× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
What did Kim get angry in front of the mid term elections in the United States?
hear-news
player
google_news print-icon

কেন ‘ক্ষেপলেন’ কিম

কেন-ক্ষেপলেন-কিম--
দুই দিনে ৩০টির বেশি মিসাল ছুড়েছেন উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, পরিস্থিতি উত্তপ্ত করে ৮ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনের আগে দেশটির প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে অস্বস্তিতে ফেলতে চাইছেন কিম।

ভিজিল্যান্ট স্টর্ম নামে নিজেদের মধ্যে এ যাবতকালের সর্ববৃহৎ সেনা মহড়া চালাচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়া ও যুক্তরাষ্ট্র। এটি বন্ধ না হলে কঠোর জবাব দেওয়ার হুমকি দিয়েছে উত্তর কোরিয়া। এতেও কাজ না হওয়ায় গত দুই দিনে ৩০টির বেশি মিসাইল পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপণ করেছে পিয়ংইয়ং। প্রতিবেশী দক্ষিণ কোরিয়াও পাল্টা মিসাইল ছুড়ে উত্তর কোরিয়াকে জবাব দিয়েছে। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, পরিস্থিতি উত্তপ্ত করে ৮ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনের আগে দেশটির প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে অস্বস্তিতে ফেলতে চাইছেন কিম।

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উনের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়ের পর ২০১৭ সালে কয়েকটি দূরপাল্লার মিসাইল ছুড়ে পিংইয়ং।

বুধ ও বৃহস্পতিবার অন্তত ৩০টি মিসাইল ছোড়ে পিয়ংইয়ং। যার একটি পাশের দক্ষিণ কোরিয়ার উপকূলে পড়ে। ১৯৫৩ সালে কোরিয়া যুদ্ধের অবসানের পর প্রথমবারের মতো এমন ঘটনা ঘটল। দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট ইউন সুক-ইওল এই পদক্ষেপকে ‘আঞ্চলিক আক্রমণ’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন।

দক্ষিণ কোরিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের মহড়ায় বিরামহীনভাবে গোলাবর্ষণ করছে শত শত যুদ্ধবিমান। মহড়াটি শুরু হয় সোমবার, যা শুক্রবার শেষ হওয়ার কথা ছিল। তবে পিয়ংইয়ং -এর আরচণে মহড়ার সময় বাড়ায় সিউল।

দক্ষিণ কোরিয়া বিমানবাহিনী জানায়, বার্ষিক এই সামরিক মহড়ার জন্য তাদের কয়েক মাসের পরিকল্পনা এবং প্রস্তুতি নিতে হয়েছে। এটি সম্মিলিত বিমানবাহিনীর কৌশলগত ক্ষমতা জোরদার করবে।

মহড়ায় সিউল ও ওয়াশিংটন এফ-৩৫এ ও এফ-৩৫ বি যুদ্ধবিমান ব্যবহার করছে। রাডারের চোখ ফাঁকি দেয়ার লক্ষ্যেই এগুলকে ডিজাইন করা হয়েছে।

উত্তর কোরিয়ার কাছে পরমাণু অস্ত্র থাকলেও, দক্ষিণের নেই । যদিও বিমান শক্তির দিক থেকে অনেক বেশি শক্তিশালী দক্ষিণ কোরিয়া।

সিউলের থিংক ট্যাঙ্ক সংস্থা সেজং ইনস্টিটিউটের গবেষক চেওং সেওং চ্যাং বলেন, ’উত্তর কোরিয়ার বেশিরভাগ বিমানই পুরোনো। তাদের খুব কমই অত্যাধুনিক যুদ্ধবিমান রয়েছে।’

চলতি বছরের গ্রীষ্মে যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার কমান্ডোরা উত্তর কোরিয়ার সরকারকে উচ্ছেদের আদলে একটি মহড়া চালায়। পিয়ংইয়ং মনে করে কিম শাসনের অবসান ঘটাতে যুদ্ধ এফ-৩৫এ ও এফ-৩৫ বি যুদ্ধবিমানগুলো ব্যবহার করা হতে পারে।

