কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে মতবিনিময়

কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে মতবিনিময়

দিনাজপুরে কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে মঙ্গলবার দুপুরে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন সেনাবাহিনীর সদস্যরা

মেজর ইমরান বলেন, ‘কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে প্রথম দিন থেকে সেনাসদস্যরা কাজ করে যাচ্ছেন। ১০ জুলাই দিনাজপুরের বিভিন্ন জায়গায় সেনাবাহিনীর উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ করা হবে।’

দিনাজপুরে কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেছেন সেনাবাহিনীর সদস্যরা।

শহরের পুলিশ লাইনসে মঙ্গলবার দুপুরে মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন দিনাজপুরের কোঅর্ডিনেটর মেজর ইমরান।

এ সময় সদর উপজেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত ক্যাপ্টেন নির্ঝর, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) সচীন চাকমা, দিনাজপুর প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সুব্রত মজুমদার ডলার, দিনাজপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক শাহীন হোসেনসহ জেলায় কর্মরত সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

মতবিনিময় সভায় মেজর ইমরান বলেন, ‘কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে প্রথম দিন থেকে সেনাসদস্যরা কাজ করে যাচ্ছেন। সেনাপ্রধানের নির্দেশে অসহায়দের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করা হচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় ১০ জুলাই দিনাজপুরের বিভিন্ন জায়গায় সেনাবাহিনীর উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ করা হবে।’

মেজর ইমরান আরও বলেন, সদর উপজেলায় সেনাবাহিনীর অতিরিক্ত একটি টিম মঙ্গলবার সকাল থেকে কাজ করছে।

আরও পড়ুন:
শাটডাউন: পঞ্চম দিনে গ্রেপ্তার ৫০৯, জরিমানা ১২ লাখ টাকা
আরও এক সপ্তাহ বাড়ল শাটডাউন
শাটডাউন: পঞ্চম দিন দুপুরেই গ্রেপ্তার ৪২৯
কুমিল্লায় ২৬৮ মামলা, ২৭৯ জনকে জরিমানা
আমিনদের আয় দিনে ৫০০ থেকে কমে ১৫০

শেয়ার করুন

মন্তব্য

অক্সিজেন ব্যাংক নিয়ে করোনা আক্রান্তের পাশে ইউনিভার্সাল এমিটি

অক্সিজেন ব্যাংক নিয়ে করোনা আক্রান্তের পাশে ইউনিভার্সাল এমিটি

‘খাবার বা পানির অভাব হলে কয়েক দিন বেঁচে থাকা যায়, কিন্তু অক্সিজেন ছাড়া এক মুহূর্তও বেঁচে থাকা কল্পনা করা যায় না। তাই আমরা রাত-দিন রোদ-বৃষ্টি উপেক্ষা করে মুমূর্ষু রোগীদের কাছে অক্সিজেন পৌঁছে দিচ্ছি।

করোনাভাইরাস মহামারিতে অক্সিজেন ব্যাংক নিয়ে দরিদ্রদের পাশে দাঁড়িয়েছে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘ইউনিভার্সাল এমিটি ফাউন্ডেশন’।

২০১৫ সালে প্রতিষ্ঠিত সংগঠনটি করোনা পরিস্থিতিতে রোগীদের বিনা মূল্যে অক্সিজেন এবং প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যসামগ্রী দিচ্ছে। খুলনাসহ দেশের বেশ কিছু সংকটময় এলাকায় অক্সিজেন সিলিন্ডার এবং অক্সিমিটার (রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা পরিমাপক যন্ত্র) রোগীদের কাছে পৌঁছে দিয়েছে তারা।

সংগঠনের হেল্পলাইন নম্বরে ফোন করলে ২৪ ঘণ্টায় বিনা মূল্যে অক্সিজেন সেবা পাচ্ছেন রোগীরা। এ ছাড়া মহামারির সময়ে নিম্ন ও মধ্যবিত্ত পরিবারকে নিয়মিত খাদ্যসহায়তাও দিচ্ছে সংগঠনটি।

