× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট

আন্তর্জাতিক
Who shot dead journalist Shirin?
hear-news
player
print-icon

সাংবাদিক শিরিনের মৃত্যু কার গুলিতে?

সাংবাদিক-শিরিনের-মৃত্যু-কার-গুলিতে?
যে স্থানে গুলিবিদ্ধ হন শিরিন আবু আকলেহ সেখানে পোর্ট্রেট রেখে বিশেষ প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়। ছবি: এএফপি
শিরিন হত্যার পর ধারণ করা একটি ভিডিওর প্রাথমিক ফরেনসিক অডিও বিশ্লেষণে দেখা যাচ্ছে, বন্দুকের গোলাগুলি প্রায় ১৭৭ থেকে ১৮৪ মিটার দূরে শুরু হয়। ধারণা করা হচ্ছে যে অস্ত্র ও গুলি ব্যবহার করা হয়েছে তা ওই এলাকায় আইডিএফ ও সশস্ত্র ফিলিস্তিনিদের ব্যবহৃত অস্ত্রের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ।

আল জাজিরায় কাজ করা ফিলিস্তিনি-আমেরিকান সাংবাদিক শিরিন আবু আকলেহ পশ্চিম তীরের ফিলিস্তিনি শহর জেনিন থেকে রিপোর্ট করার সময় ১১ মে সকালে মাথায় গুলির আঘাতে নিহত হন। তিনি সে সময় ইসরায়েলি ডিফেন্স ফোর্সের (আইডিএফ) একটি অভিযান কভার করছিলেন। ক্রমবর্ধমান অস্থিতিশীলতার মাঝে এটি ছিল জেনিনে ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী পরিচালিত কয়েকটি অভিযানের অন্যতম। আইডিএফের কয়েকটি অভিযানে প্রাণহানির ঘটনাও ঘটেছে।

সাংবাদিক শিরিন হত্যার পরের ঘটনার ভিডিও দ্রুত সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে। তিনি গুলিবিদ্ধ হওয়ার পর বিশৃঙ্খল মুহূর্তগুলো দেখা যায় ভিডিওতে। দেখা গেছে, অন্যরা তার মরদেহের কাছে পৌঁছানোর চেষ্টা করছেন।

ভিডিও থেকে প্রমাণিত, শিরিনের মাথায় গুলি লেগেছিল।

ভিডিওতে যেমনটা দেখা গেছে, সে সময় শিরিন আরেকজন সাংবাদিকের সঙ্গে ছিলেন। তার পরনে পরিষ্কার অক্ষরে ‘প্রেস’ লেখা নীল রঙের ভেস্ট ও মাথায় হেলমেট ছিল।

শিরিন নিহত হওয়ার কয়েক ঘণ্টা পর ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেট দাবি করেন, ‘সশস্ত্র ফিলিস্তিনিদের এলোপাতাড়ি গুলিতে তার মারা যাওয়ার ‘সম্ভাবনা আছে’। তবে পরে এক সংবাদ সম্মলনে ইসরায়েলের ডিফেন্স মিনিস্টার বেনি গান্টজ বলেন, ‘ফিলিস্তিনিদের গুলিতে তার মৃত্যু হয়ে থাকতে পারে, আবার দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমাদের পক্ষের গুলিতেও তার মৃত্যু হতে পারে। আমরা বিষয়টির তদন্ত করছি।’

ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ ও আল জাজিরা এ ঘটনায় সরাসরি ইসরায়েলি সেনাবাহিনীকে দায়ী করেছে। তবে ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর প্রাথমিক তদন্তে বলা হয়, শিরিন কাদের গুলিতে নিহত হয়েছেন সেটা ‘পরিষ্কার’ নয়।

ভিডিও, অডিও বিশ্লেষণ করে পুরো বিষয়টিকে দেখার চেষ্টা করেছে নেদারল্যান্ডসের অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার সাইট বেলিংক্যাট। তাদের প্রতিবেদন অবলম্বনে লিখেছেন রুবাইদ ইফতেখার।

শিরিন হত্যার সময় তার সঙ্গে থাকা সাংবাদিকদের দাবি, আইডিএফ সৈন্যরা কোনো সতর্ক বার্তা ছাড়াই তাদের ওপর গুলি চালায়। সাংবাদিকদের বিশ্বাস, তাদেরকে ইচ্ছাকৃতভাবে টার্গেট করা হয়েছে।

এ হত্যায় আইডিএফ নিজেদের সৈনিকের দায় স্বীকার করে নিলেও, ১৩ মে তারা যে অভ্যন্তরীণ তদন্ত প্রতিবেদন দিয়েছে তাতে শিরিনের মৃত্যুকে দুর্ঘটনা হিসেবে উল্লেখ করা হয়।

উন্মুক্ত সোর্সের ছবি ও ভিডিওতে দেখে কার গুলিতে শিরিন নিহত হয়েছেন পূর্ণাঙ্গভাবে নির্ধারণ করা সম্ভব নয়। তবে এগুলো থেকে বোঝা সম্ভব, ঘটনা কী ঘটেছিল এবং সেগুলোর সঙ্গে আনুষ্ঠানিক বিবৃতির তুলনা করা যেতে পারে।

আইডিএফের অভ্যন্তরীণ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তাদের সৈন্য ও শিরিনের মাঝখানে অন্য যোদ্ধা থাকতে পারে। এতে আরও বলা হয়, একজন ইসরায়েলি সৈন্যের বুলেট অসাবধানতাবশত তাকে আঘাত করে। তবে আইডিএফ ও সাংবাদিকদের মাঝে ওই রাস্তায় অন্য কোনো সশস্ত্র ব্যক্তির অস্তিত্ব ভিডিও ফুটেজে নেই। ঘটনাস্থলে উপস্থিত সমস্ত প্রত্যক্ষদর্শী ও সাংবাদিকরা সরু ওই রাস্তায় এমন কোনো যোদ্ধাকে দেখেননি বা দেখলেও সেটা বলেননি। তাদের বক্তব্য তাই ইসরায়েলি সৈন্যদের থেকে আলাদা।

আইডিএফের বিবৃতিতে আরও বলা হয়, বন্দুকধারীরা আইডিএফ বাহিনীকে লক্ষ্য করে গুলি করে। ওইভাবে শিরিন আঘাত পেতে পারেন। সোশ্যাল মিডিয়ার ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, বন্দুকধারীরা একটি গলিপথ থেকে আইডিএফ সৈন্যদের দিকে দ্রুত গুলি ছুড়ছে।

শিরিনের মৃত্যুর পর মুহূর্তে যখন এক ব্যক্তি তার মৃতদেহ উদ্ধারের চেষ্টা করছেন, সে সময় যে গুলির শব্দ শোনা যাচ্ছে তা উদ্দেশ্যহীন নয়, বরং তা ধীরগতির ও ইচ্ছাকৃত। এ থেকে বোঝা যায়, একঝাঁক গুলি না করে নির্দিষ্ট লক্ষ্যবস্তুতে গুলি করা হচ্ছে। সোশ্যাল মিডিয়ার ভিডিওগুলোতে চিত্রিত বন্দুকধারীদের অবস্থান আইডিএফ সৈন্যদের তুলনায় শিরিনের কাছ থেকে অনেক দূরে। অথবা তারা অবস্থান শিরিনকে দেখার বা লক্ষ্য করার মতো অবস্থানে নেই।

অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া ইমেজ ও ভিডিও আর সেই সঙ্গে বেলিংক্যাটের করা একটি অডিও বিশ্লেষণও সাক্ষীর সাক্ষ্যের দিকগুলোর সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ বলে মনে হয়।

শিরিনের মৃত্যুর প্রথম প্রতিবেদন প্রকাশের পরপর ফেসবুকে পোস্ট করা এক ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, আইডিএফ বাহিনী এমন একটি অবস্থানে পৌঁছেছে, যা ১৯০ থেকে ২৫০ মিটার দক্ষিণে প্রসারিত। ওই অবস্থান থেকে শিরিনকে গুলি করা হয়েছিল। এটি বেশ তাৎপর্যপূর্ণ। কারণ টুইটারে পোস্ট করা অন্য একটি ভিডিওর অডিও বিশ্লেষণ থেকে অনুমান করা যায়, শিরিনের মৃত্যুর পর তার সহকর্মীদের দিকে ১৭৭ থেকে ১৮৪ মিটার দূর থেকে গুলি করা হয়েছিল। একই ফুটেজেও দেখা যাচ্ছে, বন্দুকের গুলিগুলো দক্ষিণে শুরু হয়েছে যখন পূর্বোক্ত ব্যক্তি শিরিনের দেহ উদ্ধারের চেষ্টা করছেন।

শিরিনকে যে স্থানে গুলি করা হয়েছিল তার দক্ষিণে আইডিএফ সৈন্যদের আবির্ভাবের সঠিক সময় ফেসবুক ভিডিওটি থেকে নিশ্চিত হওয়া সম্ভব নয়। তবে সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারী ও ক্যামেরা অপারেটরদের ধারণ করা ফুটেজ থেকে মেটাডেটা বা আইডিএফের ভিডিও এ বিষয়ে আরও স্পষ্টতা তৈরি করতে পারে। এটি শিরিনের মৃত্যুর সময় সৈন্যদের অবস্থানের সম্ভাবনাকে আরও নির্দিষ্ট করতে সক্ষম হবে।

ঘটনাস্থল

প্রত্যক্ষদর্শী ও শিরিনের সহকর্মীরা একাধিক ভিডিও প্রকাশ করেছেন, যাতে জেনিনে গুলি চালানোর পরের ঘটনাগুলো দেখা যায়।