সিউলের ইউনিভার্সিটি অব নর্থ কোরিয়ান স্টাডিজের অধ্যক্ষ ইয়াং মু জিন বলেন, ’রাজনৈতিক এবং কূটনৈতিক বিবেচনায় কিম চাইছেন মধ্যবর্তী নির্বাচনের আগে কঠোর নীতি থেকে যেন সরে আসে বাইডেন প্রশাসন। তিনি এমন একটা পরিস্থিতি তৈরি করতে চাইছেন যেন যুক্তরাষ্ট্রের ভোটাররা বাইডেনের ওপর আস্থা হারিয়ে ফেলে।’

অন্যদিকে কিম অভ্যন্তরীণ সমর্থন জোরদার করতে চাইছেন। জনগণকে দেখাতে চাইছেন, তিনি একজন শক্তিশালী নেতা।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
People are fleeing the eruption in Indonesia

ইন্দোনেশিয়ায় অগ্ন্যুৎপাত,পালাচ্ছে মানুষ

ইন্দোনেশিয়ায় অগ্ন্যুৎপাত,পালাচ্ছে মানুষ ইন্দোনেশিয়ার জাভা দ্বীপের সেমেরু পর্বতের আগ্নেয়গিরি। ছবি: সংগৃহীত
ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে স্থানীয় জনগণ পালাতে শুরু করেছে। তাদের উদ্ধারে কাজ করছে ইন্দোনেশিয়া সরকার।

ইন্দোনেশিয়ার জাভা দ্বীপের সেমেরু পর্বতের আগ্নেয়গিরিতে অগ্ন্যুৎপাত শুরু হয়েছে। এতে করে ওই এলাকা থেকে সাধারণ মানুষকে দূরে থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে স্থানীয় জনগণ পালাতে শুরু করেছে। তাদের উদ্ধারে কাজ করছে ইন্দোনেশিয়া সরকার।

জাপানের আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, অগ্ন্যুৎপাতের পর আকাশে ১৫ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে ছাইয়ের কুণ্ডলী তৈরি হয়। আগ্নেয়গিরিতে অগ্ন্যুৎপাতের পর সুনামি হতে পারে বলে আশঙ্কা করেছে জাপান।

ইন্দোনেশিয়ায় অগ্ন্যুৎপাত,পালাচ্ছে মানুষ

অগ্ন্যুৎপাতে এখনো হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

ইন্দোনেশিয়ার সেন্টার ফর ভলক্যানোলোজি অ্যান্ড জিওলজিক্যাল হ্যাজার্ড মিটিগেশন (পিভিএমজি) একটি বিবৃতিতে জানায়, অগ্ন্যুৎপাতের সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

সেমেরু পর্বত ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তা থেকে ৮০০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থিত। শনিবার দিনগত রাত ২টা ৪৬ মিনিটে এই অগ্ন্যুৎপাত শুরু হয়।

ইন্দোনেশিয়ার দুর্যোগ প্রশমন সংস্থার বরাত দিয়ে রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, পূর্ব জাভা প্রদেশের আগ্নেয়গিরির কাছে বসবাসকারী শিশু এবং বয়স্কদের সরিয়ে নেওয়ার কাজ চলছে। এখন পর্যন্ত ৯৩ জন বাসিন্দাকে আশ্রয়কেন্দ্রে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

পিভিএমজির প্রধান হেন্দ্রা গুনাওয়ান বলেন, ‘চলতি বছর ২০২১ ও ২০২০ সালের চেয়েও বেশি ম্যাগমা বের হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।’

ইন্দোনেশিয়ার প্রাণকেন্দ্র হলো জাভা। এই প্রদেশেই দেশটির রাজধানী জাকার্তা অবস্থিত। জাভা দ্বীপের সর্বোচ্চ পর্বত হলো সেমেরু। এর উচ্চতা ১২ হাজার ফুট।