এমিটি অক্সিজেন ব্যাংকের সমন্বয়ক মাহফুজুর রহমান বলেন, ‘খাবার বা পানির অভাব হলে কয়েক দিন বেঁচে থাকা যায়, কিন্তু অক্সিজেন ছাড়া এক মুহূর্তও বেঁচে থাকা কল্পনা করা যায় না। তাই আমরা রাত-দিন রোদ-বৃষ্টি উপেক্ষা করে মুমূর্ষু রোগীদের কাছে অক্সিজেন পৌঁছে দিচ্ছি। সমাজের বিত্তবানরা এগিয়ে এলে আমাদের কাজটি আরও সহজ হবে।’

উপকারভোগী খুলনার পাইকগাছা উপজেলার বাসিন্দা সেলিম হোসেন বলেন, ‘ইউনিভার্সাল এমিটি ফাউন্ডেশন এই করোনা মহামারির মধ্যে আমাদের অক্সিজেন সিলিন্ডার সরবরাহ না করলে আমার পরিবারের পক্ষে অক্সিজেনের ব্যবস্থা করা অত্যন্ত কঠিন হয়ে পড়ত। আসলেই তারা মানবতার বাহকের মতো আমাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে।’

সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা এবং সভাপতি মেহেদী হাসান বলেন, ‘আমি এবং আমার এমিটি টিম প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে যাচ্ছি যেন খাদ্য, অক্সিজেন এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় সহায়তা নিয়ে আমাদের দেশের অভাবগ্রস্ত মানুষগুলোকে যথাসময়ে সাহায্য করতে পারি।

‘আমরা যদি সরকার এবং দাতা সংগঠনগুলোর সহায়তা পাই, তাহলে ভবিষ্যতে আরও বড় পরিসরে আমাদের কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারব।’

২০১৫ সালে লালমনিরহাটে বন্যাকবলিত মানুষদের সহায়তা দেয়ার ছোট একটি প্রকল্প নিয়ে যাত্রা শুরু করে ইউনিভার্সাল এমিটি। এখন পর্যন্ত তারা ৩০টি ভিন্ন প্রকল্প নিয়ে কাজ করছে।

সংগঠনটির চলমান প্রকল্পগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো ‘ফুড ফর গুড, ‘ইনকাম এইড, ‘সেফ শেল্টার’, ‘লাইফলাইন’, ‘এইড ফর এডুকেশন’, ‘এইড ফর লাইফ’, ‘ফিড এ হাঙরি চাইল্ড’, ‘এমিটি মিল্ক ব্যাংক’, ‘এমিটি মিট ব্যাংক’, ‘উইন্টার কেয়ার’, ‘এনিমেল ওয়েলফেয়ার’, ‘কেয়ার ফর এল্ডার', ‘সেফটি ফর উইমেন’।

এসব প্রকল্পের মাধ্যমে সারা দেশের দুস্থ ও ছিন্নমূল মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে ইউনিভার্সাল এমিটি ফাউন্ডেশন।

আরও পড়ুন:
শাটডাউন: পঞ্চম দিনে গ্রেপ্তার ৫০৯, জরিমানা ১২ লাখ টাকা
আরও এক সপ্তাহ বাড়ল শাটডাউন
শাটডাউন: পঞ্চম দিন দুপুরেই গ্রেপ্তার ৪২৯
কুমিল্লায় ২৬৮ মামলা, ২৭৯ জনকে জরিমানা
আমিনদের আয় দিনে ৫০০ থেকে কমে ১৫০

শেয়ার করুন

বীকন ফার্মাসিউটিক্যালসের বিশ্ব হেপাটাইটিস দিবস পালন

বীকন ফার্মাসিউটিক্যালসের বিশ্ব হেপাটাইটিস দিবস পালন

বীকন ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডের বিশ্ব হেপাটাইটিস দিবস পালন। ছবি: নিউজবাংলা

