× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য

চাকরি-ক্যারিয়ার
Bangladeshi workers are going to South Korea again
hear-news
player
print-icon

আবার দক্ষিণ কোরিয়া যাচ্ছে বাংলাদেশি কর্মী

আবার-দক্ষিণ-কোরিয়া-যাচ্ছে-বাংলাদেশি-কর্মী দক্ষিণ কোরিয়ায় যাচ্ছে প্রবাসী শ্রমিকদের একটি দল। ছবি: সংগৃহীত
করোনায় দুই বছর বন্ধ থেকে পুনরায় চালু হওয়ার পর এখন পর্যন্ত মোট এক হাজার ৪৪৭ জন বাংলাদেশি কর্মী কোরিয়াতে গেছেন। চলতি মাসে বাংলাদেশি কর্মীদের আরও তিনটি ব্যাচ কোরিয়াতে যাবে।

করোনা মহামারির প্রকোপ কমায় ও করোনা নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশ বিশ্বের প্রথম সারিতে থাকায় আবার বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিয়োগ শুরু করেছে দক্ষিণ কোরিয়া।

করোনা মহামারির কারণে ২০২০ সালের মার্চ মাসে বিদেশি কর্মী গ্রহণ স্থগিত করেছিল দেশটির সরকার।

সোমবার প্রবাসী শ্রমিকদের একটি দল দক্ষিণ কোরিয়ায় যায়।

দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত লি জাং-কুন এবং প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমেদ ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ১২৩ জনকে বিদায় জানান। এদের মধ্যে ১০৯ জন নবীন এবং বাকি ১৪ জন আগেও দেশটিতে গেছেন।

পুনরায় চালু হওয়ার পর এখন পর্যন্ত মোট এক হাজার ৪৪৭ জন বাংলাদেশি কর্মী কোরিয়াতে গিয়েছেন বলে জানিয়েছে ঢাকার কোরিয় দূতাবাস।

২০২১ সালের ডিসেম্বরে কোরিয়া এমপ্লয়মেন্ট পারমিট সিস্টেমের (ইপিএস) মাধ্যমে এটি ছিল কোরিয়ায় বাংলাদেশের শ্রমিকদের ১৪ তম ব্যাচ।

ওই বছরের ডিসেম্বরে ১১১ জন, ২০২২ সালের জানুয়ারিতে ১৩০ জন, ফেব্রুয়ারিতে ২০৮ জন, মার্চে ২১৮ জন, এপ্রিলে ৬৫৭ জন এবং মে মাসে ১২৩ জন বাংলাদেশি ইপিএস কর্মী কোরিয়ায় গেছেন।

বিদায় অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রদূত লি বাংলাদেশি কর্মীরা তার দেশে তাদের অভীষ্ট লক্ষ্য ও স্বপ্ন পূরণ করতে পারবে বলে আশা করেন।

ইপিএস কর্মীরা কয়েক দশক ধরে দক্ষিণ কোরিয়া ও বাংলাদেশের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক জোরদারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে উল্লেখ করে রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘বাংলাদেশ ও দক্ষিণ কোরিয়ার জনগণের মধ্যে অংশীদারত্ব আরও গভীর এবং শক্তিশালী হবে।’

চলতি মাসে বাংলাদেশ কর্মীদের আরও তিনটি ব্যাচ কোরিয়াতে যাবে। ২০০৭ সালে দুই দেশের মধ্যে ইপিএস এমওইউ হওয়ার পর থেকে ইপিএস কর্মসূচির আওতায় ২৩ হাজার ৪০০ জনের বেশি বাংলাদেশি কর্মী কোরিয়ায় পাঠানো হয়েছে।

ইপিএস প্রোগ্রামের মাধ্যমে বাংলাদেশসহ ১৬টি দেশ থেকে মাঝারি ও স্বল্প-দক্ষ বিদেশি শ্রমিকদের নিচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়া। তবে করোনা মহামারির কারণে দক্ষিণ কোরিয়ান সরকার দুই বছরেরও বেশি সময় ধরে ইপিএস কর্মী নেয়নি।

যেসব দেশ শ্রমিক পাঠায়, তাদের পাশাপাশি নিয়োগকারীদের কাছ থেকে পাওয়া ক্রমাগত অনুরোধ বিবেচনা করে দক্ষিণ কোরিয় সরকার ২০২১ সালের নভেম্বর থেকে সীমিত পরিসরে এবং পরে পুরোদমে কর্মী নিয়োগ শুরু করে।

আরও পড়ুন:
খুলল কোরিয়ার বন্ধ দুয়ারও

মন্তব্য

আরও পড়ুন

চাকরি-ক্যারিয়ার
Winners of the Apo F21 Pro Selfie Contest

অপো এফ২১ প্রো সেলফি প্রতিযোগিতায় বিজয়ী যারা

অপো এফ২১ প্রো সেলফি প্রতিযোগিতায় বিজয়ী যারা অপো বাংলাদেশের কর্মকর্তার সঙ্গে সেলফি কনটেস্টে বিজয়ী তিন তরুণ।
অপো এফ২১ প্রো ফোনটিতে রয়েছে সনির আইএমএক্স৭০৯ সেলফি সেন্সর ও আরজিবিডব্লিউ প্রযুক্তি। ডিভাইসটি দিয়ে ব্যবহারকারীরা চমৎকার সব সেলফি তুলতে পারবেন।

