অর্থ পাচারের মামলায় তাপসের প্ররোচনা: খোকন

অর্থ পাচারের মামলায় তাপসের প্ররোচনা: খোকন

জাতীয় প্রেস ক্লাবে মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলন করেন সাঈদ খোকন। ফাইল ছবি

খোকন বলেন, ‘তাপস তার ব্যর্থতা ঢাকতে বারবার আমার বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলেছে। এখন দুদককে ব্যবহার করে মামলা দিয়েছে।’

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা অর্থ পাচারের মামলা ঢাকার দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) বর্তমান মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপসের প্ররোচনায় হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন সাবেক মেয়র সাঈদ খোকন।

জাতীয় প্রেস ক্লাবে মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে সাঈদ খোকন এই অভিযোগ করেন।

খোকন বলেন, ‘তাপস তার ব্যর্থতা ঢাকতে বারবার আমার বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলেছে। এখন দুদককে ব্যবহার করে মামলা দিয়েছে।’

দুদকের মামলা নিয়ে খোকন বলেন, ‘আমার বিশ্বাস জম্মেছে তাপসের ক্রমাগত প্ররোচনায় এমন কাণ্ড ঘটেছে। আপনি দুদকের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসা করলেই পাবেন।’

তিনি বলেন, ‘আটটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ করা হয়েছে। এই অ্যাকাউন্টগুলোতে আমার ও আমার পরিবারের বিরুদ্ধে ৭ কোটি ৬২ লাখ ৭৪ হাজার ৬০৩ টাকা আছ।

‘দুর্নীতি দমন কমিশন আমার ও আমার পরিবারের কোনো সদস্যকে কোনোরূপ নোটিশ প্রদান না করে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ না দিয়ে সরাসরি আদালতের মাধ্যমে এই নিষেধাজ্ঞা জারি করে। এমন কর্মকাণ্ড আমার ও আমার পরিবারের মৌলিক ও সাংবিধানিক অধিকার ক্ষুণ্ন করে।’

তাপসের নগর পরিচালনায় সীমাহীন ব্যর্থতার অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘তাপস এই ব্যর্থতা ঢাকতে আমার বিরুদ্ধে হয়রানি ও বিদ্বেষমূলক আচরণ করে আসছে। দুর্নীতি দমন কমিশনের এমন কর্মকাণ্ড তাপসের প্ররোচনায় সংগঠিত হয়েছে।

‘বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে আমার ও আমার পরিবারের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট বন্ধ থাকলে সংসার চালাতে সমস্যা হবে। আমার পারিবারিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন প্রদান বন্ধ হয়ে যাবে। আমাদের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বকেয়া পাওনা বন্ধ হয়ে যাবে। আমার সংসার পরিচালনা করা দুরূহ হয়ে যাবে। বিভিন্ন ইউটিলিটি বিলসহ বকেয়া প্রদান আমার জন্য কষ্টসাধ্য হবে।’

দুদকের কাছে অনুরোধ জানিয়ে খোকন বলেন, ‘আপনারা আদালতের মাধ্যমে আমার জব্দকৃত অ্যাকাউন্ট সচল করে দিয়ে আমাকে স্বাভাবিক জীবন পরিচালনার সুযোগ করে দিন। এটা আমার পরিবারের মৌলিক অধিকার।’

তদন্তে আপত্তি নেই জানিয়ে তিনি বলেন, ‘দুর্নীতি দমন কমিশন তদন্ত করতেই পারে। তবে কারও প্ররোচনায় ও দলাদলিতে দুর্নীতি দমন কমিশন জড়াবে, এটা হতে পারে না। কমিশনের নিরেপক্ষ ভূমিকা একজন নাগরিক হিসেবে দেখতে চাই।’

ডিএসসিসির সাবেক মেয়র বলেন, ‘প্রায় এক শতাব্দী যাবত এ দেশের মানুষের সেবা করে আসছে আমার পরিবার; প্রায় ৭০ বছর ধরে। ঢাকার শেষ সর্দার আমার নানা মাজেদ সর্দার। তার মেয়ে আমার মা ফাতেমা হানিফ। তার অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ করেও আমার বৃদ্ধ মাকে হয়রানি করা হয়েছে।’

