বিদ্যুৎযোদ্ধাদের বেতনের অর্ধেক টাকা কাদের পকেটে?

বিদ্যুৎযোদ্ধাদের বেতনের অর্ধেক টাকা কাদের পকেটে?

কীভাবে ঠকাচ্ছে- জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যে ঠিকাদার আমাদের চাকরি দিছে, তারা ব্লাংক চেকে আমাদের সই নিয়ে নেয়। একেকবার তিনটা করে চেকে সই নেয়। ওই তিনটা শেষ হওয়ার আগেই আরও তিনটায় সই নেয়। এই দেখেন চেকের ছবি তুলে আনতে বলছিলেন, আনছি। ওরা আমাদের কারেন্টের মতো করে রক্ত চুষে খায়। আমরা কেউ কিছু কইতে পারি না চাকরি হারানোর ভয়ে।’

দেশের বৃহত্তম বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানি ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড (ডিপিডিসি)। গ্রাহকদের নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহে জীবন বাজি রেখে রাত-দিন কাজ করতে হয় এখানকার লাইনম্যানদের। অভিযোগ আছে, ব্যাংকে নির্দিষ্ট সেলারি অ্যাকাউন্ট থাকলেও মাস শেষে যে টাকা ঢোকে, তার পুরোটা তুলতে পারেন না এই বিদ্যুৎযোদ্ধারা।

নিউজবাংলার অনুসন্ধানে জানা গেছে, ব্যাংক থেকে এসএমএস দিয়ে তাদের যে টাকা ঢোকার কথা জানানো হয়, আসলে তার অর্ধেকটা পান তারা। সে টাকাও তাদের নিতে হয় কয়েক দিন পর ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে হাতে হাতে। রক্ত পানি করা পরিশ্রমের টাকার অর্ধেকটা পেলেও বিষয়টি নিয়ে মুখ খোলার সাহস পান না এসব লাইনম্যান।

এই বঞ্চনার কথা সাহস করে নিয়োগদাতা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে বললে তাদের বলা হয়, ‘এটাই সিস্টেম। চাকরি করলে করো, না হলে চলে যাও।’ বিষয়টি নিয়ে ডিপিডিসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে গিয়েও কোনো লাভ হয়নি বলে বলছেন লাইনম্যানরা।

উদাহরণ দিয়ে নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন লাইনম্যান নিউজবাংলাকে জানান, এই চাকরিতে ঢুকতে অন্তত ৫০ হাজার টাকা ঘুষ দিতে হয়। শুরুতে প্রত্যেক লাইনম্যানকে নিয়োগ দেয়া হয় ১৪ হাজার টাকা মাসিক বেতনে। কয়েক বছর কঠোর পরিশ্রমের পর বেতন বাড়ে এক-দুই হাজার টাকা।

তারা জানান, ধরেন, কোনো লাইনম্যান কয়েক বছর কাজ করার পর তার বেতন হয়েছে ১৭ হাজার টাকা। ব্যাংক থেকে তার কাছে ১৭ হাজার টাকা ঢোকার এসএমএস এলেও তিনি পান সর্বোচ্চ ৯ হাজার টাকা। এটাই এখানকার অলিখিত নিয়মে পরিণত হয়েছে।

লাইনম্যানদের এমন শাসন ও শোষণের বিষয়টি নিউজবাংলা সম্প্রতি জানতে পেরেছে কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে, যারা এর প্রমাণ হিসেবে তাদের ব্যাংক চেক, সেলারির এসএমএস দিয়েছেন এই প্রতিবেদককে।

বিদ্যুৎযোদ্ধাদের বেতনের অর্ধেক টাকা কাদের পকেটে?

