× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

রাজধানী
After 10 days there are no passengers of Basal launch in Sadarghat
hear-news
player
print-icon

৯ দিন পর লঞ্চের ভেঁপু, ঢাকা ছাড়ার যাত্রী নেই

৯-দিন-পর-লঞ্চের-ভেঁপু-ঢাকা-ছাড়ার-যাত্রী-নেই
সদরঘাট থেকে খুব বেশি লঞ্চ ছেড়ে যায়নি গন্তব্যে। ছবি: নিউজবাংলা
ভোলাগামী লঞ্চ কর্ণফুলী-২ এর পরিদর্শক রিপন মিয়া বলেন, ‘লঞ্চের যাত্রী ধারণক্ষমতা ৭০০ জন, কিন্তু যাত্রী হয়েছে দেড়শ। সকাল ১০টায় লঞ্চ ছেড়ে যাবে। পরে হয়তো আর জনা পঞ্চাশেক যাত্রী পাব।’

করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে সরকার সারা দেশে ২৩ জুলাই থেকে ১৪ দিনের শাটডাউন ঘোষণা করে। এ সময় সবধরনের কলকারখানা বন্ধ রাখার কথা জানানো হলেও হঠাৎ করে শুক্রবার ঘোষণা আসে রোববার থেকে চালু হচ্ছে রপ্তানিমুখী কারখানা।

এমন ঘোষণার পর শুক্রবার রাত থেকে ঢাকামুখী মানুষের ঢল শুরু হয়। শনিবার সারাদিন দূর-ধূরান্তের জেলা থেকে মানুষ বিভিন্ন যানবাহনে আসতে থাকে। এমন অবস্থায় শনিবার সন্ধ্যার পর সরকার এক দিনের জন্য লঞ্চ ও বাস চলাচলের অনুমতি দেয়।

সেই অনুমতির পর সদরঘাটে বেড়ে যায় কর্মচাঞ্চল্য। ৯ দিন পর ভেঁপু বেজেছে সদরঘাটে। তবে খুব বেশি যাত্রীর আনাগোনা ছিল না লঞ্চ টার্মিনাল এলাকায়।

সদরঘাটে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রোববার সকাল ৭টা থেকে সাড়ে ৮টা পর্যন্ত চাদপুরগামী একটি লঞ্চ টার্মিনাল ছেড়ে গেছে।

বিআইডব্লিউটিএর বেশ কয়েকজন কর্মচারী ও ঘাটে প্রবেশ টিকিট বিক্রেতা আব্দুস সাত্তারের সঙ্গে কথা বলে নিউজবাংলা। তারা জানান, যাত্রী না থাকায় রাতে কোনো লঞ্চ সদরঘাট ছেড়ে যেতে পারেনি। সকাল ৭টা ২০ মিনিটে শুধু চাঁদপুরগামী একটি লঞ্চ গন্তব্যের উদ্দেশে টার্মিনাল ছেড়ে গেছে।

ভোলাগামী লঞ্চ কর্ণফুলী-২ এর পরিদর্শক রিপন মিয়া বলেন, ‘লঞ্চের যাত্রী ধারণক্ষমতা ৭০০ জন, কিন্তু যাত্রী হয়েছে দেড়শ। সকাল ১০টায় লঞ্চ ছেড়ে যাবে। পরে হয়তো আর জনা পঞ্চাশেক যাত্রী পাব।’

তার প্রশ্ন, ‘এতো কম যাত্রী নিয়ে ঘাট ছাড়লে আমাদেরকে মালিক বেতন দেবেন কোথা থেকে?’

লঞ্চের যাত্রীর জন্য হাকডাক থাকলেও যাত্রীদের আনাগোনা খুবই কম।

গতরাতে লঞ্চ চলাচলের ঘোষণা দেয়ার পর লঞ্চগুলোকে ধোঁয়া-মোছার কাজ করে ঘাটে এনে নোঙর করা হয়েছে।

সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালের আশপাশের এলাকায় খুব একটা গাড়ি বা রিকশা দেখা যায়নি। রাস্তা ছিল অনেকটাই ফাঁকা।

আরও পড়ুন:
বাড়িমুখী মানুষের চাপ সদরঘাটে
সকালের সদরঘাট ‘স্বাভাবিক’
সদরঘাট কত দূর?

মন্তব্য

আরও পড়ুন

রাজধানী
Russel unleashed the Viper causing panic

রাসেল ভাইপার অবমুক্ত করায় গড়াই পাড়ে আতঙ্ক

রাসেল ভাইপার অবমুক্ত করায় গড়াই পাড়ে আতঙ্ক শামীম হোসেন নামে এক মাছ শিকারীর জালে ধরা পড়ে সাপটি। ছবি: নিউজবাংলা
বনবিভাগ সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশে যেসব সাপ দেখা যায়, এদের মধ্যে রাসেল ভাইপারই সবচেয়ে বিষাক্ত। এটি বাংলাদেশে চন্দ্রবোড়া বা উলুবোড়া নামেও পরিচিত।

