অপরাধের ধরন দেখে আইন প্রণয়ন: আইনমন্ত্রী

অপরাধের ধরন দেখে আইন প্রণয়ন: আইনমন্ত্রী

রাজধানীর একটি হোটেলে আইন মন্ত্রণালয়ের লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগ আয়োজিত কর্মশালায় বক্তব্য দেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। ছবি: নিউজবাংলা

আইনমন্ত্রী বলেন, সময় প্রতিনিয়ত পরিবর্তনশীল। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে মানুষের চাহিদা, আচার-আচরণ, দাবি-দাওয়াসহ সকল বিষয়ে প্রতিনিয়ত পরিবর্তন ঘটছে। বিশ্বব্যাপী প্রযুক্তির বিকাশ ঘটছে, বিনিয়োগ পরিবেশে পরিবর্তন হচ্ছে, নতুন শিল্প বিপ্লব ঘটছে, কানেক্টিভিটি বাড়ছে। অপরাধের ধরন বদলে যাচ্ছে। সামাজিক, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক প্রেক্ষাপট পরিবর্তিত হচ্ছে। তিনি বলেন, এসব পরিবর্তনকে সামনে রেখে সরকার নতুন নতুন আইন প্রণয়ন করছে, পুরাতন আইনগুলো সংশোধন করে সময়োপযোগীও করছে।

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, সময় পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে অপরাধের ধরন বদলেছে। অপরাধের ধরন দেখেই সরকারও আইন প্রণয়ন করছে।

রোববার রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে আইন মন্ত্রণালয়ের লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগ আয়োজিত এক কর্মশালায় তিনি এ কথা বলেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, সময় প্রতিনিয়ত পরিবর্তনশীল। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে মানুষের চাহিদা, আচার-আচরণ, দাবি-দাওয়াসহ সকল বিষয়ে প্রতিনিয়ত পরিবর্তন ঘটছে। বিশ্বব্যাপী প্রযুক্তির বিকাশ ঘটছে, বিনিয়োগ পরিবেশে পরিবর্তন হচ্ছে, নতুন শিল্প বিপ্লব ঘটছে, কানেক্টিভিটি বাড়ছে। অপরাধের ধরন বদলে যাচ্ছে। সামাজিক, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক প্রেক্ষাপট পরিবর্তিত হচ্ছে।

তিনি বলেন, এসব পরিবর্তনকে সামনে রেখে সরকার নতুন নতুন আইন প্রণয়ন করছে, পুরাতন আইনগুলো সংশোধন করে সময়োপযোগী করছে। সময়ের চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতেই সরকার করোনার প্যান্ডেমিক পরিস্থিতিকে মোকাবিলা করার জন্য আদালতের মাধ্যমে তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহার আইন, ২০২০ ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, ২০১৮ সহ বিভিন্ন আইন প্রণয়ন করেছে।

মন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনের পর রাষ্ট্র ও সরকার পরিচালনার ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় আইনি কাঠামো বঙ্গবন্ধুর প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধান ও নির্দেশনায় তৈরি করা হয়েছিল যা বাংলাদেশ নামের নতুন রাষ্ট্র পরিচালনার ভিত্তি তৈরি করেছে।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু আজ আমাদের মাঝে না থাকলেও সামাজিক শৃঙ্খলা ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার জন্য তার দর্শনের আলোকে আইন প্রণয়ন করা রাষ্ট্রের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব।

মন্ত্রী বলেন, আইনের খসড়া প্রস্তুত ও ভেটিংয়ের কাজ সহজ বিষয় নয়। এ ক্ষেত্রে বিশেষ ধরণের নীতি ও কর্মপদ্ধতি অনুসরণ করতে হয়। আইনের প্রত্যেকটি শব্দের অর্থ এবং গুরুত্ব আছে। তাই আইনের বাক্যে শব্দ ব্যবহার করার ব্যাপারে পদ্ধতিগত অভিজ্ঞতা এবং অনুশীলনের প্রয়োজন।

আইন প্রণয়ন কার্যক্রমকে আরও গতিশীল করতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে উল্লেখ করে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আইনি গবেষণার মাধ্যমে তারতম্যমূলক আইন ও নীতি চিহিৃতকরণপূর্বক এটি সংস্কার বিষয়ক একটি প্রকল্প’ প্রকল্পের মাধ্যমে একটি লেজিসলেটিভ ডেস্কবুক তৈরি করা হচ্ছে।’

