বিমানবাহিনীর অফিসার পরিচয়দানকারী দুই প্রতারক রিমান্ডে

ঢাকার সিএমএম কোর্ট। ছবি: সংগৃহীত

বিমানবাহিনীর অফিসার পরিচয়দানকারী দুই প্রতারক রিমান্ডে

গোয়েন্দা পুলিশ বলছে, গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা পেশাদার প্রতারক চক্রের সক্রিয় সদস্য। তারা বিমানবাহিনীর সিনিয়র ওয়ারেন্ট অফিসারের ছদ্মবেশ ধারণ করে প্রতারণা করে আসছিলেন।

বিমানবাহিনীর সিনিয়র ওয়ারেন্ট অফিসার হিসেবে ভুয়া পরিচয় দিয়ে প্রতারণার অভিযোগে গ্রেপ্তার দুইজনকে এক দিনের রিমান্ডে পেয়েছে পুলিশ।

সোমবার সন্ধ্যায় মুখ্য মহানগর আদালতে (সিএমএম) আসামিদের হাজির করে সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গোয়েন্দা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আবুল কালাম।

আসামি পক্ষে রিমান্ড বাতিল এবং জামিন চেয়ে শুনানি করেন ফরিদ ওয়াহিদ বখতিয়ার ও মোর্শেদ মোল্লা। রাষ্ট্রপক্ষে আদালতে সাধারণ নিবন্ধন শাখার কর্মকর্তা এসআই জালাল উদ্দিন রিমান্ডের পক্ষে শুনানি করেন।

উভয় পক্ষের শুনানি শেষে বিচারক রাজেস চৌধুরী এক দিনের রিমান্ড আদেশ দেন বলে নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেন এসআই জালাল উদ্দিন।

আসামি দুইজন হলেন সদয় কৃষ্ণ দাস ও মো. তানভীর মাহমুদ ওরফে দৌলত। গত রোববার তাদের গোয়েন্দা পুলিশের ওয়ারী বিভাগের একটি দল গ্রেপ্তার করে।

পুলিশ সংবাদ পায়, কতিপয় লোক বিমানবাহিনীর সিনিয়র ওয়ারেন্ট অফিসারের পরিচয় দিয়ে প্রতারণার উদ্দেশ্যে রাজধানী উত্তরার ১৩ নং সেক্টরের ১৩ নং বাসার সামনে অবস্থান করছেন।

এরপর সেখানে অভিযান চালায় গোয়েন্দা ওয়ারী বিভাগের একটি দল। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালানোর চেষ্টাকালে দুইজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গোয়েন্দা পুলিশ জানায়, গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা পেশাদার প্রতারক চক্রের সক্রিয় সদস্য। তারা বিমানবাহিনীর সিনিয়র ওয়ারেন্ট অফিসারের ছদ্মবেশে প্রতারণা করে আসছিলেন।

গ্রেপ্তারের পর তাদের বিরুদ্ধে উত্তরা পশ্চিম থানায় পুলিশ বাদী হয়ে দুষ্কর্মে সহায়তা, প্রতারণা ও সরকারি কর্মচারীর ছদ্মবেশ ধারণের অভিযোগে একটি মামলা করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
হাসপাতালে চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা, গ্রেপ্তার ১
বিয়ের নামে প্রতারণা, গর্ভের সন্তানও চান না ‘হাফেজ’
সরকারি কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রতারণার অভিযোগে গ্রেপ্তার
২২ মামলায় ‘পলাতক’ দম্পতি গ্রেপ্তার
ভিয়েতনামি বলে দেশি নারকেলের চারা বিক্রি

শেয়ার করুন

মন্তব্য

এসআই পদে জগন্নাথের ১০৬ জন

এসআই পদে জগন্নাথের ১০৬ জন

পুলিশের ৩৮তম বহিরাগত ক্যাডেট সাব-ইন্সপেক্টর (এসআই) পদে নিয়োগ পেয়েছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) সাবেক ১০৬ জন শিক্ষার্থী। ছবি: সংগৃহীত

২০২০ সালের ১৪ জুন থেকে রাজশাহীর সারদা পুলিশ অ্যাকাডেমিতে বহিরাগত ক্যাডেট সাব-ইন্সপেক্টরদের (এসআই) প্রশিক্ষণ শুরু হয়। এতে অংশ নেন ১ হাজার ২৩১ জন। ২০২১ সালের ১৪ জুন আনুষ্ঠানিকভাবে বছরব্যাপী এ প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শেষ হয়। সমাপনী অনুষ্ঠানের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন পুলিশ ইউনিটে সদ্য প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সাব-ইন্সপেক্টরদের পোস্টিং দেয়া হয়।

পুলিশের ৩৮তম বহিরাগত ক্যাডেট সাব-ইন্সপেক্টর (এসআই) নিরস্ত্র পদে নিয়োগ পেয়েছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) সাবেক ১০৬ জন শিক্ষার্থী।