কুষ্টিয়ায় পদ্মা নদীতে ধরা পড়া বিষধর একটি রাসেল ভাইপার সাপ গড়াই নদীতে অবমুক্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে ওই নদী তীরবর্তী অঞ্চলে বসবাসকারীদের মধ্যে।

মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে গড়াই রেল ও সড়ক সেতুর নিচে সাপটিকে অবমুক্ত করা হয়েছে বলে উপজেলা বনবিভাগের কর্মকর্তা আরিফুল ইসলাম নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে পদ্মা নদীতে শামীম হোসেন নামে এক মাছ শিকারীর জালে সাপটি ধরা পড়ে।

শামিম হোসেন বলেন, ‘প্রতিদিনের মতো আজ সকাল ৭টার দিকে নদীতে পাতা দোয়াড় জাল তুলে দেখি একটি অন্যরকম সাপ। প্রথমে অজগর মনে করেছিলাম। পরে বনবিভাগের লোকজন এটিকে বিষাক্ত রাসেল ভাইপার হিসেবে চিহ্নিত করে নিয়ে যায়।’

এদিকে গড়াই নদীতে বিষাক্ত রাসেল ভাইপার সাপটি অবমুক্ত করায় চিন্তিত নদীটির পাড়ে বসবাস করা লোকজন।

কুমারখালী উপজেলা নাগরিক কমিটির সভাপতি মো. আকরাম হোসেন বলেন, ‘পদ্মা থেকে এনে সাপটিকে গড়াইয়ে ছেড়ে দিয়ে লাভ কি হলো? গড়াই নদীপাড়ে লোকালয় বেশি। এটা দায়সারা কাজ হয়েছে। অনেক দূরে কোথাও ফাঁকা স্থানে অবমুক্ত করলে ভাল হতো।’

তিনি আরও বলেন, ‘পরিবেশের ভারসাম্যের জন্য বিলুপ্তপ্রায এই সাপ যেমন টিকিয়ে রাখা দরকার, তেমনি মানুষের নিরাপত্তার কথাও চিন্তা করা উচিত।

রাসেল ভাইপার অবমুক্ত করায় গড়াই পাড়ে আতঙ্ক
গড়াই রেল ও সড়ক সেতুর নিচে সাপটিকে অবমুক্ত করা হয়েছে

এদিকে কুষ্টিয়া বিভাগীয় বন কর্মকর্তা জি এম মোহাম্মদ কবির বলেন, ‘ধারণা করা হচ্ছে সাপটি ভারত থেকে পদ্মা নদী হয়ে এসেছে। জব্দ করার পর গড়াই নদে অবমুক্ত করা হয়। এতে আতঙ্কের কিছু নেই। নদী বেয়ে অন্যত্র চলে যাবে।’

এ বিষয়ে কুমারখালী থানার ওসি কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, ‘এখানে আমাদের কিছু করার নেই। বিষয়টি বনবিভাগের। তারাই ভাল বলতে পারবেন।’

বনবিভাগ সূত্রে জানা গেছে, এর আগেও পদ্মা ও গড়াই নদীতে বেশ কয়েকবার রাসেল ভাইপার সাপ পাওয়া গেছে। পরে সেগুলো নদীর দুর্গম চরে অবমুক্ত করা হয়েছে।

বাংলাদেশে যেসব সাপ দেখা যায়, এদের মধ্যে রাসেল ভাইপারই সবচেয়ে বিষাক্ত। এটি বাংলাদেশে চন্দ্রবোড়া বা উলুবোড়া নামেও পরিচিত।

আরও পড়ুন:
পুকুরপাড়ে সাপের ছোবলে স্কুলশিক্ষকের মৃত্যু
সাপের ছোবলে বউ-শাশুড়ির মৃত্যু
কানের ভেতরে সাপ ঢুকল কীভাবে
দেশের বাজারে এসটিএল ক্ল্যাসিক পাওয়ার সাপ্লাই   
‘মুরগি চোর’ কোলে নিয়ে ক্ষতিপূরণ দাবিতে বনদপ্তরে কৃষক

মন্তব্য

রাজধানী
Chittagong DC warns around Durga Puja

দুর্গাপূজা ঘিরে চট্টগ্রামের ডিসির হুঁশিয়ারি

দুর্গাপূজা ঘিরে চট্টগ্রামের ডিসির হুঁশিয়ারি চট্টগ্রাম নগরীর ষোলশহরে মঙ্গলবার দুপুরে সম্প্রীতি শোভাযাত্রা বের করে জেলা প্রশাসন। ছবি: নিউজবাংলা
চট্টগ্রামের ডিসি বলেন, ‘এবার সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের চেষ্টা করলে বিন্দুমাত্র ছাড় নেই। জনগণকে সঙ্গে নিয়ে দেশবিরোধী কর্মকাণ্ড কঠোর হাতে দমন করা হবে। এ দেশে কোনো অপশক্তি যেনো মাথাচাড়া দিতে না পারে, সে ব্যাপারে সবাইকে সজাগ থাকতে হবে।’

