× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
Imrans PTI supported independents what is the alternative?
google_news print-icon

ইমরানের পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্রদের সামনে বিকল্প কী?

ইমরানের-পিটিআই-সমর্থিত-স্বতন্ত্রদের-সামনে-বিকল্প-কী?
পিপিপি নেতা বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি, পিটিআই নেতা ইমরান খান ও পিএমএল-এন নেতা নওয়াজ শরিফ। ছবি: সংগৃহীত
পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্ররা সরকার গঠন করতে চাইলে আইনি বাধা নেই। তবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে তাদেরকে অন্যান্য দলের সহায়তা নিতে হবে। সেক্ষেত্রে তারা ছোট কোনো দলে যোগ দিতে পারেন। আবার সেনাবাহিনীর পছন্দের প্রার্থী নওয়াজ শরিফ জোট করে পুনরায় প্রধানমন্ত্রী হতে পারেন- এমন গুঞ্জনও রয়েছে। শেষ পর্যন্ত পিএমএল-এন এবং পিপিপি একসঙ্গে সরকার গঠন করতে পারে।

পাকিস্তানে নির্বাচন তো হলো। এবার সরকার গঠন করবে কারা, কোন পথে? ইমরান খানের নেতৃত্বের পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ বা পিটিআই সমর্থিত প্রার্থীদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা এই প্রশ্নকে বড় করে তুলেছে। কারাবন্দি ইমরান খানের দল এখন কোন পথে এগোবে? তাদের সামনে বিকল্প কী?

ইমরান খানের দলটি নিজেদের জনপ্রিয়তা প্রমাণ করতে পারলেও সরকার গঠনের ক্ষেত্রে বড় বাধার মুখে পড়েছে। কারণ দেশটির নির্বাচন কমিশন নির্বাচনি আইন লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে দলটিকে বাতিল ঘোষণা করেছে। পিটিআই নির্বাচনে অংশ নেয়ার সুযোগ না পাওয়ায় দলটির নেতারা স্বতন্ত্র হিসেবে ভোটের মাঠে লড়েছেন।

‘সেনাবাহিনীর সঙ্গে বিবাদ ভুলতে চান ইমরান’

অতীতের তিক্ততা অতীতেই রাখতে চান পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ দলের প্রতিষ্ঠাতা ইমরান খান। শনিবার ইমরানের বরাত দিয়ে এমনটা জানান তার আইনজীবী উমাইর খান নিয়াজি।

আদিয়ালা কারাগারের বাইরে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ইমরান খান কেন্দ্রে ফেডারেল সরকার এবং পাঞ্জাব ও খাইবার-পাখতুনখোয়ায় প্রাদেশিক সরকার গঠন করতে চান।

পেশায় আইনজীবী নিয়াজি ইমরানের খুবই ঘনিষ্ঠ একজন নেতা। নির্বাচনে তিনি ইমরান খানের আদিনিবাস মিয়ানওয়ালি থেকে জাতীয় পরিষদের সাংসদ নির্বাচিত হয়েছেন।

নিয়াজি জানান, বিশেষ শক্তিগুলোর প্রতি (সেনাবাহিনী, বিচারবিভাগ) নওয়াজ শরিফকে জোট সরকার গঠন না করতে দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ইমরান। কারণ, অতীতে (নওয়াজকে নিয়ে) এ ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা কখনই কার্যকরী হয়নি।

ইমরানের পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্রদের সামনে বিকল্প কী?
পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ দলের প্রতিষ্ঠাতা ইমরান খান। ছবি: সংগৃহীত

নিয়াজি জানান, দেশের রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা ও ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে অতীতের তিক্ততা, বিরোধের কথা ভুলতে রাজি আছেন পিটিআই প্রতিষ্ঠাতা।

একইসঙ্গে, ভোটের ফলাফলে পিটিআইয়ের সদস্য যেসব স্বতন্ত্র প্রার্থীকে কারচুপির মাধ্যমে পরাজিত ঘোষণা করা হয়েছে, রোববার তাদেরকে নিজ নিজ নির্বাচনি এলাকায় বিক্ষোভ করার নির্দেশনা দিয়েছেন তিনি।

ইমরানের এই সবুজ সংকেতের পর সরকার গঠনের প্রস্তুতি নিচ্ছে পিটিআই। সরকার গঠনে নিজস্ব পরিকল্পনা বাস্তবায়নে দলের কোর কমিটি এক সভা করেছে। কেন্দ্রীয় সরকার গঠনের লক্ষ্যে, পিটিআইয়ের স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচিত প্রার্থীদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে উমাইর নিয়াজিকে নির্দেশ দিয়েছে কমিটি।

আলী আমিন গান্দাপুর এবং মিয়াঁ আসলাম ইকবাল নামের আরও দুই সিনিয়র নেতাকে খাইবার পাখতুনখোয়া ও পাঞ্জাবে প্রাদেশিক সরকার গঠনের জন্য নির্বাচিত আইনপ্রণেতাদের সঙ্গে যোগাযোগের নির্দেশ দেয়া হয়।

পাকিস্তানের রাজধানী ইসলামাবাদে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে পিটিআই এর ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান গওহর আলী খানসহ অন্যান্য শীর্ষ নেতারা আশাপ্রকাশ করেন যে, নির্বাচনে সবচেয়ে বেশি আসনে পিটিআই সমর্থিত প্রার্থীরা জেতায় প্রেসিডেন্ট আরিফ আলভি পিটিআইকে সরকার গঠনের আহ্বান জানাবেন।