প্রশিক্ষণ শেষে পুলিশের এসআইদের বার্ষিক স্মরণিকা ‘বন্ধন’ থেকে এই তথ্য জানা যায়।

এসআই পদে নিয়োগ পাওয়া জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন সাবেক শিক্ষার্থীও নিউজবাংলার প্রতিবেদককে এ তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন। তবে ১০৬ জন নিয়োগ পেলেও ৯৪ বা ৯৬ জনের মতো প্রশিক্ষণ নিয়েছেন।

প্রশিক্ষণ শেষে নিয়োগ পাওয়া কয়েকজন শিক্ষার্থী নিউজবাংলাকে জানিয়েছেন, পুলিশের চাকরিতে প্রচুর কাজ করতে হয়।

‘এটা চ্যালেঞ্জিং পেশা। তবে কোনো পেশাই কষ্ট ছাড়া সুখ নেই। এ পেশাটা কখনও কখনও উপভোগ্য হয়ে ওঠে।’

২০২০ সালের ১৪ জুন থেকে রাজশাহীর সারদা পুলিশ অ্যাকাডেমিতে বহিরাগত ক্যাডেট সাব-ইন্সপেক্টরদের (এসআই) প্রশিক্ষণ শুরু হয়। এতে অংশ নেন ১ হাজার ২৩১ জন। ২০২১ সালের ১৪ জুন আনুষ্ঠানিকভাবে বছরব্যাপী এ প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শেষ হয়। সমাপনী অনুষ্ঠানের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন পুলিশ ইউনিটে সদ্য প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সাব-ইন্সপেক্টরদের পোস্টিং দেয়া হয়। এদের মধ্যে প্রায় এক হাজারজনকে জেলা পুলিশ, বাকিদের অ্যান্টি টেররিজম ইউনিট, সিআইডিসহ অন্যান্য জায়গায় পোস্টিং দেয়া হয়।

এদের মধ্যে অ্যান্টি টেররিজম ইউনিট ঢাকা অব বাংলাদেশ পুলিশের জন্য মনোনীত হয়েছেন জগন্নাথের নবম ব্যাচের মো. মামুন মিয়া। এ পদে সারা বাংলাদেশ থেকে ১২ জনের একজন হওয়ার গৌরব অর্জন করেন তিনি।

বললেন, সবার দোয়ায় সেই বহু কাঙ্ক্ষিত প্রথম চয়েজটা পেয়ে গেলাম। আমার স্বপ্ন পূরণ হয়েছে।

প্রশিক্ষণ শেষে সাব-ইন্সপেক্টর পদে নিয়োগ পাওয়া জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী শামীম রেজা বলেন, পুলিশের চাকরি খুবই চ্যালেঞ্জিং। প্রচুর কাজ করতে হয়। তবে পেশাটা উপভোগ্য। প্রশিক্ষণে অনেক কৌশল ও দেশের শান্তি, শৃঙ্খলা, নিরাপত্তা রক্ষার নানান বিষয় জানতে পেরেছি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদ, বিজ্ঞান অনুষদ এবং সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ থেকে প্রায় সমানসংখ্যক শিক্ষার্থী রয়েছেন।

এর আগে পুলিশের ৩৭তম ক্যাডেটে এসআই ১ হাজার ৭৫৯ জনের মধ্যে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৪৮ জন সাবেক শিক্ষার্থী এবং ৩৬তম এসআই পদে ১১১ জন শিক্ষার্থী নিয়োগ পেয়েছিলেন।

আরও পড়ুন:
হাসপাতালে চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা, গ্রেপ্তার ১
বিয়ের নামে প্রতারণা, গর্ভের সন্তানও চান না ‘হাফেজ’
সরকারি কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রতারণার অভিযোগে গ্রেপ্তার
২২ মামলায় ‘পলাতক’ দম্পতি গ্রেপ্তার
ভিয়েতনামি বলে দেশি নারকেলের চারা বিক্রি

শেয়ার করুন

সাত কলেজের ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু জুলাই থেকে

সাত কলেজের ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু জুলাই থেকে

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সাত কলেজের মধ্যে অন্যতম ঢাকা কলেজ। ছবি: সংগৃহীত

সাত কলেজের সমন্বয়ক ও ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক আই কে সেলিমউল্লাহ খন্দকার নিউজবাংলাকে বলেন, আজকের বৈঠকে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, জুলাই মাসের ১ তারিখ থেকে স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তির আবেদন নেয়া হবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কৃর্তপক্ষ ভর্তি বিজ্ঞপ্তি দেবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সাত কলেজের স্নাতক (২০২০-২১) প্রথম বর্ষের ভর্তির আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হবে আগামী জুলাই মাস থেকে।

সোমবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) ও সাত কলেজের প্রধান সমন্বয়ক অধ্যাপক এএসএম মাকসুদ কামালের সঙ্গে সাত কলেজের অধ্যক্ষদের সঙ্গে বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়।

এ বিষয়ে সাত কলেজের সমন্বয়ক ও ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক আই কে সেলিমউল্লাহ খন্দকার নিউজবাংলাকে বলেন, আজকের বৈঠকে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, জুলাই মাসের ১ তারিখ থেকে স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তির আবেদন নেয়া হবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কৃর্তপক্ষ ভর্তি বিজ্ঞপ্তি দেবে।