দুর্গাপূজা ঘিরে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্টকারীদের বিন্দুমাত্র ছাড় দেয়া হবে না বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক (ডিসি) মোহাম্মদ মমিনুর রহমান।

চট্টগ্রাম নগরীর ষোলশহরে এলজিইডি মিলনায়তনে মঙ্গলবার দুপুরে জেলা প্রশাসন আয়োজিত সম্প্রীতি সমাবেশে এই হুঁশিয়ারি দেন তিনি।

ডিসি বলেন, ‘কয়েক দিন পরই হিন্দু সম্প্রদায়ের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। এ উৎসব ঘিরে উন্নয়নবিরোধী একটি মহল দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্টের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। গত বছর দুর্গাপূজার সময় কুমিল্লায় ফেসবুকে অপপ্রচার চালিয়ে তারা দেশকে অস্থিতিশীল করতে চেয়েছিল, তা সফল হয়নি।

‘এবার সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের চেষ্টা করলে বিন্দুমাত্র ছাড় নেই। জনগণকে সঙ্গে নিয়ে দেশবিরোধী কর্মকাণ্ড কঠোর হাতে দমন করা হবে। এ দেশে কোনো অপশক্তি যেনো মাথাচাড়া দিতে না পারে, সে ব্যাপারে সবাইকে সজাগ থাকতে হবে।’

সমাবেশের শুরুতে বঙ্গবন্ধুর অসাম্প্রদায়িক সোনার বাংলা গড়ার শপথ বাক্য পড়ান জেলা প্রশাসক। পরে সম্প্রীতি শোভাযাত্রা বের করা হয়।

চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার এসএম শফিউল্লাহ সমাবেশে বলেন, ‘শুধু দুর্গাপূজা নয়, কখনোই কোনো ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়া যাবে না। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখতে হবে। আগামি দুর্গাপূজায় কোনো বিশৃঙ্খল পরিবেশ থাকবে না। পূজামণ্ডপ ঘিরে কেউ নাশকতার পরিকল্পনা বা উসকানি দিলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মো. বদিউল আলম সমাবেশ সঞ্চালনা করেন।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন সিভিল সার্জন মোহাম্মদ ইলিয়াছ চৌধুরী, মহানগর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোজাফফর আহমদ, জেলা ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার একেএম সরোয়ার কামাল দুলু, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মফিজুর রহমান, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ আতাউর রহমান, রাউজান উপজেলা চেয়ারম্যান একেএম এহেছানুল হায়দার চৌধুরী বাবুল।

আরও পড়ুন:
পূজায় এবার যেতে হবে না বাবার বাড়ি, ২ গ্রামে
দেবীপক্ষের সূচনা
পুরান ঢাকায় দুর্গাপূজার প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত কারিগররা
চলছে প্রতিমায় রং তুলির আচড়
পূজার ছুটিতেও পরীক্ষা নেবে ঢাবির আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ

মন্তব্য

রাজধানী
BNPs Tukus statement was angered by Jamaat

বিএনপির টুকুর বক্তব্যে ক্ষেপেছে জামায়াত

বিএনপির টুকুর বক্তব্যে ক্ষেপেছে জামায়াত হাজারীবাগে বিএনপির সমাবেশে ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু জামায়াতে ইসলামী সম্পর্কে নেতিবাচক বক্তব্য দেন। ছবি: নিউজবাংলা
‘জনাব ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু জামায়াতে ইসলামী সম্পর্কে যে রাজনৈতিক শিষ্টাচার বহির্ভূত, অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য প্রদান করেছেন তা দেশবাসীকে বিস্মিত করেছে। এটি কোনো রাজনীতিবিদের ভাষা হতে পারে না। তার এ বক্তব্য স্বৈরাচারী শাসনকে প্রলম্বিত করার ক্ষেত্র তৈরি করবে।’

জামায়াত-আওয়ামী লীগ পরকীয়া চলছে, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকুর এমন বক্তব্যে তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে জামায়াতে ইসলামী। বিএনপি নেতার বক্তব্যকে ‘অশালীন ও রাজনৈতিক শিষ্টাচার বহির্ভূত বলেছে দলটি।

রাজধানীতে বিএনপির সমাবেশ থেকে বক্তব্য আসার পর দিন মঙ্গলবার জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আবদুল হালিম বিবৃতি দিয়ে তার প্রতিবাদ জানান।

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘২৬ সেপ্টেম্বর বিএনপির এক সমাবেশে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য জনাব ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু জামায়াতে ইসলামী সম্পর্কে যে রাজনৈতিক শিষ্টাচার বহির্ভূত, অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য প্রদান করেছেন তা দেশবাসীকে বিস্মিত করেছে। এটি কোনো রাজনীতিবিদের ভাষা হতে পারে না। তার এ বক্তব্য স্বৈরাচারী শাসনকে প্রলম্বিত করার ক্ষেত্র তৈরি করবে।’

আগের দিন রাজধানীর হাজারীবাগে বিএনপির সমাবেশে টুকু বলেন, ‘আওয়ামী লীগের অনেকের মুখে একটা বুলি হয়ে গেছে বিএনপি-জামায়াত, বিএনপি-জামায়াত। আমি বলছি এখন সময় এসেছে, আওয়ামী লীগ-জামায়াত, আওয়ামী লীগ-জামায়াত বলার। জামায়াতও উর্দু, আওয়ামী লীগও উর্দু। দুটো একসঙ্গে মিলবে ভালো। কেননা উনারা জামায়াতের নিবন্ধন ক্যানসেল করেন, কিন্তু বেআইনি ঘোষণা করেন না। তাহলে কি আমি বলব, ওনাদের (জামায়াত-আওয়ামী লীগের) পরকীয়া চলছে?’