অপো এফ২১ প্রো ব্যাকলাইট সানসেট সেলফি কনটেস্ট বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করেছে প্রতিষ্ঠানটি। অপো ফ্যানস ও ব্যবহারকারীদের জন্য এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করে স্মার্টফোন ব্র্যান্ডটি।

সোমবার প্রতিষ্ঠানটি এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিজয়ীদের নাম জানিয়েছে। সে সঙ্গে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কারও তুলে দিয়েছে অপো।

প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারীদের কাছ থেকে ব্যাপক সাড়া পড়ে, পরে তিনজনকে বিজয়ী নির্বাচিত করা হয়। বিজয়ীরা হলেন- আরিফা শবনম, এএসএম শাহরিয়ার হাবীব ও আনিকা নাওয়ার।

বিজয়ীদের হাতে অপো এনকো ডব্লিউ১১ ডায়নামিক হেডফোন ও অপোর ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর সাকিব আল হাসানের স্বাক্ষর করা এফ২১ প্রো টি-শার্ট তুলে দেয়া হয়।

অপো এফ২১ প্রো ফোনটিতে রয়েছে সনির আইএমএক্স৭০৯ সেলফি সেন্সর ও আরজিবিডব্লিউ প্রযুক্তি। ডিভাইসটি দিয়ে ব্যবহারকারীরা চমৎকার সব সেলফি তুলতে পারবেন।

৬৪ মেগাপিক্সেলের ট্রিপল ক্যামেরার সঙ্গে রয়েছে ৩২ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা।

সেলফি ক্যামেরা দিয়ে ছবি তোলার জন্য ব্যবহারকারীদের অনুপ্রাণিত করতে অপো এফ২১ প্রো ব্যাকলাইট সানসেট সেলফি কনটেস্টের আয়োজন করে। প্রতিযোগিতা চলাকালীন ব্যবহারকারীদের সূর্যাস্তের মুহূর্তে ‘পারফেক্ট সেলফি’ তুলে এর মধ্য থেকে সেরা সেলফিগুলো অপো বাংলাদেশের মনোনীত ফেসবুক পেজে জমা দেয়ার আহ্বান জানানো হয়।

অপো বাংলাদেশ অথোরাইজড এক্সক্লুসিভ ডিস্ট্রিবিউটর হেড অফ ব্র্যান্ড লিউ ফেং বলেন, ‘জনপ্রিয় ব্র্যান্ড হিসেবে অপো সব সময় ব্যবহারকারীদের পছন্দের বিষয়গুলোকে অগ্রাধিকার দেয়। তাই ব্যবহারকারীদের উৎসাহ দিতে অপো সেলফি কনটেস্টের আয়োজন করে। অংশগ্রহণকারীদের কাছ থেকে যে সাড়া পেয়েছি তাতে আমরা সত্যিই অভিভূত।’

আরও পড়ুন:
ফ্যাশনপ্রেমীদের জন্য সানসেট অরেঞ্জ অপো এফ২১ প্রো
দেশের বাজারে অপো এফ২১ প্রো
ফাইবারগ্লাস লেদার ডিজাইনের অপো এফ২১ প্রো
দেশে অপোর নতুন স্মার্টফোন এ৭৬
ফোল্ডিং ফোন দেখাল অপো, যুক্ত হলেন সাকিব

মন্তব্য

চাকরি-ক্যারিয়ার
Age difference in case of marriage

ডেটিংয়ে বয়সের ব্যবধান কত হলে বাড়ে উষ্ণতা

ডেটিংয়ে বয়সের ব্যবধান কত হলে বাড়ে উষ্ণতা সম্পর্ক টিকিয়ে রাখতে যুগলের বয়সের ব্যবধান গুরুত্বপূর্ণ। ছবি: সংগৃহীত
বয়সের ব্যবধানের ক্ষেত্রে পুরুষ এবং নারীর মধ্যে কিছুটা ভিন্ন ধারণা রয়েছে। নারীরা তাদের মতো প্রায় একই বয়সী পুরুষকে খোঁজেন। অন্যদিকে পুরুষরা নিজের বয়স বিবেচনায় না রেখেই ২০ বছরের কাছাকাছি নারীকে পছন্দ করেন।

ডেটের জন্য বেছে নেয়া কারও বয়স নিজের বাবা-মায়ের চেয়ে বেশি হলে পশ্চিমের দেশে উপহাস করে বলা হয় ‘হাফ ইওর এজ প্লাস-সেভেন’।

