20201002104319.jpg
20201003015625.jpg
রাজধানীতে নির্যাতন-ধর্ষণবিরোধী বিক্ষোভ, সন্ধ্যায় মশাল মিছিল

ধর্ষণের বিরুদ্ধে শাহবাগে আন্দোলনকারীরা, ছবি: নিউজবাংলা

রাজধানীতে নির্যাতন-ধর্ষণবিরোধী বিক্ষোভ, সন্ধ্যায় মশাল মিছিল

নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের প্রতিবাদে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় মঙ্গলবারও বিক্ষোভ হয়েছে।

সবচেয়ে বড় জমায়েত হয়েছে শাহবাগে। মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে সেখানে ‘ধর্ষকের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ’ ব্যানারে অবস্থান নেন বিক্ষোভকারীরা।

তেজগাঁওয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় অভিমুখে কালো পতাকা মিছিল কর্মসূচি ছিল তাদের। তবে হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালের পাশের রাস্তায় তাদের আটকে দেয় পুলিশ। পরে বিক্ষোভকারীরা শাহবাগে ফিরে সমাবেশ করেন। সেখান থেকে সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পসে মশাল মিছিলের ঘোষণা দিয়ে সমাবেশ শেষ হয়।

ছাত্র ইউনিয়ন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টসহ বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের কর্মী, লেখক-কবি ও ব্লগাররা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

গত বেশ কয়েকদিন ধরেই ধর্ষণ নিয়ে তুমুল সমালোচনা চলছে। এর মধ্যে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে ঘরে ঢুকে এক নারীকে বিবস্ত্র করে ধারণ করা ভিডিও রোববার ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। এতে ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে সারা দেশে।

এর আগে সোমবার রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় নারী নির্যাতনবিরোধী কর্মসূচি পালন করা হয়। শাহবাগ ও উত্তরা এলাকায় সড়ক অবরোধ করে মামলার দ্রুত বিচার ও ধর্ষণকারীর মৃত্যুদণ্ডসহ সাত দফা দাবি জানান শিক্ষার্থীরা।

দ্বিতীয় দিন মঙ্গলবার আবারও শাহবাগে মিছিল-সমাবেশ করেন বিক্ষুব্ধরা। সেখানে বেলা ১১টা থেকেই ‘ধর্ষণের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ’ ব্যানারে গণজমায়েত হওয়ার কথা ছিল। তবে বৃষ্টির কারণে কিছুটা দেরি হয়।

বেলা ১২টা থেকেই উত্তরার বিএনএস সেন্টারের সামনে সমবেত হন বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা৷ তারা একপাশের সড়ক আটকে মিছিল করেন।

মাইলস্টোন কলেজের শিক্ষার্থী মহিবুল মিছিলে পুলিশি বাধার অভিযোগ করেন। বলেন, ‘মিছিলের শুরু থেকেই পুলিশ আমাদের উপর চোখ রাঙাচ্ছে। বাড়ি চলে যেতে বলছে।’

তবে পুলিশের উত্তরা বিভাগের উপকমিশনার শহীদুল্লাহ বলেন, ‘নিরাপত্তা সবার দরকার। আমার নিজের ঘরেও দরকার৷ তাদের বাধা দেয়া হয়নি।’

‘তবে প্রচণ্ড যানজটে সাধারণ মানুষকে ভুগতে হয়। তাই অনুরোধ করা হয়েছে রাস্তার একটা পাশ ছেড়ে দেয়ার জন্য।’

মিরপুর ১০ নম্বর গোলচত্বরে মানববন্ধন করেছেন শিক্ষার্থীরা। বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যান্ড টেকনোলজির শিক্ষার্থী তরিকুল ইসলাম বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতিতে বাসা থেকে তেমন বের হতে দেয় না। তাই যার বাসা যে এলাকাতে সেখানেই আমরা দাবি নিয়ে দাঁড়িয়ে যাচ্ছি।’

বেলা ১১টার দিকে পুরান ঢাকায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ধর্ষণের বিরুদ্ধে মৌন মিছিল করেন। বিশ্ববিদ্যালয় চত্ত্বরের শহীদ মিনার থেকে রায়সাহেব বাজার ও সোহরাওয়ার্দী কলেজ হয়ে আবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ফটকে এসে শেষ হয় মিছিলটি।

শেয়ার করুন