কিশোর গ্যাংয়ে জড়িত অভিযোগে আটক ৩

চান গ্যাংয়ে জড়িত থাকার অভিযোগে আটক তিন কিশোর। ছবি: নিউজবাংলা

কিশোর গ্যাংয়ে জড়িত অভিযোগে আটক ৩

এএসপি আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, ‘আটক কিশোররা চান গ্রুপের সক্রিয় সদস্য। গ্রুপের প্রধান চান জেলে থাকলেও তার নির্দেশনায় যাবতীয় ছিনতাই, চুরি, পাড়ায়-মহল্লায় মারামারিসহ নানা অপকর্ম করে বেড়াচ্ছে সদস্যরা।’

কিশোর গ্যাং চান গ্রুপের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে রাজধানীর মোহাম্মদপুর থেকে তিন কিশোরকে আটক করেছে র‍্যাব।

বৃহস্পতিবার দুপুরে মোহাম্মদপুর বেড়িবাঁধ শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানের ভেতরে অভিযানে চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন র‌্যাব-২-এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) এএসপি আবদুল্লাহ আল মামুন।

তিনি বলেন, ‘আটক কিশোররা চান গ্রুপের সক্রিয় সদস্য। গ্রুপের প্রধান চান জেলে থাকলেও তার নির্দেশনায় যাবতীয় ছিনতাই, চুরি, পাড়ায়-মহল্লায় মারামারিসহ নানা অপকর্ম করে বেড়াচ্ছে সদস্যরা।’

এএসপি জানান, চান গ্রুপের সদস্যরা রাস্তায় চলাচল করা মানুষকে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে ভয় দেখিয়ে টাকা, স্বর্ণালংকার, মোবাইল ও মূল্যবান সামগ্রী কেড়ে নিয়ে পালিয়ে যায়।

আটকদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
কিশোর গ্যাংয়ে জড়িত অভিযোগে আটক ৩
কিশোর গ্যাং: ভিডিও দেখে ভাড়ায় খাটা কিশোরদের আটক
টঙ্গীতে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে গ্রেপ্তার ১০
রাজধানীতে ৬ ‘কিশোর গ্যাং সদস্য’ গ্রেপ্তার
ভাগিনা নাঈম রিমান্ডে

শেয়ার করুন

মন্তব্য

ঢাকা ব্যাংকের ভল্টের টাকা জুয়ায়

ঢাকা ব্যাংকের ভল্টের টাকা জুয়ায়

ঢাকা ব্যাংকের বংশাল শাখার ভল্টে ৩ কোটি ৭৭ লাখ টাকার হিসাব পাওয়া যাচ্ছে না এমন খবর ছড়িয়ে পড়ার পর শুক্রবার সেখানে ভিড় জমায় মানুষ। ছবি: সাইফুল ইসলাম/নিউজবাংলা

ঢাকা ব্যাংকের বংশাল শাখার ভল্ট থেকে গায়েব হয়েছে ৩ কোটি ৭৭ লাখ টাকা। এ ঘটনায় আটক ব্যাংক কর্মকর্তাই স্বীকার করেছেন, ধারাবাহিকভাবে টাকা তুলে জুয়ার বিনিয়োগ করেন তিনি।

টাকা সংরক্ষণের জন্য মানুষের নিরাপদ স্থান ব্যাংক। কষ্টার্জিত আমানত ভল্টেই রাখা হয়। কিন্তু সেই ভল্ট কি নিরাপদ? দেখা যাচ্ছে ভল্ট থেকে হাওয়া হচ্ছে টাকা। আর এই কাজে যুক্ত হচ্ছে খোদ ব্যাংকের দায়িত্বশীল কর্মকর্তা। এই অর্থ নিয়ে খেলা হচ্ছে জুয়া, যা বাড়াচ্ছে উদ্বেগ।

ঢাকা ব্যাংকের বংশাল শাখার ভল্ট থেকে গায়েব হয়েছে ৩ কোটি ৭৭ লাখ টাকা। এ ঘটনায় আটক ব্যাংক কর্মকর্তাই স্বীকার করেছেন, ধারাবাহিকভাবে টাকা তুলে জুয়ার বিনিয়োগ করেন তিনি।

শুধু বংশাল শাখাই নয়, এর আগে গেল বছর প্রিমিয়ার ব্যাংকের রাজশাহীর শাখার ক্যাশ ইনচার্জ শামসুল ইসলাম কৌশলে ব্যাংকের ভল্ট থেকে সরিয়ে ফেলেন ৩ কোটি ৪৫ কোটি টাকা। তিনিও পুলিশি জেরায় স্বীকার করেন, একটি অ্যাপের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক জুয়াড়িচক্রের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে যুক্ত ছিলেন। সেখানেই এই অর্থ খোয়া গেছে।