এর অর্থ হলো, ২৮ বছর বয়সের নারী বা পুরুষের ২১ বছরের কম বয়সী কারও সঙ্গে ডেট করা উচিত নয় (২৮-এর অর্ধেক ১৪, আর এর সঙ্গে যোগ হচ্ছে ৭ বছর)। একইভাবে ৫০ বছর বয়সের কেউ ডেটের জন্য ঝুঁকবেন না ৩২ বছরের কম বয়সী কারও দিকে (৫০-এর অর্ধেক ২৫, যোগ ৭)।

ধারণা করা হয়ে থাকে, অনানুষ্ঠানিক এই নিয়ম প্রথম চালু হয় ফ্রান্সে। এরপর প্রজন্ম ধারায় তা চলে আসছে। ব্রিটিশ অর্থনীতিবিদ ও সাংবাদিক সুমাইয়া কেইনস বিষয়টিকে আরও স্পষ্ট করার চেষ্টা করেছেন

তিনি বলছেন, ‘একজন ২২ বছর বয়সীর সঙ্গে ১৮ বছর বয়সীর সম্পর্ক গড়া স্বাভাবিক। তবে একজন ৩৮ বছর বয়সী ব্যক্তির সঙ্গে ২৩ বছর বয়সীর ডেটে যাওয়া ঠিক নয়। সে ক্ষেত্রে বয়স ২৬ সবচেয়ে নিরাপদ। আপনার বয়স যত বেশি হবে, অনুমতিযোগ্য বয়সের ব্যবধান হবে তত বেশি: একজন ৫০ বছর বয়সীর ডেট হতে পারে ৮৬ বছর বয়সীর সঙ্গে।’

সুমাইয়া জানান, বয়সের পার্থ্যকের বিষয়ে পরিষ্কার ধারণা পেতে বিয়েবিচ্ছেদের হার থেকে আয়ু পর্যন্ত পরীক্ষা করেন বিশেষজ্ঞরা।

জনপ্রিয় ডেটিং ওয়েবসাইট- OKCupid-এর সহপ্রতিষ্ঠাতা ক্রিশ্চিয়ান রুডার বলছেন, বয়সের ব্যবধানের ক্ষেত্রে পুরুষ এবং নারীর মধ্যে কিছুটা ভিন্ন ধারণা রয়েছে। নারী ব্যবহারকারীরা তাদের মতো প্রায় একই বয়সী পুরুষকে খোঁজেন।

অন্যদিকে পুরুষরা নিজের বয়স বিবেচনায় না রেখেই ২০ বছরের কাছাকাছি নারীকে পছন্দ করেন। পুরুষ আসলে তরুণ সঙ্গীর খোঁজে এতটাই মত্ত যে তারা বয়সের বড় ব্যবধানকেও পরোয়া করেন না।

পুরুষ কি তবে বুদ্ধিমান?

তাত্ত্বিকভাবে বয়সের কম ব্যবধানের পক্ষে অনেক কারণ আছে। বয়সের ব্যবধান কম হলে, দুজনের শৈশবের অনেক অভিজ্ঞতা (নাটক, টেলিভিশনের অনুষ্ঠান) মিলে যায়। এটা বন্ধন মজবুত করে। এ ছাড়া কৈশোরে বিনা ভাড়ায় বাসে চড়া, জন্মদিনের পার্টির জন্য টাকা জমানোর মতো ছোটখাটো বিষয়গুলোও সম্পর্ক উষ্ণ রাখতে অনেকটাই সাহায্য করে।

তবে কিছু অর্থনীতিবিদ বলছেন, যেসব যুগলের বয়সের ব্যবধান অনেক, তারা নানা সামাজিক সুবিধা ভোগ করতে পারেন।

বয়সের সঙ্গে আয় বাড়ায় বয়স্ক পুরুষের সঙ্গে সম্পর্কে থাকার প্রবণতা নারীদের বেশি। সন্তান জন্মের সময় উপার্জনক্ষম নারীরা কর্মহীন হয়ে পড়েন। এ সময়টায় তারা সঙ্গীর কাছ থেকে বড় সমর্থন পেয়ে থাকেন।

তবে ডেনিশ জমজ বোনের ওপর চালানো এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, যিনি বয়স্ক পুরুষকে বিয়ে করেছেন তার চেয়ে কম ব্যবধানের বয়সের যুগলের গড় উপার্জন খুব একটা কম নয়।

ব্যবধান কম হলে একসঙ্গে থাকার সম্ভাবনা বেশি?