লাইনম্যানদের কাছে এসব অভিযোগের তথ্য-প্রমাণ পাওয়ার পর রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাব-সংলগ্ন বিদ্যুৎ ভবনের চতুর্থ তলায় ডিপিডিসির অফিসে গিয়ে খোঁজ নেয় নিউজবাংলা।

সেখানকার কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ডিপিডিসির আওতায় লাইনম্যান হিসেবে কাজ করেন ৪৫০ জন। লাইনম্যানদের এই সংখ্যা ঠিক হলে মাসে জনপ্রতি সর্বনিম্ন ৭ হাজার টাকা আত্মসাৎ করা হলেও মোট টাকার পরিমাণ দাঁড়ায় ৩১ লাখ ৫০ হাজার টাকা।

ডিপিডিসির ভুক্তভোগী এক লাইনম্যান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাদের মতো লাইনম্যানদের চাকরি হয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে। ডিপিডিসির আন্ডারে আমরা আউটসোর্সিংয়ে কাজ করি। নিয়োগ দেয় ডিপিডিসির ঠিকাদাররা।

বিদ্যুৎযোদ্ধাদের বেতনের অর্ধেক টাকা কাদের পকেটে?


‘চাকরিতে আমাদের স্টার্টিং বেতন ধরে ১৪ হাজার টাকা। অ্যাকাউন্টে এসএমএস আসে ১৪ হাজারের। কিন্তু আমরা ওই বেতনটা পাই না। আমার ১৭ হাজার টাকা বেতন। আমার নামে ব্যাংক অ্যাকাউন্টও খুলে দিছে অফিস। ব্যাংক থেকে মেসেজ আসে ১৭ হাজার টাকাই ঢুকছে। এই দেখেন মেসেজ। মাসের ৩ তারিখ মেসেজ আসছে। কিন্তু মাসের ১২ তারিখ আমারে ধরিয়ে দিল ৯ হাজার টাকা।’

অ্যাকাউন্ট আপনাদের নামে; অন্যরা টাকা তুলছেন কীভাবে- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘প্রথম দিকে আমাদের কারও ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ছিল না। ঠিকাদার যারা আমাদের চাকরি দিত, তাদের হাত থেকেই টাকা নিতে হতো। তখনও আমাদের সবার বেতনের টাকা মারা হতো।

‘এগুলো নিয়ে বলাবলি হওয়ার কারণে সরকার বলছে, আমাদের নামে অ্যাকাউন্ট খুলে যেন টাকা দেয়া হয়। তাই বছর দু-এক হলো আমাদের অ্যাকাউন্ট হয়েছে। কিন্তু সে অ্যাকাউন্টে যে বেতন ঢোকে, তার সব টাকা আমাদের কপালে জোটে না। হাতে হাতেই বেতন দেয় ঠিকাদার, তাও অর্ধেক।’

আরেকজন ভুক্তভোগী বলেন, ‘লাইনম্যানের এই চাকরিতে ঢুকতে ৫০ হাজার নেয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। সবার কাছ থেকে নেয় কি না জানি না। আমি যাদের চিনি, সবার কাছ থেকেই ৫০ হাজার নিছে। তারপরও আমাদের ঠকায়।’

বিদ্যুৎযোদ্ধাদের বেতনের অর্ধেক টাকা কাদের পকেটে?


কীভাবে ঠকাচ্ছে- জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যে ঠিকাদার আমাদের চাকরি দিছে, তারা ব্লাংক চেকে আমাদের সই নিয়ে নেয়। একেকবার তিনটা করে চেকে সই নেয়। ওই তিনটা শেষ হওয়ার আগেই আরও তিনটায় সই নেয়। এই দেখেন, চেকের ছবি তুলে আনতে বলছিলেন, আনছি। ওরা আমাদের কারেন্টের মতো করে রক্ত চুষে খায়। আমরা কেউ কিছু কইতে পারি না চাকরি হারানোর ভয়ে।’

ভুক্তভোগী এসব লাইনম্যান বলছেন, চুক্তির যে বেতন তার অর্ধেক টাকা কেন দেয়া হয়- সে অভিযোগ করলে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বলে, ‘এটাই সিস্টেম। চাকরি করলে করো, না হলে যাও।’ আর ডিপিডিসির স্যারদের বললে, তারা কোনো সাড়া দেন না।