পার্লামেন্টে ২৬৬টি আসনের মধ্যে এবারের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়েছে ২৬৪টি আসনে। বাকি দুটি আসনের একটিতে প্রার্থী গুলিতে নিহত হওয়ায় নির্বাচন স্থগিত হয়েছে। অপর আসনটির ভোটগ্রহণ শেষ হবে চলতি ফেব্রুয়ারি মাসের শেষের দিকে।

নির্বাচনে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনে ন্যূনতম প্রয়োজন ১৩৪টি আসন। সব আসনের ফল ঘোষণার পর দেখা গেছে, সবচেয়ে বেশি ১০১টি আসনে জয় পেয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। এর মধ্যে ৯৩ জনই ইমরান খান ও তার দল পিটিআই সমর্থিত প্রার্থী।

নওয়াজ শরিফের পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) পেয়েছে ৭৫টি আসন। সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টো এবং সাবেক প্রেসিডেন্ট আসিফ আলী জারদারির ছেলে বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারির পাকিস্তান পিপলস পার্টি-পিপিপি পেয়েছে ৫৪টি আসন।

এছাড়া মুত্তাহিদা কওমি মুভমেন্ট-এমকিউএম ১৭টি, জমিয়তে উলামা-ই-ইসলাম (জেইউআই-এফ) তিনটি আসনে জয় পেয়েছে।এবং বাকি আসনগুলোতে বিভিন্ন ছোট দল জিতেছে।

পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা সবচেয়ে বেশি আসন পেলেও সেটা এককভাবে সরকার গঠনের জন্য যথেষ্ট নয়।

কোনো দলই এককভাবে সরকার গঠন করার মতো সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি। এক্ষেত্রে সরকার গঠনে দলগুলোর জোট গঠনের বিকল্প নেই।

সরকার গঠন নিয়ে ইতোমধ্যে জোর তৎপরতা শুরু হয়ে গেছে। আর এক্ষেত্রে বেশি তৎপর পিএমএল-এন দলের।

ইমরানের পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্রদের সামনে বিকল্প কী?

নির্বাচনের ফল প্রকাশের মধ্যেই লাহোরে দলের প্রধান কার্যালয়ে সমর্থকদের উদ্দেশে নওয়াজ শরিফ জোট গঠনের ইঙ্গিত দিয়েছেন। এজন্য তারা অন্যান্য দলের সঙ্গে কথা বলছেন।

পিএমএল-এন এর আগে পিপিপির সঙ্গে জোট গড়েছিল। সে সুবাদে ক্ষমতায় বসেছিল তাদের জোট পাকিস্তান ডেমোক্রেটিক মুভমেন্ট (পিডিএম)।

কিন্তু এবারের প্রেক্ষাপট আপাতত ভিন্ন মনে হচ্ছে। জোট সরকার গঠনের ব্যাপারে পিপিপি সতর্ক। দলটির নেতা বিলাওয়াল ভুট্টো বহুবার বলেছেন যে তার দল নওয়াজ শরীফের দলে (পিএমএল-এন) যোগ দেবে না।

তবে বিশ্লেষকরা বলছেন, পরিস্থিতি পাল্টাতে পারে। আলোচনা চলছে। শেষ পর্যন্ত পিএমএল-এন এবং পিপিপি একসঙ্গে সরকার গঠন করতে পারে। এমনকি অন্যান্য দলকেও জোটে ভেড়াতে পারে।

পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীদের জন্য বিকল্প কী?

পাকিস্তানের নির্বাচনি আইন অনুযায়ী, স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ইচ্ছা করলে স্বতন্ত্র হিসেবে জাতীয় বা প্রাদেশিক পরিষদে থাকতে পারেন। কেননা তাদেরকে কোনো রাজনৈতিক দলে যোগদান করতেই হবে এমন কোনো আইনি বাধ্যবাধকতা নেই।

তবে বিজয়ী হওয়ার পর এই স্বতন্ত্র প্রার্থীদের হাতে তিন দিন বা ৭২ ঘণ্টা সময় থাকে। কোনো দলে ভেড়ার ইচ্ছা থাকলে তা এই সময়ের মধ্যেই করতে হবে।

আবার নির্বাচন কমিশনের নিয়ম অনুযায়ী স্বতন্ত্র প্রার্থীরা কেবল সেই দলে যোগ দিতে পারবেন যাদের নির্বাচনি প্রতীক ব্যালটে দেয়া হয়েছে।

পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফকে অযোগ্য ঘোষণা করায় কোনো স্বতন্ত্র প্রার্থী এই দলে যোগ দিতে পারবেন না। তাই পিটিআইকে সমর্থন দেয়া স্বতন্ত্র প্রার্থীরা কোন দলে যোগদান করবেন তা বড় প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে।

‌স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিতরা ইতোমধ্যে নওয়াজের পিএমএল-এন এবং বিলাওয়াল ভুট্টোর পিপিপি থেকে যোগদানের প্রস্তাব পাচ্ছেন।

ইমরানের পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্রদের সামনে বিকল্প কী?
জোট সরকার গঠন নিয়ে আলোচনায় পিপিপি ও পিএমএল-এন নেতারা। ছবি: সংগৃহীত

এখন দেখার বিষয় পিটিআই-এর নাম ও সমর্থন নিয়ে জয়ী হওয়া স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ইমরান খানের প্রতি অনুগত থাকেন কিনা। কারণ আইন অনুযায়ী কোনো স্বতন্ত্র প্রার্থী পার্লামেন্টে আসন পেলে দলের নিয়ম মানতে তারা বাধ্য নন।