আমেরিকান ম্যাগাজিন আটলান্টিক ২০১৪ সালে দাবি করে, পাঁচ বছর বয়সের ব্যবধান থাকা দম্পতির বিচ্ছেদের সম্ভাবনা ১৮ শতাংশ।

অবশ্য বয়স এবং বিয়েবিচ্ছেদের ভিত্তিতেই কেবল সাবেক এবং বর্তমান আমেরিকান যুগলের ওপর সমীক্ষাটি চালানো হয়েছিল। তাই এটিকে বিশ্বাস করার শক্ত ভিত্তি নেই।

ব্রিটেনের অফিস অফ ন্যাশনাল স্ট্যাটিস্টিকস ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসে বয়স ও বিয়েবিচ্ছেদের ওপর সমীক্ষা চালিয়ে এই যুক্তির শক্ত যোগসূত্র খুঁজে পায়নি। তবে তারা প্রমাণ পেয়েছে ৩০ বছরের পর কোনো নারীর সঙ্গী যদি তার চেয়ে ১০ বছরের ছোট হয়, সে ক্ষেত্রে বিয়েবিচ্ছেদের সম্ভাবনা বেশি।

সাধারণ যুক্তিতে বয়সের বড় ব্যবধান প্রভাব ফেলে বার্ধক্যে। আর তাই ‘বৈধব্য’ এড়িয়ে চলাই হবে বুদ্ধিমানের কাজ। একজন অল্প বয়স্ক, স্বাস্থ্যকর সঙ্গী আপনাকে অন্তত অনেক দিক থেকে সমর্থন দিতে পারে।

স্টকহোম বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক সিভেন ড্রেফালে ডেনমার্কের ৫০ বছরের বেশি বয়সী মানুষের ওপর একটি গবেষণা চালান। এতে দেখা গেছে, যাদের সঙ্গী কম বয়সী, তারা একই বয়সের মানুষের তুলনায় বেশি দিন বাঁচে।

শিক্ষা এবং সম্পদের মতো অতিপ্রয়োজনীয় চাহিদা মেটানোর পরও বয়স্ক জীবনসঙ্গীর বেঁচে থাকার সম্ভাবনা কম। এই সমীক্ষা সব সময় কার্যকর নাও হতে পারে। একজন সুস্থ পুরুষ বিশেষত অল্প বয়সী সঙ্গীদের আকৃষ্ট করার পাশাপাশি বৃদ্ধ বয়সেও চনমনে থাকতে পারে।

তবে রহস্যজনকভাবে এ ঘটনাটি নারীর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য বলে মনে করেন না সিভেন ড্রেফালে। তিনি বলেন, ‘যেসব নারীর স্বামী অল্প বয়স্ক, সেসব নারী তাদের সঙ্গীর ওপর কম নির্ভরশীল।’

ওপরের সব তথ্য বিশ্লেষণে এটা স্পষ্ট যে নারীদের জীবনসঙ্গী হিসেবে এমন কাউকে বেছে নেয়া উচিত যাদের বয়স তাদের খুব কাছাকাছি। অন্যদিকে, পুরুষের উচিত কম বয়সী নারীর সন্ধানে নেমে পড়া।

অবশ্য একজন প্রকৃত অর্থনীতিবিদ বিষয়টি বুঝতে আরও প্রমাণ চাইবেন। সম্ভবত বিভিন্ন বয়সের পার্থক্যের সঙ্গে এলোমেলো দম্পতিদের বৈবাহিক অবস্থানের তুলনা করতে চাইবেন তিনি।

আরও পড়ুন:
‘বিয়েবহির্ভূত সম্পর্কের’ জেরে হত্যায় সমাজ কতটা দায়ী?
ভারতের সঙ্গে সমস্যা আলোচনার মাধ্যমে সমাধান হবে: নৌ প্রতিমন্ত্রী
কথা দেয়ার দিন আজ
বাংলাদেশের সঙ্গে কানেক্টিভিটি বাড়াতে উদ্যোগী ভারত
ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করছে বাহরাইনও

মন্তব্য

চাকরি-ক্যারিয়ার
Can a rival of love be a friend?

প্রেমে প্রতিদ্বন্দ্বী কি বন্ধু হতে পারে?  

প্রেমে প্রতিদ্বন্দ্বী কি বন্ধু হতে পারে?   একজন ‘মেটামোর’ হলেন আপনার সঙ্গীর সঙ্গী, যার সঙ্গে আপনি ডেটিং করছেন না। কিন্তু তারা কি আপনার বন্ধু হতে পারে? ছবি: কটনব্রো, পেক্সেলস
আমরা আমাদের প্রেমিক বা প্রেমিকাকে অন্য কারও সঙ্গে শেয়ার করতে চাই না, সেভাবেই আমাদের সামাজিক প্রশিক্ষণ ঘটেছে। কিন্তু সাইকোথেরাপিস্টরা বলছেন, আপনার সঙ্গী যদি একই সঙ্গে আরও কাউকে বেছে নিয়ে থাকেন, তাহলে ওই অপর ব্যক্তিটিকে বন্ধু ও মিত্র হয়ে হিসেবে বিবেচনা করাই শ্রেয়।

আপনি যার সঙ্গে প্রেম করছেন, তার যদি একই সঙ্গে আরেকটি সঙ্গী থাকে, সেই সঙ্গীকে আপনি শত্রু হিসেবে দেখবেন, এটাই স্বাভাবিক। দুনিয়ার সবাই সেভাবেই দেখে।