ঢাকা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এমরানুল হক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ব্যাংকের ইন্টারনাল অডিটে এটা ধরা পড়েছে। বৃহস্পতিবার ব্যাংকের শাখায় ইন্টারনাল অডিটে ক্যাশ কম পাওয়া যায়। পরে আবারও ইনভেস্টিগেশন করা হয়।

‘পৌনে ৪ কোটি টাকার মত কম ছিল। এরপর দায়িত্বে থাকা ক্যাশ-ইনচার্জের কাছে জানতে চাইলে তিনি প্রাথমিকভাবে ক্যাশ সরিয়ে ফেলার বিষয় স্বীকার করেন। ব্রাঞ্চের ক্যাশ-ইনচার্জ ও ম্যানেজার (অপারেশন) দুইজনকে থানায় দেয়া হয়েছে। এ দুইজনের কাছে ভল্টের চাবি থাকে।’

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর সালেহউদ্দিন আহমেদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ব্যাংক কর্মকর্তারা টাকা সরানো একটা বিপজ্জনক প্রবণতা। আমানতকারীদের অর্থ সরিয়ে তারা বিনিয়োগ করবে এটা মোটেও গ্রহণযোগ্য না। এটা বন্ধ করতে হবে। যারা এ ধরনের কাজের সঙ্গে যুক্ত তাদের অতিসত্ত্বর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘শুধু প্রশাসনিক ব্যবস্থা নিলে হবে না। অভিযুক্ত কর্মকর্তার চাকরি থেকে বরখাস্ত এটা সমাধান নয়। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে হবে। প্রয়োজনে জেল-জরিমানা করতে হবে।

‘একের পর এক এসব ঘটনা ঘটছে মানে এতে বোঝা যায় অধিকাংশ ব্যাংকের অভ্যন্তরীণ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা খুব দুর্বল। সুপারভিশন ও মনিটরিংও ঠিকমতো হয় না। যে যার মতো ছেড়ে দিয়েছে। জনগণের টাকা নিয়ে এ ধরনের তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করা মোটেও ঠিক না।’

জুয়ায় ঢাকা ব্যাংকের টাকা

আশ্চর্যজনক, বিশ্বাসযোগ্য না হলেও স্বীকারোক্তিতে এটিই প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। ঢাকা ব্যাংকের ভল্ট থেকে টাকা নিয়ে খেলা হয়েছে জুয়া। পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে বংশাল শাখার ক্যাশ-ইনচার্জ রিফাতুল হক জিজ্ঞাসাবাদে এমনই ইঙ্গিত দিয়েছেন পুলিশ।

ঢাকা ব্যাংক বংশাল শাখার ক্যাশ ইনচার্জ রিফাতুল হক জানান, ২০১৮ সাল থেকে ব্যাংকের ক্যাশে হাত দেয়া শুরু। সময় সুযোগ বুঝে ধীরে ধীরে সরিয়ে নেয়া হয় বড় অঙ্কের অর্থ। গেল ১৭ জুন ব্যাংকটির অভ্যন্তরীণ তদন্তে ওঠে আসে টাকা সরানোর ঘটনা।

অডিট কমিটির কাছে দেয়া স্বীকারোক্তিতে বলা হয়, ভল্টে রাখা ৫০০ টাকার নোটের বান্ডিলের ভেতরে ১০০ টাকার নোট দিয়ে বাকি নোট সরিয়ে নেয়া হয়। সবার চোখ ফাঁকি দিয়ে একাই এই কাজ করতেন রিফাতুল। খরচ করতেন জুয়ার আসরে।

বিষয়টি ধরা পড়ার পর আইনি পদক্ষেপ নেয়ার কথা জানিয়েছেন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক।

জুয়ায় গেছে প্রিমিয়ার ব্যাংকের টাকাও

গেল বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে ব্যাংকের ভল্ট থেকে টাকা উধাওয়ের আরও একটি ঘটনা ঘটে। প্রিমিয়ার ব্যাংকের রাজশাহীর শাখার ক্যাশ ইনচার্জ শামসুল ইসলাম কৌশলে ব্যাংকের ভল্ট থেকে টাকা সরাতেন। ভল্টে সব সময় প্রায় ১৫ কোটি টাকা থাকতো। তিনি টাকার বান্ডেলের সামনের লাইন ঠিক রেখে পেছনের লাইন থেকে টাকা সরাতেন, যাতে কারও সন্দেহ না হয়। এভাবে তিনি ৩ কোটি ৪৫ লাখ টাকা ব্যাংক থেকে সরিয়ে ফেলেন।

এরপর এই টাকা দিয়ে শামসুল জুয়া খেলেন। একটি অ্যাপের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক জুয়াড়িচক্রের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে যুক্ত ছিলেন তিনি। জবানবন্দিতে তখন ওই ব্যাংক কর্মকর্তা বলেন, লোভে পড়ে তিনি ২০১৮ সাল থেকে কৌশলে ব্যাংকের ভল্ট থেকে টাকা সরিয়ে জুয়া খেলতে শুরু করেন।