কোনো দলে যোগ না দিলে তারা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবেই পার্লামেন্টে থাকবেন। এক্ষেত্রে তারা জাতীয় পরিষদে বিরোধী দলীয় নেতার পদ পেতে পারেন।

এ প্রসঙ্গে রাজনৈতিক বিশ্লেষক অধ্যাপক ফারুক হাসনাত বলছেন, ‘পিটিআই-এর স্বতন্ত্র সদস্যদের অন্য দলে যাওয়ার প্রশ্নই আসে না। কারণ এই প্রার্থীরা জানেন যে দলের প্রতি আনুগত্য পরিবর্তন করলে এর পরিণতি তাদের পূর্বসূরিদের মতোই হবে।’

তবে ভিন্ন কথা বলছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষক রসুল বখশ রইস। তার মতে, পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীদের অনেকে বিক্রি হয়ে যেতে পারেন। কেউ কেউ তাদের আনুগত্য পরিবর্তন করতে পারেন।

সরকার গঠনে এগিয়ে কারা

নির্বাচনের মাঠে পিটিআই এগিয়ে থাকলেও সরকার গঠনে তৎপরতা বেশি নওয়াজ শরীফের পিএমএল-এন দলের।

পাকিস্তানের রাজনীতিতে সেনাবাহিনীর বড় প্রভাব রয়েছে। সে হিসেবে এবারের নির্বাচনে সেনাবাহিনীর পছন্দের প্রার্থী নওয়াজ শরিফ পুনরায় প্রধানমন্ত্রী হতে পারেন বলে গুঞ্জন রয়েছে।

তবে পিটিআই-সমর্থিত প্রার্থীরা এমন এক অবস্থায় আছেন যেখানে একটি সরকার গঠন করা বেশ কঠিন।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, এক্ষেত্রে পিটিআইয়ের সামনে দুটি পথ রয়েছে। এক, পিটিআইপন্থী প্রার্থীরা একটি স্বতন্ত্র গোষ্ঠীর আকারে থাকতে পারেন। দুই, তারা চাইলে বিলাওয়াল ভুট্টোর দল বা অন্যান্য ছোট দলের সঙ্গে জোট গঠন করতে পারেন।

তবে জিও নিউজকে দেয়া সাক্ষাৎকারে পিটিআই চেয়ারম্যান গহর আলী খান জানিয়েছেন, তারা পিএমএল-এন বা পিপিপির সঙ্গে জোট করবেন না।

আবার স্বতন্ত্র প্রার্থীরা চাইলে নিজেরাই প্রধানমন্ত্রী নির্বাচন করতে পারবেন। তবে এজন্য তাদের ১৩৪টি আসন থাকতে হবে।

রফিউল্লাহ কাকার বলছেন, এ নিয়ে আইনে কোনো বাধা নেই। তবে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের নিজেদের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচন করাকে বাস্তবসম্মত মনে করা যায় না।

ইমরানের পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্রদের সামনে বিকল্প কী?

সংরক্ষিত আসন পেতে অযোগ্য পিটিআই

পাকিস্তানের পার্লামেন্টে ৭০টি সংরক্ষিত আসন রয়েছে। যে দল যতো বেশি আসনে জয় পাবে তার দল ততো বেশি সংরক্ষিত আসন পাবে।

সে হিসাবে নওয়াজ শরিফের দল ২০টির বেশি আসন পেতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

তবে পাকিস্তানের নির্বাচনি আইনের অধীনে, স্বতন্ত্র প্রার্থীরা পার্লামেন্টের ওই ৭০টি সংরক্ষিত আসন বরাদ্দ পাওয়ার যোগ্য নন।

স্বতন্ত্র প্রার্থীদের সরকার গঠনের ক্ষেত্রে এটাই সবচেয়ে বড় অসুবিধা। এক্ষেত্রে পিটিআইয়ের সামনে একটি পথ হল নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী কোনো দলে যোগ দেয়া।

আরও পড়ুন:
ইমরানের স্বতন্ত্ররা ৯৭ আসনে জয়ী, পিএমএল-এন ৭৬
ব্যাট ছাড়াই সেঞ্চুরি ইমরান-সমর্থিতদের
ফল চ্যালেঞ্জ করে আদালতে ডজনের বেশি আবেদন ইমরানপন্থিদের

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Response to attack not now Iranian official

হামলার জবাব এখনই নয়: ইরানের কর্মকর্তা

হামলার জবাব এখনই নয়: ইরানের কর্মকর্তা ইরানের রাজধানী তেহরানের উত্তরাঞ্চলে ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়ার ছবি সংবলিত ব্যানারের পাশ দিয়ে শুক্রবার হেঁটে যান এক নারী। ছবি: এপি
নাম প্রকাশ না করার শর্তে ইরানের ওই কর্মকর্তা বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, ‘ঘটনার বিদেশি উৎসের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়নি। আমরা বাইরের কোনো হামলার শিকার হইনি এবং আলোচনা হামলার চেয়ে বেশি হচ্ছে অনুপ্রবেশ নিয়ে।’

ইরানের ইস্পাহানে শুক্রবার ‘ইসরায়েলের’ হামলার তাৎক্ষণিক জবাব দেয়ার কোনো পরিকল্পনা নেই বলে জানিয়েছেন ইসলামি প্রজাতন্ত্রটির জ্যেষ্ঠ এক কর্মকর্তা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই কর্মকর্তা বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, ‘ঘটনার বিদেশি উৎসের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়নি। আমরা বাইরের কোনো হামলার শিকার হইনি এবং আলোচনা হামলার চেয়ে বেশি হচ্ছে অনুপ্রবেশ নিয়ে।’

