ডিএমপি কমিশনারের সরকারি নম্বর স্পুফ করে প্রতারণা

গ্রেপ্তার রফিকুল ইসলাম বাপ্পী

ডিএমপি কমিশনারের সরকারি নম্বর স্পুফ করে প্রতারণা

ডিএমপির কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের সাইবার ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন বিভাগের একটি টিম তাকে সোমবার রাত ২টার দিকে গ্রেপ্তার করে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলামের সরকারি মোবাইল নম্বরটি স্পুফ করে প্রতারণার অভিযোগে এক যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তার নাম রফিকুল ইসলাম বাপ্পী। রংপুরের কোতোয়ালি থানার আলমনগর খামার পাড়া থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

ডিএমপির কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের সাইবার ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন বিভাগের একটি টিম তাকে সোমবার রাত ২টার দিকে গ্রেপ্তার করে।

সাইবার ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন বিভাগের ইন্টারনেট রেফারেল টিমের লিডার সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার ধ্রুব জ্যোতির্ময় গোপ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। গ্রেপ্তার রফিকুল ইসলাম বাপ্পীর বিরুদ্ধে রমনা থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়েছে।

ধ্রুব জ্যোতির্ময় গোপ জানান, একদল প্রতারক ডিএমপি কমিশনারের অব্যবহৃত সরকারি মোবাইল নম্বর স্পুফ করে দেশের বিভিন্ন সরকারি অফিসে কল করে বিধিবহির্ভূতভাবে বিভিন্ন নির্দেশনা প্রদান করে প্রতারণা করেছে। বিষয়টির সত্যতা যাচাই করার জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে প্রযুক্তি ব্যবহার করে ইন্টেলিজেন্স সংগ্রহে জানা যায়, উল্লিখিত স্পুফ নম্বর মোবাইল ডায়ালার অ্যাপ দ্বারা তৈরি করে রংপুর জেলার কোতোয়ালি থানাধীন আলমনগর এলাকা থেকে ব্যবহার করা হচ্ছে।

ইন্টারনেট রেফারেল টিম সোমবার রাত ২টার দিকে বাপ্পীকে তার ভাড়া বাসা থেকে আটক করে। তার কাছ থেকে জব্দ করা মোবাইল ফোনে মোবাইল ডায়ালার অ্যাপ লগড্ ইন অবস্থায় পাওয়া যায়।

ধ্রুব জ্যোতির্ময় গোপ বলেন, বাপ্পী এই অ্যাপ ব্যবহার করে সরকারি অফিসারদের মোবাইল নম্বর স্পুফ করে প্রতারণা করার কথা স্বীকার করেছেন।

আরও পড়ুন:
সাত থানার পুলিশকে হুঁশিয়ারি ডিসি আহাদের
মেডিক্যালে ভর্তি: সকাল ৮টায় কেন্দ্রে থাকার পরামর্শ পুলিশের
জঙ্গিবাদের শেকড় উপড়ে ফেলতে চাই: আইজিপি
ডিএমপির ৬ কর্মকর্তার বদলি
থার্টি ফার্স্ট নাইটে কড়াকড়ি

শেয়ার করুন

মন্তব্য

মৃদুমন্দ বৃষ্টি নিয়ে আষাঢ় এলো দেশে

মৃদুমন্দ বৃষ্টি নিয়ে আষাঢ় এলো দেশে

আষাঢ়ে প্রকৃতিতে বেড়েছে সজিবতা, ফুটেছে বর্ষার ফুল কদম। ছবি: সাইফুল ইসলাম/নিউজবাংলা

বর্ষা ঋতুর প্রথম মাস আষাঢ়ের প্রথম দিনে রাজধানীতে বৃষ্টি ঝরেছে মৃদুমন্দ। তবে কালো মেঘের দাপট আকাশজুড়ে। আগের কয়েক দিনের তুলনায় তফাত খুব একটা দেখা না গেলেও, আষাঢ়ের মন ভাসিয়ে দেয়া অনুভূতি দোলা দিয়েছে অনেককে। প্রকৃতিতে বেড়েছে সজীবতা, ফুটেছে বর্ষার ফুল কদম।

গরমের দাপট কমিয়ে বেশ কয়েক দিন ধরে বৃষ্টি ঝরছে দেশজুড়ে। তবে বাংলা বর্ষপঞ্জির হিসাবে সেটি গ্রীষ্মের অনিয়মিত বর্ষণ, আনুষ্ঠানিকভাবে বর্ষাকালের বৃষ্টি ঝরল মঙ্গলবার। কারণ, এই দিনটিতেই শুরু আষাঢ়ের।