পিছিয়ে নেই অন্য ব্যাংকও

কিছু দিন আগে ডাচ বাংলা ব্যাংক থেকে ওই ব্যাংকের একজন আইটি অফিসারের ২ কোটি ৫৭ লাখ সরিয়ে ফেলেন। ব্যাংকের ইন্টারনাল ও পুলিশি তদন্তে জানা যায়, তিন বছরে ৬৩৭টি অ্যাকাউন্টের ১৩৬৩টি লেনদেনের মাধ্যমে এই টাকা আত্মসাৎ করা হয়েছে। কিন্তু ধরা পড়ার আগেই ওই কর্মকর্তা দেশের বাইরে চলে যান। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ মোট ৬ জনকে আসামি করে মামলা করে। ওই ঘটনার চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

বড় অঙ্কের অর্থ জুয়ায় ব্যবহার হওয়া নিয়ে তৈরি হয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। ভল্টের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তাদের জুয়ার এমন নেশায় উদ্বেগ তৈরি হয়েছে। বলা হচ্ছে, রক্ষক ভক্ষক হলে কোথায় যাবে মানুষ। দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের হাতেই ব্যাংকের টাকা এখন নিরাপদ নয়।

শুধু জুয়াতেই বিনিয়োগ নয়, ব্যাংকের অনেক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ভল্টের অর্থ তছরুপের ঘটনা ঘটে। নিরীক্ষাতে এমন অনিয়ম অহরহ উঠে আসছে।

টাকা নিয়ে গ্রাহকের উদ্বেগ

একের পর এক বিভিন্ন ব্যাংকে টাকা খোয়া যাওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন আমানতকারীরা। তারা বলছেন, ব্যাংকের ভল্টে যদি টাকা সুরক্ষিত না থাকে তাহলে তারা টাকা কোথায় রাখবেন!

ঢাকা ব্যাংকের ভল্ট থেকে লোপাট করা টাকা গ্রাহকের আমানত। তাই যেসব গ্রাহক এই ব্যাংকে অর্থ জমা রেখেছেন, তাদের অর্থ পেতে সমস্যা হবে না বলে আশ্বস্ত করেছে ব্যাংক। তারপরেও গ্রাহকের উদ্বেগের শেষ নেই।

ঢাকা ব্যাংকের এমডি এমরানুল হক বলেন, ‘খোয়া যাওয়া টাকা উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। কারণ, টাকা তো উদ্ধার করতে হবে। যারা এ টাকা নিয়েছে তাদেরকে এ টাকা ফেরত দিতে হবে। যতদিন না পাওয়া যাবে, ততদিন প্রচেষ্টা আমাদের অব্যাহত থাকবে।’

ঢাকা ব্যাংকে কমিটি গঠন রোববার

কীভাবে, কতদিনে এত টাকা সরানো হয়েছে সে বিষয়ে একটি কমিটি করবে ঢাকা ব্যাংক। ব্যাংকের এমডি এমরানুল হক বলেন, ‘এটা এখন আইনিভাবেই এগিয়ে গেছে। ক্রিমিনাল কেস সুতরাং, পুলিশের কাছে দেয়া হয়েছে। ঘটনা খতিয়ে দেখার জন্য ব্যাংক থেকে একটা তদন্ত কমিটি করা হবে।

‘বৃহস্পতিবারের ঘটনা কিন্তু পরের দুইদিন শুক্র ও শনিবার ছুটির দিন। রোববারে কমিটি করা হবে। এজন্য কয়েকদিন সময় লাগবে। কমিটি গঠন করার পর পুরো ঘটনাটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানাতে পারব।’

আরও পড়ুন:
কিশোর গ্যাংয়ে জড়িত অভিযোগে আটক ৩
কিশোর গ্যাং: ভিডিও দেখে ভাড়ায় খাটা কিশোরদের আটক
টঙ্গীতে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে গ্রেপ্তার ১০
রাজধানীতে ৬ ‘কিশোর গ্যাং সদস্য’ গ্রেপ্তার
ভাগিনা নাঈম রিমান্ডে

শেয়ার করুন

অমির ২ সহযোগীর জামিন

অমির ২ সহযোগীর জামিন

১৫ জুন তুহিন সিদ্দিকী অমির দুটি রিক্রুটিং এজেন্সিতে অভিযান চালায় পুলিশ। সেখান থেকে ২ শতাধিক পাসপোর্ট জব্দ করা হয়। পাসপোর্ট জব্দের পর অমিসহ তিন জনের বিরুদ্ধে দক্ষিণখান থানায় পাসপোর্ট আইনে মামলা হয়।

চিত্রনায়িকা পরীমনিকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা মামলার আসামি তুহিন সিদ্দিকী অমির দুই সহযোগী বাছির মিয়া ও মশিউর রহমানকে জামিন দিয়েছে আদালত।

শনিবার ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট ধীমান চন্দ্র মন্ডলের আদালত শুনানি শেষে জামিনের আদেশ দেন।