করোনা পরিস্থিতির কারণে বেশির ভাগ আয়োজনই হয় অনলাইন প্ল্যাটফর্মে। এর মধ্যে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের অংশগ্রহণে ওয়েবিনার, বিভিন্ন মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে হেপাটাইটিস এবং তার প্রতিকার বিষয়ে সচেতনতামূলক কর্মসূচি প্রচার করা হয়।

‘হেপাটাইটিস কান্ট ওয়েট’ শিরোনামে বিশ্ব হেপাটাইটিস দিবস পালন করেছে বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান বীকন ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড।

এ দিবস উপলক্ষে প্রতিষ্ঠানটি বৃহস্পতিবার বিভিন্ন জনসচেতনতামূলক কর্মসূচি আয়োজন করে।

করোনা পরিস্থিতির কারণে বেশির ভাগ আয়োজনই হয় অনলাইন প্ল্যাটফর্মে। এর মধ্যে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের অংশগ্রহণে ওয়েবিনার, বিভিন্ন মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে হেপাটাইটিস এবং তার প্রতিকার বিষয়ে সচেতনতামূলক কর্মসূচি প্রচার করা হয়।

এ ছাড়া হেপাটাইটিস বি ও সি-এর জটিলতা-প্রতিকার নিয়ে চিকিৎসকদের সরাসরি অংশগ্রহণে দেশের শীর্ষস্থানীয় টিভি চ্যানেলগুলােতে ধারাবাহিক অনুষ্ঠান হয়।

এ বাদে প্রখ্যাত গ্যাস্ট্রোএন্টারােলজিস্ট শেখ রাসেল জাতীয় গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতালের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক প্রফেসর ফারুক আহমেদের উপস্থিতিতে বিশেষ আলোচনা অনুষ্ঠান হয়। তাতে উপস্থিত ছিলেন বীকন ফার্মাসিউটিক্যালসের কর্ণধার মোহাম্মদ এবাদুল করিম ও প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তারা।

আরও পড়ুন:
শাটডাউন: পঞ্চম দিনে গ্রেপ্তার ৫০৯, জরিমানা ১২ লাখ টাকা
আরও এক সপ্তাহ বাড়ল শাটডাউন
শাটডাউন: পঞ্চম দিন দুপুরেই গ্রেপ্তার ৪২৯
কুমিল্লায় ২৬৮ মামলা, ২৭৯ জনকে জরিমানা
আমিনদের আয় দিনে ৫০০ থেকে কমে ১৫০

শেয়ার করুন

অনাহারীদের পাশে একদল স্বেচ্ছাসেবী যুবক

অনাহারীদের পাশে একদল স্বেচ্ছাসেবী যুবক

জাকির হোসেন মিয়াজী জানান, তারা নিজেদের জমানো টাকায় চাল, ডাল, ডিম, সবজিসহ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কেনেন। নিজেরাই করছেন রান্না। তারপর আশপাশের দরিদ্র মানুষকে পৌঁছে দিচ্ছেন সেই খাবার।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে চলমান শাটডাউনে কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে একদল স্বেচ্ছাসেবী যুবক।

প্রতিদিন তারা পাঁচ শতাধিক মানুষের হাতে এক বেলার খাবার তুলে দিচ্ছে। শাটডাউন শেষ না হওয়া পর্যন্ত চলবে তাদের এই কার্যক্রম।

এই কার্যক্রমের উদ্যোক্তা শহরের কোড়ালিয়া এলাকার জাকির হোসেন মিয়াজী, অপু পাটোয়ারী, মামুন হাওলাদার। তাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন এলাকার বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা।

জাকির হোসেন মিয়াজী জানান, তারা নিজেদের জমানো টাকায় চাল, ডাল, ডিম, সবজিসহ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কেনেন। নিজেরাই করছেন রান্না। তারপর আশপাশের দরিদ্র মানুষকে পৌঁছে দিচ্ছেন সেই খাবার।