তবে সাইকোথেরাপিস্টরা বলছেন, সেই প্রতিদ্বন্দ্বীকে বন্ধু হিসেবে নিতে পারা যায়, নিতে পারাই ভালো। তারা ওই প্রতিদ্বন্দ্বী পুরুষ বা নারীটির (লাভারস লাভার) একটা নাম দিয়েছেন– ‘মেটামোর’। অর্থাৎ, মেটামোর হলো আপনার সঙ্গীর অপর সঙ্গী।

ব্রিটিশ সাইকোথেরাপিস্ট জায়না রাট্টি বলেন, ‘আমরা আমাদের প্রেমিক বা প্রেমিকাকে অন্য কারও সঙ্গে শেয়ার করতে চাই না, সেভাবেই আমাদের সামাজিক প্রশিক্ষণ ঘটেছে । কিন্তু এই মনোভাবকে চ্যালেঞ্জ করলে দেখা যাবে, আমরা রোমাঞ্চ এবং সম্ভাব্য আনন্দ দুটোই পাচ্ছি।’

দুই পক্ষের সম্মতিতে হওয়া প্রতিটা বহুগামী প্রেমের সম্পর্কের ধরন আলাদা। তাই সঙ্গীর সঙ্গী (লাভারস লাভার) লোকটির সঙ্গে আপনার সম্পর্কটাও ভিন্ন হতে পারে। তবে কেন কেউ তার সঙ্গীর সঙ্গীকে বন্ধু হিসেবে নিতে চাইবে?

ব্রিটিশ মনোবিজ্ঞানী লরি বেথ বিসবে বলেন, যদি আপনার সঙ্গী তাকে পছন্দ করে থাকে, তবে ওই ব্যক্তির সঙ্গে আপনার বন্ধুত্বের সম্ভাবনা আছে। কারণ আপনাদের মধ্যে অনেক কিছুতেই মিল, নাহলে আপনার সঙ্গী বা সঙ্গিনী তাকে বেছে নিত না।

জায়না রাট্টি বলেন, আপনি যদি সম্মতির ভিত্তিতে আপনার প্রেমিক বা প্রেমিকাকে অন্যের সঙ্গে ভাগাভাগি করতে রাজি হয়ে থাকেন, যেখানে কার আচরণ কেমন হবে, কে কতদূর যেতে পারবে, সেই সীমারেখা স্পষ্ট করে চিহ্নিত করা থাকে, সে ক্ষেত্রে আপনি কিছু সুবিধাও পেতে পারেন। আপনার সঙ্গীর সঙ্গে ঝগড়াঝাঁটি হলে তখন আপনার ‘মেটামোর’ বা প্রতিদ্বন্দ্বী আপনাকে সান্ত্বনা বা পরামর্শ দিতে পারে।

কীভাবে আপনার প্রেমের প্রতিদ্বন্দ্বীর সঙ্গে বন্ধুত্ব পাতবেন?

বিসবে বলেন, ‘প্রথম যেটা করতে হবে তা হলো মনোগ্যামি হ্যাংওভার কাটানোর চেষ্টা করা। আপনার সঙ্গী অন্য কারও সঙ্গে ডেট করামাত্র সেই ব্যক্তিকে যে আপনি স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনার প্রতিদ্বন্দ্বী বিবেচনা করেন, সেটাই মনোগ্যামি হ্যাংওভার। আপনার মেটামোর আপনার সঙ্গীকে নিয়ে ভেগে যাচ্ছে, এই ভাবনা ত্যাগ করে তাকে বরং আপনার বন্ধু, আপনার পরিবারের সদস্য, সাপোর্টার বা মিত্র হিসেবে বিবেচনা করতে শিখুন।’

একবার এটা করতে পারলে আপনাকে আর বিশেষ কিছুই করতে হবে না। আপনার মেটামোরের সঙ্গে আপনার স্বাভাবিক বন্ধুত্ব গড়ে উঠতে দিন। এটা নিয়ে জোরাজুরি করার কোনো দরকার নেই। ভাবার দরকার নেই, যেহেতু আপনার সঙ্গী তাকে পছন্দ করছে, শুধু সে কারণেই তার সঙ্গে আগবাড়িয়ে বন্ধুত্ব পাতাতে হবে।

বিসবে বলেন, ‘এই সম্পর্কটা অন্যসব বন্ধুর থেকে আলাদা হবে না। আপনার মধ্যে যদি ঈর্ষা এবং নিরাপত্তাহীনতা কাজ করে তবে তা-ই করুক।’

সাইকোথেরাপিস্ট জায়না রাট্টি বলেন, ‘আপনার যদি স্কুলে একাধিক বেস্টফ্রেন্ড থাকে, তবে আপনার সঙ্গীর সঙ্গীদের সঙ্গে বন্ধু হওয়ার জন্য আপনার কাছে ইতোমধ্যে মডেল রয়েছে। আপনাকে পারস্পরিক প্রেমের ধারণা থেকে সরে আসতে হবে। সম্পর্কের জটিল মানসিক জাল থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।’

আপনার সঙ্গীর বন্ধু সম্পর্কে ধারণা স্পষ্ট করুন। ঠিক করুন আপনি কী চান? জানার চেষ্টা করুন তারা কী চায়?

