চাকরির কথা বলে ভ্রমণ ভিসায় লোক পাঠাতেন অমি

চাকরির কথা বলে ভ্রমণ ভিসায় লোক পাঠাতেন অমি

পরীমনির করা মামলায় প্রধান আসামি নাসিরউদ্দিন মাহমুদের সঙ্গে অমি, যাকে এই ঘটনার পরিকল্পনাকারী বলছেন এই অভিনেত্রী। ছবি: নিউজবাংলা

এবার অমির বিরুদ্ধে মানবপাচারের মামলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার অমির রিক্রুটিং এজেন্সির মাধ্যমে দুবাইয়ে যাওয়া দুই ব্যক্তির এক আত্মীয় এ মামলা করেন। এর আগে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে চিত্রনায়িকা পরীমনি জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য নাসির ইউ মাহমুদ ও তুহিন সিদ্দিকী অমির নাম উল্লেখ করে মামলা করেন।

চিত্রনায়িকা পরীমনিকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা মামলার আসামি তুহিন সিদ্দিকী অমির বিরুদ্ধে এবার অভিযোগ উঠেছে মানবপাচারের।

মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে চাকরি দেয়ার কথা বলে নিজের রিক্রুটিং এজেন্সির মাধ্যমে লোকজনের কাছ থেকে টাকা নিলেও তিনি তাদের পাঠাতেন ভ্রমণ ভিসায়। নির্ধারিত দেশে যাওয়ার পর উচ্চ বেতনে চাকরির পরিবর্তে পুলিশের ভয়ে পালিয়ে বেড়াতে হয় অমির মাধ্যমে বিদেশে যাওয়া ব্যক্তিদের।

এমনই দুই ভুক্তভোগীর আত্মীয় সাভারের আব্দুল কাদের নামে এক ব্যক্তি বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর পুলিশের দক্ষিণখান থানায় মানবপাচার আইনে মামলা করেছেন। তুহিন সিদ্দিকী অমিসহ পাঁচজনকে এই মামলায় আসামী করা হয়। মামলার অন্য আসামীরা অমির রিক্রুটিং এজেন্ট।

মামলাটি তদন্ত করছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ-সিআইডি। মানবপাচার ও প্রতারণার ঘটনায় বিস্তারিত জিজ্ঞাসাবাদের জন্য অমিকে রিমান্ডে আনার জন্য আবেদন করা হবে বলে জানিয়েছেন সিআইডির পরিদর্শক মো. মোস্তফা। মামলাটি তিনি তদন্ত করছেন।

পরিদর্শক মোস্তফা জানান, বাদী অভিযোগ করেছেন, তার দুজন আত্মীয়কে বিদেশ পাঠাতে অমির অফিসে যোগাযোগ করা হয়। অমির অফিস জানায়, দুবাইয়ের একটি মার্কেটে ফ্লোর ম্যানেজার হিসেবে চাকরি হয়েছে তাদের। মাসে পাবে ১৬৯০ দিরহাম। তাদের এজেন্সির মাধ্যমে যেতে হলে জনপ্রতি দিতে হবে ২ লাখ ৭০ হাজার টাকা। সে অনুযায়ী দুজন তাদের টাকা জমা দেয়। দুবাইয়ে পাঠানোও হয়।

দুবাই যাওয়ার পর বাদীর দুই আত্মীয় বুঝতে পারেন তাদের কাজের ভিসার কথা বলে ভ্রমণ ভিসায় পাঠানো হয়েছে। এরপর থেকে তারা পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। বৈধভাবে তারা কোনো কাজ করতে পারছেন না বলে জানান পরিদর্শক মোস্তফা।

তিনি বলেন, বাদী আব্দুল কাদের দুই আত্মীয়ই নয়, সাভারের আরও দুজন এভাবে প্রতারিত হয়েছেন।

তিনি বলেন, মামলার অন্য আসামীদের আটকে আমাদের অভিযান চলছে।

ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে ১৪ জুন চিত্রনায়িকা পরীমনি জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য নাসির ইউ মাহমুদ ও তুহিন সিদ্দিকী অমির নাম উল্লেখ করে মামলা করেন। আরও চারজনকে এ মামলায় অজ্ঞাত পরিচয় আসামি করা হয়।

পরীমনির মামলার পর ওই দিনই নাসির, অমিসহ পাঁচজনকে উত্তরার ১ নম্বর সেক্টরের একটি বাসা থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। এরপর তাদের বিরুদ্ধে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনেও একটি মামলা হয়।

গত ১৫ জুন রাতে উত্তরার দক্ষিণখানে অমির অফিসে অভিযান চালায় সাভার থানা পুলিশ। দক্ষিণখানে রিক্রুটিং এজেন্সির অফিসে অভিযান চালিয়ে শতাধিক পাসপোর্ট জব্দ করা হয়। এ ঘটনায় দক্ষিণখান থানায় অমিসহ তিনজনের বিরুদ্ধে বুধবার পাসপোর্ট আইনে মামলা করেছে সাভার থানা পুলিশ।

ধর্ষণ চেষ্টা, মাদক, পাসপোর্ট আইনে তিনটি মামলার তদন্ত চলাকালেই ১৭ জুন মানবপাচার আইনে নতুন এই মামলাটি হয় অমির বিরুদ্ধে।

আরও পড়ুন:
পরীমনির জ্বর, শ্বাসকষ্ট

শেয়ার করুন

মন্তব্য