শহরের পশ্চিমে বালাত আল শুহাদা রাস্তায় গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। নিচের স্ক্রিনশটটি শিরিনের শুটিংয়ের পর নেয়া একটি ভিডিও থেকে নেয়া হয়েছে। এটি টুইটারে আল জাজিরার একজন প্রযোজক শেয়ার করেন। এটি ড্যাশবোর্ড ও ছাদে অবস্থিত ক্যামেরা থেকে রাস্তার চিত্র সংগ্রহ করা ক্রাউড সোর্সিং সাইট ম্যাপিলারির এক ব্যবহারকারীর ২০২০ সালের ওই স্থানের তোলা একটি ছবির সঙ্গে মিলে যায়।

সাংবাদিক শিরিনের মৃত্যু কার গুলিতে?
আল জাজিরার এক প্রযোজক শিরিন হত্যাকান্ডের স্থানের একটি ভিডিও শেয়ার করেন। ছবি: স্ক্রিনশট

হত্যার সময়

একাধিক ভিডিওতে দেখা গেছে, শিরিন পড়ে আছেন। সেগুলোর ছায়ার দৈর্ঘ্য বিশ্লেষণ করে বের করা সম্ভব এ হত্যাকাণ্ড কখন ঘটেছে।

বেলিংক্যাট গোলাগুলির প্রথম যে ভিডিওটি পেয়েছে সেটি টেলিগ্রামে শেয়ার করা হয় স্থানীয় সময় সকাল ৬.৩৬ মিনিটে। শিরিনের সঙ্গে থাকা আরেক সাংবাদিক আলি আল-সামুদি, যিনি নিজেও গুলিবিদ্ধ হন, তিনি ঘটনাস্থল থেকে হাসপাতালে যাওয়ার পুরো সময় লাইভ স্ট্রিম করেন। তার লাইভ স্ট্রিম শুরু হয় সকাল ৬.৩৩ মিনিটে।

সাংবাদিক শিরিনের মৃত্যু কার গুলিতে?
ভিডিওর স্ক্রিনশটে ছায়ার দৈর্ঘ্য পরিমাপ করে হত্যাকান্ডের সময় নির্ণয় সম্ভব। ছবি: বেলিংক্যাট

এই ভিডিওতে ছায়ার দৈর্ঘ্য বিশ্লেষণ করে ভিডিওটি কখন ধারণ করা হয়েছে সেই সময় নির্ণয় করা সম্ভব। ওপরে উল্লেখিত ভিডিও যেটি আল জাজিরার প্রযোজক শেয়ার করেছেন সেখানে ক্যামেরা বালাত আল শুহাদা সড়ক বরাবর পশ্চিম দিকে মুখ করা। এরপর ক্যামেরা ঘোরানো হয় দক্ষিণ দিকে যেখানে আবু আকলেহর মরদেহ পড়ে ছিল। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, মানুষজন ও রোড সাইনের ছায়া পশ্চিম-দক্ষিণপশ্চিম দিকে পড়েছে।

জেনিনে সকালের সংঘর্ষ

ওইদিন সকালে সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করা ভিডিওগুলোতে দেখা যায়, এলাকায় সংঘর্ষ শুরু হয় সকাল ৬টা নাগাদ। টেলিগ্রামে ৫.৫৯ মিনিটে শেয়ার করা একটি ভিডিও শিরিন মারা যাওয়ার স্থানের প্রায় ১২০ মিটার পূর্বদিকে রেকর্ড করা হয়। সেখানে গুলির শব্দ শোনা যায় এবং দূরের বিল্ডিংয়ের ওপর সাদা ধোঁয়া উঠতে দেখা যায়।

শিরিনের মৃত্যুর পর, কয়েকজন ইসরায়েলি ভাষ্যকার জেনিনে অদেখা লক্ষ্যবস্তুতে সশস্ত্র লোকজন গুলি চালাচ্ছেন এমন বেশ কয়েকটি ভিডিওর প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

অন্য একটি ভিডিওতে (‘ভিডিও টু’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে) দেখা যায়, একটি গলিপথে একজন লোক রাইফেল দিয়ে গুলি করছেন৷ ইসরায়েলি মিডিয়া রিপোর্ট ও আইডিএফ জানিয়েছে, অভিযানের সকালে এই ভিডিওটি ধারণ করা হয়। যিনি গুলি করার অংশটি ভিডিও করেছেন তিনি অন্য সশস্ত্র ব্যক্তিদের দলের অংশ। ইসরায়েলের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও প্রধানমন্ত্রী শুরুতে বলেন, এই ভিডিওতে যে গুলি চালানো হয়েছে তাতেই শিরিন নিহত হয়েছেন। তবে, ফুটেজ বিশ্লেষণে এ ধরনের দাবি সঠিক বলে মনে হয়নি।

ইসরায়েল ও অধিকৃত ফিলিস্তিনে মানবাধিকার নিয়ে কাজ করা বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা বিটিসেলেম, ভিডিও টু ধারণের জায়গায় গিয়েছিল। তারা একটি ভিডিও করে যেখানে ওই জায়গাটি পরিষ্কার দেখা যাচ্ছে। ওই ভিডিওর মাধ্যমে বেলিংক্যাট ভিডিও টুর জিওলোকেশন নিশ্চিত হয়েছে। শিরিন যেখানে নিহত হন সেখান থেকে ওই লোকেশন ২৭০ মিটার দূরে।

বিটিসেলেমের ভিডিওতে আরও দেখা যায়, সশস্ত্র লোকটি যে গলিতে গুলি চালাচ্ছিল সেটির শেষে একটি প্রাচীর রয়েছে। শিরিন যেখানে নিহত হয়েছেন সেটি এ জায়গা নয়। অর্থাৎ, ভিডিও টু-তে গুলি করতে থাকা ব্যক্তিটির গুলি চালিয়ে শিরিনকে হত্যা করা সম্ভব নয়। যদিও সোশ্যাল মিডিয়াতে এর উল্টোটা চাউর হয়েছে।

১১ মে সকালে জেনিনে অভিযানের সময় রেকর্ড করা ভিডিও টুর সমর্থনে বেশ কিছু তথ্য আছে। প্রথমত, বেলিংক্যাট প্রথমে ভিডিও পায় ১১ মে সকাল ৬টা ৪১ মিনিটে টেলিগ্রামে। এই ভিডিওর ফ্রেমের একাধিক রিভার্স ইমেজ অনুসন্ধানের পর তা থেকে ওই সময়ের আগে কোনো ফল পাওয়া যায়নি৷

দ্বিতীয়ত, ইসরায়েলি রাজনীতিক ও মিডিয়ার দাবিতে যে ভিডিওটি রেকর্ড করা হয় সেখানে বিটিসেলেমের টিম গিয়েছিল। ওই ভিডিওর বন্দুকধারী শিরিনের মৃত্যুর জন্য দায়ী হতে পারে এমনটা দাবি ছিল ইসরায়েলের। সবশেষে, আইডিএফের বডি ক্যামের ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে সৈন্যরা একটি সমান্তরাল গলিপথে নেমে যাচ্ছে, যেখানে ভিডিও টুর বন্দুকধারী তার অস্ত্র থেকে গুলি ছুড়ছিল।

‘সকালে জেনিনে আইডিএফ সৈন্যদের সকালের কার্যক্রম’ শীর্ষক আইডিএফ প্রকাশিত এক ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে সৈন্যরা বিটিসেলেমের ভিডিওতে যে গলি দেখা গেছে সে রকম একটা গলিপথ দিয়ে যাচ্ছে। এই দুই ভিডিওর তুলনা করলে দেখা যায়, ভিডিও টুর সশস্ত্র ব্যক্তিরা ও আইডিএফ সৈন্যরা সমান্তরাল গলিপথে অবস্থান করছিল। শিরিন যখন নিহত হন তখন ওই দুই গ্রুপের মধ্যে গোলাগুলি চলছিল।

আইডিএফের বডিক্যাম ভিডিওর শেষে দেখা গেছে সৈন্যরা একটি রাস্তায় দৌড়ে বেরিয়ে আসে। সেখানে তখন পাঁচটি সাঁজোয়া যান অপেক্ষা করছিল। আইডিএফের এই অবস্থানটি ছিল, যেখানে শিরিনকে গুলি করে হত্যা করা হয় সেখান থেকে একই রাস্তার দক্ষিণে। কনভয়ের সামনের গাড়িটি শিরিনকে গুলি করার স্থান থেকে প্রায় ১৯০ মিটার দক্ষিণে অবস্থিত ছিল। আর পেছনের গাড়ির দূরত্ব ছিল ২৫০ মিটার।

ফেসবুকে সকাল ৬টা ৪০ মিনিটে আপলোড করা একটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, একই আইডিএফ গাড়ির কনভয় যাচ্ছে ও একই স্থানে এসে থামছে, যে স্থানটি আইডিএফের বডি ক্যামেরা ফুটেজে দেখা গেছে। আপলোডের সময়টি আইডিএফ সৈন্যরা কখন ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে তার একটি উচ্চসীমা বেঁধে দেয়। অন্য কথায়, ভিডিওটি অবশ্যই ৬টা ৪০ মিনিটের আগে রেকর্ড হয়েছে। কারণ ওই সময় সেটি ফেসবুকে আপলোড করা হয়।

ভিডিওটি বাড়ির ভেতর থেকে রেকর্ড করা হয়েছে বলে যে ব্যক্তি এটি রেকর্ড করেছেন তার নিরাপত্তার স্বার্থে বেলিংক্যাট এটির সঙ্গে কোনো লিঙ্ক রাখেনি।

বডিক্যাম ভিডিওর শেষে আইডিএফের অবস্থান একজন ক্যামেরা ক্রু প্রায় ১০০ মিটার উত্তরে ছয়টি ভিডিওর একটি সিরিজে রেকর্ড করেন। তার অবস্থান ছিল আইডিএফের অবস্থান এবং শিরিনকে গুলি করা স্থানের মধ্যে। এই ভিডিওগুলো টেলিগ্রামে পোস্ট করা হয়।

