হেফাজত নেতা মনির কাসেমী ৪ দিনের রিমান্ডে

মুফতি মনির হোসেন কাসেমী

হেফাজত নেতা মনির কাসেমী ৪ দিনের রিমান্ডে

মনির কাসেমীকে শুক্রবার রাতে বারিধারা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। শনিবার ঢাকা মহানগর আদালতে তুলে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করে রমনা জোনাল টিমের ডিবি পুলিশ। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম বেগম মাহমুদা আক্তার চার দিনের রিমান্ডের আদেশ দেন।

রাজধানীর মতিঝিল শাপলা চত্বরে ২০১৩ সালের ৫ মে হেফাজতে ইসলামের তাণ্ডব মামলায় গ্রেপ্তার ধর্মভিত্তিক সংগঠনটির নেতা মুফতি মনির হোসেন কাসেমীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।

শনিবার তাকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করে রমনা জোনাল টিমের ডিবি পুলিশ।

শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম বেগম মাহমুদা আক্তার চার দিনের রিমান্ড আদেশ দেন বলে নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেন পল্টন থানার আদালতের সাধারণ নিবন্ধন শাখার সদস্য মো. বাবুল হোসেন।

শুক্রবার রাত ৮টা ৪৫ মিনিটের দিকে মনির কাসেমীকে রাজধানীর বারিধারা থেকে গ্রেপ্তার করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের মতিঝিল জোনাল টিমের সদস্যরা। সংগঠনটির বিলুপ্ত কমিটির অর্থ সম্পাদকের দায়িত্বে ছিলেন তিনি।

২০১৩ সালের ৫ মে ঢাকা অবরোধ করে হেফাজতে ইসলামের নেতা-কর্মীরা। সেদিন রাজধানীর মতিঝিল, পল্টন, আরামবাগসহ আশপাশের এলাকায় যানবাহন ও সরকারি-বেসরকারি স্থাপনায় ব্যাপক ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করে হেফাজতের কর্মীরা।

এ ঘটনায় বিশেষ করে পল্টন, মতিঝিল ও রমনা থানায় পুলিশ বাদী হয়ে একাধিক মামলা করে এই হেফাজত নেতাদের বিরুদ্ধে।

গত শুক্রবার ডিবির গুলশান বিভাগের উপকমিশনার মশিউর রহমান সাংবাদিকদের জানান, মনির কাশেমীর বিরুদ্ধে ২০১৩ সালের ৫ মে শাপলা চত্বরে নাশকতা, ২০২০ সালের মামলা, নারায়ণগঞ্জে মামলা ও সম্প্রতি নাশকতাসহ বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে।

মুফতি মনির হোসেন কাসেমী জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব ও জামিয়া মাদানিয়া বারিধারা মাদরাসার মুহতারিম। সর্বশেষ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২০-দলীয় জোটের মনোনয়ন পেয়ে নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনে ধানের শীষের প্রার্থী হয়েছিলেন তিনি।

আরও পড়ুন:
হেফাজত নেতা মুফতি মনির গ্রেপ্তার
হেফাজতের তাণ্ডব: ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গ্রেপ্তার ৪৮৭
মামুনুলের রিসোর্টকাণ্ডে গ্রেপ্তার হেফাজত নেতার মৃত্যু
ফের রিমান্ডে নোমান ফয়েজী
হেফাজত নেতা ইসলামাবাদী আবার রিমান্ডে

শেয়ার করুন

মন্তব্য

দেড় কোটি টাকার ‘অবৈধ সম্পদ’ সাবরেজিস্ট্রার দম্পতির

দেড় কোটি টাকার ‘অবৈধ সম্পদ’ সাবরেজিস্ট্রার দম্পতির

১ কোটি ৫৩ লাখ ৭৭ হাজার টাকার জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ এনে ওই দম্পতির বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। এতে প্রধান আসামি করা হয়েছে ইসরাত জাহানকে।

