× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট

আন্তর্জাতিক
Sri Lanka needs বিল 5 billion to buy food and fuel for 6 months
hear-news
player
print-icon

৬ মাসের খাবার-জ্বালানি কিনতে শ্রীলঙ্কার দরকার ৫০০ কোটি ডলার

৬-মাসের-খাবার-জ্বালানি-কিনতে-শ্রীলঙ্কার-দরকার-৫০০-কোটি-ডলার
অর্থনৈতিকসহ নানা ধরনের সংকটে পড়েছে শ্রীলঙ্কা। ছবি: গেটি ইমেজ
দুই কোটির বেশি জনসংখ্যার দেশের এ বছর চলতে আমদানি করতে হবে ৩ দশমিক ৩ বিলিয়ন ডলারের জ্বালানি। এ ছাড়া খাবারের জন্য ৯০০ মিলিয়ন, কৃষিপণ্য উৎপাদনের জন্য ৬০০ মিলিয়ন আর রান্নার গ্যাস আমদানি করতে লাগবে ২৫০ মিলিয়ন ডলার।

অর্থনৈতিক সংকটে পড়ে বিপর্যস্ত হওয়া শ্রীলঙ্কায় এ বছর অর্থাৎ আগামী ছয় মাসের খাদ্য-জ্বালানিসহ নিত্যপণ্য সংগ্রহ করতে ৫০০ কোটি ডলার প্রয়োজন।

দেশটির প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহে পার্লামেন্টে এ কথা জানান বলে বুধবার এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম বিবিসি

এরই মধ্যে নানা দেশের আর্থিক সহায়তা চেয়েছে শ্রীলঙ্কা। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের সঙ্গেও আলোচনা চলছে। তবে সবমিলিয়ে অনিশ্চয়তা কাটতে বেশ সময় লাগবে দেশটির।

মঙ্গলবার দেশের আর্থিক সংকট নিয়ে পার্লামেন্টে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী ও একই সঙ্গে শ্রীলঙ্কার অর্থমন্ত্রীর দায়িত্বে থাকা রনিল।

তিনি বলেন, দুই কোটির বেশি জনসংখ্যার দেশের এ বছর চলতে আমদানি করতে হবে ৩ দশমিক ৩ বিলিয়ন ডলারের জ্বালানি। এ ছাড়া খাবারের জন্য ৯০০ মিলিয়ন, কৃষিপণ্য উৎপাদনের জন্য ৬০০ মিলিয়ন আর রান্নার গ্যাস আমদানি করতে লাগবে ২৫০ মিলিয়ন ডলার।

প্রধানমন্ত্রী রনিল বলেন, অনেক মানুষকেই না খেয়ে থাকতে হবে। তবে এরই মধ্যে আমরা কার্যক্রম শুরু করেছি। যাদের আয় নেই তারাও যেন অভুক্ত না থাকেন।

সম্প্রতি ভারতের এক্সিম ব্যাংক থেকে ৫৫ মিলিয়ন ডলার ঋণ পেয়েছে দ্বীপরাষ্ট্র শ্রীলঙ্কা। চীন থেকেও দেড় বিলিয়ন ডলার আসার কথা রয়েছে সে দেশে।

১৯৪৮ সালে ব্রিটিশরাজের কাছ থেকে স্বাধীনতা পাওয়ার পর সবচেয়ে ভয়াবহ অর্থনৈতিক সংকট মোকাবিলা করছে এশিয়ার এই দেশ।

দেশটিতে নিত্যপণ্যের আকাশছোঁয়া দামে বিপর্যস্ত জনজীবন। মূল্যস্ফীতি, দুর্বল সরকারি অর্থব্যবস্থা এবং করোনার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত অর্থনীতি এই বিপর্যয়ের অন্যতম কারণ।

লঙ্কান সরকারের অন্যতম রাজস্ব আয়ের খাত পর্যটনশিল্প ধসে পড়েছে, রেমিট্যান্স পৌঁছেছে তলানিতে। বিদেশি মুদ্রার সঞ্চয় বা রিজার্ভ নেমে এসেছে ২ বিলিয়ন ডলারে।

বৈদেশিক মুদ্রার অভাবে জ্বালানি আমদানি কমে যাওয়ায় স্মরণকালের ভয়াবহ সংকটে পড়া শ্রীলঙ্কায় দিনের অর্ধেক বা এর বেশি সময় চলছে লোডশেডিং; খাবার, ওষুধ এবং জ্বালানিসংকটে ক্ষোভ ভয়াবহ পর্যায়ে পৌঁছেছে।

গত কয়েক বছর শ্রীলঙ্কার রাজনীতি বেশ টালমাটাল ছিল। এই অবস্থায় দেশটির বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভ নাটকীয়ভাবে কমে এসেছে। ২০২০ সালে শুরুর দুই মাসে রিজার্ভ ৭০ শতাংশ কমে যায়।

প্রায় ৫১ বিলিয়ন ডলারের বৈদেশিক ঋণ মেটানোর জন্য রিজার্ভের ডলার বাঁচাতে ২০২০ সালের মার্চ থেকে বিভিন্ন পণ্য আমদানিতে নিষেধাজ্ঞা দেয় শ্রীলঙ্কা সরকার। এর পর থেকেই দেশটিতে সংকট বাড়তে থাকে।