গত মাসে ইন্দোনেশিয়ায় ভয়াবহ ভূমিকম্পের পরই অগ্ন্যুৎপাতের ঘটনা ঘটল। ওই ভূমিকম্পে ইন্দোনেশিয়ায় ৩ শতাধিক মানুষ নিহত হন। বিশ্বে যে কয়েকটি দেশে সক্রিয় আগ্নেয়গিরি আছে ইন্দোনেশিয়া তাদের মধ্যে একটি। এগুলোতে প্রায়ই অগ্ন্যুৎপাতের ঘটনা ঘটে।

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Biden also read Putin also read Falling from the stairs defecating in Putins clothes

সিঁড়ি থেকে পড়ে গেলেন ‘অসুস্থ’ পুতিন

সিঁড়ি থেকে পড়ে গেলেন ‘অসুস্থ’ পুতিন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। ছবি: সংগৃহীত
‘জেনারেল এসভিআর’ নামের সাবেক এক রুশ গোয়েন্দা কর্মকর্তার টেলিগ্রাম চ্যানেলের বরাত দিয়ে এনওয়াই পোস্ট দাবি করে চলতি সপ্তাহে মস্কোতে নিজবাস ভবনে সিঁড়ি থেকে পড়ে যান রুশ প্রেসিডেন্ট।

গুরুতর অসুস্থ থাকায় সিঁড়ি থেকে পড়ে গেছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। আমেরিকান সংবাদমাধ্যম নিউইয়র্ক পোস্টের এক প্রতিবেদনে এমনটা দাবি করা হয়েছে।

‘জেনারেল এসভিআর’ নামের সাবেক এক রুশ গোয়েন্দা কর্মকর্তার টেলিগ্রাম চ্যানেলের বরাতে এনওয়াই পোস্ট দাবি করে, চলতি সপ্তাহে মস্কোর নিজবাস ভবনে সিঁড়ি থেকে পড়ে যান রুশ প্রেসিডেন্ট। বেশ কয়েক ধাপ গড়িয়ে নিচে নামেন তিনি। এ সময় পাকস্থলিতে ক্যানসার থাকায় অনিচ্ছাকৃত মলত্যাগ করে পোশাকও নোংরা করে ফেলেন পুতিন।

পুতিনের শারীরিক সমস্যা-সংক্রান্ত নানা গুঞ্জনের কথা শোনা যাচ্ছে বেশ কয়েক মাস ধরেই। বিশেষত রাশিয়া ইউক্রেনে হামলা করার পর থেকেই পশ্চিমা গণমাধ্যমগুলো এমন দাবি করছে।

গত মাসেই কিউবার প্রেসিডেন্ট মিগুয়েল দিয়াজ-ক্যানেলের সঙ্গে বৈঠকের সময় পুতিনের হাত কাঁপতে দেখা যায়। ওই সময় পুতিনের পা কাঁপতেও দেখা যায়।

পুতিনের ঘনিষ্ঠ এক ব্যবসায়ীও জানিয়েছেন, ব্লাড ক্যানসারে ভুগছেন পুতিন।

পুতিনের অসুস্থ হওয়ার খবর এই প্রথম নয়। প্রেসিডেন্ট পুতিনের মুখপাত্র ২০১৪ সালে মার্কিন গণমাধ্যমের এ ধরনের প্রতিবেদনের নিন্দা জানিয়ে বলেন, ‘তাদের ফাঁদ বন্ধ করা উচিত।’

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
UK plans to deploy troops to counter protests