আইডিএফ বডি ক্যামেরার ফুটেজ ও টেলিগ্রাম ভিডিওগুলো থেকে দেখা যাচ্ছে, শিরিনকে যেখানে গুলি করে হত্যা করা হয় সে জায়গার প্রায় ২০০ মিটার নিচে রাস্তার একটি অংশ আইডিএফের নিয়ন্ত্রণে ছিল। ভিডিও থেকে প্রমাণ পাওয়া যায়, তার পাশের রাস্তাগুলোর ওপর নিয়ন্ত্রণের জন্য সংঘর্ষ হচ্ছিল। এমন কোনো ফুটেজ বা ছবি পাওয়া যায়নি, যা থেকে বোঝা সম্ভব আইডিএফ সৈন্য ও শিরিনের মধ্যে কোনো ফিলিস্তিনি যোদ্ধা অবস্থান করছিল।

তবে আরেকটি সোশ্যাল মিডিয়া ভিডিওতে (‘ভিডিও থ্রি’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে) কাছাকাছি রাস্তার কোণে একদল ব্যক্তিকে দেখা যাচ্ছে৷ তাদের গোলাগুলি করতে দেখা যাচ্ছে। আইডিএফ সাঁজোয়া কনভয়ের দক্ষিণে আনুমানিক এক ব্লক দূরত্বে ভিডিওটির নেয়া হয়েছে (ম্যাপিলারিতে যা দেখা যাচ্ছে)।

ভিডিওতে স্বল্প বিরতি দিয়ে পরপর গুলির শব্দ শোনা যাচ্ছে।

ভিডিও টু, ভিডিও থ্রি ও আইডিএফ বডি ক্যাম ভিডিও একসঙ্গে বিবেচনায় নিলে জেনিনে ওইদিন সকালে ভিডিওতে ধারণ করা দুটি পক্ষের অবস্থানের একটি আনুমানিক চিত্র পাওয়া যায়।

ভিডিও থ্রি ঠিক কোন সময়ে ধারণ করা হয়েছে সেটা বের করা সম্ভব হয়নি।

তবে লক্ষণীয় বিষয়, যে ভিডিওটি আল জাজিরার এক সাংবাদিক পোস্ট করেছেন যেখানে শিরিনের সহকর্মীকে গোলাগুলির মুখে পড়তে দেখা যাচ্ছে; সেখানে শটগুলো লক্ষ্য করে ও ইচ্ছাকৃতভাবে করা হচ্ছে বলে মনে হয়। উদ্দেশ্যহীন ও একাধারে গুলি ছোড়া হয়নি। গুলি ছোড়ার এই প্যাটার্নটি ক্রসফায়ারের নয়, বরং সাংবাদিকদের দিকে ইচ্ছাকৃতভাবে টার্গেট করে করার সম্ভাবনার দিকে ইঙ্গিত করে। ভিডিও থ্রির ব্যক্তিদের অবস্থান উল্লেখযোগ্যভাবে আইডিএফ কনভয়ের দক্ষিণে ও শিরিনের অবস্থান থেকে বেশ খানিকটা দূরে।

এ ছাড়া বেলিংক্যাটের করা একটি অডিও বিশ্লেষণ থেকে জানা যায়, শিরিনের মৃত্যুর পরপর তার অবস্থানের দিকে গুলি চালানো হয়েছিল ভিডিও থ্রি-তে সশস্ত্র লোকদের অবস্থানের কাছ থেকে।

বুলেটের গতি ও শব্দ

যুক্তরাষ্ট্রের মন্টানা স্টেট ইউনিভার্সিটির ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের অধ্যাপক রবার্ট সি. মারের সঙ্গে কথা বলেছে বেলিংক্যাট। মার অডিও ফরেনসিক বিশ্লেষণ করেন। সোশ্যাল মিডিয়ার ফুটেজ বিশ্লেষণ করে ও আইডিএফ ও অন্য অস্ত্রধারীদের অস্ত্রের ওপর ভিত্তি করে শুটার ও শিরিনের কাছে থাকা ক্যামেরাধারীর দূরত্ব নির্ণয়ের জন্য তাকে অনুরোধ করে বেলিংক্যাট। ভিডিও ক্লিপটিতে দেখা যায়, শিরিন গুলিবিদ্ধ হওয়ার পরেও দক্ষিণ দিক থেকে তাদের ওপর গুলিবর্ষণ হতে থাকে।

বেলিংক্যাটকে করা ই-মেইলে মার লেখেন, ‘ভিডিওতে থাকা অডিও শুনে যা বোঝা যাচ্ছে তা হলো, ১ মিনিট ৫৬.২৫ সেকেন্ড ও ২ মিনিট ১৯.৫৩৮ সেকেন্ডে দুইবার গুলির শব্দ পাওয়া যায়। দুটি শব্দের ক্ষেত্রেই শুরুতে একটি শক্তিশালী ক্র্যাক সাউন্ড ও ৩০০ মিলিসেকেন্ড (.৩ সেকেন্ড) পর একটা দুর্বল শব্দ পাওয়া যায়।

‘আমার মতে, শুরুর শব্দটা কোনো সুপারসনিক বুলেটের শক ওয়েভ ক্যামেরার মাইক অতিক্রম করার সময়ের শব্দ। পরের শব্দটা বন্দুকের নলের বিস্ফোরণের।’

ঘটনার সময় আইডিএফ বা ফিলিস্তিনিদের ব্যবহৃত অধিকাংশ অস্ত্রগুলোকে উপরোক্ত ভিডিওগুলোতে দেখা যাচ্ছে। সেগুলো এম ফোর বা সিআর ফিফটিন সিরিজের ৫.৫৬ মিলিমিটার রাইফেল। যেগুলো ব্যারেলের দৈর্ঘ্য ছিল ২৯২ থেকে ৩৬৮ মিমি। ২০১০ সালে সুইডেনের ন্যাটো ওয়েপনস অ্যান্ড সেনসরস ওয়ার্কিং গ্রুপ একটি প্রেজেন্টেশনে ৫.৫৬ মিমি গুলির ক্ষেত্রে নলের গতি ও ব্যারেলের দৈর্ঘ্যের একটি তুলনা প্রকাশ করে।

সেখানে বলা হয়, ন্যাটোর ব্যবহৃত গুলি এসএস ওয়ানওনাইন ৫.৫৬ মিমি ব্যবহার করলে বুলেটের গতি দাঁড়াবে প্রতি সেকেন্ডে ৮২০ থেকে ৮৬৬ মিটার। এ থেকে বোঝা যায়, ওপরের ভিডিওতে ক্যামেরা থেকে রাইফেল ১৭৭ থেকে ১৮৪ মিটার দূরত্বে ছিল।

মার এই হিসেবের সঙ্গে সাবধানতা ও সতর্কতার একটি নোট যোগ করেন। তিনি লেখেন, ‘দূরত্বের অনুমান বাতাসের তাপমাত্রার ওপর নির্ভর করে, যেহেতু এটি শব্দের গতিকে প্রভাবিত করে।’

বুলেটের ক্যালিবার বিশ্লেষণ করা প্রতিবেদনের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ যে শিরিনকে যে বুলেটটি হত্যা করে সেটি ছিল ৫.৫৬ মিমি।

মার উল্লেখ করেছেন, বুলেটের অনুমিত গতিতে সামান্য পার্থক্যের ফলে গণনায় পরিবর্তন হতে পারে। তিনি যোগ করেন, ‘সম্ভবত বড় প্রশ্ন হল বুলেটের গতি সম্পর্কে আমার অনুমান। যদি বুলেটটি ধীর সুপারসনিক গতিতে ছোটে তবে দূরত্বের অনুমান দীর্ঘ হবে। আর যদি বুলেটটি দ্রুত সুপারসনিক গতিতে ছোটে, তবে দূরত্বের অনুমান কম হবে।’

দৃষ্টিরেখা

ওই অঞ্চলের ছবি থেকে আরও কিছু ক্লু পাওয়া যায়। যা থেকে ধারণা করা সম্ভব শিরিন ও অন্য সাংবাদিকদের ক্ষেত্রে ওই শুটার কোথায় অবস্থান করছিল।

জেনিন ক্যাম্প টেলিগ্রাম চ্যানেলে শেয়ার করা একটি ছবি তোলা হয়েছে যেখানে শিরিন নিহত হয়েছেন। এটি অনেকগুলো ছবির একটি, যেখানে ফিলিস্তিনিরা তার মৃত্যুর স্থানে ফুল দিচ্ছেন। ক্যামেরাটি সরাসরি দক্ষিণ দিকে মুখ করা, যা আইডিএফ কনভয় এবং সশস্ত্র লোকদের অবস্থান থেকে দৃষ্টি রেখা কী হতে পারে সেটার একটা আনুমানিক ধারনা দেয়।

আইডিএফের কনভয় ও ভিডিও টু এবং ভিডিও থ্রিতে সশস্ত্র লোকদের অবস্থান থেকে উত্তরে দৃষ্টিসীমা/রেখা একটি কবরস্থানের প্রাচীর দ্বারা আংশিকভাবে বাধাগ্রস্ত হয়। কবরস্থান ও এর প্রাচীরের কারণে রাস্তাটি একক একটি সরু লেনের রাস্তায় পরিণত হয়।

সাংবাদিক শিরিনের মৃত্যু কার গুলিতে?
সশস্ত্র ব্যক্তিদের অবস্থান থেকে উত্তরে দৃষ্টিসীমা রেখা একটি কবরস্থানের প্রাচীরে আংশিকভাবে বাধাগ্রস্ত হয়। ছবি: বেলিংক্যাট