অনেকে আবার তাদের কাছে এসেও নিয়ে যান এক বেলার খাবার।

অপু পাটোয়ারী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘প্রতিদিনই শনাক্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে। কিন্তু পেটের দায়েই মানুষকে বের হতে হয়। তাই আমরা চেষ্টা করছি অনাহারী মানুষের কাছে খাবার পৌঁছে দিতে যাতে তারা ঘরে থাকে।’

অনাহারীদের পাশে একদল স্বেচ্ছাসেবী যুবক

প্রথমে তিনশ মানুষের মাঝে খাবার বিতরণ করা হলেও এখন দেয়া হচ্ছে পাঁচশ মানুষকে। বিত্তবানদের সহায়তা পেলে আরও মানুষের খাবারের ব্যবস্থা করা যাবে বলে জানান এই যুবকরা।

এই যুবকদের সঙ্গে যোগ দেয়া স্কুলছাত্র আহসান হাবীব লিমন জানান, করোনার কারণে দীর্ঘদিন ধরে তাদের স্কুল বন্ধ। এই অবসর সময়টা বাজে কাজে ব্যয় না করে মানুষের কল্যাণে কাজ করতে পেরে অনেক ভালো লাগছে।

স্বেচ্ছাসেবী যুবকদের এই উদ্যোগে খুশি এলাকার লোকজন।

কোড়ালিয়া এলাকার ফ্রুটন পাটোয়ারী জানান, এই যুবকরা যেভাবে মানুষের কল্যাণে কাজ করছে তা অত্যন্ত প্রশংসনীয়। গত বছর অনেক বিত্তবান ব্যক্তি, সামাজিক ও রাজনৈতিক সংগঠন অসহায় মানুষের কল্যাণে এগিয়ে এসেছিলেন। এবার তাদের তেমন দেখা যাচ্ছে না।

এই স্বেচ্ছাসেবীদের কল্যাণে অনেকের খাবারের ব্যবস্থা হচ্ছে। তাদের মতো প্রতিটি এলাকার যুবকরা যদি এগিয়ে আসতো তাহলে মানুষকে খাবারের কষ্টে থাকতে হতো না।

এ বিষয়ে চাঁদপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র হেলাল উদ্দিন বলেন, ‘যুব সমাজের স্বেচ্ছা শ্রমের মাধ্যমে খেটে খাওয়া মানুষের পাশে দাঁড়ানোটা অত্যন্ত প্রশংসনীয় উদ্যোগ। এই কার্যক্রমকে এগিয়ে নিতে চাঁদপুর পৌরসভা ও আমার ব্যক্তিগত সহায়তা থাকবে তাদের জন্য।

‘পাশাপাশি সমাজের বিত্তবান মানুষদেরও যার যার সাধ্য অনুযায়ী অসহায় মানুষের কল্যাণে এগিয়ে আসার আহ্বান জানাই।’

আরও পড়ুন:
শাটডাউন: পঞ্চম দিনে গ্রেপ্তার ৫০৯, জরিমানা ১২ লাখ টাকা
আরও এক সপ্তাহ বাড়ল শাটডাউন
শাটডাউন: পঞ্চম দিন দুপুরেই গ্রেপ্তার ৪২৯
কুমিল্লায় ২৬৮ মামলা, ২৭৯ জনকে জরিমানা
আমিনদের আয় দিনে ৫০০ থেকে কমে ১৫০

শেয়ার করুন

ঝিকরগাছার ইউএনওর সঙ্গে পড়শির প্রতিনিধিদলের সাক্ষাৎ

ঝিকরগাছার ইউএনওর সঙ্গে পড়শির প্রতিনিধিদলের সাক্ষাৎ

সম্প্রতি ঝিকরগাছার ইউএনও মাহবুবুল হকের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছে সামাজিক সংগঠন পড়শির প্রতিনিধিদল। ছবি: নিউজবাংলা