কলেজগুলো হলো ঢাকা কলেজ, ইডেন মহিলা কলেজ, সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ, কবি নজরুল সরকারি কলেজ, বেগম বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজ, মিরপুর সরকারি বাঙলা কলেজ ও সরকারি তিতুমীর কলেজ।

আরও পড়ুন:
হাসপাতালে চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা, গ্রেপ্তার ১
বিয়ের নামে প্রতারণা, গর্ভের সন্তানও চান না ‘হাফেজ’
সরকারি কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রতারণার অভিযোগে গ্রেপ্তার
২২ মামলায় ‘পলাতক’ দম্পতি গ্রেপ্তার
ভিয়েতনামি বলে দেশি নারকেলের চারা বিক্রি

শেয়ার করুন

ডেমরা-মাতুয়াইলে জলপ্রবাহের জায়গা পুনরুদ্ধার, খনন শুরু

ডেমরা-মাতুয়াইলে জলপ্রবাহের জায়গা পুনরুদ্ধার, খনন শুরু

অভিযান প্রসঙ্গে ডিএসসিসির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইরফান উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘সব মিলিয়ে জলপ্রবাহের সেই জায়গায় তিন দিনে প্রায় ৫০০ অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। দখলমুক্তির পর সোমবার বিকেল থেকে সেখানে খননকাজ শুরু হয়েছে।’

রাজধানী ঢাকার ডেমরা ও মাতুয়াইল এলাকার জলপ্রবাহের জায়গা পুনরুদ্ধার করে খননকাজ শুরু করা হয়েছে।

সোমবার ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, দীর্ঘ সময় দখলে থাকা ঢাকা মহানগরীর নিম্নাঞ্চলের জলপ্রবাহের জায়গা পুনরুদ্ধার, ৫২নং ওয়ার্ডের জন্য নির্বাচিত অন্তর্বর্তীকালীন বর্জ্য স্থানান্তর কেন্দ্রের (এসটিএস) জন্য নির্ধারিত জায়গা দখলমুক্ত করা এবং এডিস মশার লার্ভা নিয়ন্ত্রণে অভিযান পরিচালনা করেছে করপোরেশনের তিন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

সোমবার করপোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এ এইচ ইরফান উদ্দিন আহমেদ, করপোরেশনের সম্পত্তি কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ মুনিরুজ্জামান এবং করপোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তানজিলা কবির ত্রপা ভ্রাম্যমাণ আদালতগুলো পরিচালনা করেন।

ডিএসসিসির নিম্নাঞ্চল, বিশেষত ৬৫ নম্বর ওয়ার্ডের জলাবদ্ধতা নিরসনে নগরীর ডেমরা ও মাতুয়াইল এলাকার জলপ্রবাহের জায়গাগুলো খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করলেও দীর্ঘ সময় সেসব জায়গা দুর্বৃত্তদের দখলে ছিল।

ফলে জলাবদ্ধতার সমস্যা প্রকট আকার ধারণ করতে থাকে। এমতাবস্থায় সেই এলাকাগুলোতে দুর্বৃত্তদের দখলে থাকা জলপ্রবাহের জায়গা পুনরুদ্ধারে সোমবার তৃতীয় দিন চূড়ান্ত অভিযান পরিচালনা করেছে ডিএসসিসির ভ্রাম্যমাণ আদালত।

ডেমরা-মাতুয়াইলে জলপ্রবাহের জায়গা পুনরুদ্ধার, খনন শুরু

করপোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এ এইচ এরফান উদ্দিন আহমেদের নেতৃত্বাধীন আদালত সোমবার সেখানে অভিযান পরিচালনা করেছে। অভিযানে জলপ্রবাহের জায়গায় তৈরি করা ব্যবসায়িক স্থাপনা, দোকান, থাকার ঘর, কাঠ ও বাঁশের ব্যবসাসহ নানা প্রতিষ্ঠানের প্রায় ৫০০ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। উদ্ধারকৃত জায়গায় সোমবার বিকেল থেকে খননকাজও শুরু করা হয়।

করপোরেশনের সম্পত্তি কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ মুনিরুজ্জামানের নেতৃত্বাধীন আদালত সোমবার নগরীর ৫২ নম্বর ওয়ার্ডের জন্য নির্বাচিত এসটিএসের জায়গায় অবৈধ দখলে থাকা স্থাপনাসমূহ অপসারণ করছে। দ্বিতীয় দিনের মতো এই অভিযান চালানো হয়। এসব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ কার্যক্রম চলবে।

ডেমরা-মাতুয়াইলে জলপ্রবাহের জায়গা পুনরুদ্ধার, খনন শুরু

করপোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তানজিলা কবির ত্রপার নেতৃত্বাধীন ভ্রাম্যমাণ আদালত সোমবার এডিস মশার লার্ভা নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে ৬২ নম্বর ওয়ার্ডের ৩ নম্বর বাগানবাড়ি এলাকায় ‘মদিনা’ নামের একটি কয়েল কারখানায় অভিযান চালায়। অভিযানে মশার লার্ভা পাওয়ায় একটি মামলা করার পাশাপাশি ২০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

