ভারতে আশ্রয়ের অপেক্ষায় মিয়ানমারের ৬ হাজার মানুষ

ভারতে আশ্রয়ের অপেক্ষায় মিয়ানমারের ৬ হাজার মানুষ

মিয়ানমারের উত্তর ও পূর্ব সীমান্তে সেনাবাহিনী ও বিভিন্ন নৃগোষ্ঠীর বিচ্ছিন্নতাবাদীদের মধ্যে সংঘাতে আশ্রয়হীন হয়েছেন বহু মানুষ। ছবি: এএফপি

মিয়ানমারে অবস্থানরত জাতিসংঘের একটি দল প্রতিবেশি দেশগুলোর প্রতি শরণার্থীদের আশ্রয়দান ও সুরক্ষার ব্যবস্থার আহ্বান জানিয়েছে। একইসঙ্গে তাদের মানবিক সহায়তা দেয়ার জন্য ত্রাণকর্মীদের প্রবেশাধিকারও চেয়েছে।

গত সাড়ে তিন মাসে মিয়ানমারের প্রায় চার থেকে ছয় হাজার নাগরিক প্রতিবেশি ভারতে আশ্রয় চেয়েছেন। জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর জানিয়েছে এ তথ্য।

টাইমস অফ ইন্ডিয়ার প্রতিবেদনে বলা হয়, মিয়ানমারে ১ ফেব্রুয়ারির সেনা অভ্যুত্থানের পর থেকে গত সপ্তাহ পর্যন্ত গৃহহীন হয়েছেন প্রায় ৬১ হাজার নারী ও শিশু।

জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্র স্তেফানে দুজাররিচ বুধবার এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, মার্চ ও এপ্রিলে সীমান্ত পেরিয়ে প্রতিবেশি থাইল্যান্ডে প্রবেশ করেছিলেন এক হাজার সাতশ’র বেশি শরণার্থী। তাদের বেশিরভাগই মিয়ানমারে ফিরে গেছেন। আর প্রায় ছয় হাজার মানুষ আশ্রয় চেয়েছেন ভারতে।

ভারতের সঙ্গে এক হাজার ৬০০ কিলোমিটারের বেশি স্থলসীমান্ত রয়েছে ভারতের। বঙ্গোপসাগরেও দেশ দুটির রয়েছে সাধারণ সীমান্ত।

ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় চার রাজ্য অরুণাচল প্রদেশ, নাগাল্যান্ড, মনিপুর ও মিজোরামের অবস্থান মিয়ানমার সীমান্তে।

মিয়ানমারে অবস্থানরত জাতিসংঘের একটি দল প্রতিবেশি দেশগুলোর প্রতি শরণার্থীদের আশ্রয়দান ও সুরক্ষার ব্যবস্থার আহ্বান জানিয়েছে। একইসঙ্গে তাদের মানবিক সহায়তা দেয়ার জন্য ত্রাণকর্মীদের প্রবেশাধিকারও চেয়েছে।

এছাড়া মিয়ানমারের সেনাবাহিনীকে নির্বিচার গোলাগুলি ও হত্যাকাণ্ড থেকে বিরত থাকারও আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ।

১ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারের রাষ্ট্রীয় উপদেষ্টা অং সান সু চিকে গ্রেপ্তার ও নির্বাচিত সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করে দেশটির সেনাবাহিনী। তখন থেকেই গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের দাবি গণআন্দোলন চলছে মিয়ানমারে।

প্রায় তিন মাসের আন্দোলনে নিরাপত্তা বাহিনীর হামলায় নিহত হয়েছে আট শতাধিক বিক্ষোভকারী।

অ্যাসিস্ট্যান্স অ্যাসোসিয়েশন ফর পলিটিক্যাল প্রিজনার্স (এএপিপি) মঙ্গলবার প্রকাশিত সবশেষ প্রতিবেদনে জানিয়েছে, দেশের বিভিন্ন শহর থেকে এ পর্যন্ত চার হাজার ১৪৬ জনকে গ্রেপ্তার করেছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। এদের মধ্যে ৯২ জনকে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

এ সময়ে মিয়ানমারের উত্তর ও পূর্ব সীমান্তে সেনাবাহিনী ও বিভিন্ন নৃগোষ্ঠীর বিচ্ছিন্নতাবাদীদের মধ্যে সংঘাতও তীব্র হয়েছে।

এ অবস্থায় অভ্যন্তরীণ শরণার্থীর সংখ্যা উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে বলেও জানিয়েছেন দুজাররিচ।

আরও পড়ুন:
মিয়ানমারে সাড়ে তিন মাসে নিহত ৮০২
মিস ইউনিভার্সের মঞ্চে মিয়ানমারের প্রতিযোগীর আর্তি
সৌন্দর্য প্রতিযোগিতার মঞ্চ থেকে রণাঙ্গনে
মিয়ানমারে বিমান বাহিনীর ২ ঘাঁটিতে হামলা
আসিয়ান সম্মেলনে যেতে চায় মিয়ানমারের ছায়া সরকার

শেয়ার করুন

মন্তব্য