এ দিন দুই দিনের রিমান্ড শেষে দুই আসামিকে আদালতে হাজির করা হয়। এ সময় দক্ষিণখান থানায় করা পাসপোর্ট আইনে মামলায় কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা সংশ্লিষ্ট থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) মোহাম্মদ আফতাব উদ্দিন।

আবেদনে বলা হয়, রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদে আসামিরা গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে। যা তদন্তের স্বার্থে গোপন রেখে যাচাই করা হচ্ছে। তবে ভিসাবিহীন পাসপোর্টগুলোর উৎস বা সরবরাহকারী সম্পর্কে কোনো তথ্য পাওয়া যায় নাই। মামলার তদন্ত অব্যাহত রয়েছে। তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাদের কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা।

আসামিদের পক্ষে ঢাকা বারের সভাপতি আবদুল বাতেন জামিন আবেদন করেন। রাষ্ট্রপক্ষ থেকে জামিনের বিরোধিতা করা হয়।

শুনানি শেষে আদালত ৫ হাজার টাকা মুচলেকায় তাদের জামিনের আদেশ দেন।

গত ১৬ জুন এ দুই আসামির দুই দিন করে রিমান্ড দেয় আদালত।

এর আগে গত ১৫ জুন তুহিন সিদ্দিকী অমির দুটি রিক্রুটিং এজেন্সিতে অভিযান চালায় পুলিশ। সেখান থেকে ২ শতাধিক পাসপোর্ট জব্দ করা হয়। পাসপোর্ট জব্দের পর অমিসহ তিন জনের বিরুদ্ধে দক্ষিণখান থানায় পাসপোর্ট আইনে মামলা করেন সাভার মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) কামাল হোসেন।

আরও পড়ুন:
কিশোর গ্যাংয়ে জড়িত অভিযোগে আটক ৩
কিশোর গ্যাং: ভিডিও দেখে ভাড়ায় খাটা কিশোরদের আটক
টঙ্গীতে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে গ্রেপ্তার ১০
রাজধানীতে ৬ ‘কিশোর গ্যাং সদস্য’ গ্রেপ্তার
ভাগিনা নাঈম রিমান্ডে

শেয়ার করুন

জানালার পাশে চুপচাপ বৃষ্টি দেখার দিন আজ ঢাকায়

জানালার পাশে চুপচাপ বৃষ্টি দেখার দিন আজ ঢাকায়

রাজধানীতে টানা বৃষ্টিতে আয়েশি সময় কাটছে অনেকের। ছবি: নিউজবাংলা

ছুটির আয়েশি দিনে তাই বেশির ভাগ মানুষের সময় কাটছে ঘরের ভেতরে। উপভোগ করছেন বর্ষার নান্দনিক রূপ। আবহাওয়া অফিস বলছে, এমন বৃষ্টি চলতে পারে আরও একদুই দিন। সেই সঙ্গে ভারী বর্ষণ হতে পারে দেশের চারটি বিভাগে।

সাপ্তাহিক ছুটির দিন, অফিসে ছোটার তাড়া নেই। তার মধ্যে ভোর থেকে ঢাকায় ঝরছে বৃষ্টি। একটানা এই বর্ষণ কখনও খানিকটা ভারী, কখনও মাঝারি, আবার কখনও মৃদুমন্দ। বুধবার আষাঢ় শুরুর পর এই প্রথম দিনভর টানা বৃষ্টিতে ভিজছে রাজধানী।

ছুটির আয়েশি দিনে তাই বেশির ভাগ মানুষের সময় কাটছে ঘরের ভেতরে। উপভোগ করছেন বর্ষার নান্দনিক রূপ।

আবহাওয়া অফিস বলছে, এমন বৃষ্টি চলতে পারে আরও একদুই দিন। সেই সঙ্গে ভারী বর্ষণ হতে পারে দেশের চারটি বিভাগে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ হাফিজুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, এমন ঝিরিঝিরি বৃষ্টি আরও একদিন স্থায়ী হবে। এরপর কিছুটা পরিবর্তন হতে পারে।

তিনি বলেন, ‘মৌসুমি বায়ু সক্রিয় থাকার কারণে সারা দেশেই এখন কমবেশি বৃষ্টি হচ্ছে। আরও দুদিন এমন বৃষ্টি হওয়ার পর আবার একটু কমতে থাকবে। তারপর আবার আষাঢ়ের রূপ ফিরতে থাকবে নগরে।’

ঢাকায় সকাল থেকে দুপুর ৩টা পর্যন্ত ২৮ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। সারা দেশেই হচ্ছে বৃষ্টি। সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত হয়েছে ঈশ্বরদীতে ১৬৪ মিলিমিটার।

এ বছর গত ৩০ বছরের গড় বৃষ্টিপাতের ধারা অব্যাহত থাকবে জানিয়ে হাফিজুর রহমান বলেন, ‘এবার আমরা যেমন বৃষ্টি আগে থেকে আশা করেছিলাম সেটি পাব। গড় বৃষ্টিপাত ৪৩৫ মিলিমিটারের বেশি বা কাছাকাছি থাকতে পারে। আষাঢ়ে এমন বৃষ্টিপাত হয়ে থাকে।’