অভিযান প্রসঙ্গে করপোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইরফান উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘ঢাকার নিম্নাঞ্চলে জলপ্রবাহের যে জায়গাগুলো ছিল, দীর্ঘ সময় ধরে সেসব জায়গা নানা কায়দায় দুর্বৃত্তরা দখল করে নেয়। কালের পরিক্রমায় দুর্বৃত্তরা ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান, বাঁশের দোকান, কাঠের দোকান, বসতবাড়ি, অস্থায়ী দোকান ইত্যাদির মাধ্যমে জলপ্রবাহের সেই জায়গাগুলো দখল করেছে।

ডেমরা-মাতুয়াইলে জলপ্রবাহের জায়গা পুনরুদ্ধার, খনন শুরু

‘চলাচলের জায়গা সৃষ্টির নামে জলপ্রবাহের অধিকাংশ জায়গায় দখলদাররা কাঠের দোকান দিয়ে এমনভাবে দখল করে নিয়েছে যে, সেখানে পানিপ্রবাহের ন্যূনতম সুযোগটুকুও অবশিষ্ট ছিল না। সেই জায়গায় এর আগে দুই দিন অভিযান পরিচালনা করে প্রায় ৩০০ অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। আজকের চূড়ান্ত পর্বের অভিযানে সেখানে প্রায় দেড় শতাধিক স্থাপনা উচ্ছেদ করে জলপ্রবাহের পুরো জায়গা দখলমুক্ত করা হয়।’

তিনি বলেন, ‘সব মিলিয়ে জলপ্রবাহের সেই জায়গায় তিন দিনে প্রায় ৫০০ অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। দখলমুক্তির পর সোমবার বিকেল থেকে সেখানে খননকাজ শুরু হয়েছে।’

অভিযান চলাকালে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কাউন্সিলররা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
হাসপাতালে চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা, গ্রেপ্তার ১
বিয়ের নামে প্রতারণা, গর্ভের সন্তানও চান না ‘হাফেজ’
সরকারি কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রতারণার অভিযোগে গ্রেপ্তার
২২ মামলায় ‘পলাতক’ দম্পতি গ্রেপ্তার
ভিয়েতনামি বলে দেশি নারকেলের চারা বিক্রি

শেয়ার করুন

বোট ক্লাবও হারালেন নাসির

বোট ক্লাবও হারালেন নাসির

অভিনেত্রী পরীমনিকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা মামলায় গ্রেপ্তার শিল্পপতি নাসির উদ্দিন মাহমুদ। ছবি: সংগৃহীত

বোট ক্লাবের নির্বাহী সদস্য বখতিয়ার আহমেদ খান। তিনি বলেন, ‘একটা দুঃখজনক ঘটনা ঘটেছে, আমরা সিরিয়াস অ্যাকশন নেব। এরই মধ্যে নাসির উদ্দিনের সদস্যপদ সাসপেন্ড (সাময়িকভাবে বহিষ্কার) করা হয়েছে। সে আর ক্লাব ইউজ করতে পারবে না। ইনকোয়ারি রিপোর্টের পর যদি দেখা যায় অভিযোগ প্রমাণিত, তাহলে তার সদস্যপদ পুরোপুরি ক্যানসেল হয়ে যাবে।’

অভিনেত্রী পরীমনিকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা মামলায় গ্রেপ্তার শিল্পপতি নাসির উদ্দিন মাহমুদকে এবার ঢাকা বোট ক্লাব থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। একই ঘটনায় সদস্যপদ কেড়ে নেয়া হয়েছে আরও দুইজনের।

তাদেরকে সাময়িক বহিষ্কারের বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেন বোট ক্লাবের নির্বাহী সদস্য বখতিয়ার আহমেদ খান। তিনি বলেন, ‘একটা দুঃখজনক ঘটনা ঘটেছে, আমরা সিরিয়াস অ্যাকশন নেব। এরই মধ্যে নাসির উদ্দিনের সদস্যপদ সাসপেন্ড (সাময়িকভাবে বহিষ্কার) করা হয়েছে। সে আর ক্লাব ইউজ করতে পারবে না। ইনকোয়ারি রিপোর্টের পর যদি দেখা যায় অভিযোগ প্রমাণিত, তাহলে তার সদস্যপদ পুরোপুরি ক্যানসেল হয়ে যাবে।’

ঢাকাই চলচ্চিত্রের নায়িকা পরীমনি রোববার রাতে প্রথমে ফেসবুকে এবং পরে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন, গত ৮ জুন উত্তরার পাশের বিরুলিয়ার ঢাকা বোট ক্লাবে তাকে কয়েকজনের সহযোগিতায় ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা চালান নাসির উদ্দিন।

সাংবাদিকদের পরী জানান, ঘটনার পর থেকে দ্বারে দ্বারে ‍ঘুরেও কোথাও কোনো সহযোগিতা পাচ্ছেন না। নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। এমনকি নিজের জীবন নিয়েও আশঙ্কার কথা জানান এই অভিনেত্রী।