দেড় কোটি টাকার হিসাববহির্ভূত সম্পদের প্রমাণ পেয়ে এক সাবরেজিস্ট্রার দম্পতির বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

মজিবুর রহমান ও তার স্ত্রী ইসরাত জাহানের বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার মামলাটি করা হয় বলে জানিয়েছেন দুদকের উপপরিচালক (জনসংযোগ) মুহাম্মদ আরিফ সাদেক।

দুদকের সহকারী পরিচালক আতাউর রহমান সরকার মামলাটি করেন।

দুদক সূত্র জানায়, ১ কোটি ৫৩ লাখ ৭৭ হাজার টাকার জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ এনে ওই দম্পতির বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। এতে প্রধান আসামি করা হয়েছে ইসরাত জাহানকে।

এজাহারে বলা হয়, প্রাথমিক তদন্তে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানার ভূঁইঘর মৌজায় ৩ দশমিক ৭০ শতাংশ, মুন্সিগঞ্জের লৌহজংয়ে ১০ শতাংশ এবং পটুয়াখালীর বাউফলে ২৯ শতাংশ জমি পাওয়া গেছে ইসরাতের নামে।

এ ছাড়া রাজধানীর জুরাইনের কেয়ারিনগর অ্যাপার্টমেন্ট প্রজেক্টে ১০১৬ বর্গফুটের একটি ফ্ল্যাট (বিল্ডিং নম্বর-৭, ফ্ল্যাট নম্বর-ই ৪), একই প্রজেক্টে ১০৬৯ বর্গফুটের আরও একটি ফ্ল্যাট (বিল্ডিং নম্বর-৭, ফ্ল্যাট নম্বর-এ ৪) এবং ৫৮৩ বর্গফুটের পৃথক একটি ফ্ল্যাটের মালিক ইসরাত।

রয়েছে ৪৫ লাখ টাকার পারিবারিক সঞ্চয়পত্র। ব্যাংকে থাকা টাকার পরিমাণ ৩৫ লাখ।

এজাহারে আরও বলা হয়, আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত ১ কোটি ৫৩ লাখ ৭৭ হাজার টাকার সম্পদ অর্জন ও ভোগদখলে রেখে দুর্নীতি দমন কমিশন আইন ২০০৪-এর ২৭ (১) ধারা ও দণ্ডবিধির ১০৯ ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন।

আরও পড়ুন:
হেফাজত নেতা মুফতি মনির গ্রেপ্তার
হেফাজতের তাণ্ডব: ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গ্রেপ্তার ৪৮৭
মামুনুলের রিসোর্টকাণ্ডে গ্রেপ্তার হেফাজত নেতার মৃত্যু
ফের রিমান্ডে নোমান ফয়েজী
হেফাজত নেতা ইসলামাবাদী আবার রিমান্ডে

শেয়ার করুন

ব‌স্তি‌তে আগুনে ক্ষ‌তিগ্রস্তদের পাশে ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন

ব‌স্তি‌তে আগুনে ক্ষ‌তিগ্রস্তদের পাশে ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন

মহাখালীর সাততল বস্তিতে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে শ‌নিবার খাদ্যসামগ্রী বিতরণের সময় প্রধান অতিথি হি‌সে‌বে উপ‌স্থিত ছি‌লেন ইসলামী শ্র‌মিক আ‌ন্দোল‌নের সে‌ক্রেটারি জেনা‌রেল হা‌ফেজ মাওলানা ছিদ্দিকুর রহমান। ছবি: সংগৃহীত

ইসলামী শ্র‌মিক আ‌ন্দোল‌নের সে‌ক্রেটারি জেনা‌রেল হা‌ফেজ মাওলানা ছিদ্দিকুর রহমান খাদ্যসামগ্রী বিতরণ শে‌ষে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষ‌তিগ্রস্ত এলাকা প‌রিদর্শন ক‌রেন। চরমোনাই পীরের পক্ষ থেকে এ খাদ্যসামগ্রী দেয়া হয়।