সিরিয়ার দামেস্কে গত ১ এপ্রিল ইরানি কনস্যুলেটে ইসরায়েলি হামলার জবাবে গত শনিবার রাতে ইসরায়েলে ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইরান। এর এক সপ্তাহের মধ্যেই বৃহস্পতিবার রাতে ইরানের মধ্যাঞ্চলীয় নগর ইস্পাহানে ইসরায়েলি হামলার খবর পাওয়া গেছে।

ইরানের বার্তা সংস্থা ফার্স নিউজ জানায়, ইস্পাহানের একটি বিমানবন্দরে বিস্ফোরণের শব্দ শোনা গেছে, তবে কী কারণে এ বিস্ফোরণ হয়েছে তা জানা যায়নি।

‘নির্ভরযোগ্য সূত্রের’ বরাত দিয়ে ইরানের বার্তা সংস্থা তাসনিমের খবরে বলা হয়, ‘ইস্পাহান প্রদেশের পরমাণু ক্ষেত্রগুলো সম্পূর্ণ নিরাপদ।’

দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন জানায়, ইস্পাহানের কাছে বিস্ফোরণের পর কয়েকটি ড্রোন ভূপাতিত করা হয়। সেখানে কোনো ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানো হয়নি।

ইস্পাহান শহরের কাছে ইরানের কয়েকটি পারমাণবিক ক্ষেত্র রয়েছে, যেগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি বলে দাবি করেছে রাষ্ট্রীয় সম্প্রচারমাধ্যম।

আরও পড়ুন:
ইরানে হামলার খবরে পুঁজিবাজারে ধস, তেলের দামে উল্লম্ফন
ইসরায়েলের তিন ড্রোন ভূপাতিত: ইরান
ইরানের পরমাণু ক্ষেত্রগুলো সম্পূর্ণ নিরাপদ: প্রতিবেদন
ইরানে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা ইসরায়েলের
ইরানের ওপর পশ্চিমাদের নতুন নিষেধাজ্ঞা

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Oil prices jump on news of attack on Iran

ইরানে হামলার খবরে পুঁজিবাজারে ধস, তেলের দামে উল্লম্ফন

ইরানে হামলার খবরে পুঁজিবাজারে ধস, তেলের দামে উল্লম্ফন যুক্তরাষ্ট্রের একটি পুঁজিবাজারে হতাশ বিনিয়োগকারী ও একটি তেলক্ষেত্র। ছবি: পিবিএস ও সিজিটিএন
রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, ইসরায়েলি হামলার বিষয়টি জানার পর পুঁজিবাজার ও তেলের বাজারে শুরুতে যে প্রভাব পড়ে, সেটি কমে এসেছে। হামলার পরিসর ছোট এবং কোনো ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়নি বলে ইরানের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে এমন বাস্তবতা সৃষ্টি হয়।

ইরানের ইস্পাহানে বৃহস্পতিবার রাতে ইসরায়েলের হামলার খবরে শুক্রবার পুঁজিবাজারে দরপতন হয়েছে উল্লেখ করে রয়টার্স জানিয়েছে, এশিয়ার শেয়ার ও বন্ডে ধস নামে, যেখানে উল্লম্ফন দেখা যায় স্বর্ণ ও অশোধিত জ্বালানি তেলের দামে।

বার্তা সংস্থাটির প্রতিবেদনে বলা হয়, ইসরায়েলি হামলার বিষয়টি জানার পর পুঁজিবাজার ও তেলের বাজারে শুরুতে যে প্রভাব পড়ে, সেটি কমে এসেছে। হামলার পরিসর ছোট এবং কোনো ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়নি বলে ইরানের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে এমন বাস্তবতা সৃষ্টি হয়।

শুরুতে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ক সিটিভিত্তিক এমএসসিআইয়ের এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় সূচকের পতন হয় দুই দশমিক ছয় শতাংশ, যেটি পরবর্তী সময়ে কমে দাঁড়ায় দুই শতাংশে।

অন্যদিকে মধ্যপ্রাচ্য থেকে সরবরাহে বিঘ্ন ঘটার শঙ্কায় ব্রেন্টের অশোধিত জ্বালানি তেলের দাম শুরুতে চার দশমিক দুই শতাংশ বাড়লেও পরবর্তী সময়ে তা কমে বৃদ্ধির পরিমাণ দাঁড়ায় দুই দশমিক চার শতাংশ। মূল্যবৃদ্ধি কমার পর ব্যারেলপ্রতি ব্রেন্টের অশোধিত তেলের দাম দাঁড়ায় ৮৯ দশমিক ২২ ডলারে।

সিরিয়ার দামেস্কে গত ১ এপ্রিল ইরানি কনস্যুলেটে ইসরায়েলি হামলার জবাবে গত শনিবার রাতে ইসরায়েলে ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইরান। এর এক সপ্তাহের মধ্যেই বৃহস্পতিবার রাতে ইরানের মধ্যাঞ্চলীয় নগর ইস্পাহানে ইসরায়েলি হামলার খবর পাওয়া গেছে।