তিনি আশা প্রকাশ করেন, এ ডেস্কবুক অনুসরণ করে লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের কর্মকর্তাগণ সরকারের আইন, বিধিমালা, প্রবিধানমালা, প্রজ্ঞাপন, চুক্তি ইত্যাদির খসড়া প্রস্তুত এবং ভেটিং কার্য দক্ষতার সঙ্গেও স্বল্প সময়ের মধ্যে করতে সফল হবে।

লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের সচিব মো. মইনুল কবিরের সভাপতিত্বে কর্মশালায় আইন ও বিচার বিভাগের সচিব মো. গোলাম সারওয়ার, লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের যুগ্ম-সচিব ও প্রকল্প পরিচালক ড. মোহাম্মদ মহিউদ্দীন বক্তব্য দেন। কর্মশালায় লেজিসলেটিভ ডেস্কবুকের খসড়া উপস্থাপন করেন ডেস্কবুকের খসড়া প্রস্তুতকারী টিমপ্রধান এ কে মোহাম্মদ হোসেন।

আরও পড়ুন:
অরাজকতার চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা: আইনমন্ত্রী
ফেসবুকে ভুয়া আইডি, আইনমন্ত্রীর জিডি
দুর্নীতির প্র্যাকটিস বন্ধ করুন: আইনমন্ত্রী
ভাইভার বিষয়টি ‘দেখবেন’ আইনমন্ত্রী
আইনমন্ত্রীর বাড়ি ঘেরাও

শেয়ার করুন

মন্তব্য

৬ ‘জঙ্গির’ নামে মামলা, প্রধান আসামি পলাতক

৬ ‘জঙ্গির’ নামে মামলা, প্রধান আসামি পলাতক

মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে সোনারায় ইউনিয়নের মাঝাপাড়া গ্রামের পুটিহারী এলাকার শরিফুল ইসলাম শরিফকে। তিনি পলাতক আছেন।

নীলফামারীতে ছয় ‘জঙ্গির’ নামে সন্ত্রাসবিরোধী আইনে মামলা করেছে র‌্যাব।

রোববার সকাল ১০টার দিকে মামলাটি হয়। মামলার বাদী হয়েছেন র‌্যাব-১৩ রংপুরের উপসহকারী পরিচালক (ডিএডি) আব্দুল কাদের।

নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন নীলফামারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রউপ।

মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে সোনারায় ইউনিয়নের মাঝাপাড়া গ্রামের পুটিহারী এলাকার শরিফুল ইসলাম শরিফকে।

মামলায় অন্য আসামিরা হলেন জঙ্গিবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার সোনারায় ইউনিয়নের তেলিপাড়া উত্তর মুশরত কুখাপাড়া এলাকার জাহিদুল ইসলাম ও তার ভাই অহিদুল ইসলাম, সংগলশী ইউনিয়নের বালাপাড়া এলাকার আব্দুল্লাহ আল মামুন ওরফে সুজা, চড়াইখোলা ইউনিয়নের বন্দর চড়াইখোলা গ্রামের ওয়াহেদ আলী ও সোনারায় ভবানীমোড় এলাকার রজব আলীর ছেলে ও তেলিপাড়া জামে মসজিদের ইমাম নূর আমিন।

র‌্যাব-১৩ এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট মাহমুদ বশির আহমেদ জানান, জঙ্গিবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার হওয়ার পাঁচ জেএমবি সদস্যকে নীলফামারী থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা জেএমবির সামরিক শাখার সক্রিয় সদস্য। তারা বোমা তৈরি করেছিলেন।

তিনি জানান, প্রধান আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে এবং আর কারা জড়িত আছেন তাদের খুঁজে বের করার চেষ্টা চলছে।

ওসি আব্দুর রউপ বলেন, সন্ত্রাসবিরোধী আইনে ছয় জনের নামে মামলাটি করে র‌্যাব। এতে অজ্ঞাতপরিচয় আরও ছয়জনকে আসামি হিসেবে রাখা হয়েছে।

গ্রেপ্তার আসামিদের আদালতে তোলা হবে এবং আদালতের নির্দেশে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সোনারায় ইউনিয়নের মাঝাপাড়া পুটিহারী এলাকায় শনিবার সকালে শরিফুল ইসলামের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে বোমা তৈরির সরঞ্জাম, পিস্তল, দেশীয় অস্ত্র এবং গুলি উদ্ধার করে র‌্যাবের বম্ব ডিজপোজাল ইউনিটের সদস্যরা।