মহাখালীর সাততলা ব‌স্তি‌তে অ‌গ্নিকা‌ণ্ডে ক্ষ‌তিগ্রস্ত প‌রিবা‌রের মধ্যে ইসলামী শ্র‌মিক আন্দোলন ঢাকা মহানগর উত্ত‌রের উ‌দ্যো‌গে চর‌মোনাইয়ের পীরের পক্ষ থে‌কে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে।

শ‌নিবার খাদ্যসামগ্রী বিতরণের সময় প্রধান অতিথি হি‌সে‌বে উপ‌স্থিত ছি‌লেন ইসলামী শ্র‌মিক আ‌ন্দোল‌নের সে‌ক্রেটারি জেনা‌রেল হা‌ফেজ মাওলানা ছিদ্দিকুর রহমান।

খাদ্যসামগ্রী বিতরণ শে‌ষে প্রধান অ‌তিথি অগ্নিকাণ্ডে ক্ষ‌তিগ্রস্ত এলাকা প‌রিদর্শন ক‌রেন।

এ সময় তি‌নি ক্ষ‌তিগ্রস্থ প‌রিবা‌রের খোঁজখবর নেন এবং তা‌দেরকে সঙ্গে নি‌য়ে মহান আল্লাহর কা‌ছে দোয়া ক‌রেন।

এ সময় অন্যান্যের ম‌ধ্যে উপ‌স্থিত ছি‌লেন ইসলামী শ্র‌মিক আ‌ন্দোলন ঢাকা মহানগর উত্ত‌রের সভাপ‌তি মুহাম্মাদ জা‌কির হো‌সেন হাওলাদার, সে‌ক্রেটারি আলাউ‌দ্দিন হাওলাদার, ইসলামী যুব আন্দোল‌নের বনানী থানা সাধারণ সম্পাদক তা‌রিকুল ইসলামসহ আরও অনেকে।

আরও পড়ুন:
হেফাজত নেতা মুফতি মনির গ্রেপ্তার
হেফাজতের তাণ্ডব: ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গ্রেপ্তার ৪৮৭
মামুনুলের রিসোর্টকাণ্ডে গ্রেপ্তার হেফাজত নেতার মৃত্যু
ফের রিমান্ডে নোমান ফয়েজী
হেফাজত নেতা ইসলামাবাদী আবার রিমান্ডে

শেয়ার করুন

ঢাকা উত্তরে এক লাখ ৩৮ হাজার টাকা জরিমানা আদায়

ঢাকা উত্তরে এক লাখ ৩৮ হাজার টাকা জরিমানা আদায়

এর মধ্যে ডিএনসিসির এক নম্বর অঞ্চলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রিফাত ফেরদৌস পরিচালিত আদালত দুটি মামলায় আট হাজার টাকা, দুই নম্বর অঞ্চলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এএসএম সফিউল আজম পরিচালিত আদালত পাঁচটি মামলায় ২০ হাজার টাকা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পারসিয়া সুলতানা প্রিয়াংকা পরিচালিত আদালত দুটি মামলায় ৩০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করে।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) এলাকায় এডিস মশা, ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া বিস্তার রোধে শনিবার ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ২১টি মামলায় মোট এক লাখ ৩৮ হাজার ১০০ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।

এর মধ্যে ডিএনসিসির এক নম্বর অঞ্চলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রিফাত ফেরদৌস পরিচালিত আদালত দুটি মামলায় আট হাজার টাকা, দুই নম্বর অঞ্চলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এএসএম সফিউল আজম পরিচালিত আদালত পাঁচটি মামলায় ২০ হাজার টাকা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পারসিয়া সুলতানা প্রিয়াংকা পরিচালিত আদালত দুটি মামলায় ৩০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করে।