সংকটের জন্য প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসে ও তার পরিবারের সদস্যদের দুর্নীতিকে দায়ী করেন বিক্ষোভকারীরা। এমন প্রেক্ষাপটে বিক্ষোভরতদের সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনী ও ক্ষমতাসীনদের সংঘর্ষ হয়েছে। এতে প্রাণ গেছে পুলিশ সদস্যসহ বেশ কয়েকজনের।

একপর্যায়ে প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজপাকসেকে ক্ষমতা ছাড়তে হয়। নতুন করে এই পদে আসেন রনিল বিক্রমাসিংহে। গঠন করা হয়েছে নতুন মন্ত্রিসভাও। তবে দেশটির সংকট কাটছেই না।

আরও পড়ুন:
শ্রীলঙ্কার মতো ঝুঁকিতে বাংলাদেশ নয়
হোটেল রুমে অতিথি ডেকে সফর শেষ লঙ্কান ব্যাটারের
শ্রীলঙ্কায় আরও ১০ মন্ত্রী নিয়োগ

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Pakistan is buying cheap Russian oil

সস্তায় রাশিয়ার তেল কিনছে পাকিস্তান

সস্তায় রাশিয়ার তেল কিনছে পাকিস্তান
অর্থনৈতিকসহ নানা সংকটে পড়েছে এশিয়ার দেশ পাকিস্তান। জ্বালানি আমদানিও বেড়েছে উল্লেখযোগ্য হারে। এমন পরিস্থিতিতে রাশিয়া ছাড়ে যে জ্বালানি বিক্রি করছে; তার সুযোগ নিতে চায় শাহবাজ শরিফের দেশ।

ইউক্রেনে হামলা শুরুর পর একের পর এক নিষেধাজ্ঞা এসেছে রাশিয়ার জ্বালানির ওপর; তবে উল্টো পথেও হেঁটেছে কেউ কেউ। সেই তালিকায় এবার যোগ হলো পাকিস্তানের নাম। সস্তায় রাশিয়ার তেল কেনার কথা ভাবছে এ দেশ।

এরই মধ্যে রাশিয়া থেকে তেল আমদানি নিয়ে পাকিস্তানের জ্বালানি মন্ত্রণালয় শিল্প বিশ্লেষকদের কাছে মত চেয়ে চিঠি পাঠিয়েছে বলে এক প্রতিবেদনে বুধবার জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম জিও টিভি

অর্থনৈতিকসহ নানা সংকটে পড়েছে এশিয়ার দেশ পাকিস্তান। জ্বালানি আমদানিও বেড়েছে উল্লেখযোগ্য হারে। এমন পরিস্থিতিতে রাশিয়া ছাড়ে যে জ্বালানি বিক্রি করছে; তার সুযোগ নিতে চায় শাহবাজ শরিফের দেশ।

এর আগে ভারত ও শ্রীলঙ্কাসহ অনেক দেশই রাশিয়ার তেল আমদানির ব্যাপারে আগ্রহ দেখায়। এর প্রভাব পড়েছে তেলসমৃদ্ধ দেশটির অর্থনৈতিক অবস্থার ওপর। যুদ্ধরত অবস্থাতেও জ্বালানি বিক্রি করে তাদের আয় বেড়েছে অনেক।

পাক-আরব শোধনাগারর ব্যবস্থাপনা পরিচালক, জাতীয় শোধনাগার এবং পাকিস্তানি শোধনাগারসহ সংশ্লিষ্টদের চিঠি পাঠিয়ে রাশিয়ার তেল আমদানি নিয়ে যৌক্তিক মত চেয়েছে পাক মন্ত্রণালয়।

জিও নিউজের এক অনুষ্ঠানে জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী মোসাদিক মালিক বলেন, সস্তায় রাশিয়া থেকে তেল কেনার কথা ভাবছে পাকিস্তান।

তিনি বলেন, রাশিয়া অমাদের কাছে অল্প দামে তেল বেচতে চায়। তবে ব্যাপারটি বিশ্লেষণ করে এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নেয়া হবে।

ইউক্রেনে হামলা শুরু করলে রাশিয়ার জ্বালানি খাত বড় ধাক্কার মুখে পড়ার শঙ্কা ছিল, তবে এই সুযোগ কাজে লাগিয়েছে ভারত-চীনের মতো দেশ। তবে ছাড়ে পাওয়া বেশি পরিমাণ তেল কিনে নিয়েছে চীন।

পূর্ব ইউক্রেনের রুশপন্থি বিদ্রোহীদের দুই অঞ্চল দোনেৎস্ক ও লুহানস্ককে গত ফেব্রুয়ারিতে স্বাধীন রাষ্ট্রের স্বীকৃতি দেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। ২০১৪ সাল থেকে এ অঞ্চলের বিচ্ছিন্নতাবাদীরা স্বাধীনতার জন্য লড়াই শুরু করেন।

এমন প্রেক্ষাপটে বেশ কিছুদিন সীমান্তে সেনা মোতায়েন রেখে ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরুর ঘোষণা দেন পুতিন। এর পর থেকেই পশ্চিমাদের বাধা উপেক্ষা করে পূর্ব ইউরোপের দেশটিতে চলছে রুশ সেনাদের সামরিক অভিযান।

বাসিন্দাদের রক্ষা করার জন্যই এমন সামরিক পদক্ষেপ বলে দাবি করে আসছে রাশিয়া। ইউক্রেনের পক্ষ থেকে বলা হয়, সম্পূর্ণ বিনা উসকানিতে রাশিয়া হামলা চালিয়েছে। দেশটি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে সাহায্যের আবেদন জানিয়ে আসছে।

ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলা শুরুর পর থেকে এখন পর্যন্ত দেশটির ৮০ লাখের বেশি মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে। একই সঙ্গে দেশ ছেড়েছে প্রায় ৫০ লাখ মানুষ। যুদ্ধের প্রভাবে বিশ্বজুড়ে জ্বালানি তেলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় অনেক পণ্যের দাম বেড়ে গেছে। এ যুদ্ধ বন্ধ না হলে বিশ্বজুড়ে বড় ধরনের খাদ্যসংকট তৈরি হবে বলে আশঙ্কা করছেন বিশ্লেষকরা।

আরও পড়ুন:
জনগণকে চা পান কমানোর পরামর্শ পাকিস্তানি মন্ত্রীর
বেলুচিস্তানে চীনা নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের আহ্বান বেইজিংয়ের

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The United Nations has called for the release of Zubair Teesta

জুবায়ের তিস্তাকে মুক্তি দেয়ার আহ্বান জাতিসংঘের

জুবায়ের তিস্তাকে মুক্তি দেয়ার আহ্বান জাতিসংঘের জুবায়ের ও তিস্তাকে গ্রেপ্তারের উদ্বেগ জানিয়েছে জাতিসংঘ। ছবি: সংগৃহীত
জাতিসংঘ সদরদপ্তরে সংবাদ সম্মেলনে জুবায়েরকে গ্রেপ্তারের বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে স্টিফেন দুজেরিক বলেন, ‘জনগণকে কোনো হয়রানির হুমকি ছাড়াই স্বাধীনভাবে নিজের মত প্রকাশের অনুমতি দেয়া গুরুত্বপূর্ণ।’

ভারতে সাম্প্রতিক সময়ে সাংবাদিক, সমাজকর্মী গ্রেপ্তারের বিষয়ে জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেসের মুখপাত্র স্টিফেন দুজারিক বলেন, ‘সাংবাদিকরা যা লেখেন, যা টুইট করেন এবং যা বলেন তার জন্য জেলে যাওয়া উচিত নয়।‘

জাতিসংঘ সদরদপ্তরে দৈনিক সংবাদ সম্মেলনে ভারতের অল্টনিউজের সহপ্রতিষ্ঠাতা মোহাম্মদ জুবায়েরকে গ্রেপ্তারের বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে স্টিফেন বলেন, ‘জনগণকে কোনো হয়রানির হুমকি ছাড়াই স্বাধীনভাবে নিজের মত প্রকাশের অনুমতি দেয়া গুরুত্বপূর্ণ।’

অল্ট নিউজের সহপ্রতিষ্ঠাতা প্রতীক সিন্হা জানান, ২০২০ সালে একটি অন্য মামলায় জুবায়েরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকা হয়। যে মামলায় আদালত ইতোমধ্যে তাকে যাতে গ্রেপ্তার করা না হয় তার নির্দেশ দিয়েছে। কিন্তু তাকে অন্য একটি মামলায় সোমবার গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

পুলিশের দাবি, যথেষ্ট তথ্যপ্রমাণ হাতে নিয়েই জুবায়েরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তারের পর তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। রিমান্ড চেয়ে মঙ্গলবার জুবায়েরকে আদালতে তোলা হবে।

অল্ট নিউজ একটি অলাভজনক ‘ফ্যাক্ট চেকিং’ সংবাদমাধ্যম। এই ওয়েবসাইটে মূলত খবরের সত্য-মিথ্যাকে বিশ্লেষণ এবং যাচাই করে প্রকাশ করা হয়। অল্ট নিউজের প্রতিষ্ঠাতা প্রতীক আর জুবের।

জুবায়েরকে গ্রেপ্তারের দুই দিন আগে, গ্রেপ্তার করা হয় তিস্তা সেতালবাদকে। সমাজকর্মী তিস্তার বিরুদ্ধে অভিযোগ হলো, ২০০২ সালে গুজরাট দাঙ্গায় অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র, জালিয়াতি ও আদালতে নিরপরাধ ব্যক্তিদের হেনস্তা করতে মিথ্যা প্রমাণ দেয়ার অভিযোগে তাকে আটক করা হয়।

জাতিসংঘের মানবাধিকার সংস্থা তিস্তা সেতালভাদের গ্রেপ্তারের বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে এবং অবিলম্বে তার মুক্তি দাবি করেছে।

আরও পড়ুন:
শুভেন্দুর গ্রেপ্তার দাবি
ভারতে AltNews-এর প্রতিষ্ঠাতা গ্রেপ্তার
চলন্ত গাড়িতে মা-মেয়েকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ
রোহিত শর্মার করোনা
তিস্তাকে গ্রেপ্তার করল ভারতের পুলিশ

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Mamata calls for maintaining peace in Udaipur

উদয়পুরের ঘটনায় শান্তি বজায় রাখার আহ্বান মমতার

উদয়পুরের ঘটনায় শান্তি বজায় রাখার আহ্বান মমতার পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। ছবি: সংগৃহীত
বিজেপি নেত্রী নূপুর শর্মাকে সমর্থন করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট করায় রাজস্থানের উদয়পুরে এক দর্জিকে শিরোচ্ছেদ করা হয়েছে। এ ঘটনায় ভারতজুড়ে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে সবাইকে শান্তি বজায় রাখার আহ্বান জানিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

