20201002104319.jpg
লুইস গ্লুক পাঠের ভূমিকা

লুইস গ্লুক পাঠের ভূমিকা

তার মধ্যে মাঝারিপনার কোনও জায়গা ছিল না। লুইস যখন কথা বলেন, তখন তাকে আপনি বিশ্বাস করবেন, কেননা সভ্যতার আড়ালে নিজেকে গোপন করেন না তিনি।

অ্যাকাডেমি অব আমেরিকান পোয়েটস-এর চেয়ারম্যান মাইকেল জ্যাকবস এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘তার কবিতা, তার সামগ্রিক কাজ এবং তার স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্যমণ্ডিত কণ্ঠস্বর মানব-পরিস্থিতিকে স্মরণীয় ও উত্তেজনাকর ভাষায় উপস্থাপন করে।’ জ্যাকব্স তার আগে বলেছেন, ‘আমাদের সবচেয়ে খ্যাতিমান আমেরিকান কবি হিসেবে লুইস গ্লুক এ বছর সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার পাওয়ায় আমরা রোমাঞ্চিত।’

আমেরিকান কবিসমাজ যে রোমাঞ্চিত হয়েছে তার আরও প্রমাণ মেলে ক্লডিয়া র‌্যাঙ্কিনের কথায়। ক্লডিয়া র‌্যাঙ্কিন অপেক্ষাকৃত তরুণ কবি, ‘সিটিজেন’ ও ‘জাস্ট আস’ নামে দুটি সাড়া জাগানো বইয়ের লেখক। লুইস গ্লুকের অধীনে অধ্যয়ন করেছেন ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয়ে, আর এখন ওই বিশ্ববিদ্যালয়েই গ্লুকের সহকর্মী তিনি। কবি হিসেবে গ্লুকের পৃষ্ঠপোষকতাও পেয়েছেন বরাবর এবং তার কথায়, ‘আমার যখন ১৯ বছর বয়স আর জানার চেষ্টা করছি কবিতাশৈলীর ভিতরে কী আছে, তিনি তখন আমার প্রতি কখনও যে প্রাণময়তা, কখনও যে নিষ্ঠা দেখিয়েছেন তা ভোলার নয়।’ এরপর ক্লডিয়া বলেছেন সম্ভবত সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কথাটি- ‘তার মধ্যে মাঝারিপনার কোনও জায়গা ছিল না, মিথ্যা প্রশংসার কোনও জায়গা ছিল না। লুইস যখন কথা বলেন, তখন তাকে আপনি বিশ্বাস করবেন, কেননা সভ্যতার আড়ালে নিজেকে গোপন করেন না তিনি।’

লুইস গ্লুক সম্পর্কে উচ্ছ্বসিত মনোভাব নোবেল পুরস্কার পাওয়ার আগে থেকেই ছিল আমেরিকান কবিসমাজে। ডাব্লিউ আর মোসেস, র‌্যান্ডল জ্যারেল, জর্জ ম্যারিওন ও’ডনেল, জন বেরিম্যান, মেরি বার্নার্ড প্রমুখ কবিও লুইসে মুগ্ধ। যদিও গ্লুকের পূর্বসূরীদের মধ্যে রবার্ট ফ্রস্ট বা গোয়েন্ডোলিন ব্রুক্স বা ওয়ালেস স্টিভেন্সকে বছরের পর বছর পাশ কাটিয়ে গিয়েছিল নোবেল কমিটি। তবে তাদের এবারকার নির্বাচন নিয়ে কোনও সংশয় নেই, অন্তত আমেরিকান কবিসমাজের মধ্যে। তারা ‘অকপট ও আপসহীন’ হিসেবে প্রভূত প্রশংসা করেছে লুইসের। আর ম্যাসাচুসেটসের কেমব্রিজে নিজের বাড়ির বাইরে লুইস নোবেল পুরস্কারপ্রাপ্তির প্রথম প্রতিক্রিয়ায় সাংবাদিকদের বলেছেন, তিনি ‘আলোড়ন, উল্লাস আর কৃতজ্ঞতা’ অনুভব করছেন।