বর্ষা ঋতুর প্রথম মাস আষাঢ়ের প্রথম দিনে রাজধানীতে বৃষ্টি ঝরেছে মৃদুমন্দ। তবে কালো মেঘের দাপট আকাশজুড়ে। কখনও কখনও সেই মেঘ সরিয়ে উঁকি দেয়া সূর্যে ঝলমলিয়ে উঠেছে নগরী। আগের কয়েক দিনের তুলনায় তফাত খুব একটা দেখা না গেলেও, আষাঢ়ের মন ভাসিয়ে দেয়া অনুভূতি দোলা দিয়েছে অনেককে। প্রকৃতিতে বেড়েছে সজীবতা, ফুটেছে বর্ষার ফুল কদম।

বর্ষার প্রথম দিনে ভোর থেকে সকাল পর্যন্ত থেমে থেমে বৃষ্টি হয়েছে ঢাকায়। তবে এর দাপট ছিল কম। ফলে গুমোট ভাব দূর হয়নি নগরে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ শাহীনুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘কাগজে-কলমে আর বাংলার দিনপঞ্জিতে আষাঢ়-শ্রাবণ অর্থাৎ জুনের মাঝামাঝি থেকে আগস্টের মাঝামাঝি পর্যন্ত বর্ষাকাল বলা হয়। তবে আমাদের কাছে তা ভিন্ন।’

তিনি বলেন, ‘আমরা জুনের শুরুকেই বর্ষাকাল ধরে থাকি। এ সময় দেশে মৌসুমি বায়ুর প্রভাব বিরাজ করে। আমাদের কাছে বর্ষাকাল মানে জুন থেকে সেই সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। দেশে তিন মাস শীতকাল থাকে, বাকি ৯ মাস বৃষ্টি আর গরম।’

আষাঢ়ের প্রথম দিনের সকালে কতটুকু বৃষ্টি হয়েছে জানতে চাইলে শাহীনুল বলেন, ‘ঢাকায় ভোর ৬টা থেকে সকাল ৮টা পর্যন্ত ৫ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। তারপর আরও কিছু সময় বৃষ্টি হয়েছে। সেই বৃষ্টির পরিমাণ এখনও রেকর্ড হয়নি।’

মৃদুমন্দ বৃষ্টি নিয়ে আষাঢ় এলো দেশে
বর্ষা ঋতুর প্রথম মাস আষাঢ়ের প্রথম দিনের সকালে রাজধানীতে বৃষ্টি হয়েছে।

এবার কেমন যাবে নগরের বর্ষা, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘কোথাও কখনও নিরবচ্ছিন্ন বৃষ্টি হবে না। মেঘে ঢাকা থাকবে আকাশ। তবে মাঝে মাঝে একটু সোনালি রোদের দেখা পাওয়া যাবে। গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি থেকে মাঝে মাঝে হালকা বা মাঝারি বর্ষণ হতে পারে।’

‘মৌসুমি বায়ু আসার আগে দেশে মে মাসে গড়ে ২৭৭ মিলিমিটার বৃষ্টি হওয়ার কথা থাকলেও এবার হয়েছে ২০৩ মিলিমিটার। জুন মাসে মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে প্রায় ৪৩৫ মিলিমিটার বৃষ্টি হবে।’

করোনা পরিস্থিতির কারণে গত বছরের মতো এবারও কোথাও বর্ষাবরণ উৎসব ছিল না। ফলে অনেকটা নীরবেই ঋতু পরিবর্তন ঘটেছে বাংলা দিনপঞ্জিতে।

এদিকে আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাসে বলা হয়, গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গ ও সংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত লঘুচাপটি বর্তমানে উত্তর-পশ্চিম ঝাড়খন্ড ও সংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। মৌসুমি বায়ুর অক্ষের বর্ধিতাংশ উত্তর প্রদেশ, বিহার, লঘুচাপের কেন্দ্রস্থল, বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চল হয়ে উত্তর-পূর্ব দিকে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের ওপর সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে মাঝারি থেকে প্রবল অবস্থায় বিরাজ করছে।

ঢাকা, খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় এবং রংপুর, রাজশাহী, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি/বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি হতে পারে।

সারা দেশে দিনের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকবে।

আরও পড়ুন:
সাত থানার পুলিশকে হুঁশিয়ারি ডিসি আহাদের
মেডিক্যালে ভর্তি: সকাল ৮টায় কেন্দ্রে থাকার পরামর্শ পুলিশের
জঙ্গিবাদের শেকড় উপড়ে ফেলতে চাই: আইজিপি
ডিএমপির ৬ কর্মকর্তার বদলি
থার্টি ফার্স্ট নাইটে কড়াকড়ি

শেয়ার করুন

হেফাজতের আজহারুল রিমান্ডে

হেফাজতের আজহারুল রিমান্ডে

ঢাকা মহানগর হেফাজতে ইসলামের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আজহারুল ইসলাম। ছবি: সংগৃহীত