টুকু ‘জামায়াত’ শব্দটিকে ‘উর্দু’ ভাষা বলে উল্লেখ করে অজ্ঞতার পরিচয় দিয়েছেন বলে উল্লেখ করা হয় জামায়াতের বিবৃতিতে। এতে বলা হয়, ‘আমরা আশা করছি ভবিষ্যতে এ ধরনের অসংলগ্ন বক্তব্য প্রদান করা থেকে সংশ্লিষ্ট সকলেই বিরত থাকবেন।’

১৯৭১ সালে পাকিস্তানের পক্ষে অস্ত্র ধরা জামায়াতের সঙ্গে বিএনপির জোট চলছে সেই ১৯৯৯ সাল থেকে। সম্প্রতি ধর্মভিত্তিক দলটি আমির শফিকুর রহমান একটি রুকন সম্মেলনে ভার্চুয়ালি অংশ নিয়ে দলের কর্মীদেরকে জানান, বিএনপির সঙ্গে তাদের জোট ভেঙে গেছে। দুই দল যুগপৎ আন্দোলন করবে, কিন্তু জোটে আর নেই।

বিষয়টি রাজনীতিতে তোলপাড় তুললেও বিএনপির পক্ষ থেকে কোনো কিছুই বলা হচ্ছে না। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ বিষয়ে কোনো বক্তব্য না দেয়াকে নিজের গণতান্ত্রিক অধিকার বলেছেন।

টুকু বলেন, ‘আমাদের বলা হচ্ছে বিএনপি-জামায়াত, আর আপনারা আমাদের বলেন স্বাধীনতাবিরোধী দল। আমিও স্বীকার করলাম। কিন্তু নিবন্ধন বাতিল করলেন, বেআইনি ঘোষণা করলেন না। তার অর্থ আওয়ামী লীগ-জামায়াতের সঙ্গে তলে তলে বন্ধুত্ব করে। সেজন্য বাতিল করে না। তাই আজকে থেকে আওয়ামী-জামায়াত হবে, বিএনপি-জামায়াত আর হবে না।’

জামায়াতের বিবৃতিতে টুকুর বক্তব্যের নিন্দা জানিয় বলা হয়, ‘যে মুহূর্তে দেশের সকল গণতান্ত্রিক শক্তি ঐক্যবদ্ধভাবে দেশে গণতন্ত্র ও জনগণের ন্যায্য ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে নির্বাচনকালীন দলনিরপেক্ষ সরকার প্রতিষ্ঠায় বদ্ধপরিকর, সে সময় তার এ বক্তব্য জাতিকে হতাশ করেছে। তার বক্তব্য থেকে প্রতীয়মান হয়, তিনি জনগণের ভাষা বুঝতে অক্ষম এবং তিনি জনগণের ভাষায় কথা বলতে পারেন না। আমরা তার এ বক্তব্যের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।’

জামায়াতের নিবন্ধন নিয়ে টুকুর বক্তব্যের আসল উদ্দেশ্য নিয়েও প্রশ্ন তেলে জামায়াত। বিবৃতিতে বলা হয়, ‘জামায়াতে ইসলামীর নিবন্ধন বাতিল ও বেআইনি ঘোষণা সংক্রান্ত বিষয়ে তার কথা ও মর্মবেদনায় জনগণের মধ্যে প্রশ্ন সৃষ্টি হয়েছে, কার স্বার্থে এবং কাকে সন্তুষ্ট করার জন্য তিনি এ বক্তব্য প্রদান করেছেন? আমরা স্পষ্ট ভাষায় বলতে চাই, জামায়াতে ইসলামী কখনও কোনো আপোষ, গোপন ও ষড়যন্ত্রের রাজনীতিতে বিশ্বাস করে না এবং করার প্রশ্নই আসে না।’

ধর্মভিত্তিক কয়েকটি রাজনৈতিক দলের আবেদনের পর ২০১৩ সালের ১ আগস্ট জামায়াতে ইসলামীর নিবন্ধন বাতিল ও অবৈধ ঘোষণা করে রায় দেন হাইকোর্ট। আট বছর পর ২০১৮ সালের ৮ ডিসেম্বর নির্বাচন কমিশন নিবন্ধন বাতিল করে কোনো প্রজ্ঞাপন জারি করে। জামায়াতের রাজনীতি নিষিদ্ধের দাবিও আছে। তবে সরকার এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি।

