× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
What is Operation London Bridge?
google_news print-icon

‘অপারেশন লন্ডন ব্রিজ’ আসলে কী?

এলিজাবেথ
রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের মৃত্যুপরবর্তী আনুষ্ঠানিকতা চলছে ‘অপারেশন লন্ডন ব্রিজ’ অনুসারে। গ্রাফিক্স: সংগৃহীত
রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের মৃত্যুর ১০ দিন পর অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া পর্যন্ত যা যা ঘটবে, সবই ‘অপারেশন লন্ডন ব্রিজ’ নামের পরিকল্পনার অন্তর্ভুক্ত। রানির মৃত্যুর পর ব্রিটিশ সিংহাসনে বসেছেন তার ছেলে রাজা তৃতীয় চার্লস। চার্লস মারা গেলে তার জন্য আনুষ্ঠানিকতারও নাম ঠিক হয়ে আছে, সেটি হলো, ‘অপারেশন মেনাই ব্রিজ’।

ব্রিটেনের সদ্যপ্রয়াত রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের মৃত্যুর পর আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে বারবার আসছে ‘অপারেশন লন্ডন ব্রিজ’-এর কথা।

রানির মৃত্যুর ১০ দিন পর অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া পর্যন্ত যা যা ঘটবে, সবই এই ‘অপারেশন লন্ডন ব্রিজ’-এর অন্তর্ভুক্ত। আর এই পরিকল্পনার প্রাথমিক খসড়াটি তৈরি হয়েছিল এখন থেকে পাঁচ দশকেরও বেশি আগে ১৯৬০-এর দশকে। অর্থাৎ মৃত্যুর বহু আগে থেকেই রানির জানা ছিল তার প্রয়াণের পরের ১০ দিন কখন কী ঘটবে!

‘অপারেশন লন্ডন ব্রিজ’ ১৯৬০-এর দশকে প্রণীত হলেও পরে কয়েকবার ঘষামাজা করা হয়েছে, যোগ-বিয়োগ হয়েছে বেশ কিছু আনুষ্ঠানিকতা। ব্রিটিশ দৈনিক দ্য গার্ডিয়ান ২০১৭ সালে প্রথম পরিকল্পনাটির বিস্তারিত প্রকাশ করে। এরপর এ বিষয়ে আরও বিস্তারিত তথ্য ২০২১ সালে প্রকাশিত হয় রাজনীতিবিষয়ক সংবাদমাধ্যম পলিটিকোতে।

তবে রানির মৃত্যুর জায়গাটি কিছুটা গোলমাল পাকিয়ে ফেলেছে। কারণ, ইংল্যান্ডের ভেতর তিনি মারা গেলে পুরো প্রক্রিয়াটি নিখাঁদ ‘অপারেশন লন্ডন ব্রিজ’ হিসেবেই পরিচালিত হতো। তবে দ্বিতীয় এলিজাবেথের মৃত্যু হয়েছে স্কটল্যান্ডের বালমোরাল দুর্গে। গ্রীষ্মকালীন অবকাশ কাটানোর সময় গত বৃহস্পতিবার তিনি মারা যান।

স্কটল্যান্ডে মারা যাওয়ায় ‘অপারেশন লন্ডন ব্রিজ’-এর প্রথম অংশে যোগ হয়েছে ‘অপারেশন ইউনিকর্ন’।

‘অপারেশন ইউনিকর্ন’ কী

রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের মৃত্যুপরবর্তী প্রক্রিয়াগুলোর খুঁটিনাটি বিবরণ রয়েছে ‘অপারেশন লন্ডন ব্রিজ’-এ। আর ‘অপারেশন ইউনিকর্ন’-এর মূল বিষয়টি ইংল্যান্ডের বাইরে স্কটল্যান্ডে রানির মৃত্যু হলে যা করতে হবে সে বিষয়ক। এই পরিকল্পনায় মূলত স্কটল্যান্ড থেকে মরদেহ ইংল্যান্ডে আনার বিষয়টি প্রাধান্য পেয়েছে। এরপরের বাকি সব প্রক্রিয়া চলবে ‘অপারেশন লন্ডন ব্রিজ’ অনুযায়ী।

ইউনিকর্ন হলো এক শিংয়ের একটি পৌরাণিক ঘোড়া, যেটি স্কটল্যান্ডের জাতীয় প্রাণী হিসেবে স্বীকৃত।