এই প্রাচীরটি স্যাটেলাইট থেকে তোলা ছবির পাশাপাশি ওইদিনের ভিডিও ফুটেজে দৃশ্যমান।

কবরস্থানের প্রাচীরই শুধু রাস্তার উত্তরে দেখার ক্ষেত্রে বাধা দেয়। সারা সকাল জুড়ে, রাস্তার পশ্চিম দিকে গাড়ি পার্ক করা ছিল, যা আইডিএফ কনভয়ের রাস্তার স্তরের অবস্থান থেকে উত্তরে গুলি করা ও ভিডিও টু এবং ভিডিও থ্রিতে সশস্ত্র লোকদের গুলি করাকে আরও কঠিন করে তুলেছিল।

টেলিগ্রামে শেয়ার করা আরেকটি ছবিতে কবরস্থানের প্রাচীর ও হলুদ গাড়ির কারণে দৃষ্টিসীমার বাধা স্পষ্ট। ছবিটি রাস্তার দক্ষিণ দিকে একটি পাহাড় থেকে তোলা হয়েছে। যেখান থেকে শিরিন নিহত হওয়ার অবস্থান উত্তরে।

ওপরের ছবিতে দেখা যাচ্ছে, আইডিএফ অবস্থান থেকে আবু আকলেহকে যেখানে গুলি করে হত্যা করা হয় সেখানে দৃষ্টিসীমা সংকীর্ণ।

এটি তাৎপর্যপূর্ণ। কারণ সাদা টি-শার্ট পরা ব্যক্তি যিনি শিরিনকে সাহায্য করতে গেছেন, তার আচরণ থেকে বোঝা যায়, তাদের দিকে তখনও দক্ষিণ থেকে গুলি ছোড়া হচ্ছে। যেমনটা ভিডিওতে দেখা গেছে। ভিডিওর ১ মিনিট ৫৬ সেকেন্ড ও ২ মিনিট ২০ সেকেন্ডে শিরিনকে তোলার চেষ্টার সময় ওই ব্যক্তি রাস্তার কেন্দ্রের দিকে পূর্ব দিকে সরে আড়াল থেকে বেরিয়ে আসেন। উভয় সময় আমরা একটি করে গুলির শব্দ শুনতে পাই, যা লোকটির যথেষ্ট কাছাকাছি। যার ফলে তিনি রাস্তার পশ্চিম দিকের একটি দেয়ালের সঙ্গে নিজেকে চেপে আড়াল হতে বাধ্য করে। ওপরের ছবিতে দেখা হলুদ গাড়ি ও নিচের ছবিতে গাছটি দেয়ালের কাছাকাছি দাঁড়ালে তার আড়াল হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

আইডিএফ অবস্থানের সামান্য পশ্চিমে একটি উঁচু ভবন থাকায় শুটার একটি উঁচু অবস্থান থেকে গুলি চালাতে পারে এমন সম্ভাবনাও রয়েছে। এটি শিরিন ও তার সহকর্মীরা গাছের আড়াল থেকে ও প্রাচীর থেকে দূরে সরে গেলে তা দেখার একটি অবস্থান তৈরি করে।

ওপেন সোর্সের সারসংক্ষেপ

বর্তমানে ওপেন সোর্স ভিডিওগুলো থেকে শিরিনকে হত্যা করার নির্দিষ্ট মুহূর্ত বা তাকে গুলি করার বিশদ বিবরণ পাওয়া সম্ভব নয়। তবে, একাধিক সাক্ষীর সাক্ষ্য আইডিএফ সৈন্যদের দিকে ইঙ্গিত করে। সোশ্যাল মিডিয়ায় পাওয়া ভিডিওগুলো তাদের দাবিকে নাকচ করার জন্য যথেষ্ট নয়। প্রকৃতপক্ষে, এটি তাদের সমর্থন করে বলে মনে হয়।

ওপেন সোর্স ভিডিওতে দেখা যায়, আইডিএফ সৈন্যরা ও সশস্ত্র গোষ্ঠী রাস্তায় লড়াই করার সময় শিরিন রাস্তায় পড়ে ছিলেন। সে সময় আইডিএফের একটি স্পষ্ট গতিপথ ছিল ও যেখানে তাকে গুলি করা হয় তারা সেটার কাছে অবস্থান করছিল। এটি সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলোর জন্য আরও বাধাগ্রস্ত ও দূরবর্তী অবস্থান।

বডিক্যাম ফুটেজে দেখা আইডিএফ সাঁজোয়া যানবাহনের নেতৃস্থানীয় যানটি শিরিনকে গুলি করার স্থান থেকে প্রায় ১৯০ মিটার দূরে অবস্থান করছিল। ভিডিও থ্রিতে রাস্তায় গুলি চালাতে দেখা গেছে যে সশস্ত্র দলটিকে তারা ছিল প্রায় ৩০০ মিটার দূরে।

সাংবাদিক শিরিনের মৃত্যু কার গুলিতে?
নীল বৃত্তের স্থানে আবু আকলেহ গুলিবিদ্ধ হন। কমলা বৃত্তের স্থান থেকে টেলেগ্রাম ভিডিও নেয়া হয় আর সবুজ রঙের অঞ্চলে আইডিএফ সৈন্যরা অবস্থান করছিল। ছবি: বেলিংক্যাট

শিরিন হত্যার পর ধারণ করা একটি ভিডিওর প্রাথমিক ফরেনসিক অডিও বিশ্লেষণে দেখা যাচ্ছে, বন্দুকের গোলাগুলি প্রায় ১৭৭ থেকে ১৮৪ মিটার দূরে শুরু হয়। ধারণা করা হচ্ছে যে অস্ত্র ও গুলি ব্যবহার করা হয়েছে তা ওই এলাকায় আইডিএফ ও সশস্ত্র ফিলিস্তিনিদের ব্যবহৃত অস্ত্রের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ। এই অনুমান আইডিএফের অবস্থান এবং সশস্ত্র গোষ্ঠীর অবস্থানের চেয়ে সাংবাদিক হত্যার স্থানের মধ্যে আনুমানিক দূরত্বের সঙ্গে আরও ঘনিষ্ঠভাবে যুক্ত।

৫১ বছর বয়সী শিরিন আবু আকলেহকে ১৩ মে পূর্ব জেরুজালেমের মাউন্ট জায়ন প্রোটেস্ট্যান্ট কবরস্থানে সমাহিত করা হয়।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Hamas will overthrow the Israeli government in 5 minutes

‘৫ মিনিটেই ইসরায়েল সরকারকে ধসিয়ে দেবে হামাস’

‘৫ মিনিটেই ইসরায়েল সরকারকে ধসিয়ে দেবে হামাস’ হামাসের কাছে বিভিন্ন ধরনের ও পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র রয়েছে। ছবি: সংগৃহীত
আল-কুদস ও আল-আকসায় ইহুদিবাদী ও ইহুদি বসতি স্থাপনকারীদের কোনো স্থান নেই উল্লেখ করে ইসমাইল হানিয়াহ বলেন, লেবানন থেকে আমি আপনাদের বলছি, যে আমরা আপনার স্বপ্নকে ধ্বংস করে দেব এবং আল-কুদস আর আল-আকসায় আপনাদের কোনো স্থান নেই।

ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের রাজনৈতিক ব্যুরোর প্রধান ইসমাইল হানিয়া বলেছেন, ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ গোষ্ঠী ও ইহুদিবাদী ইসরায়েলের মধ্যে নতুন কোনো সামরিক সংঘাতের ক্ষেত্রে ফিলিস্তিনের ক্ষেপণাস্ত্র কয়েক মিনিটের মধ্যে দখলদার সত্তাকে ধ্বংস করে ফেলবে।

ইরানের সংবাদমাধ্যম পার্স টুডের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, হামাস প্রধান লেবাননে এক সমাবেশে রোববার বক্তব্য দেয়ার সময় সম্ভাব্য ফিলিস্তিনি ও ইসরায়েল সামরিক সংঘাত নিয়ে এই মন্তব্য করেন।

সেই সঙ্গে ইসরায়েলের সঙ্গে কিছু আরব দেশের সম্পর্ক স্বাভাবিক করার তীব্র নিন্দাও জানিয়েছেন হানিয়াহ।

ইসমাইল হানিয়াহ বক্তব্য দেয়ার সময় আরও বলেন, ’৭৪ বছর আগে থেকেই লেবানন ফিলিস্তিনের প্রতি সহানুভূতিশীল। আজ আমরা আল-আকসা মসজিদের (আসন্ন মুক্তি) দেখতে পাচ্ছি, কারণ আমরা বিজয় এবং উন্নয়নের পথে আছি, যার গতিপথ আমাদের জাতি ও আমাদের প্রতিরোধ দ্বারা নির্ধারিত হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ইসরায়েলের সঙ্গে ভবিষ্যৎ যুদ্ধের ক্ষেত্রে ১৫০টি ক্ষেপণাস্ত্র ৫ মিনিটেরও কম সময়ে ইহুদিবাদী সরকারকে ধ্বংস করবে।

‘৫ মিনিটেই ইসরায়েল সরকারকে ধসিয়ে দেবে হামাস’
হামাস প্রধান ইসমাইল হানিয়াহ

আল-কুদস ও আল-আকসায় ইহুদিবাদী ও ইহুদি বসতি স্থাপনকারীদের কোনো স্থান নেই উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘লেবানন থেকে আমি আপনাদের বলছি, যে আমরা আপনার স্বপ্নকে ধ্বংস করে দেব এবং আল-কুদস আর আল-আকসায় আপনাদের কোনো স্থান নেই।’

ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রী বেনি গ্যান্টজ তেলআবিব ও আরব মিত্রদের সমন্বিত যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন ইরানবিরোধী আঞ্চলিক সামরিক ফ্রন্ট গঠনের প্রস্তাব দেয়ার পরই এমন আক্রমণাত্মক মন্তব্য করলেন হানিয়া।