উত্তাল ব্রিটেনে সেনা মোতায়েনের পরিকল্পনা

উত্তাল ব্রিটেনে সেনা মোতায়েনের পরিকল্পনা মুদ্রাস্ফীতি ও বেকারত্বের প্রতিবাদে যুক্তরাজ্যে বিক্ষোভ। ছবি: সংগৃহীত
ব্রিটেনের ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির চেয়ারম্যান নাদিম জাহাবি রোববার বলেন, ‘ইউনিয়নগুলোর প্রতি আমাদের একটি বার্তা আছে। সেটি  হলো, এখন ধর্মঘটের সময় না। এখন আলোচনা করার সময়। আমরা সামরিক বাহিনী মোতায়েনের কথা ভাবছি। প্রয়োজনে সেনারা অ্যাম্বুলেন্স চালাবে বলেও জানান কনজার্ভেটিভ বাহিনীর প্রধান।’

সরকারি কর্মীরা বিক্ষোভ বন্ধ না করলে বড়দিনের আগে সেনা মোতায়েন হতে পারে যুক্তরাজ্যে। মুদ্রাস্ফীতি ও বেকারত্বের প্রতিবাদে বিভিন্ন খাতে তুমুল আন্দোলন চলছে দেশটিতে। বর্তমানে বিক্ষোভে যোগ দিয়েছে নার্স এবং অ্যাম্বুলেন্স কর্মীরা।

ব্রিটেনের ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির চেয়ারম্যান নাদিম জাহাবি রোববার বলেন, ‘ইউনিয়নগুলোর প্রতি আমাদের একটি বার্তা আছে। সেটি হলো, এখন ধর্মঘটের সময় না। এখন আলোচনা করার সময়। আমরা সামরিক বাহিনী মোতায়েনের কথা ভাবছি। প্রয়োজনে সেনারা অ্যাম্বুলেন্স চালাবে বলেও জানান কনজার্ভেটিভ বাহিনীর প্রধান।’

শুরু থেকেই বিক্ষোভ বন্ধের আহ্বান জানিয়ে আসছিল ব্রিটিশ সরকার। তাদের ভাষ্য, মুদ্রাস্ফীতি বেড়ে যাওয়ায় বেতন-ভাতা বাড়ানো সম্ভব হচ্ছে না। এখন যদি তা বাড়ানো হয়, তবে মুদ্রাস্ফীতি ভয়াবহ হয়ে উঠবে।

যুক্তরাজ্যের খুচরা ইলেকট্রিক্যাল পণ্য বিক্রয়ের কোম্পানি কারিসের প্রধান নির্বাহী অ্যালেক্স ব্যালডক জানান, বিক্ষোভ থেকে দূরে থাকতে তারা পণ্য সরবরাহের জন্য রয়্যাল মেইল ব্যবহার করবে না। রয়্যাল মেইল হলো ব্রিটিশ সরকারের পোস্টাল সার্ভিস; ১৫১৬ সালে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়।

চলতি বছর রয়্যাল মেইলের পোস্ট এবং পার্সেল বিভাগের কর্মীরা বেতন-ভাতা ও কাজের শর্তাবলি নিয়ে কয়েক দফা আন্দোলন করে। ডিসেম্বরে আরও বড় পরিসরে বিক্ষোভের পরিকল্পনা করছে তারা।

যুক্তরাজ্যে চলমান অর্থনৈতিক মন্দা আর রাজনৈতিক টানাপড়েনের মধ্যে অক্টোবরে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্যুব নেন সাবেক অর্থমন্ত্রী ঋষি সুনাক। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, এই মন্দা কাটিয়ে না উঠতে পারলে পরবর্তী নির্বাচনে কনজার্ভেটিভ পার্টি ব্যাপক ভরাভুবির মুখে পড়তে পারে।

দ্য সানডে টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়, স্বাস্থ্যকর্মী, শিক্ষক এবং দমকল বাহিনীর মতো পাবলিক সেক্টরের কর্মীদের আন্দোলনের অধিকার রোধ করার পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে পারেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী সুনাক। নতুন বছরে যদি পরিস্থিতি না ঠিক হয় তবে স্বাস্থ্যকর্মীদের জায়গায় ফার্মাসিস্টদের কাজে লাগাতে পারে ব্রিটিশ সরকার।