‘তুমি আমি দুই ঘর, সুখে-দুঃখে পরস্পর’ স্লোগানে ২০১০ সালে আমিনী গ্ৰামের কিছু শিক্ষিত যুবকের উদ্যোগে গড়ে ওঠে সামাজিক ও অরাজনৈতিক সংগঠন ‘পড়শি’। এর লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য বিপদ-আপদে গ্রামের মানুষের পাশে দাঁড়ানো।

যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাহবুবুল হকের সঙ্গে সম্প্রতি সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছে সামাজিক সংগঠন ‘পড়শি’র প্রতিনিধিদল।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ফয়সাল হুসাইনের নেতৃত্বে পড়শির চার সদস্যের প্রতিনিধিদলে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সাইফুল্লাহ মুনছুর, সরকারি এম এম কলেজের শিক্ষার্থী মুহব্বত আলী শান্ত ও মনিরুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

‘তুমি আমি দুই ঘর, সুখে-দুঃখে পরস্পর’ স্লোগানে ২০১০ সালে আমিনী গ্ৰামের কিছু শিক্ষিত যুবকের উদ্যোগে গড়ে ওঠে সামাজিক ও অরাজনৈতিক সংগঠন পড়শি। এর লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য বিপদ-আপদে গ্রামের মানুষের পাশে দাঁড়ানো।

এ সময় প্রতিনিধিদল ইউএনওর কাছে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত পড়শির কার্যক্রম তুলে ধরে।

গণমাধ্যমে পড়শিকে নিয়ে করা বিভিন্ন প্রতিবেদন পড়েছেন জানিয়ে ইউএনও মাহবুবুল হক করোনাভাইরাস প্রতিরোধ ও জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে পড়শির বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের প্রশংসা করেন।

এ সময় তিনি নির্বিঘ্ন কর্মপরিচালনায় পড়শির যত ধরনের সহযোগিতার প্রয়োজন তা নিশ্চিতের আশ্বাস দেন।

পড়শির সদস্য ও স্কয়ার ট্রয়লেট্রিজের সিনিয়র অফিসার জাহিদ আল ইমরান বলেন, ‘এটি পড়শির জন্য অনেক বড় পাওয়া। এমন ইতিবাচক কাজের ধারা চলমান রেখে ভবিষ্যতে এ সংগঠনের সেবার পরিধি আরও বাড়ানো হবে।’

পড়শির যেসব সদস্য অর্থ, মেধা ও শ্রম দিয়ে সংগঠনটিকে পরিচালনা করছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন পড়শির আরেক সদস্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন।

আরও পড়ুন:
শাটডাউন: পঞ্চম দিনে গ্রেপ্তার ৫০৯, জরিমানা ১২ লাখ টাকা
আরও এক সপ্তাহ বাড়ল শাটডাউন
শাটডাউন: পঞ্চম দিন দুপুরেই গ্রেপ্তার ৪২৯
কুমিল্লায় ২৬৮ মামলা, ২৭৯ জনকে জরিমানা
আমিনদের আয় দিনে ৫০০ থেকে কমে ১৫০

শেয়ার করুন

মেনস্ট্রুয়াল কাপ নিয়ে ট্যাবু ভাঙতে আলোচনা

মেনস্ট্রুয়াল কাপ নিয়ে ট্যাবু ভাঙতে আলোচনা

‘সঠিক মাসিক স্বাস্থ্যবিধি ব্যবস্থাপনা একটি প্রয়োজনিয়তা। আমাদের প্রত্যেকের দায়িত্ব এমন একটা নিরাপদ পরিবেশ গড়ে তোলা, যেখানে এসব ব্যাপার নিয়ে আলোচনা করা যাবে এবং সচেতনতা তৈরি হবে।’

ঋতুস্রাবের সময় স্যানিটারি ন্যাপকিনের বিকল্প পণ্য হিসেবে মেনস্ট্রুয়াল কাপের ব্যবহার নিয়ে ট্যাবু ভাঙতে হয়ে গেল ‘কিপিং আপ উইথ দ্যা কাপ’ নামের একটি অনলাইন ক্যাম্পেইন।