আরও পড়ুন:
গাজায় হামাসের স্থাপনায় ইসরায়েলের হামলা
ফিলিস্তিনিদের পোস্ট মুছে দেয় ফেসবুক
ফিলিস্তিন সংকটের সমাধান খুঁজুন: জাতিসংঘে বাংলাদেশ
ফিলিস্তিনের জন্য ভালোবাসা
ইসরায়েলিকে হত্যা, পাল্টা হামলায় ফিলিস্তিনি নিহত

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Iraq Iran close on Saudi issue

সৌদি ইস্যুতে ঘনিষ্ঠ ইরাক-ইরান

সৌদি ইস্যুতে ঘনিষ্ঠ ইরাক-ইরান ইরাকের প্রধানমন্ত্রী আল-কাদিমি (ডানে) ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির সঙ্গে দেখা করেছেন। ছবি: সংগৃহীত
মধ্যপ্রাচ্যের কূটনীতিতে বড় পরিবর্তন দেখা যাচ্ছে। আরব রাষ্ট্রগুলোর সঙ্গে সম্প্রতি সম্পর্ক উন্নয়নের চেষ্টা করছেন সৌদি আরবের পরবর্তী বাদশাহ মোহাম্মদ বিন সালমান। সংযুক্ত আরব আমিরাতের সঙ্গে বেশ কয়েকটি দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যিক চুক্তি করছে ইসরায়েল। এবার সৌদি থেকে সরাসরি ইরানে গেছেন ইরাকের প্রধানমন্ত্রী মোস্তফা আল-কাদিমি।

করোনার প্রাথমিক ধাক্কা সামলে উঠতে না উঠতেই মুদ্রাস্ফীতির কবলে পড়েছে গোটা বিশ্ব। এই পরিস্থিতিতে ইউক্রেনে চালানো রাশিয়ার ‘বিশেষ অভিযানে’ ব্যাহত হচ্ছে পণ্য রপ্তানি। কৃষ্ণ সাগর অনেকটায় অচল করে রেখেছে মস্কো।

এই অবস্থায় মধ্যপ্রাচ্যের কূটনীতিতে বড় পরিবর্তন দেখা যাচ্ছে। আরব রাষ্ট্রগুলোর সঙ্গে সম্প্রতি সম্পর্কোন্নয়নের চেষ্টা করছেন সৌদি আরবের পরবর্তী বাদশাহ মোহাম্মদ বিন সালমান। সংযুক্ত আরব আমিরাতের সঙ্গে বেশ কয়েকটি দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যিক চুক্তি করছে ইসরায়েল।

এবার প্রতিবেশী ইরান সফর করছেন ইরাকের প্রধানমন্ত্রী মোস্তফা আল-কাদিমি। এর আগে রিয়াদ ঘুরে আসেন ইরাকি প্রধানমন্ত্রী।

আল জাজিরার খবরে বলা হয়, উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে রোববার তেহরানে পৌঁছান মোস্তফা আল-কাদিমি।

ইরানের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম আল-কাদিমি বলছে, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফুয়াদ হুসেইন এবং অন্যদের সঙ্গে রাজধানীর সাদাবাদ প্রাসাদে প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির আনুষ্ঠানিক অভ্যর্থনা গ্রহণ করেন কাদিমি।

জেদ্দায় শনিবার রাতে সংক্ষিপ্ত সফরে সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান ব্যক্তিগতভাবে ইরাকি নেতাকে স্বাগত জানানোর পর এই সফর হলো।

ইরাকের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় বলছে, কাদিমি এবং যুবরাজ সালমান শান্ত ও গঠনমূলক সংলাপের চেষ্টা করছেন। দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের পাশাপাশি আঞ্চলিক নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতার মতো বিষয়গুলো নিয়ে দুই নেতা আলোচনা করেছেন।

ইরাকি প্রধানমন্ত্রীর সফরটিকে আঞ্চলিক শত্রু তেহরান এবং রিয়াদের সম্পর্ক উন্নয়নের চেষ্টা হিসেবে দেখছেন অনেকে। ইয়েমেন ইস্যুতে সাত বছর ধরে ইরান-সৌদি পরস্পরবিরোধী অবস্থানে আছে।

আলোচনার পর সংবাদ সম্মেলনে রাইসি এবং কাদিমি সৌদি আরবের কথা বিশেষভাবে উল্লেখ না করলেও অঞ্চলজুড়ে সম্পর্কোন্নয়নে জোর দিয়েছেন। ইয়েমেনে জাতিসংঘের প্রস্তাবিত শান্তি আলোচনায় বিষয়টি পুনর্বিবেচনার কথাও জানান তারা।

ইয়েমেন ইস্যুতে দুই নেতাই বলেছেন, ‘যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়া বুদ্ধিমানের কাজ না, সংলাপই কেবল যুদ্ধের সমাধান করতে পারে।’

দুই নেতা দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের প্রশংসা করেন বলেন, ‘ আর্থিক লেনদেনের প্রতিবন্ধকতা দূর করা, ধর্মীয় তীর্থযাত্রা সহজতর করা, ইরানের শালামচেহ এবং ইরাকের বসরাকে সংযুক্ত করে এমন একটি রেলপথের কাজ করার বিষয়ে আলোচনা করা হয়েছে।’

বাদদাদের মধ্যস্থতায় ২০২১ সালের এপ্রিলে তেহরান-রিয়াদ সরাসরি আলোচনা শুরু হয়। এখন পর্যন্ত পাঁচ দফা আলোচনা হলেও ২০১৬ সালে ছিন্ন হওয়া আনুষ্ঠানিক কূটনৈতিক সম্পর্ক কীভাবে পুনঃপ্রতিষ্ঠা করা যায়, সে বিষয়ে এখনও কোনো চুক্তিতে আসতে পারেনি তারা।

সেই সময়ে বিক্ষোভকারীরা সৌদি আরবের পর ইরানে সৌদি কূটনৈতিক মিশনে হামলা চালায়। প্রখ্যাত এক শিয়া ধর্মীয় নেতাকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয় সেখানে।

এখন পর্যন্ত এই আলোচনার একমাত্র অর্জন, জেদ্দাভিত্তিক অর্গানাইজেশন অফ ইসলামিক কো-অপারেশনে ইরানের প্রতিনিধি অফিস পুনরায় চালু করা।

আরও পড়ুন:
ইরানকে ছাড়াই গ্যাস তুলবে সৌদি-কুয়েত
ইরাকে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার দায় নিল ইরান

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Hajj without begging bond

হজে গিয়ে ভিক্ষা, মুচলেকায় ছাড়া বাংলাদেশি

হজে গিয়ে ভিক্ষা, মুচলেকায় ছাড়া বাংলাদেশি ফাইল ছবি
২২ জুন মতিয়ার মদিনায় ভিক্ষা করতে গিয়ে সৌদি পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হন। তিনি সবাইকে বলছিলেন, তার মানিব্যাগটি ছিনতাই হয়ে গেছে। খবর নিয়ে জানা গেছে, মতিয়ার সৌদিতে কোনো হোটেল বুক করেননি। তাকে গাইড করার মতো কোনো মোয়াজ্জেমও ছিল না।

হজের সময় ভিক্ষা করার অপরাধে এক বাংলাদেশিকে গ্রেপ্তার করে সৌদি পুলিশ। পরে বাংলাদেশ হজ মিশনের হস্তক্ষেপে মুচলেকা নিয়ে ওই ব্যক্তিকে ছেড়ে দেয়া হয়।

কাউন্সিলর (হজ) জহরুল ইসলামের বরাতে বাংলা ট্রিবিউনের খবরে বলা হয়, ওই ব্যক্তির নাম মতিয়ার রহমান, বাড়ি মেহেরপুর জেলায়। ধানসিঁড়ি ট্র্যাভেল এয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে হজ করতে সৌদি গিয়েছিলেন তিনি।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ২২ জুন মতিয়ার মদিনায় ভিক্ষা করতে গিয়ে সৌদি পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হন। তিনি সবাইকে বলছিলেন, তার মানিব্যাগটি ছিনতাই হয়ে গেছে।

খবর নিয়ে জানা গেছে, মতিয়ার সৌদিতে কোনো হোটেল বুক করেননি। তাকে গাইড করার মতো কোনো মোয়াজ্জেমও ছিল না।

ধর্মবিষয়ক মন্ত্রাণলয় ইতোমধ্যে ওই হজ এজেন্সিকে নোটিশ পাঠিয়েছে। জানতে চাওয়া হয়েছে, কেন তাদের বিরুদ্ধে হজ ও ওমরাহ আইন, ২০২১-এর ১৩ ধারার অধীনে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে না।

উপসচিব আবুল কাশেম মুহাম্মদ শাহীন স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এ ঘটনায় মধ্যপ্রাচ্যের দেশটিতে বাংলাদেশিদের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে। তিন দিনের মধ্যে তাদের নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

হজ অ্যাসোসিয়েশন অফ বাংলাদেশের সভাপতি শাহাদাত হোসেন তাসলিম বলেন, ‘বিষয়টি তদন্ত করে এজেন্সির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

এর আগে জননিরাপত্তার অধীনে এক সৌদি নাগরিকসহ ২৭ জনকে গ্রেপ্তার করে সৌদি পুলিশ। এদের বেশির ভাগের সৌদিতে থাকার বৈধতা নেই।

তাদের বিরুদ্ধে ভুয়া হজ প্রচার চালানোর অভিযোগ আনা হয়েছে। ভুয়া হজ ও ওমরাহ প্রচার কার্যালয় পর্যবেক্ষণের জন্য নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযানে তারা গ্রেপ্তার হন।