চলমান উত্যপ্ত পরিস্থিতিকে কাজে লাগিয়ে সরকারে আসার চেষ্টায় ব্যস্ত দেশটির প্রধান বিরোধীদল-লেবার পার্টি। সংকট নিরসনে তারা সরকারিকর্মীদের সঙ্গে আলোচনায় বসতে কনজারভেটিভদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

ব্রিটেনের বিক্ষোভের ঢেউ লেগেছে স্কটল্যান্ডেও। চার দশকের মধ্যে এই দেশটির শিক্ষকরা একটি ভাতার চুক্তি নিয়ে আন্দোলনে নেমেছেন। ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসেও হাজার হাজার শিক্ষক এবং শিক্ষাসংশ্লিষ্ট কর্মীরা বেতন এবং তহবিল নিয়ে বিরোধের জেরে ধর্মঘটে নামবেন কিনা তা নিয়ে ভোট দিচ্ছেন।

যুক্তরাজ্যের এমন পরিস্থিতির জন্য আবারও রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে দুষেছেন কনজারভেটিভ প্রধান জাহাবি। তার দাবি, ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে যুক্তরাজ্যে জ্বালানির দাম ও মুদ্রাস্ফীতি বেড়েছে।

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Iran executes 4 people for supporting Israel

মোসাদকে সহায়তা, ইরানে ৪ মৃত্যুদণ্ড কার্যকর

মোসাদকে সহায়তা, ইরানে ৪ মৃত্যুদণ্ড কার্যকর  প্রতীকী ছবি
এই চারজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের পাশাপাশি জাতীয় নিরাপত্তার বিরুদ্ধে কাজ ও অপহরণে সহায়তা এবং অবৈধ অস্ত্র রাখার দায়ে আরও তিনজনকে পাঁচ থেকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

ইসরায়েলি গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদকে সহায়তার অভিযোগে ইরানে চারজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়েছে। ইরানের বার্তা সংস্থা ফার্স নিউজের প্রতিবেদনে রোববার এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ইরানি বার্তা সংস্থা মেহর বুধবার জানায়, ইসরায়েল সরকারের গোয়েন্দা সংস্থাকে সহায়তার অপরাধে ওই চারজনকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়।

এই চারজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের পাশাপাশি জাতীয় নিরাপত্তার বিরুদ্ধে কাজ ও অপহরণে সহায়তা এবং অবৈধ অস্ত্র রাখার দায়ে আরও তিনজনকে পাঁচ থেকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

ইরানের আরেক বার্তা সংস্থা তাসনিমের প্রতিবেদনে বলা হয়, অভিযুক্তদের গত জুনে গ্রেপ্তার করা হয়। ইরানজুড়ে চলা পোশাকের স্বাধীনতার দাবিতে বিক্ষোভের আগেই তারা গ্রেপ্তার হন।

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
IS claimed responsibility for the attack on Pakistan Embassy in Kabul

কাবুলে পাকিস্তান দূতাবাসে হামলার দায় নিল আইএস

কাবুলে পাকিস্তান দূতাবাসে হামলার দায় নিল আইএস
আইএসের দাবি, পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত ও তার নিরাপত্তারক্ষীকে লক্ষ্য করে তাদের দুই সদস্য এই হামলা চালিয়েছে।

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে পাকিস্তান দূতাবাসে হামলার দায় স্বীকার করেছে জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস)।

টেলিগ্রামে পোস্ট করা আইএসের একটি সহযোগী চ্যানেলের বিবৃতির বরাতে এ তথ্য জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স

আইএসের দাবি, পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত ও তার নিরাপত্তারক্ষীকে লক্ষ্য করে তাদের দুই সদস্য এই হামলা চালিয়েছে।