কিছু মানুষ তাদের প্রেমিকার প্রেমিকের সঙ্গে বন্ধুত্ব করতে চায়। কিন্তু তাদের সঙ্গে অন্য সম্পর্কে জড়াতে চায় না। সঙ্গীর সঙ্গে খারাপ সম্পর্ক চলাকালে কোনো জরুরি অবস্থায় সঙ্গীর বন্ধুকে ডাকা যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে আপনার মেটামোর আপনাকে সাহায্য করতে পারে।

সঙ্গীর বন্ধু যদি বন্ধু হতে না চায়!

আপনার মেটামোর যদি আপনাকে বন্ধু হিসেবে নিতে রাজি না থাকেন, তবে তা মেনে নিন। কিছু মানুষ আছে যারা তাদের জীবনে একাধিক মানুষের সঙ্গে সম্পর্কে একেবারেই আগ্রহী না।

বিসবে বলেন, ‘সম্মতি নিয়ে বহুগামী সম্পর্কের কিছু মানুষ একা সময় কাটাতে উপভোগ করে। এর মানে তারা তাদের সঙ্গীকে অন্য কারও সঙ্গে মেশাকে সহজভাবে নিয়েছেন। অন্যদিকে অন্যরা তাদের সঙ্গীর বন্ধুর সঙ্গে সৌহার্দ্যপূর্ণ হতে পারে; কিন্তু ঠিক বন্ধু হতে চায় না। এ ক্ষেত্রেও জোর করা উচিত না।’

সঙ্গীর বন্ধু যদি আপনার সঙ্গে বন্ধুত্ব গড়তে প্রস্তুত না হন কী করবেন?

আপনি যদি বন্ধুত্বের জন্য প্রস্তুত না হন, তবে সেটা খারাপ কিছু না।

বিসবে বলেন, ‘আপনার অনুভূতিগুলোকে ভালো করে বোঝান। ভবিষ্যতে কোনো সম্পর্কের সম্ভাবনা বন্ধ করবেন না। বিষয়গুলো এমনভাবে বলার চেষ্টা করুন, যেন সঙ্গীর বন্ধুর তা খারাপ না লাগে।

‘মন খোলা রাখুন। এমন না যে সঙ্গীর ভালোবাসার মানুষদের সঙ্গে আপনার বন্ধুত্ব গড়ে তুলতে হবে। এই মুহূর্তে তাদের সঙ্গে বন্ধুত্ব না-ও হতে পারে। তবে কোনো না কোনো দিন হতেও পারে। এ সবই বহুগামী এবং সম্মতিমূলক বহুগামী প্রেমের অংশ।’

আরও পড়ুন:
প্রিয় বন্ধুকে কাছে ডেকে নিন আজ
পরিচ্ছন্নতাকর্মী বন্ধুকে বুকে টেনে নিলেন মন্ত্রী
বন্ধু বিদায়...
আড্ডাহীনতার সময়ে বন্ধুত্ব

মন্তব্য

চাকরি-ক্যারিয়ার
Realm 9 with holographic design is coming to the market on Sunday

হলোগ্রাফিক ডিজাইনের রিয়েলমি ৯ বাজারে আসছে রোববার

হলোগ্রাফিক ডিজাইনের রিয়েলমি ৯ বাজারে আসছে রোববার
রিয়েলমি ৯ ডিভাইসে ব্যবহার করা হয়েছে ‘গ্রেডিয়েন্ট যোগ স্টারলাইট’ ডিজাইন, যা অনেক নামি ব্র্যান্ডের প্যাকেজিং কৌশলের সঙ্গে সাদৃশ্যপূর্ণ।

দেশে প্রথম রিপল হলোগ্রাফিক ডিজাইনের মোবাইল ফোন আনছে রিয়েলমি। রিয়েলমি ৯ ফোরজি ফোনটি বাংলাদেশের বাজারে ছাড়া হবে রোববার।

এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, প্রতিষ্ঠানটির হিরো প্রোডাক্ট লাইন নম্বর সিরিজের এ ডিভাইসটির ক্যামেরা পারফরম্যান্স ও ডিজাইন গোটা বিশ্বে তরুণদের মাঝে সাড়া ফেলেছে।

রিয়েলমি ৯ ফোরজি ডিভাইসে বিশ্বের প্রথম রিপল হলোগ্রাফিক ডিজাইন সল্যুশন নিয়ে আসা হয়েছে। বলা হচ্ছে, এর মধ্য দিয়ে ডিজাইন টেকনোলজিতে যোগ হয়েছে নতুন মাত্রা।