হেফাজত নেতা আজহারুল ইসলামকে মঙ্গলবার ভোরে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল। যাত্রাবাড়ী থানা এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি নাশকতার একাধিক মামলার আসামি। ২০১৩ সালের শাপলা চত্বরে হেফাজতের তাণ্ডবের মামলা ছাড়াও সাম্প্রতিক নাশকতার মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

নাশকতার একাধিক মামলার আসামি, ঢাকা মহানগর হেফাজতে ইসলামের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আজহারুল ইসলামকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচ দিনের রিমান্ড আদেশ দিয়েছে আদালত।

ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতের (সিএমএম) বিচারক দেবব্রত বিশ্বাস মঙ্গলবার রিমান্ডের এ আদেশ দেন। এদিন আজহারুল ইসলামকে আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন জানান ডিবির মতিঝিল জোনাল টিমের পরিদর্শক কামরুজ্জামান।

আসামিপক্ষে আইনজীবী মো. পারভেজ, খাদেমুল ইসলাম ও আল মাহমুদ খান রিমান্ড বাতিলের পাশাপাশি জামিন আবেদন করেন। রাষ্ট্রপক্ষে জামিনের বিরোধিতা করেন আদালতে যাত্রাবাড়ী থানার সাধারণ নিবন্ধন শাখার কর্মকর্তা এসআই শাহ আলম।

উভয় পক্ষের শুনানি শেষে বিচারক জামিন আবেদন নাকচ করে রিমান্ডের আদেশ দেন।

নাশকতার একাধিক মামলার আসামি, ঢাকা মহানগর হেফাজতে ইসলামের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আজহারুল ইসলামকে মঙ্গলবার ভোরে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল। যাত্রাবাড়ী থানা এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানান মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ বিভাগের যুগ্ম কমিশনার মাহাবুব আলম।

আজহারুল ইসলামকে ২০১৩ সালের শাপলা চত্বরে হেফাজতের তাণ্ডবের মামলা ছাড়াও সাম্প্রতিক নাশকতার মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে বাংলাদেশে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদির সফর ঠেকাতে হেফাজত দেশজুড়ে তাণ্ডব চালায়।

মোদির বাংলাদেশ সফরের বিরোধিতা করে গত ২৬ মার্চ রাজধানীর বায়তুল মোকাররমে হেফাজতের কর্মসূচিতে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। ওই সংঘর্ষের জেরে সহিংসতা হয় চট্টগ্রাম, নারায়ণগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, হবিগঞ্জ ও কিশোরগঞ্জে। এতে অনেক হতাহতের ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনার পর থেকে সরকারের সঙ্গে হেফাজতের দূরত্ব বাড়তে থাকে। বিভিন্ন মামলায় গত কয়েক দিনে গ্রেপ্তার হয়েছেন ধর্মভিত্তিক সংগঠনটির অন্তত ৩৫ নেতা। নাশকতার বিভিন্ন ঘটনায় এসব নেতার ভূমিকা যাচাইয়ে দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

আরও পড়ুন:
সাত থানার পুলিশকে হুঁশিয়ারি ডিসি আহাদের
মেডিক্যালে ভর্তি: সকাল ৮টায় কেন্দ্রে থাকার পরামর্শ পুলিশের
জঙ্গিবাদের শেকড় উপড়ে ফেলতে চাই: আইজিপি
ডিএমপির ৬ কর্মকর্তার বদলি
থার্টি ফার্স্ট নাইটে কড়াকড়ি

শেয়ার করুন

প্রটোকলের আশা ছিল, পাইনি: পরীমনি

প্রটোকলের আশা ছিল, পাইনি: পরীমনি

ডিবি কার্যালয়ের উদ্দেশে বাসা থেকে বের হওয়ার সময় ক্যামেরাবন্দি হন পরীমনি। ছবি: নিউজবাংলা

‘আমি অপেক্ষা করছিলাম যে, কেউ আমাকে প্রোটোকল দিয়ে নেয় কিনা। আসলে কেউ আসে নাই। সো আমারই যেতে হচ্ছে। কারণ আমার তো যাইতে হবে। কথা বলতে হবে তাদের সাথে।’

আলোচিত চলচ্চিত্র অভিনেত্রী পরীমনি মঙ্গলবার নিজ বাসা থেকে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) কার্যালয়ে যাওয়ার পথে পুলিশি প্রটোকল পাওয়ার আশা করেছিলেন। তবে সেটা না পেয়ে শেষপর্যন্ত নিজের ব্যক্তিগত গাড়িতে চড়েই বনানী থেকে রওনা হন মিন্টো রোডের উদ্দেশে।

ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে মামলায় প্রধান অভিযুক্তরা গ্রেপ্তার হওয়ার পরদিন পরীমনিকে ডিবি কার্যালয়ে ডেকে পাঠানো হয়। ডিবির কর্মকর্তারা জানান, মামলার তদন্তের জন্য পরীমনির বক্তব্য দরকার। আর সে জন্যই ডাকা হয় পরীমনিকে।