‘স্বয়ং’ ও ‘টক পিরিয়ড, বাংলাদেশ’ নামের ফেসবুকভিত্তিক সচেতনামূলক সংগঠন ফেসবুকে এই ক্যাম্পেইনের আয়োজন করে। ‘কিপিং আপ উইথ দ্যা কাপ’ নামের চার পর্বের ক্যাম্পেইন সিরিজের শেষ পর্বটি ছিল ‘আঙ্গুর ফল টক’। ফেসবুকে এটি প্রচার হয় রোববার রাতে।

এই পর্বে আলোচনার মূল বিষয় ছিল ঋতুস্রাবের সময় মেনস্ট্রুয়ালের কাপের ব্যবহার। এ নিয়ে প্রচলিত ভুল ধারণা ও ব্যবহারের সঠিক পদ্ধতি নিয়ে কথা বলেন টক পিরিয়ড, বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা আবরেশমি আনিকা চৌধুরী, স্বয়ংয়ের সদস্য ও চিকিৎসক জান্নাতুল রায়হান আইনান, প্রজেক্ট দেবী নামের আরেক সংগঠনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মুহাম্মদ আবরার ও বহ্নিশিখা-আনলার্ন জেন্ডার নামের আরেক সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা তাসাফ্ফী হোসেন।

ক্যাম্পেইনে মেনস্টুয়াল কাপ ব্যবহারকারীদের অভিজ্ঞতাও তুলে ধরা হয়। ইনফোগ্রাফিক্সের মাধ্যমে এ সংক্রান্ত নানা তথ্য জানানো হয়।

টক পিরিয়ড, বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা আবরেশমি আনিকা চৌধুরী বলেন, ‘সঠিক মাসিক স্বাস্থ্যবিধি ব্যবস্থাপনা একটি প্রয়োজনিয়তা। আমাদের প্রত্যেকের দায়িত্ব এমন একটা নিরাপদ পরিবেশ গড়ে তোলা, যেখানে এসব ব্যাপার নিয়ে আলোচনা করা যাবে এবং সচেতনতা তৈরি হবে।’

আরও পড়ুন:
শাটডাউন: পঞ্চম দিনে গ্রেপ্তার ৫০৯, জরিমানা ১২ লাখ টাকা
আরও এক সপ্তাহ বাড়ল শাটডাউন
শাটডাউন: পঞ্চম দিন দুপুরেই গ্রেপ্তার ৪২৯
কুমিল্লায় ২৬৮ মামলা, ২৭৯ জনকে জরিমানা
আমিনদের আয় দিনে ৫০০ থেকে কমে ১৫০

শেয়ার করুন

নবজাতকের আগমনে চারা উপহার

নবজাতকের আগমনে চারা উপহার

'সবাইকে সালাম ও শুভেচ্ছা। চট্টগ্রাম ফটিকছড়ি উপজেলার দাঁতমারা ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডে ১ আগস্ট থেকে কোনো শিশু জন্ম নিলে, তার পরিবারকে আমার পক্ষ থেকে দুটি উচ্চ ফলনশীল ফলের চারা উপহার হিসেবে দেব ইনশাআল্লাহ।’

গাছের চারা রোপনে নানা উদ্যোগ নেয়া হলেও, এবার ভিন্ন উপায় বেছে নিয়েছেন চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার ভূজপুর দাঁতমারা ইউনিয়নের বাসিন্দা তৌহিদ আলম।

ঘোষণা দিয়েছেন সন্তান জন্ম দিলে মা-বাবাকে দুটি ফলজ গাছের চারা উপহার দেবেন তিনি।

তৌহিদুল আলম নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে গত ৩১ জুলাই এই ঘোষণা দেন।