বোট ক্লাবও হারালেন নাসির
নাসির উদ্দিন মাহমুদ ধর্ষণ চেষ্টা চালিয়েছিল বলে অভিযোগ পরীমনির

পরীমনির এমনি অভিযোগের পর বিষয়টি নিয়ে তৎপর হয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ এনে ঢাকাই চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় এই নায়িকার করা মামলায় প্রধান দুই আসামি নাসির উদ্দিন ও অমিকে উত্তরা থেকে দুপুরের দিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)।

ঢাকা বোট ক্লাবে ঘটনা নিয়ে বখতিয়ার খান বলেন, ওই দিনের ঘটনায় আরও দুইজন সদস্যের নাম উঠেছে। তাদেরও সাসপেন্ড করা হয়েছে। তারা হলেন অমি ও শাহ আলম।

‘এ ঘটনায় ক্লাব থেকেও একটি তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। ৭২ ঘণ্টার মধ্যে তারা রিপোর্ট প্রদান করবে। এ বিষয়ে আমরা সিরিয়াস, যেহেতু অভিযোগ গুরুতর, আমরা দ্রুত তদন্ত শেষ করব।’

এর আগে দুপুরে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমাদের ক্লাবে প্রায় ২০০০ জন সদস্য রয়েছেন। পরীমনি এই ক্লাবের সদস্য না। তিনি কোনো সদস্যের সঙ্গে অতিথি হিসেবে এসেছিলেন। ঐদিন পরীমনি এসেছিলেন এটা নিশ্চিত হওয়া গেছে।

‘তবে ঠিক কী ঘটেছে তা বলতে পারছি না। এখানে একটা লাইসেন্সড বার রয়েছে। শুধু পারমিটধারী সদস্যরা সেবা নিতে পারেন। সদস্যদের ব্যক্তিগত গোপনীয়তা রক্ষার জন্য বারের ভিতরে কোন সিসি ক্যামেরা রাখা হয়নি।’

বোট ক্লাবও হারালেন নাসির
পরীমনির করা ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা মামলায় নাসির উদ্দিন ও অমিকে গ্রেপ্তার করে গোয়েন্দা পুলিশ

বারটিতে ছোটখাটো দুয়েকটা ইন্সিডেন্ট হয়ও স্বীকার করে নির্বাহী সদস্য বখতিয়ার বলেন, ‘অনেক সম্মানিত সদস্য হয়তো স্বাভাবিকের চেয়ে এক পেগ বেশি ড্রিঙ্ক করে স্বাভাবিক অবস্থায় থাকেন না। তখন তাদেরকে আমাদের লোকজন সম্মানের সাথে গাড়িতে তুলে দেন। অথবা বাড়ি পর্যন্ত পৌঁছে দেন। ওই দিনের ঘটনাকে বারের লোকজন হয়তো এরকম একটা ঘটনা মনে করেছিলেন।

‘তবে বিভিন্ন মিডিয়ার সংবাদ দেখে আমরা বুঝতে পারলাম এটা কোনো স্বাভাবিক ঘটনা ছিল না। তবে তা ক্লাবের নির্দিষ্ট সময়ের পর বা রাত ১১টার পর ঘটেছে। এই ঘটনা নিয়ে আমাদের ক্লাবের পক্ষ থেকেও তদন্ত করা হচ্ছে। এতে নিশ্চিতভাবেই ক্লাবের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে। সেদিন একটা ঘটনা ঘটেছিল বলে শুনেছিলাম, কিন্তু কেউ অভিযোগ না দেয়ায় বিষয়টি গুরুত্ব পায়নি।’

ক্লাব কি অতিথিদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ, এমন প্রশ্ন করলে বখতিয়ার জানান, মূলত যিনি বারে অতিথি আনবেন, নিরাপত্তার দায়িত্ব তারই। বারের ভেতর নিরাপত্তাকর্মীদের ঢুকতে দেয়া হয় না। সুতরাং সেখানে কী হয়েছে, সেটা তাদের জানার কথা নয়।’

আরও পড়ুন:
হাসপাতালে চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা, গ্রেপ্তার ১
বিয়ের নামে প্রতারণা, গর্ভের সন্তানও চান না ‘হাফেজ’
সরকারি কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রতারণার অভিযোগে গ্রেপ্তার
২২ মামলায় ‘পলাতক’ দম্পতি গ্রেপ্তার
ভিয়েতনামি বলে দেশি নারকেলের চারা বিক্রি

শেয়ার করুন

মদের ‘কারবারেও’ নাসির

মদের ‘কারবারেও’ নাসির

পরীমনিকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে নাসির ইউ আহমেদকে গ্রেপ্তার করে গোয়েন্দা পুলিশ। ছবি: নিউজবাংলা

নাসির মাহমুদকে গ্রেপ্তারের পর ডিবির যুগ্ম কমিশনার হারুন-অর-রশিদ জানান, ‘আমরা যাদের গ্রেপ্তার করেছি, তাদের কাজই মদের ব্যবসা করা। তাদের মধ্যে একজন হচ্ছেন নাসির। তিনি এই কাজই করেন। তিনি বিভিন্ন ছোট ছোট মেয়েকে রক্ষিতা রাখেন। আমরা এখনও তদন্ত করছি।’

