তিন সঙ্গীসহ ধর্মীয় বক্তা নিখোঁজ হওয়ার অভিযোগ

তিন সঙ্গীসহ ধর্মীয় বক্তা নিখোঁজ হওয়ার অভিযোগ

ধর্মীয় বক্তা আবু তোহা মোহাম্মদ আদনান। ফাইল ছবি

ফেসবুক, ইউটিউব ঘেঁটে ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, রংপুর সদরের বাসিন্দা তোহা নিজেকে ইসলামি স্কলার দাবি করেন। পড়াশোনা শেষ না হলেও তিনি ইসলাম ধর্মীয় বিভিন্ন স্পর্শকাতর বিষয়ে নিজের মতো করে ব্যাখা দিয়ে যাচ্ছেন অনেকদিন ধরেই, যা নিয়ে বিতর্কও আছে।

রাজধানীর গাবতলী এলাকা থেকে একসঙ্গে চারজনের নিখোঁজ হওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

এদের একজন সামাজিক মাধ্যমে নানা ধর্মীয় বক্তব্য দিয়ে আলোচিত হয়ে উঠা আবু তোহা মোহাম্মদ আদনান। অন্যরা হলেন তার সহযাত্রী আব্দুল মুহিত, মোহাম্মদ ফিরোজ ও গাড়িচালক আমির উদ্দীন ফয়েজ।

বৃহস্পতিবার রংপুর থেকে ঢাকায় প্রবেশের সময় গাবতলী থেকে তারা নিখোঁজ হন বলে নিউজবাংলাকে জানিয়েছেন আবু তোহার শ্যালক জাকারিয়া হোসেন।

তিনি জানান, তার ভগ্নিপতির সঙ্গে সর্বশেষ যোগাযোগ হয় গাবতলী থেকে রাত ২টা ৩৬ মিনিটে। এরপর থেকে তাদের সবার মোবাইল ফোন বন্ধ হয়ে যায়। এখন পর্যন্ত তাদের অবস্থান সম্পর্কে কোনো তথ্য জানতে পারেননি।

তিনি বলেন, ‘আমাদের সন্দেহ, দুষ্কৃতকারীরা তাদের অপহরণ করেছে।’

নিখোঁজ হওয়ার পর দিন শুক্রবার তোহার স্ত্রী দারুস সালাম থানায় লিখিত অভিযোগ করতে গেলেও তা গ্রহণ করা হয়নি বলে অভিযোগ করেন জাকারিয়া।

তবে বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে মিরপুর বিভাগের উপকমিশনার এ এস এম মাহতাব উদ্দিন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘তারা তো থানাতেই যাননি। ফোনে ওসিকে জানিয়েছে। ওসি তাদের জন্য অপেক্ষা করছেন।’

পুলিশের এই কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘আমার ধারণা লোকজন কোথায় আছে, বিষয়টা তারা জানে।’

ঘটনা সম্পর্কে জানতে শনিবার রাতেও নিউজবাংলা কথা বলেছিল আবু তোহার শ্যালক জাকারিয়া হোসেনের সঙ্গে।

তখন তিনি বলেন, ‘চারজন একসঙ্গে মিসিং হয়েছে। তবে আপনাকে কোনো তথ্য দিতে পারছি না। কারণ, আপনার পরিচয় নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত কোনো তথ্য সরবরাহ করতে পারছি না।’

এরপর প্রতিবেদকের পরিচয়পত্র, নিউজবাংলার লিংক হোয়াটসঅ্যাপে পাঠানোর পর তিনি বলেন, ‘দুঃখিত, আপনাকে পরে তথ্য সরবরাহ করা হবে।’

কে এই আবু তোহা মুহাম্মদ আদনান?

ফেসবুক, ইউটিউব ঘেঁটে ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, রংপুর সদরের বাসিন্দা তোহা নিজেকে ইসলামি স্কলার দাবি করেন। পড়াশোনা শেষ না হলেও তিনি ইসলাম ধর্মীয় বিভিন্ন স্পর্শকাতর বিষয়ে নিজের মতো করে ব্যাখা দিয়ে যাচ্ছেন অনেকদিন ধরেই, যা নিয়ে বিতর্কও আছে।

সম্প্রতি ইউটিউবে প্রকাশিত তার বক্তব্যে ঢাকা শহরকে ‘কেয়ামতের শহর’ হিসাবে উল্লেখ করেন।

নারীর ক্ষমতায়নের বিরুদ্ধেও কথা বলেছেন তিনি। দাবি করেছেন, ‘যে নারী পুরুষের সঙ্গে পাবলিক বাসে উঠে অফিসে যায়, যে নারী সহকর্মী পুরুষের সঙ্গে কথা বলেন তারা দাজ্জালের বাহিনীর সদস্য। ইমাম মাহাদীর বিরুদ্ধে এই নারীরাই যুদ্ধ করবে।’

ইসলাম ধর্মমতে দুনিয়া ধ্বংস তথা কিয়ামতের আগে মুসলিমদের সঙ্গে দাজ্জালের বাহিনীর লড়াই হবে। আর মুসলিমদের নেতৃত্ব দেবেন ইমাম মাহাদী।

ইমাম মাহাদী পৃথিবীতে কবে আসবেন, এ নিয়ে অবশ্য ইসলামিক বক্তাদের মধ্যে বিরোধ আছে। কেউ কেউ নিজেকে ইমাম মাহাদী পরিচয়ও দিয়েছেন নানা সময়।

তোহার দাবি, পরকালে দোজখে নারীদের সংখ্যা বেশি হবে। আর এর জন্য তার ভাষায় ‘নারীর উদ্ধত’ আচরণ দায়ী।

প্রচলিত সমাজ ও রাষ্ট্র ব্যবস্থার বিরুদ্ধেও তোহা নানা সময় উসকানি দেয়ার চেষ্টা করেছেন বলে অভিযোগ আছে।

আরও পড়ুন:
কিশোরী মেয়ের খোঁজে ঢাকায় রিকশা চালাচ্ছেন বাবা
৫ ঘণ্টা পর নিখোঁজ শিশু উদ্ধার
নিখোঁজ বৃদ্ধাকে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিলেন ছাত্রলীগ নেতা
কলেজের উদ্দেশে বের হয়ে বাড়ি ফেরেনি মাফিয়া
নিখোঁজ ঢাবি ছাত্র হাফিজের মরদেহ শহীদ মিনারের পেছনে

শেয়ার করুন

মন্তব্য