যে যাদুকরী দেশে রূপান্তর এবং ২১০০ সালের মধ্যে বদ্বীপ পরিকল্পনা বাস্তবায়ন। অনেক বিশ্লেষক মনে করেন, এটি সম্ভব। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য ধারণ করে সামনে এগিয়ে যাচ্ছে।

অনেকেই মনে করেন, শেখ হাসিনার শাসনামলের বর্তমান রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা এবং প্রধান উন্নয়ন সহযোগীদের সহায়তা অব্যাহত থাকলে বাংলাদেশ ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশে পরিণত হবে। বাংলাদেশের জন্য একটি বড় শক্তি হল, ১৭ কোটি জনগণ যাদের ৬০ ভাগের বেশি তরুণ। কর্মশক্তিতে পরিপূর্ণ এই তরুণেরা দেশের সামগ্রিক উন্নয়নে বিপুল ভূমিকা রাখতে সক্ষম।

বিশ্বের জানা দরকার বাংলাদেশ আর ‘তলাবিহীন ঝুড়ি’ বা ‘আন্তর্জাতিক ঝুলি’ নয়। এবং বাংলাদেশ ও এর জনগণ দেশের এই উন্নতিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহযোগিতার বিষয়টিকে আন্তরিকভাবে প্রশংসা করে।

মো. শরীফুল ইসলাম রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের সহকারী অধ্যাপক। বর্তমানে ভারতের নয়াদিল্লির সাউথ এশিয়া ইউনিভার্সিটিতে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের ওপর পিএইচডি করছেন। মডার্নডিপ্লমেসি-তে তার লেখা নিবন্ধটির ভাষান্তর করেছেন মিজান মল্লিক।

শেয়ার করুন