ভারতজুড়ে আলোড়ন তোলা উদয়পুরের হত্যাকাণ্ডের তীব্র নিন্দা জানিয়ে দেশবাসীকে শান্তি বজায় রাখার আহ্বান জানিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

বুধবার সকালে এক টুইটবার্তায় তিনি বলেন, ‘সহিংসতা ও উগ্রপন্থা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। উদয়পুরে যা ঘটেছে, আমি তার তীব্র নিন্দা করছি । আইন যা করার করবে। আমি সকলকে শান্তি বজায় রাখার আর্জি জানাচ্ছি।’

বিজেপি নেত্রী নুপূর শর্মার হজরত মুহাম্মদ (স.)-কে নিয়ে করা মন্তব্যকে সমর্থন জানিয়ে মঙ্গলবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি পোস্ট দিয়েছিলেন রাজস্থানের উদয়পুরে কানহাইয়া লাল নামের এক দর্জি।

নুপূর শর্মাকে সমর্থন করায় ক্ষিপ্ত হয়ে কানহাইয়ার শিরোচ্ছেদ করেন মোহাম্মদ রিয়াজ আখতার ও মোহাম্মদ গোশ নামের দুই যুবক।

এই ঘটনার পুরোটাই ভিডিও ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও পোস্ট করেন তারা। সেই ভিডিওতে তারা বিজেপি নেত্রী নূপুর শর্মার শিরোচ্ছেদের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীকেও খুনের হুমকি দেন তারা।

এমন পরিস্থিতিতে রাজস্থানজুড়ে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। এরই মধ্যে রাজ্যটিতে ইন্টারনেট সেবা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। ১ মাসের জন্য জারি করা হয়েছে ১৪৪ ধারা।

এক টুইটে রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট বলেন, ‘আমি উদয়পুরে এক যুবকের জঘন্য হত্যার নিন্দা জানাচ্ছি। এ ঘটনায় জড়িত সব অপরাধীর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। পুলিশ অপরাধের তলানিতে যাবে।

‘আমি সব পক্ষকে শান্তি বজায় রাখার আহ্বান জানাই। এ ধরনের জঘন্য অপরাধের সঙ্গে জড়িত প্রত্যেককে কঠোরতম শাস্তি দেয়া হবে। এই পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেয়া উচিত।’

আরও পড়ুন:
ভারতে AltNews-এর প্রতিষ্ঠাতা গ্রেপ্তার
চলন্ত গাড়িতে মা-মেয়েকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ
রোহিত শর্মার করোনা
তিস্তাকে গ্রেপ্তার করল ভারতের পুলিশ
মা ‘অঙ্গনওয়াড়ি’ কর্মী, ছেলের দুই কোটি টাকার চাকরি

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Mamata protested the arrest of Zubair and Teesta

জুবায়ের ও তিস্তাকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদ মমতার

জুবায়ের ও তিস্তাকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদ মমতার সাংবাদিক মোহাম্মদ জুবায়ের ও সমাজকর্মী তিস্তা শেতলবাদ। ছবি: সংগৃহীত
বিজেপি নেতৃত্বকে আক্রমণ করে মমতা বলেন, ‘যখন আপনাদের নেতারা ধর্ম নিয়ে মিথ্যা বলেন, ঘৃণা ছড়ান, তাদের গ্রেপ্তার করেন না। জুবায়ের ও তিস্তাকে কেন গ্রেপ্তার করলেন? ওরা কী করেছেন? গোটা দুনিয়া এর নিন্দা করছে।’

ভারতের জনপ্রিয় ফ্যাক্ট-চেকিং ওয়েবসাইট AltNews-এর প্রতিষ্ঠাতা সাংবাদিক মোহাম্মদ জুবায়ের ও সমাজকর্মী তিস্তা শেতলবাদকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদ জানিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

কেন্দ্রীয় সরকারের সমালোচনা করে তিনি বলেছেন, ‘বিজেপি একটি অপদার্থ দল।’

আসানসোলে মঙ্গলবার এক কর্মিসভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এ কথা বলেন।

বিজেপি নেতৃত্বকে আক্রমণ করে মমতা বলেন, ‘যখন আপনাদের নেতারা ধর্ম নিয়ে মিথ্যা বলেন, ঘৃণা ছড়ান, তখন আপনারা তাদের গ্রেপ্তার করেন না। আর আমরা কথা বললে খুনি বানিয়ে দেন। জুবায়েরকে কেন গ্রেপ্তার করলেন? তিস্তাকে কেন গ্রেপ্তার করা হয়েছে? ওরা কী করেছেন? গোটা দুনিয়া এর নিন্দা করছে।’

AltNews-এর প্রতিষ্ঠাতা মোহাম্মদ জুবায়েরকে সোমবার গ্রেপ্তার করে দিল্লি পুলিশ। সংবাদমাধ্যমে ও সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচারিত বিভিন্ন খবরকে ভুল প্রমাণ করে দিয়েছেন এই জুবায়ের। দিল্লি পুলিশের তরফে বলা হয়, দিল্লি পুলিশের স্পেশাল সেলে জুবায়েরের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে। তার ভিত্তিতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এর আগে শনিবার গ্রেপ্তার করা হয় সমাজকর্মী তিস্তা শেতলবাদকে। গুজরাট দাঙ্গা নিয়ে মিথ্যা তথ্য দেয়ার অভিযোগে গুজরাট এটিএস মুম্বাইয়ের বাসভবন থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে।