চলচ্চিত্রের অভিনয়শিল্পী পরীমনিকে হত্যা ও ধর্ষণচেষ্টার মামলায় আটক নাসির ইউ মাহমুদ মদের ব্যবসা করেন বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (উত্তর) যুগ্ম কমিশনার হারুন-অর-রশিদ। তা ছাড়া যৌনকাজে ব্যবহারের জন্য তিনি ভাড়া করা মেয়েদের সঙ্গে রাখতেন বলেও অভিযোগ করেন এ পুলিশ কর্মকর্তা।

পরীমনির ঘটনায় সোমবার দুপুরে নাসির ইউ মাহমুদসহ পাঁচজনকে রাজধানীর উত্তরা থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। অভিযানে নেতৃত্ব দেন ডিবির যুগ্ম কমিশনার হারুন-অর-রশিদ।

গ্রেপ্তারের পর সেখানে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন হারুন-অর-রশিদ।

তিনি বলেন, ‘আমরা যাদের গ্রেপ্তার করেছি, তাদের কাজই মদের ব্যবসা করা। তাদের মধ্যে একজন হচ্ছেন নাসির। তিনি এই কাজই করেন। তিনি বিভিন্ন ছোট ছোট মেয়েকে রক্ষিতা রাখেন। আমরা এখনও তদন্ত করছি।’

যুগ্ম কমিশনার হারুন-অর-রশিদ আরও বলেন, ‘আমরা তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছি। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করব। প্রয়োজন হলে তাদের রিমান্ডে আনব। যেহেতু আমরা মাদক পেয়েছি, সেই কারণে আমরা মাদকের একটি মামলা করব ডিএমপি থেকে।’

তিনি বলেন, ‘যেহেতু সাভারে একটি স্বাভাবিক মামলা হয়েছে, আমরা সাভার থানা পুলিশকে জানাব।’

হারুন-অর-রশিদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা শনিবার রাত থেকেই খোঁজখবর রাখছিলাম। যেহেতু মামলা হয়নি তাই গ্রেপ্তার করতে পারিনি। এখন মামলা হয়েছে, আমরা তাকে আজ ৩টার সময় উত্তরার বাসা থেকে অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার করেছি। তবে এই বাসায় অমি থাকে। নাসির এই বাসায় এসে পালিয়ে ছিলেন। সাথে তিনজন রক্ষিতাকে নিয়ে এসেছিলেন। তার আগের অভিযোগের আমরা তদন্ত করছি।’

মদের ‘কারবারেও’ নাসির
নাসির ইউ মাহমুদ

হারুন বলেন, ‘পরীমনি স্বনামধন্য নায়িকা। তিনি সেখানে যেতেই পারেন। তার মানে তো এই না যে তাকে হ্যারাস করবে। আবার আসলেই সেখানে কী ঘটেছে সেটিও দেখতে হবে।’

শনিবার পরীমনি যে অভিযোগ করেছিলেন, সেটি থানায় আমলে নেয়া হয়নি– এই বিষয়ে কী করবেন জানতে চাইলে হারুন-অর-রশিদ বলেন, ‘আমরা পরীমনির সাথে কথা বলব। আমরা প্রতিটি অভিযোগকে খতিয়ে দেখছি। আমরা তো এদের সাভার থানার মামলা থেকেই গ্রেপ্তার করেছি। যার বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে, তাকেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে।’

নাসির ইউ মাহমুদ বা নাসির উদ্দিন মাহমুদ জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য। তিনি কুঞ্জ ডেভেলপার্স লিমিটেডের চেয়ারম্যান। ছিলেন লায়ন্স ক্লাব ইন্টারন্যাশনালের ডিস্ট্রিক্ট চেয়ারম্যান। গ্রেপ্তার অপর চারজনের নাম জানা যায়নি।

পরীমনি রোববার রাতে ফেসবুক স্ট্যাটাসে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ আনার কয়েক ঘণ্টা পর বিষয়টির বিস্তারিত নিয়ে গণমাধ্যমের সামনে আসেন।

পরীমনি জানান, ধর্ষণের চেষ্টার ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরা বোট ক্লাবে। নাসির উদ্দিন নামে একজন তাকে নেশাদ্রব্য খাইয়ে এই ঘটনা ঘটাতে চেয়েছিলেন।

মদের ‘কারবারেও’ নাসির
নাসির ও কয়েকজনের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ তুলেছেন নায়িকা পরীমনি

যুগ্ম কমিশনার হারুন-অর-রশিদ বলেন, ‘যারা এভাবে রাতের বেলা বিভিন্ন ক্লাবে গিয়ে উঠতি বয়সী মেয়েদের ব্যবহার করে, অসামাজিক কার্যকলাপ চালায়, তাদের বিরুদ্ধে এখন থেকে আমাদের অভিযান চলবে। ঢাকা শহরের গুলশান, বনানী স্থানে রাত ৮টা-৯টার দিকে উঠতি বয়সী মেয়ে ক্লাবে গিয়ে ডিজে পার্টির নামে অনাচার করে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব।’