‘অপারেশন ইউনিকর্ন’ এ রানির মৃত্যুর পর স্কটল্যান্ডে শোকার্তদের সমবেত হওয়ার কিছু জায়গাও সুনির্দিষ্ট করা হয়েছে। এগুলো হলো হলিরুড প্যালেস, সেন্ট জিলস ক্যাথেড্রাল এবং স্কটিশ পার্লামেন্ট। সেখানে জনসাধারণের জন্য শোক বইও থাকবে।

রানির মৃত্যুর পর অন্তত ছয় দিন স্কটিশ পার্লামেন্টের কার্যক্রম স্থগিত থাকবে। রানির মৃত্যুর চতুর্থ দিনে কফিন স্কটল্যান্ডের ওয়েভারলি স্টেশন থেকে রাজকীয় ট্রেনে নিয়ে যাওয়া হবে লন্ডনে। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রিপরিষদের সদস্যরা এই কফিন গ্রহণ করবেন।

বাকিংহাম প্যালেসে রানির কফিন পৌঁছানোর পর কার্যকর হবে ‘অপারেশন লন্ডন ব্রিজ’-এর বাকি সব প্রক্রিয়া।

রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ ইংল্যান্ড বা স্কটল্যান্ডের বাইরে অন্য কোনো দেশে মারা গেলে তার মরদেহ ইংল্যান্ডে আনা হতো বিশেষ বিমানে, আর তখন ওই প্রক্রিয়াটির নাম হতো ‘অপারেশন ওভারস্টাডি’

‘রাজকীয় মৃত্যুপরবর্তী’ প্রক্রিয়ার কোডনেম যেভাবে

ব্রিটিশ রাজপরিবারের গুরুত্বপূর্ণ সদস্যদের মৃত্যুর পর শেষকৃত্য পর্যন্ত নানা আনুষ্ঠানিকতা পালন করা হয়। আর সবার ক্ষেত্রেই এই আনুষ্ঠানিকতার আলাদা কোডনেম পূর্বনির্ধারিত। রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের বাবা রাজা ষষ্ঠ জর্জ ১৯৫২ সালে মারা যান। তার মৃত্যুর তথ্য জানাতে ‘হাইড পার্ক কর্নার’ সাংকেতিক বাক্যটি ব্যবহার করা হয়।

এর পর থেকে রাজপরিবারের বিশিষ্ট সদস্যদের মৃত্যুপরবর্তী আনুষ্ঠানিকতার নাম দেয়ার রীতি চালু হয়। ২০০২ সালের ৩০ মার্চ রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের মা মারা যান। তার অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার অনুষ্ঠানিকতার নাম ছিল ‘অপারেশন টে ব্রিজ’, আর ২০২১ সালে প্রিন্স ফিলিপের জন্য পরিচালিত হয় ‘অপারেশন ফোর্থ ব্রিজ

রানি এলিজাবেথের মৃত্যুর পর ব্রিটিশ সিংহাসনে বসেছেন তার ছেলে রাজা তৃতীয় চার্লস। চার্লস মারা গেলে তার জন্য আনুষ্ঠানিকতারও নাম ঠিক হয়ে আছে। আর সেই বাক্যাংশটি হলো, ‘অপারেশন মেনাই ব্রিজ

‘লন্ডন ব্রিজ ইজ ডাউন’

‘অপারেশন লন্ডন ব্রিজ’ অনুসারে রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের মৃত্যুর দিনটির সাংকেতিক নাম ছিল ‘ডি-ডে’

রানি মারা যাওয়ার পর পরই তার ব্যক্তিগত সচিব বিশেষ টেলিফোনে প্রধানমন্ত্রী লিজ ট্রাসের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। এই যোগাযোগে ব্যক্তিগত সচিব শুরুতেই বলেছেন, ‘লন্ডন ব্রিজ ইজ ডাউন’। এর অর্থ রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ মারা গেছেন।

এরপর ব্রিটিশ পররাষ্ট্র দপ্তরের গ্লোবাল রেসপন্স সেন্টার থেকে রানির মৃত্যুর খবর ১৫টি দেশের সরকারকে অবহিত করা হয়েছে। সাংবিধানিকভাবে এই ১৫টি দেশেরও রাষ্ট্রপ্রধান ছিলেন রানি। এ ছাড়া ডি-ডেতে কমনওয়েলথের অন্য ৩৬টি দেশের কাছে রানির প্রয়াণের খবর আনুষ্ঠানিকভাবে জানিয়েছে যুক্তরাজ্য।