এতে সাড়া দিয়ে বেলা সোয়া ৩টার দিকে নিজের বাসা থেকে একটি সাদা রংয়ের প্রাইভেট কারে বেরিয়ে যান পরীমনি। এ সময় তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি অপেক্ষা করছিলাম যে, কেউ আমাকে প্রোটোকল দিয়ে নেয় কিনা। আসলে কেউ আসে নাই। সো আমারই যেতে হচ্ছে। কারণ আমার তো যাইতে হবে। কথা বলতে হবে তাদের সাথে।’

কোথায় যাচ্ছেন জানতে চাইলে তিনি শুরুতে বলেন, ‘ডিসি অফিস।’ পরে সংশোধন করে বলেন, ‘ডিবি অফিস।’

পরীমনিকে পুলিশের নিয়ে যাওয়ার কথা ছিল কিনা, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘নিয়ে যাওয়ার কথা ছিল না। তবে আমি আশা করছিলাম যে, আমি একটা প্রোটোকল পাব।’

তাহলে প্রোটোকল ছাড়াই যাচ্ছেন কেন- এমন প্রশ্নে পরীমনি বলেন, ‘আমার তো এখন সাংবাদিক ভায়েরা আছেন। আপনারা আছেন। তবে আমি কোনো প্রোটোকল চাইনি। আসলে মনে মনে আশা করছিলাম, কিন্তু মনে মনে চাইলে তো আর হয় না। আমি বলিনি তাদেরকে।

‘এখন তো আমার মনে হয় রাস্তায় হঠাৎ করে আমাকে কেউ আক্রমণ করবে না। আমি এখন নিরাপদ আমার মনে হয়। কারণ সবাই এখন জানে জিনিসটা।’

বাসা থেকে বের হওয়ার প্রায় পৌনে দুই ঘণ্টা পর মিন্টো রোডের গোয়েন্দা পুলিশ কার্যালয়ে পৌঁছান পরীমনি। এর প্রায় দুই ঘণ্টা পর বেরিয়ে তিনি পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ ও পুলিশের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

পরীমনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘আপনারা দেখতে পাচ্ছেন আমি আসলে মেন্টালি কতটা স্ট্রং হয়ে গেছি। সবাই এত সাপোর্ট দিয়েছেন…।’

এর আগে রোববার রাতে এক ফেসবুক পোস্টে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ তুলে দেশজুড়ে আলোচনার জন্ম দেন পরীমনি। ওই পোস্টে তিনি লেখেন, ‘এই বিচার কই চাইব আমি? কোথায় চাইব? কে করবে সঠিক বিচার? আমি খুঁজে পাইনি গত চার দিন ধরে। থানা থেকে শুরু করে আমাদের চলচ্চিত্রবন্ধু বেনজীর আহমেদ আইজিপি স্যার! আমি কাউকে পাই না মা (প্রধানমন্ত্রী)।’

তবে ডিবি কার্যালয় থেকে বেরিয়ে পুলিশের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা ছিল পরীমনির কণ্ঠে।

আইজিপি বেনজীর আহমেদের বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে পরীমনি বলেন, ‘আমার একমাত্র ভরসা উনিই ছিলেন। আমি সে পর্যন্ত পৌঁছাতে পারতেছিলাম না বলেই এসব কথা। তিনি যখন জেনেছেন এই কথাটা, বেনজীর স্যার যখন জেনেছেন, তার কান অবধি গেছে, কান অবধি পৌঁছাতে পেরেছি, তখন তো আপনারা দেখলেন, কয়েক ঘণ্টা লাগছে মাত্র।

‘আমার তো মূল বিশ্বাসটা ওইটাই ছিল, তার কান অবধি পৌঁছালে সে একদম সেটা নিজের মতো করে দেখে নেবে।’

পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রথম দিকে হতাশার কারণ জানতে চাইলে পরীমনি বলেন, ‘আমি ওই পর্যন্ত যেতে পারছিলাম না, এটা নিয়েই তো এতক্ষণ কথা বলছি।’

ডিবি কার্যালয়ে যাওয়ার অভিজ্ঞতা জানিয়ে পরীমনি বলেন, ‘এখানে এসে আমি আসলে মেন্টালি অনেক রিফ্রেশড। আমি যে কাজে ফিরব, এটা কেউ আমাকে কিন্তু বলেনি। আমার আশপাশে যারা ছিল তারা সবাই আমাকে সান্ত্বনা দেয়ার চেষ্টা করেছে কিন্তু আমার যে কাজে ফিরতে হবে, আমাকে এই শক্তিটা তারা (পুলিশ) জুগিয়েছেন এতক্ষণ ধরে।’