ইরানের বার্তা সংস্থা ফার্স নিউজ জানায়, ইস্পাহানের একটি বিমানবন্দরে বিস্ফোরণের শব্দ শোনা গেছে, তবে কী কারণে এ বিস্ফোরণ হয়েছে তা জানা যায়নি।

‘নির্ভরযোগ্য সূত্রের’ বরাত দিয়ে ইরানের বার্তা সংস্থা তাসনিমের খবরে বলা হয়, ‘ইস্পাহান প্রদেশের পরমাণু ক্ষেত্রগুলো সম্পূর্ণ নিরাপদ।’

দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন জানায়, ইস্পাহানের কাছে বিস্ফোরণের পর কয়েকটি ড্রোন ভূপাতিত করা হয়। সেখানে কোনো ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানো হয়নি।

ইস্পাহান শহরের কাছে ইরানের কয়েকটি পারমাণবিক ক্ষেত্র রয়েছে, যেগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি বলে দাবি করেছে রাষ্ট্রীয় সম্প্রচারমাধ্যম।

আরও পড়ুন:
২৫ হাজার টন বিস্ফোরক ছোড়া হয়েছে গাজায়: জাতিসংঘের দূত
বড় হামলা করলে ইসরাইলের কিছুই অবশিষ্ট থাকত না
ইরানের তেল বাণিজ্যে লাগাম টানতে পারে যুক্তরাষ্ট্র
ইসরায়েল হামলা করলে কয়েক সেকেন্ডেই জবাব: ইরান
ইরানকে কঠোর জবাব দেবে ইসরায়েল, মন্ত্রিসভায় সিদ্ধান্ত

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Three Israeli drones shot down Iran

ইসরায়েলের তিন ড্রোন ভূপাতিত: ইরান

ইসরায়েলের তিন ড্রোন ভূপাতিত: ইরান ইসরায়েল কোয়াডকপ্টার দিয়ে হামলা চালিয়েছে বলে দাবি করেছে ইরান। ছবি: এক্স
সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এক্সে শুক্রবার দেয়া পোস্টে ইরানের মহাকাশ সংস্থার মুখপাত্র হোসেইন দালিরিয়ান লিখেন, ‘তারা (ইসরায়েল) বলেছে যে, আমরা ৫০০ সুইসাইড ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়েছি...এখন তারা জবাব দিয়েছে এই তিন কোয়াডকপ্টার (ড্রোনসদৃশ আকাশযান) দিয়ে, যার সবগুলোকে ভূপাতিত করা হয়েছে।’

ইসরায়েলের তিনটি ড্রোন ইরান ভূপাতিত করেছে বলে দাবি করেছে দেশটির মহাকাশ সংস্থা।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এক্সে শুক্রবার কোয়াডকপ্টারের ছবি সংযুক্ত করে দেয়া পোস্টে ইরানের মহাকাশ সংস্থার মুখপাত্র হোসেইন দালিরিয়ান লিখেন, ‘তারা (ইসরায়েল) বলেছে যে, আমরা ৫০০ সুইসাইড ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়েছি...এখন তারা জবাব দিয়েছে এই তিন কোয়াডকপ্টার (ড্রোনসদৃশ আকাশযান) দিয়ে, যার সবগুলোকে ভূপাতিত করা হয়েছে।’

হাসির ইমোজি দিয়ে ওই পোস্টে দালিরিয়ান আরও লিখেন, ‘তারা শুধু বলেছে যে, তারা (হামলার) আগে আমেরিকাকে জানায়নি।’

সিরিয়ার দামেস্কে গত ১ এপ্রিল ইরানি কনস্যুলেটে ইসরায়েলি হামলার জবাবে গত শনিবার রাতে ইসরায়েলে ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইরান। এর এক সপ্তাহের মধ্যেই বৃহস্পতিবার রাতে ইরানের মধ্যাঞ্চলীয় নগর ইস্পাহানে ইসরায়েলি হামলার খবর পাওয়া গেছে।

ইরানের বার্তা সংস্থা ফার্স নিউজ জানায়, ইস্পাহানের একটি বিমানবন্দরে বিস্ফোরণের শব্দ শোনা গেছে, তবে কী কারণে এ বিস্ফোরণ হয়েছে তা জানা যায়নি।

‘নির্ভরযোগ্য সূত্রের’ বরাত দিয়ে ইরানের বার্তা সংস্থা তাসনিমের খবরে বলা হয়, ‘ইস্পাহান প্রদেশের পরমাণু ক্ষেত্রগুলো সম্পূর্ণ নিরাপদ।’

আরও পড়ুন:
বড় হামলা করলে ইসরাইলের কিছুই অবশিষ্ট থাকত না
ইরানের তেল বাণিজ্যে লাগাম টানতে পারে যুক্তরাষ্ট্র
ইসরায়েল হামলা করলে কয়েক সেকেন্ডেই জবাব: ইরান
ইরানকে কঠোর জবাব দেবে ইসরায়েল, মন্ত্রিসভায় সিদ্ধান্ত
ইরানের ওপর প্রতিশোধমূলক হামলায় অংশ নেবে না যুক্তরাষ্ট্র: হোয়াইট হাউস

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Irans nuclear sites completely safe report

ইরানের পরমাণু ক্ষেত্রগুলো সম্পূর্ণ নিরাপদ: প্রতিবেদন

ইরানের পরমাণু ক্ষেত্রগুলো সম্পূর্ণ নিরাপদ: প্রতিবেদন ইস্পাহানের কাছে শেকারি সেনা বিমানঘাঁটিতে তিনটি বিস্ফোরণের আওয়াজ পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা ফার্স নিউজ। ছবি: এএফপি
‘নির্ভরযোগ্য সূত্রের’ বরাত দিয়ে ইরানের বার্তা সংস্থা তাসনিমের খবরে বলা হয়, ‘ইস্পাহান প্রদেশের পরমাণু ক্ষেত্রগুলো সম্পূর্ণ নিরাপদ।’