সৌদি গ্যাজেটের খবরে বলা হয়, রিয়াদের চারটি স্থান এবং আল-কাসিম অঞ্চলের দুটি এলাকায় জাল হজ প্রচারণার বিজ্ঞাপন এবং বিপণনের সঙ্গে জড়িত ছিল তারা। তাদের গ্রাহকদের কাছ থেকে অর্থও হাতিয়ে নিচ্ছিল।

হজে গিয়ে ভিক্ষা, মুচলেকায় ছাড়া বাংলাদেশি

প্রসিকিউশন জানিয়েছে, গ্রেপ্তার অবৈধ বিদেশিদের মধ্যে ১১ জন মিসরীয়, ১০ জন সিরিয়ান, ২ জন করে পাকিস্তানি ও সুদানি এবং একজন ইয়েমেনি ও বাংলাদেশি রয়েছেন। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:
সৌদি দূতাবাসের রাস্তার নাম ‘খাশোগজি ওয়ে’
হজযাত্রীদের আসন রিজার্ভের তথ্য চায় ধর্ম মন্ত্রণালয়
হজে গিয়ে সৌদি আরবে বাংলাদেশির মৃত্যু
হজের খুতবায় বাংলাসহ ১০ ভাষা
হজযাত্রীদের জন্য এক্সিম ব্যাংকের বাস উপহার

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The Khashoggi issue was suppressed by Turkey

খাশোগজি ইস্যু যে কারণে চেপে গেল তুরস্ক

খাশোগজি ইস্যু যে কারণে চেপে গেল তুরস্ক সৌদি সফরে এরদোগান ও মোহাম্মদ বিন সালমান। ছবি: সংগৃহীত
বিশ্বের অনেক দেশের মতো অর্থনৈতিক সংকটে ধুঁকছে তুরস্ক। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বাণিজ্য, বিনিয়োগ এবং সহায়তার সন্ধানে আছে এরদোগান সরকার। এই পরিস্থিতিতে আঙ্কারা সফর করছেন সৌদি যুবরাজ।

তুরস্ক সফর করছেন সৌদি সিংহাসনের উত্তরসূরি মোহাম্মদ বিন সালমান। পশ্চিমা দুনিয়ায় তিনি এমবিএস নামে পরিচিত। সফরে বেশ কয়েকটি দ্বিপক্ষীয় চুক্তি হয়েছে বলে জানা গেছে।

তুরস্কের ইস্তানবুলে সৌদি কনস্যুলেটে ২০১৮ সালে সাংবাদিক জামাল খাশোগজিকে হত্যার পর আঙ্কারা-রিয়াদ সম্পর্কের চরম অবনতি ঘটে। ওই ঘটনার পর এই প্রথম তুরস্ক সফরে এলেন সৌদির ভবিষ্যৎ বাদশাহ।

আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে বলা হয়, সফরে তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক উন্নয়ননে জোর চেষ্টা চালাবেন।

সাংবাদিক জামাল খাশোগজি হত্যায় সরাসরি মোহাম্মদ বিন সালমানকে দুষেছিলেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোগান। তবে সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন যুবরাজ সালমান।

বিশ্বের অনেক দেশের মতো অর্থনৈতিক সংকটে ধুঁকছে তুরস্ক। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বাণিজ্য, বিনিয়োগ এবং সহায়তার সন্ধানে আছে এরদোগান সরকার। এই পরিস্থিতিতে আঙ্কারা সফর করছেন সৌদি যুবরাজ।

জ্যেষ্ঠ এক তুর্কি কর্মকর্তা রয়টার্সকে বলেন, ‘সফরটি “সম্পূর্ণ স্বাভাবিককরণ এবং প্রাক-সংকট সময়ের পুনরুদ্ধার” নিয়ে আসবে বলে আশা করা হচ্ছে। দুই নেতা শক্তি, অর্থনীতি এবং নিরাপত্তা বিষয়ে চুক্তি করেছেন।’

বহু বছরের উত্তেজনা পাশ কাটিয়ে সংযুক্ত আরব আমিরাত, মিসর এবং ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়নের চেষ্টা চালাচ্ছে সৌদি আরব।

মধ্যপ্রাচ্যে হালকা হয়ে পড়া প্রভাব পুনরুদ্ধারে জোর দিচ্ছেন সৌদি যুবরাজ সালমান। সাফ জানিয়েছেন, আন্তর্জাতিক বিচ্ছিন্নতার অবসান ঘটাতে চান তিনি।

মধ্যপ্রাচ্য সফরের অংশ হিসেবে চলতি সপ্তাহে জর্ডান এবং মিসর গিয়েছিলেন সালমান। আগামী মাসে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে দেখা করবেন তিনি। খাশোগজি হত্যায় সৌদি শাসকদের এক হাত নিয়েছিলেন বাইডেন।

জামাল খাশোজগি সৌদি শাসকদের ঘোর সমালোচক ছিলেন। ওয়াশিংটন পোস্টের হয়ে কলাম লিখতেন তিনি। ২০১৮ সালের ২ অক্টোবর ইস্তানবুলের সৌদি কনস্যুলেটের ঢুকে নিখোঁজ হন খাশোজগি।

পরে জানা যায়, তাকে ধরে সৌদি আরবে নিয়ে আসার জন্য লোক পাঠানো হয়েছিল। তারা ভুলবশত খুন করে ফেলেন খাশোগজিকে। পরে মরদেহ টুকরো টুকরো করে রাসায়নিকের সাহায্যে গলিয়ে ফেলা হয়েছিল।

খাশোগজি ইস্যু যে কারণে চেপে গেল তুরস্ক
প্রয়াত সাংবাদিক জামাল খাশোগজি। ছবি: সংগৃহীত

হত্যার এক বছর পর সৌদির একটি আদালত হত্যাকাণ্ডে সরাসরি অংশ নেয়ার অপরাধে পাঁচজন অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিকে দোষী সাব্যস্ত করে মৃত্যুদণ্ড দেয়। পরে সাজা কমিয়ে করা হয় ২০ বছরের কারাদণ্ড। আরও তিনজনকে ৭ থেকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়।

মামলা হয় ইস্তানবুলের আদালতেও। মামলায় অভিযুক্ত যুবরাজ সালমানের দুই সহযোগীসহ ২৬ সৌদি নাগরিকের তাদের অনুপস্থিতিতে বিচার চলছিল। গত মাসের শেষ দিকে এই বিচার বন্ধ করে দেয়া হয়। তার তিন সপ্তাহ পর আঙ্কারা সফরে এলেন মোহাম্মদ বিন সালমান।

বিচারক জানিয়েছেন, মামলাটি সৌদি আরবের বিচার বিভাগীয় কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করা হবে। সৌদি সরকার সন্দেহভাজনদের হস্তান্তর করতে অস্বীকার করেছিল।

এদিকে সাংবাদিক খাশোগজির বাগদত্তা চেঙ্গিজ যুবরাজ সালমানের তুরস্ক সফর নিয়ে উদ্বেগ জানিয়েছেন। জানিয়েছেন, ন্যায়বিচারের লড়াই চলবে।

টুইটে তিনি লেখেন, ‘ তিনি (সালমান) প্রতিদিন একটি ভিন্ন দেশে সফরের মাধ্যমে যে রাজনৈতিক বৈধতা অর্জন করছেন, তা এই সত্যকে পরিবর্তন করবে না যে তিনি একজন খুনি।’

সালমানের সফর নিয়ে নিজ দেশেও সমালোচনার মুখে পড়েছেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোগান। বিরোধী রাজনৈতিক দল রিপাবলিকান পিপলস পার্টির (সিএইচপি) নেতা কামাল কিলিকদারোগ্লু বলেন, ‘খুনের নির্দেশদাতাকে আলিঙ্গন করা প্রেসিডেন্টের উচিত হয়নি।

গত এপ্রিলে এরদোগান সৌদি আরব সফর করেছিলেন। সে সময় প্রকাশ্যে যুবরাজ সালমানকে আলিঙ্গন করেছিলেন।

আরও পড়ুন:
৩ বছরে আড়াই কোটি পর্যটক মসজিদটিতে
তুরস্কে এরদোয়ানবিরোধীর যাবজ্জীবন
এবার ইরাকে তুরস্কের সামরিক অভিযান
বিশ্বের দীর্ঘতম ঝুলন্ত সেতু উদ্বোধন
মোমেন-ফারহান বৈঠক অনুষ্ঠিত

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Netanyahu back in power in Israel

ইসরায়েলে ক্ষমতায় ফের নেতানিয়াহু!

ইসরায়েলে ক্ষমতায় ফের নেতানিয়াহু! ইসরায়েলের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। ফাইল ছবি
ইসরায়েলের বর্তমান সরকার ডানপন্থি, মধ্যপন্থি এবং ইসরায়েলে ফিলিস্তিনি নাগরিকদের প্রতিনিধিত্বকারী একটি দলসহ আটটি দলের মিশ্রণ। মাত্র এক বছর আগে সরকার গঠন করে তারা।

ইসরায়েলের জোট সরকার দেশ চালাতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। এক ঘোষণায় সোমবার সরকার জানায়, আগামী সপ্তাহে পার্লামেন্ট (নেসেট) ভেঙে দেবে তারা। আর এমনটা হলে, তিন বছরের মধ্যে পঞ্চমবারের মতো নির্বাচনে যাবে ইসরায়েল।

অর্থনৈতিকভাবে শক্তিশালী দেশ ইসরায়েলে কেন কোনো সরকার থিতু হতে পারছে না? তার মানে কি নেতানিয়াহু সরকার ফের ক্ষমতায় আসছে?