গোয়েন্দা পুলিশ কার্যালয়ে কী বিষয়ে কথা হয়েছে জানিয়ে এই অভিনেত্রী বলেন, ‘আমার কাজ নিয়ে কথা বলেছে, আমাকে নানা রকম গুড ভাইভ দেয়া হচ্ছে। আমার নরমাল লাইফে কীভাবে ফিরে যাব। আমি এতটা তাদের কাছে আশা করিনি। তারা এতটা বন্ধুসুলভ, একটা ম্যাজিকের মতো হয়ে গেছে।

গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার হারুন-অর-রশিদেরও প্রশংসা করেন পরীমনি। বলেন, ‘এত তাড়াতাড়ি হারুন স্যার যেভাবে ম্যাজিকের মতো কয়েক ঘণ্টার মধ্যে…। ঘুমিয়ে মানুষ জাগে সকালে, সেইটাও আমি সুযোগটা পাইনি। মানে ঘুমানোরই আমি টাইম পাইনি। তার আগেই দেখলাম যে এত দ্রুত কাজগুলো (আসামিদের গ্রেপ্তার) হয়ে গেছে।’

আরও পড়ুন:
সাত থানার পুলিশকে হুঁশিয়ারি ডিসি আহাদের
মেডিক্যালে ভর্তি: সকাল ৮টায় কেন্দ্রে থাকার পরামর্শ পুলিশের
জঙ্গিবাদের শেকড় উপড়ে ফেলতে চাই: আইজিপি
ডিএমপির ৬ কর্মকর্তার বদলি
থার্টি ফার্স্ট নাইটে কড়াকড়ি

শেয়ার করুন

আইনজীবীদের আন্দোলনে আদালতের বিচারকাজ বিঘ্নিত

আইনজীবীদের আন্দোলনে আদালতের বিচারকাজ বিঘ্নিত

মঙ্গলবার মহানগর দায়রা জজ আদালতের সামনে আইনজীবীরা মানববন্ধন করেন। ছবি: নিউজবাংলা।

মানববন্ধন শেষে ঢাকা মহানগর দায়রা জজের মাধ্যমে প্রধান বিচারপতিকে একটি স্মারকলিপি প্রদান করতে যান আইনজীবীরা। তবে সংশ্লিষ্ট বিচারকের অফিস থেকে এই স্মারকলিপি গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানানো হয়। তাই আন্দোলনরত আইনজীবীরা স্মারকলিপির একটি কপি মহানগরা দায়রা জজ আদালতের এজলাসের সামনে দরজায় টাঙিয়ে দেন।

নিয়মিত আদালত খুলে দেয়ার দাবিতে আইনজীবীদের আন্দোলনের কারণে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের ভার্চুয়াল জামিন শুনানি ঘণ্টাখানেকের জন্য বন্ধ ছিল।

মঙ্গলবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে মহানগর দায়রা জজ আদালতের সামনে আইনজীবীরা মানববন্ধন শুরু করলে এ ঘটনা ঘটে।

সাধারণ আইনজীবীদের ব্যানারে এ মানববন্ধনে ব্যবহার করা মাইকের শব্দে এ সময় মহানগর দায়রা আদালতের ভার্চুয়াল জামিন শুনানি বন্ধ হয়ে যায়।

বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল্লাহ আবু, অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর তাপস কুমার পালসহ সরকারি কয়েকজন আইনজীবী এসে এজলাসের সামনে থেকে মাইক সরিয়ে নিতে বলেন।

এ নিয়ে সাধারণ আইনজীবীদের সঙ্গে তাদের কিছুটা বাকবিতণ্ডা হয়।

তবে সাধারণ আইনজীবীদের চাপে একপর্যায়ে তারা সেখান থেকে চলে যান।

মহানগর দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর তাপস কুমার পাল নিউজবাংলাকে বলেন, এজলাসের সামনে মাইক লাগানোয় বিচারক আদালতের শুনানির কথা বুঝতে পারছিলেন না।

পরে মহানগর পিপি আইনজীবীদের অনুরোধ করলে আন্দোলনকারীরা মাইক সরিয়ে নেন।

মাইকের শব্দে প্রায় ঘণ্টাব্যাপি মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারকাজ বন্ধ রাখা হয়।

এদিকে মহানগর পিপিসহ তার সঙ্গীরা চলে যাওয়ার পর বেলা ১২টা ১০ মিনিটের দিকে ঢাকা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান মামুন, বর্তমান সিনিয়র সহসম্পাদক সালাহউদ্দিনসহ আওয়ামীপন্থি কয়েকজন আইনজীবী আন্দোলনকারীদের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন।

তবে চাপের মধ্যেও শেষ পর্যন্ত সাধারণ আইনজীবীরা আন্দোলন চালিয়ে যান।

মানববন্ধন শেষে ঢাকা মহানগর দায়রা জজের মাধ্যমে প্রধান বিচারপতিকে একটি স্মারকলিপি প্রদান করতে যান আইনজীবীরা।