ইসরায়েলের হামলার খবরের মধ্যে ইরানের স্থানীয় একটি সংবাদমাধ্যম শুক্রবার বলেছে, দেশটির পরমাণু ক্ষেত্রগুলো সম্পূর্ণ নিরাপদে আছে।

সিরিয়ার দামেস্কে গত ১ এপ্রিল ইরানি কনস্যুলেটে ইসরায়েলি হামলার জবাবে গত শনিবার রাতে ইসরায়েলে ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইরান। এর এক সপ্তাহের মধ্যেই বৃহস্পতিবার রাতে ইরানের মধ্যাঞ্চলীয় নগর ইস্পাহানে ইসরায়েলি হামলার খবর পাওয়া গেছে।

ইরানের বার্তা সংস্থা ফার্স নিউজ জানায়, ইস্পাহানের একটি বিমানবন্দরে বিস্ফোরণের শব্দ শোনা গেছে, তবে কী কারণে এ বিস্ফোরণ হয়েছে তা জানা যায়নি।

‘নির্ভরযোগ্য সূত্রের’ বরাত দিয়ে ইরানের বার্তা সংস্থা তাসনিমের খবরে বলা হয়, ‘ইস্পাহান প্রদেশের পরমাণু ক্ষেত্রগুলো সম্পূর্ণ নিরাপদ।’

এদিকে ইরানের মহাকাশ সংস্থার মুখপাত্র হোসেইন দালিরিয়ান সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এক্সে দেয়া পোস্টে লিখেন, দেশটির আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার মাধ্যমে সফলভাবে কিছু ড্রোন ভূপাতিত করা হয়েছে। এ মুহূর্তে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার কোনো খবর নেই।

ইস্পাহানের কাছে শেকারি সেনা বিমানঘাঁটিতে তিনটি বিস্ফোরণের আওয়াজ পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা ফার্স নিউজ।

আরও পড়ুন:
ইরানে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা ইসরায়েলের
ইরানের ওপর পশ্চিমাদের নতুন নিষেধাজ্ঞা
হিজবুল্লাহর ক্ষেপণাস্ত্র ড্রোন হামলায় ১৪ ইসরায়েলি সেনা আহত
২৫ হাজার টন বিস্ফোরক ছোড়া হয়েছে গাজায়: জাতিসংঘের দূত
বড় হামলা করলে ইসরাইলের কিছুই অবশিষ্ট থাকত না

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Israels missile attack on Iran
এবিসির প্রতিবেদন

ইরানে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা ইসরায়েলের

ইরানে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা ইসরায়েলের ইসরায়েলের একটি ক্ষেপণাস্ত্র। ছবি: ডিফেন্স এক্সপ্রেস
এবিসির বরাতে বার্তা সংস্থা রয়টার্স শুক্রবার জানায়, ইরানের কেন্দ্রস্থলে বিস্ফোরণ হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম।

ইরানের একটি স্থানে ইসরায়েল ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে বলে বৃহস্পতিবার রাতে জানিয়েছে এবিসি নিউজ।

যুক্তরাষ্ট্রের এক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যমটি এ খবর জানায়।

এবিসির বরাতে বার্তা সংস্থা রয়টার্স শুক্রবার জানায়, ইরানের কেন্দ্রস্থলে বিস্ফোরণ হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম।

সিরিয়ার দামেস্কে গত ১ এপ্রিল ইরানি কনস্যুলেটে ইসরায়েলি হামলার জবাবে গত শনিবার রাতে ইসরায়েলে ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইরান। এর এক সপ্তাহের মধ্যেই ইরানে ইসরায়েলি হামলার খবর পাওয়া গেল।

এবিসির প্রতিবেদনের সত্যতা তাৎক্ষণিকভাবে যাচাই করতে পারেনি রয়টার্স।

ইরানের বার্তা সংস্থা ফার্স নিউজ জানায়, দেশটির মধ্যাঞ্চলীয় শহর ইস্পাহানের একটি বিমানবন্দরে বিস্ফোরণের শব্দ শোনা গেছে, তবে কী কারণে এ বিস্ফোরণ হয়েছে তা জানা যায়নি।

ইসলামি প্রজাতন্ত্রটির রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম জানায়, ইস্পাহান, সিরাজ ও তেহরানে বিমান চলাচল স্থগিত রাখা হয়েছে।

ইরানের বেশ কয়েকটি পারমাণবিক ক্ষেত্র রয়েছে ইস্পাহান প্রদেশে। অঞ্চলটিতে ইরানের ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণের কেন্দ্রে থাকা নাতাঞ্জ পারমাণবিক কেন্দ্রও রয়েছে।

গত শনিবারের হামলার জবাব দেয়ার কথা জানিয়েছিল ইসরায়েল। দেশটি বড় পরিসরে কোনো হামলা চালালে এবং এর জবাবে ইরানও পাল্টা হামলা করলে গাজা যুদ্ধ পুরো অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়ার শঙ্কা রয়েছে।