সাধারণ মানুষকে রানির মৃত্যুর তথ্য জানানোর প্রক্রিয়ার উল্লেখও রয়েছে অপারেশন লন্ডন ব্রিজে। সে অনুযায়ী আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে প্রচারিত হয়েছে নিউজফ্ল্যাশ। বিবিসির কর্মী কালো পোশাকে ঘোষণা করেছেন রানির মৃত্যুসংবাদ।

একই সঙ্গে রানির মৃত্যুর ঘোষণাপত্র বাকিংহাম প্যালেসের বাইরে সাঁটিয়ে দিয়েছেন একজন রাজকর্মী। প্রাসাদের ওয়েবসাইটেও প্রচার হয়েছে আনুষ্ঠানিক বিজ্ঞপ্তি।

পাঁচ দশকেরও আগে তৈরি পরিকল্পনা অনুযায়ী রানির মৃত্যুর বিষয়ে প্রথম সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে বিবৃতি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী লিজ ট্রাস। এরপর তিনি নতুন রাজা তৃতীয় চার্লসের সঙ্গে দেখা করেন।

রানির মৃত্যুর এক দিন পর সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন নতুন রাজা। এটাও হয়েছে সেই ১৯৬০-এর দশকে তৈরি করা ‘অপারেশন লন্ডন ব্রিজ’ অনুসারে।

আরও পড়ুন:
কেন ত্রিকোণ স্যান্ডউইচ খেতেন না রানি এলিজাবেথ
ক্যামিলার মাথায় শোভা পাবে কোহিনূর
কোন দেশে কীভাবে শ্রদ্ধা রানিকে
বিশ্বমঞ্চে রানির নেতৃত্ব স্মরণ পুতিনের
সবার জন্য সমমর্যাদা: নতুন রাজা তৃতীয় চার্লস

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
NATO will not send troops to Ukraine

ইউক্রেনে সেনা পাঠাবে না ন্যাটো

ইউক্রেনে সেনা পাঠাবে না ন্যাটো
ন্যাটো মহাসচিব জেন্স স্টলেনবার্গ বলেন, ন্যাটো জোট ইউক্রেনকে নজিরবিহীন সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে। ন্যাটো ২০১৪ সাল থেকেই তা করছে। ইউক্রেনে হামলার পর থেকে এ সহযোগিতা আরও জোরদার হয়েছে। তবে ইউক্রেনের মাটিতে ন্যাটোর কোনো সৈন্য পাঠানোর পরিকল্পনা নেই।

ইউক্রেনে সেনা পাঠানোর কেনো পরিকল্পনা নেই উত্তর আটলান্টিক নিরাপত্তা জোট বা ন্যাটোর।

ন্যাটো মহাসচিব জেন্স স্টলেনবার্গ এপিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে মঙ্গলবার এ কথা বলেছেন।

তিনি বলেন, ন্যাটো জোট ইউক্রেনকে নজিরবিহীন সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে। ন্যাটো ২০১৪ সাল থেকেই তা করছে। ইউক্রেনে হামলার পর থেকে এ সহযোগিতা আরও জোরদার হয়েছে। তবে ইউক্রেনের মাটিতে ন্যাটোর কোনো সৈন্য পাঠানোর পরিকল্পনা নেই।

গত ২৬ ফেব্রুয়ারি স্লোভাক প্রধানমন্ত্রী রবার্ট ফিকো বলেছেন, কিয়েভের সাথে করা দ্বিপাক্ষিক চুক্তির ভিত্তিতে ইইউ ও ন্যাটোভুক্ত কিছু দেশ ইউক্রেনে সেনা সদস্য পাঠানোর বিষয়টি বিবেচনা করছে।

তার মন্তব্যের পর চেক প্রধানমন্ত্রী পেত্র ফিয়ালা এবং পোলিশ প্রধানমন্ত্রী ডোনাল্ড টাস্ক বলেছেন, এ ধরনের কোনো ইচ্ছে তাদের নেই।

বেশ কিছুদিন ধরে সীমান্তে অবস্থান নেয়ার পর ২০২২ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে হামলা করে রাশিয়া। পাল্টা জবাব দিচ্ছে ইউক্রেনও। তবে নানা তৎপরতার মধ্যেও এ যুদ্ধ থামেনি এখনও। শুরু থেকেই পশ্চিমা দেশগুলো ইউক্রেনকে সমর্থন দিয়ে আসছে।