তিন নম্বর অঞ্চলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল বাকী পরিচালিত আদালত পাঁচটি মামলায় ৭০ হাজার টাকা ও চার নম্বর অঞ্চলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সালেহা বিনতে সিরাজ পরিচালিত আদালত তিনটি মামলায় ২ হাজার ১০০ টাকা জরিমানা আদায় করে।

এ ছাড়া ৯ নম্বর অঞ্চলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. নাসির উদ্দিন মাহমুদ পরিচালিত আদালত চারটি মামলায় আট হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেছে। এভাবে মোট ২১টি মামলায় আদায়কৃত জরিমানার পরিমাণ এক লাখ ৩৮ হাজার ১০০ টাকা।

এ সময় মাইকিং করে জনসচেতনতামূলক বার্তা প্রচার করা হয়। এ ছাড়া ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়ার বিস্তার রোধে সবাইকে ডিএনসিসি মেয়রের আহ্বান ‘তিন দিনে একদিন, জমা পানি ফেলে দিন’ মানার পাশাপাশি ও করোনা প্রতিরোধে সরকারি নির্দেশনাসহ স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে মেনে চলার পরামর্শ দেয়া হয়।

আরও পড়ুন:
হেফাজত নেতা মুফতি মনির গ্রেপ্তার
হেফাজতের তাণ্ডব: ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গ্রেপ্তার ৪৮৭
মামুনুলের রিসোর্টকাণ্ডে গ্রেপ্তার হেফাজত নেতার মৃত্যু
ফের রিমান্ডে নোমান ফয়েজী
হেফাজত নেতা ইসলামাবাদী আবার রিমান্ডে

শেয়ার করুন

মানব পাচারকারী চক্রের ৫ সদস্য গ্রেপ্তার

মানব পাচারকারী চক্রের ৫ সদস্য গ্রেপ্তার

রাজধানীর ওয়ারিতে র‍্যাবের অভিযানে মানব পাচারকারী সন্দেহে গ্রেপ্তারকৃতদের ৩ জন। পৃথক অভিযানে আরও ২ জনকে আটক করা হয়। ছবি:সংগৃহীত

র‍্যাব জানায়, গ্রেপ্তারকৃতরা পেশাদার নারী ও শিশু পাচারকারী চক্রের সক্রিয় সদস্য। তারা বেশ কিছুদিন ধরে পরস্পর যোগসাজসে সংঘবদ্ধভাবে ও প্রতারণা করে অবৈধ পথে বিভিন্ন বয়সের নারী ও শিশুদের প্রলোভন দেখিয়ে পতিতাবৃত্তি ও যৌন কাজে ব্যবহার করে আসছিল।

রাজধানীর ওয়ারিতে র‌্যাবের পৃথক অভিযানে মানব পাচারকারী চক্রের সদস্য সন্দেহে ৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এ সময় ১৬ ভিকটিমকে উদ্ধার করা হয়।

শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে ওয়ারির রায়সাহেব বাজার মোড়ের নবাবপুর রোড এলাকার ‘দি নিউ ঢাকা বোডিং’ আবাসিক হোটেলে অভিযান পরিচালনা করে ১০ জন ভিকটিমসহ মানব পাচারকারী চক্রের ২ সদস্যকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব-১০।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন জুবায়ের আহসান ও সজল বেপারী।

এ সময় তাদের কাছ থেকে ৯টি মোবাইল ফোন ও ২ হাজার ৯৭০ টাকা উদ্ধার করা হয়।

এ ছাড়া শুক্রবার আনুমানিক সাড়ে ৯টার দিকে একই এলাকার হোটেল ইব্রাহীমে অপর একটি অভিযান চালিয়ে ৬ ভিকটিমসহ মানব পাচারকারী চক্রের ৩ সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- জয়নাল মিয়া, জান মিয়া ও আরমান।