আরও পড়ুন:
ইসরায়েল হামলা করলে কয়েক সেকেন্ডেই জবাব: ইরান
ইরানকে কঠোর জবাব দেবে ইসরায়েল, মন্ত্রিসভায় সিদ্ধান্ত
ইরানের ওপর প্রতিশোধমূলক হামলায় অংশ নেবে না যুক্তরাষ্ট্র: হোয়াইট হাউস
ইসরায়েলে হামলার আগে সতর্ক করা হয়েছিল: ইরান
ইসরায়েল-ইরান যুদ্ধ চায় না বাংলাদেশ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
New Western sanctions on Iran

ইরানের ওপর পশ্চিমাদের নতুন নিষেধাজ্ঞা

ইরানের ওপর পশ্চিমাদের নতুন নিষেধাজ্ঞা ইসরায়েলে হামলার পর ১৪ এপ্রিল ইরানের সরকার-দলীয় সমর্থকরা তেহরানের প্যালেস্টাইন স্কোয়ারে একটি বিশাল ফিলিস্তিনি পতাকা নিয়ে উল্লাস করে। ছবি: এএফপি
যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, ‘যারা ইরানকে হামলায় ইন্ধন দেয় ও তা সমর্থন করে, তাদের সবাইকে এটি স্পষ্ট করতে চাই যে, সবাইকে জবাবদিহিতার আওতায় আনতে যুক্তরাষ্ট্র প্রয়োজনীয় সমস্ত পদক্ষেপ নেবে।’

ইসরায়েলে রকেট ও ড্রোন হামলার পর ইরানের ওপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ইসরায়েলের ঘনিষ্ট দুই মিত্র হিসেবে পরিচিত যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাষ্ট্র। কারণ হিসেবে ইসরায়েলের ওপর তেহরানের ওই আক্রমণ মধ্যপ্রাচ্যে ব্যাপক যুদ্ধের ইন্ধন যোগাতে পারে বলে জানানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার অ্যাসোসিয়েট প্রেসের (এপি) এক প্রতিবেদন থেকে এ খবর জানা গেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ট্রেজারি অফিস অফ ফরিন অ্যাসেট কন্ট্রোল (ওএফএসি) জানিয়েছে, ১৩ এপ্রিলের হামলায় ব্যবহৃত ড্রোন উৎপাদনে জাড়িত ইরানের ১৬ ব্যক্তি ও ২ প্রতিষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করছে যুক্তরাষ্ট্র।

এছাড়া ইরানের সামরিক বাহিনী ও অন্যান্য নিষিদ্ধ গোষ্ঠীকে সরঞ্জাম দিয়ে সহায়তা করার অভিযোগ এনে দেশটির ইস্পাত উৎপাদনের সঙ্গে জড়িত পাঁচটি সংস্থা ও গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বাহমান গ্রুপকেও নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে ওএফএসি।

অন্যদিকে, ড্রোন ও ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র শিল্পের সঙ্গে জড়িত সামরিক বাহিনী-সংশ্লিষ্ট বেশ কয়েকটি ইরানি সংস্থা, ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে নিষেধাজ্ঞার আওতায় এনেছে যুক্তরাজ্য।

গত ১ এপ্রিল সিরিয়ায় অবস্থিত ইরানের কনস্যুলেটে হামলার জবাবে ১৩ এপ্রিল রাতে ইসরায়েলকে লক্ষ্য করে তিন শতাধিক ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় তেহরান। এসব অস্ত্রের বেশির ভাগ ভূপাতিত করে ইসরায়েল, যুক্তরাষ্ট্র ও মিত্র দেশগুলো।

হামলায় দক্ষিণ ইসরায়েলে বিমান বাহিনীর একটি ঘাঁটি ক্ষতিগ্রস্ত হলেও সেটিতে কার্যক্রম স্বাভাবিক আছে বলে জানা যায়। এ হামলায় সাত বছর বয়সী এক ইসরায়েলি শিশু মারাত্মক আহত হয়। এর বাইরে বড় ধরনের ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি।

ইতোমধ্যে ইরানের জবাবের পাল্টা দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে ইসরায়েল। দেশটির প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, ইসরায়েলের অবশ্যই নিজেদের সুরক্ষা করার অধিকার রয়েছে।

এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ইরানের সামরিক তৎপরতাকে নিরুৎসাহিত করে, দেশটির ওপর এমন নিষেধাজ্ঞা আরোপ চালিয়ে যেতে ওএফএসিকে নির্দেশ দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

বাইডেন বলেছেন, ‘যারা ইরানকে হামলায় ইন্ধন দেয় ও তা সমর্থন করে, তাদের সবাইকে এটি স্পষ্ট করতে চাই যে, সবাইকে জবাবদিহিতার আওতায় আনতে যুক্তরাষ্ট্র প্রয়োজনীয় সমস্ত পদক্ষেপ নেবে।’

ট্রেজারি বিভাগের পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ও ইরানের বাণিজ্যিক গ্রেডের মাইক্রোইলেক্ট্রনিক্স শিল্পের ওপর নতুন নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। মাইক্রোইলেক্ট্রনিক্স খাতে ইরানের রাশ টেনে ধরতেই তাদের এ সিদ্ধান্ত বলে জানানো হয়েছে। তবে এ নিষেধাজ্ঞা শুধু যুক্তরাষ্ট্রের প্রযুক্তি ব্যবহার করে দেশটির বাইরে উৎপাদিত প্রযুক্তি পণ্যের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে।