মহানবীকে (সা.) নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করা বিজেপি নেত্রী নূপুর শর্মার নাম উল্লেখ না করে তৃণমূল নেত্রী বলেন, ‘আমি নাম নেব না। আমরা নাম নিতে চাই না। কিন্তু যারা ধর্ম তুলে গালাগালি করেন, তাদের আপনারা গ্রেপ্তার করেন না কেন? তবে আমাদের সরকার তাকে সমন পাঠিয়েছে। আমরা ছাড়ব না।’

আরও পড়ুন:
জি-৭ বিবৃতি ও টুইটারের তথ্যে মোদি সরকারের দ্বিচারিতা
নোবেল শান্তি পুরস্কারের সম্ভাব্য তালিকায় AltNews-এর জুবায়ের
শুভেন্দুর গ্রেপ্তার দাবি
ভারতে AltNews-এর প্রতিষ্ঠাতা গ্রেপ্তার
চলন্ত গাড়িতে মা-মেয়েকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Tailor murder in Rajasthan Section 144 for taking the side of that anklet

সেই নূপুরের পক্ষ নেয়ায় রাজস্থানে দর্জি খুন, ১৪৪ ধারা

সেই নূপুরের পক্ষ নেয়ায় রাজস্থানে দর্জি খুন, ১৪৪ ধারা   নূপুর ইস্যুতে রাজস্থানে এক দর্জিকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। ছবি: সংগৃহীত
পুলিশ জানিয়েছে, অভিযুক্ত দুজন কানহাইয়ালাল নামে পরিচিত এক দর্জির সঙ্গে কাপড়ের মাপ দেয়ার কথা বলে দেখা করেছিলেন। তাদের একজনের করা একটি ভিডিওতে দেখা যায়, দর্জি এক ব্যক্তির মাপ নিচ্ছেন। কিছুক্ষণ পর ব্যক্তিটি একটি ক্লেভার বের করে দর্জির ঘাড়ে আঘাত করেন। এমন সময় দর্জিকে বলতে শোনা যায়, ‘কেয়া হুয়া বাতাও তো সাহি (কী হয়েছে? আমাকে বলুন!)’

ভারতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মহানবীকে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্যের জেরে ক্ষমতাসীন বিজেপির বহিষ্কৃত মুখপাত্র নূপুর শর্মার পক্ষে স্ট্যাটাস দিয়ে খুন হয়েছেন এক ব্যক্তি। এ ঘটনায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে দুজনকে। তাদের রাজসমন্দ জেলা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

রাজস্থানের উদয়পুরে মঙ্গলবার এ ঘটনা ঘটে। নিহত ব্যক্তি পেশায় দর্জি। তার শিরোশ্ছেদ করা হয়।

এক টেলিভিশন বিতর্কে গত মাসের শেষ দিকে মহানবীকে নিয়ে নূপুর শর্মা এমন এক মন্তব্য করেন, যা ভারতের মুসলিমদের পাশাপাশি গোটা মুসলিম বিশ্বকে চরম ক্ষুব্ধ করে। বাধ্য হয়ে তাকে মুখপাত্রের পদ থেকে বহিষ্কার করে বিজেপি। জোরদার করা হয় তার নিরাপত্তা।

মঙ্গলবারের ঘটনায় শহরজুড়ে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। রাজস্থানজুড়ে ২৪ ঘণ্টার জন্য ইন্টারনেট পরিষেবা স্থগিত রাখা হয়েছে। রাজ্যজুড়ে জারি হয়েছে এক মাসের ১৪৪ ধারা।

এডিজি ’ল অ্যান্ড অর্ডার হাওয়া সিং ঝুমারিয়া বলেছেন, ‘জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের সঙ্গে ৬০০ পুলিশ সদস্যকে উদয়পুরে পাঠানো হচ্ছে। রাজস্থান সতর্ক অবস্থায় রয়েছে।’

পুলিশ জানিয়েছে, অভিযুক্ত দুজন কানহাইয়ালাল নামে পরিচিত এক দর্জির সঙ্গে কাপড়ের মাপ দেয়ার কথা বলে দেখা করেছিলেন। তাদের একজনের করা একটি ভিডিওতে দেখা যায়, দর্জি এক ব্যক্তির মাপ নিচ্ছেন। কিছুক্ষণ পর ব্যক্তিটি একটি ক্লেভার বের করে দর্জির ঘাড়ে আঘাত করেন। এমন সময় দর্জিকে বলতে শোনা যায়, ‘কেয়া হুয়া বাতাও তো সাহি (কী হয়েছে? আমাকে বলুন!)’

দ্বিতীয় ভিডিওতে দেখা যায়, একজন নিজেকে মোহাম্মদ রিয়াজ বলে পরিচয় দেন, অন্যজন তার বন্ধু। এই ‘শিরোশ্ছেদ’ নিয়ে গর্ব করতে দেখা যায়। পরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির প্রতি ‘একটি সতর্কবাণী’ দেন তারা।

সেই নূপুরের পক্ষ নেয়ায় রাজস্থানে দর্জি খুন, ১৪৪ ধারা
নূপুর শর্মা ২০১৫ সালে দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন। ছবি: সংগৃহীত

এক টুইটে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট বলেন, ‘আমি উদয়পুরে এক যুবকের জঘন্য হত্যার নিন্দা জানাচ্ছি। এ ঘটনায় জড়িত সব অপরাধীর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। পুলিশ অপরাধের তলানিতে যাবে।