রিয়েলমি ৯ ডিভাইসে ব্যবহার করা হয়েছে ‘গ্রেডিয়েন্ট যোগ স্টারলাইট’ ডিজাইন। যা অনেক নামি ব্র্যান্ডের প্যাকেজিং কৌশলের সঙ্গে সাদৃশ্যপূর্ণ।

এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে উন্মোচিত হওয়া কোকাকোলা স্টারলাইট, লুইস ভ্যুইটনের স্টারলাইট অ্যাক্সেসরিজ কালেকশন ও মেইসন মারজিয়েলা এবং স্টোন আইল্যান্ডের ডিজাইনে একই রকম টুইঙ্কলিং স্টার ইফেক্ট ব্যবহার করা হয়েছে এতে।

রিয়েলমি ৯-এর টেক্সচার মরুভূমির বালির পরিবর্তন দ্বারা অনুপ্রাণিত। এই ডায়নামিক ডেজার্ট রিপল ইফেক্ট তৈরির জন্য রিয়েলমি স্বাধীনভাবে ইন্ডাস্ট্রির প্রথম ‘রিপল হলোগ্রাফিক গ্রেডিয়েন্ট কোটিং প্রসেস’ তৈরি করেছে এবং উদ্ভাবনী উপায়ে ‘সুপার কোটিং প্রসেস’ প্রয়োগ করেছে।

এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে টেক্সচারযুক্ত পণ্য তৈরি করার সময় স্যাচুরেটেড ও প্রাণবন্ত রং ফুটিয়ে তোলা সম্ভব।

প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, এই ইফেক্ট অর্জনে কঠিন প্রযুক্তিগত চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছে তারা। ফোনটির বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন পুরুত্ব আছে, সবচেয়ে পুরু এলাকাটি ৪২০ ন্যানোমিটার সাধারণ কালো আবরণের ১০ গুণ পুরুত্বে পৌঁছেছে।

ফিল্মটি যত পুরু হবে তত বেশি বাস্তবসম্মত হবে এবং এর ফলাফলও তত স্বাভাবিক হবে এবং সবশেষ যেটি তৈরি হবে তা হবে আরও টেক্সচারযুক্ত।

ফোনটি সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে রিয়েলমির ওয়েবসাইট (https://www.realme.com/bd/realme-9) ভিজিটের পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:
ঈদে রিয়েলমি ফোন কিনে বালি ভ্রমণ, বাইক জেতার সুযোগ
ঈদের আগে এলো রিয়েলমি সি৩১
দারাজে নববর্ষ ক্যাম্পেইনে মূল্য ছাড়ে রিয়েলমি নারজো ৫০আই
স্বল্প বাজেটে গেইমিং স্মার্টফোন আনল রিয়েলমি
শক্তিশালী গেইমিং প্রসেসরে আসছে নারজো ৫০

মন্তব্য

চাকরি-ক্যারিয়ার
Sumon arrested in jail for leaking recruitment test questions

নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগে গ্রেপ্তার সুমন কারাগারে

নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগে গ্রেপ্তার সুমন কারাগারে
নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগে গ্রেপ্তার সুমন জমাদ্দারকে রিমান্ড শেষে সোমবার ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে পুলিশ। শুনানি শেষে তাকে পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের ‘অফিস সহকারী কাম-কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক গ্রেড-১৬’ পদে নিয়োগ পরীক্ষার (নৈর্ব্যক্তিক প্রশ্ন) প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগে গ্রেপ্তার সুমন জমাদ্দারকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

একদিনের রিমান্ড শেষে সোমবার তাকে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে পুলিশ। এ সময় মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাকে কারাগারে রাখার আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা।

অপরদিকে তার আইনজীবী জামিনের আবেদন করেন।

উভয় পক্ষের শুনানি শেষে মহানগর হাকিম আরাফাতুল রাকিব জামিন আবেদন নাকচ করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

লালবাগ থানার আদালতের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) হেলাল উদ্দিন এ তথ্য জানান।

সুমন জমাদ্দারকে শনিবার আদালতে হাজির করে দশদিন রিমান্ডের আবেদন করে পুলিশ। শুনানি শেষে বিচারক শফি উদ্দিন একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের অফিস সহকারী কাম-কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিকের ৫১৩টি পদে নিয়োগে শুক্রবার এমসিকিউ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এতে ১ লাখ ৮৩ হাজার শিক্ষার্থী অংশ নেন।

ইডেন মহিলা কলেজ কেন্দ্রের দুই নম্বর ভবনের ২২৩৭ নম্বর কক্ষে এই পরীক্ষা চলাকালে একজন পরীক্ষার্থী তার কাছে থাকা প্রবেশপত্রের পেছনে লেখা উত্তর দেখে এমসিকিউ প্রশ্নোত্তরের ঘর পূরণ করছিলেন। দায়িত্বরত শিক্ষিকা ওই পরীক্ষার্থীর কাছে থাকা দুটি প্রবেশপত্র যাচাই করে দেখেন একটি প্রবেশপত্রের পেছনে ছোট আকারে উত্তর লেখা। তিনি বিষয়টি পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষকে জানান। পরে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ওই পরীক্ষার্থী জানান, তিনি পটুয়াখালীর সাইফুল ও টাঙ্গাইলের খোকনসহ অজ্ঞাত আরও ৪/৫ জনের সহায়তায় হোয়াটঅ্যাপের মাধ্যমে তার মোবাইল নম্বরে প্রশ্নের উত্তর পেয়েছেন।