আরও পড়ুন:
অরাজকতার চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা: আইনমন্ত্রী
ফেসবুকে ভুয়া আইডি, আইনমন্ত্রীর জিডি
দুর্নীতির প্র্যাকটিস বন্ধ করুন: আইনমন্ত্রী
ভাইভার বিষয়টি ‘দেখবেন’ আইনমন্ত্রী
আইনমন্ত্রীর বাড়ি ঘেরাও

শেয়ার করুন

অস্ত্র প্রতিযোগিতা নয়: বিশ্বনেতাদের প্রধানমন্ত্রী

অস্ত্র প্রতিযোগিতা নয়: বিশ্বনেতাদের প্রধানমন্ত্রী

বিশ্ব শান্তি সম্মেলনের সমাপনী দিনে বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: টিভি ফুটেজ থেকে নেয়া

বিশ্ব নেতাদের উদ্দেশে শেখ হাসিনা বলেন, ‘বিশ্বের এই চরম সংকটময় সময়ে আমি অস্ত্র প্রতিযোগিতায় সম্পদ ব্যয় না করে তা সার্বজনীন টেকসই উন্নয়ন অর্জনে ব্যবহার করার আহ্বান জানাই। আসুন, আমরা সার্বজনীন শান্তির জন্য প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়ে কর্মযজ্ঞে নেমে পরি।’

করোনাভাইরাস মহামারির এই বৈশ্বিক সংকটকালে ‘অস্ত্র প্রতিযোগিতায়’ সম্পদ ব্যয় না করে তা সার্বজনীন টেকসই উন্নয়নে ব্যবহারের জন্য বিশ্বনেতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে রোববার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে বিশ্ব শান্তি সম্মেলনের সমাপনী দিনে ভার্চুয়ালি যোগ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘গত দুই বছর ধরে করোনাভাইরাস মহামারি পুরো বিশ্বব্যবস্থাকে এক নতুন সংকটের মুখোমুখি করেছে। এই সংকট প্রমাণ করেছে আমরা কেউই আলাদা নই। শান্তিপূর্ণভাবে এই পৃথিবীতে বসবাস করতে হলে অংশীদারত্বের ভিত্তিতে একটি জবাবদিহিতামূলক বিশ্বব্যবস্থা গড়ে তোলার কোনো বিকল্প নেই।’

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শান্তির আদর্শকে পুরোপুরি ধারণ করে পারস্পারিক শ্রদ্ধাবোধ ও সমঝোতার ভিত্তিতে সবার সঙ্গে কাজ করতে বাংলাদেশ সদা প্রস্তুত বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘বিশ্বের এই চরম সংকটময় সময়ে আমি অস্ত্র প্রতিযোগিতায় সম্পদ ব্যয় না করে তা সার্বজনীন টেকসই উন্নয়ন অর্জনে ব্যবহার করার আহ্বান জানাই। আসুন, আমরা সার্বজনীন শান্তির জন্য প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়ে কর্মযজ্ঞে নেমে পরি।’

স্বাধীনতায় বাঙালি সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করেছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এর মধ্য দিয়ে শান্তির মূল্য এবং সমগ্র মানব জাতির গভীরতম আকাঙ্ক্ষা অনুধাবন করেছি।’

ফিলিস্তিনের জনগণের ন্যায্য দাবির পক্ষে বাংলাদেশের অবিচল সমর্থন রয়েছে বলে জানান শেখ হাসিনা। সেই সঙ্গে তুলে ধরেন রোহিঙ্গা ইস্যুটিও।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সম্পদের সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও আমরা ১১ লাখের অধিক মিয়ানমারের রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে সাময়িক আশ্রয় দিয়েছি। ফলে এই অঞ্চলে একটি বড় ধরনের মানবিক বিপর্যয় এড়ানো সম্ভব হয়েছে।’

রোহিঙ্গাদের তাদের নিজ মাতৃভূমিতে প্রত্যাবসনে বাংলাদেশ শান্তিপূর্ণ কূটনৈতিক তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে বলেও জানান শেখ হাসিনা।