‘আমি সব পক্ষকে শান্তি বজায় রাখার আহ্বান জানাই। এ ধরনের জঘন্য অপরাধের সঙ্গে জড়িত প্রত্যেককে কঠোরতম শাস্তি দেয়া হবে। এই পরিস্থিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেয়া উচিত।’

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এই ঘটনার ভিডিও ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে গেহলট বলেন, ‘এসব ভিডিও শেয়ার না করার আহ্বান জানাচ্ছি। শেয়ার করলে অপরাধীদের সমাজে ঘৃণা ছড়ানোর উদ্দেশ্য সফল হবে।’

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
19 killed in building collapse in Mumbai

মুম্বাইয়ে চারতলা ভবনধসে ১৯ জনের মৃত্যু

মুম্বাইয়ে চারতলা ভবনধসে ১৯ জনের মৃত্যু  মুম্বাইয়ের কুর্লার নায়েকনগর সোসাইটির একটি আবাসিক ভবন সোমবার রাতে ধসে পড়ে। ছবি: সংগৃহীত
বৃহন্মুম্বাই মিউনিসিপ্যাল ​​করপোরেশন (বিএমসি) জানায়, ধ্বংসাবশেষ থেকে বেশ কয়েকজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হয়। ঘাটকোপারের রাজাওয়াদি হাসপাতালে আনাদের মধ্যে ২৮ ও ৩০ বছর বয়সী দুজন পুরুষকে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ভারতের বাণিজ্যিক নগরী মুম্বাইয়ে ভবনধসে মৃত বেড়ে হয়েছে ১৯। আহত আছেন ছয়জন। স্থানীয় সময় সোমবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে কুর্লার নায়েকনগর সোসাইটির একটি আবাসিক ভবনে এ দুর্ঘটনা ঘটে

ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকা পড়াদের উদ্ধারে জোর তৎপরতা চালাচ্ছে ফায়ার সার্ভিস ও জাতীয় দুর্যোগ প্রতিক্রিয়া তহবিল দল।

বৃহন্মুম্বাই মিউনিসিপ্যাল ​​করপোরেশন (বিএমসি) জানায়, ধ্বংসাবশেষ থেকে বেশ কয়েকজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হয়। ঘাটকোপারের রাজাওয়াদি হাসপাতালে আনাদের মধ্যে ২৮ ও ৩০ বছর বয়সী দুজন পুরুষকে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

শিবসেনা নেতা আদিত্য ঠাকরে সোমবার রাতেই ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার অভিযানের দেখভাল করেন।

মহারাষ্ট্রের মন্ত্রী সুভাষ দেশাই জানিয়েছেন, নিহতদের পরিবারকে প্রত্যেককে ৫ লাখ রুপি এবং আহতদের বিনা মূল্যে চিকিৎসা দেয়া হবে।

তিনি বলেন, ‘মৃতদের পরিবারকে ৫ লাখ রুপি এবং আহতদের বিনা মূল্যে চিকিৎসা দেয়া হবে। ঘটনার তদন্ত করে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ধরনের ঘটনা যেন আর না ঘটে, সে জন্য বৈঠক ডাকা হয়েছে।’

সাবেক স্থানীয় করপোরেটর প্রবীনা মোরাজকার বলেন, ‘ভবনের বাসিন্দাদের এবং এলাকার অন্য তিনজনকে ভবনটি খালি করার জন্য নোটিশ দেয়া হয়েছিল। তবে যারা ভাড়ায় থাকছিলেন তারা চলে যাননি।’

ভবনের মালিক কে এখনও তা জানা যায়নি বলে জানান তিনি।

মুম্বাইয়ে চারতলা ভবনধসে ১৯ জনের মৃত্যু
ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকা পড়াদের উদ্ধারে জোর তৎপরতা চালাচ্ছে ফায়ার সার্ভিস ও জাতীয় দুর্যোগ প্রতিক্রিয়া তহবিল দল। ছবি: সংগৃহীত

বিএমসির অতিরিক্ত কমিশনার অশ্বিনী ভিদে বলেন, ‘ধসে পড়া ভবনটি জরাজীর্ণ ছিল। ২০১৩ সাল থেকে প্রথমে মেরামত, পরে ভবনটি ভেঙে ফেলার নোটিশ দেয়া হয়েছিল।’

এএনআইয়ের সঙ্গে কথা বলার সময় ঠাকরে বলেছিলেন, ‘যখনই বিএমসি নোটিশ জারি করে, তখনই (বিল্ডিংগুলো) নিজেদের খালি করে দেয়া উচিত। অন্যথায় এ ধরনের ঘটনা ঘটে, যা দুর্ভাগ্যজনক। এখন এই বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়া গুরুত্বপূর্ণ।

‘সবাইকে উদ্ধার করাই ছিল অগ্রাধিকার। এরপর এই ভবনগুলো সরিয়ে নেয়া বা ভেঙে ফেলার দিকে নজর দেব। এতে আশপাশের মানুষ সমস্যায় পড়বে না।’

ঘটনাস্থলে ধারণ করা ভিডিওগুলোতে দেখা যায়, উদ্ধারকর্মীরা ভবনের অবশিষ্টাংশগুলোতে ছাপিয়ে বেড়াচ্ছেন। ধ্বংসাবশেষের নিচে অন্তত চারজনের চাপা পড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এনসিপি নেতা সুপ্রিয়া সুলে বলেন, “ভবনধসের কারণে ‘জীবনের ক্ষতিতে অত্যন্ত দুঃখিত।”