ইসরায়েলের বর্তমান সরকার ডানপন্থি, মধ্যপন্থি এবং ইসরায়েলে ফিলিস্তিনি নাগরিকদের প্রতিনিধিত্বকারী একটি দলসহ আটটি দলের মিশ্রণ। মাত্র এক বছর আগে সরকার গঠন করে তারা।

প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেট তার জোটসঙ্গী পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইয়ার ল্যাপিডের সঙ্গে মিলে দুই বছরের রাজনৈতিক অচলাবস্থা কাটিয়ে ২০২১ সালের জুনে জোট গঠন করেছিলেন। অবসান ঘটে সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর ১২ বছর ক্ষমতায় থাকার রেকর্ডের।

তবে বছর না কাটতেই জোটে দেখা দিয়েছে অন্তর্দ্বন্দ্ব। কয়েক সপ্তাহের জল্পনার অবসান ঘটে সোমবার। জানিয়ে দেয়, দেশ আর চালাবে না নাফতালি বেনেট সরকার।

ক্ষমতাসীন এই জোটকে একত্রিত রেখেছিল সাবেক প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু বিরোধিতা। তবে শেষ পর্যন্ত তা আর হলো না।

কী নিয়ে জোটে অন্তর্দ্বন্দ্ব

ফিলিস্তিন রাষ্ট্র, পশ্চিম তীর দখল এবং ধর্ম ও রাষ্ট্র সম্পর্কিত বিষয়গুলোতে বিবাদে জড়িয়ে জোটের অনেক শীর্ষ নেতা সরকার ত্যাগ করেছেন। সেই থেকেই পতনের শুরু।

বেনেটের ডানপন্থি ইয়ামিনা পার্টির সদস্য ইডিট সিলম্যান সরকার থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিলে গত এপ্রিলে ইসরায়েলের ১২০ আসনের পার্লামেন্টে সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারায় জোটটি। এতে আইন পাস করানোর ক্ষমতা হারায় বেনেট সরকার। এই অবস্থায় প্রশ্ন ওঠে কতদিন টিকবে এই সরকার।

ইসরায়েলে ক্ষমতায় ফের নেতানিয়াহু!
ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেট (বাঁয়ে) এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইয়ার ল্যাপিড স্বীকার করেছেন যে তারা ভঙ্গুর জোটকে একসঙ্গে রাখতে অক্ষম। ছবি: রয়টার্স

এদিকে আল আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণে বিক্ষোভে ইসরায়েলি পুলিশের হামলা, পশ্চিম তীরে অভিযানের নামে গুলি করে ফিলিস্তিনি হত্যার মতো ঘটনায় আরব বিশ্বে এক ধরনের হুমকিতে আছে ইসরায়েল। যদিও জর্ডান, সংযুক্ত আরব আমিরাতের মতো কয়েকটি উপসাগরীয় দেশের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নয়ন হয়েছে।

দল ত্যাগের সিদ্ধান্ত নেয়ার পর ইয়ামিনা পার্টির আরেক সদস্য নির অরবাচ গত মাসেই সরকার পতনের বিষয়ে সতর্ক করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী বেনেটকে।

সবচেয়ে বড় ধাক্কা আসে দুই সপ্তাহ আসে। সেদিন অধিকৃত পশ্চিম তীরে বসতি স্থাপনকারীদের জন্য ইসরায়েলি নাগরিক আইন সংস্কারের একটি বিল পার্লামেন্টে আটকে যায়

সেটলার আইনের বিষয়ে সাধারণত ব্যাপক সমর্থন পাওয়া যায় ইসরায়েলের পার্লামেন্টে। গত পাঁচ দশকে বহুবার এটির সংস্কার হয়েছে। সরকার ও বিরোধীদের ক্রমবর্ধমান তিক্ততার কারণে সেদিন তা ব্যর্থ হয়।

কী ঘটতে যাচ্ছে

পার্লামেন্ট ভেঙে দিয়ে আগাম নির্বাচনের জন্য একটি খসড়া প্রস্তাব পেশ করতে মঙ্গলবার বৈঠক করবে দেশটির সরকার।

যদি পার্লামেন্ট ভেঙে দেয়া হয় তবে জোট গঠনের চুক্তির শর্ত হিসেবে নতুন নির্বাচন না হওয়া পর্যন্ত ভারপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নেবেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ল্যাপিড।

কিছু রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মনে করেন, অন্য নির্বাচনে না গিয়ে একটি বিকল্প সরকার গঠনের সুযোগ রয়েছে ইসরায়েলের। কারণ ডানপন্থি সংখ্যাগরিষ্ঠ বিবেচনায় ইসরায়েলের সরকার ও বিরোধীদের দূরত্ব ডানপন্থি দলগুলোকে পার্লামেন্টে চাপের মধ্যে রাখবে।

এ ছাড়া অনেক ইসরায়েলি নির্বাচন নিয়ে ক্লান্ত। বছর ঘুরতে না ঘুরতে আরেকটি নির্বাচনে তাদের উৎসাহী না হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি।

যাই হোক, যদি দেশটি নতুন সাধারণ নির্বাচনের দিকে এগিয়ে যায়, তবে তা পার্লামেন্ট ভেঙে দেয়ার ৯০ দিনের মধ্যে অনুষ্ঠিত হতে হবে। ২৫ অক্টোবরের সম্ভাব্য তারিখ ইতোমধ্যেই আলোচনায় আছে।

নেতানিয়াহুর ফেরার মঞ্চ হতে পারে নতুন ভোট

নেতানিয়াহু আগেই জানিয়েছিলেন, দায়িত্বে ফিরবেন। তিনি বলেছিলেন, ‘মনে হয় বাতাস বদলে গেছে। আমি এটা অনুভব করতে পারছি।’

নেতানিয়াহু শিবির এখন পার্লামেন্টের স্বতন্ত্র সদস্যদের পাশাপাশি বিভিন্ন দলকে গোছানোর চেষ্টা করছে।

জনমত জরিপের পূর্বাভাস বলছে, নেতানিয়াহুর কট্টরপন্থি লিকুদ আবারও বৃহত্তম একক দল হিসেবে আবির্ভূত হবে। তবে নতুন সরকার গঠনের জন্য তিনি সংখ্যাগরিষ্ঠ আইনপ্রণেতাদের প্রয়োজনীয় সমর্থন জোগাড় করতে পারবেন কি না, তা এখনও স্পষ্ট নয়।

জনমত জরিপ পূর্বাভাস দিয়েছে যে নেতানিয়াহুর কট্টরপন্থি লিকুদ আবারও বৃহত্তম একক দল হিসেবে আবির্ভূত হবে। তবে নতুন সরকার গঠনের জন্য তিনি সংখ্যাগরিষ্ঠ আইনপ্রণেতাদের প্রয়োজনীয় সমর্থন জোগাড় করতে পারবেন কি না তা এখনও স্পষ্ট নয়।

আরও পড়ুন:
সাংবাদিক শিরিন হত্যায় ইসরায়েলি মিথ্যাচার
সিরিয়ায় ইসরায়েলি হামলা প্রতিহত রাশিয়ার
‘২২ বছরে ৪৭ ফিলিস্তিনি সাংবাদিক হত্যা’
‘তিনি ছিলেন সত্য ও ন্যায়ের কণ্ঠস্বর’
সাংবাদিক শিরিন হত্যায় পশ্চিমা মিডিয়ার ভূমিকায় তীব্র ক্ষোভ

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The Palestinian Israeli conflict is escalating

ফিলিস্তিন-ইসরায়েল সংঘাত বাড়ছেই

ফিলিস্তিন-ইসরায়েল সংঘাত বাড়ছেই এই নিরাপত্তা বেড়া ভেঙে ফেলার নির্দেশ দিয়েছে হেগের ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অফ জাস্টিস। ছবি: এএফপি
অধিকৃত পশ্চিম তীরে ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে নিহত হয়েছেন ৫৩ বছর বয়সী এক ফিলিস্তিনি। কালকিলিয়া এলাকায় ইসরায়েলের নিরাপত্তা বেড়ার কাছে নাবিল আহমেদ ঘানেম হত্যার নিন্দা জানিয়েছে ফিলিস্তিনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

অধিকৃত পশ্চিম তীরের ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে এক ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। উত্তরে কালকিলিয়া শহরে রোববার এ ঘটনা ঘটে।

ফিলিস্তিনি বার্তা সংস্থা ওয়াফা বলছে, নিহত ব্যক্তির নাম নাবিল আহমেদ ঘানেম। জলজুলিয়া গ্রামের কাছে তাকে গুলি করে হত্যা করা হয়। ৫৩ বছরের নাবিল পশ্চিম তীরের উত্তরাঞ্চলীয় শহর নাবলুসের বাসিন্দা ছিলেন।

ওয়াফার প্রতিবেদনে বলা হয়, নিরাপত্তা বেড়া অতিক্রম করার সময় নাবিলকে গুলি করা হয়। তিনি পশ্চিম তীরের হাজার হাজার ফিলিস্তিনির মতো, যারা নিয়মিত ইসরায়েলে কাজ খোঁজেন।

ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর এক মুখপাত্র বলেন, ‘সন্দেহভাজন একজনকে গুলি করা হয়েছে। তিনি নিরাপত্তা বেড়া ভাঙচুর করেছেন।’

এ ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছে ফিলিস্তিনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তারা বলছে, হত্যার জন্যই তার ওপর গুলি চালানো হয়েছে। ফিলিস্তিনিরা এবং অনেক অধিকার সংগঠন এই বেড়াকে ‘বর্ণবাদের প্রাচীর’ বলে আখ্যায়িত করেছে।

হেগের ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অফ জাস্টিস বেআইনি ঘোষণা করে ইসরায়েলকে বেড়াটি ভেঙে ফেলার নির্দেশ দিয়েছে। তবে তাতে কর্ণপাত করেনি তেল আবিব।