শান্তি প্রতিষ্ঠায় সরকারের নানা দিক তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দীর্ঘ ২১ বছরের সংগ্রাম ও আত্মত্যাগের মাধ্যমে আমরা ১৯৯৬ সালে জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে সরকার গঠন করি। একই বছর ১২ই নভেম্বর দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বিচারহীনতার সংস্কৃতি নিরসন করতে ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ বাতিল করি। জাতির পিতার হত্যার বিচার শুরু করি। ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর পার্বত্য চট্টগ্রামের পাহাড়ি উপজাতিদের সঙ্গে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের অবসান ঘটিয়ে শান্তি-চুক্তি স্বাক্ষর করি।’

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল প্রতিষ্ঠা করে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের শুরুর পাশাপাশি প্রতিবেশী ভারত ও মিয়ানমারের সঙ্গে সমুদ্রসীমা বিরোধ আন্তর্জাতিক আদালতের মাধ্যমে মীমাংসা হয় বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘জাতিসংঘে সর্বোচ্চ শান্তিরক্ষী প্রেরণকারী দেশ হিসেবে আমরা গর্ববোধ করি। আমরা জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে শূন্য সহনশীলতা নীতি গ্রহণ করেছি।’

আরও পড়ুন:
অরাজকতার চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা: আইনমন্ত্রী
ফেসবুকে ভুয়া আইডি, আইনমন্ত্রীর জিডি
দুর্নীতির প্র্যাকটিস বন্ধ করুন: আইনমন্ত্রী
ভাইভার বিষয়টি ‘দেখবেন’ আইনমন্ত্রী
আইনমন্ত্রীর বাড়ি ঘেরাও

শেয়ার করুন

রোমানিয়ায় বন্দি: মুক্তিপণের টাকা দিতে ভিডিওবার্তায় আকুতি

রোমানিয়ায় বন্দি: মুক্তিপণের টাকা দিতে ভিডিওবার্তায় আকুতি

রোমানিয়ায় দালালদের হাতে আটক পাঁচ যুবক। ছবি: নিউজবাংলা

দালাল চক্রের হাতে বন্দি ৫ যুবকের পরিবার জানিয়েছে, রোমানিয়া থেকে ইতালি পাঠানোর কথা বলে পাঁচ যুবকের পরিবারের কাছ থেকে এরই মধ্যে প্রায় অর্ধকোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে দালাল চক্রটি। আরও টাকার জন্য এখন রোমানিয়ার অজ্ঞাত স্থানে আটকে রেখে তাদের ওপর নির্যাতন করা হচ্ছে।

‘আমরা পাঁচজন রোমানিয়ায় দালালদের হাতে আটকা আছি। একটা রুমের মধ্যে আমাগো আটকে রাখছে। আমাগো ১৫ দিন ধইরা খাওন দেয় না। যেমনেই হোক, আম্মেরা আমাগো বাঁচান। এইডাই আম্মেগো কাছে আমাগো আবেদন। যেমনেই হোক, আমাগোর পাঁচটা জীবন বাঁচান।’

হোয়াটসঅ্যাপে পাঠানো এক ভিডিওবার্তায় এভাবেই পরিবারের কাছে বাঁচার আকুতি জানান ইউরোপের দেশ রোমানিয়ায় দালালদের হাতে বন্দি মাদারীপুরের পাঁচ যুবকের একজন।

বন্দি পাঁচজন হলেন মাদারীপুরের ডাসার উপজেলার প্রয়াত সৈয়দ সালামের ছেলে তানভীর হোসেন, সদর উপজেলার বাবুল মাতুব্বরের ছেলে বায়েজিদ মাতুব্বর, মজিবর হাওলাদারের ছেলে রাশেদ হাওলাদার ও প্রয়াত তারেক হাওলাদারের ছেলে মোফাজ্জেল হাওলাদার এবং খোয়াজপুর ইউনিয়নের জাহান মুনশির ছেলে মিলন মুনশি।

তাদের পরিবার নিউজবাংলাকে জানিয়েছে, রোমানিয়া থেকে ইতালি পাঠানোর কথা বলে পাঁচ যুবকের পরিবারের কাছ থেকে এরই মধ্যে প্রায় অর্ধকোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে দালাল চক্রটি। আরও টাকার জন্য এখন রোমানিয়ার অজ্ঞাত স্থানে আটকে রেখে তাদের ওপর নির্যাতন করা হচ্ছে।

