ভ্রাম্যমাণ আদালতের ২০ মামলা, ৩ লাখ টাকা জরিমানা

ভ্রাম্যমাণ আদালতের ২০ মামলা, ৩ লাখ টাকা জরিমানা

করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে সরকারের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করা, লাইসেন্স ছাড়া ও লাইসেন্সের শর্ত ভঙ্গ করে ব্যবসা করা, মেয়াদোত্তীর্ণ খাদ্যসামগ্রী মজুত রাখা ও স্বাস্থ্যবিধি না মানার অপরাধে এসব মামলা করা হয়।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন এলাকায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সরকার ঘোষিত নিষেধাজ্ঞা অমান্য করা, লাইসেন্স ছাড়া ও লাইসেন্সের শর্ত ভঙ্গ করে ব্যবসা করা, মেয়াদোত্তীর্ণ খাদ্যসামগ্রী মজুত রাখা এবং স্বাস্থ্যবিধি না মানার অপরাধে ভ্রাম্যমাণ আদালত মোট ২০টি মামলায় ৩ লাখ ১২ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেছে।

সোমবার উত্তর সিটি করপোরেশনের ১ নম্বর অঞ্চলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জুলকার নায়নের নেতৃত্বাধীন ভ্রাম্যমাণ আদালত দুটি মামলায় ১ হাজার টাকা, ২ নম্বর অঞ্চলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এ এস এম সফিউল আজমের নেতৃত্বাধীন ভ্রাম্যমাণ আদালত ৬টি মামলায় ৫১ হাজার টাকা, ৩ নম্বর অঞ্চলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. রিফাত ফেরদৌসের ভ্রাম্যমাণ আদালত ১টি মামলায় ২০ হাজার টাকা, এক‌ই অঞ্চলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আব্দুল হামিদ মিয়ার ভ্রাম্যমাণ আদালত ৬টি মামলায় ২ লাখ ১৫ হাজার টাকা, ৬ নম্বর অঞ্চলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাজিয়া আফরিনের ভ্রাম্যমাণ আদালত ৩টি মামলায় ১৬ হাজার টাকা এবং ৮ নম্বর অঞ্চলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আবেদ আলীর আদালত ২টি মামলায় ৯ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করে। এভাবে মোট ২০টি মামলায় জরিমানার সর্বমোট ৩ লাখ ১২ হাজার টাকা আদায় করা হয়।

এ সময় মাইকিং করে জনসচেতনতামূলক বার্তা প্রচার করা হয়, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও মাস্ক বিতরণ করা হয় এবং সবাইকে সরকারের নির্দেশনাসহ স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে মেনে চলার পরামর্শ দেয়া হয়।

আরও পড়ুন:
অবৈধভাবে বালু উত্তোলন: ১৫ বাল্কহেড মালিককে জরিমানা
শঙ্খ নদীতে আবর্জনা, ২ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা
ভেজাল দুধ বিক্রি ও স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ৭ জনকে জরিমানা
ভোলায় যাত্রী পারাপারের অভিযোগে দুই মাঝিকে জরিমানা
মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ রাখায় ৬ ফার্মেসিকে জরিমানা

শেয়ার করুন

মন্তব্য