এর আগে শুক্রবার ওই দূতাবাসের কম্পাউন্ডে হামলা চালানো হয়। মিশনপ্রধান উবাইদুর রহমান নিজামানিকে লক্ষ্য করে হওয়া এ হামলার সময় তাকে রক্ষা করতে গিয়ে নিরাপত্তারক্ষী ইসরার মোহাম্মদ গুরুতর আহত হয়েছেন।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, আফগানিস্তানের অন্তর্বর্তী সরকারকে অবিলম্বে এই হামলার পুঙ্খানুপুঙ্খ তদন্ত করে দোষীদের গ্রেপ্তার করতে হবে। পাশাপাশি আফগানিস্তানে পাকিস্তানি কূটনৈতিক এবং নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে জরুরি ব্যবস্থা নিতে হবে।

দূতাবাসের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘হামলাকারী একজন ছিলেন। একটি ভবনের আড়াল থেকে বেরিয়ে গুলি চালাতে শুরু করে সে। রাষ্ট্রদূত এবং অন্য কর্মীরা নিরাপদে আছেন। তার পরও সতর্কতার কারণে আমরা দূতাবাস ভবনের বাইরে যাচ্ছি না।’

কাবুল পুলিশের মুখপাত্র খালিদ জাদরান বলেন, ‘দূতাবাসে হামলার ঘটনায় এক সন্দেহভাজনকে আটক করা হয়েছে। একটি অস্ত্র জব্দ করা হয়েছে।’

আফগান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ ঘটনার নিন্দা জানিয়েছে। তালেবানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আব্দুল কাহার বালখি বিবৃতিতে বলেন, ‘নিরাপত্তা সংস্থাগুলো ঘটনাটি গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করবে এবং অপরাধীদের চিহ্নিত করে শাস্তি দেবে।’

আরও পড়ুন:
শীর্ষ নেতা নিহতের খবর জানাল আইএস
এমআইএসটিতে একাডেমিক ও প্রশাসনিক ভবন উদ্বোধন
ভারতীয় শীর্ষ নেতাকে হত্যার পরিকল্পনকারী ‘আইএস জঙ্গি ধরেছে’ রাশিয়া

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Bombing of Gaza in response to rockets concerns EU

রকেটের জবাবে গাজায় বোমা হামলা, ইইউর উদ্বেগ

রকেটের জবাবে গাজায় বোমা হামলা, ইইউর উদ্বেগ ইসরায়েলি যুদ্ধবিমান থেকে গাজা উপত্যকায় বোমা হামলা করা হয়। ছবি: সংগৃহীত
ইসরায়েলি বাহিনীর বরাত দিয়ে আল জাজিরা জানিয়েছে, রোববার ভোরে হামাসের অস্ত্র তৈরির স্থাপনা এবং ভূগর্ভস্থ একটি সুড়ঙ্গ লক্ষ্য করে বিমান হামলা চালানো হয়েছে।

ইসরায়েলের দক্ষিণাঞ্চলে রকেট হামলার অভিযোগে অধিকৃত পশ্চিম তীরে উত্তেজনা চরমে উঠেছে। ইসরায়েলি যুদ্ধবিমান থেকে গাজা উপত্যকায় বোমা হামলা করা হয়েছে। গত সপ্তাহ থেকে ইসরায়েলি বাহিনীর হামলায় অন্তত ১০ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন বলে দাবি করা হয়েছে। এসব ঘটনায় উদ্বেগ জানিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)।

ইসরায়েলি বাহিনীর বরাত দিয়ে আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রোববার ভোরে হামাসের অস্ত্র তৈরির স্থাপনা এবং ভূগর্ভস্থ একটি সুড়ঙ্গ লক্ষ্য করে বিমান হামলা চালানো হয়েছে।

ইসরায়েলি সেনাবাহিনী হামাসের উদ্দেশে বলেছে, হামাসের রাতারাতি স্ট্রাইক বাহিনী গঠনে বাধা দেয়ার অগ্রগতি অব্যাহত রাখা হয়েছে।

শনিবার সন্ধ্যায় ইসরায়েলের দক্ষিণাঞ্চলে রকেট হামলার জবাবে এই পাল্টা হামলা চালানো হয়।