এ সময় তাদের কাছ থেকে ৭টি মোবাইল ফোন ও ৫ হাজার ১৭০ টাকা উদ্ধার করা হয়।

র‍্যাব-১০ এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) এএসপি এনায়েত কবীর সোয়েব ঘটনা ২টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, গ্রেপ্তারকৃতরা পেশাদার নারী ও শিশু পাচারকারী চক্রের সক্রিয় সদস্য। তারা বেশ কিছুদিন ধরে পরস্পর যোগসাজসে সংঘবদ্ধভাবে ও প্রতারণা করে অবৈধ পথে বিভিন্ন বয়সের নারী ও শিশুদের প্রলোভন দেখিয়ে পতিতাবৃত্তি ও যৌন কাজে ব্যবহার করে আসছিল।

গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় মানব পাচার আইনে মামলা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
হেফাজত নেতা মুফতি মনির গ্রেপ্তার
হেফাজতের তাণ্ডব: ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গ্রেপ্তার ৪৮৭
মামুনুলের রিসোর্টকাণ্ডে গ্রেপ্তার হেফাজত নেতার মৃত্যু
ফের রিমান্ডে নোমান ফয়েজী
হেফাজত নেতা ইসলামাবাদী আবার রিমান্ডে

শেয়ার করুন

গৃহকর্মীর গায়ে ফুটন্ত ভাত: জেলে বাড়িওয়ালার মেয়ে

গৃহকর্মীর গায়ে ফুটন্ত ভাত: জেলে বাড়িওয়ালার মেয়ে

প্রতীকী ছবি।

গত বুধবার গৃহকর্তার মেয়ে তানজিনা রহমান তার কাছে ভাত চেয়েছিলেন। ‘ভাত এখনো হয়নি, চুলায় রয়েছে’ জানালে তানজিনা ক্ষিপ্ত হয়ে চুলায় ফুটন্ত মাড়সহ ভাত নিয়াসার শরীরে ঢেলে দেন। মেয়েটির নির্যাতনের খবর প্রতিবেশীরা ৯৯৯-এ কল করে থানায় জানান। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিয়াসাকে উদ্ধার করে প্রথমে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে নিয়ে আসে।

রাজধানীর উত্তরায় নিয়াসা নামে এক গৃহকর্মীর গায়ে ফুটন্ত ভাতের মাড় ঢেলে দিয়ে নির্যাতন করার অভিযোগে গ্রেপ্তার বাড়িওয়ালার মেয়ে তানজিনা রহমানকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

শনিবার বেলা সাড়ে ৩টার দিকে ঢাকার মুখ্য মহানগর আদালতের (সিএমএম) হাকিম আতিকুল ইসলাম এ আদেশ দেন।

এদিন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উত্তরা পশ্চিম থানার উপপরিদর্শক (এসআই) কাঞ্চন রায়হান আসামি তানজিনাকে আদালতে হাজির করে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন।

এ সময় তানজিনার পক্ষে দুজন আইনজীবী জামিন চেয়ে আবেদন করেন।

শুনানি শেষে বিচারক জামিনের আবেদন নাকচ করে কারাগারে আটক রাখার আদেশ দেন।

নির্যাতনের শিকার ১৮ বছর বয়সী গৃহকর্মী নিয়াসার বাড়ি সিলেটের রূপনগর এলাকায়। তার বাবার নাম আরিকুল ইসলাম।

সংসারের অভাব-অনটনের কারণে গত এক বছর ধরে উত্তরা পশ্চিম থানার ৯ নম্বর সেক্টরের একটি বাসায় গৃহকর্মী হিসেবে কাজ করতেন নিয়াসা।

মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, গত বুধবার গৃহকর্তার মেয়ে তানজিনা রহমান তার কাছে ভাত চেয়েছিলেন।

‘ভাত এখনো হয়নি, চুলায় রয়েছে’ জানালে তানজিনা ক্ষিপ্ত হয়ে চুলায় ফুটন্ত মাড়সহ ভাত নিয়াসার শরীরে ঢেলে দেন। এতে দগ্ধ হন নিয়াসা।

মেয়েটির নির্যাতনের খবর প্রতিবেশীরা ৯৯৯-এ কল করে থানায় জানান।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিয়াসাকে উদ্ধার করে প্রথমে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে নিয়ে আসে।

সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পর বিকালে তাকে ঢামেক হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) রেফার করা হয়।

মেয়েটির শরীরের ৫ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে বলে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নিউজবাংলাকে জানিয়েছেন।

বিষয়টি প্রাথমিক সত্যতার ভিত্তিতে আমলে নিয়েছে পুলিশ।

প্রাথমিকভাবে উত্তরার পশ্চিম থানায় পুলিশের করা একটি জিডিমূলে আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে শনিবার পুলিশ মামলা করে।

আরও পড়ুন:
হেফাজত নেতা মুফতি মনির গ্রেপ্তার
হেফাজতের তাণ্ডব: ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গ্রেপ্তার ৪৮৭
মামুনুলের রিসোর্টকাণ্ডে গ্রেপ্তার হেফাজত নেতার মৃত্যু
ফের রিমান্ডে নোমান ফয়েজী
হেফাজত নেতা ইসলামাবাদী আবার রিমান্ডে

শেয়ার করুন

এয়ারপোর্ট রেস্টুরেন্টে শতাধিক মরা মুরগি, আটক ৭

এয়ারপোর্ট রেস্টুরেন্টে শতাধিক মরা মুরগি, আটক ৭

ছবি: সংগৃহীত

এয়ারপোর্ট আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের অভিযানের সময় রেস্টুরেন্টের ম্যানেজার, মৃত মুরগির সাপ্লায়ার, রেস্টুরেন্টের বাবুর্চিসহ ৭ জনকে আটক করা হয়। ধারণা করা হচ্ছে মুরগিগুলো রান্না করে তা ভোক্তাদের পরিবেশন করা হত। আটক অভিযুক্তদের বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাস্টমস হাউজের পাশে এয়ারপোর্ট রেস্টুরেন্ট থেকে ১১৯টি মরা মুরগি উদ্ধার করা হয়েছে। এ সময় সাত জনকে আটক করে এয়ারপোর্ট আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন)।

শনিবার দুপুর আড়াইটার দিকে রেস্টুরেন্টটিতে এ অভিযান চালানো হয় বলে নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেন এপিবিএন এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জিয়াউল হক।

তিনি বলেন, ‘আমাদের সাদা পোশাকের সদস্যরা মরা মুরগিগুলো হাতেনাতে আটক করে। দুপুর আড়াইটায় বিমানবন্দর আর্মড পুলিশের একটি দল বিমানবন্দর ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে ঢাকা কাস্টমস হাউজের পাশে অবস্থিত এয়ারপোর্ট রেস্টুরেন্টের ভেতর থেকে ১১৯টি মুরগি আটক করে।’

জিয়াউল হক জানান, এ সময় রেস্টুরেন্টের ম্যানেজার, মৃত মুরগির সাপ্লায়ার, রেস্টুরেন্টের বাবুর্চিসহ ৭ জনকে আটক করা হয়। ধারণা করা হচ্ছে মুরগিগুলো রান্না করে তা ভোক্তাদের পরিবেশন করা হত। আটক অভিযুক্তদের বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

আরও পড়ুন:
হেফাজত নেতা মুফতি মনির গ্রেপ্তার
হেফাজতের তাণ্ডব: ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গ্রেপ্তার ৪৮৭
মামুনুলের রিসোর্টকাণ্ডে গ্রেপ্তার হেফাজত নেতার মৃত্যু
ফের রিমান্ডে নোমান ফয়েজী
হেফাজত নেতা ইসলামাবাদী আবার রিমান্ডে

শেয়ার করুন

‘ক্ষমতায় যেতে দিগ্বিদিকশূন্য বিএনপি’