নির্যাতনের সেই ছবি ও ভিডিও হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে তাদের কাছে পাঠাচ্ছে দালাল চক্রটি। বাঁচার আকুতি জানানো ১ মিনিট ৮ সেকেন্ডের ভিডিওবার্তাটি তারা এভাবে পাঠিয়েছেন।

ওই ভিডিও পাওয়ার পর শুক্রবার রাতে মাদারীপুর সদর মডেল থানায় মানবপাচার আইনে মামলা করেছে ভুক্তভোগী একটি পরিবার। এতে স্থানীয় ছয় দালালকে আসামি করা হয়েছে। মামলার পর প্রধান আসামি আল-আমিন নামে একজনকে গ্রেপ্তারও করেছে পুলিশ।

এজাহার থেকে জানা যায়, দালালদের মাধ্যমে গত আগস্টে বাংলাদেশ থেকে অবৈধভাবে তুরস্ক হয়ে গ্রিসে যান ওই পাঁচ যুবক।

এ চক্রের হোতা মাদারীপুর সদর উপজেলার হাজিরহাওলা এলাকার আল-আমিন। তাকে সহযোগিতা করেন সদর উপজেলার রাস্তি এলাকার শামিম আকন ও তার স্ত্রী সুমি বেগম, একই এলাকার সিরাজ আকন, সদরের হাজিরহাওলা এলাকার জাফর ব্যাপারী ও তার স্ত্রী রীনা বেগম এবং হাজিরহাওলা এলাকার সিরাজ আকনের স্ত্রী রানু বেগম।

চক্রটি ওই পাঁচ যুবককে গ্রিস থেকে রোমানিয়া হয়ে ইতালি নেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে আগস্টেই তাদের পরিবারের কাছ থেকে ৮ থেকে ১০ লাখ টাকা করে নেয়।

টাকা দেয়ার কিছুদিনের মধ্যেই তাদের গ্রিস থেকে রোমানিয়ায় নিয়ে যায় চক্রটি। তবে সেখানে তাদের আটকে রেখে এখন জনপ্রতি ১০ লাখ টাকা করে মুক্তিপণ চাচ্ছে।

রোমানিয়ায় বন্দি বায়েজিদের মা মাজেদা বেগম বলেন, ‘দালালরা মাফিয়াদের সঙ্গে হাত মিলায়া আমার পোলারে বন্দি করে রাখছে। আরও ১০ লাখ টাকা না দিলে আমার পোলারে মাইরা ফেলাবে। আমি এহন এত টাকা কই পামু? কে দেবে আমারে টাকা?’

অভিযোগের বিষয়ে আল-আমিনের স্ত্রী সুমি বেগম বলেন, ‘আমি আমার বাবার বাড়িতে আছি। আল-আমিন কার থেকে কী টাকা এনেছে, জানি না।’

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মাহমুদুল হাসান বলেন, ‘রোমানিয়া ও সার্বিয়ায় ১০ বাংলাদেশি বন্দি আছেন বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়। রোমানিয়ার পাঁচজন সম্প্রতি দালালদের খপ্পরে পড়েছে বলে আমরা জেনেছি।’

মাদারীপুরের পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল বলেন, ‘মানবপাচার কোনোভাবেই সহ্য করা হবে না। কেউ অভিযোগ দিলে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

‘রোমানিয়া ও সার্বিয়ায় বন্দি করার ঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকিদের খুঁজে বের করে ব্যবস্থা নেয়া হবে। যত শক্তিশালীই হোক না কেন, দোষীদের আইনের আওতায় আনা হবে।’

আরও পড়ুন:
অরাজকতার চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা: আইনমন্ত্রী
ফেসবুকে ভুয়া আইডি, আইনমন্ত্রীর জিডি
দুর্নীতির প্র্যাকটিস বন্ধ করুন: আইনমন্ত্রী
ভাইভার বিষয়টি ‘দেখবেন’ আইনমন্ত্রী
আইনমন্ত্রীর বাড়ি ঘেরাও

শেয়ার করুন

ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্তকে নৌকা, পরে সংশোধন

ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্তকে নৌকা, পরে সংশোধন

ছয় খুনের ফাঁসির আসামি আনোয়ার হোসেন। ছবি: সংগৃহীত

সংশোধিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রকাশিত তালিকায় ভুল নাম লিপিবদ্ধ হয়েছে। আমিনবাজার ইউপিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. রাকিব হোসেন।