ইসরায়েল সেনাবাহিনী জানিয়েছে, রকেট হামলা একটি খোলা জায়গায় করা হয়েছে। এতে কেউ হতাহত হননি।

ইসরায়েলের বোমা হামলার জবাবে হামাসের পক্ষ থেকে তাৎক্ষণিক কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

এর আগে শুক্রবার ইসরায়েলি সেনার হাতে ২৩ বছর বয়সী আম্মার মুফলেহ নামে এক ফিলিস্তিনি যুবক হত্যার ক্ষোভের পরে গাজায় বিমান হামলা করা হয়।

আম্মার মুফলেহর মৃত্যুতে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় শোক জানিয়েছে। সেই সঙ্গে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে।

এ ঘটনায় ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) ফরেন পিলিসি চিফ জোসেপ বোরেল বিবৃতি দিয়েছেন। অধিকৃত পশ্চিম তীরের পরিস্থিতি নিয়ে তারা উদ্বিগ্ন বলে জানিয়েছেন।

বিবৃতিতে জোসেপ বলেন, ‘গত এক সপ্তাহে ইসরায়েলি বাহিনীর হাতে ১০ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। সবশেষ শুক্রবার ইসরায়েলি সেনার হাতে ফিলিস্তিনি যুবক আম্মার মুফলেহ নিহত হয়েছেন। এ ধরনের ঘটনায় অবশ্যই তদন্ত হওয়া উচিত। এর জবাবদিহিও দরকার।’

আরও পড়ুন:
আরও কাছাকাছি তুরস্ক-ইসরায়েল
গাজায় যুদ্ধবিরতি
গাজায় হামলার ‘চড়া মূল্য দিতে হবে ইসরায়েলকে’
ইসরায়েলের হামলায় ৬ ফিলিস্তিনি শিশুসহ নিহত ২৪
গাজায় ইসরায়েলি হামলায় ইসলামিক জিহাদ কমান্ডার নিহত

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
US school finds turning off phones results in fewer bathroom trips

যুক্তরাষ্ট্রের স্কুলটিতে ফোন বন্ধে মিলছে সুফল, কমেছে ওয়াশরুমে যাওয়া

যুক্তরাষ্ট্রের স্কুলটিতে ফোন বন্ধে মিলছে সুফল, কমেছে ওয়াশরুমে যাওয়া স্মার্টফোন হাতে যুক্তরাষ্ট্রের একটি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। ছবি: সংগৃহীত
পিটার বেক বলেন, বাসায় স্মার্টফোনে দীর্ঘ সময় কাটিয়ে আসার পর শিক্ষার্থীরা সামনাসামনি কথা বলাটাই পুরো ভুলে গিয়েছিল। অনেক সময় প্রয়োজনের কথা বলতে গিয়েও জটিলতায় পড়ছিল তারা।

করোনা সংকট কাটিয়ে ওঠার পর খুলে দেয়া হলেও আর আগের চেহারায় ফিরছিল না যুক্তরাষ্ট্রের স্কুলটি। ক্লাসে এসে শিক্ষার্থীদের ছিল না মনোযোগ। সামনাসামনি সহপাঠীদের সঙ্গে কথা বলাতেও আগ্রহ দেখা যাচ্ছিল না।

এই সংকট কাটাতে স্কুলে বন্ধ করে দেয়া হয় মোবাইল ফোনের ব্যবহার। শিক্ষক, শিক্ষার্থী কিংবা কর্মচারী; সবার জন্যই চালু হয় এক নিয়ম। এতেই মিলেছে সুফল। আর ওয়াশরুমে গিয়ে ফোন টিপতে টিপতে অতিরিক্ত সময় ব্যয়ের যে প্রবণতা ছিল সেটাও নিয়ন্ত্রণে এসেছে।

উত্তর-পশ্চিম ম্যাসাচুসেটসের বাক্সটন স্কুল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান পিটার বেকের বরাত দিয়ে এ ঘটনা প্রকাশ করেছে সংবাদমাধ্যম নিউ ইয়র্ক পোস্ট