সহকর্মীদের কথায় সাহস পেয়ে নিউজবাংলার কাছে মুখ খোলেন ডিপিডিসির আরও একজন লাইনম্যান। বলেন, ‘আমরা ডিপিডিসির কর্মী। কিন্তু আমাদের চাকরের সমান দামও নেই। আমাদের রক্ত পানি করা বেতন মেরে খায় ওরা। পিলারে পিলারে জীবন হাতে নিয়ে কাজ করি। তারপরও যদি আমাদের বেতনের টাকা মেরে খায়, তাহলে কেমন লাগে বলেন? ৪ তারিখের মধ্যে সেলারির এসএমএস আসে। কিন্তু ঠিকাদার হাতে টাকা দেয় ১০ তারিখের পর, তাও অর্ধেক।’

বিদ্যুৎযোদ্ধাদের বেতনের অর্ধেক টাকা কাদের পকেটে?


বিষয়টি নিয়ে নিউজবাংলার সঙ্গে কথা হয়েছে আরও একজন লাইনম্যানের। আক্ষেপ করে তিনি বলেন, ‘এমনতিই আমাদের মতো লাইনম্যানদের বেতন কম। তারপর টাকা মেরে খায়। এ জন্য অনেকে খারাপ কাজ করে ফেলে।’

উদাহরণ হিসেবে তিনি বলেন, ‘সম্প্রতি কয়েকজন লাইনম্যানের চাকরি গেছে। বলা হচ্ছে, তারা কেব্‌ল চুরি করেছে, তাই চাকরি গেছে।’

এ সময় তিনি তীব্র ক্ষোভের সঙ্গে বলেন, ‘বেতনের টাকা মেরে খেলে চুরি করবে না তো কী করবে? সংসার চালাবে কীভাবে? নিজে চলবে কীভাবে।’

লাইনম্যানদের পরিচয়পত্র ও ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ঘেঁটে দেখা যায়, জেডএফ এন্টারপ্রাইজ নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নিয়োগ দিয়েছে তাদের।

লাইনম্যানদের অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার মোকলেসুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আপনি যেসব বিষয়ে বলছেন, এগুলো সত্য না।’

তাহলে সত্য কী- জানতে চাইলে তিনি আর কথা বলতে চাননি।

এ ব্যাপারে ডিপিডিসি অফিসে কথা হয় সেখানকার চিফ কো-অর্ডিনেশন অফিসার জুলফিকার আলীর সঙ্গে। নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘এগুলো হয়ে থাকতে পারে। অভিযোগের তথ্য-প্রামণ থাকলে অসৎ লোকদের বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া দরকার। এর সঙ্গে যদি ডিপিডিসির লোকও জড়িত থাকে, ছাড় দেয়া হবে না।’

ডিপিডিসির ঠিকাদার নিয়োগ শাখার তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী (কন্ট্রাক্ট অ্যান্ড প্রকিউরমেন্ট) সালেক মাহমুদের কাছে অভিযোগের ব্যাপারে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, ‘আমাদের কাছে এ ব্যাপারে কেউ অভিযোগ করেনি। এমন কোনো প্রমাণ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

ডিপিডিসির উপমহাব্যবস্থাপক (ডিজিএম) নিহার রঞ্জন সরকার বলেন, ‘মানুষ নিয়ে যারা ব্যবসা করে, তারা তো ব্লাড সাকার। ওরা তো মানুষের রক্তই চুষবে।’

আক্ষেপ করে তিনি বলেন, ‘কী আর বলব। বিষয়টি খতিয়ে দেখা উচিত।’

ডিপিডিসির ডিজিএম নিহার রঞ্জন সরকারের পর নিউজবাংলা কথা বলে প্রতিষ্ঠানটির আরেক কর্মকর্তার সঙ্গে, যিনি তার পরিচয় প্রকাশ করতে রাজি হননি।

এই লুটপাটে ডিপিডিসির লোকজনও জড়িত ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, ‘ঠিকাদারদের বাপের ক্ষমতা আছে টাকা একা খাওয়ার? কারও ভাগ কেউ ছাড়ে না। এবার বুঝে নেন। দেখেন না, সবাই চুপ। এতই যদি ব্যবস্থা নেয়, শ্রমিকরা যখন অভিযোগ করে তখন তারা কই যায়?’

শেয়ার করুন

মন্তব্য