বক্তব্যের এ পর্যায়ে এসে সাঈদ খোকন উত্তেজিত হয়ে পড়েন। চিৎকার করে তিনি বলেন, ‘এটি অত্যন্ত পরিতাপের বিষয়। তারা সন্দেহের বশবর্তী হয়ে একজন সম্মানিত মানুষের সম্মান ক্ষুণ্ন করে। মাজেদ সর্দার ও ঢাকার প্রথম নির্বাচিত মেয়র হানিফের স্ত্রী লাঞ্ছিত হবে, এটা ঢাকাবাসী মেনে নিবে না।’

তিনি বলেন, ‘আমার পরিবার যদি ব্যবসাতে মনোযোগ দিত, তাহলে বাংলাদেশের শীর্ষ ধনীতে পরিণত হতো...আমার পরিবার এই ঢাকা শহরের জন্য কাজ করেছে। হানিফের অবদান এই শহরের মানুষ স্বীকার করবে।’

ডিএসসিসির সাবেক মেয়র সাঈদ খোকন, মা ফাতেমা হানিফ, স্ত্রী ফারহানা আলম ও বোন শাহানা হানিফের আটটি ব্যাংক হিসাব ফ্রিজের (অবরুদ্ধ) নির্দেশ দিয়েছে বিচারিক আদালত।

ঢাকা মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ কে এম ইমরুল কায়েশ দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে রোববার এ আদেশটি দেন।

দুদকের আদালত পরিদর্শক আমিনুল ইসলাম সোমবার বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, মামলার অনুসন্ধান চলাকালে দুদকের উপপরিচালক জালাল উদ্দিন আহমেদ রোববার ব্যাংক অ্যাকাউন্টগুলো অবরুদ্ধ করার আবেদন করেন। আদালত আবেদনটি গ্রহণ করেছে।

যে ৮টি ব্যাংক হিসাব ফ্রিজের নির্দেশ দেয়া হয়েছে তার মধ্যে সাঈদ খোকনের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের তিনটি অ্যাকাউন্ট রয়েছে।

এ ছাড়া তার মা ফাতেমা হানিফের একটি, বোন শাহানা হানিফের দুটি ও স্ত্রী ফারহানা আলমের দুটি অ্যাকাউন্ট রয়েছে।

আবেদনে বলা হয়, ‘ওই ব্যাংক হিসাবগুলোতে অস্বাভাবিক ও বিপুল পরিমাণ অর্থ লেনদেন করা হয়েছে। কিন্তু তার কোনো বৈধ উৎস থাকা অসম্ভব এবং সন্দেহজনক।

‘তাই অভিযোগটি সুষ্ঠু তদন্তের প্রয়োজনে ব্যাংক হিসাবগুলো থেকে যেন অর্থ উত্তোলন, স্থানান্তর বা হস্তান্তর করা না যায়, সে বিষয়টি নিশ্চিত করতে ব্যাংক হিসাবগুলো জরুরি ভিত্তিতে অবরুদ্ধ করা প্রয়োজন।’

আবেদনে আরও বলা হয়, ‘অভিযুক্তরা ওই ব্যাংক হিসাবের অর্থ স্থানান্তর করতে চেষ্টা করেছেন, যা তদন্তে উঠে এসেছে। অভিযোগ নিষ্পত্তি পর্যন্ত না হওয়া পর্যন্ত এসব অস্থাবর সম্পত্তি স্থানান্তর বা হস্তান্তর হয়ে গেলে রাষ্ট্রের ব্যাপক ক্ষতি হবে।’

আরও পড়ুন:
সাঈদ খোকন-পরিবারের ৮ ব্যাংক হিসাব ফ্রিজের নির্দেশ
সাঈদ খোকনের নামে মামলা: পেছাল তদন্ত প্রতিবেদন
সাঈদ খোকনদের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন জমার তারিখ পেছাল
মানহানি মামলা থেকে রেহাই সাঈদ খোকনের
কেঁচো খুঁড়তে সাপে খোকনের আক্রোশ: তাপস

শেয়ার করুন

মন্তব্য