ঢাকার সাভারে ছয় শিক্ষার্থীকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় মৃত্যুদণ্ড পাওয়া আমিনবাজার ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেয়ার পরপরই সেটি বাতিল করা হয়েছে।

শনিবার রাতে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়ার সই করা সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে অসাবধানতাবশত ভুলের বিষয়টি জানানো হয়।

বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এরই মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে। এর আগে সাভারের ১১ ইউপিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীদের তালিকাও আসে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। যেখানে আমিনবাজার ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনকে নৌকার মনোনয়ন দেয়া হয়।

সংশোধিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, শনিবার বিকেল ৪টায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে আওয়ামী লীগের সংসদীয় ও স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের মুলতবি সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মনোনীত প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করা হয়। প্রকাশিত তালিকায় অসাবধানতাবশত আমিনবাজার ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে মনোনীত প্রার্থীর পরিবর্তে ভুল নাম লিপিবদ্ধ হয়। এই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. রাকিব হোসেন।

২০১১ সালের ১৭ জুলাই সাভারের আমিনবাজারে ডাকাত আখ্যা দিয়ে ছয় শিক্ষার্থীকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় করা মামলার ১০ বছর পর চলতি বছরের ২ ডিসেম্বর আমিনবাজার ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনসহ ১৩ আসামির মৃত্যুদণ্ড দেয় আদালত। আজীবন কারাদণ্ড দেয়া হয় আরও ১৯ আসামিকে।

আরও পড়ুন:
অরাজকতার চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা: আইনমন্ত্রী
ফেসবুকে ভুয়া আইডি, আইনমন্ত্রীর জিডি
দুর্নীতির প্র্যাকটিস বন্ধ করুন: আইনমন্ত্রী
ভাইভার বিষয়টি ‘দেখবেন’ আইনমন্ত্রী
আইনমন্ত্রীর বাড়ি ঘেরাও

শেয়ার করুন

মার্জিত ভাষা, শালীনতাবোধ জরুরি: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

মার্জিত ভাষা, শালীনতাবোধ জরুরি: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

জামালপুরে সংবাদমাধ্যম কর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময়ে বক্তব্য রাখেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান। ছবি: নিউজবাংলা

তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান বলেন, ‘জনগণের ট্যাক্সের টাকায় প্রতিপালিত হয় প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীরা। সেজন্য সাধারণ জনগণসহ সবার সঙ্গেই তাদের ভাষা ও ব্যবহারে মার্জিত, শোভন ও শালীনতাবোধ থাকা বাঞ্ছনীয়।’

অনলাইনে একটি সাক্ষাৎকারে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, তার নাতনি জাইমা রহমানকে নিয়ে আপত্তিকর বক্তব্য দিয়ে সমালোচনায় পড়া তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান এবার জোর দিয়েছেন মার্জিত ভাষা ও শালীনতাবোধে। এটি বাংলাদেশের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শিক্ষা-সেটিএ স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন তিনি।

প্রতিমন্ত্রী নিজ জেলা জামালপুরে গিয়ে এই মন্তব্য করেন সেখানকার গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে এক মত বিনিময়ে। সেখানকার পুলিশ সুপার গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে বাজে আচরণ করেছেন, এমন অভিযোগ উঠার পর তিনি বসেন সাংবাদিকদের সঙ্গে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘জনগণের ট্যাক্সের টাকায় প্রতিপালিত হয় প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীরা। সেজন্য সাধারণ জনগণসহ সবার সঙ্গেই তাদের ভাষা ও ব্যবহারে মার্জিত, শোভন ও শালীনতাবোধ থাকা বাঞ্ছনীয়।’

‘‌সেবা দেয়া ছাড়া তারা কারও সঙ্গেই কোনো অশোভন আচরণ করার অধিকার রাখেন না’- এ কথা জানিয়ে তিনি বঙ্গবন্ধুর কথাও তুলে ধরেন। বলেন, ‘‌এটা আমার কথা নয়, বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কথা।’

সম্প্রতি একটি সাক্ষাৎকারে তথ্য প্রতিমন্ত্রী বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা, দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও তাদের পুত্র তারেক রহমানকে নিয়ে যে বক্তব্য রেখেছেন, তার তীব্র সমালোচনা হচ্ছে। ইন্টারনেটে ছড়িয়ে প্রতিমন্ত্রী সেটি সরিয়ে নেন, যদিও নিউজবাংলাকে তিনি বলেছেন, তিনি তার বক্তব্যে অটল। কে কী সমালোচনা করল, তা তিনি গুরুত্ব দেন না।