ইসরায়েলে হামলার পর এ অঞ্চলে ইরানের কার্যকলাপের প্রতিক্রিয়া ও ভবিষ্যতের সম্ভাব্য হামলা ঠেকাতে তেহরানের ওপর নিষেধাজ্ঞার প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে বলে চলতি সপ্তাহেই সতর্ক করে যুক্তরাষ্ট্র। তার পরপরই বৃহস্পতিবার এমন সিদ্ধান্তের কথা জানাল ওয়াশিংটন।

ইসলামী প্রজাতন্ত্রের দেশ ইরান ও এর নেতাদের আর্থিক শাস্তির মুখোমুখি করতেই ক্যাপিটল হিলে তড়িঘড়ি করে এসব আইন প্রণয়ন করা হয়েছে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

তবে শুধু যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য নয়, ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) নেতারাও ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। নিষেধাজ্ঞার কারণ হিসেবে তেহরানের মিত্র দেশগুলো তথা গাজা, ইয়েমেন ও লেবাননে ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র সরবাহের অভিযোগ আনা হয়েছে, যা মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতিকে আরও উত্তপ্ত করে তুলছে।

এ বিষয়ে ইইউ-এর পররাষ্ট্র নীতি বিভাগের প্রধান জোসেফ বরেল বলেছেন, ‘তেহরানকে শাস্তি দিতে ও ইসরায়েলের ওপর ভবিষ্যত হামলা প্রতিরোধে সহায়তায় বিদ্যমান ইইউ নিষেধাজ্ঞা ব্যবস্থাকে আরও শক্তিশালী ও প্রসারিত করা হবে।’

তবে একইসঙ্গে ইসরায়েলকেও সংযমী হতে বলেছেন তিনি।

বরেল বলেন, ‘আমরা একটি যুদ্ধের দ্বারপ্রান্তে রয়েছি, মধ্যপ্রাচ্যের আঞ্চলিক যুদ্ধ, যা বিশ্বের বাকি অংশ বিশেষ করে ইউরোপের দেশগুলোতে ব্যাপক প্রভাব ফেলবে। তাই যেকোনো মূল্যে আমাদের এটি বন্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া উচিৎ।’

আরও পড়ুন:
২৫ হাজার টন বিস্ফোরক ছোড়া হয়েছে গাজায়: জাতিসংঘের দূত
বড় হামলা করলে ইসরাইলের কিছুই অবশিষ্ট থাকত না
ইসরায়েল হামলা করলে কয়েক সেকেন্ডেই জবাব: ইরান
ইরানকে কঠোর জবাব দেবে ইসরায়েল, মন্ত্রিসভায় সিদ্ধান্ত

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Voting for the Lok Sabha elections began on Friday

লোকসভা নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু শুক্রবার

লোকসভা নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু শুক্রবার ভারতের নতুন পার্লামেন্ট ভবন। ছবি: সংগৃহীত
ভারতের ২৯টি রাজ্য ও ৮টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের মধ্যে শুক্রবার ভোটগ্রহণ হচ্ছে ১৮টি রাজ্য ও চারটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের ১০২টি আসনে। একইসঙ্গে এদিন ভোটগ্রহণ হবে অরুণাচল প্রদেশের বিধানসভার ৬০ ও সিকিমের ৩২টি আসনে।

ভারতে ১৮তম লোকসভা নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু হচ্ছে শুক্রবার। লোকসভার ৫৪৩টি আসনে সাত দফায় ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

লোকসভায় পশ্চিমবঙ্গের রয়েছে ৪২টি আসন। শুরুর দিনে এই রাজ্যে তিনটি আসনে ভোটগ্রহণ হবে। আসন তিনটি হলো-কোচবিহার, জলপাইগুড়ি ও আলিপুরদুয়ার।

বাকি ২৮টি রাজ্য ও ৮টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের মধ্যে শুক্রবার ভোটগ্রহণ হচ্ছে ১৭টি রাজ্য ও ৪টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের ১০২টি আসনে। একইসঙ্গে এদিন ভোটগ্রহণ হবে অরুণাচল প্রদেশের বিধানসভার ৬০টি ও সিকিমের ৩২টি আসনে।

ভারতে রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলো হলো- পশ্চিমবঙ্গ, বিহার, উত্তর প্রদেশ, উত্তরাখন্ড, ত্রিপুরা, তামিলনাড়ু, সিকিম, রাজস্থান, পদুচেরি, নাগাল্যান্ড, মিজোরাম, মেঘালয়, মণিপুর, মহারাষ্ট্র, মধ্যপ্রদেশ, লাক্ষাদ্বীপ, জম্মু ও কাশ্মীর, ছত্রিশগড়, আসাম, অরুণাচল প্রদেশ এবং আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ।

২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে লোকসভার ৫৪৩টি আসনের মধ্যে বিজেপি ৩০৩, কংগ্রেস ৫২, সমাজবাদী পার্টি ৫, বহুজন সমাজ পার্টি ১০, তৃণমূল ২২, ডিএমকে ২৩, ওয়াইএসআর কংগ্রেস ২২ ও টিডিপি ২টি আসনে জয় পেয়েছিল।

গত নির্বাচনে গোটা দেশে নারী সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন বিজেপির ৪০ জন, তৃণমূলের ৯ জন, কংগ্রেসের ৬ জন, ওডিশার বিজেডির ৫ জন মিলিয়ে সর্বমোট ৭৮ জন।

এ বছর ভারতে প্রথমবারের মতো ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন (১৮-১৯ বছর বয়সী) এক কোটি ৮০ লাখ ভোটার।

মন্তব্য

p
উপরে