আরও পড়ুন:
রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধে ইউক্রেনের ৩১ হাজার সেনা নিহত: জেলেনস্কি
রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের নতুন নিষেধাজ্ঞা
রাশিয়া সংশ্লিষ্ট ৫ শতাধিক লক্ষ্যবস্তুকে নিষেধাজ্ঞা দেবে যুক্তরাষ্ট্র

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Trapped Indians fighting for Russia
বিবিসির প্রতিবেদন

ফাঁদে পড়ে রাশিয়ার হয়ে যুদ্ধে ভারতীয়রা

ফাঁদে পড়ে রাশিয়ার হয়ে যুদ্ধে ভারতীয়রা রাশিয়ার হয়ে যুদ্ধ করা ভারতীয় এক যুবক। ছবি: বিবিসি
রাশিয়ায় যাওয়া ভারতীয়দের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রতারণার শিকার হওয়া এসব যুবকের বয়স ২২ থেকে ৩১ বছর। রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর সদস্যদের সহায়তা করার জন্য তাদের রাশিয়ায় নেন এজেন্টরা। পরবর্তী সময়ে প্রশিক্ষণের অজুহাতে তাদের যুদ্ধক্ষেত্রে পাঠানো হয়।

এজেন্টদের প্রতারণার ফাঁদে পড়ে কমপক্ষে ১২ জন ভারতীয় নাগরিক রাশিয়ার হয়ে ইউক্রেনের বিপক্ষে যুদ্ধ করছেন বলে জানিয়েছে বিবিসি।

সংবাদমাধ্যমটির প্রতিবেদনে জানানো হয়, রাশিয়ার হয়ে লড়া এসব ভারতীয় নাগরিকের একজন ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় নিহত হয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম দ্য হিন্দুর বরাতে বিবিসির খবরে বলা হয়, গত সপ্তাহে ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় নিহত হন ভারতের গুজরাট রাজ্য থেকে রাশিয়ায় যাওয়া হেমল অশ্বিনভাই।

হেমলের বাবা গত ২৩ ফেব্রুয়ারি বিবিসিকে জানান, তিন দিন আগে তিনি ছেলের সঙ্গে কথা বলেছিলেন।

ওই ব্যক্তি জানান, রাশিয়া সীমান্ত থেকে ২০ থেকে ২২ কিলোমিটার দূরে ইউক্রেনের অভ্যন্তরে মোতায়েন করা হয় তার ছেলেকে। মোবাইল নেটওয়ার্ক পেলে কয়েক দিন পরপরই কল দিতেন হেমল।

এমন পরিস্থিতিতে গভীর উদ্বেগে থাকা ভারতীয় পরিবারগুলো তাদের সন্তানকে দেশে ফিরিয়ে আনতে সহযোগিতা চেয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারের।

রাশিয়ায় যাওয়া ভারতীয়দের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রতারণার শিকার হওয়া এসব যুবকের বয়স ২২ থেকে ৩১ বছর। রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর সদস্যদের সহায়তা করার জন্য তাদের রাশিয়ায় নেন এজেন্টরা। পরবর্তী সময়ে প্রশিক্ষণের অজুহাতে তাদের যুদ্ধক্ষেত্রে পাঠানো হয়।

রাশিয়ায় থাকা ভারতীয় সূত্রগুলো জানায়, রুশ সেনাবাহিনীতে যোগ দিয়েছেন বিপুলসংখ্যক ভারতীয় নাগরিক।

রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র দ্য হিন্দুকে বলেছে, গত বছর রুশ সেনাবাহিনীতে নিয়োগকৃত ভারতীয়র প্রকৃত সংখ্যা প্রায় ১০০।

এ বিষয়ে জানতে দিল্লিতে রুশ দূতাবাসের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে বিবিসি, তবে তাদের পক্ষ থেকে কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, রাশিয়ার সেনাবাহিনীতে সহায়কের ভূমিকায় যুক্ত করা হয়েছে ভারতীয় কিছু নাগরিককে।

আরও পড়ুন:
দুর্ঘটনার ১০ দিন না যেতে সড়কেই প্রাণ গেল তেলেঙ্গানার বিধায়কের
ক্যানসারের উপাদান পাওয়ায় তামিলনাড়ুতে নিষিদ্ধ হাওয়াই মিঠাই
রাশিয়া সংশ্লিষ্ট ৫ শতাধিক লক্ষ্যবস্তুকে নিষেধাজ্ঞা দেবে যুক্তরাষ্ট্র
ভোটের প্রচারে বাড়ি বাড়ি গিয়ে গর্ভনিরোধক বিতরণ
ঐশ্বরিয়াকে নিয়ে রাহুলের মন্তব্যের নিন্দা সংগীতশিল্পীর