আরও পড়ুন:
বন্দুকের নল যে কোনো সময় ঘুরে যাবে: আব্বাস
জামায়াতের জোট ছাড়ার গুঞ্জন স্বীকার বিএনপি নেতার
ফের পেট্রলবোমা ছুড়লে জনগণকে নিয়ে প্রতিরোধ: তথ্যমন্ত্রী

মন্তব্য

রাজধানী
The barrel of the gun will turn any time Abbas

বন্দুকের নল যে কোনো সময় ঘুরে যাবে: আব্বাস

বন্দুকের নল যে কোনো সময় ঘুরে যাবে: আব্বাস ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপি আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশ। ছবি: নিউজবাংলা
গত জুলাই থেকে বিএনপি রাজপথে কর্মসূচি বাড়ানোর পর এখন পর্যন্ত সংঘর্ষে দলটির সহযোগী সংগঠনগুলোর চারজন কর্মী নিহত হয়েছেন। এদের সবাই পুলিশের গুলিতে প্রাণ হারিয়েছেন।

সরকারের প্রতি হুঁশিয়ারি দিয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেছেন, ‘যে বন্দুক দিয়ে বিএনপির নেতাকর্মীদের বুকে রক্ত ঝরাচ্ছেন, সেই নল যে কোনো সময় ঘুরে যাবে৷ এটা বিগত দিনে কোনো স্বৈরাচারি সরকার আগে টের পায়নি, আপনারাও পাচ্ছেন না। তাই সাবধান করছি বন্দুকের নল সামলে রাখুন।’

মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীর বাংলামোটর এলাকার বিয়াম মিলনায়তনের সামনে ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপি আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন বিএনপি নেতা।

জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি, লোডশেডিং, গণপরিবহনের ভাড়া ও নিত্যপণ্যের দ্রব্যের মূল্যবৃদ্ধি, পুলিশের গুলিতে দলের চার নেতা-কর্মীর মৃত্যুর প্রতিবাদে ঢাকা মহানগরীর ১৬টি স্পটে ধারাবাহিক সমাবেশের অংশ হিসেবে এই প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

সমাবেশে যোগ দিতে দুপুর ২ টার পর থেকেই মোটা বাঁশের লাঠির সঙ্গে জাতীয় পতাকা বেঁধে হাতে নিয়ে নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে সমাবেশ স্হলে যোগ দিতে থাকে। এ সময় তারা খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সরকারের বিরুদ্ধে স্লোগান দিতে থাকে।

গত জুলাই থেকে বিএনপি রাজপথে কর্মসূচি বাড়ানোর পর এখন পর্যন্ত সংঘর্ষে দলটির সহযোগী সংগঠনগুলোর চারজন কর্মী নিহত হয়েছেন। এদের সবাই পুলিশের গুলিতে প্রাণ হারিয়েছেন।

মির্জা আব্বাস বলেন, ‘যে বন্দুকের নল দিয়ে গুলি করছেন তাও জনগণের পকেটের টাকা দিয়ে কেনা। তাই বন্দুকের নলের ভয় আর দেখাবেন না।’

তিনি বলেন, ‘আজকে সকল ব্যারিকেড থেকে আমাদের বেরিয়ে এসে ঢাকার অলিতে-গলিতে ছড়িয়ে পড়তে হবে। মিটিং মিছিল করা আমাদের গণতান্ত্রিক অধিকার, এই অধিকার যারা কেড়ে নিতে চায় তাদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। জনগণকে আশ্বস্ত করতে হবে আমরা তাদের পাশে আছি। বিএনপির কমীরা বুক পেতে দিতে শিখেছে। আর ভয় নেই।’

দেশের সব গণতান্ত্রিক কাঠামোগুলোকে ভেঙে ফেলা হয়েছে বলেও অভিযোগ করেন বিএনপি নেতা। বলেন, ‘এসব মেরামত আমাদেরই করতে হবে। কারণ, জনগণ বিএনপির দিকে তাকিয়ে আছে। ৮ হাজার কোটি টাকা দিয়ে যে ইভিএম কিনতে চাওয়া হচ্ছে এই টাকাও বিফলে যাবে।’

নিরপেক্ষ সরকারের দাবি আদায় করেই বিএনপি নিবাচনে যাবে বলেও ঘোষণা দেন আব্বাস। বলেন, ‘সরকার নিরপেক্ষ পরিবেশ তৈরি করে দেখুন বিএনপিকে হারানের ক্ষমতা জনগণকে তাদের দিয়েছে কিনা।’

সভাপতির বক্তব্যে ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক আমানউল্লাহ আমান বলেন, ‘ভোট ডাকাতির ক্ষমতা থেকে জনগণ নামিয়ে আনবে এটা এখন সময়ের দাবি। রাস্তায় নেমে আসুন, এখন থেকে পুলিশ নিরপেক্ষ থাকবে দেখি কাদের শক্তি বেশি।’

তিনি বলেন, ‘পার্লামেন্ট ভেঙে নিদলীয় নিবাচন দিতে হবে, প্রশাসনও নিরপেক্ষ হয়ে যাবে। হাসিনা যদি বিএনপিকে রেখে নির্বাচন করতে চায়, নিবাচন কমিশনপর একটা বিল্ডিয়ের ইট ও থাকবে না।’

সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়াল মিন্টু, দলের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য জয়নাল আবদীন ফারুক, আবুল খায়ের ভুঁইয়া, খালেদা জিয়ার বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, সম্পাদক শহীদ-উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী।

আরও পড়ুন:
জামায়াতের জোট ছাড়ার গুঞ্জন স্বীকার বিএনপি নেতার
ফের পেট্রলবোমা ছুড়লে জনগণকে নিয়ে প্রতিরোধ: তথ্যমন্ত্রী
প্রধানমন্ত্রীর কথার অর্থ গত নির্বাচনগুলো সঠিক ছিল না: মোশাররফ

মন্তব্য

রাজধানী
After 11 years of rape and murder 9 people get life

ধর্ষণের পর হত্যায় ১১ বছর পর ৯ জনের যাবজ্জীবন

ধর্ষণের পর হত্যায় ১১ বছর পর ৯ জনের যাবজ্জীবন
২০১১ সালের মার্চ মাসে সদরের বিষয়খালী গ্রামের ওই গৃহবধূকে তুলে নিয়ে নিয়ে ধর্ষণ করে আসামিরা। তাকে হত্যা করে পালিয়ে যায়।

ঝিনাইদহ সদরে ১১ বছর আগে গৃহবধুকে ধর্ষণের পর হত্যা মামলার রায়ে ৯ আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। একই সঙ্গে প্রত্যেককে ১ লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মিজানুর রহমান মঙ্গলবার দুপুরে এ রায় দেন।

আসামিরা হলেন বিষয়খালী এলাকার মোহাম্মদ রসুল, শরিফুল ইসলাম, আমিরুল ইসলাম, গোলাম রসুল, আব্দুল আজিজ, আজিজুর রহমান, জাহিদুল ইসলাম, বাদশা মিয়া ও আব্দুল বাতেন। এদের মধ্যে শরিফুল ও আমিরুল ইসলাম পলাতক আছেন।

মামলার আরেক আসামি মো. আনোয়ারের মৃত্যু হয়েছে।

২০১১ সালের মার্চ মাসে সদরের বিষয়খালী গ্রামের ওই গৃহবধূকে তুলে নিয়ে নিয়ে ধর্ষণ করে আসামিরা। তাকে হত্যা করে পালিয়ে যায়।

এ হত্যার নিহতের স্বামী পরদিন আসামি করে সদর থানায় মামলা করেন।

মামলার বাদী নিহতের স্বামী বলেন, ‘দীর্ঘদিন পর হলেও বিচার পেয়ে আমরা খুশি। এই রায় যেন কার্যকর হয়।’

আরও পড়ুন:
রাতে শিশুটিকে ডোবায় ফেলে এসে ঘুমিয়ে পড়েন বাবা
স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ধর্ষণের অভিযোগে ওয়ার্ডবয় গ্রেপ্তার
জমি নিয়ে বিরোধে বাবাকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ
প্রতিবেশীর আমবাগানে মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদকের ঝুলন্ত মরদেহ
চুরির অপবাদে যুবককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

মন্তব্য

রাজধানী
I dont have to go to my fathers house in 2 villages for puja

পূজায় এবার যেতে হবে না বাবার বাড়ি, ২ গ্রামে

পূজায় এবার যেতে হবে না বাবার বাড়ি, ২ গ্রামে শারদীয় দুর্গোৎসবকে সামনে রেখে প্রস্তুত হচ্ছে রুটি গ্রামের পূজা মণ্ডপ। ছবি: নিউজবাংলা
আখাউড়া পূজা উদযাপন পরিষদের সদস্য সচিব বিশ্বজিৎ পাল বলেন, ‘এবার আখাউড়ায় ২২টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা উদযাপিত হবে। তবে মূল আকর্ষণ হিসেবে থাকবে মসজিদপাড়া ও রুটি গ্রামের পূজা।’

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলার পৌর এলাকার মসজিদপাড়া আর ধরখার ইউনিয়নের রুটি গ্রাম। প্রতিবছর দুর্গাপূজা এলেই তা উদযাপনের জন্য হিন্দু অধ্যুষিত এ গ্রাম দুটির গৃহবধূরা চলে যেতেন বাবার বাড়ি। কারণ গত পাঁচ দশকেরও বেশি সময় ধরে এ দুটি গ্রামে কোনো দুর্গাপূজা হয়নি।

দীর্ঘ বছর পর এবার ওই দুটি গ্রামে উদযাপিত হতে যাচ্ছে শারদীয় দুর্গোৎসব। দেবী দুর্গার প্রতিমাকে ঠাঁই দিতে গ্রাম দুটির সার্বজনীন পূজা আয়োজনের স্থানে সাজানো হচ্ছে মণ্ডপ।