ফিলিস্তিনি শ্রমিক ইউনিয়ন বলছে, প্রতিদিন অন্তত ১ লাখ ৬৫ হাজার ফিলিস্তিনি পারমিট নিয়ে ইসরায়েলে কাজের জন্য প্রবেশ করে। কারও কারও কাছে ইসরায়েলে কাজ করার অনুমতি আছে; অনেকে আবার অনুমোদন ছাড়াই ইসরায়েলে ঢুকতে চায়।

নাবিলের কাছে চেকপয়েন্ট অতিক্রমের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ছিল কি না তা স্পষ্ট নয়। তার মরদেহ ইসরায়েলের কেফার সাবার মেইর মেডিক্যাল সেন্টারে নিয়ে গেছে কর্তৃপক্ষ।

সহিংসতা বাড়ছে

ফিলিস্তিনি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের হিসাবে, চলতি বছর ইসরায়েলি বাহিনীর হাতে ৬০ জনেরও বেশি ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। অন্যদিকে মার্চ থেকে ফিলিস্তিনি হামলায় ইসরায়েলে অন্তত ১৯ জন নিহত হয়েছেন।

ওয়াফার প্রতিবেদন বলছে, অধিকৃত পশ্চিম তীরের উত্তর-পশ্চিমে তুলকারমের দক্ষিণ-পশ্চিমে একটি সামরিক চেকপয়েন্টের কাছে রোববার সংঘর্ষ শুরু হয়। এ সময় পাঁচ ফিলিস্তিনিকে গ্রেপ্তার করা হয়। এদিন জেনিনের দক্ষিণ-পশ্চিমে বারতা শহরে অভিযান চালিয়ে আরও ১৩ ফিলিস্তিনিকে গ্রেপ্তার করে ইসরায়েলি বাহিনী।

জেনিনে প্রিজনার্স ক্লাবের পরিচালক মনতাসার সামুর ওয়াফাকে বলেন, ‘অভিযানটি একটি আবাসিক ভবনকে ঘিরে পরিচালিত হয়েছিল।

গত মাসে আল জাজিরার সাংবাদিক শিরিন আবু আকলেহ জেনিনে একটি অভিযান কভার করতে গিয়ে ইসরায়েলি বাহিনীর হাতে খুন হন। ৫১ বছরের শিরিন আল জাজিরা আরবি টেলিভিশনের একজন সিনিয়র সংবাদদাতা ছিলেন। চ্যানেলটি চালু হওয়ার এক বছর পর ১৯৯৭ সালে সেখানে যোগ দেন তিনি।

ফিলিস্তিনের অনেকেই শিরিনকে ২০০০ সালে শুরু হওয়া দ্বিতীয় ইন্তিফাদা বা বিদ্রোহের সময় পশ্চিম তীরের প্রধান শহরগুলোতে ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর বড় বড় হামলা কভার করার জন্য মনে রাখবে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এই হত্যার নিন্দা জানিয়ে স্বাধীন তদন্তের আহ্বান জানিয়েছে।

আরও পড়ুন:
সিরিয়ায় ইসরায়েলি হামলা প্রতিহত রাশিয়ার
‘২২ বছরে ৪৭ ফিলিস্তিনি সাংবাদিক হত্যা’
‘তিনি ছিলেন সত্য ও ন্যায়ের কণ্ঠস্বর’
সাংবাদিক শিরিন হত্যায় পশ্চিমা মিডিয়ার ভূমিকায় তীব্র ক্ষোভ
ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে আল জাজিরার সাংবাদিক নিহত

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
India is sending dung to Kuwait amid anklet controversy

নূপুর বিতর্কের মধ্যেই ভারত থেকে গোবর কিনছে কুয়েত

নূপুর বিতর্কের মধ্যেই ভারত থেকে গোবর কিনছে কুয়েত ভারতের দেশি গোবরের চাহিদা বাড়ছে বিভিন্ন দেশে। ছবি: সংগৃহীত
সানরাইজ এগ্রিল্যান্ড অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট রিসার্চ প্রাইভেট লিমিটেডের পরিচালক প্রশান্ত চতুর্বেদী বলেন, ‘সম্ভবত এই প্রথম ভারত থেকে দেশি গরুর গোবর আমদানি করছে কুয়েত। জয়পুরের টঙ্ক রোডের শ্রীপিঞ্জরাপোল গোশালায় অবস্থিত সানরাইজ অর্গানিক পার্কে শুল্ক দপ্তরের তত্ত্বাবধানে কনটেইনারে গোবর প্যাক করার কাজ চলছে।

মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-কে নিয়ে কটূক্তির জেরে ভারতের সঙ্গে আরব বিশ্বের টানাপড়েনের মধ্যেই দিল্লির সঙ্গে বাণিজ্য চুক্তি করেছে কুয়েত সিটি। জয়পুরভিত্তিক একটি প্রতিষ্ঠান দেশটিতে দেশি গোবর রপ্তানি করছে।

ভারতের সংবাদমাধ্যমগুলোয় বলা হয়, কুয়েতভিত্তিক প্রতিষ্ঠান লামোর ১৯২ টন গোবর আমদানির অর্ডার দিয়েছে। ভারতের জৈব কৃষক প্রযোজক সমিতির জাতীয় সভাপতি অতুল গুপ্ত বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘জয়পুরের সানরাইজ এগ্রিল্যান্ড অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট রিসার্চ প্রাইভেট লিমিটেড এ আদেশ পেয়েছে।’

ভারতের কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন বিজেপির মুখপাত্র নূপুর শর্মা মহানবীকে নিয়ে অবমাননাকর মন্তব্য করার পর কুয়েতসহ অন্তত ১৫ মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ ভারতীয় রাষ্ট্রদূতকে তলব করেছিল। কুয়েতবাসীও ভারতীয় পণ্য বয়কটের দাবি জানায়। কিছু সুপার মার্কেটের তাক থেকে সরিয়ে দেয়া হয় ভারতীয় পণ্য।

বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক ক্ষোভের পর নূপুর শর্মাকে বরখাস্ত করেছে বিজেপি। আর এমন প্রেক্ষাপটেই এলো কুয়েতে গোরব রপ্তানির খবর।

সানরাইজ এগ্রিল্যান্ড অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট রিসার্চ প্রাইভেট লিমিটেডের পরিচালক প্রশান্ত চতুর্বেদী বলেন, ‘সম্ভবত এই প্রথম ভারত থেকে দেশি গরুর গোবর আমদানি করছে কুয়েত। জয়পুরের টঙ্ক রোডের শ্রীপিঞ্জরাপোল গোশালায় অবস্থিত সানরাইজ অর্গানিক পার্কে শুল্ক দপ্তরের তত্ত্বাবধানে কনটেইনারে গোবর প্যাক করার কাজ চলছে।

‘প্রথম চালানটি ১৫ জুন কনাকাপুরা রেলওয়ে স্টেশন থেকে পাঠানো হয়েছে।’

নূপুর বিতর্কের মধ্যেই ভারত থেকে গোবর কিনছে কুয়েত

অতুল গুপ্ত বলেন, ‘২০২০-২১ অর্থবছরে ভারত থেকে পশু পণ্যের রপ্তানি হয়েছিল ২৭ কোটি ১ লাখ ৫৫ হাজার রুপির। প্রতিনিয়ত বাড়ছে জৈব সারের চাহিদা। গবেষণায় দেখা গেছে, এটি কেবল ফসলের উৎপাদন বাড়ায় না, এর থেকে উৎপাদিত পণ্য ব্যবহার করলে মারাত্মক রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।’

দেশি গোবরে বাড়ছে আগ্রহ

জৈব সারের উপকারিতার কারণে দিনে দিনে বাড়ছে চাহিদা। ভারত থেকে জৈব সারসহ দেশি গোবর আমদানি শুরু করেছে অনেক দেশ।

অতুল গুপ্ত বলেন, ‘কুয়েতের কৃষিবিজ্ঞানীরা ব্যাপক গবেষণার পর খেজুর ফসলে গুঁড়া আকারে দেশি গোবর ব্যবহারের উপকারিতা খুঁজে পেয়েছেন। এটির ব্যবহারে ফলের আকার বৃদ্ধির পাশাপাশি উৎপাদনও আশানুরূপ বেড়েছে।

জৈব চাষে কুয়েতের বাজি

জলবায়ু ও পানির সংকটে কুয়েতের কৃষিকাজ প্রায় অসম্ভব। উপসাগরীয় সহযোগিতা পরিষদের (জিসিসি) অন্যান্য দেশের মতো তাই কুয়েতকেও খাদ্য চাহিদা মেটাতে আমদানির ওপর ব্যাপকভাবে নির্ভর করতে হয়।

তবে বাস্তবতা বুঝতে পেরেছে কুয়েত সরকার। আগে যেখানে কুয়েতে কৃষিকাজকে শখের কাজ হিসেবে দেখা হতো, সেই কুয়েত গত কয়েক বছরে বিষয়টিকে গুরুত্বসহকারে দেখছে।

নূপুর বিতর্কের মধ্যেই ভারত থেকে গোবর কিনছে কুয়েত

কৃষিবিষয়ক এবং মৎস্য সম্পদের জন্য পাবলিক অথরিটির জৈব কৃষি বিভাগের ব্যবস্থাপক আব্দুল রহমান আল-ফ্রাইহ বলেন, ‘দেশের আবহাওয়ায় চাষাবাদের জন্য বিভিন্ন দেশ থেকে কৌশল শেখা হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
কুয়েতের উৎসব কুমিল্লায়
কুয়েতে প্রধানমন্ত্রী পদে শেখ সাবাহ খালিদের পুনর্নিয়োগ
পদত্যাগপত্র জমা কুয়েত সরকারের
সরাসরি কুয়েত যেতে পারবে না বাংলাদেশিরা

মন্তব্য

p
উপরে