জানালার পাশে চুপচাপ বৃষ্টি দেখার দিন আজ ঢাকায়

আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, মৌসুমি বায়ুর অক্ষের বর্ধিতাংশ উত্তর প্রদেশ, বিহার, পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চল হয়ে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। এর একটি বর্ধিতাংশ উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে। মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের উপর সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে মাঝারি অবস্থায় রয়েছে।

রাজশাহী, ঢাকা, খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় এবং রংপুর ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি/বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হতে পারে।

সারা দেশে দিন এবং রাতের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে।

আরও পড়ুন:
কিশোর গ্যাংয়ে জড়িত অভিযোগে আটক ৩
কিশোর গ্যাং: ভিডিও দেখে ভাড়ায় খাটা কিশোরদের আটক
টঙ্গীতে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে গ্রেপ্তার ১০
রাজধানীতে ৬ ‘কিশোর গ্যাং সদস্য’ গ্রেপ্তার
ভাগিনা নাঈম রিমান্ডে

শেয়ার করুন

ঘরে বাবা মা বোনের লাশ, বড় মেয়ে আটক

ঘরে বাবা মা বোনের লাশ, বড় মেয়ে আটক

রাজধানীর কদমতলীর মুরাদপুর এলাকা থেকে স্বামী, স্ত্রী ও মেয়ের হাত-পা বাঁধা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ছবি: নিউজবাংলা

কদমতলীর উপপরিদর্শক (এসআই) আবুল কালাম আজাদ নিউজবাংলাকে জানান, সকালে মেহেজাবিন নিজেই ৯৯৯ এ ফোন করেন। তিনি জানান, তার পরিবারের সদস্যরা গুরুতর অসুস্থ। এরপর ঘটনাস্থলে গিয়ে তিনজনের মরদেহ উদ্ধার করে কদমতলী থানা পুলিশ।

রাজধানীর কদমতলীর মুরাদপুর হাজী লাল মিয়া সরকার রোড এলাকা থেকে স্বামী, স্ত্রী ও মেয়ের হাত-পা বাঁধা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নিহতরা হলেন ৫০ বছর বয়সী মাসুদ রানা। এই সৌদি প্রবাসী ছুটিতে দেশে এসেছিলেন। অপর দুজন মাসুদের স্ত্রী জোসনা আরা এবং তাদের ছোট মেয়ে ১৪ বছর বয়সী মহিনী।

হত্যায় জড়িত সন্দেহে মাসুদ রানার বড় মেয়ে মেহেজাবিন মুনকে আটক করেছে পুলিশ।

কদমতলীর উপপরিদর্শক (এসআই) আবুল কালাম আজাদ নিউজবাংলাকে জানান, সকালে মেহেজাবিন নিজেই ৯৯৯ এ ফোন করেন। তিনি জানান, তার পরিবারের সদস্যরা গুরুতর অসুস্থ। এরপর ঘটনাস্থলে গিয়ে তিনজনের মরদেহ উদ্ধার করে কদমতলী থানা পুলিশ।

অভিযুক্ত মেহেজাবিনের স্বামী শফিকুল ইসলাম ও ৫ বছরের সন্তান তিপ্তকে অসুস্থ অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশের ধারণা, শুক্রবার রাতে নেশাজাতীয় দ্রব্য খাইয়ে তিনজনকে গলায় ফাঁস দিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

কদমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জামাল উদ্দিন মীর নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা মরদেহগুলো হাত পা বাঁধা অবস্থায় পেয়েছি। মাসুদ রানার বড় মেয়েই (মেহেজাবিন) তাদের হত্যা করেছে। তাকে আটক করা হয়েছে।’

মহানগর পুলিশের ওয়ারি বিভাগের ডিসি শাহ ইফতেখার জানান, পূর্ব পরিকল্পিতভাবে এ হত্যাকাণ্ড চালিয়েছে মেহজাবীন মুন। মা-বাবাসহ ছোট বোনকে হত্যা করে ৯৯৯ এ ফোন দেন তিনি। মুন থাকেন আলাদা বাসায়। এখানে মায়ের বাসায় বেড়াতে এসেছিলেন তিনি।

আরও পড়ুন:
কিশোর গ্যাংয়ে জড়িত অভিযোগে আটক ৩
কিশোর গ্যাং: ভিডিও দেখে ভাড়ায় খাটা কিশোরদের আটক
টঙ্গীতে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে গ্রেপ্তার ১০
রাজধানীতে ৬ ‘কিশোর গ্যাং সদস্য’ গ্রেপ্তার
ভাগিনা নাঈম রিমান্ডে