তবে সংশ্লিষ্ট বিচারকের অফিস থেকে এই স্মারকলিপি গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানানো হয়।

তাই আন্দোলনরত আইনজীবীরা স্মারকলিপির একটি কপি মহানগরা দায়রা জজ আদালতের এজলাসের সামনে দরজায় টাঙিয়ে দেন।

মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মকবুল হোসেন ফকির।

এ সময় বক্তব্য রাখেন ঢাকা আইনজীবী সমিতির সাবেক লাইব্রেরি সম্পাদক ইসমাইল ফকির, সাবেক কোষাধ্যক্ষ শামসুজ্জামান, সাবেক অফিস সেক্রেটারি শহীদ গাজী ও এইচ এম মাসুম, সাবেক কার্যনির্বাহী সদস্য আবু হেনা কাউছারসহ আরও অনেকে।

আরও পড়ুন:
সাত থানার পুলিশকে হুঁশিয়ারি ডিসি আহাদের
মেডিক্যালে ভর্তি: সকাল ৮টায় কেন্দ্রে থাকার পরামর্শ পুলিশের
জঙ্গিবাদের শেকড় উপড়ে ফেলতে চাই: আইজিপি
ডিএমপির ৬ কর্মকর্তার বদলি
থার্টি ফার্স্ট নাইটে কড়াকড়ি

শেয়ার করুন

বিরক্ত পরীমনি বললেন শিল্পী সমিতি পাশে নেই

বিরক্ত পরীমনি বললেন শিল্পী সমিতি পাশে নেই

শিল্পী সমিতি নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন পরীমনি। ছবি: সংগৃহীত

পরীমনির সংবাদ সম্মেলনের পর বিষয়টি নিয়ে তৎপর হয় পুলিশ। অভিযোগের দুইদিন পর নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দেয় বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি।

আলোচিত চলচ্চিত্র অভিনেত্রী পরীমনি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির উপর এখনও হতাশ ও বিরক্ত।

গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কার্যালয় থেকে বেরিয়ে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

আপনার সংগঠন চলচ্চিত্র সমিতি নিয়ে তো হতাশা প্রকাশ করেছিলেন, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে পরীমনি বলেন, ‘জ্বী, আমি এখনও করি।’

শিল্পী সমিতি আমাদের কাছে ক্লিয়ার করেছে যে আপনি… সাংবাদিকের এমন প্রশ্নের শেষ না করতেই বিরক্ত পরীমনি বলেন, ‘আপনারা কী আমার কাছে ক্লিয়ারেন্স চেয়েছেন যে, আমি দেব। এখন আমার দিতে হবে প্রমাণ? তার (শিল্পী সমিতি সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান) সঙ্গে আমার চ্যাটিং ট্যাটিং সব দিবো?’

পরীমনি বলেন, ‘আমি প্রথমেই তাকে বলেছিলাম আমাকে তুমি হেল্প করো জায়েদ, আমি স্যারের সঙ্গে একটু বসতে চাই শিল্পী সমিতি থেকে। বেনজীর স্যারের সাথে আমি একটু বসতে চাই। তোমরা একটু ব্যবস্থা করে দাও শিল্পী সমিতির হয়ে। আমি মামলা করতে চাই। এই লাইনগুলো কিন্তু প্রথম দিনেই তাকে বলেছি। সে আমাকে বলেছে, ডিটেইলটা বলার জন্য তোমাকে তো একটু আসতে (শিল্পী সমিতিতে) হবে। তুমি আসো, আমরা বসে কথা বলি, ঠিক করে ফেলি। ঠিক তো করার নেই এখানে কিছু।’

পরীমনি ৯ জুন রাতে ফেসবুক স্ট্যাটাসে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ আনার কয়েক ঘণ্টা পর বিষয়টির বিস্তারিত নিয়ে গণমাধ্যমের সামনে আসেন। সংবাদ সম্মেলনে পরীমনি অভিযোগ করেন সমিতির সহায়তা চেয়েও পাননি তিনি।

পরীমনির সংবাদ সম্মেলনের পর বিষয়টি নিয়ে তৎপর হয় পুলিশ। অভিযোগের দুইদিন পর নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দেয় বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি।

সোমবার মধ্যরাতে গণমাধ্যমে পাঠানো সেই বিবৃতিতে বলা হয়, ‘সম্প্রতি সাভারের বিরুলিয়া এলাকায় বোট ক্লাবে চিত্রনায়িকা পরীমনির সঙ্গে ঘটে যাওয়া অপ্রীতিকর ঘটনার প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করছে।’

বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, ‘এ বিষয়ে ইতোমধ্যেই মামলা রুজু হয়ে গেছে এবং কিছু আসামি গ্রেপ্তার হয়েছে। উক্ত মামলায় দোষী ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