পরে তিনি বলেছেন, ‘পার্থিব পুরস্কার বিশ্বে অস্তিত্বশীল থাকাটাকে সহজ করে দেয়। এটা আপনাকে একটা ভালো কাজ পাওয়ার অবস্থায় নিয়ে যায়। মানে হলো, একটা বিমানে চড়ার পক্ষে আপনি মোটা টাকা খরচ করতে পারেন। কিন্তু আমি যা চাই তার প্রতীক হিসেবে- এটা আমার জীবনকালে আমার সত্তাকে ধারণ করতে সক্ষম নয়। আমি মৃত্যুর পর বেঁচে থাকতে চাই, সেই প্রাচীন ধারায়। আর জানার উপায় নেই তা হবে কি না, জানা যাবেও না, আমার মৃতদেহের ওপর কতগুলো নীল রিবন এঁটে দেওয়া হলে তাতে কিছু আসে যায় না।’

লুইস এলিজাবেথ গ্লুকের জন্ম ১৯৪৩ সালের ২২ এপ্রিল। যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক সিটিতে জন্মগ্রহণ করলেও বেড়ে ওঠেন লং আইল্যান্ডে। তার বাবা ড্যানিয়েল গ্লুক ছিলেন ব্যবসায়ী, মা বিয়াট্রিস গ্লুক ছিলেন গৃহিনী। তাদের দুই মেয়ের মধ্যে লুইস ছিলেন বড়। মা ও বাবা উভয়ের পূর্বপুরুষের দিক থেকে লুইসের ধমনীতে প্রবাহিত হচ্ছে পূর্ব ইউরোপীয় ইহুদি রক্ত। তার বাবার লেখক হওয়ার আকাঙ্ক্ষা ছিল। কিন্তু ভগ্নিপতির সঙ্গে ব্যবসায় ঢুকে পড়েছিলেন। লুইসের মা ছিলেন ওয়েলেস্লি কলেজের গ্র্যাজুয়েট। শৈশবে মা-বাবার কাছ থেকে গ্রিক পুরাণ আর ধ্রুপদী গল্প সম্পর্কে জানতে পেরেছিলেন লুইস। কবিতা লিখতে শুরু করেছিলেন ছোটবেলায়।

কিশোরীকালে অ্যানোরেক্সিয়া নার্ভোসা রোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন লুইস। ওই সময়ে ও তারুণ্যে সেটা তার জন্য হয়ে দাঁড়িয়েছিল সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। নিউইয়র্কের হিউলেটে জর্জ ডাব্লিউ হিউলেট হাইস্কুলে শেষের দিকে সাইকোঅ্যানালিটিক্যাল ট্রিটমেন্ট নিতে শুরু করেছিলেন তিনি। কয়েক মাস পর পুনর্বাসনের জন্য স্কুল থেকে তাকে সরিয়ে নেওয়া হয়, তবে ১৯৬১ সালে গ্র্যাজুয়েট হতে সমস্যা হয়নি তার। পরের সাত বছর তার থেরাপি চলে। এই সময়টাকে তিনি গুরুত্ব দিয়েছেন আত্মোপলব্ধির সুযোগ পাওয়ার জন্য। নিজের এই পরিস্থিতির কারণে পূর্ণকালীন ছাত্রী হিসেবে কলেজে ভর্তি হতে পারেননি। পরিবর্তে সারা লরেন্স কলেজে কবিতা বিষয়ক ক্লাসে অধ্যয়ন করেন। ১৯৬৩ থেকে ১৯৬৬ সাল পর্যন্ত কলাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব জেনারেল স্টাডিজে কবিতার কর্মশালায় অংশ নেন। অপ্রথাবদ্ধ শিক্ষার্থীদের জন্য তাদের একটা ডিগ্রি প্রোগ্রাম ছিল। তার শিক্ষকদের মধ্যে ছিলেন লিওনি অ্যাডাম্স ও স্ট্যানিও কুনিট্জ। কবি হয়ে ওঠার পথে এ দুজনের অবদান সবসময় স্বীকার করেন লুইস।

কোনও ডিগ্রি না নিয়েই কলম্বিয়া ছাড়ার পর সেক্রেটারিয়াল কাজ দিয়ে কর্মজীবন শুরু করেন লুইস। ১৯৬৭ সালে বিয়ে করেন চার্লস হার্টজ জুনিয়রকে। সেটা শেষ হয় বিচ্ছেদে। ১৯৬৮ সালে প্রকাশিত হয় তার প্রথম কবিতার বই ফার্স্টবর্ন। কিছু ইতিবাচক সমালোচনা হয়েছিল বইটি নিয়ে। ১৯৭১ সালের পর, যখন তিনি ভার্মন্টের গডার্ড কলেজে কবিতার শিক্ষকতা করতেন, অনেক দিন বন্ধ থাকার পর আবার লেখালেখি শুরু হয়। তার দ্বিতীয় কবিতার বই দ্য হাউজ অন মার্শল্যান্ড প্রকাশিত হয় ১৯৭৫ সালে। সেটা তার ‘ব্রেক থ্রু ওয়ার্ক’ হিসেবে স্বীকৃতি পায় অনেক সমালোচকের তরফে। তার মধ্যে তারা আবিষ্কার করেছিলেন ‘একটি বৈশিষ্ট্যমূলক কণ্ঠস্বর’-এর সংকেত।