শেয়ার করুন

থেমে থেমে বৃষ্টি আরও কয়েক দিন

থেমে থেমে বৃষ্টি আরও কয়েক দিন

রাজধানীসহ সারাদেশেই আষাঢ়ের বৃষ্টি হচ্ছে থেমে থেমে। ছবি: সাইফুল ইসলাম/নিউজবাংলা

আবহাওয়া অধিদপ্তর থেকে বলা হয়, মৌসুমি বায়ু সক্রিয় থাকার কারণে সারাদেশেই এখন কমবেশি বৃষ্টিপাত হচ্ছে। আরও দুই দিন এমন বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে। তারপর কমতে শুরু করবে বর্ষণ।

থেমে থেমে বৃষ্টি দিয়ে আষাঢ়ের শুরু হলেও বর্ষার রূপ দেখতে শুরু করেছে নগরবাসী। গত দুই দিন ধরে সারাদিনই ঝরেছে ঝিরিঝিরি বৃষ্টি। এটি আরও একদুই দিন স্থায়ী হতে পারে। সেই সঙ্গে ভারী বর্ষণ হতে পারে দেশের চারটি বিভাগে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর থেকে বলা হয়, মৌসুমি বায়ু সক্রিয় থাকার কারণে সারাদেশেই এখন কমবেশি বৃষ্টিপাত হচ্ছে। আরও দুই দিন এমন বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে। তারপর কমতে শুরু করবে বর্ষণ।

ঢাকায় শনিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত ২২ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড হয়েছে। দেশের সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত হয়েছে ঈশ্বরদীতে ১৬৪ মিলিমিটার, টেকনাফে ১৬৩ মিলিমিটার, বন্দরনগরী চট্টগ্রামে ১১১ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ আব্দুল কালাম মল্লিক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এখন তো পুরোদমে আষাঢ় মাস চলছে। আমাদের দেশে কাগজে-কলমে জুনের মাঝামাঝিতে আষাঢ় আসলেও আমরা জুনের শুরু থেকেই আষাঢ় মাস বা বর্ষাকাল ধরে থাকি, যা সেপ্টেম্বর পর্যন্ত স্থায়ী হয়।’

এমন ঝিরিঝিরি বৃষ্টি নগরে থাকবে জানিয়ে আব্দুল কালাম মল্লিক বলেন, ‘আষাঢ়ের শুরুতে টানা বৃষ্টি না হলেও এখন আরও এক দুই দিন এমন বৃষ্টি থাকতে পারে।

‘এরপর একটু একটু করে কমতে শুরু করবে বৃষ্টি। তবে যেহেতু মৌসুমি বায়ুর প্রভাব রয়েছে তাই ঢাকাসহ সারা দেশেই বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকবে।’

থেমে থেমে বৃষ্টি আরও কয়েক দিন
রাজধানীতে শনিবার সকাল থেকেই থেমে থেমে বৃষ্টি হচ্ছে। ছবি: সাইফুল ইসলাম/নিউজবাংলা

এ বছর গত ৩০ বছরের গড় বৃষ্টিপাতের ধারা অব্যাহত থাকবে জানিয়ে এই আবহাওয়াবিদ বলেন, ‘এবার আমরা যেমন বৃষ্টি আগে থেকে আশা করেছিলাম সেটি পাব। গড় বৃষ্টিপাত ৪৩৫ মিলিমিটার এর বেশি বা কাছাকাছি থাকতে পারে। আষাঢ়েই এমন বৃষ্টিপাত হয়ে থাকে।’

আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, মৌসুমী বায়ুর অক্ষের বর্ধিতাংশ উত্তর প্রদেশ, বিহার, পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চল হয়ে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। এর একটি বর্ধিতাংশ উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে। মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের ওপর সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে মাঝারি অবস্থায় রয়েছে।

থেমে থেমে বৃষ্টি আরও কয়েক দিন
রাজধানীতে কোথাও কোথাও হয়েছে মাঝারি ভারী বর্ষণও। ছবি: সাইফুল ইসলাম/নিউজবাংলা

পূর্বাভাসে বলা হয়, রাজশাহী, ঢাকা, খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় এবং রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি ও বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হতে পারে।

ভারী বর্ষণের সতর্কবার্তা দেয়া হয়েছে ঢাকা, খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রামে।

সারাদেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

আরও পড়ুন:
কিশোর গ্যাংয়ে জড়িত অভিযোগে আটক ৩
কিশোর গ্যাং: ভিডিও দেখে ভাড়ায় খাটা কিশোরদের আটক
টঙ্গীতে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে গ্রেপ্তার ১০
রাজধানীতে ৬ ‘কিশোর গ্যাং সদস্য’ গ্রেপ্তার
ভাগিনা নাঈম রিমান্ডে

শেয়ার করুন

রাজধানীতে শুধু মেডিক্যাল শিক্ষার্থীরাই পাচ্ছে সিনোফার্মের টিকা

রাজধানীতে শুধু মেডিক্যাল শিক্ষার্থীরাই পাচ্ছে সিনোফার্মের টিকা

রাজধানীর বিভিন্ন মেডিক্যাল কলেজ শিক্ষার্থীদের দেয়া হচ্ছে সিনোফার্মের টিকা বিবিআইবিপি-করভি। ছবি: সাইফুল ইসলাম