‘বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি পরীমনির সার্বিক সহযোগিতা করতে দৃঢ় অঙ্গীকারবদ্ধ।’

ঘটনার এতো পরে কেন নিন্দা জানানো হলো জানতে চাইলে নিউজবাংলাকে জায়েদ বলেন, ‘পরীমনি শিল্পী সমিতির মাধ্যমে পুলিশের মহাপরিচালক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদের সঙ্গে দেখা করতে চেয়েছিলেন। আমি এর ব্যবস্থা করব বলে পরীমনিকে জানিয়েছিলাম। কিন্তু কাজটি করার সময় না দিয়েই পরীমনি তার নিজের সিদ্ধান্তে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছেন।

‘যেহেতু আমি পরীমনিকে দেয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী কাজটি করছিলাম তাই নিন্দা জ্ঞাপন করিনি। কিন্তু যখন দেখলাম, আমাদের কিছু করার সুযোগ না দিয়েই তিনি এগোচ্ছেন তখনই আমরা নিন্দা জ্ঞাপন করেছি।’

জায়েদ খান আরও বলেন, ‘পরীমনি কিন্তু সমিতিকে জানিয়ে কিছু করেননি। সমিতি যদি তার পদক্ষেপ সম্পর্কে জানত, তাহলে আরও অনেক অ্যাকশন নিত। তাছাড়া তিনি কিন্তু কোনো অভিযোগ করেনি সমিতিতে। তিনি শুধু আইজিপির সঙ্গে দেখা করতে চেয়েছেন।’

আরও পড়ুন:
সাত থানার পুলিশকে হুঁশিয়ারি ডিসি আহাদের
মেডিক্যালে ভর্তি: সকাল ৮টায় কেন্দ্রে থাকার পরামর্শ পুলিশের
জঙ্গিবাদের শেকড় উপড়ে ফেলতে চাই: আইজিপি
ডিএমপির ৬ কর্মকর্তার বদলি
থার্টি ফার্স্ট নাইটে কড়াকড়ি

শেয়ার করুন

কিশোর গ্যাং-ছিনতাইকারী নিয়ে আরও সতর্কতা চান ডিএমপি কমিশনার

কিশোর গ্যাং-ছিনতাইকারী নিয়ে আরও সতর্কতা চান ডিএমপি কমিশনার

ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম। ফাইল ছবি

একাধিক পুলিশ কর্মকর্তার সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, ঢাকা মহানগরীর সার্বিক আইনশৃঙ্খলা ও অপরাধ কর্মকাণ্ডের ‘ডিটেকশন’ নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করলেও কিশোর গ্যাং ও তাদের কর্মকাণ্ড নিয়ে পুলিশকে আরও সতর্ক হওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন ডিএমপি কমিশনার।

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় সক্রিয় হয়ে ওঠা কিশোর গ্যাং সদস্যদের খুঁজে বের করে ‘প্রোঅ্যাক্টিভ ব্যবস্থা’ গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম।

মঙ্গলবার ডিএমপি হেডকোয়ার্টারে পুলিশের মাসিক ক্রাইম কনফারেন্সে উপস্থিত কর্মকর্তাদের এ নির্দেশনা দেন তিনি। এছাড়া বিভিন্ন থানা এলাকার ছিনতাইকারী শনাক্ত, গ্রেপ্তার ও ছিনতাইয়ের ঘটনায় করা মামলা তদন্তে গুরুত্ব দিয়েছেন ডিএমপি কমিশনার।

বৈঠকে উপস্থিত একাধিক পুলিশ কর্মকর্তার সঙ্গে আলাপ করে এ সব তথ্য জানা গেছে।

তারা আরও জানান, ঢাকা মহানগরীর সার্বিক আইনশৃঙ্খলা ও অপরাধ কর্মকাণ্ডের ‘ডিটেকশন’ নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করলেও কিশোর গ্যাং ও তাদের কর্মকাণ্ড নিয়ে পুলিশকে আরও সতর্ক হওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন ডিএমপি কমিশনার।

পুলিশ কর্মকর্তারা জানান, সম্প্রতি পরিকল্পনামন্ত্রীর মোবাইল ফোন ছিনতাইসহ বিভিন্ন এলাকায় চুরি ও ছিনতাইয়ের ঘটনায় করা মামলা তদন্তে জোর দিতে বলেছেন তিনি।