‘ক্ষমতায় যেতে দিগ্বিদিকশূন্য বিএনপি’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপি নিজেরাই গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে পরিকল্পিতভাবে প্রশ্নবিদ্ধ করছে। বিএনপি ক্ষমতাপাগল, তারা এখন দিগ্বিদিকশূন্য। ক্ষমতা ফিরে পাওয়ার মোহে বিএনপি নেতারা এখন মিথ্যাচার আর ষড়যন্ত্রের পথ বেছে নিয়েছেন। তাদের কোনো ষড়যন্ত্রই সফল হবে না। তাদের চরিত্র এখন দেশবাসীর কাছে স্পষ্ট।’

গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে পরিকল্পিতভাবে প্রশ্নবিদ্ধ করা বিএনপি ক্ষমতায় যেতে মরিয়া হয়ে উঠেছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

ঢাকায় নিজ বাসভবনে শনিবার সকালে নিয়মিত ব্রিফিংয়ে তিনি এ মন্তব্য করেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপিকে নির্বাচনে বিজয়ের গ্যারান্টি দিলে নির্বাচন কমিশন তাদের ভাষায় নিরপেক্ষ আর তাদের পক্ষে রায় দিলেই বিচার বিভাগ স্বাধীন। বিএনপি নেতাদের অপরাধ ও দুর্নীতির বিচার না করলে দুদক ভালো।

‘বিএনপি নিজেরাই গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে পরিকল্পিতভাবে প্রশ্নবিদ্ধ করছে। বিএনপি ক্ষমতাপাগল, তারা এখন দিগ্বিদিকশূন্য। ক্ষমতা ফিরে পাওয়ার মোহে বিএনপি নেতারা এখন মিথ্যাচার আর ষড়যন্ত্রের পথ বেছে নিয়েছেন। তাদের কোনো ষড়যন্ত্রই সফল হবে না। তাদের চরিত্র এখন দেশবাসীর কাছে স্পষ্ট।’

বিএনপির সমালোচনা করে ক্ষমতাসীন দলের শীর্ষ পর্যায়ের এই নেতা বলেন, যারা দেশের স্বাধীনতায় ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী নয়, তারাই দেশকে অকার্যকর এবং ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায়। গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে শক্তিশালী করাই সরকারের লক্ষ্য। বিএনপিই বরং একের পর এক গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে বিতর্কিত করছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ বর্তমানে উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদায় অভিষিক্ত এবং বিশ্বসভায় সম্ভাবনাময় দেশ বলে উল্লেখ করেন ওবায়দুল কাদের।

বিএনপিকে উদ্দেশ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও মুজিব শতবর্ষ পালন উপলক্ষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফরের আগে কারা তাকে প্রতিহত করার ঘোষণা দিয়েছিল দেশবাসী তা জানে। কারা হামলা ও এর পৃষ্ঠপোষক এবং প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে কারা জড়িত তা ভিডিও ফুটেজে স্পষ্ট হয়েছে।

‘বিএনপি সাম্প্রদায়িক অপশক্তির পৃষ্ঠপোষক। তারা যতই অস্বীকার করুক সাম্প্রদায়িক অপশক্তির তোষণ নীতি থেকে বের হতে পারবে না। ২০১৩-১৪ সালে আগুন-সন্ত্রাস চালিয়ে এর দায় আওয়ামী লীগের ওপর চাপিয়ে দিতে চেয়েছে বিএনপি। নিজেদের অপকর্ম ও ব্যর্থতা আড়াল করতে উদোর পিন্ডি বুধোর ঘাড়ে চাপানো বিএনপির পুরোনো অভ্যাস।’

আরও পড়ুন:
হেফাজত নেতা মুফতি মনির গ্রেপ্তার
হেফাজতের তাণ্ডব: ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গ্রেপ্তার ৪৮৭
মামুনুলের রিসোর্টকাণ্ডে গ্রেপ্তার হেফাজত নেতার মৃত্যু
ফের রিমান্ডে নোমান ফয়েজী
হেফাজত নেতা ইসলামাবাদী আবার রিমান্ডে

শেয়ার করুন