পিটার বেক বলেন, বাসায় স্মার্টফোনে দীর্ঘ সময় কাটিয়ে আসার পর শিক্ষার্থীরা সামনাসামনি কথা বলাটাই পুরো ভুলে গিয়েছিল। অনেক সময় প্রয়োজনের কথা বলতে গিয়েও জটিলতায় পড়ছিল তারা।

এমন পরিস্থিতিতে স্কুলে সবার জন্য স্মার্টফোন ব্যবহার নিষিদ্ধ করে কর্তৃপক্ষ। জানানো হয়, ক্যাম্পাসের পুরো ১১৪ একরের মধ্যে শিক্ষক, শিক্ষার্থী বা কর্মচারীদের কেউই আইফোন বা অ্যান্ড্রোয়েড ফোন ব্যবহার করতে পারবেন না।

গত সেপ্টেম্বরে শিক্ষাবর্ষ শুরু হওয়ার সময় থেকে এই নির্দেশনা কার্যকর হলে এর সুফল মিলতে থাকে বলে জানায় কর্তৃপক্ষ।

স্কুলপ্রধান পিটার বলেন, শিক্ষার্থীরা সমৃদ্ধ হচ্ছে। তারা পরিবর্তনের সঙ্গে খুব ভালোভাবে মানিয়ে নিয়েছে। পরিবর্তন দরকার ছিল, তবে এটা সম্ভব হবে ভাবিনি।

তিনি জানান, জীবনের প্রতিটি মুহূর্তে যে ফোন তারা ব্যবহার করছে, এটা ছাড়া তাদের কীভাবে চলবে তা নিয়ে ভয় পেয়ে গিয়েছিল শিক্ষার্থীরা।

নির্দেশনা কার্যকর হওয়ার পর যেসব শিক্ষার্থীর বাড়ি স্কুলের পাশে তাদের বাড়িতে ফোন রেখে আসতে হয়। আর দূরের শিক্ষার্থীদের ফোন জমা রাখতে হয় স্কুলে। সেমিস্টার ফাইনালের আগে পর্যন্ত এমন অবস্থা চলে।

ফোন নিয়ে সর্বশেষ অবস্থা জানিয়ে স্কুলের ওয়েব সাইটে বলা হয়, এখন সাধারণ ফোন ব্যবহারের অনুমতি দেয়া হয়েছে শিক্ষার্থীদের। শুধু কথা বলা ও মেসেজ পাঠানো যায় এমন ফোন ব্যবহার করতে পারছে তারা।

ইন্টারনেট ব্রাউজিং করা যায়, ই-মেইলে ঢোকা যায় বা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রবেশ করা যায়- এমন ফোন ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা আগের মতোই কার্যকর রয়েছে। তবে স্কুল শেষে কেউ চাইলে ডেস্কটপে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহার করতে পারবেন।

পিটার বেক বলেন, তারা একাডেমিক কাজে আরও বেশি সময় ব্যয় করছে। শিল্পের মাধ্যমে সৃজনশীলভাবে নিজেদের প্রকাশ করছে। একে অন্যকে জানছে।

একজন শিক্ষক জানিয়েছেন, শিক্ষার্থীদের মধ্যে ওয়াশরুমে যাওয়ার প্রবণতাও কমেছে। তারা অনেক সময় দরকার না হলেও মেসেজ ও টিকটক চেক করার জন্য বিশ্রামাগার ব্যবহার করত। ওয়াশরুমে গিয়ে বেশি সময় ব্যয় করত এই ফোনের স্ক্রিনে তাকিয়ে। এটা কমেছে।

আরও পড়ুন:
আলট্রা-স্লিম ডিজাইনের বাজেট স্মার্টফোন রিয়েলমি সি৩০
শিশুর মোবাইল ফোনে আসক্তি কমানোর উপায়
দেশের বাজারে এন্ট্রি লেভেলের স্মার্টফোন রিয়েলমি সি৩০

মন্তব্য

p
উপরে