মগবাজারে বিস্ফোরণ: দগ্ধ বেঙ্গল মিট কর্মীর মৃত্যু

মগবাজারে বিস্ফোরণ: দগ্ধ বেঙ্গল মিট কর্মীর মৃত্যু

ইমরানের শরীরের ৯০ শতাংশ পুড়ে গিয়েছিল। ছবি: সংগৃহীত

ইমরানের শরীরের ৯০ শতাংশ পুড়ে গিয়েছিল। তিনি বেঙ্গল মিটের কর্মী ছিলেন বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) এএসএফ আসিফ।

রাজধানীর মগবাজারে ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনায় শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে মৃত্যু হয়েছে বেঙ্গল মিটের কর্মী মো. ইমরানের (২৫)।

ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. এস এম আইউব হোসেন জানান, বুধবার সকাল ৬টা ৪০ মিনিটে তার মৃত্যু হয়।

ইমরানের শরীরের ৯০ শতাংশ পুড়ে গিয়েছিল। তিনি বেঙ্গল মিটের কর্মী ছিলেন বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) এএফএম আসিফ।

এ নিয়ে বিস্ফোরণের ঘটনায় ৯ জনের মৃত্যু হলো। এর আগে মঙ্গলবার বিকেলে বিস্ফোরণে লন্ডভন্ড হয়ে যাওয়া ভবনের পেছনের ছোট্ট একটি কক্ষ থেকে কেয়ারটেকার মো. হারুনুর রশিদের মরদেহ উদ্ধার করেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।

মগবাজার ওয়্যারলেস এলাকায় আড়ংয়ের শোরুম ও রাশমনো হাসপাতালের উল্টা দিকের মূল সড়ক লাগোয়া ভবনে রোববার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে বিস্ফোরণ হয়। এ ঘটনায় আহত ও দগ্ধ অনেকের চিকিৎসা চলছে হাসপাতালে।

আকস্মিক বিস্ফোরণ ও তা থেকে সৃষ্ট বিকট শব্দে কেঁপে ওঠে আশপাশের কয়েক শ মিটার এলাকা। বেশ কিছু ভবনের কাচ ভেঙে যায় শব্দের প্রচণ্ডতায়।

বিস্ফোরণের কারণ এখনও নিশ্চিত হতে পারেননি তদন্তকারীরা।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন ও সিসিটিভি ফুটেজ পর্যালোচনা করে নিউজবাংলা জানার চেষ্টা করেছে ঘটনার পরম্পরা।

সিসিটিভি ফুটেজে যা দেখা যায়

আশপাশের বিভিন্ন ভবনের সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করেছে নিউজবাংলা। এগুলো থেকে বিস্ফোরণ-মুহূর্তের আংশিক চিত্র পাওয়া যায়।

প্রথম সিসিটিভি ক্যামেরাটির অবস্থান ঘটনাস্থল থেকে ১০০ মিটার দূরের দ্য গ্রান্ড প্লাজা শপিং মলে। সেখানে দেখা যায়, ৭টা ২২ মিনিটে হঠাৎ বিস্ফোরণে কেঁপে ওঠে আশপাশের এলাকা। ঘটনাস্থল থেকে দূরে হওয়া সত্ত্বেও সিসি ক্যামেরার কম্পনে অনুমান করা যায় বিস্ফোরণের ভয়াবহতা।

ওই সিসিটিভি ফুটেজে বিস্ফোরণের পরপর ‍দুবার আগুনের বড় ধরনের ঝলকানি দেখা যায়, যা থেকে মনে হয়, এক সেকেন্ডেরও কম সময়ের ব্যবধানে পরপর দুটি বিস্ফোরণ ঘটে থাকতে পারে।

বিস্ফোরণের আগুনের ঝলকানি ভবনের ভেতর থেকে বের হয়ে পাশের রাস্তায় জ্যামে আটকে থাকা দুটি বাসকে ছুঁয়ে রাস্তার অন্য পাশে ফ্লাইওভার থেকে নামার মুখে আরেকটি বাসে স্পর্শ করে নিমেষেই মিলিয়ে যায়। কিন্তু এরপর আর আগুনের অস্তিত্ব দেখা যায়নি।

পরের ফুটেজটি মগবাজার প্লাজার ঠিক বিপরীতে ফ্লাইওভারের ওপারে থাকা আড়ং শপিং সেন্টারের প্রবেশপথের মুখে থাকা ক্যামেরার। সেখানে দেখা যায়, বিস্ফোরণের সঙ্গে সঙ্গে দুই শিশুসহ দুজন নারী ছিটকে পড়ে যান। সেখানে উপস্থিত আড়ংয়ের অন্য কর্মচারীদেরও একই অবস্থা হয়। বিস্ফোরণের সময় মুহূর্তের জন্য আড়ংয়ের ভেতরে সব অন্ধকার হয়ে যায়।

আরেকটি ফুটেজ মগবাজার প্লাজার বিপরীতে থাকা রাশমনো স্পেশালাইজড হাসপাতালের বাইরের ও ভেতরের ক্যামেরার। বাইরের ক্যামেরার দৃশ্যে দেখা যায় বিস্ফোরণের সঙ্গে সঙ্গে আগুনের ফুলকি আর কম্পন এসে ক্যামেরায় আঘাত করে। সঙ্গে সঙ্গে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় ওই এলাকা।