বোট ক্লাবে অভিযান চালানো হয়েছে কি না জানতে চাওয়া হলে হারুন বলেন, ‘যেহেতু মামলা হয়েছে সাভার থানায়, আমরা একটা রিকুইজিশন পেয়ে তাকে গ্রেপ্তার করেছি। এখন যেহেতু একটা মামলা আমাদের এখানে আছে, মাদকের মামলা, তার পরিপ্রেক্ষিতে আমরা বোট ক্লাবে যাব। আরও কোনো আসামি যুক্ত আছে কি না, তা খতিয়ে দেখব।’

এই ঘটনায় এত তাড়াতাড়ি গ্রেপ্তার হলেও সাম্প্রতিক অপর একটি ঘটনায় সায়েম সোবহান আনভির কেন গ্রেপ্তার হননি, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আসলে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা যখন আমাদেরকে রিকুইজিশন দেবে, আমরা তখন তাৎক্ষণিক অ্যাকশন নিচ্ছি। আনভিরের মামলা যদি গুলশান থানা পুলিশ আমাদের রিকুইজিশন দেয়, আমরা তাৎক্ষণিকভাবে ব্যবস্থা নেব।’

পরীমনি কীভাবে সেখানে গিয়েছিলেন, সেটি জানতে পেরেছেন কিনা প্রশ্ন করা হলে হারুন-অর-রশিদ বলেন, ‘আমরা যেহেতু গ্রেপ্তার করেছি, আমরা তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করব। আমরা পরীমনিকেও জিজ্ঞাসাবাদ করব। তখন আমরা জানাব।’

আসামিকে সাভার থানায় পরে হস্তান্তর করা হবে জানিয়ে হারুন বলেন, ‘আমরা যেহেতু মাদক পেয়েছি, সেহেতু এখানে একটি মামলা হবে। এরপর সাভার থানা পুলিশ এসে তাদের নিয়ে যাবে।’

আরও পড়ুন:
হাসপাতালে চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা, গ্রেপ্তার ১
বিয়ের নামে প্রতারণা, গর্ভের সন্তানও চান না ‘হাফেজ’
সরকারি কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রতারণার অভিযোগে গ্রেপ্তার
২২ মামলায় ‘পলাতক’ দম্পতি গ্রেপ্তার
ভিয়েতনামি বলে দেশি নারকেলের চারা বিক্রি

শেয়ার করুন

সাংবাদিক পরিচয়ে মাদক কারবার, গ্রেপ্তার ৩

সাংবাদিক পরিচয়ে মাদক কারবার, গ্রেপ্তার ৩

পুলিশ বলছে, তারা সাংবাদিক পরিচয়ে মাদকের কারবার চালিয়ে আসছিলেন। অভিযানে তাদের কাছ থেকে ১২ কেজি গাঁজা এবং মাদক কারবারে ব্যবহৃত একটি বেসরকারি টিভির লোগো সম্বলিত টয়োটা এক্স করোলা প্রাইভেটকার ও একটি ভিডিও ক্যামেরা উদ্ধার করা হয়।

রাজধানী ঢাকার মিরপুর এলাকায় বিশেষ অভিযান চালিয়ে তিন মাদক কারবারীকে গ্রেপ্তার করেছে মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি)।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- জিয়াউর রহমান ওরফে জিয়া, মহিদুল ইসলাম ও সাদ্দাম হোসেন।

পুলিশ বলছে, তারা সাংবাদিক পরিচয়ে মাদকের কারবার চালিয়ে আসছিলেন। রোববারের অভিযানে তাদের কাছ থেকে ১২ কেজি গাঁজা এবং মাদক কারবারে ব্যবহৃত একটি বেসরকারি টিভির লোগো সম্বলিত টয়োটা এক্স করোলা প্রাইভেটকার ও একটি ভিডিও ক্যামেরা উদ্ধার করা হয়।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) জনসংযোগ ও গণমাধ্যম শাখার অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (এডিসি) ইফতেখায়রুল ইসলাম জানিয়েছেন, ডিবির মিরপুরের জোনাল টিম দারুস সালাম কোর্টবাড়ী এলাকায় এ বিশেষ অভিযান চালায়। এ সময় একটি বেসরকারি টিভির লোগো সম্বলিত প্রাইভেটকারসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। গাড়িটি তল্লাশি করে ১২ কেজি গাঁজা ও টিভিটির লোগো সম্বলিত ভিডিও ক্যামেরা উদ্ধার করা হয়।

এডিসি ইফতেখায়রুল ইসলাম বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তারকৃতরা ওই টিভির সাংবাদিক পরিচয়ে লোগো সম্বলিত প্রাইভেটকার ও ভিডিও ক্যামেরা ব্যবহার করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে ধোঁকা দিয়ে মাদক কারবার চালিয়ে আসার কথা স্বীকার করেছেন। তারা কেউই সাংবাদিক নন। শুধু মাদকের কারবারের জন্য ওই টিভির নাম সম্বলিত গাড়ি ও প্রাইভেট কার ব্যবহার করেছেন।

গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে দারুস সালাম থানায় মামলা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
হাসপাতালে চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা, গ্রেপ্তার ১
বিয়ের নামে প্রতারণা, গর্ভের সন্তানও চান না ‘হাফেজ’
সরকারি কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রতারণার অভিযোগে গ্রেপ্তার
২২ মামলায় ‘পলাতক’ দম্পতি গ্রেপ্তার
ভিয়েতনামি বলে দেশি নারকেলের চারা বিক্রি

শেয়ার করুন

ঢাকা মেডিক্যালে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত শনাক্ত

ঢাকা মেডিক্যালে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত শনাক্ত

রোগীটি করোনাভাইরাসেও আক্রান্ত হয়েছিলেন। তার মাথাব্যথা, সাইনোসাইটিস এবং ডানচোখে দেখতে সমস্যা হচ্ছিল। ঢাকা মেডিক্যালে চিকিৎসক শাহরিয়ার আহমেদ সৌরভের অধীনে চিকিৎসা চলছে তার। চোখে যে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে ছড়িয়েছে এটা রিমুভ করার সুযোগ নেই।

খুলনা থেকে ডানচোখে সমস্যা নিয়ে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে এসেছিলেন চিকিৎসা করাতে। পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, রোগীটি ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত।

ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত রোগীটি দুই দিন আগেই শনাক্ত হয় বলে নিউজবাংলাকে জানিয়েছেন হাসপাতালের রেজিস্ট্রার ডা. ফরহাদ হাছান চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘দুই দিন আগে একজন পুরুষ শনাক্ত করা হয়েছে। গত সপ্তাহে খুলনা চিকিৎসা নিতে হাসপতালে ভর্তি হন। এর আগে তিনি করোনায় আক্রান্ত ছিলেন।’

এই রোগীর চিকিৎসা চলছে জানিয়ে ফরহাদ হাছান বলেন, ‘আমি তাকে ফাঙ্গাস ইনফেকশন সন্দেহ করি এবং নাক কান গলা বিভাগের সহযোগিতা নিয়ে সাইনাস অপারেশন করি। তারপর ওখানকার স্যাম্পল নিয়ে ফাঙ্গাস টেস্ট করতে দিই। রোগীর হিস্টোপ্যাথলজি, মাইক্রোস্কপি আর কালচার তিনটাতেই মিউকর মাইকোসিস বা ব্ল্যাক ফাঙ্গাস শনাক্ত হয়। বর্তমানে রোগীর এম্ফোটেরিসিন-বি দিয়ে চিকিৎসা চলছে। মাইক্রোবায়োলজিক্যাল পরীক্ষাগুলো করেন বারডেম হাসপাতালের প্রফেসর লাভলি বাড়ৈ।

তিনি জানান, রোগীটির মাথাব্যথা, সাইনোসাইটিস এবং ডানচোখে দেখতে সমস্যা হচ্ছিল। চিকিৎসক শাহরিয়ার আহমেদ সৌরভের অধীনে চিকিৎসা চলছে। চোখে যে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে ছড়িয়েছে এটা রিমুভ করার সুযোগ নেই।

চোখ ফেলে দেয়া হবে কি না এমন প্রশ্নের জাবাবে ফরহাদ হাছান বলেন, ‘আমরা চক্ষু চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা দিচ্ছি। আমরা আশা করছি, ওনি সুস্থ হয়ে যাবেন।’

আর আগে গত ২৫ মে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের উপসর্গ নিয়ে দেশে একজনের মৃত্যু হয় বলে জানিয়েছিল বারডেম জেনারেল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। ঘোষণার তিনদিন আগে ওই রোগীর মৃত্যু হয়।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হিসাব অনুযায়ী, দেশে এখন পর্যন্ত ব্ল্যাকফাঙ্গাস শনাক্ত হয়েছে তিনজনের শরীরে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের মধ্যে নতুন আতঙ্কের নাম এখন ব্ল্যাক ফাঙ্গাস। মহামারিতে নাজেহাল ভারতে ব্যাপক হারে দেখা দিয়েছে এই ছত্রাকের সংক্রমণ। দক্ষিণ এশিয়ার অন্য দেশেও রোগটি শনাক্তের খবর আসছে।

গত এক-দেড় মাসে ভারতে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্তদের প্রায় সবাই করোনাভাইরাস থেকে সেরে ওঠার কিছুদিনের মধ্যে ছত্রাকটিতে আক্রান্ত হন।

আরও পড়ুন:
হাসপাতালে চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা, গ্রেপ্তার ১
বিয়ের নামে প্রতারণা, গর্ভের সন্তানও চান না ‘হাফেজ’
সরকারি কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রতারণার অভিযোগে গ্রেপ্তার
২২ মামলায় ‘পলাতক’ দম্পতি গ্রেপ্তার
ভিয়েতনামি বলে দেশি নারকেলের চারা বিক্রি

শেয়ার করুন