ডিএমপি কমিশনার রাজধানীতে টানা পার্টি ও মলম পার্টির সদস্যদের শনাক্তের পাশাপাশি ব্যাটারিচালিত রিকশা ও অবৈধ সিএনজিচালিত অটোরিকশার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে বলেছেন। কোথায় কোথায় ব্যাটারি চার্জ দেয়া হয় সেসব জায়গাও চিহ্নিত করতে বলেছেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে ডিএমপির জনসংযোগ শাখার অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার ইফতেখাইরুল ইসলাম নিউজবাংলাকে জানান, করোনাকালে গত চার মাসে ডিএমপির মাসিক কনফারেন্স হয়নি। এই সময়ের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের ঘটনা তদন্তে যারা কৃতিত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন তাদেরকে কমিশনারের পক্ষ থেকে পুরস্কৃত করা হয়েছে। চুরি, ছিনতাই চক্র, কিশোর গ্যাং ও চাঞ্চল্যকর মামলার তদন্ত নিয়ে আলোচনা করে বিভিন্ন গাইডলাইন দিয়েছেন ডিএমপি কমিশনার।

সকাল ১০টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত ডিএমপি কমিশনারের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত ক্রাইম কনফারেন্সে পুলিশের ঊধ্বর্তন কর্মকর্তাদের পাশাপাশি ঢাকা মহানগরীর সব থানার ওসি উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
সাত থানার পুলিশকে হুঁশিয়ারি ডিসি আহাদের
মেডিক্যালে ভর্তি: সকাল ৮টায় কেন্দ্রে থাকার পরামর্শ পুলিশের
জঙ্গিবাদের শেকড় উপড়ে ফেলতে চাই: আইজিপি
ডিএমপির ৬ কর্মকর্তার বদলি
থার্টি ফার্স্ট নাইটে কড়াকড়ি

শেয়ার করুন

ডিএনসিসিতে সুশাসনের লক্ষ্যে ৫ জন চাকরিচ্যুত

ডিএনসিসিতে সুশাসনের লক্ষ্যে ৫ জন চাকরিচ্যুত

ডিএনসিসি মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে সব ক্ষেত্রে সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীর স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ বলেও জানানো হয় সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে।

সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে চলতি বছরের গত সাড়ে ৫ মাসে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) পাঁচজন দৈনিক মজুরিভিত্তিক মাস্টাররোল শ্রমিক/কর্মীকে বিভিন্ন অপরাধে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে।

মঙ্গলবার ডিএনসিসির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে জানানো হয়, ১৪ জুনের অফিস আদেশ মোতাবেক মাদকদ্রব্য বহনের অভিযোগে ডিএনসিসির পরিবহন বিভাগের দৈনিক মজুরিভিত্তিক মাস্টাররোল শ্রমিক/কর্মী (গাড়িচালক) মো. হোসেন মিয়াকে ৪ জুন চাকরিচ্যুত করা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ২৩ মের অফিস আদেশ মোতাবেক দায়িত্ব পালনে অবহেলার কারণে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগ অঞ্চল-৫-এর দৈনিক মজুরিভিত্তিক ক্লিনার বর্তমানে পরিবহন বিভাগে কর্মরত মো. ফরিদ হোসেন হাওলাদারকে চাকরিচ্যুত করা হয়।

১৪ ফেব্রুয়ারি অফিস আদেশ মোতাবেক জেল হাজতে আটক থাকায় পরিবহন বিভাগের দৈনিক মজুরিভিত্তিক শ্রমিক/কর্মী মো. সাগরকে চাকরিচ্যুত করা হয়।

১০ জানুয়ারি অফিস আদেশ মোতাবেক বিনা অনুমতিতে কর্মস্থলে অনুপস্থিতজনিত কারণে সম্পত্তি বিভাগের (কাজ করলে মজুরি, না করলে নাই ভিত্তিতে) নিয়োজিত অদক্ষ শ্রমিক (উচ্ছেদ শ্রমিক) আব্দুর রাজ্জাককে গত ৪ সেপ্টেম্বর থেকে চাকরিচ্যুত করা হয়।

এ ছাড়া ১০ জানুয়ারি অফিস আদেশ মোতাবেক বিনা অনুমতিতে কর্মস্থলে অনুপস্থিতজনিত কারণে ওয়ার্ড-৫ অঞ্চল-৭-এ (কাজ করলে মজুরি, না করলে নাই ভিত্তিতে) নিয়োজিত অদক্ষ শ্রমিক (মশককর্মী) হাসিবুল হাসানকে ২৫ আগস্ট থেকে চাকরিচ্যুত করা হয়।

ডিএনসিসি মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে সব ক্ষেত্রে সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীর স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ বলেও জানানো হয় সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে।

আরও পড়ুন:
সাত থানার পুলিশকে হুঁশিয়ারি ডিসি আহাদের
মেডিক্যালে ভর্তি: সকাল ৮টায় কেন্দ্রে থাকার পরামর্শ পুলিশের
জঙ্গিবাদের শেকড় উপড়ে ফেলতে চাই: আইজিপি
ডিএমপির ৬ কর্মকর্তার বদলি
থার্টি ফার্স্ট নাইটে কড়াকড়ি

শেয়ার করুন