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
31000 Ukrainian soldiers killed in war with Russia Zelensky

রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধে ইউক্রেনের ৩১ হাজার সেনা নিহত: জেলেনস্কি

রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধে ইউক্রেনের ৩১ হাজার সেনা নিহত: জেলেনস্কি রুশ হামলায় নিহত ইউক্রেনীয় কবি ও সেনা ম্যাকসিম ক্রিভৎসভের কফিন কাঁধে সেনারা। ছবিটি ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভের সেন্ট মাইকেল’স আশ্রম থেকে ২০২৪ সালের ১১ জানুয়ারি তোলা। ছবি: রয়টার্স
ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট বলেন, রাশিয়ার দখলকৃত ভূখণ্ডগুলোতে হাজারো বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন। যুদ্ধ শেষ হওয়ার আগ পর্যন্ত এ সংক্রান্ত সুনির্দিষ্ট কোনো সংখ্যা পাওয়া যাবে না।

রাশিয়ার সঙ্গে গত দুই বছর ধরে চলা যুদ্ধে ইউক্রেনের ৩১ হাজার সেনা নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে দেশটির প্রেসিডেন্ট ভলদিমির জেলেনস্কি।

ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলার দ্বিতীয় বার্ষিকীর পরের দিন রোববার কিয়েভে ‘ইউক্রেন. ইয়ার ২০২৪’ ফোরামে দেয়া বক্তব্যে তিনি এ কথা জানান বলে আল জাজিরার প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের নির্দেশে ২০২২ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে বিশেষ সামরিক অভিযান শুরু করেন রুশ সেনারা। এ যুদ্ধে উভয় পক্ষেরই অনেক প্রাণহানিসহ ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

জেলেনস্কি বলেন, প্রতিটি মৃত্যুই ইউক্রেনের জন্য মহান আত্মত্যাগ।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট বলেন, রাশিয়ার দখলকৃত ভূখণ্ডগুলোতে হাজারো বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন। যুদ্ধ শেষ হওয়ার আগ পর্যন্ত এ সংক্রান্ত সুনির্দিষ্ট কোনো সংখ্যা পাওয়া যাবে না।

ইউরোপের দ্বিতীয় বৃহত্তম দেশটিতে পূর্ণমাত্রায় রুশ হামলা শুরুর পর প্রথমবারের মতো নিহত সেনার সংখ্যা জানাল ইউক্রেন।

যুদ্ধে নিহত সেনার সংখ্যা নিয়ে রাশিয়াও আনুষ্ঠানিকভাবে খুব কম তথ্য দিয়েছে।

দেশটির স্বাধীন সংবাদমাধ্যম মিডিয়াজোনা শনিবার জানায়, ২০২২ ও ২০২৩ সালে ইউক্রেনের সঙ্গে যুদ্ধে নিহত হন ৭৫ হাজার রুশ নাগরিক।

আরও পড়ুন:
গয়েশ্বরের অভিযোগ নাকচ করলেন রুশ রাষ্ট্রদূত
‘ইউক্রেনের ৬৫ যুদ্ধবন্দি’ নিয়ে রাশিয়ার সামরিক বিমান বিধ্বস্ত
বাংলাদেশের নির্বাচনের ফল প্রভাবিত করতে বহিরাগত চেষ্টা ছিল: রাশিয়া
বাংলাদেশে ‘আরব বসন্তের উসকানি’ নিয়ে রাশিয়ার মন্তব্যে নীরব যুক্তরাষ্ট্র
পাঁচ লাখ নতুন সেনার প্রয়োজন: জেলেনস্কি

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The United States will ban more than 500 targets related to Russia

রাশিয়া সংশ্লিষ্ট ৫ শতাধিক লক্ষ্যবস্তুকে নিষেধাজ্ঞা দেবে যুক্তরাষ্ট্র

রাশিয়া সংশ্লিষ্ট ৫ শতাধিক লক্ষ্যবস্তুকে নিষেধাজ্ঞা দেবে যুক্তরাষ্ট্র মস্কোর ক্রেমলিনে ২০ ফেব্রুয়ারি বৈঠকের সময় কৃষিমন্ত্রী দিমিত্রি পাত্রুশেভের বক্তব্য শোনেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। ছবি: রয়টার্স
আদেয়েমো জানান, নিষেধাজ্ঞার আওতায় পড়বে রাশিয়ার সামরিক শিল্প এবং রাশিয়ার প্রত্যাশা অনুযায়ী দেশটিকে পণ্য সরবরাহ করা অন্য দেশের কোম্পানিগুলো।