নির্ধারিত কেন্দ্রে এরই মধ্যে যারা রেজিস্ট্রেশন করে টিকা পাননি তাদের অগ্রাধিকার দেয়ার কথা ছিল। তবে রাজধানীতে টিকাকেন্দ্রগুলোতে শুধু মেডিক্যাল শিক্ষার্থীদের দেয়া হচ্ছে এই টিকা। বাকিদের অনেকের এসএমএস এলেও টিকা পাননি।

চীনের সিনোফার্মের টিকা বিবিআইবিপি-করভি দিয়ে শনিবার সকাল থেকে স্বল্পপরিসরে শুরু হয়েছে গণটিকাদান।

এ টিকা শুরুতে ১০ শ্রেণি-পেশার মানুষকে দেয়ার কথা থাকলেও রাজধানীতে শুধু মেডিক্যাল-শিক্ষার্থীদের ডোজটি দিতে দেখা গেছে।

নির্ধারিত কেন্দ্রে এরই মধ্যে যারা রেজিস্ট্রেশন করে টিকা পাননি তাদের অগ্রাধিকার দেয়ার কথা ছিল। তবে রাজধানীতে টিকাকেন্দ্রগুলোতে শুধু মেডিক্যাল শিক্ষার্থীদের দেয়া হচ্ছে এই টিকা। বাকিদের অনেকের এসএমএস এলেও টিকা পাননি।

টিকা-সংকটের কারণে রাজধানীর চারটি হাসপাতালে এই টিকা দেয়া শুরু হয়েছে।

শনিবার সকালে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও মুগদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে একটি করে টিকাকেন্দ্রে দুটি বুথে সিনোফার্মের টিকা দেয়া হচ্ছে। তবে মেডিক্যাল শিক্ষার্থী ছাড়া অন্য কোনো ব্যক্তিকে এখনও সিনোফার্মের টিকা দেয়া হয়নি।

ফাইজারের টিকা দেয়া হচ্ছে না

সিনোফার্মের টিকার সঙ্গেই কোভ্যাক্স থেকে পাওয়া ফাইজারের টিকা প্রয়োগের কথা একাধিকবার ঘোষণা দিয়েছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের একাধিক কর্মকর্তা। তবে এ টিকাদান এখনই শুরু হচ্ছে না বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের একটি সূত্র।

ওই সূত্র জানিয়েছে, রাজধানীর চারটি কেন্দ্রে এ টিকা প্রয়োগের প্রস্তুতি ছিল। তাপমাত্রা জটিলতার কারণে ঢাকার বাইরে এই টিকা দেয়া হবে না।

প্রাথমিকভাবে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল, শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল এবং জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইনস্টিটিউটে এ টিকা দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু হাসপাতালগুলোতে এর প্রয়োগ দেখা যায়নি।

টিকা কার্যক্রম ও ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্যসচিব ডা. শামসুল হক বলেন, ‘কবে ফাইজারের টিকা প্রয়োগ শুরু হবে এটা বলতে পারছি না। সিনোফার্মের টিকা প্রয়োগ শুরু হয়েছে। এটা শুধু জানুন। বাকিটা পরে জানলেও চলবে।’

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. টিটু মিয়া নিউজবাংলাকে বলেন, ‘চীনের টিকা দেয়া অনেক আগ থেকে শুরু হয়েছে আমাদের এই হাসপাতালে। আজও প্রায় ৪০০ জনকে এই টিকা দেয়া হবে, যারা সবাই মেডিক্যাল শিক্ষার্থী।’

টিকা প্রয়োগের বিষয়ে রাজধানীর স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ ও মিটফোর্ড হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল কাজী মো. রশিদ উন নবী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাদের হাসপাতালে ৪ হাজার ১৮৭ জনের একটি তালিকা আসছে। এরা সবাই ৭টি মেডিক্যাল কলেজের শিক্ষার্থী। পরবর্তী সময়ে আরও তালিকা বাড়বে।

‘সকাল ৯টা থেকে (সিনোফার্ম) টিকা দেয়া শুরু হয়েছে। ৩৫০ জন শিক্ষার্থীকে এই টিকা দেয়ার কথা রয়েছে।’

১০ শ্রেণি-পেশার মানুষকে এই টিকা দেয়ার ঘোষণা দেয়া হয়েছিল। বাকিরা কবে থেকে টিকা পাবে, এমন প্রশ্নের জবাবে রশিদ বলেন, ‘স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে এমন কোনো নির্দেশনা আমাদের কাছে এখনও আসেনি। আসলে আমরা শুরু করতে পারব। তবে আমাদের হাসপাতালে এখনও সিরামের টিকা দিয়ে দ্বিতীয় ডোজ দেয়া চলছে।’

