কোথায় লকডাউন, আমি তো দেখি না: ফখরুল

কোথায় লকডাউন, আমি তো দেখি না: ফখরুল

রাজধানীতে প্রায়ই তৈরি হচ্ছে যানজট, এতে প্রশ্ন উঠেছে লকডাউন নিয়ে।

‘যার যেখানে খুশি যাচ্ছে, যার যেখানে যা খুশি করছে এমনকি বিয়েও হচ্ছে। আমি পরশুদিন দেখলাম একটা হোটেলে বিয়েও হচ্ছে। অথচ দেয়ার ইজ ব্যান। এই যে সরকারের পুরোপুরি যে উদাসিনতা এবং এটা লোক দেখানো একটা ব্যাপার। এটা প্রতারণা মানুষের সঙ্গে যে, আমরা লকডাউন দিচ্ছে, চেষ্টা করছি।‘

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে দেয়া লকডাউন কেন কার্যকর হচ্ছে না, সে প্রশ্ন তুলেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

মঙ্গলবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘এটা (লকডাউন) ওয়ার্কেবল না কিন্তু। একটাও কাজ করে না। ঢাকাতেও লকডাউন আছে। আপনি লকডাউন কোথাও দেখতে পান? কোথায় লকডাউন? আমি তো দেখতে পাই না।’

করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ ছড়িয়ে পড়ায় গত ৫ এপ্রিল সরকার প্রথমে এক সপ্তাহের জন্য লকডাউন দেয়। পরে ধাপে ধাপে বাড়ানো হয় বিধিনিষেধ। যদিও অফিস আদালত, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, গণপরিবহন সব চালু করে দেয়া হয়েছে। এগুলো যেসব স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চালুর কথা, সেগুলো পালন হচ্ছে কি না, তা নিয়ে অবশ্য প্রশ্ন আছে।

এর মধ্যে এখন আবার ঢাকাকে সারা দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। রাজধানীর সঙ্গে যাতায়াতের চার পথ গাজীপুর, মানিকগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ ও নারায়ণগঞ্জে যান চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। লঞ্চ চলাচলও বন্ধ। ট্রেনও বন্ধ করে দেয়ার সিদ্ধান্ত এসেছে। এখন খোলা কেবল আকাশপথ।

ফখরুল বলেন, ‘যার যেখানে খুশি যাচ্ছে, যার যেখানে যা খুশি করছে এমনকি বিয়েও হচ্ছে। আমি পরশুদিন দেখলাম একটা হোটেলে বিয়েও হচ্ছে। অথচ দেয়ার ইজ ব্যান। এই যে সরকারের পুরোপুরি যে উদাসিনতা এবং এটা লোক দেখানো একটা ব্যাপার। এটা প্রতারণা মানুষের সঙ্গে যে, আমরা লকডাউন দিচ্ছে, চেষ্টা করছি।‘

কোথায় লকডাউন, আমি তো দেখি না: ফখরুল
সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি পালনে বাধ্য করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিলৃপ্ত বলেও মনে করেন বিএনপি নেতা। বলেন, ‘আপনি খেয়াল করে দেখবেন যে, ল অ্যান্ড ফোর্সেস এজেন্সিজ, যাদের এই লকডাউন ইমপ্লিমেন্ট করার কথা, তাদেরকেও দেখা যায় না আজকাল। দে আর নট ভিজিবল, তারা ভিজিবল না এখন।

‘দেখলাম পত্রিকায় একজন কনস্টেবল মারা গেছেন। তার আবার ছবি দিয়ে বিরাট করে ছাপা হয়েছে। আর এদিকে শত শত লোক মারা যাচ্ছে তাদের কোনো কথা নেই।‘

করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় সরকারের বিরুদ্ধে ব্যর্থতার অভিযোগও আনেন ফখরুল। বলেন, ‘আমি আগেও বলেছি, আর বলতে চাই না। বিশেষ প্রাণী পানি খায়, ঘোলা করে খায় আরকি। আমরা বহু আগেও তাদেরকে (সরকার) বার বার সুনির্দিষ্টভাবে বলেছি, করোনা মোকাবিলায় এসব ব্যবস্থা নেয়া দরকার। তারা নেননি। বহুদিন পরে তারা এখন এসব ব্যবস্থা (লকডাউন) নিচ্ছেন।’

এখন আর বলে বলে আর বলতে ইচ্ছা করে না জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘কী বলবেন? এদের তো চামড়া মোটা মানে আরকি?’

স্বাস্থ্যমন্ত্রীর আগেই পদত্যাগ করা উচিত ছিল বলেও মনে করেন বিএনপি নেতা। বলেন, ‘দুর্ভাগ্যজনক, উল্টো তারা ডিফেন্ড করছে সবাই সবাইকে। খুব ভালো কাজ করছে। এতো ভালো স্বাস্থ্য মন্ত্রী নাকি আর হয় না।‘

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সভায় নেয়া সিদ্ধান্তও তুলে ধরেন ফখরুল। বলেন, ‘সভায় অবিলম্বে টিকা সংগ্রহ ও বিতরণের রোড ম্যাপ ঘোষণার দাবি জানানো হয়। জনগণ জানতে চায়, সরকার এই পরিস্থিতি মোকাবিলা করার জন্য কী ব্যবস্থা গ্রহণ করছে?’

গত ২০ জুন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সভাপতিত্বে স্থায়ী কমিটির এই বৈঠক হয়। বিএনপি নেতা জানান, বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে, করোনা পরিস্থিতির কারণে বিএনপির সব সাংগঠনিক কর্মসূচি এখন থেকে ভার্চুয়ালি হবে।

আরও পড়ুন:
রইল বাকি আকাশপথ
এবার বন্ধ রেল
হেঁটে ঢাকা ছাড়ছে মানুষ
ময়মনসিংহ থেকে গাড়ি ঢুকতে পারছে না গাজীপুরে
মুন্সিগঞ্জে লকডাউন কার্যকরে ১০ পয়েন্টে চেকপোস্ট

শেয়ার করুন

মন্তব্য