ইউক্রেনে রুশ হামলার দ্বিতীয় বার্ষিকীর প্রাক্কালে শুক্রবার রাশিয়া সংশ্লিষ্ট পাঁচ শতাধিক লক্ষ্যবস্তুকে যুক্তরাষ্ট্র নিষেধাজ্ঞার আওতায় আনবে বলে জানিয়েছেন আমেরিকার ডেপুটি ট্রেজারি সেক্রেটারি ওয়ালি আদেয়েমো।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এ কথা জানান।

ইউক্রেনে ২০২২ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি সামরিক অভিযান শুরু করে রাশিয়া, যা শেষ হয়নি দুই বছরেও।

ইউক্রেনে যুদ্ধ ও রুশ কারাগারে বিরোধীদলীয় নেতা অ্যালেক্সেই নাভালনির মৃত্যুর ঘটনায় রাশিয়াকে জবাবদিহির মুখোমুখি করতে বেশ কিছু দেশকে সঙ্গে নিয়ে এ নিষেধাজ্ঞা দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র।

আদেয়েমো জানান, নিষেধাজ্ঞার আওতায় পড়বে রাশিয়ার সামরিক শিল্প এবং রাশিয়ার প্রত্যাশা অনুযায়ী দেশটিকে পণ্য সরবরাহ করা অন্য দেশের কোম্পানিগুলো।

ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরুর পর যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্ররা রাশিয়ার ওপর হাজারো নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। ইউরোপের বৈশ্বিক পরাশক্তিটির ওপর চাপ বাড়াতে নতুন করে নিষেধাজ্ঞা দিচ্ছে আমেরিকা ও মিত্র রাষ্ট্রগুলো। যদিও ইউক্রেনকে আরও নিরাপত্তা সহায়তা দেয়ার বিষয়টি যুক্তরাষ্ট্রের আইনসভা কংগ্রেসে অনুমোদন পাবে কি না, তা নিয়ে রয়েছে সংশয়।

আরও পড়ুন:
পোল্যান্ড বা লাটভিয়ায় হামলার পরিকল্পনা নেই: পুতিন
ভিসা নীতির পরিবর্তন হয়নি, ড. ইউনূসকে ভয় দেখানো হচ্ছে: যুক্তরাষ্ট্র
হুতিদের ওপর ফের হামলা যুক্তরাষ্ট্রের
এবার হুতিদের ওপর হামলা যুক্তরাষ্ট্র যুক্তরাজ্যের
ইরাক ও সিরিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের বিমান হামলায় নিহত ৩৯

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Dani Alvez jailed for 4 and a half years for sexual harassment

যৌন হেনস্তায় সাড়ে ৪ বছরের জেল দানি আলভেজের

যৌন হেনস্তায় সাড়ে ৪ বছরের জেল দানি আলভেজের বার্সার জার্সিতে স্প্যানিশ ক্লাব ও ব্রাজিল জাতীয় দলের সাবেক ফুটবলার দানি আলভেজ। ছবি: গোল ডটকম
বার্সেলোনার একটি নাইট ক্লাবের বাথরুমে ২০২২ সালের ৩১ ডিসেম্বর ভোরে নারীকে যৌন হেনস্তার অভিযোগ ছিল আলভেজের বিরুদ্ধে, যার প্রমাণ পায় আদালত। ওই নারীর অভিযোগ, আলভেজ তাকে ধর্ষণ করেছেন।

স্পেনের স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল কাতালোনিয়ার রাজধানী বার্সেলোনায় এক নারীকে যৌন হেনস্তার মামলায় ব্রাজিল জাতীয় দল ও বার্সেলোনার সাবেক ফুটবলার দানি আলভেজকে সাড়ে চার বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।

বার্সেলোনার একটি আদালতের তিন বিচারকের প্যানেল বৃহস্পতিবার এ রায় বলে দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

সংবাদমাধ্যমটির খবরে বলা হয়, মামলার বিচারের সময় ৪০ বছর বয়সী আলভেজ কোনো ধরনের অপরাধ করেননি বলে দাবি করেছেন। এ রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করতে পারবেন তিনি।