সেখানে তিনি লেখেন 'সবাইকে সালাম ও শুভেচ্ছা। চট্টগ্রাম ফটিকছড়ি উপজেলার দাঁতমারা ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডে ১ আগস্ট থেকে কোনো শিশু জন্ম নিলে, তার পরিবারকে আমার পক্ষ থেকে দুটি উচ্চ ফলনশীল ফলের চারা উপহার হিসেবে দেব ইনশাআল্লাহ। উক্ত ওয়ার্ডে জন্ম নেয়া সকল শিশুর পিতা-মাতাকে সন্তান জন্মের পয়তাল্লিশ দিনের মধ্যে যোগাযোগ করার অনুরোধ করছি।’

বৃক্ষপ্রেমী তৌহিদ বলেন, ‘শুধু ফলজ চারা নয়, শিশুর মা-বাবাকে আমার সামর্থ অনুযায়ী অর্থও দেব।’

এমন উদ্যোগ কেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘দেশের অনেক শিশু পুষ্টিহীনতায় ভোগে। তাই শিশুর মা-বাবাকে যদি ফলের চারা উপহার দেই, আর তারা যদি গাছগুলোর সঠিক পরিচর্যা করে, তাহলে শিশু বেড়ে উঠার সঙ্গে সঙ্গে গাছগুলো ফল দিতে শুরু করবে। সে ফল শিশুটি খেতে পারবে। ইতোমধ্যে কয়েকজনকে আমি এই উপহার দিয়েছি। প্রথম পর্যায়ে নিজের ওয়ার্ডে দিচ্ছি, পরে ইউনিয়ন পর্যায়ে দেয়ার ইচ্ছা আছে।’

আরও পড়ুন:
শাটডাউন: পঞ্চম দিনে গ্রেপ্তার ৫০৯, জরিমানা ১২ লাখ টাকা
আরও এক সপ্তাহ বাড়ল শাটডাউন
শাটডাউন: পঞ্চম দিন দুপুরেই গ্রেপ্তার ৪২৯
কুমিল্লায় ২৬৮ মামলা, ২৭৯ জনকে জরিমানা
আমিনদের আয় দিনে ৫০০ থেকে কমে ১৫০

শেয়ার করুন

চকরিয়ায় করোনা সুরক্ষা বুথের উদ্বোধন

চকরিয়ায় করোনা সুরক্ষা বুথের উদ্বোধন

টান দিলেই মাস্ক, চাপ দিলেই স্যানিটাইজার শিরোনামে ফ্রি মাস্ক ও স্যানিটাইজার বিতরণের জন্য ইয়ুথ এক্সপ্রেস বাংলাদেশের উদ্যোগে এই বুথ চালু করা হয়েছে।

কক্সবাজারের চকরিয়ায় তৈরি হয়েছে করোনা সুরক্ষা বুথ।

চকরিয়া থানা প্রাঙ্গণে রোববার বেলা তিনটার দিকে এই বুথ উদ্বোধন করেন চকরিয়া পেকুয়া সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার তফিকুল ইসলাম।

টান দিলেই মাস্ক, চাপ দিলেই স্যানিটাইজার শিরোনামে ফ্রি মাস্ক ও স্যানিটাইজার বিতরণের জন্য ইয়ুথ এক্সপ্রেস বাংলাদেশের উদ্যোগে এই বুথ চালু করা হয়েছে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাকের মোহাম্মদ যোবায়ের, ইয়ুথ এক্সপ্রেস বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা রাগীব আহসান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিটের আহ্বায়ক সাকিব বিন সোয়েব ও চকরিয়া ইউনিটের আহ্বায়ক ইব্রাহীম খলিল সালমান।

আরও পড়ুন:
শাটডাউন: পঞ্চম দিনে গ্রেপ্তার ৫০৯, জরিমানা ১২ লাখ টাকা
আরও এক সপ্তাহ বাড়ল শাটডাউন
শাটডাউন: পঞ্চম দিন দুপুরেই গ্রেপ্তার ৪২৯
কুমিল্লায় ২৬৮ মামলা, ২৭৯ জনকে জরিমানা
আমিনদের আয় দিনে ৫০০ থেকে কমে ১৫০

শেয়ার করুন