প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে, ওই সময় ভবনটিতে অন্তত ২১ জন ছিলেন।

চলতি মাসে মুম্বাইয়ে এটি তৃতীয় বড় ভবনধসের ঘটনা।

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Private vehicles shut down in Sri Lanka

শ্রীলঙ্কায় ব্যক্তিগত যানবাহনে জ্বালানি বন্ধ

শ্রীলঙ্কায় ব্যক্তিগত যানবাহনে জ্বালানি বন্ধ নিরাপত্তা বাহিনীর একজন সদস্য কলম্বোর একটি জ্বালানি স্টেশনের বাইরে পাহারা দিচ্ছেন। ছবি: এএফপি
চরম অর্থনৈতিক মন্দায় ধুঁকতে থাকা ভারত মহাসাগরের দ্বীপরাষ্ট্রটির শহুরে অঞ্চলের স্কুলগুলো বন্ধ হয়ে গেছে। দেশের দুই কোটি ২০ লাখ নাগরিককে ঘর থেকে কাজ করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

কয়েক দশকের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ অর্থনৈতিক সংকটের মুখোমুখি হওয়ায় অ-প্রয়োজনীয় যানবাহনের জন্য জ্বালানি বিক্রি স্থগিত করেছে শ্রীলঙ্কা। আগামী দুই সপ্তাহের জন্য কেবল বাস, ট্রেন, চিকিৎসা পরিষেবা এবং খাদ্য পরিবহনের জন্য ব্যবহৃত যানবাহনগুলো জ্বালানি নিতে পারবে

চরম অর্থনৈতিক মন্দায় ধুঁকতে থাকা ভারত মহাসাগরের দ্বীপরাষ্ট্রটির শহুরে অঞ্চলের স্কুলগুলো বন্ধ হয়ে গেছে। দেশের ২ কোটি ২০ লাখ নাগরিককে ঘর থেকে কাজ করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশটি একটি বেলআউট চুক্তি নিয়ে আলোচনায় রয়েছে। এটি জ্বালানি এবং খাদ্যের মতো আমদানির জন্য অর্থ প্রদানের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

গ্যাস ও তেল প্রতিষ্ঠান ইনভেস্টেকের প্রধান গবেষক নাথান পাইপার বলেন, ‘শ্রীলঙ্কা হলো প্রথম দেশ, যারা ১৯৭০-এর দশকের তেল সংকটের পর এই প্রথম সাধারণ মানুষের কাছে জ্বালানি বিক্রি বন্ধ করার কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছে।

‘শ্রীলঙ্কার তেলের মূল্য বৃদ্ধি এবং সীমিত বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভকে টার্গেট করেই এই নিষেধাজ্ঞা।’

দ্বীপরাষ্ট্রটির অনেক বাসিন্দাই জানেন না, কীভাবে জ্বালানি সংকট মোকাবিলা করবে তারা। সাম্প্রতিক মাসগুলোতে শ্রীলঙ্কাজুড়ে ফিলিং স্টেশনগুলোতে দীর্ঘ সারি দেখা গেছে।

কলম্বোর ২৯ বছরের ট্যাক্সিচালক চিনথাকা কুমারা বলেন, ‘এ পদক্ষেপ জনগণের জন্য আরও সমস্যা তৈরি করবে।

‘আমি একজন দৈনিক মজুরি উপার্জনকারী। আমি তিন দিন ধরে এই সারিতে রয়েছি। কখন পেট্রোল পাব, জানি না।’

দুষ্প্রাপ্য জ্বালানি মজুত রেশন করার লক্ষ্যে টোকেন বিতরণ করে চালকদের এখন বাড়ি যেতে বলা হয়েছে। অনেককেই ফিরতে হয়েছে টোকেন ছাড়া।

শ্রীলঙ্কায় ব্যক্তিগত যানবাহনে জ্বালানি বন্ধ

৫২ বছরের বেসরকারি খাতের নির্বাহী এস উইজেতুঙ্গা বলেন, ‘আমি দুই দিন লাইনে ছিলাম। একটা টোকেন পেয়েছি, ১১ নম্বর। তবে কখন জ্বালানি পাব তা আমি জানি না।

‘আমাকে এখন অফিসে যেতে হবে। তাই আমার গাড়িটি এখানে রেখে থ্রি-হুইলারে যাওয়া ছাড়া আমার আর কোনো উপায় নেই।’

অর্থনৈতিক সংকট তীব্র

মহামারি, ক্রমবর্ধমান জ্বালানির দাম এবং জনতাবাদী করের ঘাটতির কারণে শ্রীলঙ্কায় প্রয়োজনীয় পণ্য আমদানির জন্য পর্যাপ্ত বৈদেশিক মুদ্রার অভাব দেখা দিয়েছে।

জ্বালানি, খাদ্য, ওষুধের তীব্র ঘাটতি জীবনযাত্রার ব্যয়কে রেকর্ড উচ্চতায় ঠেলে দিয়েছে। পর্যটননির্ভর অর্থনীতির দেশটির অনেক মানুষ জীবিকার জন্য মোটরগাড়ির ওপর নির্ভর করে।

গত সোমবার দেশটির সরকার জানায়, ১০ ​​জুলাই পর্যন্ত পেট্রোল এবং ডিজেল কেনা থেকে ব্যক্তিগত যানবাহন নিষিদ্ধ থাকবে।