স্থানীয়রা জানান, স্বাধীনতারও ৪/৫ বছর বছর আগে সর্বশেষ ওই দুটি গ্রামে দুর্গাপূজা উদযাপিত হয়েছে। পরে আর্থিক অসচ্ছলতা, লোকবল আর উদ্যোগের অভাবে অর্ধশত বছরেরও বেশি সময় ধরে দেবী দুর্গার পূজা করতে পারেননি তারা।

এ দুটি গ্রামের বাসিন্দারা তাই অন্য এলাকায় গিয়ে পূজা করতেন। পূজার সময় এলে বাবার বাড়িতে দল বেঁধে রওনা হতেন গৃহবধূদের অনেকেই।

মঙ্গলবার গ্রাম দুটিতে গিয়ে দেখা যায়, পূজা উদযাপন হবে এমন আনন্দে মেতেছেন বাসিন্দারা। সাজ সাজ রব তাদের। পূজার স্থানে চলছে প্যান্ডেল ও মণ্ডপ তৈরির কাজ। নির্মিত হচ্ছে তোরণ। সড়ক থেকে পূজার জন্য নির্ধারিত স্থান পর্যন্ত সরু পথের দুই পাশে থাকবে আলোকসজ্জাও।

তবে শুধু আর্থিক স্বচ্ছলতাই নয়। বাসিন্দারা জানালেন, এবার গ্রাম দুটিতে পূজা উদযাপনে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রেখেছেন আখাউড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌরসভার মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল।

এ বিষয়ে পৌর মেয়র বলেন, ‘দীর্ঘদিন রুটি গ্রামের শশ্মানঘাটের জায়গা বেদখল ছিল। তবে আইনমন্ত্রী সে জায়গাটি উদ্ধার করে হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনকে ফিরিয়ে দিয়েছেন। তাই আমি গ্রামের হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনকে বলেছি- এ বছর পূজা উদযাপন করুন। আমরা সহযোগিতা করবো।’

আখাউড়া পূজা উদযাপন পরিষদের সদস্য সচিব বিশ্বজিৎ পাল বলেন, ‘এবার আখাউড়ায় ২২টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা উদযাপিত হবে। তবে মূল আকর্ষণ হিসেবে থাকবে মসজিদপাড়া ও রুটি গ্রামের পূজা। আশা করি, এখন থেকে প্রতিবছরই এ দুটি গ্রামে পূজা উদযাপিত হবে।’

রুটি গ্রামের গৃহবধূ জোসনা রানী শীল জানান, ২৩ বছর আগে তিনি এ গ্রামটিতে বউ হয়ে এসেছেন। কিন্ত স্বামীর বাড়িতে কোনোদিন দূর্গাপুজার আয়োজন না হওয়ায় পূজার আনন্দ করতে পারেননি।

জোসনা রানীর মতো বকুল রানীও জানালেন, এবার পূজায় তাই বাবার বাড়ি যেতে হবে না তাদের।

আরও পড়ুন:
দেবীপক্ষের সূচনা
পুরান ঢাকায় দুর্গাপূজার প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত কারিগররা
চলছে প্রতিমায় রং তুলির আচড়
পূজার ছুটিতেও পরীক্ষা নেবে ঢাবির আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ
মেহে‌ন্দীগঞ্জে মন্দিরে প্রতিমা ভাঙচুর

মন্তব্য

রাজধানী
Accused absconding from hanging arrested

ফাঁসির পলাতক আসামি গ্রেপ্তার

ফাঁসির পলাতক আসামি গ্রেপ্তার আসামি গ্রেপ্তারের পর র‍্যাবের ব্রিফিং। ছবি: নিউজবাংলা
‘গার্মেন্টে কাজ করতে গিয়ে বন্ধুত্ব হয়েছিল শহিদুল ইসলাম ও শাহিন আলমের। পরে তারা একটি এনজিও খোলেন অংশীদারিত্বে। লোভের বশবর্তী হয়ে এনজিওর পুরো মালিকানা পেতেই শাহিন খুন করেন শহীদুলকে।’

বন্ধুকে হত্যায় ফাঁসির দণ্ড পাওয়া আসামি শাহিন আলমকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব।

প্রায় ৬ বছর আত্মগোপনে থাকা এ আসামিকে সোমবার মানিকগঞ্জ ঘিওর থানার বড়টিয়া এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব-৪।

রাজধানীর কারওয়ানবাজার র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে মঙ্গলবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে আসামি গ্রেপ্তার ও হত্যা মামলার বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন র‍্যাব-৪ এর অধিনায়ক ও পুলিশের উপ মহাপরিদর্শক মো. মোজাম্মেল হক।

তিনি বলেন, ‘গার্মেন্টে কাজ করতে গিয়ে বন্ধুত্ব হয়েছিল শহিদুল ইসলাম ও শাহিন আলমের। পরে তারা একটি এনজিও খোলেন অংশীদারিত্বে। লোভের বশবর্তী হয়ে এনজিওর পুরো মালিকানা পেতেই শাহিন খুন করেন শহীদুলকে। এ মামলায় গ্রেপ্তারের পর শাহিন ও তার সহযোগিরা আদালতে স্বীকারোক্তি দেন। এক পর্যায়ে শাহিন জামিন নিয়ে পালিয়ে যান।’