বার্সেলোনার একটি নাইট ক্লাবের বাথরুমে ২০২২ সালের ৩১ ডিসেম্বর ভোরে নারীকে যৌন হেনস্তার অভিযোগ ছিল আলভেজের বিরুদ্ধে, যার প্রমাণ পায় আদালত। ওই নারীর অভিযোগ, আলভেজ তাকে ধর্ষণ করেছেন।

মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলিরা আলভেজের ৯ বছর কারাদণ্ড চান, যেখানে মামলার বাদীর আইনজীবীরা ফুটবলারের ১২ বছরের কারাদণ্ডের আর্জি জানান। অন্যদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবীরা আলভেজের খালাস অথবা দোষী সাব্যস্ত হলে তাকে যেন এক বছরের কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার ইউরো জরিমানা করা হয়, সেই আবেদন করেছিলেন।

গত ২০ জানুয়ারি গ্রেপ্তারের পর থেকে কারাগারে রয়েছেন আলভেজ। তার জামিন আবেদন নাকচ করা হয়।

আরও পড়ুন:
ব্রাজিলে ভারি বর্ষণ, বন্যায় ৩৬ প্রাণহানি
ব্রাজিলে ভবন ধসে নিহত ১৪
ব্রাজিলে বছরের প্রথমার্ধে আমাজন উজাড়করণ কমেছে ৩৪%
সেনেগালের কাছে ৪-২ গোলে হারল ব্রাজিল
খেলায় হেরে যাওয়ায় হাসাহাসি, ৭ জনকে গুলি করে হত্যা

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Putin Monster Trudeau

পুতিন দানব: ট্রুডো

পুতিন দানব: ট্রুডো রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ও কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। ছবি: উইকিমিডিয়া কমন্স
কানাডার একদল ব্যবসায়ী নেতার সঙ্গে আলাপকালে ট্রুডো ‘মৌলিক স্বাধীনতা ও গণতন্ত্রের’ পক্ষে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে নাভালনির ‘অপরিসীম সাহসের’ প্রশংসা করেন।

ক্রেমলিন সমালোচক অ্যালেক্সেই নাভালনির মৃত্যুকে ‘ট্র্যাজেডি’ আখ্যা দিয়ে কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো শুক্রবার বলেছেন, এর মধ্য দিয়ে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের দানব রূপটি প্রকাশ পেয়েছে।

বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে জানানো হয়, রাষ্ট্রীয় সম্প্রচারমাধ্যম সিবিসিকে নাভালনির মৃত্যুর বিষয়ে ট্রুডো বলেন, ‘এটি ট্র্যাজেডি।’

তিনি বলেন, ‘এর মধ্য দিয়ে আসলে প্রমাণ হয় যে, রাশিয়ার জনগণের মুক্তির জন্য লড়াই করা যে কারও ওপর কতটা চড়াও হতে পারেন পুতিন। একই সঙ্গে এটি পুরো বিশ্বকে মনে করিয়ে দিয়েছে যে, পুতিন কেমন দানব।’

রাশিয়ার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ শুক্রবার জানায়, উত্তর মেরুর কারাগারে বন্দি ৪৭ বছর বয়সী নাভালনির আকস্মিক মৃত্যু হয়।

চলতি বছরের মার্চে অনুষ্ঠেয় নির্বাচনের মধ্য দিয়ে দুই দশকের ক্ষমতাকে দীর্ঘায়িত করতে পুতিনের চেষ্টার মধ্যে তার বিরোধী নাভালনির মৃত্যুর খবরটি প্রকাশ হয়।

কারিশম্যাটিক আইনজীবী নাভালনিকে রাশিয়ার শীর্ষ বিরোধীদলীয় নেতা হিসেবে অনেকে বিবেচনা করতেন। তাকেই বিরোধী একমাত্র রাজনীতিক মনে করা হতো যিনি বিপুল লোকসমাগমের পাশাপাশি ৭১ বছর বয়সী পুতিনকে টেক্কা দিতে পারতেন।

এদিকে কানাডার একদল ব্যবসায়ী নেতার সঙ্গে আলাপকালে ট্রুডো ‘মৌলিক স্বাধীনতা ও গণতন্ত্রের’ পক্ষে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে নাভালনির ‘অপরিসীম সাহসের’ প্রশংসা করেন।