শেষ ফুটেজ একই হাসপাতালের পার্কিং এলাকার। সেখানে দেখা যায়, প্রবল বিস্ফোরণের কম্পনে এই ক্যামেরাও কেঁপে উঠেছে। এরপরই বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় ক্যামেরার সংযোগ।

বিস্ফোরণের ভয়াবহতা

সিসিটিভি ফুটেজের সময় অনুযায়ী, রোববার সন্ধ্যা ৭টা ২২ মিনিটে মগবাজার প্লাজায় বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে তিনতলা ভবনটির নিচতলায় পাশাপাশি থাকা দুটি দোকানের ভেতরের সবকিছু গুঁড়িয়ে যায়।

এ দুটি দোকান হলো শর্মা হাউস নামে একটি রেস্টুরেন্ট ও বেঙ্গল মিট নামে একটি প্রক্রিয়াজাতকৃত মাংসের আউটলেট।

বিস্ফোরণে ভেঙে যায় ওই ভবনের নিচতলার কয়েকটি স্তম্ভ। এতে ভবনটির দোতলায় থাকা ইলেকট্রনিক সিঙ্গারের গোডাউনের একটি অংশ হেলে পড়ে। ভেঙে যায় ভবনের পেছনের সীমানাপ্রাচীরের অংশবিশেষ।

মগবাজার বিস্ফোরণে যা ঘটেছিল

বিস্ফোরণে তীব্র হল্কা ছুটে যায় রাস্তায় জ্যামে দাঁড়িয়ে থাকা মগবাজার মোড়মুখী দুটি বাসসহ অন্যান্য বাহনে। ওই ধাক্কায় বাস দুটি রাস্তার মাঝের বিভাজকে আছড়ে পড়ে। বাস দুটির সব কাচ ভেঙে চুরমার হয়ে যায়। সেই কাচের আঘাতে আহত হন অনেকে।

বিস্ফোরণের ধাক্কা শুধু রাস্তার এপারের গাড়িগুলোতেই আঘাত করেনি, সড়ক বিভাজক পেরিয়ে অপর পাশে মৌচাকমুখী ফ্লাইওভার থেকে নামার মুখের একটি বাসেও আঘাত করে। ওই বাসের পরিণতিও একই।

বিস্ফোরণের ধাক্কা রাস্তা, ফ্লাইওভার ছাড়িয়ে অন্তত ৫০ মিটার দূরে ঠিক বিপরীতে অবস্থান করা চারটি ভবনকেও স্পর্শ করে। এগুলো হলো রাশমনো স্পেশালাইজড হাসপাতাল, নজরুল শিক্ষালয় স্কুল, আড়ং ও বিশাল সেন্টার শপিং সেন্টার।

ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, ওই চারটি ভবনের পাঁচতলা উচ্চতা পর্যন্ত যত কাচের আবরণ ও জানালা আছে, সব গুঁড়ো গুঁড়ো হয়ে ভেঙে পড়েছে। কিন্তু সেসব ভবনের দিকে কোনো ধরনের ধ্বংসাবশেষ ও ভারী পদার্থ বা স্প্লিন্টার ছুটে আসার আলামত পাওয়া যায়নি।

বিকট শব্দের ধাক্কায় ক্ষয়ক্ষতি?

সিসি ক্যামেরার ফুটেজ বিশ্লেষণ এবং পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তাদের কাছ থেকে জানা যায়, বিস্ফোরণের পর সেটির শকওয়েভ ও উচ্চ শব্দের কারণে ভবনগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

বিস্ফোরণের সঙ্গে সঙ্গে ভবনের ভেতর থেকে পরপর দুবার আগুনের স্ফুলিঙ্গ দেখা যায়, যা রাস্তার ওপর থাকা বাসগুলোকে ছুঁয়ে আবার নিমেষেই মিলিয়ে যায়। এ ছাড়া বিস্ফোরণের সময় ঘটনাস্থলের আশপাশের অন্তত ৩০০ মিটার এলাকাজুড়ে কম্পন অনুভব করতে পেরেছেন ওই এলাকার বাসিন্দারা। এসব কারণে মগবাজার প্লাজার পাশের ও পেছনের আরও তিনটি ভবন ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

মগবাজার বিস্ফোরণে যা ঘটেছিল

আচমকা বিস্ফোরণের পর শুরু হয় সাধারণদের ছোটাছুটি। ভবনের ভেতর, বাসের ভেতর, রাস্তায় শুধু আহত মানুষের আর্তনাদ।

আহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার ব্যবস্থাসহ পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেন স্থানীয় লোকজন।

আরও পড়ুন:
বেঙ্গল মিটের পেছনে ছিল শরমা হাউসের রান্নাঘর
মগবাজারে বিস্ফোরণ: ১০ আগস্ট প্রতিবেদন জমার নির্দেশ
মগবাজারের মতো দুর্ঘটনা আরও ঘটতে পারে
মগবাজার বিস্ফোরণ: ভবন কেয়ারটেকারের মরদেহ উদ্ধার
মগবাজারের বিস্ফোরণ ‘মিথেন গ্যাস থেকে’

শেয়ার করুন

মন্তব্য