১৯৭৩ সালে জন্ম নেয় নোয়া; লুইস ও তার পার্টনার জন ড্র্যানাউয়ের ছেলে। যদিও লুইস ড্র্যানাউকে বিয়ে করেন ১৯৭৭ সালে। ১৯৮০ সালে ড্র্যানাউ ও কবি এলেন ব্রায়ান্ট ভয়েটের স্বামী ফ্রান্সিস ভয়েট মিলে প্রতিষ্ঠা করেন নিউ ইংল্যান্ড কুলিনারি ইনস্টিটিউট, বেসরকারি কলেজ। সে বছরই প্রকাশিত হয় লুইসের তৃতীয় কবিতার বই ডিসেন্ডিং ফিগার। কবি গ্রেগ কুজমা এ বইয়ের কিছু বিষয়বস্তুর কারণে ‘চাইল্ড হেটার’ হিসেবে লুইসের সমালোচনা করেন। তবে সামগ্রিকভাবে পাঠকমহলে বইটি সমাদৃত হয়। একই বছর লুইসদের ভার্মন্টের বাড়িতে আগুন ধরে এবং তার অনেক লেখা পুড়ে যায়। এই ট্র্যাজেডি থেকে উঠে এসে লুইস সেইসব কবিতা লেখা শুরু করেন. যা তাকে এনে দেয় সম্মানজনক সব পুরস্কার।

১৯৮৪ সালে লুইস ইংরেজি বিভাগের সিনিয়র লেকচারার হিসেবে যোগ দেন ম্যাসাচুসেটসের উইলিয়ামস কলেজে। ১৯৮৫ সালে প্রকাশিত হয় তার কবিতার বই দ্য ট্রায়াম্ফ অব অ্যাকিলিস। বইটি উচ্ছ্বসিত প্রশংসা পায় সমালোচকদের। তার বিখ্যাত আরও দুটি কবিতার বই অ্যারারাট ও দ্য ওয়াইল্ড আইরিস প্রকাশিত হয় ১৯৯০ ও ১৯৯২ সালে। শেষের বইটি সম্পর্কে পাবলিশার্স উইক্লি মন্তব্য করেন, ‘গুরুত্বপূর্ণ বই’ এবং সমালোচক এলিজাবেথ লান্ড দ্য ক্রিস্টিয়ান সায়েন্স মনিটরে লেখেন, ‘একটি মাইল ফলক কাজ’। এ বইটির জন্য ১৯৯৩ সালের পুলিৎজার পুরস্কারে ভূষিত করা হয় লুইস গ্লুককে। তার অন্যান্য বইয়ের মধ্যে আরও আছে মিডোল্যান্ডস, ভিটা নোভা, দ্য সেভেন এজেস, অ্যাভার্নো, এ ভিলেজ লাইফ, ফেইথফুল অ্যান্ড ভার্চুয়াস নাইট। এছাড়া গদ্যগ্রন্থ প্রুফ্স অ্যান্ড থিওরিস : এসেস অন পোয়েট্রি (১৯৯৪) এবং অ্যামেরিকান অরিজিনালিটি: এসেস অন পোয়েট্রি (২০১৭)।

আমেরিকার সব বড় পুরস্কারই পেয়েছেন লুইস গ্লুক। পুলিৎজার ছাড়াও পেয়েছেন ন্যাশনাল হিউম্যানিটিস মেডাল, ন্যাশনাল বুক অ্যাওয়ার্ড, ন্যাশনাল বুক ক্রিটিকস সার্কল অ্যাওয়ার্ড, বলিঞ্জেন প্রাইজ। লুইস গ্লুক ২০০৩ থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত ছিলেন পোয়েট লরিয়েট অব দ্য ইউনাইটেড স্টেটস। বাকি ছিল শুধু নোবেল সাহিত্য পুরস্কার, সেই শূন্যতাও এবার পূরণ হয়ে গেল।প্রমিত হোসেন: অনুবাদক ও সাংবাদিক

শেয়ার করুন