র‍্যাব জানায়, ৬ বছর ধরে নাম-পরিচয় বদলে আত্মগোপনে ছিলেন শাহিন আলম।

২০০১ সালে আশুলিয়ার একটি গার্মেন্টে চাকরি করার সময় বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে শহীদুল ও শাহিনের। শহীদুল আগে একটি এনজিওতে চাকরি করতেন। সেই সুবাদে দুজনে মিলে এনজিও প্রতিষ্ঠার পরিকল্পনা করেন।

২০০৪ সালে ঢাকা জেলার ধামরাই গোয়াড়ীপাড়ায় একটি অফিস ভাড়া নিয়ে তারা ‘বাংলা সমাজ উন্নয়ন সংস্থা’ নামের সঞ্চয় ও ক্ষুদ্র ঋণদান সংস্থা চালু করেন। গার্মেন্টের চাকরি ছেড়ে তারা এনজিওর কাজ চালাতে থাকেন।

দুজন নারী কর্মী নিয়োগ দিয়ে ধামরাই এলাকায় তারা কার্যক্রম বাড়াতে থাকেন। চারটি প্রোগ্রামে ৪৫০ জন সদস্য সংগ্রহ করে সঞ্চয়, ঋণদান এবং ফিক্সড ডিপোজিট কার্যক্রম চালান।

শহীদুলের দক্ষতায় অল্প সময়ের মধ্যেই লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপ নেয় সংস্থাটি। লোভের ভশে শাহিন নিজের কব্জায় সবকিছু নেয়ার চেষ্টা করেন। তারই এক পর্যায়ে খুন করেন শহীদুলকে।

মামলায় বলা হয়েছে, আসামি শাহিন তার মামাতো ভাই টাঙ্গাইলের সন্ত্রাসী রাজা মিয়াকে নিয়ে শহীদুলকে হত্যার পরিকল্পনা নেন। পরিকল্পনা অনুযায়ী ২০০৬ সালের ২০ মে সন্ধ্যায় শাহিন নিজের বিয়ের জন্য পাত্রী দেখার কথা বলে ধামরাইয়ের ঢুলিভিটা নামক জায়গায় ডেকে নেন শহীদুলকে। সেখানে নম্বরবিহীন মাইক্রোবাস নিয়ে অবস্থান করছিলেন রাজা মিয়া। সাহেদ, কুদ্দুস, বিষ্ণু সুইপার ও ড্রাইভার রহম আলী ছিলেন তার সঙ্গে।

রাতে শহীদুল যেতে না চাইলে আসামিরা তাকে বাসায় নামিয়ে দেয়ার কথা বলে মাইক্রোবাসে তুলে নেন। কিছুক্ষণ পর শহীদুলের গলায় রশি পেচিয়ে ও মুখ চেপে ধরে শ্বাসরোধ করেন আসামিরা। এরপর শহীদুলের নিথর দেহ নিয়ে তারা কালামপুর, সাটুরিয়া হয়ে নির্জনস্থান বেতুলিয়া ব্রীজের কাছে যান।

মাইক্রোবাস থেকে নামিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে শহীদুলকে জবাই করা হয়। সেখানে দেহ ফেলে রেখে বিচ্ছিন্ন মাথা পলিথিনে ভরে নাগরপুরের জগতলা নামক স্থানে পুঁতে রাখে।

পরদিন সাটুরিয়া থানা পুলিশ মাথাবিহীন মরদেহ উদ্ধার করে একটি হত্যা মামলা করে। এর দুইদিন পর শহীদুলের মস্তক উদ্ধার করে নাগরপুর থানা পুলিশ।

শহীদুল হত্যা মামলায় সাটুরিয়া থানা পুলিশ দুই এনজিও কর্মীকে জিজ্ঞাসাবাদে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পায়। এরপর পুলিশ শাহিনকে গ্রেপ্তার করে। শাহিন আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে হত্যার বিস্তারিত তথ্য জানান। শাহিন আলম ১০ বছর কারাগারে থাকার পর ২০১৬ সালে জামিন পান। এরপর তিনি আত্মগোপনে চলে যান।

শহীদুল হত্যা মামালার রায়ে ২০২১ সালের ১ ডিসেম্বর আদালত শাহিন আলমকে মৃত্যুদণ্ড দেয়। তার ৪ সহযোগি সাহেদ, রাজা মিয়া, আব্দুল কুদ্দুস ও বিষ্ণু সুইপারকে যাবজ্জীবন সাজা দেয়া হয়।

ফাঁসির আসামি শাহিন আলমকে গ্রেপ্তারের পর র‍্যাব সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর করেছে।

আরও পড়ুন:
২১ বছর লুকিয়ে ছিলেন স্ত্রী হত্যায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত
৬ মাসের সাজা এড়াতে পালিয়ে ছিলেন ৮ বছর
‘সরল বিশ্বাসে খেতা শাহকে আশ্রয় দিয়ে খুইয়েছি স্ত্রী’

মন্তব্য

p
উপরে