আরও পড়ুন:
গাজায় দ্রুত যুদ্ধবিরতি চান পুতিন
রূপপুর পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র দৃঢ় সম্পর্কের প্রতীক: পুতিন
কিমের বাসায় দাওয়াত পেলেন ‘বন্ধু’ পুতিন
ঠিক হয়েছে বিমান, কানাডার পথে ট্রুডো
‘প্লেনের অভাবে’ ভারত থেকে বাড়ি যেতে পারছেন না ট্রুডো

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
No plans to attack Poland or Latvia Putin

পোল্যান্ড বা লাটভিয়ায় হামলার পরিকল্পনা নেই: পুতিন

পোল্যান্ড বা লাটভিয়ায় হামলার পরিকল্পনা নেই: পুতিন যুক্তরাষ্ট্রের রক্ষণশীল সাংবাদিক টাকার কার্লসনকে দেয়া সাক্ষাৎকারের একটি মুহূর্তে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। ছবি: রয়টার্স
সামরিক জোট ন্যাটোভুক্ত দেশ পোল্যান্ডে রুশ সেনা পাঠানোর কোনো পরিকল্পনা আছে কি না জানতে চাইলে পুতিন বলেন, পোল্যান্ড যদি রাশিয়ায় হামলা চালায়, তাহলে দেশটিতে সেনা পাঠানো হবে। এ ছাড়া পোল্যান্ড, লাটভিয়া কিংবা অন্য কোথাও হামলার পরিকল্পনা নেই রাশিয়ার।

রাশিয়া তার স্বার্থে লড়ে যাবে মন্তব্য করে দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন, ইউক্রেন যুদ্ধকে পোল্যান্ড কিংবা লাটভিয়া পর্যন্ত টেনে নেয়ার কোনো ইচ্ছা নেই তার।

যুক্তরাষ্ট্রের রক্ষণশীল সাংবাদিক টাকার কার্লসনকে দেয়া সাক্ষাৎকারে পুতিন এ কথা বলেন, যেটি প্রকাশ হয় বৃহস্পতিবার।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে জানানো হয়, ২০২২ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে রুশ হামলা শুরুর পর প্রথম কোনো আমেরিকান সাংবাদিককে সাক্ষাৎকার দেন পুতিন। এতে রুশ প্রেসিডেন্ট বলেন, পশ্চিমা নেতারা বুঝতে পেরেছেন যে, রাশিয়ার কৌশলগত পরাজয় অসম্ভব। পরবর্তী করণীয় নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বে রয়েছেন তারা।

টাকার কার্লসনের সঙ্গে মঙ্গলবার দুই ঘণ্টা ধরে প্রশ্নোত্তরে অংশ নেন পুতিন, যা দুই দিন পর প্রকাশ হয় টাকারকার্লসন ডটকমে।

রুশ প্রেসিডেন্ট বলেন, রাশিয়ায় বন্দি যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের সাংবাদিক ইভান গেরশকোভিচের মুক্তির জন্য একটি চুক্তিতে পৌঁছা সম্ভব বলে মনে করেন তিনি। রাশিয়ায় প্রায় এক বছর ধরে বন্দি গেরশকোভিচ, যিনি গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগের বিচার ‍শুরুর প্রতীক্ষায় আছেন।

সামরিক জোট ন্যাটোভুক্ত দেশ পোল্যান্ডে রুশ সেনা পাঠানোর কোনো পরিকল্পনা আছে কি না জানতে চাইলে পুতিন বলেন, পোল্যান্ড যদি রাশিয়ায় হামলা চালায়, তাহলে দেশটিতে সেনা পাঠানো হবে। এ ছাড়া পোল্যান্ড, লাটভিয়া কিংবা অন্য কোথাও হামলার পরিকল্পনা নেই রাশিয়ার।

আরও পড়ুন:
বাংলাদেশে ‘আরব বসন্তের উসকানি’ নিয়ে রাশিয়ার মন্তব্যে নীরব যুক্তরাষ্ট্র
পাঁচ লাখ নতুন সেনার প্রয়োজন: জেলেনস্কি
‘বাংলাদেশ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করছে না রাশিয়া’
যুক্তরাষ্ট্র জনগণের ইচ্ছায় সন্তুষ্ট না হলে বাংলাদেশে ‘আরব বসন্ত’র পরিস্থিতি হতে পারে: রাশিয়া
বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে রাশিয়া সবকিছু করবে: রাষ্ট্রদূত

মন্তব্য

p
উপরে