এ ঘটনায় দু’টি প্রবেশপত্র, একটি উত্তরপত্র, একটি প্রশ্নপত্র (ক-সেট) ও একটি মোবাইল ফোনসহ সুমন জমাদ্দারকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ ঘটনায় পরে লালবাগ থানায় মামলা হয়।

আরও পড়ুন:
প্রশ্নফাঁস: উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রূপাসহ রিমান্ডে ১০
প্রশ্নফাঁস চক্রের হোতা সাবেক সেনাসদস্য, জড়িত শিক্ষক-জনপ্রতিনিধি
প্রশ্ন ফাঁস: বুয়েট অধ্যাপকের ব্যাংক হিসাব তলব
এসএসসির প্রশ্ন ফাঁসের নামে প্রতারণা, আটক ৩
প্রশ্নপত্র ফাঁস: মাসে দুই দিন হাজিরার শর্তে জামিন

মন্তব্য

চাকরি-ক্যারিয়ার
US Bangla will make 50 young people pilots

৫০ তরুণ-তরুণীকে পাইলট বানাবে ইউএস-বাংলা

৫০ তরুণ-তরুণীকে পাইলট বানাবে ইউএস-বাংলা
প্রাথমিকভাবে সব পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের মধ্য থেকে নির্বাচিত হবেন ৫০ জন। নির্বাচিতদের ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসের খরচে বিশ্বের খ্যাতনামা ফ্লাইং অ্যাকাডেমিতে পাঠানো হবে। দুই বছর মেয়াদের প্রশিক্ষণ সাফল্যের সঙ্গে করার পর তারা ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসে যোগদান করতে পারবেন।

এসএসসি-এইচএসসি উত্তীর্ণ তরুণ-তরুণীদের পাইলট হওয়ার সুযোগ দিচ্ছে বেসরকারি এয়ারলাইনস ইউএস-বাংলা।

প্রতিষ্ঠানটি এক বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, ইউএস-বাংলার খরচে ৫০ তরুণ-তরুণী পাবেন এ সুযোগ।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, যেসব মেধাবী বাংলাদেশি তরুণ বিজ্ঞান বিভাগে গণিত ও পদার্থবিজ্ঞানসহ এসএসসি, এইচএসসিতে জিপিএ-৫ অথবা এ লেভেলে ন্যূনতম দুই বিষয়ে (গণিত ও পদার্থবিজ্ঞান) গ্রেড-বি পেয়েছেন তারা আবেদনের যোগ্য হবেন।

স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিজ্ঞানের স্নাতকরাও আবেদন করতে পারবেন। আবেদনের সময় বয়স সর্বোচ্চ ২৫ বছর হতে হবে। উচ্চতা হতে হবে ন্যূনতম ৫ ফুট ৪ ইঞ্চি।

বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর সহযোগিতায় ও সার্বিক তত্ত্বাবধানে প্রার্থী নির্বাচনি সব প্রক্রিয়া হবে।

প্রাথমিকভাবে সব পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের মধ্য থেকে নির্বাচিত হবেন ৫০ জন। নির্বাচিতদের ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসের খরচে বিশ্বের খ্যাতনামা ফ্লাইং অ্যাকাডেমিতে পাঠানো হবে।

দুই বছর মেয়াদের প্রশিক্ষণ সাফল্যের সঙ্গে করার পর তারা ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসে যোগদান করতে পারবেন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, শিক্ষার্থী পাইলটদের নির্বাচন প্রক্রিয়ার মধ্যে রয়েছে আইকিউ টেস্ট, লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা এবং প্রয়োজনীয় অন্যান্য পরীক্ষা। কোনো ধরনের তদবির প্রার্থীর অযোগ্যতা হিসেবে বিবেচিত হবে।

অনলাইনে আবেদন করা যাবে usbair.com/career/studentpilot এ ঠিকানায়। আবেদনের শেষ তারিখ ৫ মে।

আরও পড়ুন:
২৬ মার্চ থেকে কলকাতায় দৈনিক ফ্লাইট ইউএস-বাংলার
চেন্নাই ও মালেতে বাড়ছে ইউএস-বাংলার ফ্লাইট
কক্সবাজারে ইউএস-বাংলার দুই কর্মকর্তা বরখাস্ত
মালদ্বীপে ডানা মেলল ইউএস-বাংলা
১৯ নভেম্বর মালেতে পাখা মেলছে ইউএস-বাংলা

মন্তব্য

p
উপরে