রাজধানীর মুগদার ৫০০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের পরিচালক ডা. অশিন কুমার নাথ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সিনোফার্মের টিকা দেয়া সকাল থেকেই শুরু হয়েছে। আজ ৪০০ মেডিক্যাল শিক্ষার্থীকে এই টিকা দেয়া হবে। তবে অন্য জনগোষ্ঠীকে কবে টিকা দেয়া যাবে, এ বিষয়ে তিনি কিছুই বলতে পারেননি। নির্দেশনা পরে অবশ্যই দেয়া হবে।’

শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক মো. খলিলুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘শুধুমাত্র মেডিক্যাল শিক্ষার্থীদের এই টিকা দেয়া শুরু করেছি। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশনা অনুযায়ী আগামী শনিবার থেকে হয়তো সবার জন্য টিকা দেয়া শুরু হবে।’

যাদের পাওয়ার কথা সিনোফার্মের টিকা

অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকা পাবেন সরকারি স্বাস্থ্যকর্মী ও পুলিশ সদস্য, সরকারি ও বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজ, ডেন্টাল কলেজের শিক্ষার্থী, নার্স, সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক শিক্ষার্থী, সরকারি মেগা প্রকল্পে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারী, প্রবাসী কর্মী, ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা। এ ছাড়া করোনায় মৃতদেহ সৎকারে নিয়োজিত ব্যক্তি, দেশে বসবাসরত চীনা নাগরিক ও এর বাইরেও বিদেশি নাগরিকরা সিনোফার্মের টিকায় অগ্রাধিকার পাবেন।

আরও পড়ুন:
কিশোর গ্যাংয়ে জড়িত অভিযোগে আটক ৩
কিশোর গ্যাং: ভিডিও দেখে ভাড়ায় খাটা কিশোরদের আটক
টঙ্গীতে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে গ্রেপ্তার ১০
রাজধানীতে ৬ ‘কিশোর গ্যাং সদস্য’ গ্রেপ্তার
ভাগিনা নাঈম রিমান্ডে

শেয়ার করুন

ধানমন্ডির সড়কে প্রাণ গেল কনস্টেবলের

ধানমন্ডির সড়কে প্রাণ গেল কনস্টেবলের

কনস্টেবল বশিরের মরদেহ ঢামেক হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। ফাইল ছবি

ধানমন্ডি থানার এসআই মো. মামুন নিউজবাংলাকে জানান, বশির মিরপুর জোনের সহকারী কমিশনারের গাড়িচালক হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন। দায়িত্ব শেষে বাইসাইকেলে চড়ে বাসায় ফেরার পথে আনোয়ার খান মডার্ন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের উল্টো পাশের সড়কে কোনো বাস বা ট্রাকের চাপায় তিনি গুরুতর আহত হন।

রাজধানীর ধানমন্ডি ৭ নম্বর সড়কে সড়ক দুর্ঘটনায় এক পুলিশ কনস্টেবল নিহত হয়েছেন।

দায়িত্ব শেষে বাড়ি ফেরার পথে শুক্রবার রাতে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত ব্যক্তির নাম বশির উদ্দিন তালুকদার। তিনি কনস্টেবল হিসেবে কর্মরত ছিলেন ঢাকা মহানগর পুলিশের মিরপুর বিভাগে।

বশিরের বাড়ি পটুয়াখালীর দুমকিতে। তিনি ঢাকায় কোথায় থাকতেন, তা জানা যায়নি।

ধানমন্ডি থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. মামুন নিউজবাংলাকে জানান, বশির মিরপুর জোনের সহকারী কমিশনারের গাড়িচালক হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন। দায়িত্ব শেষে বাইসাইকেলে চড়ে বাসায় ফেরার পথে আনোয়ার খান মডার্ন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের উল্টো পাশের সড়কে কোনো বাস বা ট্রাকের চাপায় তিনি গুরুতর আহত হন।

এসআই আরও জানান, দুর্ঘটনার পর বশিরকে দ্রুত ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

বশিরের মরদেহ ঢামেক হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, কোন বাস বা ট্রাকের চাপায় কনস্টেবল বশির মারা গেছেন, তা শনাক্তের চেষ্টা চলছে।

এ ঘটনায় এখনও কোনো মামলা হয়নি। নিহত ব্যক্তির ভাইয়ের সঙ্গে পুলিশের যোগাযোগ হয়েছে। তিনি আসার পর মামলাসহ অন্য ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন:
কিশোর গ্যাংয়ে জড়িত অভিযোগে আটক ৩
কিশোর গ্যাং: ভিডিও দেখে ভাড়ায় খাটা কিশোরদের আটক
টঙ্গীতে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে গ্রেপ্তার ১০
রাজধানীতে ৬ ‘কিশোর গ্যাং সদস্য’ গ্রেপ্তার
ভাগিনা নাঈম রিমান্ডে

শেয়ার করুন