প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে এই মতবিনিময় যে কারণে সাংবাদিকরা আয়োজন করেছেন, তার শুরু গত শুক্রবার। সেই রাতে সাংবাদিকদের ধরে এনে পিটিয়ে চামড়া তুলে নেয়ার হুমকি দেয়ার অভিযোগ ওঠে পুলিশ সুপার মো. নাছির উদ্দীন আহমেদের বিরুদ্ধে। তার প্রত্যাহার দাবিতে গতকাল শনিবার থেকে আন্দোলনে নামেন জেলার গণমাধ্যমকর্মীরা।

তথ্য প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে মতবিনিময় শেষে তার কাছে পুলিশ সুপারের প্রত্যাহার চেয়ে স্মারকলিপি দেন তারা।
পরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বরে সমাবেশ করে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দেন সাংবাদিকরা। তারপর সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান।

তিনি বলেন, ‘জামালপুরের পুলিশ সুপার (এসপি) নাছির উদ্দীন আহমেদ সাংবাদিকদের সঙ্গে যে অশোভন আচরণ করেছেন, তা আমি বিভিন্ন মাধ্যমে অবগত হয়েছি। সাংবাদিক ভাইদের কাছ থেকেও বিস্তারিত শুনলাম। এ বিষয়ে আমি সরাসরি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলব।’

শুক্রবার রাতে পুলিশের নিজস্ব সংগঠন পুলিশ নারীকল্যাণ সমিতি-পুনাক আয়োজিত মেলা সম্পর্কে অবহিত করতে সাংবাদিকদের মেলা প্রাঙ্গণে ডাকেন পুলিশ সুপার নাছির উদ্দীন। সেখানে যাওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে জামালপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি হাফিজ রায়হান সাদা ও সাধারণ সম্পাদক লুৎফর রহমানকে ধরে পিটিয়ে চামড়া তোলা এবং ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ফাঁসিয়ে দেয়ার হুমকি দেন এসপি। এরপর থেকেই আন্দোলনে নামেন জেলার কর্মরত সাংবাদিকরা।

আরও পড়ুন:
অরাজকতার চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা: আইনমন্ত্রী
ফেসবুকে ভুয়া আইডি, আইনমন্ত্রীর জিডি
দুর্নীতির প্র্যাকটিস বন্ধ করুন: আইনমন্ত্রী
ভাইভার বিষয়টি ‘দেখবেন’ আইনমন্ত্রী
আইনমন্ত্রীর বাড়ি ঘেরাও

শেয়ার করুন

চট্টগ্রামে ড্রেনে পড়ে শিক্ষার্থীর মৃত্যু: ক্ষতিপূরণ নিয়ে হাইকোর্টের রুল

চট্টগ্রামে ড্রেনে পড়ে শিক্ষার্থীর মৃত্যু: ক্ষতিপূরণ নিয়ে হাইকোর্টের রুল

গত ২৮ সেপ্টেম্বর ড্রেনে পড়ে মৃত্যু হয় চট্টগ্রাম আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী সেহরীন মাহবুব সাদিয়ার। ফাইল ছবি

আইনজীবী অনিক আর হক বলেন, ‘ড্রেনে পড়ে অকাল মৃত্যুর ঘটনায় সাদিয়ার পরিবারকে কেন ১০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার নির্দেশ দেয়া হবে না সেটি জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে আদালত।’

চট্টগ্রামে ড্রেনে পড়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী সেহরীন মাহবুব সাদিয়ার মৃত্যুর ঘটনায় ১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার নির্দেশ দেয়া হবে না কেন সেটি জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে হাইকোর্ট। একই সঙ্গে দুর্ঘটনাস্থলকে নিরাপদ জায়গা হিসেবে গড়ে তোলারও নির্দেশ দেয় হয়েছে।

এজন্য কী কী পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে সেটি জানাতে ৬০ দিনের মধ্যে প্রতিবেদনও দিতে বলা হয়েছে।

রোববার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেয়।

আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী অনিক আর হক। আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার।

পরে আইনজীবী অনিক আর হক বলেন, ‘ড্রেনে পড়ে অকাল মৃত্যুর ঘটনায় সাদিয়ার পরিবারকে কেন ১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার নির্দেশ দেয়া হবে না সেটি জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে আদালত।’