মন্ত্রিপরিষদের মুখপাত্র বন্দুলা গুনেবর্দেনা বলেন, ‘শ্রীলঙ্কার ইতিহাসে এত বড় অর্থনৈতিক সংকটের সম্মুখীন আগে হয়নি।’

নগদ অর্থের সংকটে থাকা দেশটি সস্তায় তেল সরবরাহ নিশ্চিতের লক্ষ্যে রাশিয়া এবং কাতারের সঙ্গে আলোচনা চালানোর চেষ্টায় আছে।

সপ্তাহান্তে সরকার বলেছিল, আগামী দিনে প্রয়োজনীয় পরিষেবাগুলোতে জ্বালানি দেয়ার জন্য মাত্র ৯ হাজার টন ডিজেল এবং ৬ হাজার টন পেট্রোল রয়েছে।

বিদ্যুৎ ও জ্বালানিমন্ত্রী কাঞ্চনা উইজেসেকেরা বলেন, ‘আমরা নতুন স্টক পাওয়ার জন্য যা যা করতে পারি তা করছি। তবে আমরা জানি না তা কখন হবে।’

অক্সফোর্ড ইকোনমিক্সের জ্যেষ্ঠ অর্থনীতিবিদ অ্যালেক্স হোমস বলেন, “জ্বালানি নিষেধাজ্ঞাগুলো একটি ক্রমবর্ধমান সংকটের আরেকটি ছোট লক্ষণ।”

“গতিশীলতা ইতোমধ্যেই গুরুতরভাবে সীমিত বলে মনে হচ্ছে। কারণ লোকজনকে জ্বালানির জন্য দীর্ঘ লাইনে অপেক্ষা করতে হচ্ছে। তবে ব্যক্তিগত যানবাহনের জন্য সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা অর্থনৈতিক যন্ত্রণা আরও বাড়িয়ে তুলবে।”

গত মে মাসে দেশটি ইতিহাসে প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক ঋণদাতাদের কাছে খেলাপি হয়েছে। এই অবস্থায় প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসের সরকারের বিরুদ্ধে চলছে বিক্ষোভ। তার ভাই মাহিন্দা প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ করলেও, এখন সেই চাপে আছেন প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া।

শ্রীলঙ্কায় ব্যক্তিগত যানবাহনে জ্বালানি বন্ধ

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের একটি দল ৩ বিলিয়ন ডলারের বেলআউট চুক্তি নিয়ে আলোচনার জন্য গত সপ্তাহে শ্রীলঙ্কায় পৌঁছেছে।

সরকার নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য আমদানিতে ভারত ও চীনের সহায়তাও চাইছে। নতুন প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহে চলতি মাসের শুরুতে বলেছিলেন, ‘খাদ্য, জ্বালানি এবং সারের মতো প্রয়োজনীয় পণ্যগুলোর জন্য আগামী ছয় মাসে শ্রীলঙ্কার কমপক্ষে ৫ বিলিয়ন ডলার প্রয়োজন।’

মন্ত্রীরাও সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে কৃষকদের আরও ধান চাষ করার আহ্বান জানিয়েছেন। ঘাটতির আশঙ্কার মধ্যে সরকারি কর্মকর্তাদের খাদ্য উৎপাদন বাড়াতে সপ্তাহে অতিরিক্ত এক দিন ছুটি দিয়েছে সরকার

সরকার সংকটের জন্য কোভিড মহামারিকে দায়ী করছে। শ্রীলঙ্কার পর্যটন বাণিজ্যকে ব্যাপক প্রভাবিত করেছে করোনা। এটি দেশটির অন্যতম বৃহত্তম বৈদেশিক মুদ্রা উপার্জনকারী খাত। তবে অনেক বিশেষজ্ঞ বলছেন, অব্যবস্থাপনাই অর্থনৈতিক পতনের প্রধান কারণ।

রপ্তানির চেয়ে অনেক বেশি আমদানি করেছে শ্রীলঙ্কা। বিতর্কিত অবকাঠামো প্রকল্পের জন্য চীনের সঙ্গে বড় অঙ্কের ঋণও তুলেছে। আর এসব কারণে শ্রীলঙ্কার বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ তলানিতে পৌঁছায়।

২০২১ সালের প্রথম দিকে যখন শ্রীলঙ্কার বৈদেশিক মুদ্রার ঘাটতি একটি গুরুতর সমস্যা হয়ে ওঠে, তখন সরকার রাসায়নিক সারের আমদানি নিষিদ্ধ করে বহিঃপ্রবাহকে সীমিত করার চেষ্টা করেছিল। কৃষকদের স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত জৈব সার ব্যবহার করতে বলা হয় সরকারের পক্ষ থেকে।

এতে ব্যাপক ফসল নষ্ট হয়। শ্রীলঙ্কাকে বিদেশ থেকে খাদ্য মজুত সম্পূরক করতে হয়েছিল, যা বৈদেশিক মুদ্রার ঘাটতিকে আরও খারাপ করে তুলেছিল।

আরও পড়ুন:
দ্বিতীয় টেস্টে লঙ্কা দলে চামিকা ও সান্দাকান
শানাকার জায়গায় লঙ্কার অধিনায়ক ম্যাথিউস
শ্রীলঙ্কার নতুন টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক শানাকা
স্পিনাররা জেতালেন ইংল্যান্ডকে
টেস্ট ইতিহাসে প্রথম!

মন্তব্য

p
উপরে