সাদিয়ার মৃত্যুতে ক্ষতিপূরণ চেয়ে ২৫ নভেম্বর আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক), সিসিবি ফাউন্ডেশন ও নিহত শিক্ষার্থীর মামা জাহিদ উদ্দিন বেলালের পক্ষে রিট করেন।

এতে চট্টগ্রাম সিটির মেয়র, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান ও চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসককে বিবাদী করা হয়।

২৮ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রাম আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (আইআইইউসি) শিক্ষার্থী সেহরীন মাহবুব সাদিয়ার মৃত্যু হয়। তার বাসা হালিশহরের বড়পোল এলাকার মইন্যাপাড়ায়। দুই ভাই ও দুই বোনের মধ্যে সাদিয়া ছিলেন সবার বড়।

ওই শিক্ষার্থী চশমা কিনে বাসায় ফেরার পথে চৌমুহনী এবং আগ্রাবাদের মাঝামাঝি এলাকার একটি ড্রেনে পা পিছলে পড়ে যান। সঙ্গে থাকা সাদিয়ার বাবাও মেয়েকে বাঁচাতে ঝাপ দেন ড্রেনে, তবে খোঁজ না পেয়ে খবর দেন ফায়ার সার্ভিসে। নিখোঁজের পাঁচ ঘণ্টা পর সাদিয়ার মরদেহ উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিস।

এর আগে ২৭ আগস্ট নগরীর মুরাদপুর এলাকায় জলাবদ্ধতার সময় ড্রেনে পড়ে সালেহ আহম্মেদ নামের এক সবজি ব্যবসায়ী নিখোঁজ হন। এরপর তার আর খোঁজ মেলেনি।

আরও পড়ুন:
অরাজকতার চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা: আইনমন্ত্রী
ফেসবুকে ভুয়া আইডি, আইনমন্ত্রীর জিডি
দুর্নীতির প্র্যাকটিস বন্ধ করুন: আইনমন্ত্রী
ভাইভার বিষয়টি ‘দেখবেন’ আইনমন্ত্রী
আইনমন্ত্রীর বাড়ি ঘেরাও

শেয়ার করুন

করোনায় ঢাবি অধ্যাপক মাহমুদ হাসানের মৃত্যু

করোনায় ঢাবি অধ্যাপক মাহমুদ হাসানের মৃত্যু

অধ্যাপক মাহমুদ হাসান। ছবি: সংগৃহীত

মৎস্যবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘স্যারের করোনা পজিটিভ ছিল। প্রায় সাত দিন ধরে উনি হাসাপাতালে ভর্তি ছিলেন। শেষের দিকে তিনি কথা বলতে পারছিলেন না। আজ সাড়ে ১২টায় তিনি মারা যান।’

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মৎস্যবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক মাহমুদ হাসান।

রাজধানীর একটি হাসপাতালে রোববার দুপুর সাড়ে ১২টায় তার মৃত্যু হয় বলে নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেন মৎস্যবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো মনিরুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘স্যারের করোনা পজিটিভ ছিল। প্রায় সাত দিন ধরে উনি হাসাপাতালে ভর্তি ছিলেন। শেষের দিকে তিনি কথা বলতে পারছিলেন না। আজ সাড়ে ১২টায় তিনি মারা যান।’

আসরের নামাজের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদ প্রাঙ্গণে মাহমুদ হাসানের নামাজে জানাজা হওয়ার কথা রয়েছে। জানাজা শেষে তার মরদেহ গ্রামের বাড়ি রাজবাড়ীতে নিয়ে যাওয়া হবে।

অবিবাহিত ছিলেন মাহমুদ হাসান। বিশ্ববিদ্যালয়ের ফুলার রোডের মনিরুজ্জামান ভবনের একটি বাসায় থাকতেন তিনি।

আরও পড়ুন:
অরাজকতার চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা: আইনমন্ত্রী
ফেসবুকে ভুয়া আইডি, আইনমন্ত্রীর জিডি
দুর্নীতির প্র্যাকটিস বন্ধ করুন: আইনমন্ত্রী
ভাইভার বিষয়টি ‘দেখবেন’ আইনমন্ত্রী
আইনমন্ত্রীর বাড়ি ঘেরাও

শেয়ার করুন